যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ২০ মে, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 05:36am

|   লন্ডন - 12:36am

|   নিউইয়র্ক - 07:36pm

  সর্বশেষ :

  নারী সহকর্মীদের ধর্ষণ করতে তালিকা তৈরি যুক্তরাষ্ট্র নৌবাহিনীর নাবিকদের   ভাড়া করা নেতৃত্বে চলছে বিএনপি : হাছান মাহমুদ   খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছি : খন্দকার মাহবুব   কৃষক বাঁচাতে চাল আমদানি বন্ধ করতে সংসদীয় কমিটির সুপারিশ   রোজা রেখে দায়িত্ব পালনের সময় ঢাকায় ট্র্যাফিক কনস্টেবলের মৃত্যু   হামলার জেরে ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মী বহিষ্কার   পাকিস্তানিদের ভিসা দেয়া বন্ধ করেছে বাংলাদেশ   সততার বিরল দৃষ্টান্ত: সেতুর কাজ শেষ করেও ৭০০ কোটি টাকা ফেরত দিলো কোম্পানি   হন্ডুরাসে ব্যক্তিগত বিমান বিধ্বস্তে নিহত পাঁচ   মন্ত্রিসভায় দপ্তর পুনর্বণ্টন   যুক্তরাষ্ট্র-ইরান যুদ্ধাতঙ্ক, জরুরি বৈঠক ডেকেছেন সৌদি বাদশাহ   রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে হরিলুট: তদন্ত কমিটি গঠন   ইউরোপেও যাচ্ছে সাতক্ষীরার আম   ২৫ টাকার ইনজেকশন ১৫০০ টাকায় বিক্রি   চলমান মামলা নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা যাবে : আইনমন্ত্রী

>>  স্বদেশ এর সকল সংবাদ

ভাড়া করা নেতৃত্বে চলছে বিএনপি : হাছান মাহমুদ

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি ভাড়া করা নেতৃত্ব চলছে।

কর্নেল অলি বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলের দায়িত্ব নিতে চান গণমাধ্যমে প্রকাশিত এমন সংবাদের বিষয়ে সচিবালয়ে নিজ দফতরে সংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি ইতোপূর্বেও ধার করা নেতা দিয়ে চলেছে। ঐক্যফ্রন্ট গঠন করে প্রকৃতপক্ষে বিএনপি জোটের নেতৃত্ব ড. কামাল হোসেন সাহেবদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছিল। সেটি এখনো বহাল আছে। বিএনপি এখন নতুন করে আবার নেতৃত্ব ভাড়া করবে কিনা সেটি বিএনপিকেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে।’

তিনি বলেন, বিএনপি ইতোপূর্বেও নেতা ভাড়া করেছে। কারণ ড. কামাল হোসেনের নেতৃত্বে যে

বিস্তারিত খবর

খালেদা জিয়ার মুক্তি আন্দোলনে ব্যর্থ হয়েছি : খন্দকার মাহবুব

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২০ ১৭:২৬:১৭

সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি ও বিএনপির ভাইচ চেয়ারম্যান প্রবীণ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বেগম খালেদা জিয়াকে জেলে আটকে রাখা হয়েছে। আইনী সাধারণ প্রক্রিয়ায় তাকে বের করা সম্ভব না, যদি না সরকারের স্বদিচ্ছা থাকে। কিন্তু সেটাও সম্ভব নয়। তাই বিএনপির যে জনপ্রিয়তা আছে ও সমর্থন রয়েছে। বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়ার যে জনপ্রিয়তা রয়েছে, সেইভাবে আমরা তার মুক্তির জন্য আন্দোলন করতে ব্যর্থ হয়েছি। সে কথা স্বীকার করতে হবে।
সোমবার সন্ধ্যায় রাজধানীর একটি হোটেলে গণতন্ত্র ও খালেদা জিয়ার মুক্তি আইনজীবী আন্দোলন আয়োজিত আলোচনা, দোয়া ও ইফতার মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।
খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেন, আমি আশা করব রাজনৈতিক নেতাদের দিকে তাকিয়ে না থেকে বুদ্ধিজীবী সমাজ, পেশাজীবী সমাজ ও আইনজীবী সমাজকে এগিয়ে আসতে হবে। এবং তাদের নেতৃত্বে গণতন্ত্রের মুক্তির জন্য আমাদের আন্দোলন করতে হবে। গণতন্ত্রের যদি মুক্তি হয়, বেগম খালেদা জিয়ারও মুক্তি হবে। তাই আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের এই ক্রান্তিলগ্নে জাতিকে স্বৈরাচারীর শাসনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য এবং তাদের ভোটের অধিকার কায়েম করার জন্য ঐক্যবদ্ধভাবে রাজপথে আন্দোলন গড়ে তুলি।
খন্দকার মাহবুব হোসেন আরো বলেন, এখন সময় এসেছে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করতে হবে। তার জীবন রক্ষার জন্য তাকে মুক্ত করতে হবে। আইনজীবীদের নেতৃত্বে ঐক্যবন্ধভাবে রাজপথে নামতে হবে। ঐক্যবন্ধ হতে পারলে ইনশাল্লাহ খালেদা জিয়া মুক্তি পাবেন।
সংগঠনের সভাপতি আইনজীবী তৈমূর আলম খন্দকারের সভাপতিত্বে এতে বক্তব্য রাখেন বিকল্প ধারার মহাসচিব শাহ আহমেদ বাদল, সাবেক জেলা জজ শামসুল আলম, শওকতুল হক, মিজানুর রহমান, ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল, মাসুদ রানা প্রমুখ। এতে আরো অংশ নেন সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক সম্পাদক গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, আবেদ রাজা, খোরশেদ মিয়া আলম, সংগঠনের মহাসচিব এ বি এম রফিকুল হক তালুকদার রাজা, মো: শহীদুল ইসলাম, ফিরোজ শাহ, সুপ্রিম কোর্ট বারের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক কাজী জয়নাল আবেদীন, আইয়ুব আলী আশ্রাফী, আনিছুর রহমান খান, আশরাফুজ্জামান খান, ওয়াসেলউদ্দিন বাবু, মোস্তফা কামাল, আফজাল হোসেন, শাফিউর রহমান শাফি, শামসুল ইসলাম মুকুল, সরওয়ার কাওসার রাহাত, আবদুল হামিদ ভাষানী, অহিদুজ্জামান টিপু, বিএম সুলতান, নাছিরউদ্দিন সম্রাট,আবু হানিফ, মো: মুজিবুর রহমান, আনজুমান আরা মুন্নী, শামীমা আক্তার বানু, রাশেদা আলীম ঐশী, মতিন মন্ডল, মনির হোসেন, নাজমুল হাসান প্রমুখ।

বিস্তারিত খবর

কৃষক বাঁচাতে চাল আমদানি বন্ধ করতে সংসদীয় কমিটির সুপারিশ

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২০ ১৭:২৫:১০

কৃষকের স্বার্থ সংরক্ষণে সরাসরি তাদের কাছ থেকে ধান ক্রয় ও চাল আমদানি বন্ধের সুপারিশ করেছে খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।

কমিটির সভাপতি মোহাম্মদ নাসিমের সভাপতিত্বে আজ সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত এই কমিটির সভায় স্বচ্ছতার সঙ্গে ধান সংরক্ষণ করার সুপারিশও করা হয়।

কমিটির সদস্য খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, ধীরেন্দ্র দেবনাথ শমভু, মো. আয়েন উদ্দিন এবং আতাউর রহমান খান অংশগ্রহণ করেন।

সভায় খাদ্যে ভেজাল প্রতিরোধে ভেজাল বিরোধী অভিযান সারা বছর অব্যাহত রাখার পরামর্শ দেওয়া হয়েছ। সেই সঙ্গে নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম শক্তিশালীকরণে লোকবল বৃদ্ধি এবং প্রতিটি জেলায় এর কার্যক্রম সম্প্রসারণের সুপারিশ করা হয় ।

খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ মন্ত্রণালয় এবং সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

বিস্তারিত খবর

রোজা রেখে দায়িত্ব পালনের সময় ঢাকায় ট্র্যাফিক কনস্টেবলের মৃত্যু

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২০ ১৭:২৩:২০

ঢাকার বিজয় সরণিতে রোজা রেখে  দায়িত্ব পালনের সময় ট্র্যাফিক কনস্টেবল আজিজুল ইসলাম (৫২) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন। (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)।

তার বাড়ি দিনাজপুর জেলার নবাবগঞ্জ থানার নন্দনপুরে। তিনি ওই গ্রামের মৃত ওসিম উদ্দিনের ছেলে। তার স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। তিনি পরিবারসহ নগরীর যাত্রাবাড়ীর শনিআখড়ায় থাকতেন।

সোমবার দুপুরের ডিউটিতে আসেন আজিজুল ইসলাম। প্রচণ্ড গরমে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে স্থানীয় হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বড় ছেলে মেহেদি আযম সাংবাদিকদের জানান, আমার ছোটবোনের এইচএসসির প্রাকটিক্যাল পরীক্ষা মঙ্গলবার। ছোট ভাইটি সপ্তম শ্রেণিতে পড়ে। এখন আমি কী করব বুঝতে পারছি না।

পুলিশের ট্র্যাফিক পশ্চিম বিভাগের শেরেবাংলা নগর জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার মনতোষ বিশ্বাস বলেন, আজিজুল ইসলাম বিজয় সরণিতে দুপুরে ডিউটিতে আসেন। দুপুর সাড়ে ৩ টায় হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে তাৎক্ষণিক সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালে জরুরি বিভাগে নিয়ে যায়। সেখানকার কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

বিস্তারিত খবর

হামলার জেরে ছাত্রলীগের ৫ নেতাকর্মী বহিষ্কার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২০ ১৭:২১:০৫

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পূর্নাঙ্গ কমিটি গঠনের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে ছাত্রলীগের পদবঞ্চিতদের ওপর হামলা ও মারধরের ঘটনায় ছাত্রলীগের পাঁচ নেতাকর্মীকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

গত ১৩ মে সোমবার ইফতার পরবর্তী সময়ে সংগঠিত অনাকাঙ্খিত এবং অপ্রীতিকর ঘটনা তদন্ত করে ১৩ মে গঠিত ৩ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির রিপোর্ট পর্যালোচনা করে চারজনকে সাময়িক ও একজনকে স্থায়ী বহিস্কার করা হয়েছে।

সোমবার (২০ মে) সংগঠনের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এদের মধ্যে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে জিয়া হল ছাত্রলীগের কর্মী সালমান সাদিককে।

সাময়িক বহিষ্কৃতরা হলেন- বিজ্ঞান অনুষদ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গাজী মুরসালিন অনু, জিয়া হল ছাত্রলীগের কর্মী সাজ্জাদুল কবির, কাজী সিয়াম ও সাবেক কেন্দ্রীয় সদস্য জারিন দিয়া।

বিস্তারিত খবর

সততার বিরল দৃষ্টান্ত: সেতুর কাজ শেষ করেও ৭০০ কোটি টাকা ফেরত দিলো কোম্পানি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২০ ১৬:৫২:২৮

বাংলাদেশ ঢাকা–চট্টগ্রাম রুটে তিনটি সেতু তৈরির সিদ্ধান্ত নেয়। সেতু তিনটি হল কাঁচপুর, গোমতী ও মেঘনা ২য় সেতু।

শুধু সেতু নয় তার সংগে আরো আনুষঙ্গিক কাজ। কাঁচপুর সেতু ৪০০ মিটার সংগে ৭০০ মিটার দীর্ঘ ৮ লেন বিশিষ্ট এপ্রোচ সড়ক। মেঘনা সেতু ৯৩০ মিটার সংগে ৮৭০ মিটার দীর্ঘ ৬ লেন বিশিষ্ট এপ্রোচ সড়ক। গোমতী সেতু ১৪১০ মিটার সংগে ১০১০ মিটার দীর্ঘ ৬ লেন বিশিষ্ট এপ্রোচ সড়ক। সমস্ত কাজগুলির ব্যায় অনুমোদন হয় ৮৪৮৬ কোটি টাকা। এই বছরের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করতে হবে।
নির্মাণ কাজ পেয়েছিল জাপানের তিনটি প্রতিষ্ঠান যথাক্রমে ওবায়শি করপোরেশন, সিমিজু করপোরেশন এবং জে এফ ই ইঞ্জিনিয়ারিং করপোরেশন। বিশ্বাস করতেও অবাক লাগে কাঁচপুর সেতু নির্ধারিত সময়ের নয় মাস আগে আর মেঘনা ও গোমতী সেতু সহ আনুষঙ্গিক সব নির্মাণ কাজ সাত মাস আগে শেষ করেছে। সবচাইতে অবাক ঘটনা এই প্রথম বাংলাদেশ সরকার ফেরত পেল ৭০০ কোটি টাকা। অর্থাৎ ৮৪৮৬ কোটি টাকা লাগেনি। টাকা খরচ হয়েছে ৭৭৮৬ কোটি টাকা। জাপানি তিন কোম্পানি শুধু কাজই বুঝিয়ে দিল না সঙ্গে ৭০০ কোটি টাকা ফেরত দিয়ে দিল। এই হল ওদের সততা।

জাপানি তিন কোম্পানির সংগে চুক্তি হয় ২০১৫ সালের ২৫শে নভেম্বর। কাজ শেষ হবে ২০১৯ সালের ৩১শে ডিসেম্বর। ২০২০ সালের জানুয়ারি মাস থেকে গাড়ি চলবে। কাঁচপুর চালু হয়েছে মার্চ মাস থেকে আর মেঘনা গোমতী চালু হবে ২৫শে মে থেকে।

নির্ধারিত সময়ের আগেই বাংলাদেশের তিন সেতুর নির্মাণ কাজ শেষ হতে যাচ্ছে। যেটা সর্বশেষ হয়েছিলো ১৯৯৫ সালে। এর পরে বাংলাদেশে আর কোনো নির্মাণ কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে শেষ করতে পারেনি কেউ। ২০১৯ সালে এসে নির্ধারিত সময়ের এক মাস আগেই শেষ হচ্ছে কাঁচপুর, মেঘনা ও গোমতী দ্বিতীয় সেতুর নির্মাণ কাজ।

শুধু তাই নয়, এই তিনটি সেতু নির্মাণের জন্য যে টাকা বরাদ্দ ছিল, সেই অর্থের চেয়েও কম খরচে নির্মাণ কাজ শেষ করেছে নির্মাণকারী জাপানি প্রতিষ্ঠানগুলো। তবে প্রকল্পের পুরো কাজ এখনই শেষ হচ্ছে না।

শুধু সেতুই নয়, তার সঙ্গে নেয়া হয় আরো আনুষঙ্গিক প্রকল্প। কাঁচপুর সেতু ৪০০ মিটার, এর সঙ্গে ৭০০ মিটার দীর্ঘ ৮ লেন বিশিষ্ট এপ্রোচ সড়ক। মেঘনা সেতু ৯৩০ মিটার, সঙ্গে ৮৭০ মিটার দীর্ঘ ৬ লেন বিশিষ্ট এপ্রোচ সড়ক। গোমতী সেতু ১৪১০ মিটার, সঙ্গে ১০১০ মিটার দীর্ঘ ৬ লেন বিশিষ্ট এপ্রোচ সড়ক।

সমস্ত কাজগুলির ব্যয় অনুমোদন হয় ৮,৪৮৬ কোটি টাকা। এ বছরের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে কাজ শেষ করার শর্তে নির্মাণ কাজ পেয়েছিল জাপানের তিনটি প্রতিষ্ঠান যথাক্রমে ওবায়শি করপোরেশন, সিমিজু করপোরেশন এবং জে এফ ই ইঞ্জিনিয়ারিং করপোরেশন।

বিশ্বাস করতেও অবাক লাগে, কাঁচপুর সেতু নির্ধারিত সময়ের নয় মাস আগে, আর মেঘনা ও গোমতী সেতুসহ আনুষঙ্গিক সব নির্মাণ কাজ সাত মাস আগে শেষ করেছে।

সবচাইতে অবাক ঘটনা এই প্রথম বাংলাদেশ সরকার ফেরত পেয়েছে ৭০০ কোটি টাকা। অর্থাৎ ৮৪৮৬ কোটি টাকা লাগেনি। টাকা খরচ হয়েছে ৭৭৮৬ কোটি টাকা।

জাপানি তিন কোম্পানি শুধু কাজই বুঝিয়ে দিল না সঙ্গে ৭০০ কোটি টাকা ফেরত দিয়ে দিল। এই হল ওদের সততা।

জাপানি তিন কোম্পানির সঙ্গে চুক্তি হয় ২০১৫ সালের ২৫ নভেম্বর। কাজ শেষ হবে ২০১৯ সালের ৩১ ডিসেম্বর।

২০২০ সালের জানুয়ারি মাস থেকে গাড়ি চলবে। কাঁচপুর চালু হয়েছে মার্চ মাস থেকে আর মেঘনা-গোমতী সেতু চালু হবে ২৫ মে থেকে।

বিস্তারিত খবর

মন্ত্রিসভায় দপ্তর পুনর্বণ্টন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৯ ১৬:৪২:৩৩

সরকার গঠনের তিন মাসের মধ্যেই বড় পুনর্বিন্যাস করা হলো মন্ত্রিসভায়। রোববার মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে এ বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। এতে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানকে তথ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছে।

একই সঙ্গে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তফা জব্বারকে শুধুমাত্র ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের জন্য জুনাইদ আহমেদ পলককে প্রতিমন্ত্রী হিসেবেই পূর্ণ দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী তাজুল ইসলামকে শুধু স্থানীয় সরকারের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী স্বপন ভট্টাচার্য্যকে শুধু পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় বিভাগের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে গতি আনার জন্য এই বিভাজন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

এ বছরের ৭ জানুয়ারি গঠিত হয় বর্তমান মন্ত্রিসভা। তখন এর সদস্য সংখ্যা ছিল ৪৭ জন। এর মধ্যে ২৫ জন পূর্ণমন্ত্রী (প্রধানমন্ত্রীসহ), ১৯ জন প্রতিমন্ত্রী এবং তিনজন উপমন্ত্রী।

বিস্তারিত খবর

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রে হরিলুট: তদন্ত কমিটি গঠন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৯ ১৬:৩৯:২৭

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কেনাকাটা নিয়ে অবশেষে গৃহায়ণ ও গণপুূর্ত টনক নড়েছে। এই প্রকল্পে কেনা-কাটায় যে হরিলুট চলছে তা গত কয়েকদিন থেকে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে বেশ আলোড়ন সৃষ্টি করছিল। এখানকার সাধারণ কেনা-কাটায় এতো বেশি দুর্নীতি চলছিল যে কেনাকাটার তালিকাটির প্রতি কারো নজর পড়লেই সবাই বিস্ময়ে হতবাক হয়ে যাচ্ছেন।

এই প্রকল্পে একটি বালিশ কিনতে লেগেছে ৫ হাজার ৯৫৭ টাকা। আর এই বালিশ ভবনের উপরে উঠতে বিল করা হয়েছে ৭৬০ টাকা প্রতিটি। একেকটি বিছানা কেনা হয়েছে ৫ হাজার ৯৮৬ টাকা আর বিছানা উপরে উঠাতে খরচ দেখানো হয়েছে ৯৩১ টাকা।

এছাড়াও ওয়্যারড্রোব কেনা হয়েছে ৫৯ হাজার ৮৫৮ টাকা দিয়ে এবং এগুলোকে উপরে উঠাতে প্রতিটির খরচ দেখানো হয়েছে ১৭ হাজার ৪৯৯ টাকা। একেকটি ফ্রিজার কেনা হয়েছে ৯৪ হাজার ২৫০ টাকায় এবং প্রতিটি ফ্রিজার উপরে উঠাতে খরচ দেখানো হয়েছে ১২ হাজার ৫২১ টাকা।

এই প্রকল্পে একেকটি টেলিভিশন কেনায় খরচ দেখানো হয়েছে ৮৬ হাজার ৯৭০ টাকা এবং প্রতিটি টেলিভিশন উপরে উঠাতে বিল করা হয়েছে সাত হাজার ৬৩৮ টাকা। খাট কেনা হয়েছে ৪৩ হাজার ৩৫৭ টাকায় এবং প্রতিটি খাট উপরে উঠাতে খরচ দেখানো হয়েছে ১০ হাজার ৭৭৩ টাকা। একটি ইলেকট্রিক আয়রন (ইস্ত্রি) কেনা হয়েছে চার হাজার ১৫৪ টাকায় এবং এগুলো ভবনের উপরের তলায় তুলে দিতে প্রতিটির জন্য খরচ দেখানো হয়েছে দুই হাজার ৯৪৫ টাকা।

বৈদ্যুতিক কেটলি কেনা হয়েছে প্রতিটি ৫ হাজার ৩১৩ টাকা এবং প্রতিটি উপরের তলায় তুলে দিতে খরচ দেখানো হয়েছে ২ হাজার ৯৪৫ টাকা। বৈদ্যুতিক চুলা কেনা হয়েছে প্রতিটি ৭ হাজার ৭৪৭ টাকায় এবং উপরে তুলে দেয়ার খরচ দেখানো হয়েছে প্রতিটির জন্য ৬ হাজার ৬৫০ টাকা। রুম ক্লিনার মেশিন কেনা হয়েছে ১২ হাজার ১৮ টাকায় প্রতিটি এবং একেকটি উপরে তুলে দিতে খরচ দেখানো হয়েছে ৬ হাজার ৬৫০ টাকা।

মাইক্রোওয়েভ ওভেন কিনতে প্রতিটির জন্য খরচ দেখানো হয়েছে ৩৮ হাজার ২৭৪ টাকা এবং প্রতিটি ওভেন উপরে তুলে দিতে খরচ দেখানো হয়েছে ৬ হাজার ৮৪০ টাকা। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উপরে উল্লেখিত সামগ্রীগুলোর দাম ও এসব ভবনের উপরে তুলে দিতে খরচ দেখানো হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে রোববার গৃহায়ণ ও গণপুর্ত মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ব্যাখ্যা দেয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো: ইফতেখার হোসেন স্বাক্ষরিত ব্যাখ্যায় বলা হয়েছে, ‘রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের আওতায় ডেলিগেটেড ওয়ার্ক হিসেবে গণপূর্ত অধিদফতর কর্তৃক নির্মাণাধীন ৬টি ভবনে আসবাবপত্রসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজের জন্য দাফতরিক প্রাক্কলন প্রণয়নপূর্বক ৬টি প্যাকেজে ই-জিপি দরপত্র আহবান করা হয়।

প্যাকেজসমূহের প্রতিটির ক্রয়মূল্য ৩০ কোটি টাকার নিম্নে প্রাক্কলন করায় গণপূর্ত অধিদফতর কর্তৃক অনুমোদন ও ঠিকাদার নিয়োগ করা হয়। এ ক্ষেত্রে দাফতরিক প্রাক্কলণ প্রণয়ন, অনুমোদন ও ঠিকাদার নিয়োগে মন্ত্রণালয়ের কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

এ বিষয়ে প্রকাশিত প্রতিবেদন মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। এ প্রেক্ষিতে গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় থেকে একজন অতিরিক্ত সচিব এবং গণপূর্ত অধিদফতর থেকে একজন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর নেতৃত্বে পৃথক দুইটি কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন না পাওয়া পর্যন্ত ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের সকল প্রকার পেমেন্ট (বিল) বন্ধ রাখার জন্য নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

আলোচ্য কাজের বিপরীতে এখনো ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধ করা হয়নি। তদন্ত প্রতিবেদনের সুপারিশের আলোকে বাজার মূল্যের সাথে সামঞ্জস্য রেখে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে বিল পরিশোধের বিষয়টি নিশ্চিত করা হবে।’

বিস্তারিত খবর

ইউরোপেও যাচ্ছে সাতক্ষীরার আম

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৯ ১৬:৩৭:৩৬

দেশের বাজারে আগেই থেকেই রয়েছে সাতক্ষীরার আমের সুনাম। এখন সেই সুনাম ও চাহিদা দেশের গন্ডি ছাড়িয়ে ছড়িয়ে পড়েছে ইউরোপেও।

এবার জেলা থেকে হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি আম ইউরোপে রফতানির জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে দুই শ’ টন। এ কারণে জেলার ১৪ হাজার ৪৫১টি হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি গাছ বিশেষভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে।
তবে এ আম পেতে এখনো ১৫ দিন সময় লাগবে।গত কয়েক বছরের মত এবারও সাতক্ষীরার হিমসাগর আম ইউরোপ ও আমেরিকার বাজারে রফতানি হবে।
তীব্র গরমে এ বছর জেলায় আম আগে থেকেই পরিপক্ব হয়েছে। চলতি মাসের শুরুতেই ব্যবসায়ীরা স্থানীয় জাতের আম ভাঙতে শুরু করেছেন।

১২ মে সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসনের সিদ্ধান্তেরপর গোবিন্দভোগ ও গোপালভোগ আম ব্যাপকভাবে বাজারজাত শুরু হয়। জেলা শহরের বড়বাজার, তালা, পাটকেলঘাটা, নলতা, পারুলিয়া, কালিগঞ্জ ও কলারোয়াসহ গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারগুলো আমে ভরে গেছে।
পৌর শহরের বড় বাজারের আম ব্যবসায়ী ইসহাক বলেন, রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের পাইকারি ব্যবসায়ীরা জেলার বিভিন্ন হাটবাজারে অবস্থান করছেন। এখান থেকে প্রতিদিন প্রায় পাঁচশতাধিক টন আম দেশের বিভিন্ন জেলায় যাচ্ছে।
তিনি বলেন, ‘দুইসপ্তাহ পর হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি ভাঙা শুরু হলে আমের বাজার এখনকার থেকে দ্বিগুণ হবে।’

তিনি জানান, বর্তমানে দেশি আম প্রতি কেজি ৩০ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া হিমসাগর প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়। তবে হিমসাগর এখনো ভাঙা শুরু হয়নি। যাদের কিছু আম পেকেছে শুধু তারাই বাজারজাত করছেন।
তালা উপজেলা সদরের শিবপুর গ্রামের রাবেয়া বসরী বৈশাখী বলেন, ফলন ভালো হলেও তীব্র গরমের কারণে অন্যবছরের তুলনায় এবার আম আগেই পেকেছে। গত বছর থেকে এ বছর আমের ফলনও বেশি হয়েছে।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক অরবিন্দ বিশ্বাস বলেন, ‘জেলায় এবার আমের ফলন ভালো হয়েছে। ইতিমধ্যে আম বাজারজাত শুরু হয়েছে। এবার এখান থেকে হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি আম ইউরোপে রপ্তানির জন্য লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ২শ টন। এ কারণে জেলার ১৪ হাজার ৪৫১টি হিমসাগর, ল্যাংড়া ও আম্রপালি গাছ বিশেষভাবে প্রস্তুত করা হয়েছে।’
তিনি জানান, এছাড়া অপরিপক্ব আম ভাঙা থেকে বিরত থাকতে ব্যবসায়ীদের বিশেষভাবে বলা হয়েছে। তাছাড়া আমে কোনো প্রকার কেমিক্যাল না মিশানোর ব্যাপারেও সতর্ক করা হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

২৫ টাকার ইনজেকশন ১৫০০ টাকায় বিক্রি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৯ ১৬:৩৬:৪১

ঝিনাইদহ সদর হাসপাতাল এলাকায় ২৫ টাকার ইফিডিন ইনজেকশন ৩০০ টাকা থেকে ১ হাজার ৫০০ টাকা বিক্রির দায়ে তিন ফার্মেসিকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমাণ আদালত।

রোববার দুপুরে ঝিনাইদহ জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আবু সালেহ মোহাম্মদ হাসনাতের নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত এই জরিমানা আদায় করেন। এ সময় ঝিনাইদহ র‌্যাবের কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম উপস্থিত ছিলেন।

অভিযোগ রয়েছে ২৫ টাকার ইফিডিন ইনজেকশন হাসপাতাল গেটে অবস্থিত মাতৃছায়া, সিদ্দিক ও পান্না ফার্মেসির মালিকরা যোগসাজস করে ৩০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ১৫০০ টাকা দামে বিক্রি করতো। এ কারণে মাতৃছায়া ও পান্না ফার্মেসিকে ২০ হাজার টাকা করে ৪০ হাজার টাকা ও সিদ্দিক ফার্মেসিকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করা হয়।

এদিকে একই সময়ে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে অভিযান চালিয়ে ৫ দালালকে আটক করে তাদের বিভিন্ন মেয়াদে জেল জরিমানা করা হয়। দন্ডিত দালালরা হচ্ছে সদর উপজেলার আড়পাড়া গ্রামের জলিল মালিতার ছেলে সজল মালিতা (৩০), পুর্ব নারায়ণপুর গ্রামের তাসেম আলীর ছেলে জামিরুল ইসলাম (৩৫), দুর্গাপুর গ্রামের আইয়ুব হোসেনের ছেলে রানা (২৫), কালীগঞ্জ উপজেলার কোলা গ্রামের ভোলার ছেলে সুজন হোসেন (২৮) ও সদর উপজেলার ধোপাবিলা গ্রামের ছবেদ আলীর ছেলে সানাউল্লাহ (৪৫)।

র‌্যাবের কোম্পানী কমান্ডার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে সেবা নিতে আসা রোগীরা দালালদের খপ্পরে পড়ে প্রতারিত হচ্ছে এমন অভিযোগে দুপুরে র‌্যাবের একটি দল সেখানে অভিযান চালায়। এসময় এসময় ৫ জনকে আটক করা হয়।

পরে আদালত বসিয়ে অভিযোগ স্বীকার করলে সজল, জামিরুল, রানা ও সুজন হোসেনকে ৫ দিন করে কারাদন্ড ও ২০০ টাকা করে জমিনারা এবং সানাউল্লাহকে ২০০ টাকা করে জরিমানা করা হয়।

ভোক্তাদের অভিযোগ ঝিনাইদহ জেলার প্রায় সব ফার্মেসিগুলোতে ইফিডিন ও প্যাথেডিন ইনজেকশন বেশি দামে বিক্রি করে যাচ্ছে। এদের কেউ ধরা পড়ছে আর বেশির ভাগ ধরা ছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে।

বিস্তারিত খবর

চলমান মামলা নিয়ে সংবাদ প্রকাশ করা যাবে : আইনমন্ত্রী

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৯ ১৬:৩৫:৫২

উচ্চ আদালতে চলমান মামলার রিপোর্টিং বা সংবাদ প্রকাশে কোনো বাধা নেই বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, মামলা চলছে, সেই মামলার রিপোর্টিং করতে কোনো বাধা নেই। কিন্তু বিচারাধীন যে মামলা, যার কার্যক্রম চলছে না সেই মামলার বিষয়ে কোনো মতামত দেয়া থেকে বিরত থাকতে বলেছেন বলেই আমার মনে হচ্ছে।

রোববার সচিবালয়ে আইন মন্ত্রণালয়ে বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও সংস্থার প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে ঢাকায় নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার, জার্মানি, সুইজারল্যান্ড ও সুইডেনের রাষ্ট্রদূত, জাতিসংঘের বাংলাদেশ প্রতিনিধি, জাতিসংঘ মানবাধিকার সংস্থার প্রতিনিধি এবং ইউএনডিপির প্রতিনিধির সঙ্গে বৈঠক করেন আইনমন্ত্রী।

তিনি বলেন, সাব-জুডিস কথাটার একটা অর্থ আছে। সাব-জুডিস হচ্ছে এমন মামলা যে মামলা বিচারাধীন আছে। কিন্তু বিচার কার্যক্রম চলছে না। মামলা যেটা বিচারাধীন আছে, কিন্তু বিচার কার্যক্রম চলছে না এমন মামলার ব্যাপারে মতামত না দেওয়ার বিষয়টিই বলেছেন সুপ্রিম কোর্ট। তারা বলেছেন, এই ব্যাপারে মতামত না দিতে।

আইনমন্ত্রী বলেন, একটা মামলা চলছে, সেটার ব্যাপারে রিপোর্টিং বন্ধ করতে হবে, আমার মনে হয় না সুপ্রিম কোর্ট এই কথা বলেছেন। আপনারা মামলার রিপোর্ট করতে পারেন। তবে যে মামলাটা বিচারাধীন, সেই মামলাটা নিয়ে যদি আপনারা মতামত দেন, তাহলে মিডিয়াতেই একটা ট্রায়াল হয়ে যাবে। বিজ্ঞ বিচারক বা বিচারপতির ওপর এ ব্যাপারে একটুচাপ সৃষ্টি হয়। সেজন্য তারা এই কথাটা বলেছেন।

আনিসুল হক বলেন, আমি বিষয়টি অত্যন্ত পরিষ্কার করে দিতে চাই। রিপোর্টিং আর মতামত আলাদা করতে হবে। আলাদাভাবে দেখতে হবে। ওনারা (সুপ্রিম কোর্টের বিচারপতি) আমাদের ডিরেক্টলি বলেননি। আমি উনাদের কথা থেকে এটা বুঝেছি।

তিনি বলেন, আপনারা যদি এটার ব্যাপারে আপিল বিভাগের সুস্পষ্ট মতামত চান, আপিল বিভাগকে জিজ্ঞাসা করুন। আমার মনে হয় আমি যা বললাম উনারাও (আপিল বিভাগ) এই মতামতই দেবেন। আমি উনাদের কথা থেকে এইটুকুই বুঝেছি।

বিস্তারিত খবর

বিষাক্ত কেমিকেলে পাকছে কলা!

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৮ ১৬:৩৮:৪০

মধু কই কই বিষ খাওয়াইলা. . .। এটি চট্টগ্রামের একটি জনপ্রিয় আঞ্চলিক গান। আজকাল বাজার থেকে কলা কেনার ক্ষেত্রে এ গানটি বেশ মিলে যায়। দোকানির কাছ থেকে ঢাউস ঢাউস কলা কিনে হাসিমুখে বাড়ি ফিরেন ক্রেতা। অথচ এসব কলা নাকি স্বাভাবিকভাবে পাকে না।

পাকানো হয় নাকি কেমিকেল ব্যবহার করে। কলা নিয়ে এমন ছলাকলার ঘটনা প্রতিনিয়তই ঘটছে চট্টগ্রামের হাটহাজারী উপজেলার সবকটি বাজারে। অসাধু ব্যবসায়ীরা বিভিন্ন বিষাক্ত কেমিকেল মিশিয়ে কৃত্রিম উপায়ে কলা পাকাচ্ছে। কাজটি এমন কৌশলে করা হয়, যাতে ক্রেতারা বুঝতে না পারে।

শনিবার এমন তথ্যের ভিত্তিতে হাটহাজারী পৌরসভার কবুতর হাট এলাকায় কলার আড়তে অভিযান পরিচালনা করে এ ঘটনার সত্যতা পান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রুহুল আমীন।

এ সময় ফল পাকাতে ও রঙ আনতে ব্যবহৃত বিষাক্ত কেমিকেল উদ্ধার এবং এক কর্মচারীকে আটক করা হয়। এছাড়া কেমিকেল মেশানো প্রায় দুই মণ আম ও বেশ কিছু কলা ডাস্টবিনে ফেলে দেয়া হয়।

তবে উপজেলা প্রশাসনের অভিযান আঁচ করতে পেরে এসব অনৈতিক কাজের সঙ্গে সংশ্লিষ্টরা কেমিকেল আড়তের ছাদে ও বাইরে ফেলে দেয়।

বিকাল সাড়ে ৫টার দিকে পরিচালিত এ অভিযানে নেতৃত্বে থাকা ইউএনও রুহুল আমীন জানান, রাইপেন-১৫ নামে একটি কেমিকেল মেশানোর পর একদিনের মধ্যে কলা পেকে যায়। কোনোটার রঙ হয় হলুদ, কোনোটা আবার গাঢ় হলুদ।

এদিকে শুধু কলা নয় মৌসুমি প্রায় সব ফলই এখন বিষে ভরা। বাজারে এখন কেমিকেল মিশ্রিত ফলই বেশি। হাটহাজারী পৌরসভা এলাকার আবুল কালাম নামের এক ব্যক্তি বলেন, কলার আড়তসহ বিভিন্ন ফলের দোকানে অনেক অসাধু ব্যবসায়ী দেদারছে কেমিকেল ব্যবহার করে চলেছেন। এসব আড়তে ও দোকানে কোন কোন ব্যবসায়ী ফল পাকাতে এ ধরনের কেমিকেল ব্যবহার করছেন।

বিস্তারিত খবর

সাবেক নেতার চারটি আঙুল কাটলো ছাত্রলীগের বর্তমানেরা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৮ ১৬:২৮:২৩

সাতক্ষীরার কলারোয়া উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিএম তুষার হোসেনের (৩০) ওপর দু’দুফা হামলা চালিয়ে তার ডান হাতের চারটি আঙুল কেটে দিয়েছেন বর্তমানেরা। অভিযোগ উঠেছে বর্তমান উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান নাইস ও তার সহযোগীরা এ কাণ্ড ঘটিয়েছেন।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জমিদখল সংক্রান্ত বিরোধের জেরে শনিবার দুপুরে পৌরসদরে এ ঘটনা ঘটে।

আহত তুষার কলারোয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থিত তুষার ইলেকট্রনিক্সের মালিক ও উপজেলার পাটলি গ্রামের মুনছুর আলী গাজীর ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, আজ বেলা দেড়টার দিকে কলারোয়া বাসস্ট্যান্ডে অবস্থিত বিশ্বাস মার্কেটের সামনে উপজেলা ছাত্রলীগের বর্তমান সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান নাইসের নেতৃত্বে ৫-৭ জন যুবক তুষারকে মারপিট করে। পরে তুষার কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসার জন্য গেলে ফের তার ওপর হামলা করে দুর্বৃত্তরা। এ সময় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তুষারের ডান হাতের চারটি আঙুল পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে হামলাকারীরা হাসপাতালের দেয়াল টপকে পালিয়ে যায়। গুরুতর আহত তুষারকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কলারোয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) ডা. শফিকুল ইসলাম জানান, বেলা দুইটার দিকে এক যুবক সামান্য আহত হয়ে হাসপাতালে আসেন। টিকিট সংগ্রহ করে দ্বিতীয় তলায় ওঠার সময় কতিপয় যুবক তার ওপর হামলা করে। এতে তার ডান হাতের চারটি আঙুল বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

আহত তুষারের বাবা মুনছুর গাজী জানান, পাটুরিয়া গ্রামে ৩৩ শতক জমি নিয়ে আমাদের সঙ্গে বিরোধ চলছিল জনৈক মন্টুর। এরই জের ধরে দুপুরে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মেহেদি হাসান নাইসের নেতৃত্বে মন্টু, পলাশ, বাবু, জুয়েলসহ ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী আমার ছেলেকে পিটিয়ে আহত করে। হাসপাতালে যাওয়ার পর তার ডান হাতের চারটি আঙুল কেটে দিয়েছে।

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মেহেদী হাসান নাইস বলেছেন, জল ঘোলা করার জন্য জামায়াত পরিবারের সদস্য বাবু এই ঘটনা ঘটিয়েছে। এর সঙ্গে আমার কোনো সম্পৃক্ততা নেই।

কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুজ্জামান আরটিভি অনলাইনকে জানান, এ ঘটনায় আহত তুষারের চাচা আবু সিদ্দিক বাদী হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিস্তারিত খবর

সোমবার থেকে দেশের সব বেসরকারি টিভি বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৮ ১৬:১৪:৪০

অবশেষে মহাকাশের বুকে মাথা উঁচু করে ঠাঁই নেয়া বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের বাণিজ্যিক সুফল পেতে যাচ্ছে বাংলাদেশ। আগামীকাল ১৯ মে থেকে দেশের সব বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এই স্যাটেলাইটের ফ্রিকোয়েন্সি ব্যবহার করে সম্প্রচারিত হবে। এর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু হবে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের।

গত বছরের ১২ মে যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা থেকে স্যাটেলাইটটি নিয়ে সফল উৎক্ষেপণ করে স্পেসএক্স। এর মাধ্যমে বিশ্বের ৫৭তম দেশ হিসেবে বাংলাদেশ মহাকাশের বুকে জায়গা করে নেয়।

দীর্ঘ এক বছর পর এর বাণিজ্যিক সুফল পাচ্ছে বাংলাদেশ।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত বছর ১২ মে টিভি চ্যানেলগুলোকে ভূমি স্টেশনের পরিবর্তে অপটিক্যাল ফাইবারের মাধ্যমে সংযুক্ত করতে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ উৎক্ষেপণ করা হয়। এতে সংযোগ খরচও অনেক কমে যাচ্ছে।

বাংলাদেশ কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট কোম্পানি লি. (বিসিএসসিএল)’র চেয়ারম্যান ড. শাজাহান মাহমুদ জানান, স্যাটেলাইট উৎক্ষেপনের এক বছর পূরণ হয়েছে। তবে ১২ মে পরিবর্তে ১৯ মে এক উদযাপন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ১২টি টিভি চ্যানেল বিএস-১ এর সেবা নিয়ে তাদের সম্প্রচার কার্যক্রম পরিচালনা করছে। বাকিরা আগামী ১৯ মে’র আগেই এই স্যাটেলাইটে সংযুক্ত হবে।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদও গত বৃহস্পতিবার রাজধানীতে এক হোটেলে বলেন, ১৯ মে থেকে দেশের সব বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটে সম্প্রচারিত হবে।

বিসিএসসিএল’র চেয়ারম্যান বলেন, প্রাথমিকভাবে ডাচ বাংলা ব্যাংক লিমিটেড বিএস-১ এর ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করে তাদের এটিএম পরীক্ষামূলক চালু করবে। তবে অধিকাংশ এটিএম এই সার্ভিসের আওতায় আনার পরিকল্পনা রয়েছে আমাদের।

নিরবচ্ছিন্ন ও নিরাপদ ব্যাংকিং সেবা নিশ্চিত করার জন্য এই উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এই স্যাটেলাইটের ব্যান্ডউইথে দেশের প্রান্তিক অঞ্চলও ইন্টারনেটের আওতায় আসবে।

বর্তমানে দেশে অন্তত ৪০টি বেসরকারি টিভি চ্যানেল রয়েছে এবং এটিএম বুথের মোট সংখ্যা ৭ হাজারের বেশি।

এ বিষয়ে ডাচ বাংলা ব্যাংকের এমডি আবুল কাশেম মোহাম্মদ শিরিন জানিয়েছেন, তারা পরীক্ষামূলক প্রচেষ্টায় ভালো রেজাল্ট পেয়েছেন। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইটের ব্যান্ডউইথ ব্যবহার করে প্রত্যন্ত অঞ্চলের গ্রাহকদের কাছে সেবা পৌঁছে দেয়া যাবে।

এই স্যাটেলাইটে রয়েছে ৪০টি ট্রান্সপন্ডার, যার ২০টি বাংলাদেশের ব্যবহারের জন্য রাখা হয় এবং বাকিগুলো ভাড়া দিয়ে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন সম্ভব হবে।

আশা করা হচ্ছে এ উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পর বিদেশি স্যাটেলাইটের ভাড়া বাবদ বছরে ১৪ মিলিয়ন ডলার সাশ্রয় হবে বাংলাদেশের।

বিস্তারিত খবর

৩ দিন ধরে কিছু খেতে পারছেন না খালেদা জিয়া : নজরুল

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৮ ১৬:০৮:৪৭

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, গত দুই তিন দিন যাবত দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া কিছু খেতে পারছেন না। মাঝে মধ্যে একটু লবন ঝাউ খাচ্ছেন। তিনি বলেন, বেগম খালেদা জিয়ার ৭৩-৭৪ বছর বয়স। তিনি আমার চাইতেও বয়সে বড়। এই বৃদ্ধ বয়সে তার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না থাকায় তার জিহ্বায় কামড় লেগে ঘাঁ হয়ে গেছে। তিনি খুব কষ্টে জেলখানায় দিন পার করছেন। আমরা তার জন্য দোয়া করবো আল্লাহ যেন তাকে সুস্থ করে তোলেন।
শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দল ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত স্বরণ সভা, দোয়া ও ইফতার মাহফিলে তিনি এসব কথা বলেন। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও জাতীয়তাবাদী শ্রমিক দলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জাফরুল হাসানের সুস্থতা কামনা এবং ধানমন্ডি থানা শ্রমিক দলের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি শহীদ বাবুল সরদারের ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এ স্মরণ সভার আয়োজন করা হয়।
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শ্রমিক দলের সভাপতি কাজী মোঃ আমির খসরুর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মাহবুব আলম বাদলের সঞ্চালনায় এতে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম, বিএনপির সহ শ্রম বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ুন কবির খান, শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সভাপতি আনোয়ার হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহিন, ঢাকা মহানগর উত্তর শ্রমিক দলের সভাপতি জুলফিকার মতিন প্রমুখ।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, শ্রমিক দল আমার নিজের হাতে গড়া। এমনকি শ্রমিক দলের প্রথম কাগজটাও আমার হাতে লেখা। সেই দলের একজন কর্মীর স্বাভাবিক মৃত্যুর কথা শুনলেও কতটা কষ্ট লাগে তা বুঝানো যাবে না। আর সেখানে বাবুল শিকদারের মত নেতাকে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে তা মেনে নেয়া যায় না। তিনি বলেন, কেন যেন বাবুল আমাকে খুব ভালোবাসতো। মৃত্যুর তিন দিন আগেও তিনি আমাকে তার লোকজন নিয়ে আমার গন্তব্যে পৌঁছে দিয়েছেন।
নজরুল ইসলাম খান বলেন, আমরা চাই বাবুল শিকদারের প্রকৃত হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হোক। তিনি বলেন, আজ না হোক কাল কিংবা পরশু হলেও বাবুল শিকদারের হত্যাকারীদের বিচার হবেই ইনশাআল্লাহ।

বিস্তারিত খবর

নকলে বাধা দেওয়া শিক্ষক লাঞ্ছিতের ঘটনায় ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৮ ১৬:০৩:৩৪

পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের বাংলা বিভাগের প্রভাষক মো. মাসুদুর রহমানকে লাঞ্ছিত করার ঘটনায় কলেজ ছাত্রলীগের সভাপতি শামসুদ্দীন জুন্নুনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সন্দেহভাজন আসামি হিসেবে আজ শনিবার দুপুরে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গ্রেপ্তারকৃত শামসুদ্দীন জুন্নুন পাবনা পৌর এলাকার শালগাড়ীয়া মহল্লার মোহাম্মদ আলীর ছেলে ও পাবনা সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি।

পাবনার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জুন্নুনকে শহর থেকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। আহত শিক্ষকের অভিযোগ ও শিক্ষক সমাজের দাবির প্রেক্ষিতেই তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের পরে তাকে আদালতের মাধ্যমে পাবনা জেলা কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১২ মে এইচএসসি পরীক্ষার হলে অনৈতিক কাজে বাধা দেওয়ায় সরকারি শহীদ বুলবুল কলেজের শিক্ষক মাসুদুর রহমানকে লাঞ্ছিত করা হয়। এ ঘটনায় কলেজের অধ্যক্ষ এসএম আব্দুল কুদ্দুস বাদী হয়ে সদর থানায় দুইজনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৩-৪ জনের নাম দিয়ে মামলা করেন। দায়েরকৃত মামলায় জুন্নুনের নাম না থাকলেও সিসিটিভির ভিডিও ফুটেজ ও আহত শিক্ষক সরাসরি জুন্নুনকে অভিযুক্ত করায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

বিস্তারিত খবর

আমরা জনগণের আস্থা-বিশ্বাস অর্জন করেছি: শেখ হাসিনা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৭ ১৬:২৪:১৬

আওয়ামী লীগের ওপর জনগণের আস্থা ও বিশ্বাসকে সম্মান দেখিয়ে দেশকে আরো সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ায় জন্য নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন যেকোন রাজনৈতিক দলের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

প্রধানমন্ত্রী আজ শুক্রবার বিকেলে গণভবনে তার স্বদেশে প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে দল এবং সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময়কালে একথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ক্ষমতায় থাকলে দেখা যায় দলের জনপ্রিয়তা হ্রাস পায় কিন্তু আমরা ক্ষমতায় থেকেই জনগণের আস্থা ও বিশ্বাসটা অর্জন করতে পেরেছি।

তিনি বলেন, তার দল ক্ষমতায় থাকাকালীন মানুষের জন্য যে উন্নয়ন করেছে, তাদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য যে কাজটা করেছে সেটা মানুষ উপলব্ধি করতে পেরেছে। আর সেটাই সব চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ।

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর সে সময় বিদেশে অবস্থানকালীন তার বড় মেয়ে শেখ হাসিনা এবং ছোট মেয়ে শেখ রেহানার দেশে ফেরার বিষয়ে নিষেধাজ্ঞা জারি করে তৎকালীন সরকার।

১৯৮১ সালে তার অনুপস্থিতিতেই তাকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করলে এক রকম জোর করেই ১৭ মে দেশে ফিরে আসেন শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই দল এবং সকল সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা ফুলের তোড়া দিয়ে প্রধানমন্ত্রীকে শুভেচ্ছা জানান। এ সময় জাতীয় সংসদের উপনেতা এবং দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

৩৮ বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন উপলক্ষে শেখ হাসিনা দলের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীদের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানিয়ে বলেন, তাদের অপরিসীম ত্যাগ তীতিক্ষার জন্যই আওয়ামী লীগ আজকে বাংলাদেশে এক নম্বর রাজনৈতিক দল। যে পার্টি জনগণের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করেছে এবং সেই আস্থা ও বিশ্বাসের প্রতিফলন ছিল এবারের নির্বাচন।

তিনি বলেন, নির্বাচনে একেবারে নারী-পুরুষ থেকে শুরু করে যারা একেবারে প্রথমবারের ভোটার তারা সকলেই ব্যাপকভাবে আওয়ামী লীগকে ভোট দিয়ে দলের প্রতি তাদের আস্থা ও বিশ্বাস জানিয়েছে।

বর্তমান বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, সারা বাংলাদেশের মধ্যে আমরা একটা যোগাযোগের নেটওয়ার্ক গড়ে তুলেছি।

তিনি বলেন, অন্তত এটুকু বলতে পারি এই ৩৮ বছরে বাংলাদেশের বা দেশের মানুষের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয় এমন কোন কাজ আমি বা আমার পরিবারের কোন সদস্য করে নাই। নিজের চাওয়া-পাওয়ার জন্য নয়, দেশের মানুষের জন্য, তাদের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্যই কাজ করেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, যতবারই ক্ষমতায় এসেছি, কাজ করেছি এবং মানুষের আস্থা ও বিশ্বাস অর্জন করতে পেরেছি। যা আমাদের ধরে রাখতে হবে এবং দেশটা যেন ঐ স্বাধীনতা বিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের হাতে এদেশের মানুষের ভাগ্যটা চলে না যায় তারা যেন আর কোনদিন এদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে ছিনিমিনি খেলতে না পারে।

তিনি জাতির পিতার হত্যা এবং যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করে দেশকে বিচারহীনতার সংস্কৃতি থেকে বের করে এনেছেন উল্লেখ করে বলেন, খুনিরা যদি সমাজে দম্ভ করে খুনের কথা প্রচার করে এবং তার যদি বিচার না হয় তাহলে সে সমাজে এমন অপরাধ চলতেই থাকে।

তিনি বলেন, একটি দলের সভানেত্রী হিসেবে ৩৮ বছর। চিন্তা করলে অবাকই লাগে। এটা বোধ হয় একটু বেশিই হয়ে যাচ্ছে। আপনাদেরও সময় এসেছে, তাছাড়া বয়সও হয়েছে, চোখের ছানির অপারেশন করিয়ে এসেছি (লন্ডন থেকে), কাজেই বাস্তবতাকেতো মানতে হবে।

আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আজকে আওয়ামী লীগ একটি প্রতিষ্ঠান হিসেবে এই উপমহাদেশে প্রতিষ্ঠিত। কাজেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় দেশের এগিয়ে যাওয়াটা যেন অব্যাহত থাকে। তাহলেই বাংলাদেশকে একটি উন্নত-সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে আমরা প্রতিষ্ঠা করতে পারবো।

দেশের দারিদ্রের হার কমিয়ে আমরা ২১ ভাগে নিয়ে এসেছি উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, এই হারকে আমরা আরো নামিয়ে আনবো, এই দেশে হতদরিদ্র বলে কিছু থাকবে না।

বিস্তারিত খবর

আকস্মিক ঝড়: ঢাকাসহ সারাদেশে ৮ জন নিহত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৭ ১৬:১৮:৩২

ইফতারের পর পরই ঝড় ও বৃষ্টিতে একাকার রাজধানী। ঝড়ে রাজধানীর বায়তুল মোকারমে প্যান্ডেল ভেঙ্গে এক মুসুল্লী নিহত হয়েছেন। এঘটনায় ১৫ জনের মত আহত হয়েছেন। নিহতের নাম শফিকুল ইসলাম (৩৫)।

এছাড়া উত্তর বাড্ডায় দেয়াল ধসে তিনজন নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। নিহতদের মধ্যে বুলবুল বিশ্বাস (২৭) ও তপন (২৮) এই দুইজনের পরিচয় পাওয়া গেছে। বুলবুল বিশ্বাস নড়াইলের নরাগাথী থানার মহাজন এলাকার বাসিন্দা। তিনি ঢাকায় বাসের চেকার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। আর তপন নীলফামারীর বাসিন্দা, বাড্ডা এলাকায় উনার চায়ের দোকানদার।

বাড্ডা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম জানান, মধ্যবাড্ডায় প্রাণ সেন্টারের পাশে একটি দেয়াল ধসে তিনজন আহত হয়। এর মধ্যে ২ জনকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে ও একজনকে পঙ্গু হাসপাতালে পাঠানো হয়। তবে তিনজনই নিহত হয়েছেন বলে জানতে পেরেছি।

রাজধানীতে ঝড়-বৃষ্টির মধ্যে গাড়ি চালনার সময় গাছের ডাল ভেঙ্গে আহত হয়েছেন কয়েকজন মোটর সাইকেল ও রিকসাওয়ালা ও যাত্রী। বৃষ্টির পানি রাস্তায় সাময়িকভাবে হাটু পানি হয়ে যায় এবং কিছু ডাল-পালা ভেঙ্গে রাস্তায় গাড়ি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, ঝড়টি ছিল তীব্র গতি সম্পন্ন। অল্প সময়ের মধ্যে সংঘটিত এ ঝড়ের গতিবেগ ছিল ঘন্টায় ৬৫ থেকে ৯৩ কিলোমিটার। মহাখালীর দিকে ৬৫ কিলোমিটার বেগে ঝড় আঘাত হানলেও বিমান বন্দর এলাকায় ঝড়টির বেগ ছিল ঘন্টায় ৯৩ কিলোমিটার।

এদিকে নওগাঁর পোরশায় বজ্রপাতে শফিনুর বিষু (৩২) ও হাসান (৩০) নামের দু’জন ধান কাটা শ্রমিক নিহত এবং বুলবুল (৩২) নামে অপর একজন আহত হয়েছেন। শফিনুর গানইর গ্রামের আজাদের ছেলে এবং হাসান চাপাইনবাবগঞ্জ জেলার শীবগঞ্জ উপজেলার পাঠালীতলা গ্রামের মতিউরের ছেলে। আহত বুলবুল গানইর গ্রামের আব্দুল্লার ছেলে।

জানা গেছে, শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টায় তারা নিতপুর গানইর গ্রামের মালিপুকুর এলাকায় বোরো ধান কাটছিল। এ সময় হঠাৎ বৃষ্টির সাথে বজ্রপাত ঘটলে ঘটনাস্থলেই শফিনুর ও হাসান মারা যান এবং বুলবুল আহত হন। আহত বুলবুলকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পোরশা থানার ওসি শাহিনুর রহমান বজ্রপাতের ঘটনায় দু’ জনের মৃতুর কথা নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলার বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়নের শ্রীরামপুর এলাকায় বজ্রপাতে দুইজন নিহত হয়েছেন।

নিহতরা হলেন- সদর উপজেলার শ্রীরামপুর গ্রামের মৃত হজরত আলীর ছেলে রেজাউল হোসেন (৪০) ও মোতালেব হোসেনের ছেলে মো. মুসা (৩৫)। আহত হয়েছেন একই এলাকার হজরত আলী (৬০)। তাকে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বালিয়াডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান তরিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে ধানের জমিতে কাজ করার সময় বজ্রপাত হলে রেজাউল ও মুসা ঘটনাস্থলেই মারা যান। এ সময় আহত হজরত আলীকে স্থানীয়রা উদ্ধার করে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

বিস্তারিত খবর

‘জঙ্গী সনাক্তকরণ’ বিজ্ঞাপন অস্বীকার করলেন পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়, তাহলে বিজ্ঞাপনটি কে দিল?

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৬ ১৬:০৪:০৫

জঙ্গি সনাক্তে ২৩টি লক্ষণের বিজ্ঞাপন জাতীয় দৈনিকে ফলাও করে দেয় ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ নামের সংগঠন, যার আহ্বায়ক অভিনেতা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

এতে হঠাৎ দাড়ি রাখা, টুপি পরা, টাখনুর উপরে কাপড় পরাসহ মুসলিমদের প্রাত্যহিক জীবনে পালন করা বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে জঙ্গিবাদের বৈশিষ্ট হিসেবে তুলে ধরা হয়।

একই সঙ্গে এসব লক্ষণ কারও মধ্যে পেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তার সম্পর্কে জানাতে নাগরিকের প্রতি আহ্বানও জানায় সম্প্রীতি বাংলাদেশ।

গত ১২ মে জাতীয় অন্তত ৮টি জাতীয় দৈনিকে প্রথম/শেষ পাতায় ঢাউস ওই বিজ্ঞাপন নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়াও ইসলামপন্থীদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেফতার ও ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ নিষিদ্ধের দাবিতে আগামীকাল শুক্রবার বাদ জুমা রাজধানীর বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে ইসলামী ঐক্যজোট।

ইসলামপন্থী দলটি সারা দেশের প্রতিটি মসজিদ থেকেও বাদ জুমা বিক্ষোভ মিছিল করারও আহ্বান জানিয়েছে।

এমন প্রতিবাদের মুখে বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র আহ্বায়ক পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেন, তারা এ ধরনের কোনো বিজ্ঞাপন কোনো জাতীয় দৈনিকে দেননি।

মুসলিমদের উস্কে দিয়ে ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি’ নষ্টের চক্রান্ত হিসেবে এই বিজ্ঞাপনকে অভিহিত করেন তিনি।

তবে দৈনিক সমকাল, যুগান্তর, কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, দেশ রূপান্তরসহ যেসব দৈনিকে বিজ্ঞাপন এসেছে, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিবেন কিনা- এমন প্রশ্নে সংবাদ সম্মেলনে পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

অবশ্য এই অভিনেতা দাবি করেন, মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এমন অপপ্রচার চালিয়েছে। গত ১২ মে কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে প্রচারিত বিজ্ঞাপনটির সঙ্গে কোনো পর্যায়েই সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সদস্য সচিব ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল), রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আলী সিকদার, সাবেক সংস্কৃতি ও তথ্যসচিব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ, ইসলামী ঐক্যজোট চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী, খ্রিস্টান অ্যাসোয়িশনের সভাপতি উইলিয়াম প্রলয় সমাদ্দার, দৈনিক কালের কণ্ঠ পত্রিকার সহকারী সম্পাদক আলী হাবিব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অবস্থান পষ্ট করতে ডাকা সংবাদ সম্মেলনে পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়দের এমন চেপে যাওয়ার চেষ্টায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অভিনেতা পীযূষ কী চাপের মুখে অবস্থান থেকে সরে আসছেন? আর সত্যিই যদি তিনি এবং তার সংগঠন এমন ব্যয়বহুল বিজ্ঞাপন না দিয়ে থাকেন, তাহলে কে বা কারা দিলো?

বিজ্ঞাপন প্রকাশ হয়েছে এমন একাধিক জাতীয় দৈনিকের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেও ‘রহস্যজনক’ জবাব মিলেছে। অফ দ্য রেকর্ড তাদের ভাষ্য এমন, বাংলাদেশে কোন পত্রিকা আছে, যারা প্রথম ও শেষ পাতার মতো এত গুরুত্বপূর্ণ জায়গা অর্থ ছাড়া বিজ্ঞাপন ছেড়ে দেবে?

পত্রিকাগুলোর বিজ্ঞাপন বিভাগে যোগাযোগ করা হলে, কারা, কত টাকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছেন, সব তথ্য থাকলেও তা ‘আপাতত’ দিতে রাজি হননি।

১২ মে দৈনিক সমকালে ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র ব্যানারে ‘জঙ্গি শনাক্তকরণ’ বিজ্ঞাপনটি প্রকাশিত হয়। পত্রিকাটিই বৃহস্পতিবার আরেকটি বিজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে যে, ওইদিনের বিজ্ঞাপন সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র নয়। এটা মিথ্যা।

দুটি বিজ্ঞাপনের বিষয়ে সমকালের এক বিজ্ঞাপন নির্বাহীর সঙ্গে যোগাযোগ করলে শুরুতে তিনি বলেন, ‘আমরা গত ১২ মে এ ধরনের কোনো বিজ্ঞাপন দেইনি। বিভিন্ন পত্রিকায় আসা বিজ্ঞাপন মিথ্যা বলে সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র পরেরটি আমরা প্রকাশ করেছি বিজ্ঞাপন হিসেবে।’

পরে তাকে ১২ মে সমকাল পত্রিকার কপি দেখালে বলেন, ‘অনেকগুলো পত্রিকা দিয়েছে, তাদের সঙ্গে আমাদেরও দেয়া হয়েছে মনে হয়।’

এই নির্বাহী আরও দাবি করেন, ‘আজকের বিজ্ঞাপনটি সঠিক। এখানে সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র আহ্বায়ক ও সদস্য সচিবের নাম রয়েছে। যেটি আগেরটিতে ছিল না। কেউ বিজ্ঞাপন দিলে আমরা ছেপে থাকি। কিন্তু, সেটি কারা দিয়েছিল, এই মুহূর্তে বলা সম্ভব হবে না।’

গত ১২ মে একই বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হয়েছিল দৈনিক দেশ রূপান্তরে। পত্রিকাটির বিজ্ঞাপন বিভাগের শীর্ষ এক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘সেটিকে বিজ্ঞাপন বলা যাবে না। নিউজ ছিল। বিস্তারিত জানতে হলে নিউজ বিভাগে যোগাযোগ করতে হবে।’

এমন প্রেক্ষাপটে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এত বড় বড় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন এলো। বিজ্ঞাপনদাতারা এখন তা বেমালুম অস্বীকার করছেন। আবার পত্রিকাও বিজ্ঞাপনের তথ্য পষ্ট করছে না। জঙ্গিবাদের মতো এমন স্পর্শকাতর ইস্যুতে সবপক্ষের এমন অবস্থান রহস্যে ঘেরা। অবশ্যই সরকারিভাবে এর তদন্ত হওয়া দরকার।

এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক গবেষক আফসান চৌধুরী বলেন, ‘বিজ্ঞাপনটা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়রা না দিলে কে দিয়েছেন, সেটি তদন্ত করে দেখা দরকার। আর একটা কথা হলো, জঙ্গিবাদের বিষয়ে সবারই একটু সতর্ক হয়ে আলাপ করা উচিত। কারণ, লোকজন যখন জঙ্গিবাদ নিয়ে আলাপ করে, তারা অনেক বেশি রাজনৈতিক বক্তব্য দেন। বিশেষ কোনো গোষ্ঠী বা গোষ্ঠীর সদস্যরাই যে শুধু জঙ্গি কার্যক্রম চালায় এমন কোনো গ্রহণযোগ্য প্রমাণ নেই।

বিস্তারিত খবর

‘জঙ্গী সনাক্তকরণ’ বিজ্ঞাপন অস্বীকার করলেন পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়, তাহলে বিজ্ঞাপনটি কে দিল?

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৬ ১৬:০৪:০৫

জঙ্গি সনাক্তে ২৩টি লক্ষণের বিজ্ঞাপন জাতীয় দৈনিকে ফলাও করে দেয় ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ নামের সংগঠন, যার আহ্বায়ক অভিনেতা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়।

এতে হঠাৎ দাড়ি রাখা, টুপি পরা, টাখনুর উপরে কাপড় পরাসহ মুসলিমদের প্রাত্যহিক জীবনে পালন করা বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে জঙ্গিবাদের বৈশিষ্ট হিসেবে তুলে ধরা হয়।

একই সঙ্গে এসব লক্ষণ কারও মধ্যে পেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে তার সম্পর্কে জানাতে নাগরিকের প্রতি আহ্বানও জানায় সম্প্রীতি বাংলাদেশ।

গত ১২ মে জাতীয় অন্তত ৮টি জাতীয় দৈনিকে প্রথম/শেষ পাতায় ঢাউস ওই বিজ্ঞাপন নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়া ছাড়াও ইসলামপন্থীদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়কে গ্রেফতার ও ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’ নিষিদ্ধের দাবিতে আগামীকাল শুক্রবার বাদ জুমা রাজধানীর বায়তুল মোকাররম উত্তর গেটে বিক্ষোভের ডাক দিয়েছে ইসলামী ঐক্যজোট।

ইসলামপন্থী দলটি সারা দেশের প্রতিটি মসজিদ থেকেও বাদ জুমা বিক্ষোভ মিছিল করারও আহ্বান জানিয়েছে।

এমন প্রতিবাদের মুখে বৃহস্পতিবার (১৬ মে) সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র আহ্বায়ক পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় দাবি করেন, তারা এ ধরনের কোনো বিজ্ঞাপন কোনো জাতীয় দৈনিকে দেননি।

মুসলিমদের উস্কে দিয়ে ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি’ নষ্টের চক্রান্ত হিসেবে এই বিজ্ঞাপনকে অভিহিত করেন তিনি।

তবে দৈনিক সমকাল, যুগান্তর, কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, দেশ রূপান্তরসহ যেসব দৈনিকে বিজ্ঞাপন এসেছে, তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নিবেন কিনা- এমন প্রশ্নে সংবাদ সম্মেলনে পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায় কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

অবশ্য এই অভিনেতা দাবি করেন, মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী শক্তি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে এমন অপপ্রচার চালিয়েছে। গত ১২ মে কয়েকটি জাতীয় দৈনিকে প্রচারিত বিজ্ঞাপনটির সঙ্গে কোনো পর্যায়েই সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র কোনো সংশ্লিষ্টতা নেই।

সংবাদ সম্মেলনে সংগঠনের সদস্য সচিব ডা. মামুন আল মাহতাব (স্বপ্নীল), রাজনৈতিক ও নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) মোহাম্মদ আলী সিকদার, সাবেক সংস্কৃতি ও তথ্যসচিব মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ, ইসলামী ঐক্যজোট চেয়ারম্যান মিছবাহুর রহমান চৌধুরী, খ্রিস্টান অ্যাসোয়িশনের সভাপতি উইলিয়াম প্রলয় সমাদ্দার, দৈনিক কালের কণ্ঠ পত্রিকার সহকারী সম্পাদক আলী হাবিব প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

অবস্থান পষ্ট করতে ডাকা সংবাদ সম্মেলনে পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়দের এমন চেপে যাওয়ার চেষ্টায় প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অভিনেতা পীযূষ কী চাপের মুখে অবস্থান থেকে সরে আসছেন? আর সত্যিই যদি তিনি এবং তার সংগঠন এমন ব্যয়বহুল বিজ্ঞাপন না দিয়ে থাকেন, তাহলে কে বা কারা দিলো?

বিজ্ঞাপন প্রকাশ হয়েছে এমন একাধিক জাতীয় দৈনিকের কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ করেও ‘রহস্যজনক’ জবাব মিলেছে। অফ দ্য রেকর্ড তাদের ভাষ্য এমন, বাংলাদেশে কোন পত্রিকা আছে, যারা প্রথম ও শেষ পাতার মতো এত গুরুত্বপূর্ণ জায়গা অর্থ ছাড়া বিজ্ঞাপন ছেড়ে দেবে?

পত্রিকাগুলোর বিজ্ঞাপন বিভাগে যোগাযোগ করা হলে, কারা, কত টাকায় বিজ্ঞাপন দিয়েছেন, সব তথ্য থাকলেও তা ‘আপাতত’ দিতে রাজি হননি।

১২ মে দৈনিক সমকালে ‘সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র ব্যানারে ‘জঙ্গি শনাক্তকরণ’ বিজ্ঞাপনটি প্রকাশিত হয়। পত্রিকাটিই বৃহস্পতিবার আরেকটি বিজ্ঞাপন প্রকাশ করেছে যে, ওইদিনের বিজ্ঞাপন সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র নয়। এটা মিথ্যা।

দুটি বিজ্ঞাপনের বিষয়ে সমকালের এক বিজ্ঞাপন নির্বাহীর সঙ্গে যোগাযোগ করলে শুরুতে তিনি বলেন, ‘আমরা গত ১২ মে এ ধরনের কোনো বিজ্ঞাপন দেইনি। বিভিন্ন পত্রিকায় আসা বিজ্ঞাপন মিথ্যা বলে সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র পরেরটি আমরা প্রকাশ করেছি বিজ্ঞাপন হিসেবে।’

পরে তাকে ১২ মে সমকাল পত্রিকার কপি দেখালে বলেন, ‘অনেকগুলো পত্রিকা দিয়েছে, তাদের সঙ্গে আমাদেরও দেয়া হয়েছে মনে হয়।’

এই নির্বাহী আরও দাবি করেন, ‘আজকের বিজ্ঞাপনটি সঠিক। এখানে সম্প্রীতি বাংলাদেশ’র আহ্বায়ক ও সদস্য সচিবের নাম রয়েছে। যেটি আগেরটিতে ছিল না। কেউ বিজ্ঞাপন দিলে আমরা ছেপে থাকি। কিন্তু, সেটি কারা দিয়েছিল, এই মুহূর্তে বলা সম্ভব হবে না।’

গত ১২ মে একই বিজ্ঞাপন প্রকাশিত হয়েছিল দৈনিক দেশ রূপান্তরে। পত্রিকাটির বিজ্ঞাপন বিভাগের শীর্ষ এক কর্মকর্তার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘সেটিকে বিজ্ঞাপন বলা যাবে না। নিউজ ছিল। বিস্তারিত জানতে হলে নিউজ বিভাগে যোগাযোগ করতে হবে।’

এমন প্রেক্ষাপটে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এত বড় বড় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন এলো। বিজ্ঞাপনদাতারা এখন তা বেমালুম অস্বীকার করছেন। আবার পত্রিকাও বিজ্ঞাপনের তথ্য পষ্ট করছে না। জঙ্গিবাদের মতো এমন স্পর্শকাতর ইস্যুতে সবপক্ষের এমন অবস্থান রহস্যে ঘেরা। অবশ্যই সরকারিভাবে এর তদন্ত হওয়া দরকার।

এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক গবেষক আফসান চৌধুরী বলেন, ‘বিজ্ঞাপনটা পীযূষ বন্দ্যোপাধ্যায়রা না দিলে কে দিয়েছেন, সেটি তদন্ত করে দেখা দরকার। আর একটা কথা হলো, জঙ্গিবাদের বিষয়ে সবারই একটু সতর্ক হয়ে আলাপ করা উচিত। কারণ, লোকজন যখন জঙ্গিবাদ নিয়ে আলাপ করে, তারা অনেক বেশি রাজনৈতিক বক্তব্য দেন। বিশেষ কোনো গোষ্ঠী বা গোষ্ঠীর সদস্যরাই যে শুধু জঙ্গি কার্যক্রম চালায় এমন কোনো গ্রহণযোগ্য প্রমাণ নেই।

বিস্তারিত খবর

আরো দুই প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল ও ২৫টির স্থগিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৬ ১৫:৩৬:০৫

নিম্নমানের পণ্য উৎপাদনের সঙ্গে জড়িত আরো ২৭টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিয়েছে বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইনস্টিটিউশন (বিএসটিআই)। এর মধ্যে ২টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স বাতিল এবং ২৫টি প্রতিষ্ঠানের লাইসেন্স স্থগিত করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিএসটিআইয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
এর আগে বুধবার ২৫টি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয় বিএসটিআই। এর মধ্যে ৭টির লাইসেন্স বাতিল এবং ১৮টির লাইসেন্স স্থগিত করা হয়। বিএসটিআইয়ের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ওই সব পণ্যের মানোন্নয়ন করে আবার অনুমোদন না নেয়ার আগ পর্যন্ত উৎপাদনকারী, সরবরাহকারী, পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের এসব পণ্য বিক্রি-বিতরণ, সংরক্ষণ ও বাণিজ্যিক বিজ্ঞাপন প্রচার থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। একই সঙ্গে সংশ্লিষ্ট উৎপাদনকারীদের বিক্রীত মালামাল বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের ২৪ (চব্বিশ) ঘণ্টার মধ্যে বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ভোক্তাদেরও ওই সব পণ্য ক্রয় না করার অনুরোধ করা হয়েছে।
লাইসেন্স বাতিল করা পণ্যগুলো হলো-চট্টগ্রামের এস এস কনজ্যুমার প্রোডাক্টসের মরিচের গুঁড়া পিওর হাটহাজারী এবং নওগাঁর কিরণ ট্রেডার্সের কিরণ লাচ্ছা সেমাই।
লাইসেন্স স্থগিত করা পণ্যগুলো হলো- বাঘাবাড়ী স্পেশাল ঘি, নিশিতা সুজি, মঞ্জিল হলুদের গুঁড়া, গ্রিন ল্যান্ডস মধু, শান হলুদের গুঁড়া, মধুমতি আয়োডিনযুক্ত লবণ, জেদ্দা লাচ্ছা সেমাই, নূর স্পেশাল আয়োডিনযুক্ত লবণ, অমৃত লাচ্ছা সেমাই, দাদা সুপার আয়োডিনযুক্ত লবণ, তিন তীর আয়োডিনযুক্ত লবণ, মদিনা-স্টারশিপ আয়োডিনযুক্ত লবণ, তাজ আয়োডিনযুক্ত লবণ, ডলফিন মরিচের গুঁড়া, ডলফিন হলুদের গুঁড়া, সূর্য মরিচের গুঁড়া, মধুফুল লাচ্ছা সেমাই, মিঠাই লাচ্ছা সেমাই, কিং ময়দা, ওয়েল ফুডের লাচ্ছা সেমাই, রূপসা ফারমেন্টেড মিল্ক, মেহেদী বিস্কুট, মিষ্টি মেলা লাচ্ছা সেমাই, মক্কা চানাচুর ও মধুবন লাচ্ছা সেমাই।

এর আগে ১২ মে বিএসটিআইয়ের পরীক্ষায় নিম্নমান প্রমাণিত হওয়ায় ৫২টি খাদ্যপণ্য অবিলম্বে বাজার থেকে প্রত্যাহার করার নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে এসব খাদ্যপণ্য বিক্রি ও সরবরাহে জড়িত লোকজনের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিতে নির্দেশ দেওয়া হয়। নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষ ও জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের প্রতি এই নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
বিচারপতি শেখ হাসান আরিফ ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এক রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে রুলসহ এ আদেশ দেন। যতক্ষণ পর্যন্ত ওই ৫২ পণ্য বিএসটিআইয়ের পরীক্ষায় পুনরায় উত্তীর্ণ না হচ্ছে, ততক্ষণ এসব পণ্য উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ বন্ধ রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়। মাদকবিরোধী অভিযানের মতো খাদ্যে ভেজাল মেশানোর বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণার জন্য প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

দেশে ফিরলেন ওবায়দুল কাদের

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৫ ১৬:০৮:৪৫

প্রায় আড়াই মাস সিঙ্গাপুরে চিকিৎসা শেষে দেশে ফিরেই প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে গণভবনে যান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বুধবার সন্ধ্যা ৭ টার দিকে তিনি গণভবনে প্রবেশ করেন। সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের তথ্য কর্মকর্তা মো. আবু নাছের সাংবাদিকদের কাছে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে দুপুর ২টা ১০ মিনিটে সিঙ্গাপুর থেকে বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা হন ওবায়দুল কাদের।  বিকেল ৫টা ৫৫ মিনিটে বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বিমানের বিজি ০৮৫ ফ্লাইটে করে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছান তিনি। এ সময় বিমানবন্দরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা ওবায়দুল কাদেরকে অভ্যর্থনা জানান।

গত ২ মার্চ সকালে হঠাৎ শ্বাসকষ্ট অনুভব করলে ওবায়দুল কাদেরকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ভর্তি করা হয়। সেখানে এনজিওগ্রামে তার হৃদপিণ্ডের রক্তনালীতে তিনটি ব্লক ধরা পড়ে। স্টেন্টিংয়ের মাধ্যমে একটি ব্লক অপসারণ করেন চিকিৎসকরা।

এর পর উন্নত চিকিৎসার জন্য গত ৪ মার্চ এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে সেতুমন্ত্রীকে নেয়া হয় সিঙ্গাপুরে। ওই রাতেই মেডিকেল বোর্ড গঠন করে মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে তার চিকিৎসা শুরু হয়। গত ২০ মার্চ কার্ডিও থোরাসিক সার্জন ডা. শিভাথাসান কুমারস্বামীর নেতৃত্বে কাদেরের বাইপাস সার্জারি হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সিঙ্গাপুরে ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী ইসরাতুন্নেসা কাদের।

বিস্তারিত খবর

জুলাই থেকে বাংলাদেশে ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৫ ১৬:০৫:১৪

চলতি বছরের জুলাই থেকে পাঁচ বছরের পরিবর্তে নাগরিকদের ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট দেয়া হবে হবে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বুধবার জাতীয় সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির চতুর্থ বৈঠকে এতথ্য জানানো হয়।

বৈঠক শেষে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মুহাম্মদ ফারুক খান সাংবাদিকদের বলেন, মন্ত্রণালয় জানিয়েছে ২০১৯ সালের জুলাই মাস থেকেই ১০ বছর মেয়াদি পাসপোর্ট ইস্যু করা হবে। এতে মানুষের ভোগান্তি কমবে।

তিনি জানান, বৈঠকে বিদেশে অবস্থিত বাংলাদেশি মিশনগুলোকে পাসপোর্ট ইস্যু ও নবায়ন কার্যক্রম দ্রুত শেষ করার সুপারিশ করে কমিটি।

জানা যায়, বৈঠকে ২০২০ সালের ‘মুজিব বর্ষ’ পালনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মপরিকল্পনা ও প্রস্তুতি নিয়ে আলোচনা করা হয়। ‘মুজিব বর্ষ’ পালনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে গঠিত আন্তর্জাতিক যোগাযোগ কমিটির সিদ্ধান্তসমূহ স্থায়ী কমিটিকে অবহিত করার সুপারিশ করা হয়।

এছাড়া গৃহীত কর্মসূচিগুলো চূড়ান্ত করে সুষ্ঠুভাবে শেষ করার জন্য সাব- কমিটি গঠন এবং সম্ভাব্য বাজেট প্রণয়নের সুপারিশ করা হয়।

এছাড়াও ‘মুজিব বর্ষ’ পালনকালে সকল মিশনের সামনে দৃষ্টিনন্দন ব্যানার ও ফেস্টুন দিয়ে বছরব্যাপী অনুষ্ঠান পালনের আবহ তৈরির সুপারিশ করা হয়

বৈঠকে তিউনেশিয়ার ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে অবৈধভাবে বিদেশ গমনের সময় নিহত বাংলাদেশিদের জন্য শোক ও দুঃখ  প্রকাশ করা হয়। যে সকল দালাল চক্র অবৈধ মানব পাচারের সঙ্গে জড়িত তাদেরকে চিহ্নিত করে তাদের বিরুদ্ধে মন্ত্রণালয়কে ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট মিশনসমূহকে আহত ও নিহতদের সহযোগিতা প্রদানের সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে বিদেশি মিশনগুলোকে সমন্বয়ের মাধ্যমে কার্যক্রম পরিচালনা, ডাটাবেইজ তৈরির মাধ্যমে প্রবাসীদের সম্পৃক্ত করে সেবার মানোন্নয়ন এবং মিশনে কর্মরতদের মাধ্যমে যাতে প্রবাসীরা কোনভাবেই ক্ষতিগ্রস্ত না হয় সে বিষয়ে খেয়াল রাখার সুপারিশ করে।

বৈঠকে বিদেশে বাংলাদেশি মিশন ও মন্ত্রণালয় সম্পর্কে গণমাধ্যমে কোন বিরুপ সংবাদ প্রকাশিত হলে তাৎক্ষণিক সন্তোষজনক জবাব প্রস্তুত করে পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করা হয়।

বৈঠকে কমিটির সদস্য ও পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী মো. শাহরিয়ার আলম, নুরুল ইসলাম নাহিদ, মো. আব্দুল মজিদ খান, নাহিম রাজ্জাক এবং নিজাম উদ্দিন জলিল (জন) অংশ নেন।

এছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব মাহবুবুজ্জামান, মেরিটাইম এফেয়ার্স ইউনিটের সচিব খোরশেদ আলম, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বিস্তারিত খবর

জাল টাকা তৈরির কারখানার নেপথ্যে সাবেক সেনা সদস্য

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৫ ১৬:০৪:০২

রংপুর মহানগরীর জুগিটারীতে ভারতীয় ও বাংলাদেশী জাল নোট তৈরির কারখানার সন্ধান পেয়েছে মেট্রোপলিটন পুলিশ। বুধবার দুপুরে ওই কারখানা থেকে বিপুল পরিমান জালনোট, তৈরির সরঞ্জামাদিসহ তৈরিকারক আলী হোসেন (৪৫) নামের এক সাবেক সেনা সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

সন্ধায় রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ (আরপিএমপি) এর কোতয়ালি থানায় এ বিষয়ে প্রেস ব্রিফিং করেন কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল আলীম মাহমুদ।

এসময় তিনি বলেন, রমজান ও ঈদের কেনাকাটাকে ঘিরে জাল নোট সরবরাহকারী প্রতারক চক্রের সদস্যরা উত্তরাঞ্চলে সক্রিয় উঠে হয়েছে। এই চক্রের সক্রিয় সদস্য ও জাল নোট তৈরিকারক সিন্ডিকেট প্রধান আলী হোসেন (৪৫) দীর্ঘদিন থেকে নগরীর জুগিরাটীতে মেশিন বসিয়ে জাল নোট তৈরি করছিল। বুধবার দুপুরে আমরা আলী হোসেনের বাড়িতে অভিযান চালাই।

এসময় তার শয়ন কক্ষে থাকা পুরোনো একটি লোহার ট্যাংক থেকে ১৬ লাখ দশ হাজার টাকার ভারতীয় ও বাংলাদেশী জাল নোট উদ্ধার করা হয়। এরমধ্যে ৫০০ ও ১ হাজার টাকার বাংলাদেশী জাল নোট রয়েছে সাড়ে ১১ লাখ বাকিগুলো ভারতীয় ৪ লাখ ৬০ হাজার টাকা রয়েছে।

আরপিএমপি কমিশনার জানান, আলী হোসেনের বাড়ি কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলার টাপুরচর গ্রামে। সেনাবাহিনীর সদস্য হিসেবে অবসর নিয়ে সে জাল নোট তৈরির করে আসছিল। এর মাধ্যমে সে রাষ্ট্রের সাথে প্রতারণা করেছে। তার বিরুদ্ধে বিশেষ ক্ষমতা আইনে মামলা দেয়া হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশে পয়সা দিয়ে আদালতও কেনা যায় : নাসিম

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৫ ১৬:০১:৪৫

ধর্ষণের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল করে দ্রুত বিচারের আহবান জানিয়ে ১৪ দলের মুখপাত্র ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, এই দেশে পয়সা দিয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে কেনা যায়, পয়সা দিয়ে আইনজীবী কেনা যায়, এমনকি আদালত পর্যন্ত কেনা যায়।

তাই বলতে চাই, ধর্ষণের বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল করে দ্রুত বিচার করুন। তাহলে দেখবেন, এসব অপরাধ কমে গেছে। এসব অপরাধী বিএনপি-জামায়াতের চেয়েও ভয়ঙ্কর।’

বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত ‘শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস’ উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আলোচনা সভায় সাবেক খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য মোজাফফর হোসেন পল্টু, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের প্রতিষ্ঠাকালীন সাধারণ সম্পাদক অভিনেত্রী সারাহ বেগম কবরী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

নাসিম বলেন, প্রতিদিন দেখছি নারী নির্যাতন, ধর্ষণ, শিশু হত্যা এসব আমাদের গভীরভাবে উদ্বিগ্ন করে। কেন কী কারণে সিরিজের মতো করে এ ধরনের ঘটনা ঘটছে? এ ঘটনার ক্রিমিনালরা প্রকাশ্য ঘুরে বেড়াচ্ছে?

আইনমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে অনুরোধ জানিয়ে সাবেক এই স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এই সামাজিক অপরাধগুলো বন্ধ করার জন্য দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রয়োজনে বিশেষ ট্রাইব্যুনালের ব্যবস্থা করুন। বাইরের দেশগুলোতে দেখুন, তারা প্রতিটি ঘটনার দ্রুত বিচার করে। তাই তাদের অপরাধগুলো কমে আসে।

নাসিম বলেন, আমরা আল্লাহর রহমতে জনগণের সমর্থনে দীর্ঘদিন ক্ষমতায় আছি। মনে রাখতে হবে, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে চক্রান্ত যখন ব্যর্থ হয়, তখন গভীর ষড়যন্ত্র চলে। আজ আমরা আশ্বস্ত হতাম যদি বিএনপি বিরোধী দল হিসেবে থাকতো। ভয় ওখানে, বিএনপি এখন ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে। তার জোট ছিন্নভিন্ন হয়ে গেছে।

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত