যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 10:20pm

|   লন্ডন - 05:20pm

|   নিউইয়র্ক - 12:20pm

  সর্বশেষ :

  যেভাবে সুরক্ষিত রাখবেন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট   আর ডিজেলচালিত গাড়ি বানাবে না পোরশে   মালদ্বীপে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিরোধী প্রার্থী সোলিহর জয়লাভ   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রীকে আ’লীগের সম্বর্ধনা : সরকার পতনে দুর্নীতিবাজরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে   মিয়ানমারের ওপর হস্তক্ষেপের অধিকার নেই জাতিসংঘের: সেনাপ্রধান   বাংলাদেশ সম্পর্কে অমিত শাহর বক্তব্যটি অবাঞ্ছিত : তথ্যমন্ত্রী   গিনেজ বুকের স্বীকৃতি পেল ‘স্বচ্ছ ঢাকা অভিযান’   কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করায় চবি শিক্ষক কারাগারে   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে টাইগারদের জয়   বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় আরও ৫ লাখ রোহিঙ্গা   ট্রাম প্রশাসনের নতুন প্রস্তাবনা, কঠিন হয়ে পড়তে পারে গ্রিন কার্ড   নাইজেরিয়ায় কলেরা মহামারি, ৯৭ জনের মৃত্যু   মংলা-বুড়িমারী বন্দরে বছরে অবৈধ লেনদেন হয় ৩১ কোটি টাকা   অস্কারে যাচ্ছে বাংলাদেশের ‘ডুব’   উন্নত বিশ্বে দ্রুত বাড়ছে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা

>>  বহিঃ বিশ্ব এর সকল সংবাদ

আর ডিজেলচালিত গাড়ি বানাবে না পোরশে

হাইব্রিড গাড়ির প্রতি গ্রাহকদের আগ্রহ বাড়ায় আর ডিজেলচালিত গাড়ি বানাবে না বলে জানিয়েছে জার্মানির বিলাসবহুল গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান পোরশে।

রোববার সকালে এক বিবৃতিতে প্রতিষ্ঠানটি এই তথ্য নিশ্চিত করেছে বলে জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ভক্স মিডিয়া পরিচালিত তথ্যপ্রযুক্তি সংবাদ এবং মিডিয়া নেটওয়ার্ক ‘দ্য ভার্জ’।

পোরশে’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা অলিভার ব্লুম বলেন, বিশ্বজুড়ে এখনও ডিজেলচালিত গাড়ির সংখ্যা যথেষ্ট পরিমাণে আছে। তাই আমাদের এই ঘোষণার সঙ্গে সঙ্গেই ডিজেলে ব্যবহার একেবারে বন্ধ হয়ে যাবে না।

আমাদের বেশির ভাগ গাড়িই ডিজেলচালিত নয়

বিস্তারিত খবর

মালদ্বীপে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিরোধী প্রার্থী সোলিহর জয়লাভ

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২৪ ১০:৩৬:১৯

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিরোধী জোটের প্রার্থী ইব্রাহিম মোহাম্মাদ সোলিহ জয়লাভ করেছেন।

সোমবার সকালে নির্বাচন কমিশন যে ফল প্রকাশ করেছে তাতে দেখা যায় ৫৮ দশমিক ৩ ভাগ ভোট পেয়ে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন ইব্রাহিম মোহাম্মাদ সোলি।

সোলিহ ভোট পেয়েছেন ১ লাখ ৩৪ হাজার ৬১৬ ভোট। পক্ষান্তরে ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্ট  আব্দুল্লাহ ইয়ামিন পেয়েছেন ৯৬ হাজার ১৩২ ভোট।

বিবিসি জানিয়েছে, আব্দুল্লাহ ইয়ামিন পরাজয় স্বীকার করে ভোটের ফল মেনে নিয়েছেন। সোমবার টেলিভিশনে জাতির উদ্দেশ্যে দেওয়া ভাষণে সোলিহকে অভিনন্দন জানিয়েছেন ইয়ামিন।

ভোটের ফল ঘোষনার পর সোলিহ সাংবাদিকদের বলেন,  ‘আমরা খুব সহজেই এ নির্বাচনে জয়ী হয়েছি। এটা আমাদের একটা সুখের, আশান্বিত হওয়ার এবং ইতিহাস গড়ার মুহূর্ত। মালদ্বীপে এবার শান্তি প্রতিষ্ঠা করতে চাই আমরা। আমি শুধু আমার দলের প্রেসিডেন্ট নই। আমি মালদ্বীপের সব মানুষের প্রেসিডেন্ট।’

সোলিহ এ সময় শান্তিপূর্ণভাবে ক্ষমতা হস্তান্তরের দাবি জানান। তিনি বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে বলবো যে দেশের জনগণের ইচ্ছাকে সম্মান করুন। যত দ্রুত সম্ভব একটা নিরবিচ্ছিন্ন প্রক্রিয়ার মাধ্যমে ক্ষমতা হস্তান্তর করার অনুরোধ করবো তাকে।’

এর আগে ইয়ামিনকে জয়ী করতে নির্বাচন কমিশনসহ ক্ষমতাসীন দল নানাভাবে চেষ্টা চালায় বলে অভিযোগ করেছিল পর্যবেক্ষকদল এবং মানবাধিকার সংস্থাগুলো। তবে নির্বাচন কমিশন বলছে, কোনো রকম বিপত্তি ছাড়াই নির্বাচনের ভোট গ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে এবং মালদ্বীপের ইতিহাসে সবচেয়ে শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হলো এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন।

ইব্রাহিম মোহাম্মাদ সোলির প্রতি সমর্থন ছিল মালদ্বীপের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদ। ফল ঘোষণার পর টুইটারে তিনি ইব্রাহিম মোহাম্মাদ সোলিকে অভিনন্দন জানিয়ে লিখেছেন, ‌’শুধু মালদ্বীপের জনগণই নয়, বিশ্বের স্বাধীনতাকামী সব মানুষের জন্য অসাধারণ কাজ করেছেন।’

উল্লেখ্য, সাম্প্রতিক বছরগুলোতে মালদ্বীপে রাজনৈতিক অস্থিরতা চলছে। রোববার মালদ্বীপে ব্যাপক সমালোচনার মুখে দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং যুক্তরাষ্ট্র বলেছিলো যদি নির্বাচনের মাধ্যমে মালদ্বীপের গণতান্ত্রিক পরিস্থিতির উন্নতি না হয় তাহলে দেশটির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হবে।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রীকে আ’লীগের সম্বর্ধনা : সরকার পতনে দুর্নীতিবাজরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২৪ ০৯:৪৩:৪০

সরকারের পতন ঘটাতে সব দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর, খুনের আসামিরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

জাতিসঙ্ঘের সাধারণ অধিবেশন উপলক্ষে যুক্তরাষ্ট্র সফরের প্রথম দিন রোববার রাতে নিউইয়র্কের মিডটাউনের হোটেল হিলটনে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের দেয়া এক সংবর্ধনায় যোগ দিয়ে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, অপপ্রচার রোধ ও শিশুদের সুরক্ষা করতেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে। এতে সাংবাদিকদের উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই।

যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত গণসম্বর্ধনায় আরো বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর অন্যতম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি, পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী, প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ সহকারী ড. আবদুস সোবহান গোলাপ। কি-নোট স্পিকার হিসেবে প্রধানমন্ত্রীর প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় উপস্থিত থাকার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তিনি উপস্থিত ছিলেন না।

সন্ধ্যা সাড়ে ৮টায় প্রধানমন্ত্রী সম্বর্ধনাস্থলে এলে মুহুর্মুহু শ্লোগান আর করতালির মাধ্যমে স্বাগত জানান যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা। কিন্তু এর কিছুক্ষণ পরই সভাস্থল থেকে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমানের অপসারণের দাবিতে শ্লোগান ভেসে আসতে থাকে ‘নো মোর সিদ্দিক’ ‘ভুয়া ভুয়া’। এসময় প্রধানমন্ত্রী মুখে আঙ্গুল দিয়ে সবাইকে চুপ থাকতে বলেন। সাথে সাথেই প্রধানমন্ত্রী মঞ্চে উপবিষ্ট সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী দিপুমনির কাছে জানতে চান সভাস্থলের পরিস্থিতি সম্পর্কে। ততক্ষণে বেশ কয়েক দফা সভাস্থলের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে একই ধরণের শ্লোগান আসতে থাকে। পরে শেখ সেলিম এমপি নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ধমকের সুরে বক্তব্য রাখা শুরু করলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।

উল্লেখ্য, দীর্ঘ ৭ বছর ধরে আওয়ামী লীগের কমিটি না হওয়ায় প্রধানমন্ত্রীর সামনেই ক্ষোভ প্রকাশ করেন দলটির কর্মীরা। সন্ধ্যা ৯টা ১৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তব্য শুরু করেন। এসময় তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর ত্যাগ তিতিক্ষা সম্পর্কে জানতে হলে বঙ্গবন্ধুর অসামাপ্ত আত্মজীবনী, কারাগারের রোজনামচা পড়তে হবে।

তিনি আরো বলেন, বাসের ধাক্কায় দু’টি শিশুর বিচার চাইতে তারা আমার কাছে বিচার চাইতে রাস্তায় নামে। কিন্তু আমরা দুই বোন দেশে ফিরে আমাদের পিতার হত্যার বিচার চাইতে পারিনি।

তিনি আরো বলেন, শিশুরা আন্দোলন করেছে, তাদের গায়ে কেউ হাত দেয়নি। কিন্তু তিন দিন না যেতেই শিশুদের গাড়ে পারা দিয়ে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলে নেমেছিল একটি মহল। আওয়ামী লীগ অফিসে হামলার উস্কানি দেয়া হয়েছিল। ধর্ষণ ও হত্যার অপপ্রচার চালানো হয়েছিল আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে।

এসময় আলোকচিত্রী শহিদুল আলম প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি যে কয়েকটি ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়েছে প্রত্যেকটি আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে। আওয়ামী লীগের কোনো ভালো কাজ সে দেখেনি। তাকে নিয়ে এখন দুনিয়াজুড়ে কান্নাকাটি শুরু হয়েছে। শহিদুল আলমের মামা পাকিস্তানী রাজাকার ছিল বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী আরো জানান, তাকে পুলিশের পক্ষ থেকে ফেসবুকে অপপ্রচার বন্ধের অনুরোধ জানালে তিনি পুলিশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার চালানোর হুমকি দেন। তাই পুলিশ তাকে চালান করেছে।

সদ্য গঠিত জাতীয় ঐক্যের সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা মানুষ হত্যাকারীদের সঙ্গে জোট করতে পারে তাদের মুখে দেশের স্বার্থের কথা মানায় না। প্রধানমন্ত্রী এ প্রসঙ্গে বলেন সরকারের পতন ঘটাতে দুর্নীতিবাজ, ঘুষখোর, খুনী, দখলদার আসামিরা সব একজোট হয়েছে। সরকার উৎখাত করতে হবে, কিন্তু কেন? এমন কি কাজটা আমরা দেশের জন্য করিনি? এমন কোনো সেক্টর নেই যেখানে আমরা উন্নয়ন করিনি।

তিনি জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়ায় পেছনে ড. ইউনুস রয়েছেন বলে জানান।

এসময় প্রধানমন্ত্রী ড. কামাল হোসেন, ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, মাহমুদুর রহমান মান্না, ব্যারিস্টার মইনুল হোসেনের কড়া সমালোচনা করেন।

প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, মাহমুদুর রহমান মান্না জিয়াউর রহমান ও হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সুনজরে ছিলেন বলে দুই দফা নির্বাচিত হয়েছিলেন।

জাতীয় ঐক্য প্রক্রিয়া সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, তারা রাজনীতি করুক তাতে কোনো আপত্তি নেই। আওয়ামী লীগের বিপরীতে যারা ভোট দিবে তাদের জন্যও একটি দল লাগবে। জনগণ তাদেরকে ভোট দিলে দেবে। আওয়ামী লীগ সততায় বিশ্বাস করে। আগামী নির্বাচনে নৌকাকে বিজয়ী করে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে তিনি প্রবাসীদের প্রতি আহ্বান জানান।

জাতীয় সংসদে সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে তিনি বলেন, ইন্টারনেটে অপপ্রচার রোধ ও শিশুদের সুরক্ষার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন করা হয়েছে। সাংবাদিকরা নিজেদের স্বার্থে এই আইনের বিরোধিতা করছেন। সামাজিক যে সমস্যা তৈরী হয়েছে সেদিকে তাদের কোনো লক্ষ্য নেই।

প্রধানমন্ত্রী এসময় শিক্ষা, চিকিৎসা, কৃষি ও যোগাযোগ ব্যবস্থায় তার সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপগুলো প্রবাসীদের সামনে তুলে ধরেন।

এসময় প্রধানমন্ত্রী আরো বলেন, ঢাকা-নিউইয়র্ক সরাসরি ফ্লাইট চালু করার চেষ্টা চলছে।

সোমবার সকাল থেকে প্রধানমন্ত্রী জাতিসঙ্ঘের বেশ কয়েকটি সাইড ইভেন্টে যোগ দেবার কথা রয়েছে।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

মিয়ানমারের ওপর হস্তক্ষেপের অধিকার নেই জাতিসংঘের: সেনাপ্রধান

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২৪ ০৯:৪২:০১

জাতিসংঘের দিকে ইঙ্গিত করে মিয়ানমারের সেনাপ্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং বলেছেন, তার দেশের ওপর হস্তক্ষেপের অধিকার কোনো দেশ, সংস্থা বা গোষ্ঠীর নেই।

মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর সেনাবাহিনীর সীমাহীন দমন-পীড়নকে জাতিসংঘ ‘গণহত্যা’ হিসেবে অভিহিত করা এবং নেদারল্যান্ডসের হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে এ ঘটনার প্রাথমিক তদন্ত শুরু হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে সেনাপ্রধান এ মন্তব্য করলেন।

২৩ সেপ্টেম্বর, রবিবার সেনাপ্রধান এ মন্তব্য করেন বলে সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রিত পত্রিকা ‘মিয়াওদি’র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

রোহিঙ্গাদের ওপর অত্যাচারের পরিপ্রেক্ষিতে জাতিসংঘ একটি সত্যানুসন্ধানী কমিশন তৈরি করে। ওই কমিটি তাদের প্রতিবেদনে বলেছে, মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর গণহত্যা চালিয়েছে। এ কারণে হেগের আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিচারের মুখোমুখি করা উচিত।

মিয়ানমারের রাজনীতি থেকে সেনাবাহিনীর সরে যাওয়া উচিত বলেও জাতিসংঘের ওই কমিটির প্রতিবেদনে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। জেনারেল মিন অং হ্লাইং এর তীব্র সমালোচনা করেন।

জাতিসংঘের পরামর্শের সমালোচনা করে সেনাপ্রধান বলেন, ‘মিয়ানমারে গণতন্ত্র বিকাশের পথ তৈরি করতে সেনাবাহিনী সশস্ত্র সংঘাত থামিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠার কাজ করে যাবে।’

‘অন্য দেশের অভ্যন্তরীণ বিষয়ে হস্তক্ষেপ ভুল বোঝাবুঝির সৃষ্টি করতে পারে’, বলেন সেনাপ্রধান।

জাতিসংঘের ৪৪৪ পৃ্ষ্ঠার ওই প্রতিবেদনে রোহিঙ্গাদের ওপর হওয়া বর্বরতার বিস্তারিত বর্ণনা দেওয়া হয়েছে। সেনা বর্বরতার হাত থেকে বাঁচতে রাখাইন থেকে যারা পালিয়ে বাংলাদেশে এসে আশ্রয় নিয়েছেন, তাদের বর্ণনায় ওই ভয়াবহতার আঁচ পাওয়া গেছে বলে প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

গত বছরের আগস্টে মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইনে অভিযান শুরু করার পর থেকে এখন পর্যন্ত প্রায় সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে।

মিয়ানমার সেনাবাহিনী বরাবরই তাদের বিরুদ্ধে আসা এসব বর্বরতার অভিযোগ অস্বীকার করে আসছে। তারা বলছে, রাখাইন থেকে ‘রোহিঙ্গা জঙ্গিদের’ হটাতে ওই অভিযান চালিয়েছিল।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ট্রাম প্রশাসনের নতুন প্রস্তাবনা, কঠিন হয়ে পড়তে পারে গ্রিন কার্ড

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২৩ ০৯:২১:০৪

যুক্তরাষ্ট্রে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রশাসন একটি প্রস্তাবনা দিয়েছে যার ফলে দেশটিতে সরকারি সুবিধা গ্রহণ করা বিদেশিদের জন্য স্থায়ী বসবাসের অনুমতি পাওয়া কঠিন হয়ে পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

নতুন প্রস্তাবনা অনুযায়ী, যেসব অভিবাসী খাদ্য, বাসস্থান বা স্বাস্থ্যসেবা নিচ্ছেন তারা বোঝা হিসেবে বিবেচিত হবেন এবং তাদের গ্রিন কার্ড পাওয়ার আবেদন প্রত্যাখ্যান হতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসরত বিদেশিদের জন্য নানা ধরনের সুবিধা বন্ধ কিংবা আরও কঠোর করার জন্য এ ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছে ট্রাম্প প্রশাসন।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এর ফলে দেশটিতে বৈধভাবেও যেসব বিদেশি যাবেন বা রয়েছেন তাদের জন্য খাদ্য সহায়তা, গৃহায়ন কিংবা স্বাস্থ্যসেবা পাওয়াটা কঠিন হয়ে দাঁড়াবে।

হোমল্যান্ড সিকিউরিটির বিভাগের প্রস্তাবিত রেগুলেশন্সে অভিবাসন কর্মকর্তাদের ভিসা কিংবা বসবাসের অনুমতি প্রত্যাখ্যানের ক্ষমতা বাড়ানোর কথা বলা হয়েছে।

দেশটিতে বসবাসের অনুমতি পাওয়া ব্যক্তিদের স্বাস্থ্যসেবার মতো কিছু বিষয়ে সেবা পাওয়ার আইনগত অধিকার রয়েছে। নতুন নীতমালা হলে বিদেশিদের জন্য এসব সুবিধা পাওয়া কঠিন হয়ে পড়বে।

প্রায় দু'দশক ধরে চলমান নীতির আওতায় সেখানে অনুমতি নিয়ে বসবাসরত বিদেশিরা এসব সুবিধা পেয়ে আসছিলেন। এখন যারা ভিসা চাইবেন বা স্থায়ী বসবাসের আইনগত অনুমতি চাইবেন তাদের জন্য নতুন নীতিমালা প্রযোজ্য হবে। তবে যারা নাগরিকত্বের আবেদন করবেন তাদের জন্য প্রযোজ্য হবে না।

সেক্রেটারি অফ হোমল্যান্ড সিকিউরিটি কার্স্টজেন নিয়েলসেন বলেন, 'যুক্তরাষ্ট্রে যারা অভিবাসনের আবেদন করবেন তাদের আর্থিকভাবে নিজেদের সাহায্য করার ক্ষমতা থাকতে হবে।'

তিনি জানান, অভিবাসীদের আত্মনির্ভরশীলতায় উদ্বুদ্ধ করা, যাতে করে তারা মার্কিন করদাতাদের জন্য বোঝা না হয়, সেজন্য প্রস্তাবিত আইন কংগ্রেসে উত্থাপন করা হবে।

তবে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, নতুন নীতিমালা কংগ্রেসে উত্থাপনের প্রয়োজন হবে না। যদিও চূড়ান্ত হওয়ার আগে এর ওপর মতামত দেয়ার সুযোগ দেয়া হবে এবং সংশ্লিষ্টরা এসব বিষয়ে পাওয়া মতামতগুলো গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করবেন।

প্রতি বছর যুক্তরাষ্ট্রে থাকা প্রায় তিন লাখ বিরাশি হাজারের বেশি ব্যক্তি স্থায়ী বসবাসের অনুমতি পেয়ে থাকেন, আর নতুন এ নীতি তাদের ওপর প্রভাব ফেলবে।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নাইজেরিয়ায় কলেরা মহামারি, ৯৭ জনের মৃত্যু

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২৩ ০৯:১২:২২

পশ্চিম আফ্রিকার দেশ নাইজেরিয়ায় ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী কলেরা সংক্রমণ। জাতিসংঘ বলছে, শুধু গত দুই সপ্তাহেই দেশটির উত্তর পূর্বাঞ্চলে এ রোগে আক্রান্ত হয়ে প্রায় শখানেক মানুষের মৃত্যু হয়েছে। শনিবার জাতিসংঘের কো-অর্ডিনেশন অব হিউম্যানিটারিয়ান অ্যাফেয়ার্স (ওসিএইচএ) জানিয়েছে, তারা নাইজেরিয়ার ইয়োব এবং বর্নো রাজ্যে তিন হাজার ১২৬টি কলেরা সংক্রমণের রেকর্ড লিপিবদ্ধ করেছেন। এরমধ্যে ৯৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। ওসিএইচএ-এর বরাত দিয়ে এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।

দুই সপ্তাহ আগে বর্নো রাজ্যে এই কলেরা সংক্রমণের খবরে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

এর আগে বুধবার জাতিসংঘের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, নাইজেরিয়ার লেক শাদ এলাকায় ২০১৮ সালে ৫০০-এরও বেশি মানুষ কলেরা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। গত চার বছরের মধ্যে এটাই অঞ্চলটিতে কলেরার সবচেয়ে বড় সংক্রমণ।

উল্লেখ্য, কলেরার সময় মতো চিকিৎসা না করা হলে ডায়রিয়া, পেট ব্যথা ও পেট ফাঁপার পাশাপাশি বমি হতে পারে। প্রধানত দূষিত খাবার ও পানিই এই রোগের কারণ। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, দুর্বল স্যানিটেশন ব্যবস্থার গরিব দেশগুলোতে প্রতি বছর ২১ হাজার থেকে এক লাখ ৪৩ হাজার মানুষ কলেরায় আক্রান্ত হয়ে মারা যায়।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

এরদোগানের প্রশংসায় জাতিসংঘ মহাসচিব

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২২ ১১:৫১:৩১

সিরিয়ার ইদলিবে সামরিক অভিযান বন্ধ করতে পারায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগানের প্রশংসা করেছেন জাতিসংঘের মহাসচিব এন্টনিও গুতেরেস।

জাতিসংঘের মহাসচিব ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ছাড়াও ইদলিবের সাধারণ মানুষ এখন এরদোগানের প্রশংসায় পঞ্চমুখ।

জাতিসংঘ মহাসচিব এরদোগানের প্রশংসা করে বলেছেন, তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়্যিপ এরদোগান ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সোচিতে যে সমঝোতায় পৌঁছেছেন তাতে সিরিয়ার ৩০ লাখ মানুষের জীবন রক্ষা হবে।

সিরিয়ায় আসাদবিরোধীরা বর্তমানে ইদলিবে অবস্থান করছে, সেখানে প্রায় ৩০ লাখ সাধারণ মানুষের বসবাস। সম্প্রতি আসাদ সরকার ও মিত্র রাশিয়া এবং ইরান সেখানে অভিযানে অগ্রসর হয়।

তুর্কি প্রেসিডেন্ট এরদোগান অভিযানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে বক্তব্য রাখেন এবং ইদলিবের কাছাকাছি সেনা সমাবেশ ঘটান। এ নিয়ে রাশিয়া ও ইরানের সঙ্গে তুর্কি সরকার দফায় দফায় আলোচনায় বসে।

তুরস্কের বক্তব্য- ইদলিবে অভিযান চালালে সেখানে অবস্থানরত প্রায় ৩০ লাখ মানুষের মধ্যে ভয়াবহ বিপর্যয় ঘটবে। হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু হবে এবং তুরস্ক ও ইউরো শরণার্থীর ঢল নামবে। সে কারণে তুরস্ক এই অভিযানের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়।

সর্বশেষ সোচিতে এরদোগান ও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের মধ্যে সমঝোতা হয়। ইদলিবে হামলা না চালিয়ে সেখানে একটি নিরাপদ অঞ্চল গড়ার জন্য দুই নেতা সম্মত হয়। এরদোগানের এ প্রচেষ্টার ফলে ভয়াবহ বিপর্যয় থেকে রক্ষা পেয়েছে ইদলিব।

বিস্তারিত খবর

চীনের সেনাবাহিনীর ওপর যুক্তরাষ্ট্রের অবরোধ

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২২ ১১:৪৯:০৫

চীনের সেনাবাহিনীর ওপর অবরোধ আরোপ করেছে যুক্তরাষ্ট্র। রাশিয়ার সেনাবাহিনীর কাছ থেকে চীনের যুদ্ধবিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয়ের প্রতিবাদে এই অবরোধ আরোপ করা হয়েছে।

চীন সম্প্রতি রাশিয়ার কাছ থেকে ১০টি সুখোই সু-৩৫ যুদ্ধবিমান ও এস-৪০০ ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় করেছে।

যুক্তরাষ্ট্র বৃহস্পতিবার জানিয়েছে, ইউক্রেনে রাশিয়ার পদক্ষেপ ও যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের প্রতিবাদে মস্কোর ওপর যে অবরোধ যুক্তরাষ্ট্র আরোপ করেছিল চীনের যুদ্ধবিমান ও ক্ষেপণাস্ত্র ক্রয় সেই অবরোধের ওপর আঘাত।

রাশিয়ার ওপর ২০১৪ সালে যুক্তরাষ্ট্র ও তাদের পশ্চিমা মৈত্রীরা যে অবরোধ আরোপ করেছিল তার সঙ্গে যোগ দেয়নি চীন।

২০১৪ সালে ইউক্রেনের ক্রিমিয়াকে একীভূত করে নেয় রাশিয়া। এর পর থেকে মস্কোর সঙ্গে সম্পর্ক খারাপ হতে থাকে ওয়াশিংটনের। এ ছাড়া, ২০১৬ সালের মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপ ও সিরিয়ার চলমান গৃহযুদ্ধে রাশিয়ার ভূমিকায় দুই দেশের সম্পর্ক আরো খারাপ হয়।

বিস্তারিত খবর

ইরানে সামরিক কুচকাওয়াজে হামলা, নিহত ২৪

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২২ ১১:৪৪:২৯

ইরানের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের আহভাজ শহরে সামরিক কুচকাওয়াজে বন্দুক হামলায় দেশটির বিপ্লবী বাহিনীর ১১ সদস্যসহ অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছেন।

শনিবার (২২ সেপ্টেম্বর) স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে চার বন্দুকধারীর ওই হামলায় আহত হয়েছেন অারো কমপক্ষে ৫৩ জন। ইরানের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা আইআরএনএ'র বরাত দিয়ে এপি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

আইআরএনএ বলছে, শনিবারের হামলায় আহতদের মধ্যে নারী ও শিশু রয়েছে। এর আগে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেট (আইএস) এই হামলার জন্য দায়ী বলে আইআরএনএর এক প্রতিবেদনে জানানো হয়।

দেশটির অভিজাত সামরিক বাহিনী রেভলুশনারি গার্ডের ঘনিষ্ঠ আধা-সরকারি সংবাদ সংস্থা ফারস নিউজ অ্যাজেন্সি বলছে, খাকি পোশাক পরিহিত দুই বন্দুকধারী মোটরসাইকেলে এসে হামলা চালিয়েছে।

রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনে প্রচারিত ফুটেজে হামলার ভয়াবহ চিত্র দেখা যায়। এতে দেখা যায়, মাটিতে পড়ে থাকা আহতদের জরুরি চিকিৎসা সহায়তা দিচ্ছেন সামরিক বাহিনীর কর্মকর্তারা।

দেশটির অপর আধা সরকারি সংবাদ সংস্থা আইএসএনএ হামলার পরপরই কিছু ছবি প্রকাশ করে। এতে দেখা যায়, পোশাক পরিহিত রক্তাক্ত সেনা-সদস্যরা অনুষ্ঠানস্থল থেকে অতিথিদের বেরিয়ে যেতে সহায়তা করছেন।

ইরানে সৌদি আরব সমর্থিত বিদ্রোহী গোষ্ঠী প্যাট্রিয়টিক আরব ডেমোক্রেটিক ম্যুভমেন্টের সদস্যরা সামরিক এই কুচকাওয়াজে হামলার দায় স্বীকার করেছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া এক বিবৃতিতে এই গোষ্ঠী হামলার দায় নিয়ে বিবৃতি দিয়েছে বলে আইআরএনএ জানিয়েছে।

আহভাজের জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা কর্নেল নাকিব ফাতেমি বলেন, এই গোষ্ঠীটি অতীতে খুজেস্তান প্রদেশে বেশ কয়েকটি হামলা চালিয়েছে।

তিনি বলেন, শনিবার সকালে সামরিক কুচকাওয়াজে ইউনিফর্ম পরিহিত চার বন্দুকধারী হামলা চালিয়েছে। এদের মধ্যে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে দুই হামলাকারী নিহত ও বাকি দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতার একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক।

বিস্তারিত খবর

আলোচনায় চেয়ে মোদিকে ইমরানের চিঠি

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২০ ০৯:১৩:৫৪

আবার আলোচনায় বসতে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে চিঠি লিখে প্রস্তাব দিয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এমাসের শেষদিকে নিউ ইয়র্কে রাষ্ট্রসংঘের সাধারণ সভার সময় ভারতের বিদেশমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এবং পাক বিদেশমন্ত্রী মেহমুদ কুরেশির মধ্যে বৈঠকের প্রস্তাবও দিয়েছেন তিনি।

এর আগে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দুই দেশের মধ্যে একটা অর্থবহ এবং গঠনমূলক সম্পর্কে তৈরির আগ্রহের প্রেক্ষিতে এ চিঠি দিলেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। এর আগে পাকিস্তানের নব-নির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী তার বিজয়ী ভাষণে বলেছিলেন দু'দেশের সম্পর্ক স্বাভাবিক করতে ভারত যদি এক ধাপ এগিয়ে আসে তাহলে পাকিস্তান দুই ধাপ এগিয়ে যাবে।

গত কয়েকসপ্তাহ ধরে এই কানাঘুষা চলছিলো যে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে সুষমা স্বরাজ এবং মাহমুদ কোরেশী মধ্যে বৈঠক হবে কিনা। গত মাসে পাকিস্তানে নতুন সরকার ক্ষমতায় আসার পর এ চিঠির মাধ্যমে দুই দেশের পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নে আলোচনার জন্য প্রথম আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব দিলেন ইমরান খান।

কূটনৈতিক সূত্রে জানা যায়, ইমরান খান বলেছেন তিনি দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা পুনরায় শুরু করতে চান। এর আগে ২০১৫ সালে আলোচনা শুরু হলেও পাঠানকোট হামলার কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়। এরই প্রেক্ষিতে ইমরান খান বলেন ভারত এবং পাকিস্তানের গুরুত্বপূর্ণ পারস্পরিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা উচিত। বিশেষ করে সন্ত্রাসবাদ এবং কাশ্মিরের মতো বিতর্কিত বিষয়গুলো নিয়ে দ্বি-পাক্ষিক আলোচনা করতে হবে।

এর আগে ২০১৫ সালে ডিসেম্বরে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এশিয়া সম্মেলনে যোগ দিতে ইসলামাবাদ সফরে যান। সেটাই দু'দেশের মধ্যে শেষ আনুষ্ঠানিক আলোচনা।

বিস্তারিত খবর

ফিলিপাইনে ভূমিধস, ১২ জনের মৃত্যু

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২০ ০৯:১০:৫৬

প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণে সৃষ্ট ভূমিধসে ফিলিপাইনে কমপক্ষে ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার ফিলিপাইনের মধ্যাঞ্চলে এ ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

চেবু দ্বীপের নাগা সিটির এক প্রান্তে চুনাপাথরের খাদ এলাকার কাছে কয়েকটি গুচ্ছ বাড়ি রয়েছে। প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণে ওই এলাকায় নুড়ি পাথর ও মাটি ধসে পড়ে। ১২ জনকে সেখান থেকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত প্রায় ৫০ জন নিখোঁজ রয়েছে।

শহরের গভর্নমেন্টের মুখপাত্র গ্যারি কাবোতাজি বলেছেন, ‘উদ্ধারকারীদের অভিযানে বেশ সতর্কতার সঙ্গে কাজ করতে হচ্ছে।তাদের অধিকাংশকে নিড়ানি ও বেলচা ব্যবহার করতে হচ্ছে। কারণ সেখানে ভারী যন্ত্রপাতি ব্যবহার করা বিপজ্জনক।’

প্রাদেশিক গভর্নর জানিয়েছেন, বৃষ্টি ও ভূমিক্ষয়ের কারণে উদ্ধার অভিযান ব্যাহত হচ্ছে। উদ্ধারকাজে, সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, অগ্নিনির্বাপন বাহিনী ও পুলিশ সদস্যরা যোগ দিয়েছে।

রোববার টাইফুন ম্যাংখুতের আঘাতে শতাধিক ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে। এদের অধিকাংশই ঘটেছে প্রধান দ্বীপ লুজনের করডিলেরা পার্বত্য অঞ্চলে। টাইফুনের আঘাতে দেশব্যাপী ৮৮ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বিশ্বে প্রতি ৫ সেকেন্ডে ১ শিশু মারা যায়

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২০ ০৯:০৯:০৪

জাতিসংঘের জনসংখ্যা বিভাগ ও বিশ্বব্যাংক গ্রুপের প্রকাশিত শিশু মৃত্যুর নতুন হিসাব অনুযায়ী, ২০১৭ সালে ১৫ বছরের কম বয়সী প্রায় ৬৩ লাখ শিশুর মৃত্যু হয়েছে। অর্থাৎ প্রতি ৫ সেকেন্ডে মারা গেছে একজন শিশু। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এসব মৃত্যু হয়েছে প্রতিরোধযোগ্য কারণে।

এই শিশুদের একটি বড় অংশের মৃত্যু হয়েছে তাদের জীবনের প্রথম পাঁচ বছরের মধ্যে, যা সংখ্যায় ৫৪ লাখ। মৃত্যুবরণকারী এই শিশুদের মধ্যে নবজাতকের সংখ্যা প্রায় অর্ধেক।

ইউনিসেফের তথ্য, গবেষণা ও নীতিমালা বিষয়ক পরিচালক লরেন্স চ্যান্ডি বলেন, ‘জরুরি পদক্ষেপ নেওয়া না হলে এখন থেকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত সময়ে পাঁচ বছরের কমবয়সী ৫ কোটি ৬০ লাখ শিশুর মৃত্যু হবে। শিশুদের রক্ষায় আমরা ১৯৯০ সাল থেকে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন করেছি। তারপরও লাখ লাখ শিশু এখনো মৃত্যুবরণ করছে, কেবলমাত্র তারা কারা এবং কোথায় জন্মগ্রহণ করছে- এই কারণে। ওষুধ, পরিষ্কার পানি, বিদ্যুৎ ও টিকার মতো সহজ সমাধান নিশ্চিত করে আমরা প্রতিটি শিশুর এই বাস্তবতা বদলে দিতে পারি।’

বিশ্বব্যাপী ২০১৭ সালে মৃত্যুবরণকারী পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশুদের প্রায় অর্ধেকই সাব-সাহারান আফ্রিকার এবং আরো ৩০ শতাংশ এশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের। সাব-সাহারান আফ্রিকায় প্রতি ১৩ জন শিশুর মধ্যে ১ জন তার বয়স পাঁচ বছর হওয়ার আগেই মারা যায়। উচ্চ আয়ের দেশগুলোতে এই সংখ্যাটি ছিল প্রতি ১৮৫ শিশুর মধ্যে ১ জন।

সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান অনুযায়ী, ২০১৭ সালে বাংলাদেশে অনূর্ধ্ব পাঁচ বছর বয়সী শিশুর মৃত্যুহার ছিল প্রতি ১ হাজার জীবিত জন্মে ৩২। এটা ১৯৯০ সালে ৫ লাখ ৩২ হাজার থেকে ২০১৭ সালে কমে ১ লাখে দাঁড়ায়। এসব মৃত্যুর অর্ধেকের কিছু বেশি হচ্ছে নবজাতকের, যাদের জন্মের প্রথম ২৮ দিনের মধ্যেই মৃত্যু হয়েছে।

নবজাতকের স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ সরকার একাধিক পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে, যার মধ্যে জাতীয় নবজাতক ক্যাম্পেইন অন্যতম। এই ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে সরকার প্রতিটি নবজাতকের জন্য ব্যয়সাশ্রয়ী জরুরি স্বাস্থ্যসেবা কমিউনিটি ও বাড়ির দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে চেষ্টা করছে।

২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরের শুরুতে সরকার জাতীয় নবজাতক স্বাস্থ্য কর্মসূচি শুরু করে, যা জরুরি কার্যক্রমগুলোকে বাংলাদেশের ৬৪ জেলায় সম্প্রসারণ করে। জরুরি মাতৃ ও নবজাতকের সেবাকে যথাযোগ্য অগ্রাধিকার দিতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়, ইউনিসেফ ও অংশীদার সংস্থা বাংলাদেশের জেলাসমূহে অসুস্থ নবজাতকের অত্যাবশ্যকীয় সেবা নিশ্চিত করতে স্ক্যানু প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে। স্ক্যানুর মাধ্যমে অসুস্থ নবজাতকদের অত্যাবশ্যকীয় স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া হচ্ছে।

ডব্লিউএইচওর পরিবার, নারী ও শিশু স্বাস্থ্যবিষয়ক সহকারী মহাপরিচালক ড. প্রিন্সেস নোনো সিমেলেলা বলেন, ‘পানি, পয়ঃনিষ্কাশন ব্যবস্থা, যথাযথ পুষ্টি অথবা মৌলিক স্বাস্থ্যসেবার অভাবে এখনো প্রতি বছর লাখ লাখ শিশু মারা যাওয়া উচিত নয়। প্রতিটি শিশুকে, বিশেষ করে জন্মের সময় এবং প্রারম্ভিক বছরগুলোতে মানসম্মত স্বাস্থ্যসেবা প্রাপ্তির সুযোগ প্রদানের বিষয়টিকে আমাদের অবশ্যই অগ্রাধিকার দিতে হবে, যাতে তারা বেঁচে থাকার এবং স্বাস্থ্যবান হয়ে বেড়ে ওঠার সর্বোত্তম সুযোগ পায়।’

৫ বছরের কম বয়সী বেশিরভাগ শিশুর মৃত্যু হয় জন্মকালীন জটিলতা, নিউমোনিয়া, ডায়রিয়া, নবজাতকের সংক্রমণজনিত সমস্যা ও ম্যালেরিয়ার মতো প্রতিরোধযোগ্য অথবা নিরাময়যোগ্য কারণে। তুলনামূলকভাবে ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে মৃত্যুর একটি বিশেষ কারণ হচ্ছে আঘাত, বিশেষ করে পানিতে ডুবে যাওয়া এবং সড়ক দুর্ঘটনার মাধ্যমে।

বিশ্বব্যাংক গ্রুপের জ্যেষ্ঠ পরিচালক এবং স্বাস্থ্য, পুষ্টি ও জনসংখ্যার বৈশ্বিক চর্চা বিভাগের প্রধান টিমোথি ইভানস বলেন, ’৬০ লাখের বেশি শিশু তাদের পঞ্চদশ জন্মদিনের আগেই মৃত্যুবরণ করে, যা আমরা কোনোভাবেই মেনে নিতে পারি না। প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যুর অবসান ঘটানো এবং শিশুদের স্বাস্থ্যের পেছনে বিনিয়োগ করা সব দেশেরই মানবসম্পদ গড়ে তোলার মৌলিক ভিত্তি। আর এই বিনিয়োগ তাদের ভবিষ্যৎকে উন্নত ও সমৃদ্ধ করবে।’

সর্বত্রই শিশুদের জন্য সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ সময় হচ্ছে তাদের জীবনের প্রথম মাস। ২০১৭ সালে ২৫ লাখ শিশু তাদের জীবনের প্রথম মাসে মৃত্যুবরণ করে। উচ্চ আয়ের দেশগুলোতে জন্মগ্রহণকারী একটি শিশুর তুলনায় সাব-সাহারান আফ্রিকা অথবা এশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলোতে জন্মগ্রহণকারী শিশুদের জীবনের প্রথম মাসেই মৃত্যুর ঝুঁকি ছিল ৯ গুণ বেশি। এছাড়া, পাঁচ বছরের কম বয়সী অন্য শিশুদের তুলনায় নবজাতকদের বাঁচানোর ক্ষেত্রে অগ্রগতি ১৯৯০ সাল থেকে বেশ ধীর গতির।

এক্ষেত্রে এমনকি দেশের ভেতরে ও বৈষম্য রয়েছে। শহরাঞ্চলের তুলনায় গ্রামাঞ্চলে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু মৃত্যুর হার গড়ে ৫০ শতাংশ বেশি। এছাড়া, মাধ্যমিক বা আরো উচ্চ পর্যায়ের শিক্ষা গ্রহণ করা মায়ের সন্তানের তুলনায় অশিক্ষিত মায়ের সন্তানের বয়স পাঁচ বছর হওয়ার আগেই মৃত্যুর ঝুঁকি প্রায় দ্বিগুণ।

এসব চ্যালেঞ্জ থাকা সত্বেও প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী শিশুমৃত্যু কমেছে। ১৯৯০ সালে যেখানে পাঁচ বছরের কম বয়সে ১ কোটি ২৬ লাখ শিশুর মৃত্যু হতো সেখানে ২০১৭ সালে তা নাটকীয়ভাবে কমে ৫৪ লাখে নেমে এসেছে। একই সময়ে আরেকটু বেশি বয়সে অর্থাৎ ৫ থেকে ১৪ বছর বয়সে মারা যাওয়া শিশুদের সংখ্যা ১৭ লাখ থেকে কমে ১০ লাখের নিচে নেমে এসেছে।

জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিষয়ক আন্ডার সেক্রেটারি-জেনারেল লিউঝেন মিন বলেন, ‘১৯৯০ সাল থেকে শিশু ও কিশোর-কিশোরীদের মৃত্যুহার কমানোর ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতির বিষয়টি নতুন প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। শৈশবকালীন প্রতিরোধযোগ্য মৃত্যুর অবসান ঘটানো সংক্রান্ত টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন এবং কেউ যাতে পিছিয়ে না পড়ে তা নিশ্চিত করার জন্য সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে থাকা নবজাতক, শিশু ও মায়েদের সহায়তা করার মাধ্যমে বৈষম্য কমানো অপরিহার্য।’

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ভারতে এবার বিক্রি হবে গোবর, গো-মূত্রের সাবান

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৯ ১৪:২৯:৩৪

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভারতে মাঝেমাজে অনলাইনে গো-মূত্র বা ঘুঁটে বিক্রির বিজ্ঞাপন দেখা যায়। এ নিয়ে কৌতুকও কম হয়নি সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। কিন্তু তারপরেও দেখা গেছে রমরমিয়ে অনলাইনে বিক্রি হচ্ছে শুকনো গোবর, গো-মূত্র!

অনলাইনে প্রাকৃতিক ওষুধ বিক্রির পাশাপাশি ঘুঁটে, গো-মূত্র বিক্রি শুরু করেছিল যোগ গুরু বাবা রামদেবের সংস্থা পতঞ্জলী। রামদেবের দেখানো সেই পথেই এবার হাঁটা শুরু করল রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক প্রভাবিত সংস্থা। শুধু গো-মূত্র বা ঘুঁটে নয়, এবার অনলাইনে এই গো-মূত্রের তৈরি সাবান, শ্যাম্পু, ফেসপ্যাক, টুথপেস্টসহ প্রাকৃতিক উপায়ে তৈরি নানা প্রসাধনী জিনিস বিক্রি করতে নামছে সংস্থাটি।

মথুরায় দীনদয়াল ধাম নামে আরএসএসের যে কেন্দ্রটি রয়েছে সেখানেই তৈরি হচ্ছে প্রসাধনী থেকে শুরু করে পোশাক এমনকি ওষুধও।

ধামের প্রধান কর্মকর্তা রাজেন্দ্র জানিয়েছেন, চাহিদার কথা মাথায় রেখেই এই জিনিসগুলো তৈরি করা হচ্ছে। তবে তার আশা, গোমূত্রের তৈরি জিনিসের চাহিদাই সবচেয়ে বেশি হবে। যে জিনিসগুলো বিক্রি করা হবে তার দামও খুব একটা বেশি নয় বলে জানিয়েছেন তিনি। ১০ টাকা থেকে ২৩০ টাকা দামের জিনিস পাওয়া যাবে। আর বিক্রির মাধ্যম হিসেবে বেছে নেওয়া হয়েছে অনলাইন বিপণন সংস্থা অ্যামাজনকে। প্রাথমিকভাবে ৩০ রকমের থেরাপিউটিক দ্রব্য বিক্রি করা হবে। সঙ্গে থাকবে ১০ রকমের পোশাকও।

তবে এ সবের মধ্যেও নজরকাড়ার মতো বিষয় হল মোদি ও যোগি কুর্তা। ৫৬ ইঞ্চি ছাতির পোশাক নিয়ে লোকজনের মধ্যে কৌতুহল কম নয়। সেই জনপ্রিয়তা যে কাজে আসবে সেটা আশা করছেন সংস্থার কর্মীরা। মোদি বা যোগি কুর্তার দাম এক একটি ২২০ টাকা।

অনলাইনে বিক্রির সিদ্ধান্তের বিষয়ে আরএসএস মুখপাত্র অরুণ কুমার জানান, স্থানীয়দের জন্য কাজের আরও সুযোগ করে দিতে এবং তাদের স্বনির্ভর করে তুলতে এই সিদ্ধান্ত। যদি অনলাইনে এই বিক্রি শুরু হয়, তা হলে চাহিদা বাড়বে।  সেই সঙ্গে কাজেরও সুযোগ বাড়বে।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নাজিব রাজাক গ্রেপ্তার

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৯ ১৪:২৬:১৭

মালয়েশিয়ার প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ওয়ান মালয়েশিয়া ডেভেলপমেন্ট বারহাদ (ওয়ান এমডিবি) তহবিল থেকে ৮৫৯ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যক্তিগত তহবিলে স্থানান্তরে সংশ্লিষ্টতার অভিযোগে বুধবার তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

মালয়েশিয়ার দুর্নীতি দমন কমিশন এমএসিসি এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, স্থানীয় সময়  বিকেল ৪টা ১৩ মিনিটে পুত্রাজায়াতে এমএসিসির সদর দপ্তর থেকে নাজিবকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেল ৩টায় তাকে কুয়ালালামপুর আদালতে হাজির করা হবে।

এর আগে গত মে মাসে নাজিবকে গ্রেপ্তার করেছিল এমএসিসি। ওই সময় তার বিরুদ্ধে একই অভিযোগ তোলা হয়েছিল। পরে তিনি আদালত থেকে জামিনে ছাড়া পান।

বুধবার এমএসিসি জানিয়েছে, নাজিবের বিরুদ্ধে নাজিবের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়েছে। এমএসিসির আইন অনুযায়ী গঠিত নাজিবের বিরুদ্ধে ক্ষমতার অপব্যবহার ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ আনা হয়েছে।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

মুক্তি পেলেন নওয়াজ শরিফ

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৯ ১৪:২১:৫২

আদালতের আদেশের পর কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফ। একই সঙ্গে মুক্তি পেয়েছেন নওয়াজের মেয়ে মরিয়ম নওয়াজ ও জামাতা মোহাম্মদ সফদার। উচ্চ আদালত তাঁদের সাজা স্থগিতের আদেশ দেওয়ার পর বুধবার রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা কারাগার থেকে মুক্তি পান তাঁরা। কথিত দুর্নীতির মামলায় ১০ বছরের সাজা পেয়ে দুই মাস কারাভোগের পর তিনি মুক্তি পান।

ডন-এর খবরে বলা হয়েছে, রাজনৈতিক দল পিএমএল-এনের সভাপতি শাহবাজ শরিফের নেতৃত্বে বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা বুধবার সন্ধ্যায় আদিয়ালা কারাগারে পৌঁছান। সেখানে তাঁরা নওয়াজ শরিফকে স্বাগত জানান। এ সময় কারাগারের সামনে দলটির অসংখ্য সমর্থক জড়ো হয়।

সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, স্ত্রী কুলসুম নওয়াজের মৃত্যুর এক সপ্তাহের মধ্যে মুক্তি পেলেন নওয়াজ শরিফ। ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে লন্ডনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান কুলসুম। ওই সময় কয়েক দিনের জন্য প্যারোলে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছিলেন পাকিস্তানের এই সাবেক প্রধানমন্ত্রী।

বুধবার দেশটির আদালত পাকিস্তান মুসলিম লিগের (পিএমএল-এন) শীর্ষ এ নেতাকে মুক্তির আদেশ দেন। আদালত একইসঙ্গে নওয়াজের মেয়ে মরিয়ম শরীফকেও মুক্তির আদেশ দিয়েছেন। তাদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আদালত এই রায় দিয়েছেন বলে বিবিসি জানায়।

লন্ডনে চারটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাটের মালিকানা নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগ আনা হয় নওয়াজ শরীফ ও তার পরিবারের ওপর।
অবশ্য নওয়াজ পরিবার বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে একে রাজনৈতিক হয়রানি বলে আসছে।

পাকিস্তানের জাতীয় নির্বাচনের আগে দুর্নীতির মামলায় নওয়াজ শরীফকে ১০ বছর এবং তার মেয়ে মরিয়ম শরীফকে ৭ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন আদালত।

নির্বাচনের অযোগ্য হওয়ার পাশাপাশি তাদেরকে গত জুলাইয়ে তাদের জেলে যেতে হয়। পরে ওই নির্বাচনে সাবেক ক্রিকেটার ইমরান খানের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তান তেহরিক-ই -ইনসাফের (পিটিআই) সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে সরকার গঠন করে।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে ইয়েমেনের ৫২ লাখ শিশু

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৯ ১৪:১৯:৩৭

ইয়েমেনে ৫০ লাখের বেশি শিশু দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে রয়েছে। দেশটিতে চলমান যুদ্ধের কারণে খাবার ও জ্বালানীর দাম বেড়ে যাওয়ায় সেখানে এমন অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। দাতব্য সংস্থা সেভ দ্য চিলড্রেন বুধবার একথা জানিয়েছে।

সংস্থাটি জানায়, ইয়েমেনে খাবারের দাম ও পরিবহন খরচ বেড়ে যাওয়ায় দেশটিতে অতিরিক্ত ১০ লাখ শিশু এখন দুর্ভিক্ষের ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। এনিয়ে দুর্ভিক্ষের ঝুঁকিতে থাকা মোট শিশুর সংখ্যা বেড়ে ৫২ লাখে দাঁড়ালো।

আন্তর্জাতিক এ সংস্থা আরো জানায়, বন্দরে যে কোন ধরনের অবরোধ লাখো শিশুর জীবনকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিবে। এছাড়া আরো কয়েক লাখ শিশুকে দুর্ভিক্ষের দিকে ঠেলে দিবে।

২০১৪ সাল থেকে দেশটিতে ইরান সমর্থিত শিয়া হুতি বিদ্রোহীদের সাথে প্রেসিডেন্ট আব্দেরাব্বো মানসুর হাদি’র অনুগত সৈন্যদের সংঘর্ষ চলছে।

২০১৫ সালে সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট ইয়েমেন প্রেসিডেন্টের পক্ষে হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু করে। সৌদি আরব হুতিদের সমর্থন দেয়ার জন্য ইরানকে অভিযুক্ত করে। এই যুদ্ধে এখন পর্যন্ত প্রায় ১০ হাজার লোক প্রাণ হারিয়েছে।

সেভ দ্যা চিলড্রেন ইন্টারন্যাশনালের সিইও হেলে থোরনিং স্কিমিড বলেন, ‘ইয়েমেনের লাখ লাখ শিশু জানে না তারা আবার কখন খাবে। কখন তাদের খাবার আসবে।’

তিনি আরো বলেন, ‘উত্তর ইয়েমেনের একটি হাসপাতালে আমি দেখেছি শিশুরা এতোই দুর্বল যে কাঁদতেও পারছে না।’

তিনি বলেন, ‘এই যুদ্ধ ইয়েমেনের গোটা শিশু প্রজন্মকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিয়েছে।’

জাতিসংঘ সর্তক করে দিয়ে বলেছে, হোদেইদায় যে কোন ধরনের বড় যুদ্ধ হলে ইয়েমেনের ৮০ লাখ লোকের কাছে খাদ্য বিতরণ ব্যাহত হতে পারে। আর এসব খাবারের উপর নির্ভর করেই তারা টিকে আছে।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

রাশিয়ার সামরিক বিমান নিখোঁজ

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৮ ১১:২১:৩১

ভূমধ্যসাগরের ওপর দিয়ে চলার সময় ১৪ জন আরোহী নিয়ে নিখোঁজ হয়েছে রাশিয়ার সামরিক বিমান।

রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে।

মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে বলে, ‘সিরিয়ার ওপর দিয়ে উড়ে যাওয়ার পর ভূমধ্যসাগর এলাকায় প্রবেশের পর পরই হঠাৎ করে রাডার থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় রাশিয়ার আইআই-২০ বিমান। বিমানটির নাবিকদের সাথে সব ধরনের সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে।’

স্থানীয় সময় সোমবার রাত ১১টায় বিমানটির সঙ্গে কন্ট্রোল রুমের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় বলে ওই বিবৃতিতে বলা হয়।

বিবৃতিতে বলা হয়, সোমবার রাতে সিরিয়া উপকূল থেকে ৩৫ কিলোমিটার দূরে সামরিক বিমানটি নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা ঘটে। ইউশিন আইআই-২০ নামের ওই যুদ্ধবিমানটি উত্তর-পশ্চিমের শহর লাটাকিয়ার কাছাকাছি রাশিয়ার সামরিক ঘাঁটি মেইমিমে যাচ্ছিল।

সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদের অনুরোধে ২০১৫ সালে দেশটিতে আইএস জঙ্গি ও সরকার বিরোধীদের বিরুদ্ধে বিমান হামলা শুরু করে রাশিয়া। সিরিয়ায় সাত বছর ধরে গৃহযুদ্ধ চললেও রাশিয়ার সহায়তায় এখনো ক্ষমতায় রয়েছেন বাশার আল আসাদ। সিরিয়া যুদ্ধে এ পর্যন্ত প্রায় সাড়ে ৩ লাখ মানুষ নিহত হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

মালয়েশিয়ায় মদ পানে বাংলাদেশিসহ ১৫ জনের মৃত্যু

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৮ ১১:২০:৫৫

মালেশিয়ায় মদপানে এক বাংলাদেশিসহ ১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া এ ঘটনায় এখনো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে দুই বাংলাদেশিসহ ৩৩ জন। মঙ্গলবার মালয়েশিয়ার সেলাঙ্গর জেলার পুলিশ এ তথ্য জানিয়েছে।

সেলাঙ্গর জেলার পুলিশ প্রধান মাজলান মানসর জানিয়েছেন, মৃতদের মধ্যে একজন মালয়েশীয়, চার নেপালি, এক  ভারতীয় ও এক বাংলাদেশির পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে। তবে তিনি তাদের পরিচয় প্রকাশ করেননি। মৃতদের অধিকাংশই বিদেশি শ্রমিক বলে তিনি নিশ্চিত করেছেন।

হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ৩৩ জনের মধ্যে ১৯ জনের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন মাজলান মানসর।  এদের মধ্যে দুজন মালয়েশীয়, ১৫ জন নেপালি ও দুজন বাংলাদেশি রয়েছে।

এক বিবৃতিতে পুলিশ প্রধান বলেছেন, ‘মৃত্যুর কারণ এখনো দাপ্তরিকভাবে নিশ্চিত করা যায়নি। তবে প্রাথমিক তদন্তে জানা গেছে,  মদপানের পর এদের সবাইকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল।’

মালয়েশিয়ার সংবাদমাধ্যম দ্য স্টার জানিয়েছে, এরা সবাই তিন ব্রান্ডের মদ পান করেছিল। এগুলো সব জেলার ক্লাং ভ্যালি এলাকা থেকে কেনা হয়েছিল।

বিস্তারিত খবর

আমেরিকায় প্রতি চারজনের একজন ফেসবুক থেকে সরে এসেছে

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৭ ১৪:৩৮:৪৭

যুক্তরাষ্ট্রের প্রত্যেক চারজনের একজন ফেসবুক থেকে সরে এসেছে। এদের মধ্যে ১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সী তরুণ-তরুণীদের সংখ্যাই বেশি। যেখানে ফেসবুক ব্যবহারকারীদের অর্ধেকেই ১৮ বছর বয়সী।

সম্প্রতি পিউ রিসার্চ সেন্টারের এক জরিপে এই তথ্য পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে ফোর্বস।

জরিপে অংশগ্রহণকারী ২৬ শতাংশ উত্তরদাতা তাদের মোবাইল ফোন থেকে ফেসবুক অ্যাপ ডিলিট করেছেন। অন্যদিকে বয়স্করা (৫৪ শতাংশ) জানিয়েছেন, গত ১২ মাসে তারা তাদের সেটিংসে আগের চেয়ে বেশি গোপনীয়তা রক্ষা করেছে।

এছাড়া ৪২ শতাংশ উত্তরদাতা জানিয়েছে, তারা বেশ কয়েকবার এই প্ল্যাটফর্মটি চেক করা থেকে বিরত থেকেছেন। ৭৪ শতাংশ ফেসবুক ব্যবহারকারী জানিয়েছে, তারা গত এক বছরের এই তিন ধরনের যেকোনও একটি উপায় অবলম্বন করেছে।

গত ২৯ মে থেকে ১১ জুন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের প্রাপ্তবয়স্কদের অংশগ্রহণে পরিচালিতে এই জরিপের জন্য তথ্য সংগ্রহ করে সদ্য বিলুপ্ত তথ্য বিশ্লেষণ এবং পরামর্শদানকারী প্রতিষ্ঠান ক্যামব্রিজ অ্যানালিটিকা। প্রতিষ্ঠানটি ১০ লাখ ফেসবুক ব্যবহারকারীর তথ্য সংগ্রহ করে তাদেরকে না জানিয়ে।

মূলত বয়সই এই জরিপের ফলাফলে একটি বড় পরিবর্তন এনে দিয়েছে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, ৪৪ শতাংশ তরুণ ব্যবহারকারীরা (১৮ থেকে ২৯ বছর বয়সী) জানিয়েছেন, গত এক বছরে তারা তাদের ফোন থেকে ফেসবুক অ্যাপ ডিলিট করেছেন।

ফেসবুক অ্যাপ ডিলিটের ক্ষেত্রে ৬৫ বা তার চেয়ে বেশি বয়সীদের তুলনায় তরুণ-তরুণীর সংখ্যা প্রায় চারগুণ।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

হারিকেন ফ্লোরেন্সের বন্যায় বিচ্ছিন্ন হয়ে গেল শহর

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৭ ১৪:৩৬:৫৪

যুক্তরাষ্ট্রে হারিকেন ফ্লোরেন্সের প্রভাবে সৃষ্ট ভয়াবহ বন্যায় নর্থ ক্যারোলিনা থেকে সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে উপকূলীয় উইলমিংটন শহর।

নর্থ ক্যারোলিনার কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, উইলমিংটনে যাওয়া-আসার সব রাস্তা পানিতে তলিয়ে গেছে।

তারা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত এই শহরের বাসিন্দাদের অন্যত্র থাকতে সতর্ক করে দিয়েছেন।

উইলমিংটনের বাসিন্দার সংখ্যা প্রায় ১ লাখ ২০ হাজার। বিভিন্ন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, উইলমিংটন এখন একটি ‘রাজ্যের মধ্যে দ্বীপে’ পরিণত হয়েছে।

বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার পর উইলমিংটন থেকে ৪০০ জনকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। এখনো শহরের অধিকাংশ এলাকা বিদ্যুৎবিহীন রয়েছে।

জাতীয় আবহাওয়া দপ্তর জানিয়েছে, ফ্লোরেন্সের প্রভাবে নর্থ ক্যারোলিনায় আগামী দুই দিন আকস্মিক বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। এর পর পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি ঘটতে পারে।

নিউ হ্যানোভার কাউন্টি কমিশনের চেয়ারম্যান উডি হোয়াইট বাসিন্দাদের সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, ‘এখানে আসবেন না। আমাদের রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। উইলমিংটনে যাওয়ার কোনো রাস্তা নেই। আমরা চাই আপনারা বাড়িতে আসুন। তবে এখন আপনারা আসতে পারবেন না।’

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশি শরণার্থীরা পাকিস্তানের নাগরিকত্ব পাবেন: ইমরান খান

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৭ ১৪:৩০:৪০

বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান থেকে পাকিস্তানে যাওয়া শরণার্থীদের নাগরিকত্ব প্রদানের কথা বিবেচনা করছে দেশটির সরকার।

১৬ সেপ্টেম্বর, রবিবার রাজধানী করাচিতে এক অনুষ্ঠানে এ তথ্য জানান দেশটির নবনির্বাচিত প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান।

বাংলাদেশ থেকে যাওয়া আড়াই লাখ মানুষ করাচিতে শরণার্থী হিসেবে বসবাস করছেন জানিয়ে ইমরান খান বলেন, ‘৪০ বছর ধরে এরা এই শহরে আছেন। তাদের সন্তানরাও এই শহরেই বড় হচ্ছে, কিন্তু তাদের নেই কোনো পাসপোর্টে কিংবা কোনো পরিচয়পত্র। এগুলো না থাকলে চাকরি হয় না, আর চাকরি হলেও তাদের বেতন হয় অর্ধেক।’

করাচি শহরের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির কথা উল্লেখ করে ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিক হওয়া ইমরান খান বলেন, ‘এসব শরণার্থীর জন্য শিক্ষা এবং চাকরির বাজার উন্মুক্ত করতে হবে।’

করাচির বিবিসি সংবাদদাতা জানান, জাতিসংঘের হিসাব অনুযায়ী, পাকিস্তানে এখন ১৪ লাখ আফগান শরণার্থী বসবাস করছেন। তাদের ৭৪ শতাংশই দ্বিতীয় বা তৃতীয় প্রজন্মের আফগান। অন্যদিকে ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতার পর থেকে বিভিন্ন পর্যায়ে বিপুল সংখ্যক শরণার্থী তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান থেকে পশ্চিম পাকিস্তানে চলে আসেন।

পাশাপাশি বার্মা থেকেও প্রচুর শরণার্থী আসেন। মহানগরীর ১০৩টি মহল্লায় বাঙালি এবং বর্মী শরণার্থীরা সংখ্যাগরিষ্ঠ। কিন্তু নাগরিকত্ব কিংবা পরিচয়পত্রের অভাবে তাদের বেশির ভাগই দিনমজুর হিসেবে কাজ করেন এবং নানা ধরনের সামাজিক নিপীড়নের শিকার হন।

পাকিস্তান নাগরিকত্ব আইন অনুযায়ী, সে দেশের ভূখণ্ডে ১৯৫১ সালের পর জন্মগ্রহণকারী যে কেউ পাকিস্তানি নাগরিকত্বের অধিকারী। কিন্তু পাকিস্তানে যারা সরকারি শরণার্থী কার্ড ব্যবহার করছেন, তারা নাগরিকত্বের আবেদন করতে পারেন না।

যেসব উর্দুভাষী শরণার্থী দীর্ঘদিন ধরে বাংলাদেশে আটকা পড়ে রয়েছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী অবশ্য তাদের ভবিষ্যতের ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করেননি ইমরান খান।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

চীনেও মাঙ্খুটের তাণ্ডব, ফিলিপাইনে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৬৪

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৭ ০৯:০১:৩২

ঘণ্টায় ১৬২ কিলোমিটার বেগে টাইফুন মাংখুট আছড়ে পড়েছে দক্ষিণ চিন এবং হংকং উপকূলবর্তী এলাকায়। তার আগে ফিলিপাইনে আঘাত হানে মাংখুট। এ পর্যন্ত ৬৬ জনের প্রাণহানির খবর দিয়েছে আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যম।

আলজাজিরা জানিয়েছে, এর মধ্যে ফিলিপাইনেই মারা গেছেন ৬৪ জন। আর চীনে দু’জন নিহতের তথ্য দিয়েছে বার্তা সংস্থা থমসন রয়টার্স।

রোববার (১৬ সেপ্টেম্বর) গুয়াংদোঙের জিয়াংমেন শহরে প্রথম আছড়ে পড়ে টাইফুন মাংখুট। ঘণ্টায় ১৬২ কি.মি. বেগে ঝড় বইতে শুরু করে। সঙ্গে ভারী বর্ষণ চলতে থাকে। তবে পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রস্তুত ছিল প্রশাসন। ইতিমধ্যে ২০ লাখ ৪৫ হাজার মানুষকে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। উপকূলে ফিরিয়ে আনা হয়েছে ৪৮ হাজার মাছ ধরার নৌকো। প্রায় ২৯ হাজার নির্মাণ কাজ আপাতত স্থগিত রাখা হয়েছে। বন্ধ রাখা হয়েছে ৬৩২টি পর্যটন কেন্দ্র।

এছাড়াও বন্ধ রাখা হয়েছে হাইনান প্রদেশের দু’টি বিমান বন্দরেরর মোট ৪০০টি বিমানের উড়ান। উপকূলবর্তী সমস্ত স্কুল ও গেস্ট হাউসও বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (১৭ সেপ্টেম্বর) সকাল ৮টা পর্যন্ত শেনঝ্যাং বিমান বন্দর হয়ে যে বিমানগুলি যাওয়ার কথা ছিল, বাতিল করা হয়েছে সেগুলো। শনিবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা থেকে দূরপাল্লার ট্রেনও তুলে নেওয়া হয়েছে। গুয়াংদোঙের উপকূলবর্তী শহরগুলোর সমস্ত জাতীয় সড়ক বন্ধ রাখা হয়েছে। যান চলাচল সম্পূর্ণ বন্ধ। এখনও পর্যন্ত ঝড়ের তাণ্ডবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে দক্ষিণ চিনের গুয়াংদোঙ, হাইনান এবং গুয়াংশি জুয়াং প্রদেশ । আপাতত সোমবার পর্যন্ত হাইনান ও গুয়াংদোঙের সমস্ত পর্যটন স্থলগুলো বন্ধ থাকবে। পরিস্থিতি বুঝে পরবর্তী নির্দেশ দেওয়া হবে। শনিবার সকাল থেকে কিয়ংঝৌ প্রণালীর নৌ সেবা বন্ধ রয়েছে। গুয়াংদোঙ ও হাইনান প্রদেশকে সংযুক্ত করেছে সেটি।

সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, ঘরছাড়া মানুষের জন্য ৩,৭৭৭টি জরুরি আশ্রয় কেন্দ্র গড়েছে গুয়াংদোঙ প্রশাসন। যাতে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকার মানুষে সেখানে মাথা গুঁজতে পারেন। পরিস্থিতির দিকে নজর রয়েছে গুয়াংদোঙের বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনীর সদর দফতরের। প্রতিটি নির্মাণকেন্দ্রে প্রতিনিধি পাঠিয়েছে তারা। যাতে নিরাপত্তা ব্যবস্থা খতিয়ে দেখা যায়।

উপকূলবর্তী শহরগুলিতে সেনাবাহিনী পাঠানো হয়েছে। প্রস্তুত রাখা হয়েছে প্রায় ১০০০ লাইফবোট। যাতে জরুরি অবস্থায় কাজে লাগে। পরিস্থিতির দিকে নজর রেখেছে সে দেশের আবহাওয়া দফতর। সংবাদ মাধ্যমে লাগাতার আপডেট দিয়ে চলেছে তারা। এছাড়া মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সতর্ক বার্তা পৌঁছে দেওয়া হচ্ছে জনসাধারণের কাছে।

পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম যাতে না বাড়ে, সে দিকে নজর রেখেছে প্রসাশন। তবে আগেই প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনে মজুত করে রেখেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ব্রেক্সিট নিয়ে আরেকবার গণভোট চাইলেন লন্ডনের মেয়র সাদিক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৬ ১২:৫৬:০৭

লন্ডনের মেয়র সাদিক খান ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেনের বের হয়ে যাওয়া (ব্রেক্সিট) নিয়ে আরেকবার গণভোট আয়োজনের দাবি জানিয়েছেন। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম অবজারভারে রোববার প্রকাশিত নিবন্ধে তিনি এ দাবি জানিয়েছেন।

সাদিক খান বলেছেন, ব্রেক্সিট নিয়ে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র আলোচনা সংশয়ের পাঁকে নিমজ্জিত এবং অচলাবস্থার মধ্যে পড়েছে। এর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী দেশকে ক্ষতিকর পথের দিকে নিয়ে যাচ্ছেন বলেও মন্তব্য করেছেন তিনি।

আগামী বছরের ২৯ মার্চ ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেন আনুষ্ঠানিকভাবে বের হয়ে যাবে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র ব্রেক্সিট পরিকল্পনা এখনো পার্লামেন্টের অনেক সদস্য প্রত্যাখ্যান করেছেন। অনেক এমপি, ইউনিয়ন এবং ব্যবসায়ী নেতাদের দাবি ব্রাসেলসের সঙ্গে কোনো চুক্তির আগে জনগণের চূড়ান্ত রায় প্রয়োজন। তবে থেরেসা মে বরাবরই এই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করে আসছেন। বরঞ্চ তিনি বলে আসছেন, চূড়ান্ত চুক্তি মেনে নেবে কিনা কিংবা তাতে কোনো সংশোধন হবে কিনা এমপিরা কেবল সেই বিষয়ে ভোট দেবেন, অন্য কোনো কিছুতে নয়। ব্রেক্সিট চুক্তি নিয়ে ব্রাসেলস ও লন্ডনের মধ্যে নির্ধারিত সময়ে কোনো সমঝোতায় পৌঁছানো যাচ্ছে না বিধায় ব্রিটিশ সরকার চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিটের পরিকল্পনা করছে।

লেবার পার্টির জ্যেষ্ঠ নেতা সাদিক খান লিখেছেন, ব্রিটেনকে এখন হয় বাজে চুক্তি নতুবা ব্রেক্সিটে চুক্তি নয়- এ ধরনের কিছুর মুখোমুখি হতে হচ্ছে, যার উভয়টাই ব্রিটেনের জন্য ক্ষতিকর।

তিনি লিখেছেন, ‘সরকারের শোচনীয় ব্যর্থতা- এবং বাজে চুক্তি অথবা চুক্তি ছাড়া ব্রেক্সিটে আমরা প্রচন্ড ঝুঁকির মুখে রয়েছি। যার মানে হচ্ছে জনগণকে এই মুহূর্তে নতুন করে মত দেওয়ার সুযোগ সঠিক এবং এটাই আমাদের দেশের জন্য একমাত্র পথ খোলা রয়েছে।’

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বিশ্বের অন্যতম শীর্ষ ধনীর সম্পত্তি নিলামে তুলছে সৌদি আরব

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৬ ১২:৫৫:১১

অন্যতম শীর্ষ ধনী মান আল-সানেয়া ও তার প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন আবাসন ভবনগুলো নিলামে বিক্রি করতে যাচ্ছে সৌদি আরব। কয়েক’শ কোটি রিয়াল (সৌদি মুদ্রা) সরকারি দেনা পরিশোধে এসব ভবন নিলামে তোলা হচ্ছে বলে রোববার বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানিয়েছে।

২০০৭ সালে মার্কিন সাময়িকী ফোর্বসের বিশ্বের ১০০ ধনীর তালিকায় ছিলেন সানেয়া। ২০০৯ সালে তার প্রতিষ্ঠান সাদ গ্রুপ ঋণখেলাপি হয়। ঋণ পরিশোধ না করায় গত বছর তাকে আটক করে সৌদি কর্তৃপক্ষ। সাদ গ্রুপ এবং আহমাদ হামাদ আল গোসাইবি অ্যান্ড ব্রাদার্স ২০০৯ সালে দুই হাজার ২০০ কোটি মার্কিন ডলার ঋণ অনাদায়ী রাখে। সৌদি আরবের ইতিহাসে এটাই সবচেয়ে বড় ঋণ খেলাপির ঘটনা।

গত বছর তিন বিচারকের সমন্বয়ে গঠিত একটি ট্রাইব্যুনাল সানেয়ার মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের সম্পত্তি বিক্রির জন্য একটি কনসোর্টিয়ামকে নিয়োগ দেয়। ইতকান অ্যালায়েন্স নামের ওই কনসোর্টিয়াম সৌদি আরবের ইস্টার্ন প্রভিন্স, রিয়াদ ও জেদ্দায় থাকা সম্পত্তিগুলো বিক্রি করবে বলে দুটি সূত্র জানিয়েছে।

প্রথম দফায় ইস্টার্ন প্রভিন্সের খোবার ও দাম্মাম এলাকায় থাকা উন্নয়নাধীন ও বাণিজ্যিক প্লট, একটি প্রতিষ্ঠান এবং ভাড়া দেওয়া একটি বাণিজ্যিক ভবন বিক্রি করা হবে। এর নিলাম শুরু হবে অক্টোবরের শেষ নাগাদ। এসব সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য ২০০ কোটি রিয়াল।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

খেলা শেষে গ্যালারি পরিষ্কার করে দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন প্রবাসী বাংলাদেশিরা

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-১৬ ১০:১০:১৬

গ্যালারির গর্জন শুনে যে কেউই বিভ্রান্তিতে পড়ে যেতে পারতেন, খেলা দুবাইয়ে হচ্ছে নাকি মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে হচ্ছে। গ্যালারির প্রায় পুরোটাই ছিল বাংলাদেশের সমর্থকদের দখলে। শুরু থেকেই ‘বাংলাদেশ, বাংলাদেশ’ গর্জনে প্রবাসী দর্শকরা উৎসাহ জুগিয়েছেন মাশরাফি-মুশফিক-তামিমদের।

মরুর বুকে দলকে উৎসাহ দিতে এমন সমাগম আর গর্জন নিঃসন্দেহে প্রশংসার দাবিদার। তবে খেলা শেষে প্রবাসীরা অনন্য দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। ম্যাচ শেষে দুবাই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে উপস্থিত বাঙালি দর্শকরা নিজ নিজ আসন ও আশপাশে থাকা ময়লা পরিষ্কার করেন।

সর্বশেষ রাশিয়া বিশ্বকাপে ম্যাচ শেষে জাপানি সমর্থকেরা ঝকঝকে করে রেখে গিয়েছিলেন স্টেডিয়ামের গ্যালারি। নিজ হাতে জাপানিদের গ্যালারি পরিষ্কার করার সেই ছবি দ্রুতই ছড়িয়ে পড়ে নেট দুনিয়ায়। আর এবার তেমনই কাজ করলেন মাঠে খেলা দেখতে যাওয়া বাংলাদেশি প্রবাসীরা।

অবশ্য গ্যালারি পরিষ্কার করা ওই প্রবাসী বাংলাদেশিদের পরিচয় জানা যায়নি। তবে গায়ের টি-শার্ট দেখে বোঝা গেছে, তারা চট্টগ্রামের বাসিন্দা। কারণ তাদের টি-শার্টে লেখা ছিল ‘চট্টগ্রাম টাইগারস’। মাঠে চট্টগ্রামের ছেলে তামিম ইকবাল দেখিয়েছেন অসীম সাহসিকতা, আর মাঠের বাইরে গ্যালারিতে তার শহরের মানুষেরা স্থাপন করেছেন অনন্য এক দৃষ্টান্ত।

এশিয়া কাপের উদ্বোধনী ম্যাচের প্রতিটি মুহূর্তে ছিল যেন ভালোলাগার ছোঁয়া। এক হাতে ব্যান্ডেজ বাধা গ্লাভস, আরেক হাতে ব্যাট নিয়ে তামিম ইকবাল সাহসিকতার বিরল নজির স্থাপন। পাঁজরের চোট নিয়েও মুশফিকুর রহিমের ১৪৪ রানের অতুলনীয় ইনিংস। মাশরাফি-মুস্তাফিজ-মিরাজ-রুবেলদের জাদুকরী সব স্পেল।

সর্বোপরি ১৩৭ রানের বড় জয় দিয়ে এশিয়া কাপের ১৪তম আসরে বাংলাদেশের শুভ সূচনা হয়। তবে সব ছাপিয়ে গেছে তামিমের দুঃসাহসিক কীর্তি। এর পাশাপাশি মন ছুঁয়েছে প্রবাসী দর্শকদের আনন্দ-উল্লাস-উদযাপন শেষে গ্যালারি পরিষ্কারের অনন্য এই দৃষ্টান্ত।

ম্যাচ শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে দর্শকদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানাতে ভোলেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা। যদিও ম্যাচ শেষে তার স্বদেশি মানুষদের গড়া অনন্য দৃষ্টান্তের কথা জানা ছিল না মাশরাফির। তবে গ্যালারিতে বসে সমর্থন দিয়ে তাদের শক্তি জোগানোর জন্য বাংলা ভাষাতেই তাদের ধন্যবাদ জানান মাশরাফি। তিনি বলেন, ‘যারা আজ মাঠে এসে আমাদের সমর্থন জানিয়েছেন, দেশ থেকে এসেছেন কিংবা আরব আমিরাতে থাকা প্রবাসীরা, সবাইকে ধন্যবাদ।’

ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনেও আলাদা করে দর্শকদের ধন্যবাদ জানান মাশরাফি। বাংলাদেশ অধিনায়কের ভাষ্য, ‘আমি দর্শকদের নিয়ে আলাদা করে বলতে চাই। প্রথম বল থেকেই তারা আমাদের সমর্থন দিয়ে এসেছে, যা দলের জন্য ভালো ছিল। আর হ্যাঁ, এশিয়া কাপের শুরুটা সব মিলিয়ে ভালোই হলো। আমার তো মনে হয় দর্শক মিরপুর থেকেই বেশি ছিল, স্টেডিয়ামটা বেশ বড়। মাঠ ভর্তি মানুষ ছিল আজ। সেদিন থেকে মিরপুরের সাথে অনেকটা মিল ছিল বলা যায়।’

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত