যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭ ইং

|   ঢাকা - 04:45am

|   লন্ডন - 10:45pm

|   নিউইয়র্ক - 05:45pm

  সর্বশেষ :

  ধর্ম অবমাননা নিয়ে রংপুরে সহিংসতা, আদালতে টিটু রায়ের স্বীকারোক্তি   টিকাতেই নিরাময় হবে ক্যান্সার   মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা ‘জাতিগত বৈষম্যের’ শিকার : অ্যামনেস্টি   ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র জালিয়াতি, আটক ৮   নাইজেরিয়ায় মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৫০   রোহিঙ্গাদের ফেরাতে চলতি সপ্তাহে সমঝোতার আশা সু চি’র   জানুয়ারি থেকে সব বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিশেষ ভাতা: প্রধানমন্ত্রী   আমেরিকান মিউজিক অ্যাওয়ার্ডসে সেরা হলেন যারা   পদত্যাগ নয়, জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন মুগাবে   কেন সৌদি আরব এমন করছে?   মরক্কোয় ত্রাণ নেওয়ার সময় পদদলিত হয়ে নিহত ১৫   ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক দিবস ঘোষণা চেয়ে হাইকোর্টে রিট   শাহজালালের মাজারের কুপের পানিকে জমজমের পানি বলে প্রতারণা : তদন্তের নির্দেশ আদালতের   এলপিজি আমদানির জাহাজ কিনলো বেক্সিমকো পেট্রোলিয়াম   রোহঙ্গিা সঙ্কট নিরসনে চীনের ৩ ধাপের প্রস্তাব

>>  লন্ডন এর সকল সংবাদ

লন্ডনে বন্ধ হচ্ছে উবার

যুক্তরাজ্যের লন্ডনে অ্যাপভিত্তিক ট্যাক্সি সেবা নেটওয়ার্ক উবার বন্ধ হচ্ছে চলতি মাসেই।

ট্রান্সপোর্ট ফর লন্ডন জানিয়েছে, অ্যাপভিত্তিক ট্যক্সি সার্ভিস উবারের লাইসেন্স আর নবায়ন করা হবে না। শুক্রবার বিবিসির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

লন্ডন ট্রান্সপোর্টের এই সংস্থাটি আরো জানায়, ব্যবসায়িক ক্ষেত্রে দায়িত্বশীলতাসহ বিভিন্ন জায়গায় বড় ধরনের ঘাটতি রয়েছে অ্যাপভিত্তিক এই প্রতিষ্ঠানটির। এসব ঘাটতি নাগরিকদের জন্য নিরাপত্তা ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।

এদিকে লাইসেন্স নবায়ন না করার সিদ্ধান্তের বিপক্ষে অবিলম্বে আদালতে যাবার ঘোষণা দিয়েছে উবার

বিস্তারিত খবর

লন্ডন অগ্নিকাণ্ড : পাঁচ দিন পর এক পরিবারকে জীবিত উদ্ধার

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-২০ ১৬:৫৪:৫১

লন্ডনের গ্রেনফেল টাওয়ারের অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় নিখোঁজদের মধ্যে পাঁচজনকে নিরাপদে জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

ঘটনার পাঁচ দিন পরে সিরিয়ান পরিবারের এ পাঁচ সদস্যকে নিরাপদে জীবিত উদ্ধারকে অলৌকিক বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল এ খবর প্রকাশ করেছে।

এখন পর্যন্ত এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় ৭৯ জন নিখোঁজ রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে টাওয়ারের ভিতরে আটকে পড়ে তাদের সকলেরই মৃত্যু হয়েছে।

কুদাইরের পরিবার নামে পরিচিত উদ্ধারকৃত পরিবারের মধ্যে তিনজন তরুণীও রয়েছে। পরিবারটি উন্নত জীবনের আশায় যুদ্ধাক্রান্ত সিরিয়া থেকে ব্রিটেনে পালিয়ে এসেছিলেন। পরিবারটি টাওয়ারের প্রায় মধ্যভাগের উপরের অংশে এক ফ্ল্যাটে থাকতেন। তাদের ইংরেজি ভাষা শিক্ষিকা ক্যাথেরিন লিন্ডসে পরিবারটির নিখোঁজের ব্যাপারে জানিয়েছিলেন।

এ ঘটনার তদন্ত কমিটির প্রধান মেট্রোপলিটন পুলিশ কমান্ডার স্টুয়ার্ট কন্ডি এ জীবিত উদ্ধারের ঘোষণা দেন। কিন্তু উদ্ধারকৃত পরিবারের পরিচয় প্রকাশ করেননি তিনি।

গত বুধবার রাত একটার দিকে ল্যাটিমার রোডে অবস্থিতগ্রেনফেল টাওয়ারে দেশটির ইতিহাসে ভয়াবহ এ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।


এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ফের বিজয়ী হলেন তিন বাঙালি কন্যা

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৯ ০৭:৪৯:৪০

যুক্তরাজ্যের মধ্যবর্তী নির্বাচনে জয় পেয়েছেন তিন বাঙালি কন্যা। তিনজনই বিরোধী দল লেবার পার্টি থেকে মনোনয়ন পেয়েছিলেন। ঢাকায় সহযোগী অনলাইন সংবাদমাধ্যমগুলো তাদের প্রতিনিধির বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে।

তিনজনের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি টিউলিপ রেজওয়ানা সিদ্দিক হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে, বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুশনারা আলী বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনে এবং রূপা হক ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন আসনে জয়ী হয়েছেন।

হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্নে টিউলিপ পেয়েছেন ৩৪ হাজার ৪৬৪ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ দলের প্রার্থী ক্লেয়ার লুইচ লিল্যান্ড পেয়েছেন ১৮ হাজার ৯০৪ ভোট। ২০১৫ সালে মাত্র ১ হাজার ১৩৮ ভোটের ব্যবধানে প্রথমবার এমপি নির্বাচিত হন টিউলিপ। এবার সেই ব্যবধান বেড়ে হলো ১৫ হাজার ৫৬০। টিউলিপ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোট বোন শেখ রেহানার মেয়ে।

পূর্ব লন্ডনের বেথনাল গ্রিন অ্যান্ড বো আসনে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রুশনারা আলী পেয়েছেন ৪২ হাজার ৯৬৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ পার্টির চার্লট চিরিকো পেয়েছেন ৭ হাজার ৫৭৬ ভোট। এ নিয়ে এই আসন থেকে তৃতীয় মেয়াদে এমপি নির্বাচিত হলেন রুশনারা। সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলায় জন্ম নেওয়া রুশনারা সাত বছর বয়সে মা-বাবার সঙ্গে যুক্তরাজ্যে গিয়েছিলেন।

লন্ডনের ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন আসনে দ্বিতীয় মেয়াদে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত রূপা হক। তিনি পেয়েছেন ৩৩ হাজার ৩৭ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কনজারভেটিভ পার্টির জয় মোরিসি পেয়েছেন ১৯ হাজার ২৩০ ভোট। গতবার মাত্র ২৭৪ ভোটে জয় পাওয়া রূপা এবার জিতেছেন ১৩ হাজার ৮০৭ ভোটের ব্যবধানে। কিংসটন ইউনিভার্সিটির সমাজবিজ্ঞানের জ্যেষ্ঠ শিক্ষক রূপা হকের আদি বাড়ি পাবনায়।


এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

থেরেসা মে’র প্রধানমন্ত্রী পদে থাকা নিয়ে সংশয়

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৯ ০৪:২৮:০৯

বড় রকমের বাজি ধরেছিলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে। এই মুহূর্তে নির্বাচনের কোনো বাধ্যবাধকতা ছিল না। প্রতিদ্বন্দ্বী লেবার পার্টির চেয়েও তার দল কনজারভেটিভ পার্টি স্পষ্ট ব্যবধানেই এগিয়ে ছিল। প্রতিদ্বন্দ্বীর দুর্দিনে তাকে আরও মাঠের বাইরে পাঠিয়ে দেওয়ার যে ‘চক্রান্ত’ থেরেসা মে করেছিলেন, সম্ভবত সে চক্রান্তে ফেঁসে যাচ্ছেন নিজেই! যদিও নির্বাচনের আনুষ্ঠানিক কারণ সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন, ব্রেক্সিট বাস্তবায়নে নিজের ক্ষমতা আরও নিরঙ্কুশ করাই এ নির্বাচনের উদ্দেশ্য। নির্বাচনে বিপুল ব্যবধানে জিতবেন, সে আত্মবিশ্বাস ছিল তার। কিন্তু নির্বাচনী প্রচারণা শুরু হওয়ার পর থেকেই হাওয়া বদল হতে শুরু করে। কনজারভেটিভদের সাথে লেবার পার্টির ব্যবধান কমতে কমতে একসময় জরিপে উভয় দলের সম্ভাবনাই সমান হয়ে যায়। 
ভোটের ফলাফল ইতোমধ্যে আসতে শুরু করেছে। এখন পর্যন্ত ৬১৬টি আসনের ফল জানা গেছে। প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, কনজারভেটিভ পার্টি পেয়েছে ২৯৯ আসন। লেবার পার্টি পেয়েছে ২৫২ আসন। এসএনপি ৩৪ আসন। লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি বা লিবডেম পেয়েছে ১০ আসন। অন্যান্য দল পেয়েছে ২১ আসন। ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নিম্ন কক্ষ হাউস অব কমনসের মোট আসন ৬৫০টি। কোনো দল এককভাবে ৩২৬টি আসন পেলেই মিলবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা। তবে বিবিসি তাদের পূর্বাভাসে বলছে, একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার জন্য প্রয়োজনীয় আসন পাচ্ছে না কনজারভেটিভরা। বিবিসি বলছে, দলটি সর্বোচ্চ ৩২২টি আসন পেতে পারে। অর্থাৎ মাত্র ৪ আসনের জন্য সংসদে একক সংক্যাগরিষ্ঠতা হারাতে যাচ্ছে তারা। যদিও দল হিসেবে তারাই সংসদে সবচেয়ে বড় দলের স্বীকৃতি পাচ্ছে। 
এ অবস্থায় প্রধানমন্ত্রী পদে থেরেসা মে’র ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা কল্পনা শুরু হয়ে গেছে। ফলাফল আসতে শুরু হওয়ার পর থেরেসা মে তার উপদেষ্টাদের নিয়ে কনজারভেটিভ সদর দপ্তরে আলোচনায় বসেছেন। সাবেক একজন মন্ত্রী অ্যানা সব্রি বলেছেন, ‘তার ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর এখন ভাবা উচিত।’ রাজনীতির ভাষায় এটা পদত্যাগের আহবান। অরেকজন শীর্ষস্থানীয় এমপিকে উদ্বৃত করে বিবিসি বলেছে, ‘তিনি কীভাবে এরপরও প্রধানমন্ত্রী পদে থাকবেন, তা বুঝতে পারছি না।’ এমনকি অন্য আরেকজন মন্ত্রী বিবিসিকে জানিয়েছেন, ১০ জুন শনিবারের মধ্যে থেরেমা মে’র পদত্যাগের সম্ভাবনা ৫০ শতাংশ। 
বিবিসি লিখেছে, থেরেসা মে ভেবেছিলেন এখন মধ্যবর্তী নির্বাচন ডাকলে টোরিরা তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা আরও বাড়াতে পারবে। কিন্তু নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী কনজারভেটিভ পার্টি হয়ত অন্য দলের সাহায্য নিয়ে সরকার গঠন করতেও পারে কিন্তু থেরেসা নিশ্চিতভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। তার ‘শক্তিশালী এবং স্থিতিশীল’ ভাবমূর্তি ধুলায় লুটিয়েছে। বিবিসির রাজনীতি বিষয়ক সম্পাদক বলছেন মেয়াদ শেষ হবার আগে এই নির্বাচন ডাকা ছিল বর্তমান সময়ের অন্যতম সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক ভুল।
এর আগে, থেরেসা মে’র পূর্বসুরী সাবেক প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনও ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকা না থাকার প্রশ্নে গণভোট দিয়ে জুয়া খেলেছিলেন, যে গণভোট দেওয়ার কোনো বাধ্যবাধকতা তার ছিল না। ওই গণভোটের প্রেক্ষাপটে ক্যামেরনকে অকালে তার রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শেষ করতে হয়েছিল। এবারও নির্বাচনের বাধ্যবাধকতা না থাকা সত্বেও আগম নির্বাচন দিয়ে জুয়া খেললেন থেরেসা মে। এদিকে নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী পদে থেরেসা মে’র সাথে পতিদ্বন্দ্বিতাকারী লেবার পার্টির নেতা জেরেমি করবিন নিজের আসনে জেতার পর বলেছেন জনগণ ব্যয়সঙ্কোচনের রাজনীতি প্রত্যাখান করেছে এবং থেরেসা মের পদত্যাগ করা উচিত। 
ব্রিটিশ পার্লামেন্টের নিম্নকক্ষ হাউজ অব কমনসের মোট আসন ৬৫০টি। কোনো দল এককভাবে ৩২৬টি আসন পেলেই মিলবে সংখ্যাগরিষ্ঠতা। তবে এর কম আসন পেলে তখন জোট সরকার গঠন করতে হবে। কনজারভেটিভদের যেহেতু একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার সম্ভাবনা কমে যাচ্ছে, তাহলে জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে থেরেসা মে’র ভবিষ্যতও সন্দিহান বলে মন্তব্য করেছে বিবিসি। 

বিস্তারিত খবর

টিউলিপ, রুশনারা ও রূপাকে প্রধানমন্ত্রীর অভিনন্দন

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৯ ০৪:১৫:০৯

যুক্তরাজ্যের সাধারণ নির্বাচনে দ্বিতীয়বারের মতো জেতায় বাংলাদেশী বংশোদ্ভুত টিউলিপ সিদ্দিক, রুশনারা আলী ও রূপা হককে অভিনন্দন জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। শুক্রবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এক বার্তায় এ অভিনন্দন জানানো হয়। অভিনন্দন বার্তায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাদের এই জয় যুক্তরাজ্যের রাজনীতিতে বাংলাদেশীদের অংশগ্রহণকে আরও গুরুত্ববহ করে তুলবে।
বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট নির্বাচনে বিজয়ী এই তিন বাঙালি কন্যাই লেবার পার্টির প্রার্থী ছিলেন। রুশনারা তৃতীয় ও টিউলিপ এবং রূপা দ্বিতীয়বারের মতো নির্বাচিত হয়েছেন। এই তিন জনই ২০১৫ সালের পার্লামেন্ট নির্বাচনে জিতেছিলেন।লন্ডনের হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর চেয়ে সাড়ে ১৫ হাজারেরও বেশি ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপ। লন্ডনের ইলিং সেন্ট্রাল অ্যান্ড অ্যাকটন আসন থেকে রূপা হক গত নির্বাচনে জিতেছিলেন ২৭৪ ভোটের ব্যবধানে। বৃহস্পতিবার ভোটে তিনি জিতলেন ১৩ হাজার ৮০৭ ভোটের ব্যবধানে।
রুশনারা আলীও জিতেছেন বাঙালি অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটসের বেথনাল গ্রিন ও বো আসন থেকে। তিনি ৩৫ হাজার ৩৯৩ ভোটের বিশাল ব্যবধানে জয়ী হন। গত নির্বাচনে তিনি জিতেছিলেন ২৪ হাজার ভোটের ব্যবধানে।

বিস্তারিত খবর

ব্রিটিশ রাজনীতিতে ফেরার ঘোষণা ব্লেয়ারের

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৫-০২ ০৮:১৭:৩৬

ব্রিটেনের সাবেক প্রধানমন্ত্রী টনি ব্লেয়ার দেশটির ঘরোয়া রাজনীতিতে ফেরার ঘোষণা দিয়েছেন। ব্রেক্সিট বিতর্ক মোকাবেলায় সোমবার তিনি রাজনীতিতে ফেরার এ ঘোষণা দেন। তবে আগামী ৮ জুন অনুষ্ঠেয় দেশটির সাধারণ নির্বাচনে তিনি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না। খবর বার্তা সংস্থা এএফপির।
৬৩ বছর বয়সী ব্লেয়ার ১৯৯৪ থেকে ২০০৭ সাল পর্যন্ত লেবার পার্টির নেতৃত্ব দেন। এছাড়া তিনি ১৯৯৭ সাল থেকে প্রায় এক দশক দেশটির প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন।
ব্লেয়ার বলেন, তিনি জানেন এর জন্য তাকে ব্যাপক সমালোচনার মুখোমুখি হতে হবে। তিনি আরো বলেন, ব্রেক্সিট বিতর্ক নিয়ে নীতি নির্ধারণের লক্ষ্যে তিনি একটি রাজনৈতিক আন্দোলন গড়ে তুলতে চান।  

বিস্তারিত খবর

শুকনো নারকেলের স্বাস্থ্য উপকারিতা

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৫-০২ ০৭:৫৪:৩৫

গ্রীষ্ম মণ্ডলীয় আবহাওয়ায় নারিকেল গাছ বৃদ্ধি পায়। একারণেই গ্রীষ্মমণ্ডলীয় অঞ্চলের  বাসিন্দাদের ডায়েটের একটি প্রধান অংশ হচ্ছে নারইকেল। শীত প্রধান দেশে যারা বাস করেন  তাদের অনেকেই হয়তো কাঁচা নারকেলের শাঁস কখোনো খান নি। নারকেলের খোলস থেকে এর শাঁস বা মাংসল অংশ আলাদা করাটা একটু কঠিন। বাজারে আস্ত নারকেল ও ভাঙ্গা নারকেল কিনতে পাওয়া যায়। এই শুকনো নারকেলের শাঁস এমনিতেও খাওয়া যায় আবার অন্য খাবারের সাথে মিশিয়ে বা পিঠা তৈরির সময় ও ব্যবহার করা যায়। শুকনো নারকেলের শাঁসের প্রচুর পুষ্টি উপকারিতা আছে, যা আমরা জানবো আজকের ফিচারে।
১। ফ্যাটি এসিডএক কাপ কাঁচা নারকেলের মাংসে ২৮৩ ক্যালোরি থাকে। যার বেশীরভাগই আসে ২৬.৮ গ্রাম ফ্যাট থেকে। বেশীরভাগ উদ্ভিজ খাদ্যে খুব কম সম্পৃক্ত ফ্যাট থাকে, কিন্তু শুকনো নারকেলে এটি প্রচুর পরিমাণে থাকে প্রায় ২৩.৮ গ্রাম করে প্রতি কাপে। যদিও অন্য সম্পৃক্ত চর্বিতে ফ্যাটি এসিডের দীর্ঘ শৃঙ্খল থাকে, কিন্তু নারকেলের চর্বির ফ্যাটি এসিডের শৃঙ্খল মধ্যম আকারের হয়। দীর্ঘ ফ্যাটি এসিডের চেইন এর চেয়ে মধ্যম আকারের ফ্যাটি এসিড খুব দ্রুত ভাঙ্গে। তাই তারা কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধি করেনা। দ্যা ফিলিপাইন জার্নাল অফ কার্ডিওলজি এর মতে, নারিকেলের ফ্যাট সম্ভবত খারাপ কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে এবং ভালো কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এই সম্ভাব্য উপকারিতা থাকা সত্ত্বেও যদি আপনার হৃদরোগ এবং উচ্চ কোলেস্টেরলের সমস্যা থাকে তাহলে নারিকেল খাওয়ার বিষয়টি আপনার চিকিৎসকের সাথে কথা বলে জেনে নিন।
২। ফাইবার শুকনো নারকেলের শাঁসে প্রচুর ফাইবার থাকে, এক কাপে ৭.২ গ্রাম। যা একজন প্রাপ্ত বয়স্ক মানুষের দৈনিক চাহিদার ২০% এর বেশি। ফাইবার হজম প্রক্রিয়ায় সাহায্য করে মলের পরিমাণ বৃদ্ধি করার মাধ্যমে। ফাইবার পেট ভরা রাখতেও সাহায্য করে বলে আপনি যদি ওজন কমাতে চান তাহলে নারিকেল খেতে পারেন।
৩। ম্যাঙ্গানিজনারিকেলে অত্যন্ত প্রয়োজনীয় খনিজ ম্যাঙ্গানিজ থাকে। এক কাপ নারিকেলে একজন মানুষের দৈনিক চাহিদার ৬৭% ম্যাঙ্গানিজ থাকে। ম্যাঙ্গানিজ ফ্যাট ও প্রোটিন বিপাকে সাহায্য করে। এছাড়াও ইমিউন সিস্টেম ও স্নায়ু তন্ত্রের কাজে সাহায্য করে এবং রক্তের চিনির মাত্রা স্থিতিশীল রাখতে সাহায্য করে। ম্যাঙ্গানিজ শরীরকে আয়রন, থায়ামিন এবং ভিটামিন ই এর ব্যবহারে সাহায্য করে।
৪। পটাসিয়াম ও কপারশুকনো নারকেলের শাঁসে অন্য দুটি গুরুত্বপূর্ণ খনিজ পটাসিয়াম ও কপার ও থাকে। এক কাপ নারিকেলে ১৪% পটাসিয়াম ও ৩৯% কপার থাকে। শরীরের কোষের তরলের ভারসাম্য রক্ষায় সাহায্য করে পটাসিয়াম। পেশীর বৃদ্ধি ও হৃদপিন্ডের কাজের জন্য প্রয়োজনীয় পটাসিয়াম। লাল রক্ত কোষের উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় কপার এবং স্বাদের অনুভূতিতেও সাহায্য করে কপার।  

বিস্তারিত খবর

লন্ডনে ট্রাম লাইনচ্যুত হয়ে নিহত ৫

 প্রকাশিত: ২০১৬-১১-০৯ ১২:৩১:০০

ইংল্যান্ডে ট্রাম লাইনচ্যুত হয়ে কমপক্ষে পাঁচজন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো ৫০ জন। স্থানীয় সময় বুধবার দক্ষিণ লন্ডনে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

ব্রিটিশ ট্রান্সপোর্ট পুলিশ (বিটিপি) জানিয়েছে, এ ঘটনার পর ট্রামচালককে আটক করা হয়েছে। তবে কী কারণে এ দুর্ঘটনা ঘটেছে তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

দক্ষিণ লন্ডনের ক্রয়ডন এলাকায় সকাল ৬টার দিকে ট্রামটি লাইনচ্যুত হয়। দুর্ঘটনার পরপর ট্রামটির ভেতরে আটকে পড়া লোকজনদের উদ্ধার করা হয়। আহত ৫০জনকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। তবে লন্ডন অ্যাম্বুলেন্স সেবাকেন্দ্র জানিয়েছে, তিনটি হাসপাতালে ৫১জনকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা হান্নাহ কলিয়ার বলেন, ‘ আমি বিছানায় শুয়ে নির্বাচনের খবর দেখছিলাম। ওই সময় আমি বিকট আওয়াজ শুনতে পাই। তখন মনে করেছিলাম এটি বাতাসের শব্দ। এরপরই আমি লোকজনের চিৎকার ও জরুরি সেবা বিভাগের গাড়ির আওয়াজ পাই।’

প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে বলেছেন, ‘এই ভয়াবহ ঘটনা মোকাবেলায় প্রয়োজনীয়  সবকিছু করার জন্য জরুরি সেবা বিভাগ ও কর্তৃপক্ষের সঙ্গে তার সরকার সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রক্ষা করছে।’


এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

লন্ডনে বর্ণবাদ বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৬-১০-৩০ ০৭:১০:৪৭

সম্প্রতি বাংলাদেশী অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটস এলাকার ইয়ুথ ওয়ার্কার জাকারিয়া হোসেন ও ১৩ বছর বয়সী স্কুল ছাত্রীকে পুলিশ কর্তৃক নির্যাতনের প্রতিবাদে টাওয়ার হ্যামলেটস স্ট্যান্ডআপ টু রেসিজম এবং ক্যাম্পেইন এগেইনস্ট রেসিজম এন্ড হেইট ক্রাইম সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে শনিবার পূর্ব লন্ডনের আলতাব আলী পার্কে বিশাল প্রতিবাদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এতে সর্বস্থরের কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও বিপুল সংখ্যক তরুন-তরুনী অংশনেয়।

গত ৮ অক্টোবর বাঙালি তরুণ জাকারিয়ার উপর পুলিশের অতিরিক্ত বলপ্রয়োগের বিষয়টি স্থানীয় পুলিশ সদস্যদের নিষ্ঠুরতা নিয়ে কমিউনিটিতে যখন নিন্দার ঝড় বইছে তখনই সোশ্যাল মিডিয়ায় আসা আরেকটি ভিডিওচিত্র । এই দুই ঘটনায় রীতিমতো তোলপাড় তুলেছে টাওয়ার হ্যামলেটসে। দ্বিতীয় ভিডিওচিত্রে দেখা গেছে পুলিশের নির্দয় আচরণের শিকার হয়েছে মাত্র ১৩ বছর বয়সের এক কিশোরী। তাকে হাতকড়া দিয়ে মাটিতে ফেলে এক পুলিশ সদস্যের চেপে বসার চিত্রটি আসলেই অবিশ্বাস্য।
কেটলিন কিং নামের ওই কিশোরী তার জমজ বোনকে নিয়ে ওয়াপিং হাই স্কুলে এক বন্ধুর সাথে দেখা করতে গিয়েছিলো। সেখানে ঐ স্কুলের একটি মেয়ের সাথে তার ঝগড়া বাঁধে। এরপর পুলিশ এসে তাকে হাতকড়া পরায়। মাটিতে ফেলে চুল ধরে টেনেহিচড়ে ফুটপাত ধরে টেনে নিয়ে যায়। স্থানীয় একটি পত্রিকায় পুলিশি আচরণের এমনই বর্ণনা ছাপা হয়েছে।

এদিকে বাঙালি তরুণ জাকারিয়ার উপর পুলিশের অতিরিক্ত বলপ্রয়োগের ভিডিও স্যোশাল মিডিয়া প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে কমিউনিটিতে ক্ষোভ বিরাজ করছে। ইতিমধ্যে একাদিক সভা সমাবেশ করেছেন কমিউনিটির মানুষ। তাদের দাবী পুলিশ বাড়া বাড়ি করেছে। তাদের শাস্তি দিতে হবে। সভায় বক্তারা জাকারিয়া হোসেনের বিরুদ্ধে পুলিশী রিপোর্ট না দেয়ার জোরদাবী জানান।
কমিউনিটি নেতা সিরাজ হক ও সিলা মার্গেট এর যৌথ পরিচালনায় সভায় বক্তব্য রাখেন টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিলের মেয়র জন বিগস, জিএলএ মেম্বার উমেশ দিশাই, কাউন্সিলার রাবিনা খান, সাবেক কাউন্সিলার আবদাল উল্লাহ, কমিউনিটি নেতা রফিক উল্লাহ, কেএম আবু তাহের চৌধুরী, তরুন প্রজন্মের মধ্যে খাদিজা বেগম, হবিব মিয়া প্রমুখ।


এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

হিলারিকে সমর্থন জানালেন লন্ডনের মেয়র সাদিক খান

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৯-১৭ ১৪:২৪:৫৫

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ডেমোক্র্যাট দলের প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে সমর্থন দিয়েছেন লন্ডনের প্রথম মুসলিম মেয়র সাদিক খান। রিপাবলিকান দলের প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প মুসলিম-বিদ্বেষী যে দৃষ্টিভঙ্গির যে প্রকাশ ঘটিয়েছেন তাতে ইসলামিক স্টেটকেই (আইএস) আরও উস্কে দেওয়া হবে বলে সতর্কও করেছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রে প্রথম সফরে শিকাগোয় পৌঁছে খান বলেন, তিনি হিলারি ক্লিনটনের অনেক বড় ভক্ত এবং ৮ নভেম্বরের নির্বাচনে হিলারিই জিতবেন বলে আশা করছেন।

শিকাগো কাউন্সিল অন গ্লোবাল এফেয়ার্সে ২৫০ জনেরও বেশি দর্শকশ্রোতার উদ্দেশ্যে এক বক্তব্যের পর সাংবাদিকদেরকে সাদিক খান বলেন, “হিলারি যৌক্তিকভাবেই প্রেসিডেন্ট পদের দৌড়ে সবচেয়ে অভিজ্ঞ একজন প্রার্থী।”

মে মাসে লন্ডনের প্রথম মুসলিম মেয়র হওয়ার পরপরই ট্রাম্পের মুসলিম বিদ্বেষী মন্তব্যের কারণে তার সঙ্গে সংঘাতে জড়িয়েছিলেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত সাদিক খান। গত বছর প্যারিসে সন্ত্রাসী হামলায় ১৩০ জন নিহত হওয়ার পর ডোনাল্ড ট্রাম্প মুসলিমদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের ব্যাপারে নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব করেছিলেন।

বিষয়টি নিয়ে তিনি দেশে ও দেশের বাইরে ব্যাপক সমালোচনার শিকার হন। সাদিক খান সে সময় উদ্বেগ প্রকাশ করে টাইম ম্যাগাজিনকে বলেছিলেন, “আমি যুক্তরাষ্ট্রে যেতে চাই সেখানকার মেয়রদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে, তাদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে।

কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলে আমার ধর্মবিশ্বাসের কারণে সেখানে (যুক্তরাষ্ট্রে) আমাকে ঢুকতে দেওয়া হবে না।”


এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

চুরের ছুরিকাঘাতে ইষ্ট লন্ডনে যুবক নিহত

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৯-১৪ ১২:৫০:৩১

ইষ্ট লন্ডনে নিজ ঘরের সামনে ছুরিকাঘাতে নিহত হয়েছেন ২৭ বছর বয়সী এক যুবক। এসময় তার পিতা ৪৬ বছর বয়সী পিতা গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। এঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বিবিসি সূত্রে জানাগেছে ইষ্ট লন্ডন এলাকার ছাদয়াল হিথ এলাকার গিবফিল্ড ক্লোজ এলাকায় মঙ্গলবার রাত দেড়টায় এই ঘটনা ঘটে।

পুলিশ সূত্রে জানাযায় গভীর রাতে ঘরের বাইরে থাকা জিনিসপত্র ৪সদস্যের চুরের দল নিয়ে যাচ্ছে এমন শব্দ শুনে বাইরে আসলে তারা আক্রমনের শিকার হন। চুরের দল তাদের মারাত্মক ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে তাদেরকে ইষ্ট লন্ডন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভোর রাতে যুবকের মৃত্যুবরণ করেন। তার পিতার আহত হলেও আশংকাজনক নয়।

এদিকে বুধবার সকালে ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে ২জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।


এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

লন্ডনে শীর্ষ প্রভাবশালীদের তালিকায় চার বাংলাদেশি

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৯-১০ ০৬:৩৫:০২

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ এমপি ও বঙ্গবন্ধুর নাতনি টিউলিপ সিদ্দিক, বেথনালগ্রিন ও বো আসনের এমপি রুশনারা আলী, প্রখ্যাত বাংলাদেশি-ব্রিটিশ নৃত্যশিল্পী আকরাম খান এবং মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেনের সেক্রেটারি জেনারেল হারুন খানের নাম যোগ হলো লন্ডনের প্রভাবশালীদের তালিকায়।

লন্ডনের জনপ্রিয় পত্রিকা ইভিনিং স্ট্যান্ডার্ড প্রতিবছর এই প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বদের তালিকা প্রস্তুত করে।

এ বছর পত্রিকাটি মোট ৩২টি ক্যাটাগরিতে লন্ডনের মোট এক হাজার প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বকে নির্বাচিত করেছে। প্রিন্স চার্লসের উপস্থিতিতে লন্ডনের স্থানীয় সময় বুধবার সন্ধ্যায় তালিকাটি প্রকাশিত হয়।

এ তালিকায় রাজনীতিভিত্তিক ওয়েস্টমিনিস্টার ক্যাটাগরিতে স্থান পেয়েছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ এমপি টিউলিপ সিদ্দিক এবং বেথনালগ্রিন ও বো আসনের এমপি রুশনারা আলী। আর নৃত্য ক্যাটাগরিতে জায়গা করে নিয়েছেন আকরাম খান।

এ ছাড়াও ফেইথ লিডার ক্যাটাগরিতে মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেনের সেক্রেটারি জেনারেল হারুন খানের নাম এসেছে।

শহরের সায়েন্স মিউজিয়ামে অনুষ্ঠিত জমকালো ওই অনুষ্ঠানে ‘দ্য প্রোগ্রেস ওয়ান থাউজেন্ড’ শিরোনামে দশমবারের মতো লন্ডনের হাজার প্রভাবশালী ব্যক্তিত্বের তালিকা প্রকাশ করে পত্রিকাটি।

এ বছর তালিকার শীর্ষে ছিলেন লন্ডনের মেয়র সাদিক খান। তাকে লন্ডনার অব দ্য ইয়ার হিসেবে স্বীকৃতি দেয়া হয়।

এ ছাড়াও ওই তালিকায় আছেন যুক্তরাজ্যের নতুন প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে, পররাষ্ট্রমন্ত্রী বরিস জনসনের মতো ব্যক্তিত্ব।


এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

স্কার্ফ পরা নিয়ে ফের ব্রিটিশ মিডিয়ায় আলোচিত বাংলাদেশি নাদিয়া

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৮-১৬ ১৬:৩১:৪১

ফের ব্রিটিশ মিডিয়ার সংবাদ শিরোনামে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাদিয়া হোসেন। তবে এবার ‘বেক অফ’ হিসেবে নয়, কেন তিনি মাথায় স্কার্ফ পরেন সে কারণে সংবাদ শিরোনাম হয়েছেন। দ্য টাইমসের বরাত দিয়ে খরবটি দিয়েছে ডেইলি মেইল। দ্য টাইমসের সঙ্গে আলাপচারিতায় নাদিয়া বলেন, আমার চুলগুলো খুব বাজে। তা ঢেকে রাখতেই আমি মাথায় স্কার্ফ পরতে শুরু করি। আর তার এ সরল স্বীকারোক্তি লুফে নিয়েছে ব্রিটিশ মিডিয়া। ইতোমধ্যেই মাথায় স্কার্ফ-পরা নারী মডেলে পরিণত হয়েছেন তিনি।

নাদিয়া জানান, মাথায় স্কার্ফ পরা তার পারিবারিক ঐতিহ্য নয়। তিনি স্রেফ চুল ঢেকে রাখার জন্য এটা পরেন। এর পেছনে আর কোন কারণ নেই। হয়তো তার এ স্বীকারোক্তিতে পরিবারও বিস্মিত হতে পারেন। তিন সন্তানের মা ৩১ বছর বয়সী নাদিয়া বলেন, আমার মাথায় স্কার্ফ দেখে বাংলাদেশ থেকে বৃটেনে আসা অনেকেই বিস্ময় প্রকাশ করেন। যখন আমি বাংলাদেশে যাই তখনও কেউ কেউ প্রশ্ন করেন, কেন আপনি মাথায় স্কার্ফ পরে আছেন? আপনার মাথায় কি কোন দাগ আছে?

দ্য টাইমসকে নাদিয়া জানান, এখন থেকে ১৭ বছর আগে তিনি মাথায় স্কার্ফ পরা শুরু করেন। তখন খুব কম মানুষই স্কার্ফ পরতেন। তিনি বলেন, আমি স্কুল লাইব্রেরিতে অনেকটা সময় অবস্থান করতাম। এ ছাড়া শিক্ষা সংক্রান্ত বিভিন্ন সেকশনে আমাকে যেতে হয়েছে। আমি খুব বেশি ধার্মিক পরিবারের মেয়ে নই। কিন্তু আমি আমার ধর্মকে বেছে নিয়েছি। আমার বাবা খুব বাজেভাবে আমার চুল কেটে দিতেন। তাই মাথাটা ঢেকে রাখার জন্যই স্কার্ফ পরা শুরু করি।

নাদিয়া বলেন, প্রথমে তিনি বেডরুমেই একা একা পরীক্ষামূলকভাবে স্কার্ফ পরা শুরু করেন, যাতে তা অন্য কেউ কপি করতে না পারে। অথবা কিভাবে পরতে হবে সে বিষয়ে কেউ নাক গলাতে না আসে। এভাবে তিনি যে পদ্ধতিতে স্কার্ফ পরা শুরু করেন তা তার পোশাকের সঙ্গে চমৎকার মানিয়ে যায়। তিনি কৌতুক করে বলেন, আমাকে দেখতে তো তুতেনখামেনের মতো। আমাকে তখন সুন্দর দেখাতো না। নাদিয়া বলেন, তিনি কেন স্কার্ফ পরা শুরু করলেন তা নিয়ে তার পিতামাতা দ্বিধাদ্বন্দ্বে ছিলেন। কিন্তু তাদেরকে তিনি বলে দিয়েছেন, সমাজের কে কি বলবে সেদিকে তিনি থোড়াই কেয়ার করেন।

গ্রেট বৃটেন বেক অফ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই নারী শুধু বৃটেনে নয়, সারাবিশ্বে একটি রোল মডেলে পরিণত হয়েছেন। সিলেটের বিয়ানীবাজারে তার পৈত্রিক বাড়ি। গত জুনে তার প্রথম রান্না বিষয়ক বই ‘নাদিয়াস কিচেন’ প্রকাশিত হয়েছে। দ্য টাইমসে তিনি একটি কলামও লেখেন। বৃটেনের রাণী দ্বিতীয় এলিজাবেথের ৯০তম জন্মদিনের কেকও বানিয়েছেন নাদিয়া। তিনি নিজেই ‘দ্য ক্রোনিকলস অব নাদিয়া’ নামে একটি টিভি শো করবেন বলে কথা রয়েছে। এতে বাংলাদেশি রন্ধনশৈলীও প্রদর্শন করবেন তিনি।

ডেইলি মেইল জানিয়েছে, জুনিয়র বেক অফ প্রতিযোগিতায় বিচারক হিসেবে থাকবেন নাদিয়া। তার নতুন এ ভূমিকা নিয়ে তিনি বেশ উদ্বেলিত। সিবিবিসি প্রোগ্রামে অংশ নিচ্ছে ৪০ জন টিনেজার বেকার (রন্ধনশিল্পী)। তাতে আন্তর্জাতিক সব শেফ ও রান্না বিষয়ক লেখক আলেগ্রা ম্যাকএভেডির সঙ্গ বিচারক হিসেবে থাকছেন দ্য গ্রেট বৃটিশ বেক অফ ২০১৫ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত নাদিয়া হোসেন। অংশগ্রহণকারীদের সবার বয়স ৯ থেকে ১২ বছরের মধ্যে।

এ জন্য লুটনে জন্ম নেয়া এই তারকা বলেন, গত বছর এই সময়ে আমি ছিলাম বেক অফ প্রতিযোগিতার শিবিরে। এবার আমি আবারও সেখানে যাচ্ছি। তবে সেখানে আগামী প্রজন্মকে তাদের রন্ধনশৈলীতে উৎসাহিত করতে যাচ্ছি। এ সুযোগ পেয়ে আমি আবেগাপ্লুত।


 এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

আরব বসন্তের পর এবার ইংরেজী বসন্ত!

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৬-২৯ ২২:১৪:০৩

ব্রেক্সিট বিরোধী মিছিলের সারি লম্বা হচ্ছে দিন দিন। তিন দিন আগে ছিল কয়েক হাজার। বৃহস্পতিবার লাখ ছাড়িয়েছে। বৃটিশ পার্লামেন্টের সামনে হাজার হাজার মানুষ স্লোগান দিচ্ছে, গান গাইছে। বলছে মানি না, মানি না এ রায়। প্রায় এক সপ্তাহ আগে ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে যারা ডিভোর্স চেয়েছিলেন, তারাও এ মিছিলে শামিল হয়েছেন। প্রথম দিকে দোদুল্যমানতা ছিল। ব্রেক্সিট পরবর্তী পরিস্থিতি জনগণকে রাস্তায় নামিয়েছে। জনরায়কে সরকারও মান্যতা দিয়েছিল। কিন্তু এখন পরিস্থিতি দ্রুত পাল্টে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবারের জনস্রোতে যোগ দিয়েছিলেন বিজনেস মিনিস্টার আন্না সবরি। তিনি জনতার উদ্দেশ্যে আবেগঘন বক্তব্য রাখেন। বলেন, আমি ছিলাম লিভের পক্ষে। কিন্তু আমার ৮৪ বছর বয়সী মা এবং দুই সন্তান এই ফলাফলে ক্ষুব্ধ। তার এ বক্তব্যের পরে ব্রেক্সিট বিরোধী আওয়াজ আরও বেড়ে যায়। এই বিক্ষোভের আয়োজক স্যোসাল মিডিয়া, রেডিও, টেলিভিশন, সংবাদপত্রতো আছেই। বৃটিশ পার্লামেন্টের সামনে শুধু বিক্ষোভ হয়নি, বিক্ষোভ হয়েছে ইংল্যান্ডের আরো অনেক শহরেও। ব্রেক্সিট প্রধানমন্ত্রীকে গদি ছাড়তে বাধ্য করেছে, বিরোধী নেতার গদি টলটলায়মান। ট্রাফালগার স্কয়ারের সামনে বিক্ষোভকারীরা বলেছে, তিনশ ৫০ মিলিয়ন পাউন্ড কোথায়। লিভের প্রচারণাকারীরা বলেছিল, প্রতি সপ্তাহে লন্ডন থেকে তিনশ ৫০ মিলিয়ন পাউন্ড যায় ব্রাসেলসে। এখন তারা তা অস্বীকার করছে। বলছে, তারা এমন কথা বলেনি। বেশিরভাগ মানুষ তাদের কথায় সায় দিয়েছিল। ইউরোপীয় ইউনিয়নের বৈঠকে বৃটিশ প্রধানমন্ত্রীর নিষ্ফল উপস্থিতি জনগণকে আরও আবেগ আপ্লুত করেছে। কারণ ৪৩ বছরে কোন বৃটিশ প্রধানমন্ত্রীর এমন নিষ্ফল উপস্থিতি ছিল না। গণভোট নিয়ে কী হবে, এ রায় কী পরিবর্তন হবে? বৃটিশ প্রধানমন্ত্রী এ সম্ভাবনাও নাকচ করে দিয়েছেন। কিন্তু জনস্রোত যেদিকে যাচ্ছে তা কি আরব বসন্তের মতো ইংরেজ বসন্তে রূপ নেবে? কেউ কেউ অবশ্য এমনটাই হতাশ যে, তারা মনে করেন গুগলের সার্চ ইঞ্জিনও বৃটিশ রাজনীতির কোন চটজলদি সমাধান দিতে পারবে না।

বিস্তারিত খবর

ঈদের পর লন্ডন যাবেন খালেদা জিয়া

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৬-২৬ ২১:৪৫:৪৬

পবিত্র ঈদুল ফিতরের পরপর লন্ডন যেতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। চোখের চিকিৎসার উদ্দেশ লন্ডন সফর হলেও এটি রাজনৈতিকভাবেই গুরুত্ব পাবে। তবে সফরের দিনক্ষণ এখনও চূড়ান্ত হয়নি। দলের গুলশান ও নয়াপল্টন কার্যালয় সূত্রে এ সংক্রান্ত তথ্য পাওয়া গেছে।দলের নেতাকর্মীদের মতে, পূর্ণাঙ্গ কমিটি চূড়ান্ত এবং পরবর্তী করণীয় নিয়ে ছেলে তারেক রহমানের পরামর্শ নিতেই তিনি সরাসরি লন্ডনে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন। এদিকে বিএনপি প্রধানের সম্ভাব্য এ সফর নিয়ে দলের পদ-প্রত্যাশীদের নতুন করে চিন্তার খোরাক জোগাচ্ছে। চেয়ারপারসন লন্ডন গেলে ঈদের আগে কমিটি হচ্ছে না। এ বিষয়ে দলের বড় একটি অংশ মোটামুটি নিশ্চিত। দেশে ফেরার পরই ঘোষণা করা হতে পারে স্থায়ী কমিটিসহ নতুন নেতাদের নাম। তবে ঈদের আগে নির্বাহী কমিটির সম্পাদকীয় পদে নেতাদের নাম ঘোষণার জোর সম্ভাবনা আছে বলে মনে করেন নেতাকর্মীরা।২০১৫ সালের ১৫ সেপ্টেম্বর চিকিৎসার জন্য লন্ডনে গিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। দু’মাসের বেশি সময় পরে তিনি দেশে ফেরেন।১৯ মার্চ বিএনপির ষষ্ঠ জাতীয় কাউন্সিল অনুষ্ঠানের পর কয়েক ধাপে মহাসচিবসহ ৪২টি পদে নাম ঘোষণা করা হয়। কমিটির বাকি পদের বিষয়ে নেতারা প্রায় অন্ধকারেই আছেন। বাকি কমিটি ঘোষণায় বিলম্ব নিয়ে কোনো কোনো নেতা দলের হাইকমান্ডের ওপর চরম ক্ষুব্ধ। এদিকে যেসব পদ ঘোষণা করা হয়েছে তা নিয়েও দলের মধ্যে সৃষ্টি হয়েছে বিভেদ। অনেকের অভিযোগ, কমিটি গঠনে যোগ্যতা ও সিনিয়র-জুনিয়র মানা হয়নি। এ নিয়ে বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানও ঘনিষ্ঠদের কাছে অসন্তোস প্রকাশ করেন।দলীয় সূত্রে জানা গেছে, চলতি সপ্তাহে নির্বাহী কমিটির সম্পাদক পর্যায়ের নেতাদের নাম ঘোষণা করা নিয়ে আলোচনা চলছে। তবে ঈদের আগে নাম ঘোষণা করা, না করা নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে মত রয়েছে। দলের একটি পক্ষ চান, যা হওয়ার হবে। এ সপ্তাহে কমিটি ঘোষণা দিলে এলাকায় গিয়ে ঈদ উদযাপন করা যাবে। তবে অপর পক্ষ চাইছে, ঈদের পরে কমিটি ঘোষণা করা হোক। কারণ, এ সময়ে কমিটি ঘোষণা হলে যারা কাক্সিক্ষত পদ পাবেন না তাদের ঈদ মাটি হয়ে যাবে।জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম বলেন, কমিটি গঠনের দায়িত্ব চেয়ারপারসনকে দেয়া হয়েছে। তিনি জেনে-বুঝে কমিটি ঘোষণা করবেন। বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ইতিমধ্যে দলের চেয়ারপারসন, সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান, মহাসচিবসহ আরও কিছু পদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। দলের চেয়ারপারসন দ্রুতই পুরো কমিটি ঘোষণা দেবেন। এ নিয়ে দলের মধ্যে কোনো সমস্যা নেই।দলীয় সূত্রে জানা গেছে, অতিমাত্রায় পদের জন্য ‘লালায়িত নেতারা’ কাক্সিক্ষত পদ না পেলে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া হিসেবে দল থেকে পদত্যাগ বা স্বেচ্ছায় রাজনীতি থেকে নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ারও ঘোষণা দিতে পারেন। এ তালিকায় দলের ভাইস চেয়ারম্যান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এবং কয়েকজন সম্পাদকও আছেন। এদের অনেকের বিরুদ্ধেই বিগত এক-এগারোর সময়ে বিতর্কিত ভূমিকার অভিযোগ রয়েছে। ইতিমধ্যে এসব নেতারা গুলশান কার্যালয়ে স্বাস্থ্যগত কারণ দেখিয়ে যাওয়া প্রায় ছেড়েই দিয়েছেন। এদের মধ্যে যারা এতদিন দলের সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের সমালোচনা করতেন, তারা কমিটি গঠন নিয়ে এখন ভেতরে ভেতরে খালেদা জিয়ার সমালোচনা করতেও দ্বিধা করছেন না। তবে দলের অনেকেই মনে করছেন, পদ পেতে হাইকমান্ডকে চাপে রাখতেই রাজনীতি ছেড়ে দেয়া বা নিষ্ক্রিয় হয়ে যাওয়ার কৌশল নিয়েছেন কেউ কেউ।

বিস্তারিত খবর

ব্রিটিশ এমপি জো কক্সকে গুলি করে হত্যা

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৬-১৬ ২১:৪৯:১৪

জো কক্স ইংল্যান্ডে দুর্বৃত্তদের গুলিতে আহত হয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন জো কক্স নামে ব্রিটিশ পার্লামেন্টের এক সদস্য।
এর আগে উত্তরাঞ্চলীয় লিডস শহরের অদূরে বৃহস্পতিবার গুলিবিদ্ধ হন লেবার পার্টি থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য জো কক্স।
গুলিবিদ্ধ হওয়ার পরপরই তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে লিডস শহরের একটি হাসপাতালে নেয়া হয়।
৪১ বছর বয়সী দুই সন্তানের জননী কক্স ২০১৫ সালের সাধারণ নির্বাচনে বিজয়ী হন। তিনি ব্রিটিশ পার্লামেন্টের সিরিয়া বিষয়ক সংসদীয় কমিটির সভাপতি। এ হত্যাকাণ্ডর পর পুলিশ তদন্ত শুরু করেছে।

বিস্তারিত খবর

ইন্টারনেটে টিউলিপকে হত্যার হুমকি দেয়া হয়েছিলো

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৬-১২ ০০:৪৬:০২

ইন্টারনেটে হত্যার হুমকি পেয়েছিলেন বলে জানিয়েছেন ব্রিটিশ এমপি টিউলিপ সিদ্দিক ।
সানডে টাইমসকে সম্প্রতি টিউলিপ বলেন, ‘ভয়ঙ্কর সব হুমকি আমাকে দেওয়া হয়েছে। তুমি হিজাব পরো না কেন? ‘পারলে তোমাকে খুন করতাম’- এরকম কথাও শুনতে হয়েছে।’ সানডে টাইমস তার এই বক্তব্য ৫ জুন প্রকাশ করে।
এবারই নয়। এর আগেও অনলাইনে প্রথম তাকে আজেবাজে কথা বলা হয় ২০১৪ সালে, যখন নিউ হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্ন আসন থেকে লেবার পার্টির হয়ে তার নির্বাচনের প্রচার চলছিল। সে সময় তাকে কথা শুনতে হয়েছিল বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত হওয়ার কারণে।
টিউলিপ সানডে টাইমসকে বলেন, ‘আমাকে বলা হয়েছিল, ‘তোমার মত নামের কাউকে হ্যাম্পস্টেডের তরুণ ভোটাররা কখনোই ভোট দেবে না।’
প্রথমবার পার্লামেন্ট সদস্য হওয়ার পর গত এপ্রিলে প্রথম সন্তানের মা হওয়ার আগে যখন চারদিক থেকে অভিনন্দন বার্তা পাচ্ছেন, তখনও টুইটারে বাজে মন্তব্যের শিকার হতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।
এ ধরনের বিদ্বেষ মোকাবিলায় হাউস অব কমন্সে নিজেদের মধ্যে একটি আনঅফিসিয়াল সাপোর্ট গ্রুপ তৈরি করার কথাও জানিয়েছেন টিউলিপ।
প্রসঙ্গত, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাতনি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাগ্নি টিউলিপ সিদ্দিক। তিনি লন্ডনের মিচামে জন্মগ্রহণ করেন। তার শৈশব কেটেছে বাংলাদেশ, ভারত এবং সিঙ্গাপুরে। ১৫ বছর বয়স থেকে তিনি হ্যাম্পস্টেড অ্যান্ড কিলবার্নে বাস করছেন। এই এলাকায় স্কুলে পড়েছেন ও কাউন্সিলর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। লন্ডনের কিংস কলেজ থেকে পলিটিক্স, পলিসি এন্ড গভর্নমেন্ট বিষয়ে তার স্নাতকোত্তর ডিগ্রি রয়েছে। মাত্র ১৬ বছর বয়সে লেবার পার্টির সদস্য হওয়া টিউলিপ অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল গ্রেটার লন্ডন অথরিটি এবং সেইভ দ্য চিলড্রেনের সঙ্গেও কাজ করেছেন। ২০১০ সালে ক্যামডেন কাউন্সিলে প্রথম বাঙালি নারী কাউন্সিলর নির্বাচিত হন তিনি।

বিস্তারিত খবর

ব্রিটেনে হেনস্তার শিকার সিলেটের নাদিয়া

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৫-৩০ ১৪:৩৪:৫৮

প্রত্যেকটা জঙ্গি হামলার পর আমার মাথার ওপর মেঘের পাহাড় নিয়ে দরজার বাইরে যাই। যখন আমি ট্রেনে থাকি, মানুষ তখন আমার থেকে দূরে বসেন, আমার পিঠে ব্যাগ অথবা স্যুইটকেস থাকে… আমি বাসের অপেক্ষা থাকার সময় লোকজনেরগুতা খাই, ইসলামভীতি থেকে অনেকে হেনস্তাও করেন’।

ব্রিটেনে ‘গ্রেট ব্রিটিশ বেক অফ প্রতিযোগিতা’য় গত বছর শিরোপা জিতেছেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ব্রিটিশ নাগরিক নাদিয়া হুসেইন। বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে জঙ্গিদের হামলার পর কী ধরনের পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হয় সে বিষয়ে জানিয়েছেন ব্রিটেনের প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যম দ্য টাইমস ম্যাগাজিনকে।
নাদিয়া হুসেইন বলেন, তাকে অনেক বিব্রতকর পরিস্থিতির সম্মুখীন হতে হয়, ইসলামভীতি থেকে অনেকেই তাকে হেনস্থা করেন। তবে এটি ভয়াবহ আকার ধারণ করে প্রত্যেকটি জঙ্গি হামলার পর।
নাদিয়া লিডসে বাস করেন। গ্রেট ব্রিটিশ বেক অফ প্রতিযোগিতার রান্না বিষয়ক একটি অনুষ্ঠান ব্রিটেনের জনপ্রিয় টেলিভিশন অনুষ্ঠানগুলোর মধ্যে একটি। গত বছর চূড়ান্ত পর্বটি দেখতে এক কোটি ৩৪ লাখ দর্শক টেলিভিশনের সামনে ছিলেন। এ পর্বটি সবচেয়ে বেশি দেখা টেলিভিশন অনুষ্ঠানের মধ্যে একটি।
ওই প্রতিযোগিতার পর থেকে সংবাদপত্রে কলাম লিখছেন নাদিয়া। কিছুদিন আগে ব্রিটিশ রাণীর জন্মদিনের কেক বানিয়েছিলেন বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত এই ব্রিটিশ বেকার। ব্যাপক জনপ্রিয়তা সত্ত্বেও ধর্ম এবং হিজাব পড়া নিয়ে অনলাইনে হেনস্থার স্বীকার হন তিনি। গত জানুয়ারিতে নাদিয়া তার বাড়িতে পুলিশি নিরাপত্তার কথা প্রকাশ করেন।
গত বছরের নভেম্বরে প্যারিসে ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলার পর তার ভাই মৌখিক আক্রমণের শিকার হন।

বিস্তারিত খবর

ক্যান্সারের টিকা আবিষ্কার

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৫-৩০ ১৪:২৫:৪৬

মানব শরীরের ক্যান্সার জীবাণু ধ্বংসকারী টিকা ‘ক্যান্সার ভ্যাকসিন' আবিষ্কার করেছে বলে দাবি করেছে লন্ডন ভিত্তিক এক গবেষণাগারের গবেষকরা। 

এই টিকা শরীরের যেকোনো অংশে ছড়িয়ে থাকা ক্যান্সারের জীবাণু ধ্বংস করবে বলে দাবি করেছেন গবেষকেরা।
ইতিহাস সৃষ্টিকারী এই টিকা এখনো পরীক্ষামূলক অবস্থায় রয়েছে বলে জানিয়েছেন তারা। প্রথমবারের মতো এক রোগীর শরীরে প্রয়োগ করার পর ইতিবাচক ইঙ্গিত মিলেছে। 
লন্ডনের বেকেনহ্যামের বাসিন্দা কেলি পটারের শরীরে প্রথম প্রয়োগ করা হয় ওই টিকা। ৩৫ বছরের ওই মহিলা জরায়ু ক্যান্সার আক্রান্ত ছিলেন।
তার শরীরে যখন ক্যান্সারের টিকা প্রয়োগ করা হয় তখন ক্যান্সার পৌঁছে গিয়েছে চতুর্থ পর্যায়ে। তার লিভার এবং ফুসফুসের মধ্যে ছড়িয়ে পড়ছিল ক্যান্সারের জীবাণু।
টিকা দেওয়ার পর তার শরীরে ক্যান্সারের ব্যাপ্তি এখন অনেক স্থিতিশীল হয়েছে। একইসঙ্গে লিভার ও ফুসফুসের মধ্যে জীবাণু ছড়িয়ে পড়াও বন্ধ হয়েছে। আগের চেয়ে এখন অনেক ভালো আছেন বলে জানিয়েছেন কেলি পটার।
শুধুমাত্র ক্যান্সার নয় মানব শরীরের অনেক মরণরোগ নিরাময় করতে এই টিকা কাজ করবে বলে জানিয়েছেন ক্যান্সার টিকা নিয়ে গবেষণা সংস্থা গাই’স অ্যান্ড সেন্ট থমাস বায়োমেডিকেল রিসার্চ সেন্টার’ এর প্রধান জেমস স্পাইসার।
তিনি বলেন, ‘মানুষের শরীরে অনেক সময় খুব শক্ত টিউমার হয়। এই টিকা প্রয়োগের মাধ্যমে তা সম্পূর্ণভাবে নির্মূল করা সম্ভব’।
ক্যান্সার এই টিকা খুবই কার্যকরী হবে বলেও আশাবাদী তিনি। যদিও ক্যান্সার শরীর থেকে পুরোপুরি নির্মূল করতে এই টিকার সঙ্গে কম মাত্রার কেমোথেরাপি দেওয়ার পরামর্শ দেন জেমস স্পাইসার।
গবেষণা সংস্থাটির তরফে বলা হয়েছে ‘হিউম্যান টেলোমারেজ রিভার্স ট্রান্সক্রিপটেজ’ নামের এক ধরণের উৎসেচক বিভাজনের মাধ্যমে ক্যান্সার কোষের ক্রমাগত বংশ বৃদ্ধিতে সাহায্য করে। এই উৎসেচকের গঠনমূলক প্রোটিনের সামান্য অংশ এই টিকাতে রাখা হয়েছে।
আশা করা হচ্ছে, এই টিকাটি ইঞ্জেকশনের মাধ্যমে শরীরের রক্তে প্রবেশ করালে তা ভাল কোষ গুলোকে অক্ষুণ্ণ রেখে ক্ষতিকর ক্যান্সার কোষগুলোকে খুঁজে বের করে ধ্বংস করতে সক্ষম হবে।

বিস্তারিত খবর

লন্ডনে মুসলিম তরুণদের ওপর নজরদারি-বিতর্ক বাড়ছে

 প্রকাশিত: ২০১৬-০৫-১২ ১৪:৫৭:৩২

৪ মে’র বিকেলে পূর্ব লন্ডনের টাওয়ার হ্যামলেটস এলাকায় আলতাব আলী পার্কে জড় হয়েছিলেন শ খানেক মানুষ। প্রয়াত আলতাব আলীরই মৃত্যুবার্ষিকী ছিল সেদিন। ৩৮ বছর আগে বাংলাদেশী বংশোদ্ভূত ঐ যুবক খুন হয়েছিলেন শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদিদের হামলায়।

বর্ণবাদের সেই সমস্যা অন্তত লন্ডনে এখন নেই বললেই চলে। কিন্তু ব্রিটেনের বাংলাদেশিরা হালে নতুন এক চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছেন – ইসলামী উগ্রবাদ। এবং তা তৈরি হয়েছে তাদের নিজেদের ভেতরেই।

সাম্প্রতিক কয়েক বছরে যে সব ব্রিটিশ মুসলিম মধ্যপ্রাচ্যে ইসলামিক স্টেটের হয়ে যুদ্ধ করতে গেছে, তাদের মধ্যে কয়েক ডজন ব্রিটিশ-বাংলাদেশীও রয়েছেন। । বিশেষ করে গত বছর এই টাওয়ার হ্যামলেটসেরই একটি স্কুল থেকে তিন কিশোরীর সিরিয়ায় পালিয়ে যাওয়ার ঘটনা এখনও বিশ্বাস করতে পারছেন না এলাকার বাংলাদেশীরা ।

তবে মুসলিম কিশোর তরুণদের উগ্রবাদ থেকে দুরে রাখতে ব্রিটিশ সরকার প্রিভেন্ট নামে যে কৌশল নিয়েছে তা নিয়ে সারা ব্রিটেনের মতো টাওয়ার হ্যামলেটসের বাংলাদেশীদের মধ্যেও বিতর্ক বাড়ছে। বিশেষ করে, শিক্ষকদের দিয়ে স্কুলে মুসলিম ছাত্র-ছাত্রীদের ওপর ছেলেমেয়েদের ওপর নজরদারির বিষয়টি নিয়ে অস্বস্তিতে পড়েছেন তাদের অনেকেই।

'বাঙালিরা রক্ষণশীল হয়ে পড়েছে'

টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল অর্থাৎ স্থানীয় সরকারের নির্বাচিত ডেপুটি মেয়র শিরিয়া খাতুন বড় হয়েছেন টাওয়ার হ্যামলেটসের ব্রিক লেনে। তিনি অকপটে স্বীকার করলেন ব্রিটেনে বাংলাদেশীদের মধ্যে ধর্মীয় রক্ষণশীলতা ক্রমাগত বাড়ছে এবং সেই সাথে কিশোর-তরুণদের একাংশের মধ্যে উগ্রবাদের উত্থান উদ্বেগ তৈরি করেছে।

"আমাদের ফ্যামিলি অ্যালবামে দেখেছি এমনকি আমার মা উঁচু করে খোপা করেছেন, হাতা-কাটা ব্লাউজ। এখন এটা দেখিনা। বাঙালি সমাজ এখন অনেক রক্ষণশিল হয়ে পড়েছে।"

ঠিক কেন এই উগ্রবাদে দীক্ষিত হচ্ছে অনেক মুসলিম তরুণ-তরুণী - তা নিয়ে অনেকের মত তিনিও বিভ্রান্ত। উদাহরণস্বরূপ টাওয়ার হ্যামলেটসেরই একটি স্কুল থেকে যে তিন মুসলিম ছাত্রী পালিয়ে সিরিয়ায় চলে গেছে, তাদের প্রসঙ্গ টেনে বললেন, তারা সবাই অত্যন্ত ভালো ছাত্রী ছিলো।

অভিভাবকরাই সাহায্য চাইছেন

শিরিয়া খাতুন প্রিভেন্ট নিয়ে সমালোচনা করতে রাজী নন। “আমি মনে করি প্রিভেণ্টের অন্য নাম সুরক্ষা। বাচ্চারা দিনে সাত-আট ঘণ্টা স্কুলে তাকে, বাবা-মায়ের চেয়ে শিক্ষকরাই বেশি নজর রাখতে পারে।"

তিনি জানালেন, টাওয়ার হ্যামলেটস কাউন্সিল থেকে আলাদাভাবে উগ্রবাদ থেকে শিশুদের দুরে থাকতে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। একজন কর্মকর্তা স্কুলে গিয়ে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের সাথে ওয়ার্কশপ করে উগ্রবাদের বিপদ নিয়ে কথা বলেন। একটি ট্রেনিং মেটিরিয়াল তৈরি হয়েছে যাতে অভিভাবকরা উগ্রবাদের লক্ষণগুলো বুঝতে পারেন।

শিরিয়া খাতুন বার বার বললেন, স্কুলে এই ধরণের ব্যবস্থা চাপিয়ে দেয়া হচ্ছেনা, বরঞ্চ অভিভাবকরা সাহায্য চাইছেন।

“আমি নিজে ঘরে ঘরে যাই, মানুষজন আমার কাছে আসেন, তারা বার বার বলেন, তারা সাহায্য চান। কোন বাবা মা চায় তার চেয়ে বা মেয়ে সিরিয়ায় চলে যাক?।“

তবে প্রিভেন্টকে অনেকেই দেখেছেন একটি সম্প্রদায়ের ওপর গোয়েন্দাগিরির মত। যে কোনো মুসলিম কিশোর-তরুণই যেন সম্ভাব্য উগ্রবাদী।


শিক্ষক মহলে মতবিরোধ

স্পর্শকাতরতার কথা ভেবেই হয়ত খুবই রাখ-ঢাক করা হচ্ছে এ কৌশল নিয়ে । স্কুলগুলো এ নিয়ে কথা বলতে আগ্রহী নয়। অনেক অনুরোধের পর কথা বলতে রাজী হলেন টাওয়ার হ্যামলেটসের মালবেরি গার্লস স্কুলের অ্যাসোসিয়েট হেড টিচার জিল টাফি । তিনি কোনোভাবেই স্বীকার করলেন না, যে ধরণের নজরদারি নিয়ে কথা হচ্ছে, সেটা অন্তত তার স্কুলে হচ্ছে।

“এটা সত্যি যে এ স্কুলের সব শিক্ষক সরকারের প্রিভেন্ট কৌশলের ওপর প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। কিন্তু আমরা যে কৌশল নিয়েছি তা হলো মেয়েদের এমন এমনভাবে শিক্ষা দেওয়া যাতে তারা যখন স্কুল ছেড়ে যাবে, তারা যেন পূর্ণ আস্থার সাথে ব্রিটিশ সমাজ ও জীবনে অংশ নিতে পারে, খোলা মন নিয়ে বিচার বিবেচনা করেতে করে। আমরা প্রিভেন্ট’কে এভাবেই নিয়েছি।“

“কিন্তু একইসাথে আমরা চোখ-কান খোলা রাখি । শিক্ষার্থীদের মধ্যে কোনো বিভেদ, উদ্বেগ যদি দেখা দেয়, তাহলে গোড়াতেই তার সমাধান করতে হবে। বিভেদ, সন্দেহ, বঞ্চিত হওয়ার মনোভাব থেকেই উগ্রতা-অসহিষ্ণুতার জন্ম হয়।“

তবে জিল টাফি প্রিভেন্ট কৌশলের কিছু কিছু বিষয় নিয়ে সন্দিহান। তার আশঙ্কা কোনো কিশোর তরুণের ভেতর উগ্র মনোভাবের লক্ষণ দেখা দিলেই তাগে আগেভাগেই অপরাধী হিসাবে বিবেচনা করাটা হিতে-বিপরীত হতে পারে।

মালবেরি স্কুলের শিক্ষক প্রিভেন্ট নিয়ে খুব বেশি উদ্বিগ্ন নন, কিন্তু ব্রিটেনে স্কুল শিক্ষকদের প্রধান যে সমিতি -- ন্যাশনাল ইউনিয়ন অব টিচার্স – তারা তাদের সর্বশেষ জাতীয় সম্মেলনে শিক্ষকদের এ কাজ থেকে পুরোপুরি অব্যাহতি দেওয়ার দাবি করেছে। তারা বলছে, এটা ছাত্র-শিক্ষক সম্পর্ক বিষাক্ত করে তুলতে পারে।

উগ্রবাদ ঠেকাতে ফুটবল

শুধু স্কুল নয়, মুসলিম কিশোর তরুণদের উগ্রবাদ থেকে দুরে রাখতে বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংস্থাকেও উৎসাহিত করছে ব্রিটিশ হোম অফিস অর্থাৎ অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা দপ্তর।

লন্ডন টাইগার্স এমন একটি চ্যারিটি। মেসবাহ আহমেদ প্রায় তিরিশ বছর এটি শুরু করেছিলেন টাওয়ার হ্যামলেটসে উদ্দেশ্য ছিল এলাকার পিছিয়ে পড়া পরিবারের শিশু কিশোরদের জন্য খেলাধুলোর ব্যবস্থা করা যাতে তারা কোনো অপরাধে না জাড়িয়ে পড়ে। অত্যন্ত সফল হয়েছে লন্ডন টাইগার্স। সারা লন্ডন জুড়ে কাজ করছে তারা। এখন তাদের নিজস্ব স্টেডিয়াম পর্যন্ত রয়েছে।

মেসবাহ আহমেদ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন, সঠিক সুযোগ সৃষ্টি করে মানুষকে সুপথে আনা যায়, রাখা যায়। উগ্রবাদের দীক্ষা থেকেও বিরত রাখা যায়।

“এ শহরে অনেক কিশোর তরুণ আছে যারা পরিবার থেকে, স্কুল থেকে কোনো সাহায্য পায়না, এদের অনেকেই অপরাধে জড়িয়ে পড়ার হুমকিতে থাকে, সেটা মাদক, গ্যাং বা উগ্রবাদ যে কোনো কিছুই হতে পারে ... এসব অপরাধে ঢুকে পড়ার আগেই তাদেরকে বিকল্প রাস্তা দিতে হবে, একবার ঢুকে গেলে ফিরিয়ে আনা কঠিন।“

মসজিদগুলো কি করছে?

উগ্রবাদের সাথে টাওয়ার হ্যামলেটসের নাম জড়িয়ে পড়া, তাকে যেভাবে সামলানোর চেষ্টা হচ্ছে, তা নিয়ে এলাকার ধর্মীয় নেতারা কি ভাবছেন? ব্রিক লেন মসজিদের মসজিদ কমিটির প্রেসিডেন্ট সাজ্জাদ মিয়া অকপটে স্বীকার করলেন, উগ্রবাদ বাংলাদেশী মুসলিম সমাজে উদ্বেগ তৈরি করেছে।

“আমরা সবাই চিন্তিত, আমি ব্যক্তিগতভাবে উদ্বিগ্ন।“

সাজ্জাদ মিয়া জানালেন, কোনো ধরণের নজরদারির জন্য সরকারের পক্ষ থেকে কোনো পরামর্শ তারা পাননি। তবে নিজে থেকেই মাঝে মধ্যে শুক্রবারের জুমার নামাজের খুতবায় ছেলেমেয়েদের ওপর নজর রাখার জন্য অভিভাবকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।

মসজিদের ইমাম নজরুল ইসলাম বলেন, ইসলামের সাথে জঙ্গিবাদের কোনো সম্পর্ক নেই—এই বার্তা যতটা পারেন তিনি দেওয়ার চেষ্টা করেন। তবে শুধু মুসলিমদের ওপর নজরদারিকে তিনি ঝুঁকিপূর্ণ মনে করেন। “সরকারের পক্ষ থেকে কোনো একটি সম্প্রদায়কে আলাদাভাবে দেখা হয়, এটা মোটেই ঠিক নয়।“

“এই দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হোক সেটা কোনো মুসলমান চাইতে পারেনা। এদেশ ডুবলে, মুসলমানও ডুববে ... প্রতিটি ধর্মেই কিছু অপরাধী থাকে.. পাঁচ লাখ মুসলিমের মধ্যে একশজন যদি সিরিয়া যায়, তার দায় সব মুসলমান কেন নেবে?

সরকারের নেওয়া সন্ত্রাস বিরোধী কর্মকাণ্ডের ওপর নজর রাখছে নিরপেক্ষ যে সংস্থা, তারা সম্প্রতি প্রিভেন্ট কৌশল পুনর্বিবেচনার জন্য সরকারকে পরামর্শ দিয়েছে। তারা বলছে, প্রিভেন্ট ব্রিটিশ মুসলিমদের মধ্যে ভীতি এবং অবিশ্বাসের জন্ম দিচ্ছে। তবে সরকার যে সেই পরামর্শ কানে নিচ্ছে, তেমন কিছু শোনা যায়নি।

বিস্তারিত খবর

বিডিআর হত্যাযজ্ঞের বার্ষিকীতে লন্ডনে নাগরিক সমাবেশ

 প্রকাশিত: ২০১৬-০২-২৮ ১৫:০৫:৫৬

২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি পিলখানায় সংঘটিত ইতিহাসের বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞের নেপথ্যের পরিকল্পনাকারীদের বিচার দাবি করেছেন- বৃটেনে বসবাসরত বাংলাদেশী সাবেক সেনা কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ, রাজনীতিক, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী ও আইনজীবীরা।

বিডিয়ার বিদ্রোহ নামে ভয়াবহতম এ ঘটনার ৭ম বার্ষিকীতে লন্ডনে অনুষ্ঠিত এক নাগরিক সমাবেশে বক্তারা এ দাবি জানান।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় লন্ডনের ওয়াটার লিলি মিলনায়তনে সিটিজেন মুভমেন্টের বা নাগরিক আন্দোলনের উদ্যোগে আয়োজিত ‘পিলখানা হত্যাকান্ড: বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তা সার্বভৌমত্বের বিরুদ্ধে একটি গভীর ষড়যন্ত্র’ শীর্ষক জাতীয় সেমিনারে বিশিষ্টজনরা বলেন- বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তাকে পঙ্গু করতেই পিলখানায় সুক্ষ্ম কৌশলে সেনা হত্যাকান্ড চালানো হয়। দুনিয়ার কোনো যুদ্ধে এক সাথে এত সেনা কর্মকর্তা নিহত হওয়ার নজির নেই।

শত শত প্রবাসী বাংলাদেশীদের উপস্থিতিতে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে দর্শক সারিতে বক্তব্য শোনেন  বিএনপির সিনিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান। পরে আয়োজকদের অনুরোধে শোকাবহ এ দিনের ওপর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, আমি শ্রদ্ধার সাথে সরণ করছি পিলখানায় নিহত শহীদ ৫৭ জন সেনা কর্মকর্তাসহ অন্যান্য নিহত সৈনিকদের। সেইসাথে গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি নিহত সেনা অফিসারদের পরিবারের স্বজনের প্রতি। তিনি সেমিনারের ব্যানারে লেখা তিনটি শব্দের বিশ্লেষণ করে বলেন, একটি রাষ্ট্রে জাতির উজ্জ্বল ভবিষ্যৎ বাধাগ্রস্ত করার জন্যে ষড়যন্ত্র থাকতেই পারে। দ্বিতীয়টি হলো নিরাপত্তা, কিছু দিন আগে বৃটেনের সরকার তাদের নাগরিকদের বাংলাদেশ সফর করতে নিষেধ করেছে। এতেই বুঝা যায় বাংলাদেশের নিরাপত্তার কত নাজুক অবস্থা বিরাজ করছে। আর তৃতীয়টা হলো- সার্বভৌমত্ব। ৭১ সালে জনগণকে সাথে নিয়ে এই সেনারাই ঐক্যবদ্ধভাবে সার্বভৌমত্বকে ছিনিয়ে এনেছিলেন। ৫৭ সেনা অফিসারদের হত্যার মাধ্যমে যে মেসেজ দেয়া হয়েছে সেই প্রেক্ষিতে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষার শপথ নিয়ে তাদেরকেই আবারো এগিয়ে আসতে হবে।

নাগরিক আন্দোলনের আহ্বায়ক এমএ মালেকের সভাপতিত্বে এবং মানবাধিকার কর্মী মনোয়ার বদরুদ্দোজার পরিচালনায় সমাবেশে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান, বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান, সাবেক প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব ও সাংবাদিক মুশফিকুল ফজল আনসারী, যুক্তরাজ্য বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়ছর এম আহমদ, মুফতি সদরুদ্দিন, সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অবঃ) সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক, মেজর (অবঃ) জহির উদ্দিন, মেজর (অবঃ) এবি সিদ্দিক, মেজর (অবঃ) আশফাক, মেজর (অবঃ) শাহ আলম, ব্যারিস্টার আবু বকর মোল্লা, কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব কেএম আবু তাহের, ব্যারিস্টার এম এ সালাম, সিটিজেন মুভমেন্টের মিডিয়া কোর্ডিনেটর মুহাম্মদ নূরে আলম বরষণ, আমার দেশ পত্রিকার সহাকারী সম্পাদক মাহবুব আলী খানশূর প্রমুখ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক প্রফেসর ড. কামরুল হাসান বলেন, পিলখানা হত্যাকান্ড ছিল পরিকল্পিত। এটা আওয়ামী লীগের নীলনকশার অংশ হিসেবে দেশ ও জাতিকে নিরাপত্তাহীন করে সংকটে পতিত করার এই বর্বর হত্যাকান্ড ঘটানো হয়। এ ঘটনার মাধ্যমে সীমান্ত রক্ষা বাহিনী বিডিআরকে ধ্বংস করা হয়েছে। আমরা দাবি করবো, বিএনপি ক্ষমতায় এলে জড়িতদের চিহ্নিত করে যথাযথ বিচার করা হবে।

বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক মাহিদুর রহমান বলেন, যারা এই হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটিয়েছে, সুষ্ঠু তদন্ত করে তাদের শাস্তি দিয়ে জাতিকে কলঙ্কমুক্ত করতে হবে। পিলখানা হত্যাকান্ডের সাত বছর অতিবাহিত হয়ে গেলেও কেন সেনাবাহিনীর তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়নি?

সাংবাদিক মুশফিকুল ফজল আনসারী বলেন, পিলখানা হত্যাকান্ড বিচ্ছিন্ন কোনো ঘটনা নয়,  নিছক কেবল বিডিয়ার বিদ্রোহ নয়- এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাযজ্ঞ বা জেনোসাইড। সরকার সময় ক্ষেপন করে সেনা অফিসারদের হত্যার সুযোগ করে দেয়। বাংলাদেশকে ব্যর্থ, দুর্বল, অকার্যকর ও গণতন্ত্রহীন করার জন্য ষড়যন্ত্রকারীরা পরিকল্পিতভাবে এ ঘটনা ঘটিয়েছে। আর সেই ষড়যন্ত্র শুরু হয় তথাকথিত ১/১১ থেকে আর পূর্ণতা পায় ২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ সালের প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচনের মাধ্যমে।

তিনি বলেন, ৫৭ জন চৌকস সেনা কর্মকর্তাসহ ৭৪ জন দেশপ্রেমিকের শাহাদাতের রক্ত বৃথা যাবে না। তথাকথিত বিচারের নামে দেড়শ’র বেশি ব্যক্তিকে ফাঁসিতে দন্ডিত করা হয়েছে যা নজিরবিহীন। ৫০ জন বিডিয়ার জওয়ানকে কারা হেফাজতেই মেরে ফেলা হয়েছে। এসব ছলচাতুরি করে ইতিহাসের এই ভয়াবহতম জঘন্য ঘটনাকে আড়াল করা যাবে না।

ব্যারিস্টার আবু বকর মোল্লা বলেন, আমরা প্রতিশোধের রাজনীতিতে বিশ্বাসী নই। বিডিআর হত্যাকান্ডের যে তথ্য প্রমাণ আছে তা দিয়ে আবারো নতুন প্রকৃত খুনীদের বিচারের আওতায় আনা হবে। এই বর্বর হত্যাযজ্ঞের অবশ্যই বিচার আমরা করবো।

কেএম আবু তাহের বলেন, রাজনৈতিক কূটচালের অংশ হিসেবে পিলখানা হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটেছিল। বিদ্রোহে অংশ নেয়া কতিপয় জওয়ান শুধু বিদ্রোহী নয়, তারা আওয়ামী লীগের এজেন্ট হয়ে এই হত্যায় অংশ নেয়।

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অবঃ) এবি সিদ্দিক বলেন, কিছু প্রশ্নের জবাব-ই প্রমাণ করে দেয়, পিলখানা হত্যাকান্ডে কে বা কারা জড়িত। সেদিন প্রধানমন্ত্রী ডিএডি তৌহিদের সঙ্গে কেন দীর্ঘ বৈঠক করলেন? কেন তাকে শেরাটন থেকে খাবার এনে খাওয়ালেন? এসব প্রশ্নের জবাব খুঁজতে হবে। দোষীদের বিচারের আওতায় আনতে হবে।

তিনি বলেন, আক্রান্ত হওয়ার পর বিডিআর ডিজি শাকিল আহমদ ও কর্নেল গুলজার বিভিন্ন জনকে ফোন করে সাহায্য চেয়েছিলেন। এমনকি সেনা প্রধান এবং সরকার প্রধানের কাছেও তারা ফোন করেছিলেন। তাদের উদ্ধারের জন্য আকুতি জানিয়েছিলেন। কিন্তু কেন সময় ক্ষেপন করে নিহতের তালিকা দীর্ঘ করা হল এর রহস্য একদিন উদঘাটন করতে হবে। দীর্ঘ ৩৬ ঘন্টা আলোচনার নামে কালক্ষেপন করে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব রক্ষাকারী দেশ প্রেমিক সেনা কর্মকর্তাদের পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়।

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অবঃ) জহির উদ্দিন বলেন, বাংলাদেশের সেনা বাহিনী বহিঃশত্রুর হাত থেকে দেশকে রক্ষা করতে যেমন ভূমিকা রাখে, তেমনি দেশের ভেতরেও শান্তি প্রতিষ্ঠায় অগ্রণী ভূমিকায় ছিল। পিলখানা হত্যার মাধ্যমে এই দুই অবস্থান থেকেই সেনা বাহিনীকে পঙ্গু করে দেয়া হয়েছে। আমরা এই দিবসকে জাতীয় শোক দিবস পালন করতে পারি নাই অজ্ঞাত কারণে। ক্রিকেট খেলা দিয়ে বিডিআর হত্যা দিবসের দিনে সরকার চাইছে মুছে ফেলতে।

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অবঃ) সৈয়দ আবু বকর সিদ্দিক বলেন, পিলখানা হত্যাকান্ডের জন্য কেবল বাইরের ষড়যন্ত্রকে দায়ী করলে চলবে না। এই হত্যাকান্ডের জন্য দায়ী জেনেও কেনো তাদের বিরুদ্ধে তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়া হলো না - এ প্রশ্ন তোলেন সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা।

সাবেক সেনা কর্মকর্তা মেজর (অবঃ) শাহ আলম বলেন, সাধারণ ক্ষমা ঘোষণার পর সেনাবাহিনীর যেসব কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন, তার দায়ভার সরাসরি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিতে হবে। বিএনপি ক্ষমতায় গেলে এই হত্যাকান্ডের সুষ্ঠু তদন্ত করে প্রকৃত দোষীদের বিচারের মুখোমুখি করার আহ্বান জানান তিনি। তিনি বলেন, একজন সৈনিক কেবল ডালভাতের দাবি নিয়ে তার অফিসারকে হত্যা করতে পারে না। এর পেছনে রয়েছে সুদূরপ্রসারি  চক্রান্ত।

মেজর (অবঃ) আশফাক বলেন,  সেনাবাহিনীর পূর্ণ প্রস্তুতি থাকা সত্ত্বেও সেদিন পিলখানায় সেনাহিনী প্রবেশ করতে পারেনি। সেনাবাহিনী নিয়ন্ত্রণ নিলে এরকম ভয়াবহ ঘটনা ঘটতো না। কার ইশরায় কিসের ইঙ্গিতে সেনাবাহিনীকে সেদিন পিলখানায় ঢুকতে দেয়া হয়নি- তার জবাব একদিন বেরিয়ে আসবেই।

সভাপতির বক্তব্যে সিটিজেন মুভমেন্টের আহ্বায়ক এমএ মালেক বলেন, এই বর্বর হত্যাকান্ডের আসল খুনিদের বিচার করতে হবে।  শেখ হাসিনার একদলীয় সরকার প্রতিষ্ঠার পূর্বপরিকল্পনা হিসেবে পিলখানা হত্যাকান্ড ঘটানো হয়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব চিরতরে বিনষ্ট করতে পিলখানা হত্যাকান্ড ঘটানো হয়। বাংলাদেশের মানুষ আজ তা পুনরুদ্ধারের লড়াই করছে। আগামী দিনে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে অবশ্যই বিচার করা হবে।

মুফতি সদরুদ্দীন বলেন, আবেগ আর বক্তৃতা দিয়ে কাজ হবে না।  জনগণকে জেগে উঠতে হবে। বিএনপির সিনিয়ার ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নেতৃত্বে দেশ রক্ষার আন্দোলনে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানান তিনি।

সেনা হত্যাকান্ডের ওপর নির্মিত একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্যবহুল ভিডিও চিত্রে বিডিআর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদের ছেলে রাকিন আহমেদ বলেন, আমার বাবা-মা সহ দেশপ্রেমিক সেনা কর্মকর্তাদের হত্যার বিচার না হওয়া পর্যন্ত আমরা শান্তি পাব না। স্বাভাবিক জীবন ফিরে পাব না। আমরা সবাই জানি, কে বা কারা এই হত্যাকান্ডের পরিকল্পনাকারী এবং কারা জড়িত।

বিস্তারিত খবর

হলিউডের সিনেমায় শ্বেতাঙ্গদের আধিপত্য

 প্রকাশিত: ২০১৬-০২-২৪ ১৪:০৯:০৮

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এক গবেষণায় বলা হচ্ছে, হলিউডের চলচ্চিত্র জগতে সব জাতি-বর্ণ-লিঙ্গ বা যৌন অভিরুচির মানুষের প্রতিনিধিত্বের ক্ষেত্রে গভীর সমস্যা রয়েছে।


ওই জরিপে চার শতাধিক চলচ্চিত্র এবং টিভি সিরিজ বিশ্লেষণ করে গবেষকরা বলেছেন, এগুলোতে যত চরিত্র রয়েছে তার মাত্র এক তৃতীয়াংশ নারী। মাত্র ১৮ শতাংশ সংখ্যালঘু জাতিগোষ্ঠীর প্রতিনিধি।


সমকামী বা লেসবিয়ান বলে চিহ্নিত - এমন চরিত্র রয়েছে মাত্র ২ শতাংশ। অর্ধেকেরও বেশি সিনেমা বা টিভি সিরিজে কোন এশিয়ান চরিত্র নেই। এসব সিনেমার শতাধিক পরিচালকের মধ্যে মাত্র দু’জন কৃষ্ণাঙ্গ মহিলা।


সার্বিকভাবে হলিউডের সিনেমা জগতে এখনো শ্বেতাঙ্গদেরই আধিপত্য - বলছে জরিপটি।


এবছরের হলিউডের একাডেমি পুরস্কার বা ‘অস্কা’ দেবার অনুষ্ঠানের দু’দিন আগে ইউনিভার্সিটি অব সাদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার করা এ জরিপটি বের হলো।


ইতিমধ্যেই এবারে অস্কারকে কেন্দ্র করে হলিউড চলচ্চিত্রজগতের ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে। সমালোচকরা বলছেন, পুরস্কারের জন্য যেসব মনোনয়ন ঘোষণা করা হয়েছে তার মধ্যে বিভিন্ন জাতিগোষ্ঠীর যথাযথ প্রতিনিধিত্ব ঘটেনি।


এ নিয়ে পরিচালক স্পাইক লি-সহ কয়েকজন অনুষ্ঠান বয়কটের কথা ঘোষণা করেছেন।


এর পর অস্কার পুরস্কারের উদ্যোক্তারা অঙ্গীকার করেছেন যে ‘মোশন পিকচার একাডেমি’তে নারী ও সংখ্যালঘুদের প্রতিনিধির সংখ্যা দ্বিগুণ করা হবে।



বিস্তারিত খবর

লন্ডনে বড় ভাই হত্যার দায়ে ছোট ভাই দন্ডিত

 প্রকাশিত: ২০১৬-০২-২৪ ১৪:০৭:০৪

ইস্ট লন্ডনের বাঙালী অধ্যুষিত টাওয়ার হ্যামলেটসে বড় ভাইকে হত্যার দায়ে ছোট ভাইকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। স্টেপনি এলাকার ডাকেট স্ট্রীটের টাইমোর হাউসের বাসিন্দা ৩৬ বছর বয়সী রুহেল আহমেদ হত্যার দায়ে ছোট ভাই জুহেল আহমেদকে অন্তত ১২ বছর সাজা ভোগ করতে হবে বলে আদালত জানিয়েছে। জুহেলের বয়স ৩০ বছর। ওল্ডবেইলি আদালত এ রায় দিয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, বড় ভাই রুহেলকে হত্যা করে তার বেডরুমে ফেলে রাখেন ছোট ভাই জুহেল। প্রায় এক সপ্তাহ পরে বেডরুম থেকে রুহেলের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। গত বছর আগষ্টের শেষ সপ্তাহে অন্তত ২৮ আগষ্টের দিকে রুহেলকে হত্যা করা হয় বলে ধারণা করা হয়। এর প্রায় এক সপ্তাহ পরে ৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা ৭টা ১৫ মিনিটের দিকে পুলিশ এবং এম্বুলেন্স ডাকা হয়। পুলিশ ও এম্বুলেন্স গিয়ে বেডরুম থেকে রুহেলের মৃতদেহ উদ্ধার করে। ৫ সেপ্টেম্বর পপলার মার্চুয়ারীতে মরদেহের পোস্ট মর্টেম সম্পন্ন হয়। তাকে গলা টিপে হত্যা করা হয়েছে বলে পোস্ট মর্টেম রিপোর্টে উল্লেখ করা হয়। রুহেল হত্যা সঙ্গে তার ভাই জুহেল সম্পৃক্ত থাকতে পারে বলে তাদের পরিবারের সদস্যরাও সন্দেহ করেছিলেন বলে পুলিশ জানিয়েছে।

আদালতের শুনানিতে বলা হয়েছে, জুহেল ও রুহেলের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া হতো। এমনকি যে সপ্তাহে রুহেলকে হত্যা করা হয় সেই সপ্তাহে জুহেল হাতে আহতের চিহ্ন নিয়ে হাসপাতালে গিয়েছিলেন বলেও পুলিশ প্রমাণ পায়। রুহেলের মরদেহ উদ্ধারের সঙ্গে সঙ্গে জুহেলকে জিজ্ঞাসাবাদের পর ৭ সেপ্টেম্বর তাকে রুহেল হত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত করে পুলিশ।

দীর্ঘ শুনানি শেষে শুক্রবার ওল্ডবেইলি আদালতে বড় ভাই রুহেল হত্যার দায়ে ছোট ভাই জুহেলকে যাবজ্জীজবন দ- প্রদান করেন বিচারক। জুহেলকে অন্তত ১২ বছর জেলদন্ড ভোগ করতে হবে।

বিস্তারিত খবর

বছরের সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্রিটিশ বাংলাদেশি নাদিয়া

 প্রকাশিত: ২০১৬-০২-০৯ ১১:১০:০৯

বিলেতি রীতির বিয়ের কেক বানিয়ে ‘গ্রেট ব্রিটিশ বেক অফ’ প্রতিযোগিতার শিরোপাজয়ী নাদিয়া হোসেইনের মাথায় উঠল আরেকটি মুকুট। বছরের সবচেয়ে প্রভাবশালী ব্রিটিশ বাংলাদেশির পদক জিতেছেন তিনি।

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি কমিউনিটির সাফল্য উদ্যাপনে গত মঙ্গলবার পঞ্চমবারের মতো ব্রিটিশ বাংলাদেশি পাওয়ার অ্যান্ড ইনস্পিরেশন (বিবিপিআই) তালিকা প্রকাশ করা হয়। প্রভাবশালী ১০০ জনের এই তালিকায় সবার ওপরে ছিলেন নাদিয়া।

লন্ডন সিটি হলে জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানে এই তালিকা প্রকাশ করা হয়। বাংলাদেশি কমিউনিটির শীর্ষস্থানীয় উদ্যোক্তা, সমাজকর্মী, রাজনীতিক, শিল্পী-সাহিত্যিক ও সাংবাদিকসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে খ্যাতনামা ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

ব্রিটিশ পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ হাউস অব লর্ডসের সদস্য করণ বিলিমোরিয়া, এমপি এ্যানে মেইন, পল স্কালি, স্যার কিয়ের স্ট্যারমার, কারেন বাক, রোনি ক্যাম্পবেল, গ্রেটার লন্ডন অ্যাসেম্বলির (জিএলএ) সদস্য মুরাদ কোরেশি, চ্যারিটি সংস্থা হিউম্যান আপিলের প্রধান নির্বাহী ওথমান মকবেল, যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার আব্দুল হান্নানও অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

যুক্তরাজ্যে নিজ নিজ ক্ষেত্রে সফল এবং মূলধারায় সাফল্য অর্জন করেছেন এমন ব্রিটিশ বাংলাদেশিদের কাজের স্বীকৃতি দিতেই প্রতিবছর এই তালিকা প্রকাশ করে বিবিপাওয়ার। এ বছর ফ্রেন্ডস অব বিবিপিআই সম্মানে ভূষিত করা হয় সাটন অ্যান্ড চিম এর কনজারভেটিভ এমপি পল স্কালি ও ওয়েস্টমিনস্টার নর্থের লেবার দলীয় এমপি কারেন বাককে। তাঁদের হাতে পদক তুলে দেন বিবিপিআইয়ের বিচারক প্যানেলের সদস্য সৈয়দ নাহাস পাশা ও যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশের হাইকমিশনার আব্দুল হান্নান।

এবারই প্রথম বিবিপিআই ম্যাগাজিন প্রকাশ করা হয়েছে। তালিকায় থাকা প্রভাবশালী ব্রিটিশ-বাংলাদেশিদের পরিচিতি ও তাদের কাজের সংক্ষিপ্ত বিবরণ রয়েছে এতে।

তালিকায় শীর্ষে থাকা নাদিয়ার জন্ম ব্রিটেনেই। সিলেটের বিয়ানীবাজারের মোহাম্মদপুর গ্রামের জমির আলী ও আসমা বেগমের চার মেয়ে ও দুই ছেলের মধ্যে তৃতীয় তিনি। লন্ডন থেকে ৪০ মাইল দূরে লুটন শহরে শৈশব কাটলেও স্বামী আবদাল হোসেইন আর সন্তানদের নিয়ে এখন থাকেন উত্তর ইংল্যান্ডের লিডসে।

গত বছর ‘গ্রেট ব্রিটিশ বেক অফ’ প্রতিযোগিতায় তাঁর কৃতিত্বের প্রশংসা ঝরেছিল ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরনের মুখেও। অনুষ্ঠানে ‘ব্রিটিশ বাংলাদেশি পাওয়ার অ্যান্ড ইনস্পিরেশন ফাউন্ডেশন’ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন বিবিপিআইয়ের প্রতিষ্ঠাতা আব্দাল উল্লাহ।

বিস্তারিত খবর

নিজামীর ফাসি বহালের প্রতিবাদে লন্ডনে বিক্ষোভ

 প্রকাশিত: ২০১৬-০১-০৭ ২০:৪৩:২৭

মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে জামায়াতের আমির
মতিউর রহমান নিজামীর ফাসির রায় আপিলে
বহাল রাখার প্রতিবাদে লন্ডনে বিক্ষোভ
অনুষ্ঠিত হয়েছে।
যুক্তরাজ্যভিত্তিক ‘সেভ বাংলাদেশ ইউকে’
নামে একটি সংগঠনের উদ্যোগে লন্ডনের
আলতাব আলী পার্কে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত
হয়।
সংগঠনের চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার নজরুল
ইসলামের সভাপতিত্বে ও ব্যারিস্টার বদরে
আলম দিদারের পরিচালনায় সমাবেশে বক্তব্য
রাখেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের
সভাপতি মুফতী শাহ ছদর উদ্দিন, বাংলাদেশ
সলিডারিটি ফোরাম প্রেসিডেন্ট নূর বক্স,
কমিউনিটি লিডার ব্যারিস্টার সরোয়ার
কামাল, আলাউদ্দিন, জোবাইর আহমেদ
,মুজ্জাম্মেল হক, আবুল হাসনাত, মাওলানা
শামিম আহমেদ, জামাল উদ্দিন ও আব্দুল
আউয়াল তারেক প্রমুখ।
সভাপতির বক্তব্যে ব্যারিস্টার নজরুল ইসলাম
বলেন, নির্ধারিত ছকে রাজনৈতিক
প্রতিহিংসামূলক মামলায় প্রহসনের রায়
দিয়ে ছিল প্রশ্নবিদ্ধ ট্রাইবুনাল।
রাজনৈতিক এই রায় ন্যায় বিচারের
ইতিহাসকে করেছিল কলঙ্কিত। জনগণ আশা
করেছিল সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ
থেকে ন্যায় বিচার পাওয়া যাবে। কিন্তু
দুঃখের বিষয় এখানেও জাতিকে অবিচারের
নমুনা দেখতে হলো। কোন ন্যায় ও নিরপেক্ষ
অবস্থান থেকে নয় বরং এ রায় জামায়াতকে
নেতৃত্ব শূন্য করার ষড়যন্ত্রেরই অংশ। যা
ট্রাইবুানাল ও সরকারের রাজনৈতিক
বক্তব্যে, সাক্ষী নান্নু মিয়ার
স্বীকারোক্তির ভিডিও, মন্ত্রীদের অগ্রীম
রায় ঘোষণা, মাওলানা নিজামীর পক্ষে
মুক্তিযোদ্ধাদের সাক্ষী প্রদান ও রাষ্ট্র
পক্ষের সাক্ষীদের অসঙ্গতির মাধ্যমে
প্রমাণিত হয়েছে। সরকার রাজনৈতিক
প্রতিহিংসা চরিতার্থ করতেই একের পর এক
জাতীয় নেতাদের হত্যার ষড়যন্ত্রে মেতে
উঠেছে। সে ষড়যন্ত্রের ধারাবাহিকতায়
আমীরে জামাত মাওলানা মতিউর রহমান
নিজামীর হত্যা করার ষড়যন্ত্র চলছে। কিন্তু
জনগণ সরকারের সে ষড়যন্ত্র মেনে নেবে না।
তিনি বলেন হত্যা ও ষড়যন্ত্র বন্ধ করে
অবিলম্বে মাওলানা মতিউর রহমান
নিজামীকে মুক্তি দিতে হবে। অন্যথায়
সরকারকে একদিন ইতিহাসের কাঠগড়ায়
দাঁড়াতে হবে।

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত