যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ২৪ জানুয়ারী, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 06:32am

|   লন্ডন - 12:32am

|   নিউইয়র্ক - 07:32pm

  সর্বশেষ :

  ভারত সীমান্তে ২৩ দিনে ১০ বাংলাদেশি নিহত   খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য ‘বিশেষ আবেদন’   বাংলাদেশে রাজনৈতিক সংঘাতে ছয় বছরে নিহত ৬৩৫   ‘আইসিজের রায়ে শুধু রোহিঙ্গা নয়, বাংলাদেশেরও বিজয় হয়েছে’   দেশবাসীর ভাগ্য পরিবর্তনে কাজ করছি: প্রধানমন্ত্রী   করোনা নিয়ন্ত্রণে চীনের দশ শহরে গণপরিবহন ও মন্দির বন্ধ   আন্তর্জাতিক আদালতের আদেশ প্রত্যাখ্যান করলো মিয়ানমার   জার্মানিতে বন্দুকধারীর হামলায় নিহত ৬   হারাম উপার্জন সন্তানের ওপর প্রভাব ফেলে   ইরানি ব্যবসায়ীদের ভিসা দেয়া বন্ধ করল আমেরিকা   ডাক্তারদের রোগী দেখার ফি নির্ধারণ করবে সরকার   রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যা করা হয়েছে তা গণহত্যার শামিল: আইসিজে   বাংলাদেশে দুর্নীতির ব্যাপকতা উদ্বেগজনক : টিআইবি   ছড়াকার সুফিয়ান চৌধুরী স্বদেশ যাত্রা করবেন ৩০ জানুয়ারি   শাশুড়ির জ্বালায় পুলিশ সদস্যের আত্মহত্যা!

>>  বহিঃ বিশ্ব এর সকল সংবাদ

করোনা নিয়ন্ত্রণে চীনের দশ শহরে গণপরিবহন ও মন্দির বন্ধ


শনিবার থেকে চীনে সপ্তাহব্যাপী লুনার নিউ ইয়ার (চান্দ্রবর্ষ) শুরু হচ্ছে। ফলে করোনা ভাইরাস বিস্তার প্রতিরোধে দেশটির দশটি শহরে গণপরিবহন ও সংশ্লিষ্ট এলাকার মন্দির বন্ধের পাশাপাশি পর্যটন গন্তব্য ‘নিষিদ্ধ শহর’ ও গ্রেট ওয়ালের একটি অংশও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

বার্তা সংস্থা রয়টার্স জানায়, চীনা নববর্ষের ছুটির মধ্যে দেশটির কোটি কোটি মানুষ একপ্রান্ত থেকে অন্যপ্রান্তে যাতায়াত করলে সংক্রমণ হু হু করে বাড়তে পারে বলেও কর্তৃপক্ষ আশঙ্কা করছে।

নোভেল করোনা ভাইরাসে (২০১৯-এনসিওভি) আক্রান্ত হয়ে চীনে মৃত্যুর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৬ জনে। ৮৩০ জন এ ভাইরাসে আক্রান্ত

বিস্তারিত খবর

আন্তর্জাতিক আদালতের আদেশ প্রত্যাখ্যান করলো মিয়ানমার

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২৪ ১৩:৪১:৩৩

রোহিঙ্গা গণহত্যার অভিযোগে গাম্বিয়ার দায়ের করা মামলায় আন্তর্জাতিক বিচার আদালত (আইসিজে) যে অন্তর্বর্তীকালীন আদেশ দিয়েছে সেটি প্রত্যাখ্যান করেছে মিয়ানমার।

বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) রাতে দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে আদেশ প্রত্যাখ্যান করে বলে, আদালতে রোহিঙ্গা নির্যাতনের ‘বিকৃত চিত্র’ উপস্থাপন করা হয়েছে। কোনো দেশের বিরুদ্ধে আইসিজের দেয়া আদেশ মানার নৈতিক বাধ্যকতা রয়েছে। তবে রায় মানতে আদালত চাপ প্রয়োগ করতে পারে না।

বিবৃতিতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, মিয়ানমার গঠিত স্বাধীন তদন্ত কমিশন রাখাইনে গণহত্যার কোনো প্রমাণ পায়নি। তবে সেখানে যুদ্ধাপরাধ হয়েছে, যা তদন্ত করা হচ্ছে এবং মিয়ানমারের ফৌজাদারি বিচার ব্যবস্থায় এর বিচার হবে। মানবাধিকার কর্মীদের নিন্দার কারণে মিয়ানমারের সঙ্গে কিছু দেশের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ওপর প্রভাব পড়ছে বলেও এতে অভিযোগ করা হয়।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৩ জানুয়ারি) নেদারল্যান্ডসের রাজধানী দ্য হেগে বাংলাদেশ সময় বিকেল ৩টায় আইসিজের প্রধান বিচারপতি আবদুল কাভি আহমেদ ইউসুফ অন্তর্বর্তী আদেশ পাঠ করতে শুরু করেন। তিনি রোহিঙ্গা গণহত্যায় গাম্বিয়ার করা মামলায় চারটি অন্তর্বর্তী ব্যবস্থা গ্রহণর আদেশ দেন। আদালত সর্বসম্মতভাবে এ আদেশ জারি করে।

ওই আদেশে বলা হয়, রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধন চালিয়েছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী এবং দেশটিতে অবস্থানরত রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর এখনো চলছে নিপীড়ন। রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর সুরক্ষা দিতে পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে মিয়ানমার সরকার। এসময় মিয়ানমারের প্রতি তাদের সুরক্ষা দেয়ারও আদেশ দেন আইসিজের বিচারক।

বিচারক অভিযোগ করে বলেন, মামলায় আদালতকে যথাযথ সহযোগিতা করেনি মিয়ানমার। এসময় মামলা বাতিলের জন্য মিয়ানমার যে আবেদন করেছে সেটিও খারিজ করে দেন বিচারক। বিচারক আব্দুল কাওয়াই আহমেদ ইউসুফ স্পষ্ট জানান, এই মামলা নিয়ে মিয়ানমার যে আপত্তি করেছে সেটি গহণযোগ্য নয়।

২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের ওপর সহিংসতা, ধর্ষণ ও নির্যাতন চালায় মিয়ানমারের সেনাবাহিনী ও উগ্র বৌদ্ধরা। জীবন বাঁচাতে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। ওই ঘটনাকে গণহত্যা আখ্যা দিয়ে ২০১৯ সালের ১১ নভেম্বর আইসিজেতে মামলা করে গাম্বিয়া। এ মামলার ওপর গত ১০ থেকে ১২ ডিসেম্বর নেদারল্যান্ডসের হেগে শুনানি হয়।

বিস্তারিত খবর

জার্মানিতে বন্দুকধারীর হামলায় নিহত ৬

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২৪ ১৩:৪০:৩৯

জার্মানির নুরেমবার্গে বন্দুকধারীর গুলিতে অন্তত ৬ জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো বেশ কয়েকজন।

শুক্রবার দুপুরে এ হামলার ঘটনা ঘটে। হামলাকারীকে এরইমধ্যে আটক করেছে পুলিশ।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, হামলাকারী নিহতদের পরিচিত ছিলেন। তিনি কেন এ ধরনের ঘটনা ঘটালেন তাৎক্ষণাতভাবে তা বলা যাচ্ছে না। এ ঘটনায় ৬ জন নিহতের পাশাপাশি বেশ কয়েকজন আহত হয়েছে। যার মধ্যে দুইজনের অবস্থা গুরুতর।

সংবাদমাধ্যমগুলো জানিয়েছে, ‘রট এম সি’ নামে যে শহরে বন্দুকধারী হামলা চালিয়েছে সেখানে প্রায় সাড়ে পাঁচ হাজার বাসিন্দার বসবাস। আর বন্দুকধারী একাই বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে।

মৃতের সংখ্যা বাড়ার আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে প্রাথমিক হামলার মোটিভ জানা যায়নি। একইসঙ্গে জানা যায়নি হামলাকারীর পরিচয়।

বিস্তারিত খবর

ইরানি ব্যবসায়ীদের ভিসা দেয়া বন্ধ করল আমেরিকা

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২৩ ১১:০৮:৩০


মার্কিন সরকার ইরানের ব্যবসায়ী ও পুঁজি বিনিয়োগকারীদেরকে ভিসা দেয়া বা তাদের ভিসা নবায়ন করা বন্ধ করে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। মার্কিন অর্থ মন্ত্রণালয় বুধবার দেশটির রাষ্ট্রীয় পত্রিকা ‘ফেডারেল রেজিস্টার’-এ প্রকাশিত এক প্রজ্ঞাপনে এ কথা ঘোষণা করেছে।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, ইরানি নাগরিক বা তাদের আত্মীয়-স্বজন এখন থেকে আর আমেরিকার কাছে ই-ওয়ান ও ই-টু ভিসার আবেদন করতে বা এ ধরনের ভিসা নবায়নের আবেদন করতে পারবেন না। বৃহস্পতিবার থেকে এ নির্দেশ কার্যকর হবে।

ইরানি সংবাদমাধ‌্যম পার্সটুডে জানিয়েছে, আমেরিকায় বিদেশি বড় আকারের পুঁজি বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীদের এই দুই ধরনের ভিসা দেয়া হয়। এই ভিসাপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা আমেরিকায় বসবাস করা ও ব্যবসায়িক কার্যক্রম চালানোর সুযোগ পান।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এ ধরনের ভিসা নিয়ে ইতিমধ্যে কত সংখ্যক ইরানি বসবাস করছেন তা স্পষ্ট নয়। তবে সংখ্যাটি অনেক ছোট বলে বার্তা সংস্থা ইরনা জানিয়েছে। একজন ইরানি ছাত্রের ভিসা বাতিল করে তাকে আটকের প্রতিবাদে গত ২০ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন লোগান আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে প্রতিবাদ করেন অভিবাসীদের অধিকার রক্ষার আন্দোলনকারীরা। ওই ঘটনার দুদিন পর ইরানি ব্যবসায়ীদের ভিসা দেয়া বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিল ওয়াশিংটন।

আমেরিকা এই প্রথম ইরানি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের সঙ্গে এমন অমানবিক আচরণ করেনি। কিছুদিন আগেও মার্কিন সরকার কোনো ধরনের ব্যাখ্যা না দিয়ে ২০ ইরানি শিক্ষার্থীর ভিসা বাতিল করে দিয়েছিল।

বিস্তারিত খবর

রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যা করা হয়েছে তা গণহত্যার শামিল: আইসিজে

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২৩ ১১:০১:০৯

রোহিঙ্গাদের সঙ্গে যা করা হয়েছে তা গণহত্যার শামিল বলে মন্তব্য করেছে আন্তর্জাতিক বিচার আদালত (আইসিজে)। বৃহস্পতিবার গাম্বিয়ার করা মামলার রায় এ মন্তব্য করেন নেদারল্যান্ডসের হেগে ১৫ বিচারপতির সমন্বয়ে গঠিত আইসিজে।

সেখানে আরো বলা হয়, রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা প্রদানের দায় অস্বীকার করতে পারে না মিয়ানমার।

গত বছরের নভেম্বরে আইসিজেতে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা বন্ধে ব্যবস্থা নিতে মামলাটি দায়ের করেছিলো পশ্চিম আফ্রিকার দেশ গাম্বিয়া। গাম্বিয়া মুসলিম দেশগুলোর জোট অর্গানাইজেশন অব ইসলামিক কোঅপারেশনের (ওআইসি) পক্ষে এই আইনি প্রক্রিয়ার উদ্যোগ নেয়। মামলায় সমর্থন দিতে ওআইসি তার ৫৭ সদস্য দেশকে উৎসাহিত করেছিলো।

পরবর্তীতে গত বছরের ১০ থেকে ১২ ডিসেম্বর আইসিজেতে এই মামলার শুনানি হয়। এতে গাম্বিয়া ও মিয়ানমারের আইনজীবীরা অংশ নিয়েছিলেন। শুনানি চলাকালে গাম্বিয়ার নেতৃত্ব ছিলেন দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেল ও আইনমন্ত্রী আবুবকর মারি তামবাদু। মিয়ানমারের নেতৃত্বে ছিলেন দেশটির স্টেট কাউন্সিলর অং সান সু চি।

মামলার রায়ে বলা হয়, বেসামরিক রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা প্রদানে ব্যর্থ হয়েছে মিয়ানমার। সেখানে আরো বলা হয়, রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর চরম নির্যাতন চালানো হয়েছে এবং সেখানে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর অবহেলা ছিলো।

বিস্তারিত খবর

বন্দুক হামলায় জেনারেল সোলাইমানির মিত্র নিহত

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২২ ১২:১৩:০১


মার্কিন হামলায় নিহত ইরানের কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানির মিত্র বাসিজ মিলিশিয়া বাহিনীর কমান্ডার বন্দুক হামলায় নিহত হয়েছেন। বুধবার ইরানি বার্তা সংস্থা ইরনা এ তথ্য জানিয়েছে।

ইরানের বিপ্লবী বাহিনীর নিয়ন্ত্রণে পরিচালিত হয় কট্টোরপন্থি বাসিজ বাহিনী।

ইরনা জানিয়েছে, দক্ষিণ-পশ্চিমের প্রদেশ খুজেস্তানের দারখোভিন শহরে মঙ্গলবার দুই মোটরসাইকেল আরোহী বাসিজ কমান্ডার আবদুল হোসেইন মোজাদ্দামিকে তার বাড়ির সামনে গুলি করে পালিয়ে যায়।

তাৎক্ষনিকভাবে এই হামলার দায় কেউ স্বীকার করেনি।

৩ জানুয়ারি বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন হামলায় নিহত হন সোলাইমানি। তিনি মধ্যপ্রাচ্যে ইরানের আধিপত্য বিস্তারে কুদস বাহিনীকে ব্যবহার করতেন।

বিস্তারিত খবর

দায়িত্ব নিয়েই সোলেইমানি হত্যার বদলার ঘোষণা কুদস প্রধানের

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২১ ১১:৪৩:০৩


ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর কুদস ফোর্সের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব নিয়েই জেনারেল কাসেম সোলেইমানি হত্যার কঠিন বদলা নেবার ঘোষণা দিয়েছেন ইসমাইল কানি। তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্র কাপুরুষোচিত পথ অবলম্বন করে তাদের নেতাকে হত্যা করেছে। শত্রুদের সাহসীভাবে এর জবাব দেওয়া হবে বলে প্রতিজ্ঞা ব্যক্ত করেছেন তিনি।

জেনারেল কাসেম সোলেইমানির মৃত্যুর পর ইসমাইল কানিকে নতুন কুদস প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়। এ উপলক্ষে ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। সোমবার ওই অনুষ্ঠানে আনুষ্ঠানিকভাবে ক্ষমতা গ্রহণের সময় সোলেইমানি হত্যার প্রতিশোধ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন ইসমাইল কানি।

তিনি বলেন, তারা (যুক্তরাষ্ট্র) তাকে (সোলেইমানি) কাপুরুষের মতো হত্যা করেছে। কিন্তু আল্লাহর ইচ্ছায় এবং বিশ্বব্যাপী স্বাধীনতাকামীদের চেষ্টায় আমরা তার রক্তের বদলা নেব। আমরা সাহসী পুরুষের মতো করেই তার শত্রুদের আঘাত করব।

গত ৩ জানুয়ারি ইরাকের রাজধানী বাগদাদের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ড্রোন হামলা চালিয়ে ইরানের বিপ্লবী গার্ড বাহিনী কুদস ফোর্সের প্রধান জেনারেল কাসেম সোলেইমানিকে হত্যা করা হয়।

সিরিয়া এবং ইরাকে জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে বিভিন্ন মিলিশিয়া গ্রুপকে অস্ত্র ও প্রশিক্ষণ দিয়ে সহায়তা দিয়েছে কুদস বাহিনী। ইরানের উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় মাশহাদ শহরে ১৯৫০ সালে জন্মগ্রহণ করেন জেনারেল কানি। ১৯৮০ সালে তিনি ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনীতে যোগ দেন।

বিস্তারিত খবর

আবার বাধার মুখে ব্রেক্সিট

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২১ ১১:৪১:৫৪



ব্রিটিশ সংসদের উচ্চকক্ষ সংশোধনী চেয়ে ব্রেক্সিট বিল নিম্ন কক্ষে ফেরত পাঠানোয় ৩১শে জানুয়ারি ব্রেক্সিট কার্যকর করার লক্ষ্যমাত্রা অনিশ্চিত হয়ে পড়লো। ইইউ নাগরিকদের অধিকার না মানলে সরকার সমস্যায় পড়তে পারে।

গত ডিসেম্বর মাসে আগাম নির্বাচনে বিপুল জয়ের পর সবকিছু বেশ মসৃণভাবেই এগোচ্ছিল। কিন্তু ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সংসদের উচ্চকক্ষে ব্রেক্সিট আইন অনুমোদন করাতে গিয়ে ধাক্কা খেলেন। সোমবার হাউস অফ লর্ডস ইউরোপীয় ইউনিয়নের বিচ্ছেদ চুক্তির প্রতি সমর্থন জানায়নি। অনুমোদন না করার ক্ষমতা না থাকলেও আইনে সংশোধনী চেয়ে নিম্নকক্ষে ফেরত পাঠানোর ক্ষমতা প্রয়োগ করেছেন সংসদ সদস্যরা।

চলতি মাসের শুরুতেই ব্রিটিশ সংসদের নিম্নকক্ষ ব্রেক্সিট আইন অনুমোদন করেছে। ৩১শে জানুয়ারি ব্রেক্সিট কার্যকর করতে জনসন তার আগেই সব আইনি প্রস্তুতি শেষ করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলেন। নিজস্ব সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকা সত্ত্বেও হাউস অফ লর্ডসে বাধার আশঙ্কা করেননি জনসন। অথচ ব্রেক্সিটের পরেও ব্রিটেনে বসবাসরত ইইউ নাগরিকদের সে দেশে থাকার অধিকার নিশ্চিত করতে বিরোধী উদারপন্থি দল সোমবার একটি প্রস্তাব পেশ করে। ২৭০ জন সংসদ সদস্য প্রস্তাবের পক্ষে, ২২৯ জন বিপক্ষে ভোট দেন। এই উদ্যোগ শেষ পর্যন্ত সফল হলে ইইউ নাগরিকদের আলাদা করে ব্রিটেনে থাকার অনুমতির জন্য আবেদন করতে হবে না। সরকারের প্রস্তাবিত ডিজিটাল তালিকায় নাম অন্তর্ভুক্তির বদলে তাদের ব্রিটেনে বসবাসের অধিকারের প্রমাণ হিসেবে নথিপত্রও দিতে হবে। শিশু শরণার্থীদের অধিকার নিশ্চিত করতেও উচ্চকক্ষ সোমবার সরকারের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে।

উচ্চকক্ষের এই কড়া মনোভাবের ফলে জনসন সরকারের পরিকল্পনা অনিশ্চয়তার মুখে পড়লো। নিম্নকক্ষকে আইনের খসড়ায় পরিবর্তনের দাবি বিবেচনা করতে পারে। চলতি সপ্তাহে উচ্চকক্ষে ফেরত পাঠালে নতুন করে আপত্তি দেখা দিতে পারে। সে ক্ষেত্রে আরও বিলম্বের আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না। ৩১শে জানুয়ারি ব্রেক্সিট কার্যকর করার লক্ষ্যমাত্রাও প্রশ্নের মুখে পড়ছে। ব্রিটেনের সংসদের দুই কক্ষে ব্রেক্সিট চুক্তি অনুমোদনের পর ইউরোপীয় পার্লামেন্টেও এই চুক্তি অনুমোদন করাতে হবে। মাত্র ১০ দিনের মধ্যে গোটা প্রক্রিয়া শেষ করা কঠিন হবে।

এদিকে ব্রেক্সিট-পরবর্তী ব্রিটেনকে আকর্ষণীয় করে তুলতে বরিস জনসন আফ্রিকার নেতাদের সামনে এক উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ তুলে ধরেন। বিশেষ করে আফ্রিকার অভিবাসীদের জন্য সহজে ভিসা দেবার অঙ্গীকার করেন তিনি। ইইউ অভিবাসীদের অগ্রাধিকারের ব্যবস্থা শেষ হলে ব্রিটেন এ ক্ষেত্রে গোটা অভিবাসন ব্যবস্থা ঢেলে সাজাতে চায়।

বিস্তারিত খবর

বিজেপি প্রার্থীকে হারিয়ে মহীশূরের মেয়র হলেন মুসলিম নারী

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২০ ১২:২৮:৫৪


ভারতের কর্ণাটক রাজ্যের মহীশূর জেলার মেয়র হলেন মুসলিম নারী তাসনিম। মুসলিম নারী হিসেবে তিনিই প্রথম এ পদে আসীন হলেন। দেশজুড়ে যখন সিএএ-এনআরসি বিরোধী প্রতিবাদে উত্তাল দেশ। এই আন্দোলনে পুরোভাগে কার্যত গোটা মুসলিম সম্প্রদায়।

ঠিক সেই সময় জনতা দল (সেকুলার) প্রার্থী তাসনিমের এই জয় অত্যন্ত ইঙ্গিতবহ বলে মনে করছেন রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা। বিজেপি প্রার্থী গীতা যোগানন্দকে ২৪ ভোটের ব্যবধানে হারিয়ে মেয়রের পদে বসলেন তাসনিম।

মহীশূরকে পরিচ্ছনতার শহর বলা হয়ে থাকে। এই শহরের ২২তম মেয়র হয়ে তাসনিম জানান, এই জয় পেয়ে অত্যন্ত খুশি। শহরের পরিচ্ছন্নতা ধরে রাখাই হবে তার প্রথম লক্ষ্য। বিভিন্ন সমস্যার দ্রুত সমাধানে সচেষ্ট হবেন বলে আশ্বাস দেন তাসনিম। মহীশূরের ২৬ নম্বর ওয়ার্ডের প্রতিনিধি তিনি। তাসনিমের পক্ষে ভোট পড়ে ৪৭টি। অন্য গীতা পান মাত্র ২৩টি ভোট।

তার দল জেডিএসকে ধন্যবাদ জানান তাসনিম। কোনো মুসলিমকে পৌরসভা নির্বাচনে লড়ার সুযোগ এই প্রথম নয় জেডিএসের। এর আগে ১৯৯৬ সালে প্রথম মুসলিম মেয়র হন আরিফ হুসেন। এরপর ২০০৮ সালে আইয়ুব খানও জেডিএসের হয়ে মেয়র নির্বাচিত হন।

তবে, এই প্রথম কোনো মুসলিম নারী মহীশূরের মেয়র হলেন।

বিস্তারিত খবর

যুক্তরাষ্ট্রে হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে দুর্বৃত্তের গুলিতে দুই পুলিশ কর্মকর্তা নিহত

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২০ ১২:২৮:১২


যুক্তরাষ্ট্রে হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জে বিপদগ্রস্থ এক নারীকে বাঁচাতে গিয়ে দুর্বৃত্তের গুলিতে দুই পুলিশ কর্মকর্তা প্রাণ হারিয়েছেন।

রোববার স্থানীয় সময় সকাল ৯টার দিকে হাওয়াইয়ের রাজধানী হনুলুলুতে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে সিএনএন ও হাওয়াই নিউজ নাউ।

নিজ বাসায় ছুরিকাঘাতে আহত এক নারীর ফোন পেয়ে তার বাসায় পুলিশের একটি দল যাওয়ার পর সন্দেহভাজন দুর্বৃত্ত গুলি ছুড়লে এক নারী কর্মকর্তাসহ পুলিশের দুই সদস‌্য মারা যান।

হনুলুল পুলিশ প্রধান সুশান ব‌্যালার্ড রোববার রাতেে (স্থানীয় সময়) এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, পুলিশের দলটি আহত নারীকে নিয়ে ওই বাসা থেকে বের হয়ে রাস্তায় অপেক্ষামান অ‌্যাম্বুলেন্সে দিকে যাচ্ছিলেন। এ সময় জেরি হ্যানেল নামে একজন এলোপাতাড়ি গুলি করতে শুরু করে।

এতে ওই দুই কর্মকর্তা গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। পরে অতিরিক্ত পুলিশ সদস‌্যরা ঘটনাস্থলে আসলে তাদের ওপরও গুলি চলতে থাকে।

প্রায় একই সময় ওই বাড়িতে আগুন জ্বলতে দেখা যায়। আস্তে আস্তে আগুন ছড়িয়ে পড়ে আশপাশের আরো ছয় বাড়িতে।

স্থানীয় অগ্নিনির্বাপক বিভাগ আগুন নিয়ন্ত্রণে আনার আগেই অন্তত সাতটি বাড়ি পুড়ে যায় বলে জানায় হনুলুলু পুলিশ। পরে সেখানে দুই নারীসহ আরো তিনটি মৃতদেহ পাওয়া গেলেও পুলিশ তাদের পরিচয় জানাতে পারেনি। এই তিনজনের মধ‌্যে সন্দেহভাজন বন্দুকধারী রয়েছে কিনা তাও নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ। তাছাড়া ওই তিনজন কিভাবে মারা গেছে, সে বিষয়ে পুলিশ কিছু জানায়নি।

বিস্তারিত খবর

বিজেপি আরো কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে: মোদি

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-২০ ১২:২৪:৫১


‘আগামী দিনে কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে বিজেপি, সেজন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে’, দলের নতুন সর্বভারতীয় সভাপতি হিসেবে জে পি নাড্ডার অভিষেক মঞ্চে দাঁড়িয়ে এ কথা বলেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

তিনি বলেন, ‘আমার দৃঢ় বিশ্বাস, নাড্ডাজির নেতৃত্বে দলের আরো অগ্রগতি হবে’। সোমবার বিজেপি সভাপতি পদে অমিত শাহের স্থলাভিষিক্ত হন জে পি নাড্ডা। খবর ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের।

নরেন্দ্র মোদি বলেন, ‘নাড্ডাজি পুরনো বন্ধু…নাড্ডাজি দলের হয়ে ভালো কাজ করছেন। ওনার দক্ষতায় দল আরো এগোবে। নাড্ডাজির নেতৃত্বে বিজেপি এগোবে। বিজেপি আগামী দিনে অনেক কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে পারে। সেজন্য আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। নাড্ডাজির নেতৃত্বে বিজেপি নতুন দিশা পাবে। ওনার নেতৃত্বে নতুনভাবে এগোবে দল’।

এর আগে টুইটারে জে পি নাড্ডাকে শুভেচ্ছা জানিয়ে মোদি লিখেছেন, ‘নাড্ডাজিকে অনেক শুভেচ্ছা। উনি একজন অনুগত কর্মী। দল গড়ার কাজে বছরের পর বছর ধরে নিয়োজিত উনি। ওনার নম্র স্বভাব সম্পর্কে সবাই অবগত। আমি নিশ্চিত, ওনার নেতৃত্বে দল এক অন্য উচ্চতায় পৌঁছাবে’।

বিস্তারিত খবর

ভাষা নিয়ে স্পেনে দ্বন্দ্ব

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৯ ১২:৫৭:১০


ভাষা নিয়ে প্রকাশ্যে সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্বে নেমেছে দ্য রয়েল স্প্যানিশ অ্যাকাডেমি। দেশটির সংবিধানে লিঙ্গনিরপেক্ষ শব্দ ব্যবহারের প্রস্তাব নিয়ে মূলত এই দ্বন্দ্ব।

প্রায় এক বছর আগে উপ-প্রধানমন্ত্রী কারমেন কালভোর অনুমোদিত দ্য রয়েল স্প্যানিশ অ্যাকাডেমির একটি কমিশন ১৯৭৮ সালের সংবিধানে স্প্যানিশ শব্দ সংশোধনের জন্য প্রতিবেদন দেয়। সংবিধানের পুরুষ লিঙ্গভিত্তিক বিশেষ্যকে সর্বব্যাপী শব্দে রূপান্তরের পরামর্শ দেওয়া হয় এতে। তবে ১২ মাস ধরে রাজনৈতিক অস্থিরতার জের ধরে পরপর দুবার জাতীয় নির্বাচনের কারণে বিষয়টি চাপা পড়ে যায়।

গত সপ্তাহে শপথ নেওয়া বামপন্থী পেদ্রো সানচেজের সরকার বিষয়টি আবার সামনে নিয়ে এসেছে।

সরকারের সঙ্গে অ্যাকাডেমির বাদানুবাদের বিষয় হচ্ছে, মন্ত্রিপরিষদ শব্দটি নিয়ে। সরকারের দুই মন্ত্রী ইয়োলান্দা দিয়াজ ও আইরিন মনতিরো মন্ত্রিপরিষদকে নারীবাচক হিসেবে ‘কনসিজো ডি মিনিস্টারস’ ব্যবহার করছেন। তারা পুরুষবাচক ‘কনসিজো ডি মিনিস্টরস’ শব্দটি ব্যবহার করতে চান না। অথচ ব্যাকরণগতভাবে এটি ভুল। কারণ ‘কনসিজো ডি মিনিস্টারস’ তখনই ব্যবহার করা যাবে যখন মন্ত্রিপরিষদের সব সদস্য নারী হবেন, যা এখনো পর্যন্ত হয়নি।

অ্যাকাডেমির সঙ্গে এ ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করেছেন কারমেন কালভো।

তিনি বলেছেন, ‘সময় এসেছে সংবিধানে এমন ভাষা ব্যবহারের যা উভয় লিঙ্গের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপক। এতে কেবল পুরুষভিত্তিক শব্দ রয়েছে যা আধুনিক গণতন্ত্রের জন্য যথাযথ নয়’।

উপ-প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে অ্যাকাডেমি বলেছে, ‘এটা কৃত্তিমতা এবং ভাষাগত দিক থেকে সম্পূর্ণ অপ্রয়োজনীয়’।

বিস্তারিত খবর

লেবাননে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে আহত ৪০০

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৯ ১২:৫৬:২০


লেবাননের রাজধানী বৈরুতে নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে সরকার বিরোধী বিক্ষোভকারীদের সংঘর্ষে প্রায় ৪০০ লোক আহত হয়েছে। শনিবার রাতে এ সংঘর্ষ ঘটে।

গত তিন মাস ধরে লেবাননে অর্থনৈতিক সংকটের প্রতিবাদে সরকার বিরোধী বিক্ষোভ চলছে। গত বছরের শেষ দিকে বিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করে হারিরি সরকার। দায়িত্ব নেওয়া নতুন সরকার এখনো অর্থনৈতিক সংস্কারের কোনো পরিকল্পনা উপস্থাপন করতে পারে নি। ইতোমধ্যে লেবাননি মুদ্রা পাউন্ডের মান অর্ধেকে নেমে এসেছে, ব্যাংক ব্যবস্থায় রীতিমতো ধস নেমেছে।

শনিবার বিক্ষোভকারীরা ‘ক্ষোভের’ সপ্তাহ পালনের ডাক দিয়েছিল। তারা পার্লামেন্টের দিকে যেতে চাইলে পুলিশ বাধা দেয়। এসময় মুখ ঢাকা কিছু বিক্ষোভকারী দাঙ্গা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইট-পাটকেল ছোড়ে। বিক্ষোভকারীদের কিছু অংশ ট্রাফিক চিহ্ন আঁকা খুটি দিয়ে পুলিশের ব্যারিকেড ভাঙ্গারও চেষ্টা করে। এক পর্যায়ে বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ ও লাঠিচার্জ করে।  সংঘর্ষে আহতের সংখ্যা আগের সব সংখ্যাকে ছাড়িয়ে গেছে। আহত অন্তত ৩৭৭ জনকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রেডক্রস ও সিভিল ডিফেন্স।


বিস্তারিত খবর

লিবিয়া নিয়ে জরুরী আলোচনায় এরদোগান-পুতিনসহ বিশ্বনেতারা

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৯ ১২:৫২:০৯


তেল সমৃদ্ধ উত্তর আফ্রিকার দেশ লিবিয়া দীর্ঘদিন ধরে চলমান সংঘাতের অবসানের সমাধান খুঁজতে আলোচনায় বসেছেন বিশ্বনেতারা। লিবিয়ার যুদ্ধরত দুই পক্ষের নেতারা এবং বিশ্বনেতারা জার্মানির বার্লিনে আলোচনা শুরু করেছেন।

রোববার বার্লিনে তারা জরুরী এক বৈঠকে মিলিত হয়েছেন। সম্মেলনের আয়োজক জার্মান চ্যান্সেলর অ্যাঞ্জেলা মার্কেল আলোচনা সভা শুরু করেন।

এতে অংশ নেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, ফরাসি প্রেসিডেন্ট এমানুয়েল ম্যাক্রো, তুর্কি প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান, ইতালির প্রধানমন্ত্রী গুইসেপ কন্তে এবং যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেও।

এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাত, মিশর, আলজেরিয়া, চীন এবং কঙ্গো প্রজাতন্ত্রের প্রতিনিধিসহ জাতিসংঘ, ইউরোপীয় ইউনিয়ন, আফ্রিকান ইউনিয়ন ও আরব লীগের নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।

ত্রিপোলিভিত্তিক জাতিসংঘ স্বীকৃত লিবিয়ার জাতীয় সরকারের প্রধানমন্ত্রী ফায়াজ আল-সারাজ এবং বেনগাজিভিত্তিক বিদ্রোহী জেনারেল খলিফা হাফতারও আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।

এরদোগান রোববার শান্তি আলোচনায় বলেছেন, রাজনৈতিক প্রক্রিয়া পথ প্রশস্ত করতে হাফতারকে আগ্রাসী অবস্থান থেকে অবশ্যই সরে আসতে হবে।

রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাথে বৈঠকের শুরুতে এরদোগান এসব কথা বলেন।

যুদ্ধবিধ্বস্ত লিবিয়ায় বিদেশী সেনা মোতায়েনের বিরুদ্ধে থাকা ফরাসি প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রো বলেন, এই ধরনের হস্তক্ষেপ কেবল সংঘাতকে বাড়িয়ে তুলবে।

রাজধানী ত্রিপোলিতে সিরিয়ান ও বিদেশি যোদ্ধাদের আগমন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে ম্যাক্রো বলেন, এটি অবশ্যই শেষ হওয়া উচিত।

এর আগে ১২ জানুয়ারি তুরস্ক ও রাশিয়ার যৌথ আহ্বানে সাড়া দিয়ে যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হয় লিবিয়ায় যুদ্ধরত জাতিসংঘ স্বীকৃত সরকার ও বিরোধী জেনারেল খলিফা হাফতারের বাহিনী। পরে রাশিয়ায় উভয়পক্ষ স্থায়ী যুদ্ধবিরতির জন্য আলোচনায় বসলে কোনো প্রকার চুক্তি স্বাক্ষর ছাড়াই মস্কো ছাড়েন জেনারেল হাফতার।

দেশটির পশ্চিমাঞ্চলের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে জাতিসংঘ স্বীকৃত ফায়েজ আল সেরাজ ও পূর্বাঞ্চলের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে মিসর, জর্ডান ও সংযুক্ত আরব আমিরাতের সমর্থিত জেনারেল হাফতার।

২০১১ সালে আরব বসন্তের প্রভাবে বিক্ষোভ ও গৃহযুদ্ধে লিবিয়ার দীর্ঘকালীন শাসক মুয়াম্মার আল-গাদ্দাফির পদচ্যুতি ও নিহত হওয়ার পর দেশটি দু’পক্ষে বিভক্ত হয়ে পড়ে।

বিস্তারিত খবর

সিরিয়ায় গোপনে ৭৫ ট্রাক সেনা-অস্ত্র পাঠাল যুক্তরাষ্ট্র

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৮ ১১:৫২:৪১

ইরান-যুক্তরাষ্ট্রের হামলা-পাল্টা হামলার প্রেক্ষিতে মধ্যপ্রাচ্যজুড়ে উত্তেজনার মধ্যে সিরিয়ায় গোপনে ৭৫ ট্রাক সেনা-অস্ত্র পাঠিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

কোনো প্রকার ঘোষণা ছাড়াই গোপনে সিরিয়ার তেলসমৃদ্ধ কয়েকটি এলাকায় প্রায় ৭৫ ট্রাক সেনা, অস্ত্র ও সরঞ্জাম পাঠিয়েছে বলে সিরিয়ার সরকারি বার্তা সংস্থা সানা ও আনাদলু এজেন্সি জানিয়েছে।

সিরিয়ার সরকারের অভিযোগ, পূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ দেইর আজ-জর ও দক্ষিণপূর্বাঞ্চলীয় প্রদেশ হাসাকেহ’র কয়েকটি এলাকা থেকে তেলসহ প্রাকৃতিক সম্পদ লুটপাটে বিশাল এই সেনাবহন মোতায়েন করেছে ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রশাসন।

সেনা মোতায়েনের এই ঘটনা স্বীকার করেছে মার্কিন কর্মকর্তারা। তবে তাদের দাবি, ইরাক ও সিরিয়ার আইএস জঙ্গি দমনে এসব সেনা পাঠানো হয়েছে।

গত বছরের অক্টোবরে উত্তর-পূর্ব সিরিয়া থেকে সমস্ত মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। ঘোষণা অনুযায়ী, ওই অঞ্চল সেনা সরিয়ে ইরাকে নেয়া হয়। ২০ অক্টোবর শতাধিক ট্রাকে করে মার্কিন বাহিনী ইরাকে প্রবেশ করে বলে এক প্রতিবেদনে জানায় সিএনএন।

কিন্তু কুর্দি বাহিনী দ্বারা নিয়ন্ত্রিত তেলক্ষেত্রগুলোয় প্রায় ৫০০ সেনা মোতায়েন রাখে ওয়াশিংটন। সম্প্রতি সেই সব সেনাকেই ফিরিয়ে আনা হয়েছে।

কুর্দি নিয়ন্ত্রিত তুর্কি সীমান্তবর্তী উত্তরাঞ্চলীয় নগরী কামিশলি থেকে কয়েকটি সূত্র সিরিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থা এসএএনএ জানিয়েছে, সেমালকা সীমান্ত পথ অতিক্রম করে সিরিয়ার দুই প্রদেশের মার্কিন অবস্থানের দিকে ৭৫টি ট্রাকের একটি বহর গেছে। সীমান্ত পথেই দজলা নদীর ওপর পন্টুনের তৈরি সেতু রয়েছে।

বরাবরের মতোই যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, সন্ত্রাসীগোষ্ঠী আইএসের হামলা থেকে তেল ক্ষেত্র এবং স্থাপনা রক্ষায় এ বহর পাঠানো হয়েছে। অথচ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এর আগে বলেছেন, সিরিয়ার তেল ক্ষেত্রগুলো নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে অর্থনৈতিক স্বার্থ হাসিল করবে আমেরিকা। সিরিয়াতে ফের মার্কিন সেনা মোতায়েন মেনে নেয়নি বাগদাদ।

বিস্তারিত খবর

রাখাইনে সমুদ্রবন্দর ও বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলবে চীন-মিয়ানমার

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৮ ১১:৪৯:০৪


সহিংসতাকবলিত রাখাইনে গভীর সমুদ্রবন্দর ও বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গঠনে চীনের সঙ্গে চুক্তি স্বাক্ষর করেছে মিয়ানমার। শনিবার চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের মিয়ানমার সফরে এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

রয়টার্স জানিয়েছে, ১৯ বছরের মধ্যে কোনো চীনা প্রেসিডেন্টের প্রথম সফরে মিয়ানমার ও চীনের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় ৩৩টি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের দু’দিনের মিয়ানমার সফরের শেষ দিন শনিবার রাজধানী নেপিদোতে এসব চুক্তি স্বাক্ষর করেন স্টেট কাউন্সেলর অং সান সু চি।

রোহিঙ্গা গণহত্যায় মিয়ানমারের বিরুদ্ধে বিশ্বজুড়ে সমালোচনার ঝড়ের মধ্যেই দেশটিতে দু’দিনের সফরে যান প্রতিবেশী মিত্র দেশের প্রেসিডেন্ট জিনপিং। শুক্রবার সকালে রাজধানী নেপিদোতে পৌঁছান তিনি।

১৯ বছরের মধ্যে কোনো চীনা প্রেসিডেন্টের প্রথম সফর এটি। প্রথম দিনেই নেপিদোতে সু চি ও সেনাপ্রধান মিন অং লেইংয়ের সঙ্গে বৈঠক করেন শি। সফরে চীন-মিয়ানমার অর্থনৈতিক করিডোরের (সিএমইসি) আওতায় উভয় দেশ বেশ কয়েকটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হওয়ার প্রত্যাশা করা হচ্ছিল।

রয়টার্স জানায়, শুক্রবার মিয়ানমারে অভ্যর্থনা অনুষ্ঠানে উভয় দেশের সম্পর্কের নতুন যুগের কথা ঊর্ধ্বে তুলে ধরেন।

অনুষ্ঠানে সু চি চীনকে আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী ও বিশ্ব অর্থনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনকারী মহান দেশ হিসেবে উল্লেখ করেন। এরপর একে একে প্রায় তিন ডজন চুক্তি স্বাক্ষর করেন সু চি ও জিনপিং।

এসব চুক্তির মধ্যে রয়েছে চীন থেকে ভারত মহাসাগর পর্যন্ত রেল নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা, সহিংসতাকবলিত রাখাইনে গভীর সমুদ্রবন্দর ও বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল এবং বাণিজ্যিক রাজধানী ইয়াঙ্গুনে একটি নতুন শিল্পাঞ্চল গড়ে তোলা।

তবে জিনপিংয়ের এ সফরে ৩.৬ বিলিয়ন ডলারের বিতর্কিত বাঁধ নিয়ে কোনো আলোচনা হয়নি। ২০১১ সাল থেকেই প্রকল্পটির কাজ থেমে আছে।

মিয়ানমার টাইমস জানায়, সফরের শেষ দিন শনিবার মিয়ানমারের সরকারি কর্মকর্তাদের পাশাপাশি বিরোধী দলের নেতা, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং প্রভাবশালী ভিক্ষুদের সঙ্গেও সাক্ষাৎ করেন জিনপিং। এছাড়া চীন-মিয়ানমার কূটনৈতিক সম্পর্কের ৭০ বছর পূর্তি উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগ দেন তিনি।

২০১৭ সালে রাখাইনে রোহিঙ্গা গণহত্যা চালায় মিয়ানমার সেনাবাহিনী। পরিকল্পিত নিধনযজ্ঞের মুখে ৭ লাখ ৪০ হাজার রোহিঙ্গা দেশ ছেড়ে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। একদিকে মিয়ানমার সরকারের বিরুদ্ধে শুরু থেকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের নিন্দা ও সমালোচনা হয়েছে। অন্যদিকে জাতিসংঘ ও অন্য সব মঞ্চে সাফাই গেয়ে এসেছেন মিয়ানমারের স্টেট কাউন্সেলর সু চি।

রোহিঙ্গা গণহত্যার প্রত্যক্ষ কারণেই রাখাইনে বিনিয়োগ করার প্রশ্নে মুখ ফিরিয়ে রেখেছে বিশ্বের সব দেশ। কিন্তু অন্যেরা যেখানে বিনিয়োগ করতে রাজি নয়, সেখানেই প্রবল আগ্রহ নিয়ে বিনিয়োগ করছে চীন।

বিস্তারিত খবর

‘চীনা’ ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা হাজার ছাড়িয়েছে

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৮ ১১:৪৬:৪৭


চীনে রহস্যময় ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সরকারি হিসাবের তুলনায় কয়েকগুণ বেশি বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এ পর্যন্ত ৪৫ জনের আক্রান্তের খবর নিশ্চিত করলেও এ সংখ্যা এক হাজার ৭০০-র কাছাকাছি হতে পারে বলে যুক্তরাজ্যের গবেষকরা অনুমান করছেন।

চীনের উহান শহরে গত ডিসেম্বরে এই ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী প্রথম শনাক্ত করা হয়। এই রোগীরা প্রথমে শ্বাসযন্ত্রের সমস্যা নিয়ে আসেন এবং পরে অবস্থা জটিল হতে শুরু করে। গত সপ্তাহে উহানে এই ভাইরাসে আক্রান্ত দুই রোগীর মৃত্যু হয়। এই শহর থেকে জাপান ও থাইল্যান্ডে  যাওয়া আরও তিন ব্যক্তির দেহে ভাইরাসটির উপস্থিতি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

উহান থেকে আসা বিমান যাত্রীদের শরীরে ভাইরাসটির উপস্থিতি পরীক্ষা করতে শুরু করেছে সিঙ্গাপুর ও হংকং কর্তৃপক্ষ । শুক্রবার থেকে সান ফ্রান্সিসকো, লস অ্যাঞ্জেলস ও নিউ ইয়র্ক বিমানবন্দরে একইরকম পরীক্ষা শুরু করেছে যুক্তরাষ্ট্র।

রোগের প্রাদুর্ভাব বিষয়ক বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক নিল ফার্গুসন বলেন, ‘এক সপ্তাহ আগে আমি যতটুকু উদ্বিগ্ন ছিলাম, এখন তার চেয়েও বেশি উদ্বিগ্ন’।

ইম্পেরিয়াল লন্ডন কলেজের এমআরসি সেন্টার ফর গ্লোবাল ইনফেকশাস ডিজিজ অ্যানালাইসিস  এই ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যার আনুমানিক হিসাব দাঁড় করিয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন রোগের প্রাদুর্ভাব বিষয়ে যুক্তরাজ্য সরকার ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে পরামর্শ দেয়।

থাইল্যান্ড ও জাপানে ভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার বিষয়ে অধ্যাপক নিল ফার্গুসন বলেন, ‘এটি আমাকে উদ্বিগ্ন করছে। যেহেতু উহান থেকে অন্য দেশে যাওয়া তিন ব্যক্তির দেহে ভাইরাসটির উপস্থিতি পাওয়া গেছে, সেহেতু এটি যে প্রাপ্ত তথ্যের চেয়েও বেশি মানুষের মধ্যে ছড়িয়েছে, তা বোঝা যাচ্ছে’।

প্রায় এক কোটি ৯০ লাখ মানুষ প্রতি বছর উহানের বিমানবন্দর ব্যবহার করে। আর প্রতিদিন তিন হাজার ৪০০ যাত্রী এখান থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট ব্যবহার করে।

বিস্তারিত খবর

ইরানের হামলায় আহত ১১ মার্কিন সেনা

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৭ ১১:৩৪:৩৭


ইরাকে সামরিক ঘাঁটিতে ৮ জানুয়ারি ইরানের হামলায় যুক্তরাষ্ট্রের ১১ সেনা আহত হয়েছে। বৃহস্পতিবার মার্কিন সামরিক বাহিনীর পক্ষ থেকে দেওয়া এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

ইরানের কুদস বাহিনীর প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার প্রতিশোধ নিতে ৮ জানুয়ারি ইরাকের আল-আসাদ বিমান ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছিল তেহরান। ওই সময় যুক্তরাষ্ট্র জানিয়েছিল,এতে কোনো মার্কিন সেনা আহত হয় নি।

মার্কিন কেন্দ্রীয় বাহিনীর মুখপাত্র ক্যাপ্টেন বিল আরবান এক বিবৃতিতে বলেছেন, ‘আল-আসাদ বিমান ঘাঁটিতে ৮ জানুয়ারি ইরানি হামলায় কোনো মার্কিন সেনা সদস্য নিহত হয় নি। তবে বিস্ফোরণের কারণে কয়েক জন আহত হয়েছে এবং ক্ষয়ক্ষতি এখনো মূল্যায়ণ করা হচ্ছে’।

বিস্তারিত খবর

সৌদি আরব থেকে ফিরলেন আরও ১০৯ বাংলাদেশি

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৭ ১১:৩১:০৭


সৌদি আরব থেকে আরও ১০৯ জন বাংলাদেশিকে দেশে ফেরত পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ২০ মিনিটে সৌদি এয়ারলাইন্সের এসভি ৮০৪ বিমানযোগে তারা দেশে ফেরেন। এ নিয়ে এ বছরের প্রথম ১৬ দিনে এক হাজার ৬১০ জন বাংলাদেশি সৌদি থেকে দেশে ফিরলেন।

বরাবরের মতো এবারও প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের সহযোগিতায় ব্র্যাক মাইগ্রেশন প্রোগ্রাম ফেরত আসাদের মাঝে জরুরি সহায়তা প্রদান করেছে।

ফেরত আসা সিলেট জেলার তালেব (৩০) মানসিকভাবে সুস্থ ছিলেন না। রাতেই পরিবারের সাথে যোগাযোগ করে তাকে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পাঁচ বছর আগে শ্রমিক হিসেবে সৌদি আরব যান তালেব। কিন্তু গত দুই মাস আগে সেখানে তিনি মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন।

এদিকে মাত্র দুই মাস আগে সৌদি আরব যাওয়া নোয়াখালীর আজিম হোসেন জানান, পাসপোর্টে তিন মাসের ভিসা থাকা সত্ত্বেও পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

তিনি বলেন, বাজার করার জন্য মার্কেটে যাবার পথে পুলিশ গ্রেপ্তার করেন। গ্রেপ্তারের সময় পুলিশের সাথে নিয়োগকর্তা (কফিল) কথা বলার পরও তাকে দেশে পাঠানো হয়েছে।

মুন্সিগঞ্জের রুহুল আমিন,কুমিল্লার ফিরোজ হোসেন ও মানিক, শরিয়তপুরের মিলন, যশোরের মোসলেম উদ্দিন, বগুড়ার মেহেদি হাসান, গাজীপুরের রাজিবসহ ১০৯ বাংলাদেশির বেশিরভাগেরই এমন অবস্থা।

দেশে ফেরা কর্মীদের অভিযোগ, আকামা তৈরির জন্য কফিলকে (নিয়োগকর্তা) টাকা প্রদান করলেও কফিল আকামা তৈরি করে দেয়নি। পুলিশের হাতে গ্রেপ্তারের পর কফিলের সাথে যোগাযোগ করলেও তারা গ্রেপ্তার কর্মীদের দায়-দায়িত্ব নিচ্ছে না।

ব্র্যাক অভিবাসন কর্মসূচির প্রধান শরিফুল হাসান জানান, ২০১৯ সালে ২৫ হাজার ৭৮৯ বাংলাদেশিকে সৌদি আরব থেকে ফেরত পাঠানো হয়েছে। নতুন বছরের শুরুর ১৬ দিনে দেশটি থেকে এক হাজার ৬১০ জন বাংলাদেশি ফিরলেন। ফেরত আসাদের বর্ণনা প্রায় একইরকম। প্রায় সবাই খালি হাতে ফিরেছেন। কয়েকমাস আগে গিয়েছিলেন এমন লোকও আছেন। তারা সবাই ভবিষ্যত নিয়ে এখন চরম দুশ্চিন্তায়।

গত বছরের পুরো পরিসংখ্যান দিয়ে শরিফুল হাসান জানান, প্রবাসী কল্যাণ ডেস্কের তথ্যানুযায়ী ২০১৯ সালে মোট ৬৪ হাজার ৬৩৮ কর্মী দেশে ফিরেছেন। এর মধ্যে সৌদি আরব থেকে ২৫ হাজার ৭৮৯ জন, মালয়েশিয়া থেকে ১৫ হাজার ৩৮৯ জন, সংযুক্ত আরব আমিরাত থেকে ছয় হাজার ১১৭ জন, ওমান থেকে সাত হাজার ৩৬৬ জন, মালদ্বীপ থেকে দুই হাজার ৫২৫ জন, কাতার থেকে দুই হাজার ১২ জন, বাহরাইন থেকে এক হাজার ৪৪৮ জন ও কুয়েত থেকে ৪৭৯ জন শূন্য হাতে দেশে ফিরেছেন।

তিনি বলেন, ফেরত আসা প্রবাসীদের আমরা শুধু বিমানবন্দরে সহায়তা দিয়েই দায়িত্ব শেষ করছি না, তারা যেন ঘুরে দাঁড়াতে পারে সেজন্য কাউন্সিলিং, দক্ষতা প্রশিক্ষণ ও আর্থিকভাবেও পাশে থাকতে চাই। সরকারি ও বেসরকারি সংস্থা সবাই মিলে কাজটি করতে হবে।

পাশাপাশি এভাবে যেন কাউকে শূন্য হাতে ফিরতে না হয় সেজন্য রিক্রুটিং এজেন্সিকে দায়িত্ব নিতে হবে। দূতাবাস ও সরকারকেও বিষয়গুলো খতিয়ে দেখতে হবে। বিশেষ করে ফ্রি ভিসার নামে প্রতারণা বন্ধ করা উচিৎ।

বিস্তারিত খবর

সুইডেনে হিজাব পরেই অমুসলিমদের প্রতিবাদ

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৭ ১১:২৯:৩৬

সুইডেনে হিজাব ব্যবহার নিষিদ্ধ করায় হিজাব পরেই প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশটির ছয় শিক্ষিকা। সুইডেনের ডানপন্থি রাজনৈতিক দল ‘সুইডেন ডেমোক্রেট’ এর প্রস্তাবনায় লিবারেল কনজারভেটিভ প্রধানরা এবং দক্ষিণ সুইডেনের স্কুরুপ পৌরসভা হিজাব নিষিদ্ধ করে আইন প্রবর্তণ করে।

ওই আইনে স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী এবং কর্মচারীদের হিজাব পরিধান নিষিদ্ধ করা হয়। মস্কোভিত্তিক বার্তা সংস্থা স্পুটনিক নিউজের এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে।

প্রতিবাদ করা ওই ছয় শিক্ষিকা জানান, মুসলিম শিক্ষার্থীদের প্রতি সমবেদনা জানাতেই তারা হিজাব ব্যবহার করেছেন।

এ ছাড়া হিজাববিরোধী এ আইনের বিরোধিতা করে স্কুরুপ টাউন হলের বাইরে প্রতিবাদ করেছে স্থানীয় মুসলিম সংগঠনগুলো। এই আইনকে ‘বর্ণবাদী’ আখ্যা দিয়ে ‘মালমোস ইয়াং মুসলিম’ এর প্রধান তাসনিম রউফ বলেন, ‘এই আইনের মাধ্যমে মুসলিম নারীদের পোশাক নির্বাচন ও তাদের গণতান্ত্রিক অধিকারকে অস্বীকার করা হয়েছে।’

পৌরসভার সিদ্ধান্ত মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানিয়ে প্রস্টামোসেসকোলনের প্রধান শিক্ষক মাতিয়াস বলেন, ‘আমি বা আমার সহকর্মীরা কেউ এটি প্রয়োগ করব না। আর উদ্ভূত পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার দায়িত্ব পৌরসভার।’

হিজাব পরে প্রতিবাদ জানানো অমুসলিম শিক্ষিকা মারিট বলেন, ‘আমাদেরকে হিজাব পরা দেখে শিক্ষার্থীরা খুবই উচ্ছ্বসিত হয়। তাদেরকে সমর্থন করতেই এটি করা হয়েছে।’

পিউ রিসার্চ সেন্টারের দেওয়া তথ্যমতে, বিগত কয়েক দশকে সুইডেনে মুসলমানের সংখ্যা বেড়েছে। ১৯৫০ সালে দেশটিতে মুসলমানের সংখ্যা ছিল মাত্র ৫০০। যা বর্তমানে আট লাখে উন্নীত হয়েছে। সুইডেনের জনসংখ্যার ৮.১ শতাংশ এখন মুসলিম।

বিস্তারিত খবর

সোলাইমানি হত্যার দায়ে ট্রাম্পের প্রাণদণ্ড হওয়া উচিত : মার্কিন সাংবাদিক

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৭ ১১:২২:৩০


ইরানের ইসলামি গার্ড বাহিনী বা আইআরজিসি'র আল কুদস বাহিনীর সাবেক প্রধান জেনারেল কাসেম সোলাইমানিকে হত্যার দায়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তার সরকারের শীর্ষ স্থানীয় কর্মকর্তাদের প্রাণদণ্ড হওয়া উচিত। ইরানের ইংরেজি নিউজ চ্যানেল প্রেসটিভিকে দেয়া সাক্ষাৎকারে এ দাবি জানিয়েছেন মার্কিন লেখক, সাংবাদিক এবং রেডিও উপস্থাপক কেভিন ব্যারেট।

তিনি জেনারেল সোলাইমানি নিহত হওয়ার ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, মিথ্যা এবং অসত্য দাবির ওপর ভিত্তি করে এটি ঘটানো হয়েছে। শুধু হত্যাকাণ্ড নয় বরং এটি যুদ্ধাপরাধ বলেও উল্লেখ করে তিনি বলেন, একে পুরোপুরি অবৈধই বলতে হবে।

ইসলামিক এবং আরবি স্টাডিজের ওপর পিএইচডি ডিগ্রি অর্জনকারী ব্যারেট দৃঢ়তার সঙ্গে বলেন, আমেরিকায় এখনও খুনিদের প্রাণদণ্ড কার্যকর করা হয় তাই ট্রাম্প এবং তার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইক পম্পেওসহ এ অপরাধের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের সবার প্রাণদণ্ড হওয়া উচিত।

বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে ৩ জানুয়ারি বিমান হামলা চালিয়ে জেনারেল সোলাইমানি, ইরাকের আধা সামরিক বাহিনী বা পিএমইউ'র সেকেন্ড-ইন-কমান্ড আবু মাহদি আল-মুহানদিসসহ ১০ ব্যক্তিকে হত্যা করেছে আমেরিকা।

বিস্তারিত খবর

বিশ্বের সবচেয়ে বড় বরফ উৎসব

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৬ ০২:০৩:২৮

চীনের হারবিন শহরে শুরু হয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বরফ উৎসব৷ উৎসবে দেখানো সবকিছুই বরফ দিয়ে তৈরি করা হয়৷ বাড়ি, ট্রেন, সেতু সবই সেখানে বরফ দিয়ে তৈরি৷ ২০২০ সালের উৎসবটি চলবে ফেব্রুয়ারির শেষ পর্যন্ত৷ যদিও তা নির্ভর করছে আবহাওয়ার উপর৷ কেননা, বরফ গলে গেলেতো আর চলবে না!

ভেতর থেকে আলোর ব্যবস্থা করায় বরফের তৈরি জিনিসগুলো মোহনীয় দেখায়৷ হারবিন উৎসবের কিছু ভাস্কর্য রাতের বেলায়ও দেখতে পাওয়া যায়৷ এমন কিছু নেই যা বরফ দিয়ে তৈরি করা যায় না৷ প্রাসাদ, সেতু, আসল সাইজের গির্জা - সবই বরফ দিয়ে বানানো সম্ভব৷ উৎসবের কোনো কোনো টাওয়ারের উচ্চতা ৫০ মিটার পেরিয়ে গেছে৷ খবর ডয়চে ভেলের।

প্রায় এক ডজন দেশের বরফ শিল্পী হারবিন ফেস্টিভ্যালের জন্য কাজ করেছেন৷ শীত শুরু হওয়ার পরপরই তারা কাজে নেমে পড়েন৷ ভাস্কর্য তৈরি জন্য প্রায় এক লাখ ৭০ হাজার ঘনমিটার বরফ ব্যবহার করেছেন তারা৷ কষ্ট করে গড়ে তোলা এসব শিল্পকর্মের মেয়াদ থাকে মাত্র কয়েকদিন৷

বরফ শিল্পীসহ ১২ হাজারের বেশি মানুষের কয়েক সপ্তাহের পরিশ্রমের কারণে হারবিন উৎসব শুরু করা সম্ভব হয়েছে৷ এবার ৩৬তম বারের মতো এই উৎসবটি আয়োজিত হচ্ছে৷

এত বরফ কোথা থেকে আসে? উত্তর, সোঙহুয়া নদী থেকে৷ শীতে সেখানকার পানি জমে বরফ হয়ে যায়৷ সেগুলো কেটে হারবিন উৎসবে ব্যবহার করা হয়৷

হারবিন উৎসবে আসা দর্শকদের একাংশ বরফকে ভয় পান না৷ তাদের জন্যই উৎসবে সাঁতার প্রতিযোগিতারও আয়োজন করা হয়ে থাকে৷ হারবিন বরফ উৎসবের আরেকটি অংশ গণবিবাহ৷ প্রতিবছর অনেকে সেখানে বিয়ের অপেক্ষায় থাকেন৷

বিস্তারিত খবর

মোদির পিতার নাগরিকত্ব সনদ চাইলেন অনুরাগ কেশপ

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৬ ০২:০২:৪৩

নাগরিকত্ব আইন নিয়ে ইতিমধ্যে সোচ্চার হয়েছেন ভারতের বিশিষ্ট জনেরা। এবার সেই সুরে সুর মেলালেন বলিউড পরিচালক অনুরাগ কেশপ। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির পিতার জন্ম সনদ চাইলেন এই প্রখ্যাত পরিচালক। পাশপাশি নরেন্দ্র মোদির শিক্ষাগত যোগ্যতা নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন তিনি। খবর দ্য হিন্দুর ।

একটি টূইট বার্তায় অনুরাগ কেশপ বলেন, এই সরকার যদি জানে কিভাবে কথা বলতে হয় তাহলে তারা নাগরিকত্ব আইন নিয়ে আলোচনা করবে।এই সরকার নির্বোধ সরকার। এদের কোন পরিকল্পনা নেই।পাশপাশি ওই টুইটে মোদির নাগরিকত্ব নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেন অনুরাগ কেশপ।

গত ১১ ডিসেম্বর ভারতের পার্লামেন্টে নাগরিকত্ব আইন পাস হয় । নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন বা সিএএ-তে প্রতিবেশী মুসলিম প্রধান দেশগুলো থেকে আসা অমুসলিম সংখ্যালঘুদের ভারতের নাগরিকত্ব দেয়ার বিধান রয়েছে। সমালোচকরা বলছেন, ২০ কোটি সংখ্যালঘু মুসলমানকে তাদের নাগরিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করার জন্যই 'হিন্দু জাতীয়তাবাদীরা' কৌশলে ওই আইনটি ব্যবহার করছে। তবে ভারতে ক্ষমতাসীন হিন্দু জাতীয়তাবাদী দল বিজেপি বলছে, সিএএ মানুষকে নিপীড়নের হাত থেকে রক্ষা করবে।

বিস্তারিত খবর

সোলাইমানি হত্যার পর ইসরাইলে প্রথম রকেট হামলা

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৬ ০২:০০:৫০

এক টুইট বার্তায় ইসরাইলি সামরিক বাহিনী জানায়, গাজা থেকে ইসরাইলে চারটি রকেট ছোড়া হয়েছে। কিন্তু মধ্য আকাশেই দুটি রকেট বিধ্বস্ত করেছে ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আয়রন ডোম।

বাকি দুটো কোথায় গিয়ে পড়েছে, তা জানায়নি দখলদার সামরিক বাহিনী। জবাবে হামাসের স্থাপনাকে লক্ষ্যবস্তু বানিয়েছে তারা।

ইসরাইলি সামরিক বাহিনী বলছে, উত্তর গাজায় হামাসের অস্ত্র উৎপাদন স্থান, একটি সামরিক কম্পাউন্ডসহ বিভিন্ন লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হেনেছে ইহুদিবাদী দেশটির যুদ্ধবিমান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, সমুদ্রের কাছে হামাসের স্থাপনাকে লক্ষ্যবস্তু বানানো হয়েছে। তবে এতে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

গত ৩ জানুয়ারি বাগদাদ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মার্কিন ড্রোন হামলায় নিহত হন ইরানের প্রভাবশালী জেনারেল কাসেম সোলাইমানি। হামাসকে সমর্থনকারী ইরানের গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব ছিলেন তিনি।

গত সপ্তাহে অবৈধ দেশটির প্রধানমন্ত্রী বেনইয়ামিন নেতানিয়াহু বলেন, ইরান আঘাত হানলে মারাত্মকভাবে তার জবাব দেয়া হবে।

তবে সোলাইমানিকে হত্যার নিন্দা জানালেও কোনো প্রতিশোধের কথা বলেনি হামাস নেতৃবৃন্দ।

বিস্তারিত খবর

নিউজিল্যান্ডে অগ্ন্যুৎপাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৫ ১০:৩৯:৪৪


নিউজিল্যান্ডে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাতে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ২০ জনে দাঁড়িয়েছে। হোয়াইট আইল্যান্ডে অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনায় আরেকজনের মৃত্যু হওয়ায় এ সংখ্যা বাড়লো। সোমবার পুলিশ একথা জানিয়েছে। খবর এএফপি’র।

মৃতের এ সংখ্যার মধ্যে এমন দুই লোক রয়েছে যাদের লাশ উদ্ধার করা হয়নি।

ডেপুটি কমিশনার জন টিমস বলেন, ‘গত রাতে অস্ট্রেলিয়ার একটি হাসপাতালে পুলিশ আরেক ব্যক্তির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। হোয়াইট আইল্যান্ডের অগ্ন্যুৎপাতে সে মারাত্মকভাবে দগ্ধ হয়েছিল।’

অগ্ন্যুৎপাতের ঘটনায় অস্ট্রেলিয়ার হাসপাতালে এ নিয়ে দু'জন ব্যক্তির মারা গেলেন।

গত ৯ ডিসেম্বর সেখানে আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত শুরু হওয়ার সময় ৪৭ ব্যক্তি দ্বীপটি সফর করছিলেন। এদের অধিকাংশ অস্ট্রেলিয়ার নাগরিক ছিল।

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত