যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 07:29am

|   লন্ডন - 01:29am

|   নিউইয়র্ক - 08:29pm

  সর্বশেষ :

  সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর বিমান হামলা, নিহত ৯৪   রাশিয়ার চার্চে বন্দুকধারীর হামলা, নিহত ৫   তৃতীয়বারের মতো বিয়ে করলেন ইমরান খান   পুরুষের অনুমতি ছাড়া ব্যবসা করতে পারবে সৌদি নারীরা   ভারতে ট্রাম্পের নাম ভেঙ্গে ফ্ল্যাট বিক্রি   ইরানে বিধ্বস্ত উড়োজাহাজের ধ্বংসাবশেষের সন্ধান   বিএনপি নির্বাচনে না এলে কিছু করার নেই : সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী   রায়ের কপি পেলেন খালেদার আইনজীবীরা, জামিন আবেদন কাল   কুষ্টিয়া জেলা সমিতি ইউএসএ ইনকের শীত বস্ত্র বিতরণ   ইতালীতে দু’টি শহীদ মিনারেরই বেহাল অবস্থা   ফিল্মফেয়ারে সেরা অভিনেত্রী জয়া আহসান   স্কুলে বন্ধুক হামলার ঘটনায় এফবিআইয়ের কড়া সমালোচনা ট্রাম্পের   ডিসেম্বর নয়, আজকেই অবসরে যান : মুহিতকে বাবলু   নো-ম্যান্স ল্যান্ডে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার প্রস্তুতি মিয়ানমারের!   বাংলাদেশ থেকে কার্গো পরিবহনে বাধা তুলে নিল যুক্তরাজ্য

>>  আইটি এর সকল সংবাদ

নিজের নম্বর গোপন রেখে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট

বিশ্বে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা ১৫০ কোটির বেশি। ফেসবুকের মালিকানাধীন জনপ্রিয় এই মেসেজিং অ্যাপে প্রতিদিন ৬ হাজার কোটি মেসেজ আদান-প্রদান হয়।

নানা সুবিধা রয়েছে হোয়াটসঅ্যাপে। কিন্তু আপনি কি এটা জানেন যে, নিজের নম্বর গোপন রেখেই চ্যাটিং করা সম্ভব হোয়াটসঅ্যাপে। আর এজন্য আপনাকে ইনস্টল করতে হবে একটি অ্যাপ। যা পাওয়া যাবে গুগল স্টোরেই। অ্যাপটির নাম ‘প্রিমো‌’।

প্রিমো অ্যাপ ব্যবহার করলে আপনি যার সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে চ্যাটিং করবেন, তিনি আপনার নম্বরের পরিবর্তে দেখতে পাবেন যুক্তরাষ্ট্রের একটি ‌‘ভার্চুয়াল’‌ নম্বর।

এজন্য যা করতে হবে তা

বিস্তারিত খবর

ফ্লোরিডা থেকে বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী রকেটের মহাকাশ-যাত্রা শুরু

 প্রকাশিত: ২০১৮-০২-০৭ ১২:৪৬:৫৬

রকেটটির নাম ফ্যালকন হেভি। ফ্লোরিডার কেনেডি স্পেস সেন্টার থেকে যখন সেটির উৎক্ষেপণ হচ্ছিল তখন শোনা যাচ্ছিলো উচ্ছ্বসিত দর্শকদের হর্ষধ্বনি।

এক ব্যবসায়ীর খেয়ালি পরীক্ষা বা ঝুঁকিপূর্ণ উদ্যোগ বলে এই রকেট প্রকল্প নিয়ে নানা রকম আশংকা ছিল। কিন্তু সফলভাবেই ব্যাপক বেগের সাথে আটলান্টিক মহাসাগরের উপর দিয়ে মহাকাশের উদ্দেশে উড়ে গেছে এটি।

এখনকার দিনে বিশ্বের সবচেয়ে সফল ও মেধাবী উদ্যোক্তাদের একজন ইলন মাস্কের কোম্পানি স্পেস এক্সের পরীক্ষামূলক এই রকেটটি বর্তমান যেকোনো মডেলের থেকে দ্বিগুণ ভার বহন করতে পারে। এই রকেট ৬৪ টন ওজনের বস্তু পৃথিবীর কক্ষপথে পৌঁছে দেয়ার ক্ষমতা রাখে। যা লন্ডনের রাস্তায় চলা ৫টি দোতলা বাসের সমান।

তবে পরীক্ষামূলক এই মিশনে রকেটটিতে ইলন মাস্ক তুলে দিয়েছেন নিজের ব্যবহৃত একটি পুরনো স্পোর্টস কার। তার ভেতরে বসিয়ে দেয়া হয় একটি ম্যানিকিন। আর ভেতরে বাজছিল ডেভিড বাউয়ির গান। কিন্তু এত জাঁকজমকের সাথে যাত্রা শুরু করা রকেটটির এই মিশনের কোনো গন্তব্য নেই। এটিকে নিয়ে মুল উত্তেজনা হলো মহাকাশ যাত্রায় তা নতুন দ্বার উন্মোচন করবে বলে মনে করা হচ্ছে।

রকেটটি যেমন শক্তিশালী তেমনি এর খরচও কমিয়ে আনা হয়েছে দ্বিতীয় শক্তিশালী রকেটের তিন ভাগের একভাগ।

মহাকাশে স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ এই মিশনের উদ্দেশ্য বলে মনে করা হচ্ছে। ফ্যালকন হেভির মতো রকেটের মাধ্যমে ইলন মাস্কের কোম্পানি আরো বেশি সংখ্যায় এবং বড় আকারের স্যাটেলাইট মহাকাশে পৌঁছে দিতে পারবে।

মহাকাশের নতুন রেসে এভাবেই এখন নেতৃত্ব দিচ্ছে কোন রাষ্ট্র নয় বরং ব্যাক্তিমালিনাধীন কোম্পানি।

আন্তর্জাতিক স্পেস সেন্টার ঘুরে আসা একজন নভোচারী কমান্ডার লিরয় চাও এই উৎক্ষেপণ দেখার পর তার অনুভূতি ব্যাখ্যা করে বলছিলেন তার কাছে দিনটি একটি মহা উত্তেজনার দিন।

ভবিষ্যতে মহাকাশে অনুসন্ধান ও গবেষণার কাজে এটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

যুক্তরাষ্ট্রের গ্রাহকদের আরো স্থানীয় সংবাদ দেবে ফেসবুক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-৩১ ১০:৩৮:৩৯

ফেসবুক জানিয়েছে, তারা মার্কিন গ্রাহকদের কাছে আরো স্থানীয় সংবাদ সরবরাহ করবে। অনেক প্রভাবশালী এ সামাজিক নেটওয়ার্কের তথ্য প্রবাহ আরো বাড়ানোর ক্ষেত্রে এটি তাদের সর্বশেষ প্রচেষ্টা। 
এ মাসের গোড়ার দিকে ফেসবুকের পক্ষ থেকে দেয়া ঘোষণায় ভুল তথ্যের বিস্তার ঠেকানো প্রচেষ্টার পাশাপাশি সংবাদ সূত্রের ক্ষেত্রে তাদের বিশ্বাসযোগ্যতার মাত্রা বৃদ্ধি করে এ নেটওয়ার্কের গ্রাহক সংখ্যা ২শ’ কোটিতে উন্নীত করা কথা বলা হয়।

এ অনলাইন জায়ান্ট মিথ্যা সংবাদের বিস্তার রোধে (বিশেষকরে ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকালীন সময়ের) ব্যর্থ হয়েছে তাদের বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ ওঠার পর তা মোকাবেলায় এ পরিবর্তনের ঘোষণা দেয়া হলো।

এ সামাজিক নেটওয়ার্কে দেয়া এক পোস্টে ফেসবুক কো-ফাউন্ডার ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জুকার্সবার্গ বলেন, ‘স্থানীয় সংবাদ অন ও অফলাইন উভয় ক্ষেত্রে কমিউনিটি গড়ে তোলার জন্য সহায়ক হচ্ছে।

‘ফেসবুকে আমাদের সময় কাটানোর ক্ষেত্রে এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ।’

জুকার্সবার্গ গত বছর সারা যুক্তরাষ্ট্র সফর করে ফেসবুক গ্রাহকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

‘এ সময় ফেসবুক ব্যবহারকারীদের অনেকে আমাকে বলেছেন যে অধিক বিতর্কিত বিভিন্ন বিষয় এড়িয়ে তার স্থলে স্থানীয় গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন বিষয়ের ওপর নজর দেয়া যেতে পারে।’

তিনি ফেসবুক গ্রাহকদের সাথে কথা বলে আরো জানতে পেরেছেন যে স্থানীয় সংবাদ দেয়া হলে এটা কমিউনিটির জন্য ইতিবাচক হবে।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ক্লিপস ক্যামেরা আনলো গুগল

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-৩১ ০৯:৫৭:২২

কোনও প্রচারণা ছাড়াই ক্লিপস ক্যামেরা বাজারে ছেড়েছে গুগল। ছোট আকৃতির এই ক্যামেরাটি কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা সম্পন্ন। মজার কিছু সামনে পেলে নিজে থেকেই ছবি তুলে নিতে পারে এটি।
গত অক্টোবরে ক্লিপস ক্যামেরা প্রথমবারের মতো সবার সামনে নিয়ে আসে গুগল। তবে সেটা ছিল অনেকটা প্রদর্শনীর মতো। এবার গ্রাহকদের জন্য আনুষ্ঠানিকভাবে ক্লিপস ক্যামেরা সরবরাহ শুরু করেছে নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি। ২৭ জানুয়ারি এর বিক্রি শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম।
নিজেই ছবি তোলার পাশাপাশি ক্লিপস ক্যামেরা স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিস্থিতি অনুযায়ী ছবির রেজ্যুলেশন ঠিক করে নিতে পারে। তাছাড়া এই ক্যামেরায় রয়েছে মোমেন্ট আইকিউ যা একটি অনবোর্ড ও অফলাইন লার্নিং মডেল। সেই সঙ্গে এতে রয়েছে একটি ভিজুয়াল প্রসেসিং ইউনিট যা স্বয়ংক্রিয়ভাবে সঠিক মুখভঙ্গি, আলো, ফ্রেমিং শনাক্তের মাধ্যমে অর্থপূর্ণ ছবি ধারণে সক্ষম।
গুগলের এই বিশেষ ধরনের ক্যামেরাটি বিক্রি হচ্ছে ২৪৯ মার্কিন ডলারে। তবে এটা তাৎক্ষণিকভাবে কেউ কিনতে পারছেন না। যারা আগে থেকেই অনুরোধ জানিয়ে রেখেছে, শুধু তাদেরকেই সরবরাহ করা হচ্ছে ক্লিপস ক্যামেরাটি।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

যুক্তরাজ্যে প্রতি ৪ জনে ৩ জনেরই আস্থা নেই ফেসবুক-টুইটারে!

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-২২ ১২:০২:৫৪

যুক্তরাজ্যে প্রতি চারজনের মধ্যে মাত্র একজন ফেসবুক-টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ওপর আস্থা রাখেন; তার মানে শতকরা ৭৫ ভাগ ব্রিটিশেরই আস্থা নেই এতে। তাঁরা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ওপর কঠোর নিয়ন্ত্রণ দেখতে চান।

এডেলম্যান ট্রাস্ট ব্যারোমিটারের বার্ষিক জরিপে এ কথা বলা হয়েছে। বিশ্বব্যাপী ব্যবসা, সরকার, বেসরকারি সংস্থা ও গণমাধ্যমের প্রতি মানুষের বিশ্বাস কতটুকু, তা নিয়ে জরিপ চালিয়ে থাকে এডেলম্যান ট্রাস্ট ব্যারোমিটার।

সংস্থাটির জরিপে দেখা গেছে, দেশটি দুই-তৃতীয়াংশ নাগরিক মনে করেন, ফেসবুক টুইটারের মতো প্ল্যাটফর্মগুলো জঙ্গিবাদসহ অনৈতিক ও অবৈধ কর্মকাণ্ড প্রতিরোধে যথেষ্ট ব্যবস্থা নিচ্ছে না।
তবে যুক্তরাজ্যের জনগণের মধ্যে প্রচলিত সাংবাদিকতার প্রতি বিশ্বাস গত বছরে উল্লেখযোগ্যভাবে বেড়েছে। এডেলম্যান বলছে, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম মাধ্যমগুলোর পদক্ষেপ নেওয়ার সময় এসেছে। বিপণন ও জনসংযোগ প্রতিষ্ঠান এডেলম্যান যুক্তরাজ্যের প্রধান নির্বাহী এড উইলিয়ামস বলেন, ‘অনলাইনে নিরাপত্তা-সংশ্লিষ্ট মূল ইস্যুগুলোর বিষয়ে জনগণ পদক্ষেপ চায়। এসব বিষয়ে পদক্ষেপ না নিলে মানুষের মধ্যে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের প্রতি আস্থা আরও কমবে।’

এডেলম্যান বলছে, যুক্তরাজ্যের অর্ধেকের বেশি নাগরিক ভুয়া খবরের বিষয়ে চিন্তিত। ৬৪ শতাংশ মানুষ বলেছে, তারা ভুয়া খবর ও প্রকৃত সাংবাদিকতার মধ্যে পার্থক্য করতে পারে না।

সম্প্রতি ফেসবুক তাদের প্ল্যাটফর্মে ভুয়া খবর প্রতিরোধের ঘোষণা দিয়ে বলেছে, খবরের কোন কোন সূত্রকে ব্যবহারকারীরা বিশ্বাসযোগ্য বলে মনে করেন, সে বিষয়ে জরিপ চালানোর পরিকল্পনা করেছে ফেসবুক এবং জরিপের মাধ্যমে খবরের ভুয়া উৎসকে শনাক্ত করে তা বন্ধ করবে তারা। ফেসবুকের এ ঘোষণার মধ্যে এডেলম্যান তাদের জরিপের ফল ঘোষণা করল।

এডেলম্যানের জরিপে দেখা গেছে, ৬৩ শতাংশ মানুষ মনে করেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলোর মধ্যে স্বচ্ছতার অভাব রয়েছে। ৬২ শতাংশ মনে করেন, এসব কোম্পানি ব্যবহারকারীদের অজ্ঞাতে তাদের তথ্য বিক্রি করছে।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ভুয়া খবরের প্রচার ঠেকাতে ‘বিশ্বস্ত সংবাদমাধ্যম’র র‍্যাংকিং করবে ফেসবুক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-২০ ১১:৫২:১৯

দুইশ কোটি ব্যবহারকারীকে নিজেদের বিশ্বস্ত সংবাদসূত্রের র‍্যাংকিং করার সুযোগ দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুক। আগামী সপ্তাহ থেকে এই র‍্যাংকিং শুরু হবে। শুক্রবার প্রতিষ্ঠানটির সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান নির্বাহী মার্ক জাকারবার্গ এই ঘোষণা দেন। সামাজিক মাধ্যমে ভুয়া খবরের প্রচার ঠেকানোর সর্বশেষ কৌশল হিসেবে উদ্যোগটি নিতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি।

জাকারবার্গ লিখেছেন, বিশ্বে এখন অনেক বেশি সেনসেশনালিজম, ভুল তথ্য ও মেরুকরণ চলছে। সামাজিক মাধ্যমের কারণে অতীতের যে কোনও সময়ের চেয়ে তথ্য দ্রুত ছড়ায়। আমরা যদি নির্দিষ্টভাবে এই সমস্যা মোকাবিলা না করি তাহলে শেষ পর্যন্ত সেগুলোকে বাড়তেই সহযোগিতা করব। জাকারবার্গ জানান, ফেসবুকের এই ‘বিশ্বস্ত মাধ্যমে’র র‍্যাংকিং শুরু হবে আগামী সপ্তাহে। এই র‍্যাংকিংয়ের লক্ষ্য হচ্ছে ‘ভালো মানের সংবাদ’ নিশ্চিত করা।

ব্যবহারকারীদের র‍্যাংকিং করতে দেওয়ার বিষয়ে জাকারবার্গ লিখেছেন, এই সিদ্ধান্ত আমরাই নিতে পারতাম। কিন্তু এই বিষয়ে আমরা স্বচ্ছন্দ নই। আমরা কোম্পানির বাইরের বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নেওয়ার কথা বিবেচনা করেছিলাম। এতে এই বিষয়ে সিদ্ধান্ত আমাদের আয়ত্তের বাইরে চলে যেত কিন্তু সমস্যার বস্তুনিষ্ঠ সমাধান হতো না।

নতুন এই র‍্যাংকিং পাঠক ও দর্শকের বিশ্বস্ত সংবাদ প্রতিষ্ঠানগুলোকে সমাজের অন্যান্য প্রতিষ্ঠান থেকে আলাদা করবে। জাকারবার্গ লিখেছেন, এই আপডেটের কারণে ফেসবুকে দেখতে পাওয়া সংবাদের পরিমাণ কমবে না। তবে পাঠক বিশ্বস্ত মাধ্যমের যেসব খবরে চোখ রাখেন তার ভারসাম্যে পরিবর্তন ঘটবে।

এর আগে ১২ জানুয়ারি নিউজ ফিডে বড় ধরনের পরিবর্তন আনার ঘোষণা দেয় ফেসবুক। প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছিল, এখন থেকে সংবাদ, সেলিব্রেটি ও পেজের চেয়ে বন্ধু ও পরিবারের সদস্যদের পোস্টকে অগ্রাধিকার দিয়ে তা ব্যবহারকারীর ওয়ালে দেখানো হবে। 

এ বিষয়ে জাকারবার্গ ফেসবুক পেজে লিখেছিলেন, আমরা যখন এটা চালু করব আপনারা নিউজ ফিডে বাণিজ্যিক, পণ্য ও সংবাদমাধ্যমের পোস্ট অনেক কম দেখতে পাবেন। এছাড়া যেসব পাবলিক কনটেন্ট আপনারা পাবেন তাও হবে একই মানের। তা যেন মানুষের মধ্যে অর্থবহ মিথষ্ক্রিয়া সৃষ্টিতে অনুপ্রেরণা জোগায়।

২০১৬ সালে মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের পর ভুয়া খবর প্রচারের জন্য ফেসবুক, গুগল ও টুইটারের বিরুদ্ধে সমালোচনার ঝড় ওঠে। ফেসবুক এই সমস্যা মোকাবিলায় বেশ কিছু পরিবর্তন এনেছে। এরপরও ভুয়া খবরের প্রচার রোধ করতে না পারায় ফেসবুক এসব পদক্ষেপ গ্রহণ করছে।


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ফেসবুকে বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-১৩ ০০:০২:০২

ফেসবুকে যে এ বছরই বড় পরিবর্তন আসবে—এমন আভাস আগেই দিয়েছিলেন এর সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। এ বছর তার চ্যালেঞ্জ ফেসবুককে ‘ঠিক’ করার। শুরুতেই ব্র্যান্ড, ব্যবসা ও মিডিয়ার পেজগুলোর জন্য বড় ধাক্কা দিলেন। এ ধরনের পেজগুলো এখন গুরুত্বহীন হয়ে যাবে। গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে বন্ধুদের দেওয়া স্ট্যাটাস, মন্তব্য, ভিডিও। হঠাৎ ফেসবুকের কী হলো? ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, ফেসবুকে শিগগিরই বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে। ফেসবুকের নিউজফিডে এখন যে ধরনের খবর, ভিডিও, ছবি বা তারকার যে পোস্টের প্রাধান্য দেখতে পান, তা আর দেখা যাবে না। এর পরিবর্তে আপনার বন্ধু, পরিবার বা যাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ বেশি হয়, তাদের পোস্টকে বেশি প্রাধান্য দেওয়া হবে। এর কারণ ব্যাখ্যা করেছেন ফেসবুকের মূল পাতার ব্যবস্থাপক জন হেজেমান। হেজেমান জানান, এটা বড় একটি পরিবর্তন। তবে আমরা জানি, ‘এতে ফেসবুকে মানুষের সময় কাটানোর পরিমাণ কমে যাবে কিন্তু যেটুকু সময় এখানে তারা থাকবে সেটা আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে। শেষ পর্যন্ত ব্যবসার জন্য ভালো হবে। উদাহরণ হিসেবে এক দম্পতির পোস্ট করা নিজেদের ভিডিও ক্লিপের কথা বলা যায়। কোনো বিখ্যাত তারকা বা রেস্তোরার টুকরো কিছু তুলে ধরার চেয়ে ওই দম্পতির ভিডিও বেশি আর্কষণীয়।’

হেজেমানের দাবি, পরোক্ষভাবে কনটেন্ট গ্রহণের চেয়ে মানুষের মধ্যে যোগাযোগের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে কাজ করা বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তাই এখন পর্যন্ত যতো হালনাগাদ আনা হচ্ছে, এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ। এ প্রসঙ্গে ফেসবুকের সহ-প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ বলেন, মানুষকে একসঙ্গে আনতে পারা ও কমিউনিটিগুলোকে শক্তিশালী করা বাস্তবে বেশি অগ্রাধিকার পাবে। শিগগিরই বিশ্বজুড়ে ফেসবুক ব্যবহারকারীরা এ পরিবর্তন দেখতে পাবেন। জাকারবার্গ তাঁর ফেসবুক পেজে লিখেছেন, নিউজফিডে পরিবর্তন এলে আপনারা ব্যবসা, ব্র্যান্ড ও মিডিয়ার পোস্ট কম দেখতে পাবেন। ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টের মাধ্যমে এ পরিবর্তন আনার কথা জানিয়েছেন ফেসবুকের সহপ্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গ। দীর্ঘদিন ধরে ফেসবুকের মূল পাতা সম্পর্কে বিভিন্ন অভিযোগ আসছিল। মূল পাতায় ব্যক্তিগত পোস্টের চেয়ে বিভিন্ন পেজের পোস্টকেই বেশি দেখা যায়, এমনটা জানিয়ে আসছিলেন ব্যবহারকারীরা। আর তাই ফেসবুকের ব্যবহারকে সুখকর করে তুলতে নতুন এ পরিবর্তন আনার কথা জানিয়েছেন মার্ক জাকারবার্গ। ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতাকে সাবলীল করে তোলা ফেসবুকের দায়িত্ব বলে জানান তিনি। জাকারবার্গ বলেন, ‘আমরা যখন এটা চালু করব, আপনারা নিউজ ফিডে বাণিজ্যিক পণ্য ও সংবাদমাধ্যমের পোস্ট অনেক কম দেখতে পাবেন। এ ছাড়া যেসব সর্বজনীন বিষয় আপনারা পাবেন, তা-ও হবে একই মানের। তা যেন মানুষের মধ্যে অর্থবহ অন্তরঙ্গতা সৃষ্টিতে উৎসাহ জোগায়।’ ফেসবুকের মূল পাতার ব্যবস্থাপক জন হেজেমান জানান, ফেসবুক মূল পাতাকে ব্যবহারকারীর কাছে আরও ভালোভাবে উপস্থাপন করার ব্যাপারে অনেক দিন ধরেই গবেষণা করছে। নতুন এ পরিবর্তনের ফলে ব্যবহারকারীদের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্কের উন্নতি হবে। আর এটাই ফেসবুকের মূল লক্ষ্য বলে উল্লেখ করেন হেজেমান। ফেসবুকের মূল পাতার অ্যালগরিদমে বড় পরিবর্তন এবারই প্রথম নয়। ২০১৬ সালে মার্কিন নির্বাচনে রুশ হস্তক্ষেপের পর ভুয়া খবর প্রচারের অভিযোগ ওঠায় ফেসবুক বেশ কিছু পরিবর্তন নিয়ে এসেছে এর মূল পাতায়। এ ছাড়া নেতিবাচক ও মানুষের পছন্দ নয়—এমন পোস্ট দ্রুত অপসারণেও কাজ করছে ফেসবুক। তবে নতুন এ পরিবর্তনের ফলে ফেসবুকের বেশ খরচা হতে চলেছে বলে নিজেই স্বীকার করেছেন মার্ক জাকারবার্গ।
এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধার অভিনব সানগ্লাস

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-০৯ ১১:০০:২১

স্পেক্ট্যাকেলস-এর কথা নিশ্চয় মনে আছে। ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধার এই সানগ্লাস ২০১৬ সালে বাজারে নিয়ে আসে মেসেজিং অ্যাপ স্ন্যাপচ্যাট।

এবার আরো একটি কোম্পানি ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধার অভিনব সানগ্লাস নিয়ে এসেছে। স্মার্ট সানগ্লাসটির নাম ‘এসিই আইওয়্যার’। এটি তৈরি করেছে ইলেকট্রিক স্কেটবোর্ড নির্মাতা প্রতিষ্ঠান অ্যাকটন।

স্পেক্ট্যাকেলস সানগ্লাসে যেখানে কেবল ৩০ সেকেন্ড ভিডিও রেকর্ডিং এবং তা স্ন্যাপচ্যাটে পোস্ট করা যায়, সেখানে নতুন এসিই আইওয়্যার সানগ্লাসে টানা ৪০ মিনিট ভিডিও রেকর্ডিং সম্ভব।

শুধু তাই নয়, এসিই আইওয়্যার সানগ্লাসে তোলা ছবি বা ভিডিও স্মার্টফোন অ্যাপের মাধ্যমে ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম বা ইউটিউবে যেমন পোস্ট করা যাবে, তেমনি আবার এসব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে ভিডিও লাইভ স্ট্রিমিংও করা যাবে।

এসিই আইওয়্যার সানগ্লাস ৮ মেগাপিক্সেল মানের ছবি এবং এইচডি মানের ভিডিও রেকর্ডিং সুবিধাসম্পন্ন। এই সানগ্লাসের ক্যামেরা ঘুরবে ১২০ ডিগ্রি পর্যন্ত। সানগ্লাসটি ৪ জিবি মেমোরি সমৃদ্ধ। ৪০ মিনিট ভিডিও রেকর্ডি করা যাবে। ক্যামেরার ব্যাটারি টানা চলবে টানা দেড় ঘণ্টা, স্ট্যান্ডবাই মোডে ৮০ ঘণ্টা।

স্নানগ্লাসে যে ক্যামেরা রয়েছে, তা বাইরে থেকে দেখে বোঝার উপায় নেই। গোপনে ফটো ও ভিডিও ধারণ করা যাবে বিধায় অনেকেই মনে করছেন এটা মানুষের ব্যক্তিস্বাধীনতা নষ্ট করতে পারে। সানগ্লাসের উপরে বাঁ দিকের ফ্রেমে বোতাম চেপে ছবি তোলা কিংবা ভিডিও রেকর্ডিং শুরু করা যাবে। সানগ্লাসটি ধুলোবালি এবং পানি প্রতিরোধক।

এসিই আইওয়্যার সানগ্লাসের দাম ১৯৯ মার্কিন ডলার। আগামী এপ্রিল থেকে বিশ্বব্যাপী এর শিপিং শুরু হবে।  তবে বর্তমানে প্রি-অর্ডার করে রাখলে দাম পড়বে ৫০ শতাংশে ছাড়ে মাত্র ৯৯ ডলার। ওয়েবসাইট : https://shop.actonglobal.com/products/ace-eyewear।


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

যে কারণে যুক্তরাষ্ট্রের ইউটিউব তারকা লগান পল এত আলোচিত

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-০৩ ১৩:১৬:৪৬

জাপানের আওকিগাহারা বনে সম্প্রতি বন্ধুদের নিয়ে ঘুরতে বেরিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের ২২ বছর বয়সী ইউবটিউব তারকা লগান পল। সেখানে মাউন্ট ফুজির পাদদেশে দৃশ্যত আত্মহত্যা করা এক ব্যক্তির লাশের ছবি পোস্ট করে নিজের ইউটিউব চ্যানেলে পােস্ট করেন তিনি। গত রোববার আপলোড করে সরিয়ে নেওয়ার আগ পর্যন্ত লাখ লাখ দর্শক দেখে ভিডিওটি। এ নিয়ে ইউটিউবসহ সামাজিক যোগাযোগের বিভিন্ন মাধ্যমে শুরু হয় তুমুল আলোচনা। আর এর মধ্য দিয়ে ইতিমধ্যে ইউটিউবে জনপ্রিয় পল আরো পরিচিত হন বৈশ্বিক পরিসরে।

তবে বিপুল দর্শকের দেখা ভিডিওটির কারণে বিপাকেও পড়তে হয়েছে লগান পলকে। কেউ কেউ তাঁর  এই কাজকে 'অসম্মানজনক' ও 'ঘৃণ্য' বলে অভিহিত করেছেন। আর এতে প্রচণ্ড অনুশোচনায় ভুগছেন এই যুবক। এ নিয়ে তিনি মাইক্রো ব্লগিং সাইট টুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেন।

ওই ভিডিওতে পল বলেন, তিনি শোকে ও আতঙ্কে বিপৎগামী হয়েছিলেন। নিজেকে বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড়িয়ে দেখেছেন,  যা তিনি করেছেন, তা ক্ষমার অযোগ্য।

ক্ষমা চেয়ে পোস্ট করা ভিডিওতে পল আরো বলেন, 'কখনোই ওই ভিডিওটি পোস্ট করা উচিত হয়নি আমার। ওই সময় আমার ক্যামেরা নিচে রেখে রেকর্ডিং বন্ধ করে দেওয়া উচিত ছিল। এ কাজের জন্য আমি লজ্জিত ও হতাশ।'

লগান পলের ইউটিউব চ্যানেলে দেড় কোটি সাবস্ক্রাইবার রয়েছে।  সেই চ্যানেলে আপলোড করা ভিডিওতে দৃশ্যত আত্মহত্যা করা একজনের মৃতদেহ আবিষ্কারের পর ভয়ার্ত অবস্থায় দেখা যায় পলকে। তিনি লাশ নিয়ে ঠাট্টাও করেন।

বিবিসির খবরে বলা হয়, ১৫ মিনিটের ওই ভিডিটি জাপানে যাওয়া মার্কিন ভিলগারদের ভিডিও সিরিজের একটি অংশ ছিল। তারা জঙ্গলে ভুতুড়ে কিছু দেখানোর উদ্দেশ্যে ভিডিওটি ধারণ করছিল।

উন্নত দেশগুলোর মধ্যে জাপানে আত্মহত্যার হার সর্বোচ্চ। আত্মহত্যার স্থান হিসেবে কুখ্যাত আওকিগাহারা বন। মৃত্যুকূপ হিসেবে পরিচিতি এলাকাটিতে কতসংখ্যক লোক আত্মহত্যা করে, তা প্রকাশ করে না জাপান সরকার।


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ফেসবুকে ভয়ঙ্কর ক্ষতি, প্রতিকারের উদ্যোগ

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-১৮ ০০:৩৪:২১

কখনো ডিপ্রেশন, কখনো মানসিক অস্থিরতা, কখনো লোক দেখানোর দৌড়ে পিছিয়ে পড়ার ভয়! নিয়মিত ফেসবুকের মতো সোশ্যাল সাইটে যাদের অবাধ আনাগোনা, তাদের মধ্যে এই ধরনের প্রবণতা প্রায়ই দেখা যায়। এছাড়াও ফেসবুকে আসক্তদের মধ্যে মনঃসংযোগের অভাব, মিথ্যা কথা লিখে নিজেকে জাহির করার মতো প্রবণতাও নতুন নয়। কিন্তু সবচেয়ে বড় কথা হলো, এতদিন এসব নিয়ে মুখ না খুললেও এবার খোদ ফেসবুক কর্তৃপক্ষই স্বীকার করে নিলো, বেশিক্ষণ ফেসবুকে থাকলে একজন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তি মানসিক অবসাদে ভুগতে পারেন।

একটি ব্লগে গত শুক্রবার ফেসবুকের গবেষকরা জানতে চান, সোশ্যাল মিডিয়ায় বেশিক্ষণ সময় কাটানো কি খারাপ? এই প্রশ্নের কোনো সুনির্দিষ্ট উত্তর না দিলেও শীর্ষস্থানীয় সোশ্যাল নেটওয়ার্ক সংস্থাটি হাবেভাবে বুঝিয়ে দিচ্ছে যে তারাও বিষয়টি নিয়ে চিন্তিত।

সংস্থার সহ-প্রতিষ্ঠাতা মার্ক জাকারবার্গের ইঙ্গিত, তিনি আরো খানিকটা সময় চান এই নিয়ে গবেষণার জন্য। আর এরপরই বোমাটি ফাটিয়েছে ফেসবুক। তারা এখন একটি ‘মিউট’ বোতাম নিয়ে দীর্ঘ গবেষণা চালাচ্ছেন। কী কাজ এই বোতামের? এই বোতাম একবার টিপলে আগামী ৩০ দিনের জন্য আপনার ফেসবুক অচল হয়ে যাবে। সাইলেন্ট হয়ে যাবে। ফলে কোনো নোটিফিকেশন বা মেসেজ আসবে না।

কেন এরকম পদক্ষেপ করল ফেসবুক? এতে তো আখেরে তাদের ব্যবসারই ক্ষতি।

আসলে সম্প্রতি একগুচ্ছ বিশিষ্ট মানুষ ও ফেসবুকের সাবেক কর্মীরা অভিযোগ তুলেছেন, অপরিচিতদের কাছাকাছি আনতে গিয়ে পরিচিতদের দূরে ঠেলে দিচ্ছে ফেসবুক। মানুষ এখন লোক দেখানো সম্পর্কে বিশ্বাসী হয়ে পড়েছেন। ভেঙে যাচ্ছে সমাজের বুনোট। ছিঁড়ে যাচ্ছে আত্মীয়তা। ‘লাইক’ পাওয়ার তীব্র আকাঙ্ক্ষা মানুষকে ক্রমশ মেকি করে তুলছে। ফেসবুকে তাৎক্ষণিক জনপ্রিয়তা পাওয়ার আকাঙ্ক্ষা সাধারণ মানুষের রাতের ঘুম কেড়ে নিচ্ছে। বদলে যাচ্ছে মানুষের সাইকোলজি, বলছেন সাবেক ফেসবুকের শীর্ষ কর্তা কামাথ পালিহাপতিয়া। আর এক সাবেক কর্তা শন পার্কার বলছেন, লাইক পাওয়ার জন্য শারীরিক সৌন্দর্যকে ব্যবহার করা হচ্ছে, যৌন উসকানি দেয়া হচ্ছে। এভাবে চলতে পারে না। ফেসবুক কারো ব্যক্তিগত সম্পর্ককেও প্রভাবিত করতে বলে মতপ্রকাশ করেছেন তিনি।

প্রবল সমালোচনার মুখে পড়েই কি অবশেষে আত্মসমালোচনায় ফেসবুক? ইঙ্গিত কিন্তু তেমনটাই। মিউট বোতাম এনে একটানা ৩০ দিন ফেসবুক থেকে দূরে থাকার সুযোগ আনছেন খোদ সংস্থার কর্তারাই। তাহলে এবার আপনিও নিজের মানসিক স্বাস্থ্যের দিকে নজর দিন। সচেতনভাবে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ব্যবহার করুন ও সুস্থ থাকুন।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সেলফি দিয়ে ফেসবুক অ্যাকাউন্ট ভেরিফিকেশন!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-০৫ ১০:০৬:২০

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক তাদের কিছু অ্যাকাউন্টধারীর পরিচয় নিশ্চিত করতে মুখমণ্ডলের পরিষ্কার ছবি আপলোড করতে বলছে। তবে এমন ভেরিফিকেশন পদ্ধতি ফেসবুকে একেবারেই নতুন না। অনেক ব্যবহারকারী রেডিট এবং ফেসবুক হেল্প সেন্টারে চলতি বছরের এপ্রিলে এমন অভিজ্ঞতার কথা জানিয়েছিল।

সন্দেহজনক ফেসবুক অ্যাকাউন্টধারীর স্ক্রিনে একটি বার্তা দেখানো হচ্ছে- ‘অনুগ্রহ করে আপনার একটি ছবি আপলোড করুন যেখানে আপনার মুখমন্ডল পরিষ্কারভাবে বোঝা যায়। ছবি পাঠালে আমরা এটি অ্যাকাউন্টে মিলিয়ে দেখব এবং স্থায়ীভাবে ওই ছবি আমাদের সার্ভার থেকে মুছে ফেলব’।

বিশ্বব্যাপী এমন ফিচারের মাধ্যমে ফেসবুক তাদের সাইটে সন্দেহজনক কার্যক্রম সহজেই সনাক্ত করতে পারবে। এছাড়া নতুন অ্যাকাউন্ট তৈরি, ফ্রেন্ড রিকোয়েস্ট পাঠানো, অ্যাড পেমেন্ট সিস্টেম অথবা বিজ্ঞাপন তৈরি ও সম্পাদনায় এটি ব্যবহার করা হবে। দ্য ভার্জে দেওয়া এক অফিসিয়াল বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে ফেসবুক।

এটি একটি স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া। একজন ব্যবহারকারী উক্ত বিষয়গুলোর যেকোনো একটির ক্ষেত্রে ফেসবুক ছবি মিলিয়ে দেখবে। এটি তখনই কাজ করবে যখন ব্যবহারকারী ফেসবুকে সঠিক ছবি দিবে যা আগে কখনো ফেসবুকে আপলোড করা হয়নি।
ছবি দেওয়ার পরে বিশ্লেষণ করার সময় গ্রাহক ৭২ ঘণ্টা অ্যাকাউন্টে লগ ইন করতে পারবে না। বিশ্লেষণের পর ফেসবুক গ্রাহকের সাথে কন্টাক্ট করলে আবার অ্যাকাউন্ট সচল হয়ে যাবে।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সরকারের চাপে সমালোচনা মুছে দিচ্ছে ফেসবুক

 প্রকাশিত: ২০১৭-১১-৩০ ১৪:১২:১০

বিভিন্ন দেশের সরকারের চাপে ফেসবুক সাইট থেকে ক্ষমতাসীনদের সমালোচনা বা বিতর্কিত স্ট্যাটাস মুছে দেয়ার অভিযোগ রয়েছে সামাজিক মাধ্যমটির বিরুদ্ধে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে দাবি দাওয়া আদায়ে আন্দোলনরত কর্মীরা তাদের পোস্ট মুছে দেয়ার অভিযোগ করেছেন ফেসবুকের বিরুদ্ধে। এবার রুমানিয়ায় দুর্নীতি বিরোধী সমাবেশের আগে আন্দোলনকর্মীরা ফেসবুক থেকে তাদের পোস্ট মুছে দেয়ার অভিযোগ মুছে দেয়ার অভিযোগ করলেন।

এর আগে, গত সেপ্টেম্বর মাসে মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার প্রতিবাদে দেয়া বিভিন্ন ফেসবুক পোস্ট ডিলিট করে দেয়ার অভিযোগ করেছিলেন আন্দোলন কর্মীরা।

রুমানিয়াতে ১০০-এরও বেশি সাংবাদিক, আন্দোলন কর্মী, ও সংগঠকের একাউন্ট হয় ব্লক করে দেয়া হয়েছে।

সরকারের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সোচ্চার অনেকেই দাবি করেছেন ফেসবুকে পোস্ট দেয়ার সময় তাদেরকে অনেক রকম বিধিনিষেধের সম্মুখীন হতে হচ্ছে।

রুমানিয়ার ক্ষমতাসীন সোশ্যাল ডেমোক্র্যাটিক পার্টি (পিএসডি)-এর বিভিন্ন অনিয়ম ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে প্রতিবাদ সমাবেশ করছে দেশটির মানুষ। সম্প্রতি পিএসডি একটি আইন প্রণয়ন করতে চাইছে। সমালোচকরা বলছেন নতুন আইনটি পাশ হলে রুমানিয়ায় বহুদিন ধরে চলে আসা দুর্নীতি নির্মূল করা কঠিন হয়ে পড়বে।

রুমানিয়ায় দুর্নীতি বিরোধী আন্দোলনের কর্মী ও ফেসবুকে আন্দোলনের প্রধান পেইজটির প্রতিষ্ঠাতা ফ্লোরিন বাদিতা ম্যাশেব্‌ল নিউজ সাইটকে ফেসবুকের সেন্সরশিপের শিকার ব্যক্তিদের একটি তালিকা দিয়েছেন। যেসব ব্যক্তি তাদের একাউন্ট বন্ধ করে দেয়া হয়েছে ও যাদেরকে ফেসবুকে পোস্ট দিতে বাধা দেয়া হচ্ছে বলে দাবি করছেন তাদের নাম রয়েছে ওই তালিকায়।

১০১ বছর বয়সী দার্শনিক মিহাই সোরা-এর নাম রয়েছে ফ্লোরিনের দেয়া তালিকায় ।

মিহাই সোরা জানান, তার ফেসবুক পোস্টকে স্প্যাম হিসেবে চিহ্নিত করে ব্লক করে দেয়া হয়েছিল। ব্লক করে দেয়া হয়েছিল তার একাউন্ট। একাউন্ট পুনরুদ্ধারে অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় তাকে। শেষ পর্যন্ত তার পরিচয়পত্রের একটি কপি পাঠানোর পর সোরা-এর একাউন্টটি আনলক করে ফেসবুক।

বাদিতা জানান, সেখানে তারা কোনো পোস্ট দিতে গেলেই তাদের ফেসবুক পেজে এই মেসেজটি ভেসে উঠছিলঃ "আমরা এই পোস্টটি মুছে দিচ্ছি, কারণ আমাদের কাছে এটি স্প্যাম মনে হচ্ছে এবং এটি কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড মেনে দেয়া হয়নি।"

গত সোমবার ম্যাশেব্‌ল ফেসবুকের কাছে এ বিষয়ে মন্তব্য চাইলে ফেসবুক কর্তৃপক্ষ জানায়, "যান্ত্রিক ত্রুটি"র কারনে আন্দোলন কর্মীদের পোস্টগুলো ব্লক করা হচ্ছিল এবং সে ত্রুটিগুলো সারিয়ে ফেলা হয়েছে। তবে রুমানিয়ার আন্দোলন কর্মীরা ফেসবুকের বক্তব্য সহজভাবে নিতে নারাজ।

তারা মনে করেন, সরকারের ভাড়া করা হ্যাকার ও ট্রোল ফেসবুকের স্বয়ংক্রিয় রিপোর্টিং ফাংশন বা অভিযোগ ব্যব্যস্থাকে কাজে লাগিয়েছে। একটি পোস্টের বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট সংখ্যক অভিযোগ করা হলে ফেসবুক স্বয়ংক্রিয়ভাবে ওই পোস্টটি ব্লক করে দেয়। কতগুলো ফেসবুক একাউন্ট থেকে মিলিতভাবে তাদের উপর আক্রমণ চালানো হয়েছিল এবং ওই একাউন্টগুলো কোন জায়গা থেকে পরিচালিত হচ্ছিল তা জানার দাবি করেছে আন্দোলনকারীরা। একই সাথে, ফেসবুকে আবার এধরনের আক্রমণ হলে ফেসবুক কী ব্যবস্থা গ্রহণ করবে তাও জানতে চায় আন্দোলনকর্মীরা।

ফ্লোরিন বাদিতা দাবি করেন, পৃথিবীর "৮০% মানুষের কাছে ব্যর্থ প্রতিপন্ন হয়েছে ফেসবুক। ইংরেজি ভাষাভাষীদের জন্য তারা অনেক যত্নবান। কিন্তু অন্য ভাষায় ভুয়া একাউন্ট ও ঘৃণা ছড়ানোর জন্য দেয়া পোস্ট চেনার ক্ষেত্রে নেহাতই বাজে কাজ করছে ফেসবুক।"

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

জানুয়ারিতে ফোর-জি চুলু হচ্ছে বাংলাদেশে

 প্রকাশিত: ২০১৭-১১-২৯ ১২:৩৯:৪৮

ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম জানিয়েছেন, আগামী জানুয়ারি মাসে চালু হবে বহুল প্রতীক্ষিত চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর-জি) টেলিযোগাযোগ সেবা।

বুধবার সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান তারানা হালিম।

তিনি বলেন, আমরা আনন্দের সঙ্গে বলছি যে, সংশোধিত ফোর-জি লাইসেন্সিং গাইডলাইন এবং তরঙ্গ নিলাম গাইডলাইন অনুমোদন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। কিছুক্ষণ আগে তা আমাদের হাতে এসে পৌঁছেছে। পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণের ক্ষেত্রে আর কোনো বাধা নেই এবং আমাদের কার্যক্রম শুরু করে দিতে পারি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, বর্তমান সরকারের অন্যতম প্রতিশ্রুতি ছিল ফোর-জি সেবা চালু করা। আমরা অত্যন্ত দ্রুত কাজগুলো করার চেষ্টা করেছি। আমরা বলতে পারি, অপারেটরদের যে কনসার্ন ছিল, মোটামুটিভাবে সবগুলোই অ্যাড্রেস করেছি। এখন আমাদের শুধু লাইসেন্স প্রদান এবং ফি গ্রহণের কিছু আনুষ্ঠানিকতা বাকি আছে। গাইডলাইন এখন বিটিআরসিতে পাঠিয়ে দেব। নতুন বছরের উপহার হিসেবে সরকার জনগণকে সেবাটি প্রদান করবে। আশা করছি, নতুন বছরে জানুয়ারিতে সেবাটি জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে পারব।

এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

জ্যাম এড়াতে ট্যাক্সি ড্রোন বানাচ্ছে চীন

 প্রকাশিত: ২০১৭-১১-২৬ ১০:১৫:৫৬

রাস্তায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা জ্যামে বসে থাকার দিন বোধহয় ফুরাচ্ছে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দি ডেইলি স্টার বৃহস্পতিবার এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে,  সাধারণ যাত্রীদের জন্য প্রচুর পরিমাণে উড়ন্ত ট্যাক্সি তৈরি করছে চীন। দুই সিটের এসব ট্যাক্সি আকাশে উড়তে ড্রোন প্রযুক্তির সহায়তা নেয়া হচ্ছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়, চীনা প্রতিষ্ঠান ই-হাং ইন্স এরই মধ্যে এক সিটের ট্যাক্সি ড্রোনের সফল পরীক্ষা করেছে। সেই সুবাদেই বাজারে আসছে দুই সিটের উড়ন্ত ট্যাক্সি।

প্রতিষ্ঠানটি প্রথমে জানিয়েছিল, তাদের নির্মিত উড়ন্ত ট্যাক্সি ঘণ্টায় প্রায় ১শ’ কিলোমিটার গতিবেগে চলবে। তবে বাজারজাতের জন্য তৈরি করা ড্রোন ট্যাক্সিগুলো ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার গতিতে চলতে সক্ষম বলে প্রতিবেদনে বলা হয়।

আগামী বছর থেকেই এসব উড়ন্ত ট্যাক্সি ডুবাই ও চীনের বাজারে মিলবে বলে জানিয়েছে নির্মাণকারী সংস্থাটি। পর্যায়ক্রমে বিশ্বের অনেক শহরেই দেখা যাবে রাস্তা ছেড়ে আকাশ দিয়ে যাওয়া উড়ন্ত ট্যাক্সি।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

১১ মিনিট উধাও ট্রাম্পের টুইটার অ্যাকাউন্ট

 প্রকাশিত: ২০১৭-১১-০৩ ১২:১৪:৪৬

১১ মিনিটের জন্য যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ব্যক্তিগত টুইটার অ্যাকাউন্ট বৃহস্পতিবার ‘উধাও’ হয়ে গিয়েছিল বলে খবর দিয়েছে বিবিসি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম বিষয়টি প্রতিষ্ঠানটি জানিয়েছে, তাদের এক কর্মী তার শেষ কর্মদিবসে ‘ইচ্ছাকৃতভাবে’ এ কাণ্ড ঘটিয়েছে।

বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেল ৪টায় হঠাৎ করেই টুইটারে ট্রাম্পের @realdonaldtrump অ্যাকাউন্টটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে তা সচল করা হয়। ওই ১১ মিনিট যারা ট্রাম্পের টুইটার পেইজে যাওয়ার চেষ্টা করেছেন, তারা কেবল একটি নোটিস দেখেছেন। সেখানে লেখা ছিল- ‘দুঃখিত, এই পৃষ্ঠাটির অস্তিত্ব নেই!’ তবে মার্কিন প্রেসিডেন্টের অফিসিয়াল টুইটার অ্যাকাউন্ট @POTUS সচল ছিল।

প্রাথমিকভাবে টুইটারের পক্ষ থেকে জানানো হয়, টুইটারের এক কর্মীর কারণে মানবিক ভুলে অ্যাকাউন্টটি সাময়িক সময়ের জন্য অচল হয়ে গিয়েছিল।

এর কিছুক্ষণ পরেই প্রতিষ্ঠানটির @Twittergov অ্যাকাউন্ট থেকে বলা হয়, কর্মীদের শেষ  কর্মদিবসে এক কর্মী এ কাণ্ড ঘটিয়েছে। তবে তার নাম প্রকাশ করা হয়নি।এ ঘটনাটি তদন্ত করার কথাও জানিয়েছে টুইটার।

টুইটারে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের ফলোয়ারের সংখ্যা ৪ কোটি ১৭ লাখ। বৃহস্পতিবার অ্যাকাউন্টটি সচল হওয়ার পর তার প্রথম টুইট ছিল কর কমানোর একটি পরিকল্পনা নিয়ে।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

গুগল অ্যাডসেন্স এবার বাংলা ভাষার ওয়েবসাইটে

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৯-২৭ ১৫:৫৯:৩০

বাংলা ভাষার ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করা যাবে বলে ঘোষণা দিয়েছে সার্চ জায়ান্ট গুগল। সম্প্রতি এক ব্লগপোস্টে নতুন এই সুবিধা চালু করার তথ্য জানিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

গুগল জানিয়েছে, বর্তমান সময়ে বাংলাদেশ, ভারতসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অনলাইনে বাংলা কনটেন্ট বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলা ভাষায় ওয়েবসাইটের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে। এসব কিছু বিবেচনা করে বাংলায় গুগল অ্যাডসেন্স চালু করা হল।

অ্যাডসেন্স হচ্ছে, গুগলের লাভ-অংশীদারী প্রকল্প। এর মাধ্যমে ওয়েবসাইটের মালিক তার ওয়েবসাইটে কিছু শর্তসাপেক্ষে গুগল নির্ধারিত বিজ্ঞাপণ প্রদর্শনের মাধ্যমে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। প্রচুর বাংলাদেশি ব্লগার এবং ওয়েবসাইটের মালিক গুগল অ্যাডসেন্সের বিজ্ঞাপণ প্রদর্শনের মাধ্যমে বর্তমানে অর্থ আয় করছেন। অ্যাডসেন্স শুধু ওয়েবসাইট নয়, ইউটিউব, মোবাইল অ্যাপ ইত্যাদিতেও ব্যবহার করা যায় এবং সেখান থেকেও আয় করা যায়।

বর্তমানে বিশ্বের প্রায় দেড় কোটি ওয়েবসাইটে গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহার করা হচ্ছে। ২০১৫ সালেই প্রতিষ্ঠানটি গুগল অ্যাডসেন্স প্রকাশকদের প্রায় ১০ বিলিয়ন ডলার পেমেন্ট দিয়েছে, যা ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে। বাংলা ভাষায় অ্যাডসেন্স চালু হওয়ার ফলে এ সংখ্যায় নতুনমাত্রা যুক্ত হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

মিনিটেই তৈরি হবে বাড়ি!

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৮-২০ ০২:৪০:১৬

বাড়ি বানানো কি সহজ কাজ? ইট-সিমেন্টের জোগান আর কারিগরদের সঙ্গে পরিকল্পনা ও খরচ জোগাতে গিয়ে অনেকের শরীরের রক্তচাপই স্বাভাবিক থাকে না। এ কারণেই বাড়ি বানানোর বদলে অনেকের নজর এখন ফ্ল্যাটের দিকে। নিষ্কণ্টক খালি জমির দুষ্প্রাপ্যতাও অবশ্য আরেকটি কারণ।

সম্প্রতি ব্রিটেনের একটি সংস্থা বাড়ি বানানোর তাক লাগানো পদ্ধতি আবিষ্কার করেছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন’র এক প্রতিবেদনে যে আশ্চর্য বাড়ির কথা বলা হয়েছে তা নিজে থেকেই তৈরি হয়ে যায়। তাও আবার মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যে।



টেন ফোল্ড ইঞ্জিনিয়ারিং নামের ওই সংস্থা বলছে, তাদের নির্মিত বাড়ি মাত্র অল্প সময়ের মধ্যেই সম্পূর্ণ বসবাসের জন্য উপযোগী হয়ে উঠবে। তাদের দাবি, ৬৪৫ স্কোয়ার ফুটের বাড়ি তৈরি হতে সময় নেবে মাত্র ১০ মিনিট।

তবে আকর্ষণীয় বিষয় হচ্ছে এটিকে প্রয়োজনে যে কোনো সময় গুটিয়ে ফেলা সম্ভব। অর্থাৎ বাড়িটিকে গুটিয়ে যে কোনো স্থানে নিয়ে আবারও বসিয়ে দেয়া যাবে।

স্বয়ংক্রিয়ভাবেই বাড়িটিকে গুটিয়ে কিংবা বিস্তার ঘটানো সম্ভব বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠানটি। সহজে বহনযোগ্য হওয়ায় গাড়িতে করে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় নেয়া যাবে। এমনকি শিপিং কন্টেইনারে করেও এটিকে দূরে কোথাও পাঠানো সম্ভব।

প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার স্থপতি ডেভিড মার্টিন জানিয়েছেন, বাড়িটি ঘন ঘন ফোল্ড করলে কিংবা খুললেও এটি দুর্বল হবে না, রঙও নষ্ট হবে না।

অবশ্য ইউবক্স ডিজাইনের বাড়িটি এখনও প্রথম পর্যায়ে রয়েছে। তবে তাক লাগানো বাড়িটির দামও কিন্তু তাক লাগানোর মতোই... মাত্র ১০ কোটি ৫৭ লাখ টাকা!


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ফেসবুকের নগ্নতার নীতিমালায় ঘায়েল নগ্ন চিত্রকর্ম

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৮-১৯ ০২:৪৯:১১

‘অযৌক্তিক সেন্সরশিপ’ হিসেবে ফেসবুককে অভিযুক্ত করা হয়েছে, কারণ তারা বিখ্যাত কিছু নগ্ন চিত্রকর্মের ছবি ফেসবুকে পোস্ট করতে দেয়নি।

খ্যাতনামা কয়েকজন চিত্রশিল্পীর আঁকা উনিশ শতকের নগ্ন নারী ও আদিম নগ্ন নারীর কিছু চিত্রকর্মের ছবি প্রকাশে বাঁধা দিয়েছে ফেসবুক।

একটি নিলাম প্রতিষ্ঠান চিত্রকর্মগুলো নিলামে তোলার আগে বিক্রয়ের প্রচারের জন্য ছবিগুলো ফেসবুকে পোস্ট করতে চেয়েছিল। কিন্তু ফেসবুকের বার্তায় জানানো হয় যে, এই পোস্ট তাদের বিজ্ঞাপনের নীতিমালাকে ভঙ্গ করেছে, ‘বিজ্ঞাপনে প্রাপ্তবয়স্কদের কোনো কনটেন্ট অন্তর্ভুক্ত হবে না।’

এ ঘটনায় নিলাম প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা টিম গুডম্যান, ফেসবুকের সিইও মার্ক জাকারবার্গের প্রতি একটি চিঠি খোলা চিঠি লিখেছেন। এতে তিনি উল্লেখ করেছেন যে, ফেসবুকের ‘রোবট’ পর্নোগ্রাফি এবং শিল্পের মধ্যে পার্থক্য করতে ব্যর্থ হয়েছে।

ফেসবুক সামাজিক সততার ওপর তার একচেটিয়া নগ্নতার নীতিমালা ব্যবহার করে বিদ্বেষপূর্ণ মান আরোপ করছে বলে লিখেছেন তিনি।

তিনি বলেন, ‘অত্যাধিক যৌনতাপূর্ণ ছবি, পর্নোগ্রাফি, সচেনতার জন্য নগ্নতা, নতুনত্বের জন্য নগ্নতা এবং শিল্পের মধ্যে নগ্নতার মধ্যে কোনো পার্থক্য করছে না ফেসবুক। সবগুলোকে একই কাতারে ফেলছে। সমস্যাটা এমন না যে আপনার রক্ষণশীল নীতিমালা রয়েছে, আপনি এমন একটা সিস্টেম তৈরি করেছেন যা প্রকৃত বিচারের অনুমতি দেয় না।’

গুডম্যান এর অস্ট্রেলিয়ান নিলাম প্রতিষ্ঠান ‘ফাইন আর্ট বারস’ অ্যান্ডি ওয়ারহোল এবং কিথ হারিং সহ বিভিন্ন প্রখ্যাত শিল্পীদের আঁকা নগ্ন এবং প্রেমমূলক চিত্রকর্ম, ভাস্কর্য এবং ছবি নিলামে বিক্রি করে থাকে।

গুডম্যান বলেন, ‘সেন্সরশিপ ইস্যুটির নৈতিক বিচার, মানবিক সংবেদনশীলতা ও জবাবদিহিতা প্রয়োজন। আমি বিশ্বাস করি, শিল্পের সঙ্গে পর্নোগ্রাফি গুলিয়ে ফেলার এ ধরনের ব্যর্থতা অনিবার্য যদি আপনি কর্মীদের প্রশিক্ষণের পরিবর্তে রোবটগুলোর মাধ্যমে অভিযোগ ও স্বতন্ত্র ঘটনাগুলো পরিচালনা অব্যাহত রাখেন।’

‘আপনি গত এক দশকের সবচেয়ে মূল্যবান ১০টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে অন্যতম একটি চালাচ্ছেন এবং নগ্নতা নিয়ে আপনার সম্পাদনা নীতিমালা কোনো সাধারণ অফিসের নগ্নতাবিষয়ক নীতিমালার বেশি আধুনিক নয়।’

তিনি বলেন, ‘আমরা ১৯ শতকের কিছু ফরাসি নগ্ন চিত্রকর্ম বিক্রির জন্য প্রচার করতে চেয়েছিলাম কিন্তু ফেসবুক ছবিগুলোতে নারী শরীরের উন্মুক্ত অংশগুলো সেন্সর করেছে এবং এটিতে আপত্তি জানিয়েছে।’

গুডম্যান জানান, তিনি বিষয়টি ফেসবুক কর্তৃপক্ষের কাছে পরিষ্কার বোঝানোর জন্য ইমেইল পাঠিয়েছিলেন কিন্তু স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতির উত্তর পেয়েছেন। স্বয়ংক্রিয় উত্তরে ফেসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘নগ্নতা প্রকাশ করে এমন বিজ্ঞাপনগুলো আমরা অনুমোদন করি না, এমনকি তা প্রাকৃতিক যৌনতা না হলেও। শৈল্পিক বা শিক্ষাগত উদ্দেশ্যে নগ্নতাও এর অন্তর্ভুক্ত।’

এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

অনলাইন শ্রমিক সরবরাহে বাংলাদেশ দ্বিতীয়

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৩ ০২:৪৮:৫৭

বাংলাদেশ বিশ্বে দ্বিতীয় বৃহত্তম অনলাইন শ্রমিক সরবরাহকারী দেশ। সম্প্রতি এক রিপোর্টে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে। নিয়োগকর্তাদের সঙ্গে ফ্রিল্যান্সারদের সংযোগ করার ক্ষেত্রে ইন্টারনেট প্লাটফর্মগুলোর তথ্য বিশ্লেষণ করে এ রিপোর্ট প্রকাশ করা হয়েছে।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির অক্সফোর্ড ইন্টারনেট ইনস্টিটিউট প্রকাশিত এ রিপোর্টে বলা হয়েছে, অনলাইন শ্রমিক বা ফ্রিল্যান্সার সরবরাহে বিশ্বের মোট বাজারের ১৬ শতাংশ বাংলাদেশের দখলে রয়েছে। এই বাজারের ২৪ শতাংশ দখলে নিয়ে বিশ্বে প্রথম অবস্থানে রয়েছে ভারত। ১২ শতাংশ দখলে নিয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে পাকিস্তান, ফিলিপাইন এবং যুক্তরাজ্য।

‘আই-লেবার প্রজেক্ট’ হিসেবে এই রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। যার অংশ হিসেবে অনলাইন শ্রমিক সূচক তৈরি করা হয়ে থাকে। রিপোর্টে দেখা গেছে, বিভিন্ন দেশের অনলাইন শ্রমিক বা ফ্রিল্যান্সাররা ভিন্ন ভিন্ন কাজের ওপর প্রাধান্য দিয়ে থাকে। যেমন সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ও টেকনোলজি ক্যাটাগরিতে শীর্ষে রয়েছে ভারতীয় উপমহাদেশের দেশগুলো, যাদের দখলে রয়েছে সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট ও টেকনোলজির ৫৫ শতাংশ বাজার।

অন্যদিকে প্রফেশনাল সার্ভিস ক্যাটাগরি যেমন অ্যাকাউন্টিং, লিগ্যাল সার্ভিস ও বিজনেস কনসাল্টিংয়ের বাজারে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাজ্য। মোট বাজারের ২২ শতাংশ রয়েছে তাদের দখলে। ভারতে অনলাইনে কাজের ক্ষেত্রে সফটওয়্যার এবং টেকনোলজি শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে। ক্রিয়েটিভ এবং মাল্টিমিডিয়া রয়েছে দ্বিতীয় স্থানে। সেলস এবং মার্কেটিং সাপোর্ট দেশটিতে অনলাইনে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে।

ফিজার, ফ্রিল্যান্সার, গুরু এবং পিপলপারআওয়ার- এই ৪টি অনলাইনের তথ্য বিশ্লেষণ করে রিপোর্টটি তৈরি করেছে অক্সফোর্ড ইন্টারনেট ইনস্টিটিউট। প্রতিষ্ঠানটির জ্যেষ্ঠ গবেষক ভিলি লেদনভিরতা বলেন, বিশ্বের মোট ফ্রিল্যান্সিং কাজের ৪০ শতাংশ দখল করে রেখেছে এই চারটি প্লাটফর্ম। সাইটগুলোর ট্রাফিকের তথ্যানুসারে এই রিপোর্ট তৈরি করা হয়েছে। আমরা প্লাটফর্মগুলোকে প্রতিনিধিত্বশীল বলতে পারি।


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

চার্জারবিহীন মোবাইল উদ্ভাবন করলেন ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক দল

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-০৬ ১৫:১৩:৪৯

 চার্জার বা ব্যাটারি ছাড়া মোবাইল ফোন চলবে না- এই ধারণায় ইতি পড়ে গেল। উদ্ভাবন হয়েছে এমন এক ধরনের মোবাইল, যা ব্যাটারি বা বৈদ্যুতিক চার্জ ছাড়াই কাজ করতে সক্ষম।

ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টার পর তৈরি করেছেন ব্যাটারিবিহীন মোবাইল ফোন। ব্যাটারি ছাড়া কেমন করে মোবাইল চলবে, কীভাবে এটি উদ্ভাবন করা হলো, তা নিয়ে একটি গবেষণাপত্র প্রকাশ করেছেন তারা। ‘প্রসিডিংস অব দ্য অ্যাসোসিয়েশন ফর কম্পিউটিং মেশিনারি অন ইন্টার-অ্যাক্টিভ, মোবাইল, ওয়্যারেবল অ্যান্ড ইউবিকুইটাস টেকনোলজি’ নামে জার্নালে ১ জুলাই গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, ব্যাটারি ছাড়া মোবাইল কাজ করবে আশপাশের আলোকতরঙ্গ বা রেডিও সিগন্যালের সাহায্যে। বৈদ্যুতিক চার্জের প্রয়োজন হবে না।

একটি নমুনা (প্রোটোটাইপ) মোবাইল ফোন তৈরি করেছেন ওয়াশিংটন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা। নমুনা ফোনটি মাত্র তিন মাইক্রোওয়াট বিদ্যুৎ পেলেই কাজ করবে। ফলে এ জন্য চার্জারের প্রয়োজন হবে না। অ্যাম্বিয়েন্ট রেডিও সিগন্যাল বা আলোকতরঙ্গ থেকে এ পরিমাণ বিদ্যুৎ টানতে সক্ষম ব্যাটারিবিহীন এই মোবাইলটি।

ভারতীয় বংশোদ্ভূত বিজ্ঞানী ও গবেষকদলের সদস্য শ্যাম গোল্লাকোটা বলেছেন, ‘প্রথমবারের মতো আমরা এমন একটি মোবাইল উদ্ভাবন করেছি, যা প্রায় জিরো পাওয়ার ব্যবহার করবে।’ তিনি আরো জানান, স্কাইপ-এর সাহায্যে এই মোবাইলে কল রিসিভ ও কথোপকথন করা যাবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল সায়েন্স ফাউন্ডেশন ও গুগল ফ্যাকাল্টি রিসার্চ অ্যাওয়ার্ডসের অর্থায়নে ব্যাটারিবিহীন মোবাইল ফোন উদ্ভাবনের গবেষণা পরিচালিত হয়েছে। এ-সংক্রান্ত গবেষণাপত্রে বলা হয়েছে, রেডিও সিগন্যাল থেকে শক্তি সঞ্চয় করে মোবাইলের বেস স্টেশন থেকে ৩১ ফুট দূরত্ব পর্যন্ত কথোপকথন করা যাবে। তবে আলোকতরঙ্গের সাহায্যে মোবাইলটি চললে, তা বেস স্টেশনের ৫০ ফুট দূরত্ব পর্যন্ত কাজ করবে।


এলএবাংলাটাইমস/আইসিটি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

আইটিইউয়ের সহায়তায় ইন্টারনেটের মূল্য কমবে বাংলাদেশে

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-১৪ ০৮:৩৫:২২

বাংলাদেশে ইন্টারনেটের মূল্য কমানোর জন্য এবার জাতিসংঘের অধীনস্থ সংস্থা আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের (আইটিইউ) সহায়তা নিচ্ছে সরকার। ইতোমধ্যে ‘কস্ট মডেলিং’ (সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের ইন্টারনেট খরচ বের করার পদ্ধতি) করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)। কস্ট মডেলিংয়ের জন্য আন্তর্জাতিক টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের (আইটিইউ) পরামর্শক ও টেলিকম অপারেটরদের প্রতিনিধির উপস্থিতিতে বিটিআরসিতে গত ৮ জুন বৃহস্পতিবার থেকে চলছে বিশেষ সভা। এই সভা থেকেই সিদ্ধান্ত আসবে। 
বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, গত ২৭ মার্চ ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্স কমিটির বৈঠকে কস্ট মডেলিংয়ের জন্য পরামর্শক নিয়োগে বিটিআরসিকে নির্দেশ দেওয়া হয়। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এই কমিটিতে বিটিআরসি ছাড়াও টেলিযোগাযোগ খাতসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধি রাখা হয়েছে।
এরপর গত ১৪ এপ্রিল ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম বলেছিলেন, আগামী ৬ মাসের মধ্যে ইন্টারনেটের নতুন মূল্য নির্ধারণ হবে। এজন্য টেলিযোগাযোগ বিভাগ হতে বিটিআরসিকে কস্ট মডেলিং তৈরি করতে বলা হয়। এ জন্য আইটিইউ-এর একজন কর্মকর্তাকে বাংলাদেশে পরামর্শক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। এই পরামর্শক খাত সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন পক্ষের সঙ্গে আলোচনা করে ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন মূল্য নির্ধারণে বিটিআরসিকে পরামর্শ দিচ্ছেন। 
২০১৬ সালেও ইন্টারনেটের মূল্য নির্ধারণে একবার কস্ট মডেলিং করার উদ্যোগ নিয়েছিল বিটিআরসি। কিন্তু সেটা আর সম্ভব হয়ে ওঠেনি। তবে ২০০৮ সালে মোবাইল ফোনে কল করার মূল্য নির্ধারণে আইটিইউর পরামর্শক দিয়ে একটি কস্ট মডেলিং করেছিল বিটিআরসি। সেই মডেল অনুসারে প্রতি মিনিট ভয়েস কলের সর্বোচ্চ মূল্য ২ টাকা আর সর্বনিম্ন মূল্য ২৫ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছিল।
তবে ২০০৮ সালে ভয়েস কলের ক্ষেত্রে কস্ট মডেলিং বিনামূল্যে করে দিলেও এবার কস্ট মডেলিংয়ের জন্য চড়া মূল্য রাখবে আইটিইউ। কারণ ২০০৮ সালে বাংলাদেশ নিম্ন আয়ের দেশ ছিল। কিন্তু নিম্নমধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ায় আইটিইউয়ের নিয়ম অনুযায়ী, বাংলাদেশকে এখন কস্ট মডেলিংয়ের জন্য অর্থ খরচ করতে হচ্ছে। আইটিইউয়ের পরামর্শক দিয়ে কাজটি করাতে বিটিআরসির প্রায় ৩০ লাখ টাকা খরচ হচ্ছে বলে জানা গেছে।
এদিকে, ইন্টারনেটের মূল্য কমানোর বিষয়ে আইটিইউ-এর পরামর্শ এবং সম্ভাব্য করণীয় নিয়ে শিগগির আনুষ্ঠানিক সংবাদ সম্মেলন করার কথা রয়েছে বিটিআরসির। তবে বিটিআরসি চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ দেশে না থাকায় এই বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্তে পৌঁছানো যায়নি। তিনি দেশে ফিরলেই আনুষ্ঠানিকভাবে বিটিআরসির পক্ষ থেকে এ নিয়ে বিস্তারিত জানানো হবে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে। 
বিটিআরসির সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাংলাদেশে মোট ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৬ কোটি ৭২ লাখ। এর মধ্যে মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৬ কোটি ৩১ লাখ, যা মোট ব্যবহারকারীর ৯৪ শতাংশ। আইএসপি এবং পিএসটিএন ইন্টারনেট গ্রাহক ৪০ লাখ ৩৬ হাজার এবং ওয়াইম্যাক্স ইন্টারনেট গ্রাহক ৮৯ হাজার। 
প্রসঙ্গত, মোবাইল ফোন অপারেটরদের ডাটাভিত্তিক সেবার তথ্যানুযায়ী, বর্তমানে ফ্লেক্সিপ্ল্যানে ৩০ দিন মেয়াদে ১ জিবি ডাটা কিনতে গ্রামীণফোনের গ্রাহকের ব্যয় ২৭৪ টাকা ২৮ পয়সা। একই পরিমাণ ডাটা কিনতে বাংলালিংকের গ্রাহকদের দিতে হচ্ছে ২০৯ টাকা। রবি ও এয়ারটেলের ১ জিবি ডাটা প্যাকেজের মূল্য যথাক্রমে ২১৩ টাকা ৬ পয়সা ও ২০৯ টাকা। তবে এক্ষেত্রে মেয়াদ ধরা হয়েছে ২৮ দিন। আর রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের ৩০ দিন মেয়াদি ১ জিবি ডাটা প্যাকেজের মূল্য ১৮০ টাকা।   

বিস্তারিত খবর

বিল গেটসের চোখে যে তিনটি ক্ষেত্র বদলে দিবে বিশ্ব

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৫-২১ ০৯:৫৮:৫৬

মাইক্রোসফটের সহ প্রতিষ্ঠাতা বিল গেটস কলেজ ড্রপআউট ছিলেন। তবে কলেজ থেকে ড্রপআউট হয়ে পল অ্যালেনকে নিয়ে তিনি মাইক্রোসফট প্রতিষ্ঠা করেন যা বিশ্বে সফটওয়্যার বিপ্লব ঘটিয়ে দেয়। আর গেটস মনে করেন আজকের গ্র্যাজুয়েটরা সমাজে এমনই বিপ্লব ঘটাতে পারে। 
১৫ মে প্রকাশিত ব্লগে বিল গেটস বলেন, সমাজে প্রভাব বিস্তারে সর্বাধিক সুযোগ হিসাবে তিনি তিনটি ক্ষেত্র দেখেন। তার দৃষ্টিতে এই ক্ষেত্রগুলো হল- কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, শক্তি এবং বায়োসায়েন্স। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা নিয়ে গেটস বলেন, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সবকটি পথে আমাদের শুধুমাত্র আঘাত করতে হবে এবং এটি এটি মানুষের জীবনকে আরও সৃজনশীল করে তুলবে।
শক্তির ব্যাপারে বিল গেটস মনে করেন, দারিদ্র্য বিমোচন এবং জলবায়ু পরিবর্তনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য পরিষ্কার, সাশ্রয়ী মূল্যের এবং নির্ভরযোগ্য শক্তি উৎপাদন খুব প্রয়োজন। সবশেষে বায়োসায়েন্স নিয়ে বিল গেটস বলেন, দীর্ঘস্থায়ী, স্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রায় মানুষকে সাহায্য করার জন্য এই ক্ষেত্রটির প্রয়োজনীয়তাও অপরিসীম। 
গেটস তার ব্লগে একথাও বলেন যে, ‘যখন আপনি মানুষকে বলবেন যে পৃথিবী উন্নতি করছে, তখন তারা প্রায়ই আপনার দিকে এমনভাবে তাকিয়ে থাকবে যে আপনি হয় অতিসরল বা পাগল’। কিন্তু এটা সত্য, এবং একবার আপনি এটি বুঝতে পারলে আপনি বিশ্বকে ভিন্নভাবে দেখতে শুরু করবেন।
সূত্র: সিএনবিসি  

বিস্তারিত খবর

আইবিএম ‘ওয়ার্কিং ফ্রম হোম’ সুবিধা বন্ধ করে দিল

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৫-২১ ০৯:৫৪:৪৬

মার্কিন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান আইবিএমের কর্মীরা বাসায় বসে অফিসের কাজ করার সুবিধা পেতেন। ১৯ মে  শুক্রবার প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে বলা হয়, অনেক কর্মীর জন্যই বাড়ি থেকে কাজ করার সুবিধা বাতিল করা হচ্ছে। তবে একদম অল্পকিছুসংখ্যক কর্মীর জন্য আগের সুবিধাটি বহাল থাকবে।
২০০৭ সালে আইবিএম এর পক্ষ থেকে বলা হয়েছিল, বিশ্ব জুড়ে প্রতিষ্ঠানের চার লাখ কর্মীর প্রায় ৪০ শতাংশের প্রচলিত অফিস নেই। এবার সে নীতি পরিবর্তন করছে তারা। প্রতিষ্ঠানের অনেক কর্মীকেই এখন অফিস জীবনের সঙ্গে অভ্যস্ত হতে হবে। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে জানানো হয়, যদি কেউ অফিসে আসতে অসম্মতি জানান, তারা চাকরি হারাতে পারেন। তবে যেসব কর্মীকে অফিস করতে বলা হয়েছে, তাদের বেশির ভাগই রাজি হয়েছেন। নতুন নীতিমালায় ঠিক কতো জন কর্মীকে অফিসে এসে কাজ করতে হবে এবং তাদেরকে কোথায় কাজে লাগানো হবে সে বিষয়ে আইবিএম কিছু জানায়নি। প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে আরও বলা হয়, এখনো কিছু কর্মী বাড়ি থেকে কাজ করতে পারবেন।
আইবিএম এক বিবৃতিতে জানায়, ‘সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট এবং ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মতো বেশ কিছু খাতে কাজের প্রকৃতি পরিবর্তন হচ্ছে, এখন কাজের নতুন ধরন দরকার।’
কর্মীদের বড় একটি অংশ বাসা থেকে অফিসের কাজ করেও প্রযুক্তি খাতের শীর্ষ প্রতিষ্ঠানের একটি হিসেবে টিকে ছিল আইবিএম। তাদের দাবি ছিল, এতে কর্মীদের সময় বেঁচে যায় এবং উৎপাদন আরও বাড়ে। আর কর্মীদের জন্য বাসা থেকে কাজ করার সুবিধা বন্ধ করা প্রতিষ্ঠান আইবিএম ই প্রথম নয়। চার বছর আগে ইয়াহুও কর্মীদের ঘরে বসে কাজ করার সুবিধা বন্ধ করে দেয়।
সূত্র: সিএনএন  

বিস্তারিত খবর

মা-বাবার অতিরিক্ত মোবাইল ব্যবহার পারিবারিক জীবন ক্ষতিগ্রস্ত করে: জরিপ

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৪-২৪ ০৯:৫৯:২৯

মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের মধ্যে চালানো এক জরিপে দেখা গেছে, বাবা মায়ের অতিরিক্ত মোবাইল ফোনের ব্যবহার পারিবারিক জীবনকে ক্ষতিগ্রস্ত করে। জরিপে ১১ থেকে ১৮ বছর বয়স্ক ২ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে  অন্তত এক-তৃতীয়াংশ কিশোর-কিশোরী সারাক্ষণ মোবাইল না দেখতে তাদের বাবা-মাকে অনুরোধ করেছে। 
এই জরিপের ১৪ শতাংশ বলেছে, তাদের মা-বাবা খাবার টেবিলেও মোবাইল নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। কিন্তু জরিপের ৩ হাজার অভিভাবকের ৯৫ শতাংশ এই তথ্য অস্বীকার করেছেন। আর মাত্র ১০ শতাংশ অভিভাবক বলেছেন, তাদের মোবাইল ব্যবহার করাটা কোনো সমস্যা নয়। 
৪৫ শতাংশ অভিভাবক মনে করেন, তারা নিজস্ব সময়ের অনেকখানিই অনলাইনে অপচয় করেন। ৩৭ শতাংশ বলেছেন, তারা ছুটির দিনগুলোতে ৩ থেকে ৫ ঘণ্টা অনলাইনে থাকেন। ৫ শতাংশ বলেছেন, ছুটির দিনে তারা অনলাইনে সময় কাটান ১৫ ঘণ্টা পর্যন্ত।
ডিজিটাল অ্যাওয়ারনেস ইউকে (ডাউক) এবং হেডমাস্টার্স ও হেডমিস্ট্রেসেস কনফারেন্স নামে যুক্তরাজ্যের দুটি সংগঠন (এইচএমসি) এই সমীক্ষাটি চালিয়েছে। 
সূত্র: বিবিসি  

বিস্তারিত খবর

বাজারে আসছে আঙুলের ছাপ শনাক্তকারী ক্রেডিটকার্ড

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৪-২০ ১৫:১২:১১

ক্রেডিটকার্ড সরবরাহকারী আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান ম্যাস্টারকার্ড তৈরি করেছে নতুন ধরনের কার্ড। মূল্য পরিশোধের কাজে ব্যবহৃত এই কার্ডটি আঙুলের ছাপ শনাক্ত করতে পারবে।

দক্ষিণআফ্রিকার দুটি সফল পরীক্ষার পর কার্ডটির উদ্বোধন করা হচ্ছে।

অর্থ লেনদেনের ক্ষেত্রে ব্যবহৃত মোবাইলের মতোই কাজ করবে কার্ডটি। ক্রয়-বিক্রয়ের সময় ব্যবহারকারীদের সেন্সরের উপর আঙুল রাখতে হবে। এ ছাড়াও কার্ডটি টার্মিনালের ইলেক্ট্রিসিটি ব্যবহার করবে, ফলেএর নিজস্ব ব্যাটারির প্রয়োজন হবে না। পাশাপাশি এই প্রথম একই কার্ডে শুধু ছাপ দেওয়ার ব্যবস্থাই নয়, তা শনাক্ত করার প্রযুক্তিও কার্ডের ভেতরেই দেওয়া থাকবে।

মাস্টারকার্ডের নিরাপত্তারবিষয়ক প্রধান অজয় ভাল্লা বলেন, আঙুলেরছাপ শনাক্তকারী প্রযুক্তি মানুষকে বাড়তি সুবিধা ও নিরাপত্তা দেবে। এটি চুরি করা বা নকল করা সম্ভব নয়।

তবে এই কার্ডটি নিয়েও জালিয়াতি সম্ভব। বার্লিনের সিকিউরিটি রিসার্চ ল্যাব- এর প্রধান গবেষক কার্স্টেন নোল বলেন, কারো আঙুলের ছাপ তার স্পর্শ করা কাঁচ বা অন্য কোনো কিছু থেকে সংগ্রহ করা অসম্ভব নয়। আর এই তথ্য একবার চুরি হয়ে গেলে আর মাত্র ৯ বার বদলানো সম্ভব হবে, এর বেশি নয়। ভেঙে বললে দাঁড়াচ্ছে, মানুষের দুই হাতে ১০ আঙুল আছে। কোনো ব্যক্তির ১০ আঙুলের ছাপই যদি চুরি হয়ে যায়, তাহলে ওই ব্যক্তির জন্য আর আঙুলের ছাপ ব্যবহার করা সম্ভব হবে কোনো দিনই।

তবে বিশেষজ্ঞরা  এ-ও বলছেন, যদিও এই কার্ড-ব্যবস্থা নিশ্ছিদ্র নয়, তবু তা বায়োমেট্রিক প্রযুক্তির বিচক্ষণ প্রয়োগ।

নোল বলেন, চিপ-পিন সমন্বয়ের ক্ষেত্রে দুর্বলতম অংশ হলো পিন। আঙুলের ছাপ সে সমস্যা দূর করতে পারে। দুর্বল পাসওয়ার্ড বলতে কিছু থাকল না। অপরাধীদের পক্ষে মানুষের আঙুল কেটে নেওয়া অসাধ্যপ্রায়। তাই এ মুহূর্তে এ এটাই শ্রেষ্ঠ প্রযুক্তি।

কিন্তু এই প্রযুক্তি এ মুহূর্তে শুধু দোকানে দোকানেই ব্যবহার করা যাবে। অনলাইন বা কার্ড গ্রহণযোগ্য নয়- এমন আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে বাড়তি নিরাপদ মানদণ্ডের প্রয়োজন হবে।


এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত