যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ১৫ Jul, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 03:00am

|   লন্ডন - 10:00pm

|   নিউইয়র্ক - 05:00pm

  সর্বশেষ :

  রক্তের বিনিময়ে হলেও এরশাদের লাশ পল্লী নিবাসেই দাফন করা হবে : রংপুর মেয়র   সব মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য একই ডিজাইনের কবর হবে   কংগ্রেসের ভিন্ন বর্ণের নারীদের ‘দেশে ফিরতে’বললেন ট্রাম্প   নেতাকর্মীদের ভালোবাসায় সিক্ত এরশাদ   ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কায় আসামের মুসলমানরা   ঢাবি ক্যাম্পাসকে প্লাস্টিকমুক্ত ঘোষণা   মর্মান্তিক: মাইক্রোবাসে ট্রেনের ধাক্কায় বর-কনেসহ নিহত ৯   কুমিল্লায় আদালতের ভেতর আসামির ছুরিকাঘাতে আসামির মৃত্যু   দক্ষিণ কোরিয়ার সাথে বাংলাদেশের তিন চুক্তি স্বাক্ষর   সুইডেনে বিমান বিধ্বস্ত, নিহত ৯   ইংল্যান্ডের প্রথম বিশ্বকাপ জয়   এরশাদের মৃত্যুতে প্রতিক্রিয়া জানাতে সময় লাগবে বিএনপির   এরশাদের সন্তানরা কে কী করেন?   বৃহস্পতিবার সোহেল তাজের ‘আনুষ্ঠানিক ঘোষণা’   আফগানিস্তান সরকারের সর্বোচ্চ পর্যায়ে যৌন হয়রানির অভিযোগে তোলপাড়

>>  খেলাধুলা এর সকল সংবাদ

ইংল্যান্ডের প্রথম বিশ্বকাপ জয়

দৌড়ালেন মার্ক উড! দৌড় উসাইন বোল্টকে হার মানানোর মতোই ছিলো। কিন্তু নিউজল্যান্ডের কাছে তার রেস হেরে গেছে। জেমস নিশামের থ্রো ঠিকভাবেই বোলার বোল্ট ধরে স্ট্যাম্প স্পর্শ করে দলকেও টিকিয়ে রাখলেন। ইনিংসের শেষ ওভারে ২ রান দরকার ছিলো ইংল্যান্ডের। স্টোকস মিড অনে ঠুকে দিয়ে দুই রান নিতে চাইলেও তা সম্ভব হয়নি। দৌড়ে পারেননি নন স্ট্রাইকে থাকা আরেক ব্যাটসম্যান মার্ক উড। এক রান বৈধ হলে খেলা হয়ে যায় ড্র। তাতে খেলা গড়ায় সুপার ওভারে।

সুপার ওভার
আাগে ব্যাট করতে নামে ইংল্যান্ড। ব্যাট হাতে নামেন দুই বিধ্বংসী জস বাটলার ও বেন স্টোকস। অপরদিকে বল হাতে আসেন নিউজিল্যান্ডের

বিস্তারিত খবর

নববধূ ঘরে তুললেন মুস্তাফিজ

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১৩ ১২:৩৮:৪৭

বিয়ে অনেকটা চুপিসারে হলেও জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠান করে বউ ঘরে তুলে নিলেন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটার মোস্তাফিজুর রহমান। আত্মীয়-স্বজন, এলাকাবাসীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার তিন হাজার অতিথির আগমনে মুখর ছিল বৌভাত অনুষ্ঠান।

সাতক্ষীরার কালীগঞ্জে উপজেলার গ্রামের বাড়িতে শনিবার দুপুরের বৌভাত অনুষ্ঠান আয়োজন করা হলেও অতিথিরা আসতে শুরু করেন সকাল থেকে। তবে বিয়ের আনন্দ অনুষ্ঠানেও বরাবরের মতো মিডিয়ার সামনে চুপ ছিলেন মোস্তাফিজ। সুসজ্জিত আসরে বধূ সুমাইয়া পারভীন শিমুকে নিয়ে বসেছিলেন তিনি। তবে কোনো কথা বলেননি। মোস্তাফিজুর রহমানের বাবা আবুল কাশেম গাজী ছেলে ও পুত্রবধূর জন্য সকলের কাছে দোয়া চেয়েছেন।

তেঁতুলিয়া গ্রামে বৌভাতের অনুষ্ঠানে আসেন তিন হাজারের বেশি মেহমান। খাবার টেবিলে ছিল খাসির বিরিয়ানি, গরুর মাংস, দধি ও কোমল পানীয়। সনাতন ধর্মাবলম্বী অতিথিদের জন্য অন্য ব্যবস্থা ছিল।

অনুষ্ঠানে যোগ দেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও বর্তমান সাতক্ষীরা-৩ আসনের সংসদ সদস্য ডা. আ ফ ম রুহুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মনসুর আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নজরুল ইসলাম, সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মো. সাজ্জাদুর রহমানসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ।

গত ২২ মার্চ সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার হাদিপুর গ্রামের বাসিন্দা সুমাইয়া পারভীন শিমুকে বিয়ে করেন মোস্তাফিজুর রহমান। শিমু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মনোবিজ্ঞান বিভাগের ছাত্রী। শিমুর বাবা রওনাকুল ইসলাম বাবু মোস্তাফিজুর রহমানের মেজো মামা। মায়ের ইচ্ছায় পারিবারিকভাবে মামাত বোন শিমুকে বিয়ে করেন মোস্তাফিজ।

বিস্তারিত খবর

ভারতকে হটিয়ে ফাইনালে নিউজিল্যান্ড

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১০ ১৩:৫৯:৪৬

একেই বলে প্রকৃত সেমিফাইনাল। সত্যিকারের ব্যাট-বলের লড়াই। যার পরতে পরতে জড়িয়ে উত্তেজনা। শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত বলা যাচ্ছিল না, নিউজিল্যান্ড না ভারত- কে জিতবে? ১০৪ বলে ধোনি-জাদেজার ১১৬ রানের জুটিতে নিশ্চিত জয়ের পথে চলে এসেছিল ভারত। কিন্তু ট্রেন্ট বোল্টের বলে হঠাৎ ক্যাচ দিয়ে জাদেজা আউট হয়ে যাওয়ার পর আবারও ম্যাচটা ঝুলে যায় পেন্ডুলামের মত।

জয়ের জন্য শেষ দিকে ভারতের প্রয়োজন ছিল ১৪ বলে ৩২ রান। খেলার এমন অবস্থায় উইকেটে হারান দুর্দান্ত খেলতে থাকা জাদেজা। তার বিদায়ে জয়ের স্বপ্ন ভেঙে যায় ভারতের।

শেষ ১২ বলে প্রয়োজন ছিল ৩১ রান। ৪৯তম ওভারে ফাগুর্নসননের প্রথম বলে ছক্কা হাঁকিয়ে আবারও স্বপ্ন দেখান মহেন্দ্র সিং ধোনি। কিন্তু ওভারের তৃতীয় বলে মার্টিন গাপটিলের থ্রোতে স্ট্যাম্প ভেঙ্গে গেলে জয়ের স্বপ্ন ভেঙে যায় ভারতের।

নিশ্চিত পরাজয়ের ম্যাচেও অসাধারণ ব্যাটিং করেছেন রবিন্দ্র জাদেজা। হেরে যাওয়া ম্যাচ জেতার স্বপ্ন দেখছে ভারত। এছাড়া বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক মহেন্দ্র সিং ধোনির ব্যাটিং দৃঢ়তায় বিশ্বকাপের প্রথম সেমিফাইনাল প্রতিদ্বন্দ্বিতামূলক হয়েছে। দলের ব্যাটিং বিপর্যয়ের দিনে হাল ধরেন তারা। তাদের অনবদ্য ব্যাটিংয়ে জয়ের স্বপ্ন দেখে ভারত।

বুধবার ইংল্যান্ডের ম্যানচেস্টারে বৃষ্টি বিঘ্নিত ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ২৪০ রানের মামুলি স্কোর তাড়া করতে নেমে মাত্র ৫ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে শুরুতেই বিপদে পড়ে ভারত।

ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে দলীয় ৪ রানে ম্যাট হেনরির বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দেন রোহিত শর্মা। আগের তিন ম্যাচে টানা সেঞ্চুরি করা রোহিত এদিন ফেরেন চার বলে মাত্র ১ রান করে।

রোহিত শর্মার বিদায়ের পর উইকেটে নেমে ৬ বল খেলার সুযোগ পান বিরাট কোহলি। বর্তমান বিশ্বের অন্যতম সেরা এই ব্যাটসম্যান ট্রেন্ট বোল্টের গতির বলে এলবিডব্লিউ হন। রিভিউ নিয়েও উইকেট বাঁচাতে পারেননি তিনি। কোহলি ফেরেন মাত্র ১ রান করে।

চতুর্থ ওভারের প্রথম বলে ম্যাট হেনরির বলেই উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন অন্য ওপেনার লোকেশ রাহুল। তিনিও ফেরেন মাত্র এক রানে। বিশ্বকাপের ইতিহাসে প্রথম তিন ব্যাটসম্যান এভাবে ১ রান করে আউট হওয়ার রেকর্ড এবারই প্রথম।

মাত্র ৫ রানে ৩ ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে চরম বিপর্যয়ে পড়ে কোহলিরা।

দলের এমন কঠিন বিপর্যয়ের ম্যাচে হাল ধরবেন বলে দিনেশ কার্তিকের প্রতি ভরসা করেছিলেন ভারতীয় সমর্থকরা। দলের এই দুঃসময়ে তিনিও নিজে ত্রাতা হিসেবে আবির্ভূত হতে পারেননি।

ম্যাট হেনরির বলে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে জেমস নিশামের বাঁ-হাতের অসাধারণ ক্যাচে পরিণত হন কার্তিক। তার বিদায়ের মধ্য দিয়ে ১০ ওভারে মাত্র ২৪ রানে প্রথম সারির ৪ ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে চরম বিপদে পড়ে যায় ভারত।

পঞ্চম উইকেটে হার্দিক পান্ডিয়ার সঙ্গে ৪৭ রানের জুটি গড়ে দলকে খেলায় ফেরাতে চেষ্টা করেন রিশব প্যান্ট। আগের ১২ বলে মাত্র ১ রান নেয় ভারত। পরপর ডটবল খেলার কারণে বাউন্ডারি হাঁকাতে চেষ্টা করেছিলেন প্যান্ট। কিন্তু মিচেল স্যান্টনারের বল তুলে মারতে গিয়ে কলিন ডি গ্রান্ডহোমের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে ফেরেন তিনি। তার আগে ৫৬ বলে মাত্র ৩২ রান করেন রিশব প্যান্ট।

এরপর ২১ রানের ব্যবধানে মিচেল স্যান্টনারের দ্বিতীয় শিকার হন হার্দিক পান্ডিয়া। তার আগে ৬২ বলে ৩২ রান করেন তিনি। পান্ডিয়ার বিদায়ের মধ্য দিয়ে ৩০.৩ ওভারে ৯২ রানে ৬ উইকেট হারায় ভারত।

সপ্তম উইকেটে রবিন্দ্র জাদেজাকে সঙ্গে নিয়ে১১৬ রানের অনবদ্য জুটি গড়েন মহেন্দ্র সিং ধোনি। শেষ দিকে জাদেজা ও ধোনি আউট হলে তীরে গিয়ে তরী ডুবে ভারতের।

বিস্তারিত খবর

হারের মধ্য দিয়ে বিশ্বকাপ মিশন শেষ বাংলাদেশের

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৫ ১৫:০১:১৮

দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ২১ রানে জয় পেয়ে বিশ্বকাপ মিশন শুরু করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু টাইগারদের শেষটা হলো বড় হার দিয়ে। ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে শুক্রবার লিগ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৯৪ রানে হেরেছে মাশরাফি বিন মর্তুজার দল।

৯ ম্যাচ খেলে ৭ পয়েন্ট নিয়ে সপ্তম অবস্থানে থেকে বিশ্বকাপ মিশন শেষ হলো মাশরাফি-সাকিবদের। এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ তিন ম্যাচে জয় পেয়েছে। টাইগাররা হারিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আফগানিস্তানকে। আর শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে ম্যাচটি পরিত্যক্ত হয়েছিল। অন্যদিকে, পাকিস্তানেরও এটি ছিল শেষ ম্যাচ। ৯ ম্যাচ খেলে ১১ পয়েন্ট নিয়ে তারা পঞ্চম অবস্থানে থেকে বিশ্বকাপ শেষ করল। এবার সেমিফাইনালে উঠেছে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, ইংল্যান্ড ও নিউজিল্যান্ড। লিগ পর্ব থেকেই বাদ পড়েছে আফগানিস্তান, দক্ষিণ আফ্রিকা, ওয়েস্ট েইন্ডিজ, শ্রীলঙ্কা, বাংলাদেশ ও পাকিস্তান।

এদিন লন্ডনের লর্ডসে অনুষ্ঠিত ম্যাচটিতে পাকিস্তানের দেয়া ৩১৬ রানের জয়ের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ৪৪.১ ওভারে ২২১ রান করে অলআউট হয় বাংলাদেশ। এবারের বিশ্বকাপে এটি বাংলাদেশের সর্বনিম্ন স্কোর। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৪ রান করেন সাকিব আল হাসান। পাকিস্তানের তরুণ পেসার শাহীন শাহ আফ্রিদি ৯.১ ওভারে ৩৫ রান দিয়ে ৬টি উইকেট শিকার করেছেন। এছাড়া শাদব খান ২টি, ওয়াহাব রিয়াজ ১টি ও মোহাম্মদ আমির ১টি করে উইকেট শিকার করেছেন। 

ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ২৬ রানে প্রথম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। ইনিংসের ষষ্ঠ ওভারে মোহাম্মদ আমিরের বলে পয়েন্টে ফখর জামানের হাতে ক্যাচ হন সৌম্য সরকার। ২২ বল খেলে ২২ রান করেন তিনি। ১১তম ওভারে শাহীন আফ্রিদির বলে বোল্ড হন তামিম ইকবাল। ২১ বলে তিনি করেন ৮ রান। দলীয় ৭৮ রানে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম। ১৮তম ওভারে ওয়াহাব রিয়াজের বলে বোল্ড হন তিনি। ১৯ বলে তার সংগ্রহ ১৬ রান।

এরপর সাকিব-লিটন মিলে ৫৮ রানের জুটি গড়েন। দলীয় ১৩৬ রানে শাহীন আফ্রিদির বলে হারিস সোহেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরেন লিটন। ৪০ বল খেলে তিনি করেন ৩২ রান। দলীয় ১৫৪ রানে শাহীনের বলে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান দলের অন্যতম ভরসা সাকিব আল হাসান। ফেরার আগে তিনি করেন ৬৪ রান। এবারের বিশ্বকাপে এটি সাকিবের পঞ্চম হাফ সেঞ্চুরি। শ্রীলঙ্কা ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় সাকিব মোট ৮ ম্যাচ ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছেন। এর মধ্যে তিনি পাঁচ ম্যাচে হাফ সেঞ্চুরি ও দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি করেছেন। এবারের বিশ্বকাপে বর্তমানে তিনিই সেরা রান সংগ্রহকারী ব্যাটসম্যান।

সাকিব ফেরার পর দলের জয়ের আশা একেবারে ক্ষীণ হয়ে যায়। সাকিব ফেরার পর মাহমুদউল্লাহ ও মোসাদ্দেক মিলে দলকে এগিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছিলেন। তারা ৪৩ রানের জুটি গড়তে সক্ষম হন। ৪০তম ওভারে মোসাদ্দেক ফিরে গেলে নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারিয়ে ২২১ রানে অলআউট হয় টাইগাররা।

এদিন প্রথমে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ৩১৫ রান সংগ্রহ করে সরফরাজ আহমেদের দল। পাকিস্তানি ওপেনার ইমাম-উল-হক সেঞ্চুরি করেন। ১০০ রান করে আউট হন তিনি। বিশ্বকাপে এটি তার প্রথম সেঞ্চুরি। আর ওয়ানডেতে সপ্তম। ৯৬ রান করে আউট হন বাবর আজম। ২৬ বলে ৪৩ রান করেন ইমাদ ওয়াসিম। টাইগার পেসার মোস্তাফিজুর রহমান ১০ ওভারে ৭৫ রান দিয়ে ৫টি উইকেট শিকার করেন। এছাড়া মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ৩টি, ও মেহেদী হাসান মিরাজ ১টি করে উইকেট শিকার করেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ফল: ৯৪ রানে জয়ী পাকিস্তান।

পাকিস্তান ইনিংস: ৩১৫/৯ (৫০ ওভার)

(ফখর জামান ১৩, ইমাম-উল-হক ১০০, বাবর আজম ৯৬, মোহাম্মদ হাফিজ ২৭, হারিস সোহেল ৬, ইমাদ ওয়াসিম ৪৩, সরফরাজ আহমেদ ৩*, ওয়াহাব রিয়াজ ২, শাদব খান ১, মোহাম্মদ আমির ৮, শাহীন শাহ আফ্রিদি ০*; মেহেদী হাসান মিরাজ ১/৩০, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ৩/৭৭, মোস্তাফিজুর রহমান ৫/৭৫, মাশরাফি বিন মর্তুজা ০/৪৬, সাকিব আল হাসান ০/৫৭, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ০/২৭)।

বাংলাদেশ ইনিংস: ২২১ (৪৪.১ ওভার)

(তামিম ইকবাল ৮, সৌম্য সরকার ২২, সাকিব আল হাসান ৬৪, মুশফিকুর রহিম ১৬, লিটন দাস ৩২, মাহমুদউল্লাহ ২৯, মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ১৬, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ০, মেহেদী হাসান মিরাজ ৭*, মাশরাফি বিন মর্তুজা ১৫, মোস্তাফিজুর রহমান ১; মোহাম্মদ হাফিজ ০/৩২, মোহাম্মদ আমির ১/৩১, শাহীন শাহ আফ্রিদি ৬/৩৫, ওয়াহাব রিয়াজ ১/৩৩, ইমাদ ওয়াসিম ০/২৬, শাদব খান ২/৫৯)।

ম্যাচ সেরা: শাহীন শাহ আফ্রিদি (পাকিস্তান)।

বিস্তারিত খবর

আফগানিস্তানকে হারিয়ে টাইগারদের জয়

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-২৪ ১৪:২৮:১০

বিশ্বকাপের ৩১তম ম্যাচে আফগানিস্তানকে ৬২ রানে হারিয়ে আসরে তৃতীয় জয় তুলে নিলো বাংলাদেশ। আগে ব্যাট করে বাংলাদেশের দেয়া ২৬৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে ৪৭ ওভারে সবকটি উইকেট হারিয়ে ২০০ রান সংগ্রহ করতে সক্ষম হয় আফগানরা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ অপরাজিত (৪৯) রান করেন সানাউল্লাহ সিনওয়ারি।

এর আগে টস হেরে আগে ব্যাট করে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ২৬২ রান সংগ্রহ করে টাইগররা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ (৮৩) রান করেন মুশফিকুর রহিম। সাকিব আল হাসানের ব্যাট থেকে আসে (৫১) রান।

ভাগ্যের উপর নির্ভর করছে বাংলদেশের সেমিফাইনালে ওঠা। তবুও শেষ পর্যন্ত কতদূর যায়, এ আশায় আফগানদের বিপক্ষে জয়ের মিশনে মাঠে নামে বাংলাদেশে।

এদিকে বিশ্বকাপে এখন পর্যন্ত জয়হীন তকমা সেঁটে আছে আফগানদের গায়ে। এই বিস্ময়কর তকমা নিয়ে বাড়ি ফিরে যেতে চায় না নবী-রশিদরাও। তারাও চায় জয়ের ক্ষুধা মেটাতে।

এমন জয়ের নেশায় সাউদম্পটনের দ্য রোজ বোলে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ-আফগানিস্তান। বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ম্যাচটি শুরু হয়। টস জিতে আফগান অধিনায়ক গুলবাদিন নায়েব আগে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায় বাংলাদেশকে।

এই ম্যাচে বাংলাদেশ দল এনেছে দুটি পরিবর্তন। রুবেল হোসেনকে বাদ দিয়ে দলে ফেরানো হয়েছে মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। সাব্বির রহমানের জায়গায় ফিরলেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। ওপেনিংয়ে নিয়মিত ওপেনার সৌম্য সরকারের জায়গায় ব্যাট  করতে নামেন লিটন দাস।

এবারের বিশ্বকাপে এটি তৃতীয় ম্যাচ লিটন দাসের। আগের দুই ম্যাচে তিনি খেলেছেন মিডল অর্ডারে। ব্যাট করতে নেমেছেন ৫ নম্বরে। তবে আজ কী কারণে তাকে ওপেনিংয়ে নামানো হয়েছে তার কোন ব্যাখা টিম ম্যানেমেন্টের কাছ থেকে না পাওয়া গেলেও ধারণা করা হচ্ছে আফগান বোলিং অ্যাটাকের বৈচিত্রতার কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে দল।

আফগানিস্তানের হয়ে বোলিং ওপেন করেন তরুণ ডানহাতি অফ স্পিনার মুজিব উর রহমান। আর বামহাতি ব্যাটসম্যানদের জন্য ডানহাতি অফ স্পিনারদের খেলা কঠিন। আফগানদের আরেক ডানহাতি অফ স্পিনার মোহাম্মাদ নবীও বোলিং করেন শুরুর দিকে। বাংলাদেশ তাই একজন বামহাতি ওপেনারকে বদলে ডান হাতি লিটন দাসকে নামিয়েছে ওপেন করতে।

আবার মিডল অর্ডারে লেগ স্পিনার রশিদ খানকে মোকাবেলা করা ডানহাতি ব্যাটসম্যানদের জন্য কঠিন। বামহাতি ব্যাটসম্যনাদের জন্য কিছুটা সহজ। তাই সৌম্য সরকার সেখানে নামলে কিছুটা সমস্যায় পরবেন রশিদ খান। এই দুই বোলারকে টার্গেট করেই হয়তো ব্যাটিং অর্ডারে এমন পরিবর্তন এনেছে বাংলাদেশ।

এমন কৌশলি অবলম্বন করেও  যে মুজিবকে টার্গেট করে লিটনকে ওপেনিংয়ে নামানো হয়েছে তার বলেই আউট হয়ে ফেরেন তিনি। ইনিংসের পঞ্চম ওভারের দ্বিতীয় বলে শর্ট কাভার অঞ্চলে ক্যাট দেন লিটন দাস। দলীয় ২৩ এবং ব্যক্গিত ১৬ রান করে আউট হন লিটন। সৌম্য সরকারকে ৩ রানে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে চাপে ফেলে দিলেন আফগান লেগ স্পিনার মুজিবুর রহমান। ওয়ানডাউনে ব্যাট করতে নামেন সাকিব আল হাসান।  দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে তামিম-সাকিব দেখে-শুনে খেলে দলকে এগিয়ে নিতে চাইলেও দলীয় স্কোর ৮২ রান হলে তামিম ইকবাল বোল্ডে হয়ে যান মোহাম্মদ নবীর বলে। ৫৩ বলে ৩৬ রান করেন তামিম। চারে ব্যাট করতে নামে মুশফিকুর রহিমকে সঙ্গে নিয়ে ফের দলকে টেনে নিয়ে যেতে থাকেন সাকিব। এই জুটি  থেকে আসে ৬১ রান। এই ম্যাচে ৬৯ বলে ৫১ রান করে বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বকাপ ক্রিকেটে এক হাজার রান পূর্ণ করেন অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। দেশের হয়ে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকও সাকিব। তার পিছনেই এ তালিকায় রয়েছেন দুই সতীর্থ মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মুশফিকুর রহিম। এক হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করে, ২০১৯ বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহকের তালিকায়ও শীর্ষে উঠে এলেন বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার। শীর্ষন্থানে উঠা-নামার প্রতিযোগিতায় অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নারকে পিছনে ফেলে শীর্ষে ওঠেন তিনি। আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগে সাকিবরে সংগ্রহ ছিলো ৪২৫ রান। কিন্তু আফগানাদের বিপক্ষে ৫১ রান করায় এই অলরাউন্ডারের ঝুলিতে জমা হয় ৪৭৬ রান। যা তার নিকটতম প্রতিযোগীর চেয়ে ২৫ রান বেশি। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ওয়ার্নারের সংগ্রহ ৪৪৭ রান। ৫১ রান করে দলীয় ১৪৩ রানের মাথায় মুজিবের এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়ে ফেরেন সাকিব। মাঠে নেমে সৌম্য সরকার ৩ রান করে ফেরেন মুজিবের তৃতীয় শিকার হয়ে। ১৫১ রানে চার উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় বাংলাদেশ। সেখান থেকে ছয় নাম্বারে ব্যাট করতে নামা মাহমুদুল্লাকে নিয়ে চাপ সামলিয়ে দ্রুত রান তোলার চেষ্টা কারেন মুশফিক। কিন্তু আফগান বোলারদের ভালো বোলিংয়ের কাছে দ্রত রান উঠাতে ব্যর্থ হয় বাংলাদেশী ব্যাটসম্যানরা। ৩৮ বলে ২৭ রান করে গুলবাদিন নায়েবের বলে মোহাম্মদ নবীর তালুবন্দী হয়ে ফেরেন মাহমুদুল্লাহ। মাহমুদুল্লাহর পর ২৫১ রানের মাথায় দৌলত জাদরানের শিকার হয়ে ফেরেন মুশফিক। ৮৭ বলে ৪ চার ও এক ছয়ে ৮৩ রান করেন মুশফিক। শেষ দিকে মোসাদ্দেকের ২৪ বলে ৩৫ রানের কল্যাণে ৫০ ওভারে সাত উইকেট হারিয়ে ২৬২ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

আফগান বোলারদের মধ্যে মুজিবুর রহমান ৩টি, গুলবাদিন নায়েব ২টি, দৌলত জাদরান ও মোহাম্মদ নবী একটি করে উইকেট শিকার করেন।২৬৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আফগানিস্তানকে ভালো সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার রহমাত শাহ ও গুলবাদিন নায়েব। ১০.৫ ওভারে দুজনে তোলেন ৪৯ রান। ইনিংসরে ১১তম ও নিজের প্রথম ওভারের পঞ্চম বলে রহমত শাহকে ২৪ রানে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রো এনে দেন সাকিব আল হাসান। ওয়ানডাউনে ব্যাট করতে নামা হাসমাতউল্লাহকে দলীয় ৭৯ রানের মাথায় স্টাম্পিং করে টাইগারদের ম্যাচে ফেরান মুশফিক। এরপর ১০৪ রানের মাথায় গুলবাদিন নায়েবকে (৪৭) ও মোহাম্মদ নবীকে শূন্য রানে নিজের পঞ্ম ওভারে পর পর ফিরিয়ে আফগানিস্তানকে চাপে ফেলে দেন সাকিব । ১০৪ রানে চার উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে অনেকটা দূরে সরে যায় আফগানিস্তান। ষষ্ঠ ওভার করতে এসে প্রথম বলেই আসগর আফগানকে (২০) রানে ফিরিয়ে সামিব তুলে নেন নিজের চতুর্থ উইকেট। ১১৭ রানের মাথায় আফগান আসগ আউট হলে সাত নাম্বারে ব্যাট করতে নামেন ইকরাম আলি খিল। কিন্তু দলীয় ১৩২ রানের মাথায় ইকরাম ১১ রান করে লিটন দাসের থ্রোতে রান আউটের শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফিরলে, তখন শুধু জয়ের অপেক্ষায় থাকতে হয়ে বাংলাদেশকে। তবে সপ্তম উইকেট সামিউল্লাহ সিনওয়ারী ও নাজিবুল্লাহ জাদরান ব্যাট হাতে ফের বাংলাদেশী বোলারদের সামনে বাধা হয়ে দাঁড়ান। দু’জনে জুটতে তোলেন ৫৬ রান। শেষ দশ ওভারে আফগানদের প্রয়োজন পড়ে ৯৩ রান। এমনবস্থায় বড় শর্ট খেলা ছাড়া উপায় ছিলো না আফগান ব্যাটসম্যানদের সামনে। বক্সের বাইরে এসে বড় শর্ট খেলতে গিয়েই সাকিব আল হাসানের কৌশলের ফাঁদে পড়ে মুশফিকের স্ট্যাম্পিংয়ের শিকার হয়ে ২৩ বলে ২৩ রান করে ফেরেন নাজিবুল্লাহ। ব্যটে করতে এসে ২ রান করে মোস্তাফিজের বলে মাশরাফির তালুবন্দী হয়ে ফেরেন রশিদ খান। ১৯১ রানের ৮ উইকেট হারিয়ে ম্যাচ থেকে অনেকটাই ছিটকে যায় আফগানরা। দৌলত জাদরানকে মোস্তাফিজ ও মুজিবুর রহমানকে সাইফউদ্দিন শূন্য রানে তুলে নিলে ৪৭ ওভারে অলআউট হয়ে যায় আফগানিস্তান। শেষ পর্যন্ত ৫১ বলে ৩ চার ও এক ছয়ে দলের হয়ে সর্বোচ্চ (৪৯) রান করে অপরাজিত থাকেন সানাউল্লাহ সিনওয়ারি। ২০০ রানে থেমে যায় আফগানদের ইনিংস। আর তাতে বাংলাদেশ পায় ৬২ রানের দুর্দন্তদ জয়। এই জয়ে সেমিফাইনালের পথে টিকে রইলো বাংলাদেশ। যদি নাটকীয় কিছু ঘটে থাকে।

বাংলাদেশী বোলারদের মধ্যে সাকিব আল হাসান ৫টি, মোস্তাফিজুর রহমান ২টি, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন ও মোসাদ্দেক হোসেন একটি উইকেট শিকার করেন।

ব্যাট হাতে ৫১ রান এবং বল হাতে ১০ ওভারে এক মেডেন ওভারসহ ২৯ রানে ৫ উইকেট নিয়ে, ব্যাটে-বলে সেরা নৈপুণ্য দেখিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ নির্বাচিত হন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

বিস্তারিত খবর

উইন্ডিজের বিপক্ষে ইতিহাস গড়ে টাইগারদের জয়

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-১৭ ১৪:৩৭:২৩

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ইতিহাস গড়ে জয় পেল টাইগাররা। ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসে এই প্রথম ৩২২ রানের পাহাড় ডিঙিয়ে জয় পেল বাংলাদেশ। এর আগে গত বিশ্বকাপে স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ৩১৯ রানের রেকর্ড তাড়া করে জয় পেয়েছিল মাশরাফিরা।

সোমবার ইংল্যান্ডের টনটনে শাই হোপ, এভিন লুইস ও সিমরন হিতমারের ঝড়ো ফিফটিতে ৮ উইকেটে ৩২১ রানের পাহাড় গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৫১ বল হাতে রেখে ৭ উইকেটের দাপুটে জয় পায় বাংলাদেশ। দলের জয়ে সর্বোচ্চ ৯৯ বলে ১৬টি চারের সাহায্যে অপরাজিত ১২৪ রান করেন সাকিব আল হাসান। এছাড়া ৬৯ বলে ৮টি চার ও চারটি ছক্কায় অপরাজিত ৯৪ রানের ইনিংস খেলেন লিটন কুমার দাস। তার আগে ৫৩ বলে ৪৮ রান করেন তামিম ইকবাল।

উইন্ডিজের বিপক্ষে ৩২২ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করেন তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। উদ্বোধনী জুটিতে ৮.২ ওভারে ৫২ রান করেন তারা। ২৩ বলে ২৯ রান করে ফেরেন সৌম্য।

এরপর দ্বিতীয় উইকেটে সাকিব আল হাসানকে সঙ্গে নিয়ে ৬৯ রানের জুটি গড়েন তামিম। ৫৩ বলে ৪৮ রান করে রান আউট হয়ে ফেরেন তামিম। তার বিদায়ের পর রানের খাতা খুলতে না খুলতেই আউট হন মুশফিকুর রহিম। দলীয় ১৩৩ রানে সৌম্য সরকার, তামিম ইকবাল ও মুশফিকুর রহিমের বিদায়ের পর লিটন দাসকে সঙ্গে নিয়ে দলের হাল ধরেন সাকিব।

চতুর্থ উইকেটে সাকিব-লিটনের অবিচ্ছিন্ন ১৮৯ রানের জুটিতে জয় নিশ্চিত করে বাংলাদেশ। আর এই জুটিতেই বিশ্বকাপে দ্বিতীয় সেঞ্চুরি গড়ার পাশাপাশি ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৬ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন সাকিব।

বিশ্বকাপে বাংলাদেশের বিপক্ষে রানের পাহাড় গড়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। শাই হোপ (৯৬) ও এভিন লুইসের (৭০) অনবদ্য ব্যাটিংয়ে ৮ উইকেটে ৩২১ রানের পাহাড় গড়েছে ক্যারিবীয়রা। এছাড়া ২৬ বলে ৫০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন সিমরন হিতমার।

বিশ্বকাপে টাইগারদের বিপক্ষে উইন্ডিজের এটা সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। এর আগে ২০০৩ সালের বিশ্বকাপে খালেদ মাসুদ পাইলটের নেতৃত্বাধীন দলের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ২৪৪/৯ রান করেছিল কার্ল হুপারের নেতৃত্বাধীন ক্যারিবীয় দল।

সোমবার টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ৬ রানে ক্রিস গেইলের উইকেট হারিয়ে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় উইন্ডিজ। ব্যাটিং দানব গেইলকে দ্রুত আউট করে টাইগার শিবিরে খানিকটা স্বস্তির পরশ এনে দেন মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। কিন্তু সেই বিপর্যয় কাটিয়ে তুলেন শাই হোপ ও এভিন লুইস জুটি। দ্বিতীয় উইকেটে তারা অনবদ্য ১১৬ রানের জুটি গড়েন।

উইকেটে থিতু হওয়ার পর থেকেই একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে যান এভিন লুইস। ৫৮ বলে ফিফটি গড়ার পর বল আর মাটিতে ফেলতে দেননি। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা ক্যারিবীয় এই ওপেনারকে সাজঘরে ফেরান সাকিব আল হাসান। তার আগে ৬৭ বলে ৬টি চার ও দুই ছক্কায় ৭০ রান করেন লুইস।

সাকিবের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন নিকোলাস পুরান। বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে সৌম্য সরকারের হাতে ক্যাচ তুলে দেন পুরান। তার আগে ৩০ বলে ২৫ রান করেন তিনি।

পাঁচ নম্বর পজিশনে ব্যাটিংয়ে নেমে রীতিমতো তাণ্ডব চালান সিমরন হিতমার। একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে মাত্র ২৫ বলে ৫০ রান পূর্ণ করেন তিনি। ফিফটি করার পরের বলে মোস্তাফিজুর রহমানের কাটারে তামিম ইকবালের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন হিতমার।

এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে সুবিধা করতে পারেননি আন্দ্রে রাসেল। কাটার মাস্টারের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হয়ে সাজঘরে ফেরেন রাসেল। ব্যাটিংয়ে ঝড় তুলেও বেশি দূর যেতে পারেননি ক্যারিবীয় অধিনায়ক জেসন হোল্ডার। সাইফউদ্দিনের দ্বিতীয় শিকারে পরিণত হওয়ার আগে মাত্র ১৫ বলে চারটি চার ও দুটি ছক্কায় ৩৩ রান করেন হোল্ডার।

ব্যাটসম্যানদের এই আসা-যাওয়ার মিছিলে ব্যতিক্রম ছিলেন শাই হোপ। ওয়ান ডাউনে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরু থেকেই দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেন তিনি। ৭৭ বলে ফিফটি করার পর একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকিয়ে যান তিনি। মোস্তাফিজুর রহমানের তৃতীয় শিকারে পরিণত হওয়ার আগে ১২১ বলে ৪টি চার ও এক ছক্কায় ৯৬ রান করেন হোপ। ইনিংসের শেষ দিকে ১৫ বলে ১৯ রান করে সাইফউদ্দিনের তৃতীয় শিকারে পরিণত হন ড্যারেন ব্রাভো।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ওয়েস্ট ইন্ডিজ: ৫০ ওভারে ৩২১/৮ (শাই হোপ ৯৬, এভিন লুইস ৭০, হিতমার ৫০, হোল্ডার ৩৩, নিকোলাস ২৫, ড্যারেন ব্রাভো ১৯; মোস্তাফিজ ৩/৫৯, সাইফউদ্দিন ৩/৭২, সাকিব ২/৫৪)।

বাংলাদেশ: ৪১.৩ ওভারে ৩২২/৩ (সাকিব ১২৪*, লিটন ৯৪*, তামিম ৪৯, সৌম্য ২৯, মুশফিক ১)।

ফল: বাংলাদেশ ৭ উইকেটে জয়ী।

ম্যাচসেরা: সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ)।

বিস্তারিত খবর

জয় দিয়ে শুরু টাইগারদের বিশ্বকাপ যাত্রা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-০২ ১৭:৪১:০২

বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে দক্ষিণ আফ্রিকাকে ২১ রানে হারিয়ে বিশ্বকাপ স্বপ্ন যাত্রা শুরু করল বাংলাদেশ। টাইগারদের দেয়া ৩৩১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেট হারিয়ে ৩০৯ রান করতে সক্ষম হয় দক্ষিণ আফ্রিকা। দলের হয়ে সর্বোচ্চ ৬২ রানের ইনিংস খেলেন ডু প্লেসিস।

আগে ব্যাট করে মুশফিকুর রহিমের (৭৮) ও সাকিব আল হাসানের (৭৫) অর্ধশতক এবং শেষ দিকে মাহমুদুল্লাহ-মোসাদ্দেকের ঝড়ো ব্যাটিংয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৩৩০ রান সংগ্রহ করে টাইগাররা।

রোববার লন্ডনের কেনিংটন দ্য ওভাল স্টেডিয়ামকে লাল-সবুজ পতাকা রঙে রঙিন করেছে বাংলাদেশী দর্শকরা। খেলার শুরু থেকে দর্শকদের মুখে ‘বাংলাদেশ জিন্দবাদ’ শব্দে মুখোরিতে হয় পুরো স্টেডিয়াম। রোববার বাংলাদেশ সময় বিকেল সাড়ে ৩টায় ম্যাচটি শুরু হয়। দ্য ওভাল স্টেডিয়ামে টসে জিতে দক্ষিণ আফ্রিকার অধিনায়ক ফাফ ডু প্লেসিস আগে ব্যাটিংয়ে পাঠায় বাংলাদেশকে।

ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনা করে বাংলাদেশের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার। ৭ ওভারেই স্কোর বোর্ডে ৫০ রান তোলেন দুই ওপেনার। দলীয় ৬০ রানের মাথায় আন্দিল পেহলিকায়োর বলে ব্যক্তিগত ১৬ রান করে ফেরেন তামিম ইকবাল । তামিম ফিরে গেলে স্থায়ী হতে পারেননি সৌম্য সরকারও। দলের ৭৫ রানের মাথায় ক্রিস মরিসের শিকার হন তিান। ৩০ বলে ৯ চারে ৪২ রান করেন সৌম্য। তৃতীয় উইকেট জুটিতে সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিমের ১৪২ রানের জুটতে বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দেন দলকে। ৭৫ রানে বাংলাদেশ যখন ২ উইকেট হারায় সেখান থেকে দলকে দুজনে মিলে টেনে নিয়ে যান ২১৭ রানে। ইমরান তাহিরের শিকার হয়ে ৮৪ বলে ৮ চার ও এক ছয়ে ৭৫ রানে ফিরে যান সাকিব। সাকিব আউট হলে, ব্যাট করতে নেমে মোহাম্মদ মিথুন করেন ২১ রান। দলকে এগিয়ে নেয়া মুশফিক ৮০ বলে ৮ চারে ৭৮ রান করে দলীয় ২৫০ রানের মাথায় পেহলুকায়োর দ্বিতীয় শিকার হন তিনি। রান। শেষ দিকে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ ও মোসাদ্দেক হোসেন মিলে ছয় ওভারে তোলেন ৬৬ রান। মোসাদ্দেক ২০ বলে ২৬ রান মরিসের শিকার হন। রিয়াদের ব্যাট থেকে আসে ৩৩ বলে ৩ চা্র ও এক ছয়ে ৪৬ রান। ৪ রান নিয়ে অপরাজিত থাকেন মেহেদি হাসান মিরাজ। শেষ পর্যন্ত ৫০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩৩০ রান সংগ্রহ করে বাংলাদেশ।

আফ্রিকান বোলারদের মধ্যে আন্দিল পেহলুকায়ো, ইমরান তাহির ও ক্রিস মরিস ২টি করে উইকেট শিকার করেন।

৩৩১ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা ভালো হলেও দলীয় ৪৯ রানের মাথায় মুশফিকের হাতে রান আউটের শিকার হয়ে ২৩ রান করে ফেরেন ডি কক। ওয়ানডাউনে নেমে ডু প্লেসিস ওপেনার মাকরামকে নিয়ে বড় জুটির ইঙ্গিত দিলেও তা বড় করতে দেননি সাকিব। জুটিতে ৫৩ রান আসলে দলীয় ১০২ রানের মাথায় ব্যক্তিগত ৪৫ রানে মার্করামকে বোল্ড করে জুটি ভাঙেন সাকিব। ১৪৭ রানের মাথায় ৩৩তম হাফসেঞ্চুরি (৬২) করে মিরাজের শিকার হয়ে প্যাভিলিয়নে ফেরেন ডু প্লেসিস। চতুর্থ উইকেট জুটিতে ডেভিড মিলার  ও ভ্যান ডার দুসেন মিলে করেন ৫৩ রান। দলীয় স্কোর ২০২ রানের মাথায় মিলারকে ৩২ রানে ফিরিয়ে বেক থ্রো এনে দেন মোস্তাফিজ। ৪১ রান করা ভ্যান ডার দুসেনকে ফেরান সাইফউদ্দিন। দুসেনের উইকেট ছিল বিশ্বকাপের সাইফের প্রথম উইকেট। নিজের পঞ্চম ওভারে ফের আঘাত হানেন সাইফ। আন্দিল পেহলুকায়োকে ফেরান ৮ রানে। দলের বিপর্যয়ের মুহূর্তে ব্যাট করতে নেমে ক্রিস মরিস ১০ রান করে মোস্তাফিজের শিকার হয়ে দলকে আরো বিপদে ঠেলে দেন। শেষ দিকে দলের যখন ১৭ বলে ৪৪ রান প্রয়োজন তখন ছয় নাম্বর পজিশনে ব্যাট করতে নামা জেপি ডুমিনি ছিল একমাত্র ভরসা। মোস্তাফিজের অষ্টম ওভারে ৩৭ বলে ৪৫ রান করে বোল্ড হয়ে ফেরেন ডুমিনি। শেষ দুই ওভারে আফ্রিকার প্রয়োজন পড়ে ৪০ রান। কিন্তু বোলারদের দ্বারা তা অসম্ভবই ছিলো। শেষদিকে রাবাদার ১৩ ও ইমরান তাহিরের ১০ রানের সুবাধে ৫০ ওভারে  ৮্উইকেট হারিয়ে ৩০৯ রানে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস থেমে যায়। আর তাতে বাংলাদেশ ২১ রানে পায় এই বিশ্বকাপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ঐতিহাসিক জয়।

বাংলাদেশী বোলারদের মধ্যে মোস্তাফিজুর রহমান ৩টি, সাইফউদ্দিন ২টি, সাকিব আল হাসান ও মেহেদি হাসান মিরাজ একটি করে উইকেট শিকার করেন।

ব্যাট হাতে ৭৫ রান ও বল হাতে এক উইকেট নিয়ে ম্যাচ সেরা হন টাইগার অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান।

বিস্তারিত খবর

অনুর্ধ-১৯ জাতীয় ক্রিকেট দলে খেলতে তালহা যাচ্ছে বাংলাদেশ

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-৩১ ১৪:২২:০৬

বাংলাদেশ সরকারের সাবেক সিনিয়র কর্মকর্তা সমাজহিতৈষী এবং লেখক শামস চৌধুরী। তার সহধর্মিনী নাজনীন, দু'ছেলে শিহাব ও তালহা আর পুত্রবধূ অধরাকে নিয়ে পরিবার। তালহা সবার ছোট। সে আমেরিকার ভার্জিনিয়া রাজ্যের 'জর্জ ম্যাসন বিশ্ববিদ্যালয়ে' ২য় বর্ষে আর শিহাব 'ইউনিভার্সিটি অফ মেরিল্যান্ড' এ শেষ বর্ষের ছাত্র। তালহা পড়ছে প্রি-মেড এ। লক্ষ্য: ডাক্তার হয়ে বাংলাদেশের সুবিধাবঞ্চিত রোগীদের পাশে দাঁড়াবে।

লিখাপড়ার পাশাপাশি খেলাধুলাতেও তালহা চৌকষ। ও এখন ১৮। এবছর ওয়াশিংটন ডিসি ক্রিকেট লীগে ১২টি ম্যাচে ৪৩টি উইকেট আর ৮ শতাধিক রান করে তালহা Most Valuable Crickter of the Year and Best Wicket Taker হিসেবে মনোনীত/পুরস্কৃত হয়েছে।

অফস্পিন আর ব্যাটসম্যান হিসেবে সে ভালো একজন অলরাউন্ডার। আমেরিকার জাতীয় ক্রিকেট দলে ডাক পেয়েছে বেশ আগেই। বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলের কয়েকজন সফল ক্রিকেটার ও নির্বাচক খুব পছন্দ করে তালহাকে। তারা মনে করে তালহার মধ্যে বাংলাদেশকে দেবার মতো অনেক প্রতিভা লুকিয়ে আছে। তাই জানুয়ারী ২০২০-এ অনুর্ধ-১৯ বিশ্বকাপ প্রতিযোগিতায় অংশ নেবার জন্যে বাংলাদেশে অনুশীলন ক্যাম্পে যোগ দেবার জন্যে ডাক দিয়েছে জাতীয় ক্রিকেট দলের নির্বাচকমন্ডলী। প্রাথমিকভাবে দ্বিধা-দ্বন্দে থাকলেও এখন ক্রিকেট জগতে তালহার জন্যে শুভকামনা করছে তার বাবা ।তিনি ছেলের জন্য দোয়া চেয়েছেন সবার কাছে।

বিস্তারিত খবর

বিশ্বকাপ ক্রিকেট শুরু, প্রথম জয় ইংল্যান্ডের

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-৩০ ১৫:২৬:২৫

২০১৯ বিশ্বকাপের সবচেয়ে ফেভারিট দল ধরা হয়েছে যাদের তারাই আজ দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে আসরের শুরুটা করল ফেভারিটের মতো করে। দক্ষিণ আফ্রিকা পাত্তাই পেল না স্বাগতিক ইংল্যান্ডের কাছে।

লন্ডনের ওভালে টস টা জেতা হয়নি ইংল্যান্ডের। টসে হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ পায় প্রোটিয়া অধিনায়কের ফাফ ডূ পিএসির কাছ থেকে। নিজেদের মাঠে ইংল্যান্ড কতটা ভয়ানক সেটির প্রমাণ বিশ্বকাপের আগেই দিয়েছে। যদিও আজ তেমনটা খেলতে পারেনি ব্যাট হাতে।

প্রোটিয়া লেগ স্পিনার ইমরান তাহিরের করা ইনিংসের প্রথম ওভারেই শূন্য রানে সাজঘরে ফেরেন জনি বেয়ারেস্ট্রো। এরপর দ্বিতীয় জুটিতে আসে জোড়া অর্ধশতক। দুই নম্বর জুটিতে জেসন রয় ও জো রুটের ব্যাট থেকে আসে ১০৭ রান। রয় করেন ৫৪ আর রুট করেন ৫১ রান।

এই দুইজনের বিদায়ের পর আবারও জোড়া অর্ধশতক আসে এউইন মরগ্যান আর বেন স্টোকসের ব্যাটে। মরগ্যানকে ৫৭ রানে থামান ইমরান তাহির। এরপর বেন স্টোকসের ৮৯ রানে ভর করে ৫০ ওভারে ৩১১ পর্যন্ত তুলতে পারে ইংলিশরা।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে ৩ উইকেট নেন নিগিদি। ২টি করে উইকেট নেন ইমরান তাহির ও কাগিসো রাবাদা আর ১ উইকেট নেন অ্যান্ডিল ফেহলুকায়ো।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে ব্যক্তিগত ৫ রানের মাথায় জোফরা আর্চারের বাউন্সে মাথায় আঘাত পেয়ে মাঠ ছাড়েন ওপেনার হাশিম আমলা। এরপরেই যেন দিক ভুলে যান প্রোটিয়ারা।

ইংলিশ পেসার জোফরা আর্চারের কাছে ভেঙে পড়ে প্রোটিয়াদের টপ অর্ডার। এইডন মার্কারামকে ১১ আর ফাফ ডু প্লেসিকে ৫ রানে ফেরান বিশ্বকাপের অভিষেক ম্যাচে।

এরপর ভেন ডার ডুসেন ও ওপেনার কুইন্টন ডি ককের ৮৫ রানের জুটিও বিপদ মুক্ত করতে পারেনি দক্ষিণ আফ্রিকাকে।

ডি কককে ৬৮ রানে ফেরান লিয়াম প্লাঙ্কেট আর ডুসেনকে ৫০ রানের মাথায় ফেরান সেই আর্চার।

অ্যান্ডিল ফেহলুকায়ো যখন প্রোটিয়াদের আশা দেখাচ্ছিলেন তখন আবারও ব্যাট করতে আসেন হাশিম আমলা। আর্চারকে ডিপ মিড উইকেট দিয়ে যেই ছয় হাঁকাতে গেলেন ফেহলুকায়ো, ঠিক সেই জায়গায় যে ক্যাচটা ধরলেন বেন স্টোকস সেটা হয়তো টুর্নামেন্টের সেরা ক্যাচ হয়েই থাকবে।

অ্যান্ডিল ফেহলুকায়ো ২৪ রানে ফেরার ৪ ওভার পরেই আমলাকে ১৩ রানে ফেরান প্লাঙ্কেট।

এরপরই স্বপ্ন ভঙ্গের শুরু দক্ষিণ আফ্রিকার। ৩১২ রানের লক্ষ্য টপকাতে নেমে ২০৭ রানেই থামতে হলো ৩৯.৪ ওভারে।

স্বাগতিক ইংল্যান্ড মাঠ ছাড়ে ১০৪ রানের রাজকীয় জয় নিয়ে। আর্চার নেন ৩টি, ২টি করে উইকেট নেন লিয়াম প্লাঙ্কেট ও বেন স্টোকস আর ১টি করে উইকেট নেন আদিল রশীদ ও মঈন আলী।

বিস্তারিত খবর

এবার ক্রিকেট বিশ্বকাপে যোগ হচ্ছে ‘লাল কার্ড’

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২৯ ১৩:২২:১১

বৃহস্পতিবার (৩০মে) ওভালে ইংল্যান্ড-দক্ষিণ আফ্রিকার ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে দ্বাদশতম ক্রিকেট বিশ্বকাপের আসর। টানা ৪৬ দিনে ৪৮ ম্যাচের এ বিশ্বকাপের পর্দা নামবে ১৪ জুলাই, লর্ডসে।

আসরটিকে ঘিরে উন্মাদনা ছড়িয়ে পড়েছে পুরো বিশ্বে। এদিকে শুরু হওয়া এই বিশ্বকাপে থাকছে লাল কার্ড দেখানোর নিয়ম। মাঠে ক্রিকেটারদের খারাপ ব্যবহার বন্ধ করার জন্য 'লাল কার্ড' অর্থাৎ খেলোয়াড়কে মাঠ থেকে বের করে দেয়া এবং বিপক্ষকে পাঁচ রান বোনাস দেয়ার আইন চালুর পর এবারই প্রথম ক্রিকেট বিশ্বকাপ হচ্ছে।

এই নিয়ম চালুর পর ক্রিকেটারের সম্ভাব্য অসদাচরণকে চার স্তরে ভাগ করা করা হয়েছে।

লেভেল ওয়ান: অতিরিক্ত আপিল করা বা আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত না মানার ভাব দেখানো। শাস্তি হচ্ছে সতর্কবাণী, আর দ্বিতীয়বার একই কাজ করলে শাস্তি হিসেবে বিপক্ষকে পাঁচ রান দেয়া হবে।

লেভেল টু: কোন খেলোয়াড়ের দিকে বল ছোঁড়া বা উদ্দেশ্যমূলকভাবে গায়ে গা লাগানো। শাস্তি : বিপক্ষের জন্য পাঁচটি পেনাল্টি রান।

লেভেল থ্রি: আম্পায়ারকে ভীতি প্রদর্শন, অন্য কোন খেলোয়াড় কর্মকর্তা বা দর্শককে আক্রমণের হুমকি দেয়া। শাস্তি : বিপক্ষকে পাঁচটি পেনাল্টি রান, এবং দোষী খেলোয়াড়কে নির্দিষ্ট সংখ্যক ওভারের জন্য মাঠ থেকে বের করে দেয়া।

লেভেল ফোর: আম্পায়ারকে হুমকি বা মাঠে কোন ধরনের সহিংস আচরণ। শাস্তি : বিপক্ষকে পাঁচটি পেনাল্টি রান এবং দোষী ক্রিকেটারকে ম্যাচের বাকি সময়টুকুর জন্য মাঠ থেকে বের করে দেয়া।

এর আগে ২০০৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রথম আন্তর্জাতিক টি২০ ম্যাচে অকল্যান্ডের ইডেন পার্কে মুখোমুখি হয় অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড। দুই দলই ম্যাচটিকে খুবই হালকা ভাবে নিয়েছিল। জার্সিও পরেছিল আশির দশকের জার্সির মতো। অস্ট্রেলিয়া একপেশে ভাবেই জিতে নিয়েছিল ম্যাচটি। আর ফল নিশ্চিত দেখে ম্যাচের শেষ বলটিতে ম্যাকগ্রা আন্ডারআর্ম ডেলিভারি দিয়েছিলেন। মানে হাত না ঘুরিয়ে বল গড়িয়ে দেন।

কম যান না আম্পায়ার বিলি বাউডেনও। আন্ডারআর্ম বল করার পর বিলি পকেট থেকে একটা লাল কার্ড বের করে ম্যাকগ্রাকে দেখিয়ে দিলেন! যদিও পুরো ঘটনাটিই মজা ছিল। ওই ঘটনাটি মজার হলেও এবার ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য ক্রিকেট বিশ্বকাপে চালু হল লাল কার্ডে প্রচলন।

বিস্তারিত খবর

ত্রিদেশীয় সিরিজ জিতল টাইগাররা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৭ ১৬:১০:১০

প্রথমে সৌম্য সরকারের ঝড়, এরপর শেষ দিকে এসে ঝড় তুললেন মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত। সৌম্যর ২৭ বলে হাফ সেঞ্চুরির পর মোসাদ্দেকের ২০ বল হাফ সেঞ্চুরি। এই দুই ঝড়ো ইনিংসের ওপর ভর করে এই প্রথম নিজেদের ক্রিকেট ইতিহাসে কোনো টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন হলো বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ৫ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবারের মতো ওয়ানডেতে ফাইনাল জিতল বাংলাদেশ। আর বাংলাদেশের এ কাব্যিক জয়ের মূল কারিগর সৌম্য সরকার আর মোসাদ্দেক হোসেন।

ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে ২৪ ওভারে ২১০ রানের বিশাল লক্ষ্য পাড়ি দিতে নেমে মোসাদ্দেকে ঝড়ের সামনে ৭ বল হাতে রেখেই চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ। ২৪ ওভারে নেমে আসা ম্যাচে বাংলাদেশের লক্ষ্য ছিল ২১০ রান। কঠিন সমীকরণ মেলাতে গিয়ে ১৫.৪ ওভারেই ১৪৩ রানে ৫ উইকেট হারাল বাংলাদেশ। ৪৮ বলে দরকার ৬৫ রান। জয়ের স্বপ্ন কি এবারও অধরা থাকবে? ঠিক এই সময়ই আবির্ভাব মোসাদ্দেকের।

১৮ বলে যখন দরকার ২৭ রান, ম্যাচটা চকিতে নিজেদের হাতের মুঠোয় আনলেন মোসাদ্দেক। অ্যালেনের করা ২২তম ওভারে ৬, ৬, ৪, ৬, ২, ১—২৫ রান তুলে এক ঝটকায় সমীকরণ করে ফেললেন একেবারে সহজ। এরই ফাঁকে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে সবচেয়ে দ্রুততম ফিফটির রেকর্ডও গড়লেন মোসাদ্দেক।

এর আগে ওপেনার সৌম্য সরকারের ব্যাটে জয়ের স্বপ্নটা চওড়া হচ্ছিল খুব। ২৭ বলে হাফ সেঞ্চুরি করে সেটা আরও বাড়িয়ে দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু ৪১ বলে ৬৬ রান করার পর সৌম্য বিদায় নিতেই জয়ের কাজটা ধীরে ধীরে কঠিন হতে শুরু করে।

মুশফিকুর রহিম, মোহাম্মদ মিঠুনরাও চেষ্টা করেন রানের চাকা সমানতালে এগিয়ে নিতে। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়তে থাকায় সেটা হয়েছে আরো কঠিন। দলীয় ১০৯ রানের মাথায় রেমন রেইফারের স্পিন ঘূর্ণিতে বিভ্রান্ত হয়ে ছক্কা মারতে গিয়ে লং অনে সেলডন কটরেলের হাতে ধরা পড়েন সৌম্য। মুশফিকুর রহিম করেন ২২ বলে ৩৬ রান। মিঠুনের ব্যাট থেকে আসে ১৪ বলে ১৭ রান।

এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ প্রথমে ব্যাট করে ২৪ ওভারে করে ১৫২ রান। আর ফাইনাল জিততে ডাকওয়ার্থ লুইস মেথডে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়ায় ২১০ রান। জয়ের জন্য ২১০ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উড়ন্ত সূচনাই করে বাংলাদেশ। দুই ওপেনার তামিম ইকবাল এবং সৌম্য সরকারের উড়ন্ত সূচনার পর ৫.৩ ওভারেই তারা গড়ে ফেলে ৫৯ রানের জুটি। এরপর ১৩ বলে ১৮ রান করে আউট হয়ে যান তামিম ইকবাল।

তিন নম্বরে ব্যাট করতে নামেন সাব্বির রহমান। কিন্তু যে কারণে তাকে আগে নামানো হলো, সেটা মোটেও কাজে লাগলো না। শ্যানন গ্যাব্রিয়েলের বলে এলবিডব্লিউ হয়ে কোনো রান না করেই ফিরে গেলেন সাব্বির রহমান। সাকিব আল হাসান না থাকার অভাবটা ভালোই টের পাওয়া গেলো। চার নম্বরে ব্যাট করতে নামেন মুশফিকুর রহিম। কিন্তু মুশফিককে বিদায় করে দিয়ে বাংলাদেশকে চাপে ফেলে দেন রেইফার। মুশফিক বিদায় নেন ২২ বলে ৩৬ রান করে। সেই বিপদ আরও বেড়ে যায় মোহাম্মদ মিঠুন দারুণ কিছু শট খেলে ১৭ রানে ফিরলে। তাকে এলবিডাব্লিউর ফাঁদে ফেলেন ফাবিয়ান অ্যালেন। এরপর অবশ্য আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি। সৌম্যর গড়ে দেয়া মঞ্চে ঝড়ো ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশকে প্রথমবার কোনও টুর্নামেন্টে চ্যাম্পিয়ন করিয়ে মাঠ ছাড়েন মোসাদ্দেক হোসেন ও মাহমুদউল্লাহ।

মোসাদ্দেকের হাতে সমাপ্তি, কিন্তু শুরুটা করেছিলেন সৌম্য সরকার। বাঁহাতি ওপেনারের ৪১ বলে ৬৬ রানের দুর্দান্ত ওই ইনিংসটা গড়ে দিয়েছে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালের ভিত্তি। বৃষ্টিবাধায় ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমে আসায় কঠিন লক্ষ্য, আম্পায়ারিং নিয়ে প্রশ্ন—সব বাধা উতরে বাংলাদেশ দূর করেছে অতীতের ৬টি ফাইনাল হারের দুঃখ। লিখেছে নতুন ইতিহাস।

বিস্তারিত খবর

আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে টাইগারদের জয়

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৫ ১৬:০৬:৪৭

ফাইনাল নিশ্চিত হয়ে গিয়েছে আগেই। ফলে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষের ম্যাচটি ছিল নিছক আনুষ্ঠানিকতার। সেই আনুষ্ঠানিকতার ম্যাচটিও সহজেই জিতে নিল বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার আয়ারল্যান্ডকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে টাইগাররা।

আজকের ম্যাচে একাদশ নিয়ে কিছুটা পরীক্ষা নিরীক্ষার চালিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। কয়েকটি পরিবর্তন এনেছিল বাংলাদেশ। ধারাবাহিক সৌম্য সরকারকে বিশ্রামে দিয়ে বাজিয়ে দেখেছে লিটন দাসকে। আর সুযোগ পেয়েই তা কাজে লাগিয়েছেন এই ওপেনার। তামিম ইকবালের সাথে গড়েছেন শতরানের জুটি। সেই সাথে নিজে খেলেছেন ৭৬ রানের দুর্দান্ত ইনিংস। এছাড়া সাকিব আল হাসান ব্যাট হাতে আজও ছিলেন উজ্বল। আহত হয়ে মাঠ ছাড়ার আগে করেছেন ৫০ রান।

হাফ সেঞ্চুরি পূর্ণ করেছেন তামিম ইকবালও। বাঁ-হাতি এই ওপেনার ৫৩ বলে করেছেন ৫৭ রান। টপ অর্ডারের এমন সাফল্যে সহজেই আইরিশদের দেওয়া বড় রানের চ্যালেঞ্জ টপকে গেছে বাংলাদেশ।

এদিন প্রথমে ব্যাট করে পল স্টার্লিং ও উইলিয়ামস পোর্টারফিল্ডের ব্যাটে ভর দিয়ে নির্ধারিত ৫০ ওভারে ৮ উইকেটে ২৯২ রান সংগ্রহ করে আয়ারল্যান্ড। দুইজন মিলে গড়েছেন ১৭৪ রানের জুটি। মাশরাফি-সাকিবদের হতাশায় পুড়িয়ে সেঞ্চুরি তুলে নেন স্টার্লিং। ৪টি ছক্কা ও ৮টি চারে সাজিয়ে ১৪১ বলে ১৩০ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলেছেন এই ওপেনার। পোর্টারফিল্ড করেছেন ৯৪ রান।

গত ম্যাচে অভিষিক্ত আবু জায়েদ রাহী ক্যারিয়ারের প্রথম ম্যাচে ছিলেন উইকেট শূন্য। তবে দ্বিতীয়বার সুযোগ পেয়েই কাজে লাগিয়েছেন তা। তুলে নিয়েছেন ৫ উইকেট। রুবেল হোসেন নিয়েছেন ১ উইকেট। তবে বল হাতে আজ বাজে দিন গিয়েছে সাকিব আল হাসানের। গত দুই ম্যাচের সবচেয়ে কৃপণ বোলারটির আজ ইকোনোমি ছিল সাতের ওপরে।

এদিকে জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪২ বল হাতে রেখেই ৬ উইকেটের জয় তুলে নেয় বাংলাদেশ। টপ অর্ডারের সাফল্যকে দারুণ ফিনিশিং দেন মাহমুদউল্লাহ। ৪৩ রানে অপরাজিত থেকে ৪৩ ওভারে বাংলাদেশকে পৌঁছে দেন ২৮৯ রানে। আজই প্রথম ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়েছেন সাব্বির রহমান। তবে একেবারে শেষ দিকে। ফলে সাত বলে অপরাজিত ২ রান নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাকে। মুশফিকুর রহীম করেছেন ৩৫ রান। আজকের ম্যাচে প্রথম সুযোগ পাওয়া মোসাদ্দেক হোসেন আউট হয়েছেন ব্যক্তিগত ১৪ রানে।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

আয়ারল্যান্ড : ২৯২/৮ (৫০ ওভার) (স্টার্লিং ১৩০, পোর্টারফিল্ড ৯৪, উইলসন ১২; রাহী ৫/৫৮, সাইফুদ্দিন ২/৪৩, রুবেল ১/৪১)।

বাংলাদেশ : ২৯৪/৪, (৪৩ ওভার) (লিটন ৭৬, তামিম ৫৭, সাকিব ৫০, মুশফিক ৩৫, মাহমুদউল্লাহ ৩৫*, মোসাদ্দেক ১৪, সাব্বির ৭*; রানকিন ২/৪৮)।

ফলাফল : বাংলাদেশ ৬ উইকেটে জয়ী।
ম্যান অব দ্য ম্যাচ : আবু জায়েদ রাহী।

বিস্তারিত খবর

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৩ ১৭:২৭:৩৯

ত্রিদেশীয় সিরিজে যেমনটা আশা করা হয়েছিল, ঠিক তেমনটাই হয়েছে। ফাইনালে খেলার লক্ষ্য নিয়েই ত্রিদেশীয় সিরিজ খেলতে আয়ারল্যান্ড গিয়েছিল বাংলাদেশ। যদিও স্বাগতিক আয়ারল্যান্ড ঘরের মাঠে কম শক্তিশালী না। তার উপর সিরিজের প্রথম ম্যাচে আয়ারল্যান্ডকে ১৯৬ রানে হারিয়ে ভয় ধরিয়ে দিয়েছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

টাইগাররা সেই ভয় জয় করেছিল সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজকে প্রথম ম্যাচে হারিয়ে যখন স্বাগতিক আয়ারল্যান্ডকে হারানোর ভাবনা, তখনই বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল বৃষ্টি। একটা ম্যাচ পণ্ড। সমান দুই পয়েন্ট পায় দুই দল।

আজ সিরিজের পঞ্চম ম্যাচে বাংলাদেশ নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে মুখোমুখি হয় ডাবলিনে।

টস জিতে ক্যারিবিয় অধিনায়ক সিদ্ধান্ত নেন প্রথমে ব্যাট করার। প্রতিপক্ষের দুই উদ্বোধনী শাই হোপ আর সুনীল অ্যামব্রিস জুটি এগোতে পারেনি বেশিদূর। অ্যামব্রিসকে ২৩ রানে থামিয়ে দেন মাশরাফি বিন মুর্তজা।

এরপর টানা ৩ উইকেট পড়ে যায় খুব দ্রুতই। ডোয়াইন ব্রাভোকে ৬ রানে মেহেদী মিরাজ, রোস্টন চেজকে ১৯ ও জনাথন কার্টারকে মাত্র ৩ রানে ফেরান মোস্তাফিজুর রহমান।

এর ভেতর শাই হোপ আর জেসন হোল্ডার গড়ে ফেলেন শতরানের জুটি। এই জুটি ভাঙেন মাশরাফি। হোপকে আজ আর শতক হাঁকাতে দেননি বাংলাদেশ অধিনায়ক। দলকে আশাহত করে হোপ ফেরেন ৮৭ রানে। এরপর হোল্ডারকেও ফেরান তিনি ব্যক্তিগত ৬২ রানের মাথায়।

৫০ ওভার শেষ উইন্ডিজদের দলীয় রান হয় ৯ উইকেটে ২৪৭। নিজের অভিষেক ম্যাচে ৯ ওভার বোলিং করলেও কোনও উইকেট পাননি তিনি, দিয়েছেন ৫৬ রান। মাশরাফি নেন ৬০ রানে ৩ উইকেট। মিরাজ নেন ১টি, সাকিবের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ১০ ওভারে দেন মাত্র ২৭ রান, নেন ১টি উইকেট।

মুস্তাফিজ আজ গত ম্যাচের মতো খরুচে ছিলেন না। ১০ ওভারে ৪৩ রান দিয়ে নেন ৪ উইকেট।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেয়া ২৪৮ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে গত ম্যাচে অর্ধশত রানের ইনিংস খেলা দুই উদ্বোধনী ব্যাটসম্যান তামিম ইকবাল আর সৌম্য সরকার আজও শুরু করেন সাবধানী ব্যাটিংয়ে।

কিন্তু আগে থামতে হলো তামিমকে। দলীয় ৫৪ রানের মাথায় ২১ রানে তামিমকে ফেরান অ্যাশলে নার্স।

সৌম্য-সাকিবের জুটিটা বড় হচ্ছিল কিন্তু এতেও বাধ সাধে নার্স। সাকিবকে ২৯ রানে ফেরান এই স্পিনার। সৌম্য তুলে নেন সিরিজে টানা দ্বিতীয় অর্ধশতক।

সৌম্য ফিরে গেলেন ৫৪ রান করে সেই নার্সের বলেই। এরপর মুশফিক-মিথুনের জুটিতে জয়ের আভাস। দুজনেই খেলছিলেন সমানতালে। এখানে বাধা দিলেন জেসন হোল্ডার। মিথুনকে ৪৩ রানের মাথায় বোল্ড করেন ক্যারিবিয় অধিনায়ক।

মিথুনের ফেরাতেও থেমে যাননি মুশফিক, বরং তুলে নেন ক্যারিয়ারের ৩৩ তম অর্ধশতক। মাহমুদুল্লাহকে সঙ্গে নিয়ে প্রায় শেষের পথেই। তখনই খেই হারান দলীয় ২৪০ রানের মাথায় কেমার রোচের বলে ৬৩ রানে।

শেষ পর্যন্ত মাহমুদুল্লাহ আর সাব্বির মিলে শেষ করে আসেন ম্যাচ। ১৫ বল ও ৫ উইকেট হাতে রেখে সিরিজে দ্বিতীয়বার পরাজয়ের স্বাদ দেন ক্যারিবিয়দের। মাহমুদুল্লাহ করেন অপরাজিত ৩০ রান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে ৩ উইকেট নেন অ্যাশলে নার্স। এছাড়া ১টি করে উইকেট নেন কেমার রোচ ও জেসন হোল্ডার।

বিস্তারিত খবর

ওয়েস্ট ইন্ডিজকে উড়িয়ে টাইগারদের দুর্দান্ত শুরু

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-০৭ ১৭:০৩:৪২

নিউজিল্যান্ডে ওয়ানডে সিরিজে ধবলধোলাই হয়ে ফিরেছিল বাংলাদেশ। আয়ারল্যান্ডে আবার উলভসের কাছে প্রস্তুতি ম্যাচে হার। ডাবলিনে মঙ্গলবার ত্রিদেশীয় সিরিজে নিজেদের প্রথম ম্যাচে তাই চাপে ছিল মাশরাফিরা। তবে শুরুর ম্যাচে দারুণ ফর্মে থাকা উইন্ডিজকে ৮ উইকেটে উড়িয়ে দিয়েছে টাইগাররা। ত্রিদেশীয় সিরিজ বলেন কিংবা বিশ্বকাপের প্রস্তুতি, টাইগাররা শুরু করেছে দুর্দান্ত।

বাংলাদেশ দলের হয়ে দারুণ ব্যাট করেছেন টপ অর্ডারের চার ব্যাটসম্যান। ওয়েস্ট ইন্ডিজের দেওয়া ২৬২ রানের লক্ষ্য তাড়া করতে তাই বেগ পেতে হয়নি স্টিভ রোডসের শিষ্যদের। দুই ওপেনার তামিম এবং সৌম্য সরকার গড়েন ১৪৪ রানের দারুণ এক জুটি। ওই জুটিতেই ম্যাচ টাইগারদের পক্ষে চলে আসে। পরে সৌম্য-তামিম বড়-সড় ফিফটি করে ফেরেন। তবে ম্যাচ নিয়ে কোন শঙ্কা তৈরি হতে দেননি সাকিব এবং মুশফিক।

দেশের মাটিতে ঘরোয়া ক্রিকেটে টানা দুই সেঞ্চুরি করে উড়ন্ত আত্মবিশ্বাস নিয়ে আয়ারল্যান্ডে গেছেন সৌম্য। জাতীয় লিগে প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে গড়েছেন ডাবল সেঞ্চুরির রেকর্ড। সেই ফর্ম জেসন হোল্ডারদের বিপক্ষেও দেখান তিনি। নয় চার এবং এক ছয়ে ৬৮ বলে খেলেন ৭৩ রানের ইনিংস। ফেরেন ড্যারেন ব্রাভোর হাতে দারুণ এক ক্যাচ হয়ে। ধীরে খেলা তামিম সেঞ্চুরির আশা জাগাচ্ছিলেন। কিন্তু তিনিও ১১৬ বলে ৮০ রান করে ফেরেন।

বাকি ধাপটা পাড়ি দেন সাকিব আল হাসান এবং মুশফিকুর রহিম। প্রস্তুতি ম্যাচে উলভসের বিপক্ষে ফিফটি পাওয়া সাকিব এ ম্যাচে ৬১ বলে ৬১ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন। তিনটি চারের পাশাপাশি দুটি ছক্কা হাঁকান তিনি। সঙ্গে মুশফিক দুই চার ও দুই ছয়ে ২৫ বলে ৩২ রানের হার না মানা ঝকঝকে এক ইনিংস খেলেন। বাংলাদেশ দল হাতে ৩০ বল রেখে সহজ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে।

এর আগে টস জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ভয় ধরানোর মতো ব্যাটিং শুরু করে। আগের ম্যাচে তারা ডাবলিনে রেকর্ড রান তুলেছে। মাশরাফিদের বিপক্ষেও শাই হোপ এবং সুনীল আমব্রিস বিনা উইকেটে ৮৯ রান তুলে ফেলেন। তবে তাদের ইনিংসের মাঝপথে মাশরাফি এবং সাইফউদ্দিন লেজ টেনে ধরেন। মাশরাফি ১০ ওভারে ৪৯ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন। সাইফউদ্দিন ১০ ওভারে ৪৭ রান খরচায় নেন ২ উইকেট। মুস্তাফিজ দুটি উইকেট নিলেও দিয়ে বসেন ১০ ওভারে ৮৪ রান। এছাড়া মেহেদি মিরাজ এবং সাকিব আল হাসান একটি করে উইকেট নেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের হয়ে আয়ারল্যান্ডের বিপক্ষে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি করা শাই হোপ এ ম্যাচেও শত রানের ইনিংস খেলেন। তিনি ১০৯ রানে মাশরাফির বলে আউট হন। ওয়ানডে ক্যারিয়ারে নিজের পঞ্চম সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন। এছাড়া উইন্ডিজ ব্যাটসম্যানদের মধ্যে দ্রুত দুই হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন।রোস্টন চেজ করেন ৫১ রান। তিনিও মাশরাফির শিকারে পরিণত হন।

বিস্তারিত খবর

বিশ্বকাপের ফটোসেশনে ছিলেন না সাকিব, অসন্তুষ্ট বোর্ড সভাপতি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৪-২৯ ১৫:৫৪:৩৯

বাংলাদেশ দলের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন হয়েছে। সে উপলক্ষ্যে ফটোসেশন করেছে বিশ্বকাপ স্কোয়াডের সদস্যরা। তবে সেখানে ছিলেন না দলের অন্যতম সদস্য সাকিব আল হাসান। সাকিব না থাকায় অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

আগেই জানা গিয়েছিল, বিশ্বকাপ জার্সির উন্মোচন হবে সোমবার। তার আগে দুপুরে সংবাদ সম্মেলন করেছেন অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। আয়ারল্যান্ড সফরের আগে সংবাদ সম্মেলন হলেও আলোচনা হয় মূলত বিশ্বকাপের বিষয় নিয়েই।

সংবাদ সম্মেলন শেষে খেলোয়াড়দের নিয়ে বসেছেন বোর্ড প্রধান। তারপর সবাইকে নিয়ে মধ্যাহ্ণভোজে বসেন তিনি। ফলে ফটোসেশন শুরু হতে হতে বিকেল চারটা। বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জার্সি পরেই ফটোসেশন বলেই এত কৌতুহল ছিল।

ফটোসেশনে কৌতুহল তো মিটল, কিন্তু জন্ম নিল নতুন এক প্রশ্ন! ফটোসেশনে বিশ্বকাপ দলের অন্যসব সদস্য থাকলেও ছিলেন না সাকিব। বিশ্বকাপে যিনি বাংলাদেশের অন্যতম প্রাণভোমরা। অথচ আইপিএলল শেষে গতকালই দেশে ফিরেছেন তিনি।

স্বভাবতই বিষয়টি নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। আজ দলের অনুশীলণেও ছিলেন তিনি। কিন্তু তারপরই কাউকে কিছু না জানিয়ে চলে যান এই অল রাউন্ডার। এমতন অনুষ্ঠানে কেন নেই সাকিব- এই প্রশ্নের জবাবে অনেকটা অসন্তোষের স্বরে বোর্ড সভাপতি বলেছেন, “দুঃখজনক। আর কি বলব। এটা দলের ফটোসেশন ছিল। আমি এসেই যখন ঢুকছি তখন ফোন করেছিলাম সাকিবকে। কোথায় তুমি, বলল ‘আমি তো চলে এসেছি। আপনার বাসায় আসব রাত্রে। আমি বললাম ‘এখনি তো দেখা হওয়ার কথা’। সে বলল ‘আমি তো বেরিয়ে গিয়েছি’। আমি এসে জিজ্ঞেস করে জানলাম যে ওকে আগেই জানানো হয়েছিল যে আজ ফটোসেশন। জাতীয় দল যাচ্ছে, একসঙ্গে ফটোসেশন। সবাই থাকবে। আশা করেছিলাম সে থাকবে, কিন্তু সে নাই।”

সাকিবের এমন অনুপস্থিতি দলের ইউনিটিতে কোন প্রভাব ফেলবে কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে পাপন জানালেন, সাকিবের এমন আচরণে দলের অন্যরা অভ্যস্ত হয়ে গেছে। বিষয়টাকে তিনি সাকিবের জন্যই দুর্ভাগ্য মনে করছেন, ‘আমি মনে করে এটা ওর জন্যই দুর্ভাগ্য। ও যে আমাদের বিশ্বকাপ দলের সঙ্গে থাকতে পারল না ফটোসেশনে, আমি মনে করি ওরই কপাল খারাপ।’

তবে যেহেতু বুধবারই দল দেশ ছাড়ছে তাই বিষয়টা নিয়ে আপাতত চুপ থাকছে বোর্ড। সেই সাথে এই বার্তাও দিয়ে রাখলেন বিষয়টা মেনে নেবে না বোর্ড, ‘ ‘প্রশ্নই উঠে না। (সাকিবের মেজাজ বুঝে চলা)। যেহেতু পরশু দিন দল চলে যাচ্ছে এটা নিয়ে তাই বেশি কিছু বলতে চাইছি না। তবে আমি মনে করি এটা দুঃখজনক।’

বিস্তারিত খবর

বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দল ঘোষণা, নতুন চমক রাহি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৪-১৬ ১৫:২৩:২২

বিশ্বকাপের ১২তম আসরকে সামনে রেখে দল ঘোষণা করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। মঙ্গলবার দুপুরের দিকে মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে বিশ্বকাপের জন্য ১৫ সদস্যের এবং আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের ১৭ সদস্যের দল ঘোষণা করে বিসিবি।

দলে আগে থেকেই ১৩ ক্রিকেটার নির্বাচকদের চোখে ছিল। দ্বিধা ছিল দুই-তিনটি জয়াগা নিয়ে। সেটিও বিসিবি ভালোভাবেই পূরণ করে দিয়েছে। বিশ্বকাপের জন্য ঘোষিত ১৫ ক্রিকেটারের সাথে আয়ারল্যান্ডে ত্রিদেশীয় সিরিজের জন্য বাড়তি দু’টি নাম যোগ ১৭ সদস্যের দলও ঘোষণা করা হয়।

পেস আক্রমণে মাশরাফি, রুবেল. মোস্তাফিজ, সাইফউদ্দিনের থাকাটা বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন আগেই নিশ্চিত করেছিলেন। দ্বিধায় ছিলেন ৫ম পেসারকে নিয়ে। যদিও উঠে এসেছিল তাসকিন আহমেদ ও শফিউল ইসলামের নাম; কিন্তু সব দ্বিধা দূর করে, সে জায়গায় বিসিবি রাখলেন বড় ধরনের চমক।

শফিউল-তাসকিন কাউকেই রাখা হয়নি; বরং সেখানে যোগ করা হয়েছে, অডিআইতে এখনো অভিষেক না হওয়া বিপিএলে আলো ছড়ানো আবু জায়েদ রাহিকে। আয়ারল্যান্ড সফরে এই ক্রিকেটারের অভিষেক হতে পারে। এবং ইংলিশ কন্ডিশনের জন্য নিজেকে কিছুটা তৈরি করার সুযোগ রয়েছে। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ দলে রাহির নামটাই সবচেয়ে বড় চমক।

বাংলাদেশেরে বিশ্বকাপ দল : মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ মিথুন. মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। মেহেদি হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসাইন, আবু জায়েদ রাহি।

ত্রিদেশীয় সিরেজের জন্য বাংলাদেশেরে দল : মাশরাফি বিন মর্তুজা (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকেটরক্ষক), মোহাম্মদ মিথুন, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন। মেহেদি হাসান মিরাজ, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসাইন, আবু জায়েদ রাহি, ইয়াসির আলি, নাঈম হাসান।

বাংলাদেশের বিশ্বকাপ দল : তামিম ইকবাল, লিটন দাস, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম (উইকটেরক্ষক), মোহাম্মদ মিঠুন, মাহমুদউল্লাহ, সৌম্য সরকার, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, মেহেদী হাসান, মিরাজ, মাশরাফি বিন মুর্তজা (অধনিায়ক), রুবলে হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান, মোসাদ্দেক হোসেন, আবু জায়েদ রাহী।
আয়ারল্যান্ড সিরিজ বাড়তি দুজন : ইয়াসির আলী, নাঈম হাসান।

এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

জাদুকরী মেসি, রহস্যময় মেসির বার্সা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৪-০৪ ১৫:৪৩:৩০

চ্যাম্পিয়নস লিগের শেষ আটের প্রথম লেগে ১১ এপ্রিল ম্যানইউয়ের মুখোমুখি হবে বার্সা। লিগে কাতালানদের একচেটিয়া রাজত্ব। মেসিকে তাই বিশ্রাম দেওয়ার এটাই সেরা সময় বলে উল্লেখ করেন বার্সা কোচ ভালভার্দে। কিন্তু মেসি পুরোপুরি বিশ্রাম পেলেন না। দলের বিপদে মাঠে নামতে হলো তাকে। প্রমাণ দিতে হলো মেসি এবং মেসির বার্সা অলৌকিক, জাদুকরী এবং রহস্যঘেরা এক দল।

ম্যাচের ১২ ও ১৬ মিনিটে ভিয়ারিয়ালের জালে বল জড়ান বার্সার দুই ব্রাজিলিয়ান তারকা ফিলিপে কুতিনহো এবং ম্যালকম। প্রথম গোলটিও ম্যালকমের বানিয়ে নেওয়া। এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো বার্সার শুরুর একাদশে নেমেই গোল করলেন তরুণ ব্রাজিলিয়ান ম্যালকম। আর কুতিনহো ১৭ ম্যাচের গোল খরা কাটালেন এ ম্যাচে।

এরপরই অচেনা দলে পরিণত হয় বার্সা। পায়ে কম বল রেখেও দুর্দান্ত ঘুরে দাঁড়ায় ভিয়ারিয়াল। ঘরের মাঠে ২৩ এবং ৫০ মিনিটে গোল করে সমতায় ফেরে তারা। এরপর ৬০ মিনিটে মাঠে নামেন লিওনেল মেসি। তার দুই মিনিট বাদেই আবার গোল খেয়ে বসে বার্সা। পরে ৮০ মিনিটের মাথায় মেসিদের অবাক করে চতুর্থ গোল ভিয়ারিয়ালের। তারা ৪-২ গোলে এগিয়ে। জয়েরও খুব কাছাকাছি।

এমন সময় জাদুকর রূপে আর্বিভাব মেসির। ম্যাচের ৯০ মিনিটে ফ্রি কিক পেয়ে যায় বার্সা। বক্সের বাইরের বিপদজ্জনক ওই জায়গা থেকে দুর্দান্ত ফ্রি কিক নিয়ে গোল ব্যবধান কমান মেসি। এ নিয়ে পরপর তিন ম্যাচে ফ্রি কিক থেকে গোল করলেন বার্সা জুদকর মেসি। বার্সা তখনও ৪-৩ গোলে পিছিয়ে। এরপর অতিরিক্ত সময়ে গোল করেন লুইস সুয়ারেজ। তার ৯৪ মিনিটের গোলে হারের লজ্জা এড়ায় বার্সা।

কর্নার থেকে পাওয়া বল ভিয়ারিয়াল নিরাপদ করতে পারেনি। পরে সুয়ারেজ তা থেকে গোল করেন। এ নিয়ে বার্সা কোচ এরনেস্তো ভালভার্দে বার্সার দায়িত্ব নিয়ে তৃতীয়বারের মতো দলের চার বা অধিক গোল হজম করতে দেখল। এরআগে চলতি মৌসুমে রিয়াল বেটিসের বিপক্ষে চার গোল খায় বার্সা। আর গেল মৌসুমে লেভান্তের বিপক্ষে পাঁচ গোল হজম করে ভালভার্দের দল।

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশকে শুভেচ্ছা জানাল লা লিগা ও বার্সেলোনা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-২৬ ০৯:২৬:২২

আজ ২৬ মার্চ। বাংলাদেশের ৪৯তম স্বাধীনতা দিবস। গৌরবময় এই দিনটি সারা বাংলাদেশে যথাযথ মর্যদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে। মহান এই দিনে বাংলাদেশকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বিশ্বের অন্যতম সেরা ফুটবল লিগ ‘লা লিগা’। শুভেচ্ছ জানিয়েছে লিগের বর্তমান চ্যাম্পিয়ন লিওনেল মেসিদের বার্সেলোনা।

বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় স্প্যানিশ এই লিগ কর্তৃপক্ষ নিজেদের ফেসবুক পেজে বাংলাদেশের পতাকা পোস্ট করে তাতে ক্যাপশন লিখেছে, ‘লা লিগার তরফ থেকে সকলকে স্বাধীনতা দিবসের অনেক শুভেচ্ছা।’

বাংলাদেশের ফুটবল প্রেমিদের মধ্যে লা লিগার সমর্থন ব্যাপক। বিশেষ করে বর্তমান সময়ের সেরা ফুটবলার লিওনেল মেসি ক্লাব বার্সেলোনার হয়ে খেলেন। আর্জেন্টাইন এই সুপারস্টারের অগুনিত ভক্ত রয়েছে বাংলাদেশে। এছাড়া পর্তুগিজ সুপারস্টার ক্রিস্তিয়নো রোনালদোও এক সময় রিয়াল মাদ্রিদে খেলতেন।

চলতি মাসেই নেপালের অনুষ্ঠিত সদ্য সমাপ্ত সাফ চ্যাম্পিয়ন্সশিপ শুরু হওয়ার আগেও বাংলাদেশ নারী ফুটবল দলকে শুভেচ্ছা জানিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছিল লা লিগা।

এদিকে বাংলাদেশকে শুভেচ্ছা জানিয়েছে বার্সেলোনা। বাংলাদেশের পতাকা আঁকা একটি ছবির সঙ্গে মেসি, লুইস সুয়ারেজ ও ফিলিপে কুতিনহোদের উল্লাস করতে দেখা যায়। ছবিতে লেকা রয়েছে, আমাদের সকল বাংলাদেশি সমর্থকদের প্রতি স্বাধীনতা দিবসের শুভেচ্ছা।


এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বিয়ে করছেন তিন টাইগার ক্রিকেটার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-২১ ১৩:৪৯:০৭

ক্রাইস্টচার্চের ঘটনা পিছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। দেশে ফিরে মানসিক ধাক্কা কাটিয়ে উঠতে পরিবারকে বেশি সময় দেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অবসরের ফাঁকে এবার পারিবারিকভাবে বিয়ে করতে যাচ্ছেন বাংলাদেশ দলের তিন ক্রিকেটার।

কিছুদিন আগে বিয়ের কাজটি সম্পন্ন করেছেন সাব্বির রহমান। এবার বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন বাংলাদেশ দলের তিন ‘ম’। তারা হলেন মেহেদী হাসান মিরাজ, মুস্তাফিজুর রহমান ও মুমিনুল হক। তিন তারকার বিয়ে নিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট পাড়ায় চলছে নানা আলোচনা।

সবার আগে মিরাজ:
বয়সে বাকি দুইজনের চেয়ে কিছুটা ছোট হলেও আগে বিয়ে করছেন মিরাজ। আজই বিয়ে করছেন টাইগার এ অলরাউন্ডার। নিউজিল্যান্ডে থাকতেই মেহেদী হাসান মিরাজ দেশে ফিরে আক্দটা সেরে ফেলার কথা জানিয়েছিলেন। কনে রাবেয়া আখতার প্রীতি। দুজনের বাড়ি একই শহর খুলনায়। মিরাজ-প্রীতির প্রেমের সম্পর্ক প্রায় অর্ধযুগ ধরে। অনেকদিন ধরেই অপেক্ষায় থাকলেও বিশ্বকাপের আগে পাওয়া লম্বা বিরতির সুযোগটা দারুণভাবে কাজে লাগাচ্ছেন তিনি। পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, ঘরোয়া পরিবেশে আক্দ হয়তো আজই সেরে রাখবেন। তবে মিরাজ এড়িয়ে যেতে চাইলেন বিষয়টা। নিউজিল্যান্ড সফরে থাকতে মিরাজ বলেছিলেন, ‘বিয়ের অনুষ্ঠান করব বিশ্বকাপের পর। তখন জানানো হবে সবাইকে।’


কালকে বিয়ে মুস্তাফিজের :
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রীকে বিয়ে করতে যাচ্ছেন মুস্তাফিজুর রহমান। নিউজিল্যান্ড থেকে ঢাকা ফিরে বিয়ের জন্য কেনাকাটা করে গ্রামে গেছেন এ কাটারমাস্টার। কনে শিমু মুস্তাফিজের মামাতো বোন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। মুস্তাফিজের বিয়ের ব্যাপারে জানতে চাইলে তার বড় ভাই মোখলেসুর রহমান পল্টু বলেন, ‘শুক্রবার আকদ হবে। কেবলমাত্র খুব কাছের কিছু মানুষকে নিয়ে এ ঘরোয়া পরিবেশে আকদ আয়োজন করবো। পরে বড় করে অনুষ্ঠান করার পরিকল্পনা আছে।'


মুমিনুলের বিয়ে ১৯ এপ্রিল:
বিয়ের কথা আগেই জানিয়েছিলেন বাংলাদেশের টেস্ট স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান মুমিনুল হক। তবে আনুষ্ঠানিক তারিখটা গতকাল জানিয়েছেন তিনি। আগামী ১৯ এপ্রিল ধুমধাম করেই বিয়ে করবেন মুমিনুল। কনে ফারিহা বাশার, বাসা মিরপুর ডিওএইচএসে। ফারিহা বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের (বিইউপি) ব্যবস্থাপনা বিভাগের শিক্ষার্থী। মুমিনুল বললেন, বিয়ের প্রস্তুতি এরই মধ্যে শুরু করে দিয়েছেন, ‘আমার বিয়ের খবর তো আপনারা জানেনই। আমন্ত্রণপত্র বানাতে দিয়েছি। ইনশা আল্লাহ ১৯ তারিখে সব আনুষ্ঠানিকতা আমরা সেরে ফেলব।’

এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

প্রথমবারের মত ওয়াশিংটনে বাংলার ঐতিহ্যবাহী ‘বলী খেলা’ আয়োজন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-১৬ ১৫:২৪:৪৩

ওয়াশিংটন: এই প্রথমবারের মত প্রবাসের মাটিতে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলার ঐতিহ্যবাহী ’বলী খেলা। বাঙালির প্রানের উৎসব বৈশাখী মেলাকে ঘিরে এই ’বলী খেলা’র আয়োজন সাজিয়েছে ওয়াশিংটনের সাংস্কৃতিক সংগঠন ”ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলী (ডিএমভি)। এক বিবৃতিতে এই তথ্য জানিয়েছেন সংগঠনের দুই প্রধান আকতার হোসাইন ও বোরহান আহমেদ।খবর বাপসনিঊজ ।বলীখেলা এক বিশেষ ধরনের কুস্তি খেলা, যা চট্টগ্রামের লালদিঘী ময়দানে প্রতিবছরের ১২ই বৈশাখে অনুষ্ঠিত হয়।এই খেলায় অংশগ্রহনকারীদেরকে বলা হয় বলী। চট্টগ্রামের আঞ্চলিক ভাষায় কুস্তি বলীখেলা নামে পরিচিত। ১৯০৯ সালে চট্টগ্রামের বদরপাতি এলাকার ধনাঢ্য ব্যবসায়ী আবদুল জব্বার সওদাগর এই প্রতিযোগিতার সূচনা করেন। তার মৃত্যুর পর এই প্রতিযোগিতা জব্বারের বলী খেলা নামে পরিচিতি লাভ করে। জব্বারের বলীখেলা একটি জনপ্রিয় ও ঐতিহ্যমন্ডিত প্রতিযোগিতা হিসেবে বিবেচিত। বলীখেলাকে কেন্দ্র করে লালদিঘী ময়দানের আশে পাশে প্রায় তিন কিলোমিটার জুড়ে বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয় এবং এটি বৃহত্তর চট্টগ্রাম এলাকার সবচেয়ে বৃহৎ বৈশাখী মেলা।

এবারে দেশের সাথে তাল মিলিয়ে ওয়াশিংটনের মাটিতেও আয়োজন করা হয়েছে ’বলী খেলা’র। আগামী ৬ এপ্রিল শনিবার ভার্জিনিয়ার ম্যাশন ডিষ্ট্রিক পার্ক, ৬৬২১ কলম্বিয়া পাইক, আনানডেল, ভার্জিনিয়া ২২০০৩ এ ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলী (ডিএমভি) আয়োজিত বৈশাখী মেলায় এই আকর্ষনীয় বলী খেলা অনুষ্ঠিত হবে। বলী খেলায় অংশগ্রহনে ইচ্ছুক বলীদেরকে আকতার হোসাইন ৭০৩-৩৮৯-৬৭৮৯ এবং বোরহান আহমেদ ২০২-৭১৪-৭০৩৮ এই নাম্বারে যোগাযোগ করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছে। প্রত্যেক বলীদের জন্য মেলায় থাকবে আকর্ষনীয় পুরস্কার।

অনুষ্ঠানে স্থানীয় শিল্পী সহ আমন্ত্রীত শিল্পীরা নাচ গান ও সঙ্গীত পরিবেশন করবেন। অনুষ্ঠানে পান্তা ইলিশ ভর্তা সহ নানা রকমের শাড়ী চুড়ি খেলনা সহ নানা ধরনের খাবারের ষ্টলে থাকবে ভরপুর। অনুষ্ঠানে থাকবে আকর্ষনীয় র‌্যাফেল ড্র পুরস্কার। প্রতি বছরের ন্যায় ফ্রেন্ডস এন্ড ফ্যামেলী আয়োজিত এই বৈশাখী মেলায় অংশগ্রহন করবার জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে আমন্ত্রন জানানো হয়েছে। অনুষ্ঠানে কোন প্রবেশ মুল্য নাই। অনুষ্ঠান সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্যের জন্য আকতার হোসাইন ৭০৩-৩৮৯-৬৭৮৯, ও বোরহান আহমেদ ২০২-৭১৪-৭০৩৮ ’র সাথে যোগাযোগ করার জন্য সংগঠনের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়েছে।

অনুষ্ঠানের গ্র্যান্ড স্পন্সর হিসাবে আছে একাত্তর ফাউন্ডেশন এর কবির পাটোয়ারী ও পারভিন পাটোয়ারী, গোল্ড স্পন্সর ডাটাগ্রুপ, বেঙ্গল কাবাব, ডাটা এন টেক, প্যানঅ্যাম কন্সট্রাকসন, ও পিপল এন্ড টেক। এছাড়াও অনুষ্ঠানের স্পন্সর হিসবে আছে পার্টনার রিয়েলষ্টেট রাজিব হক, রিয়েলটর নাজির নাজির উল্ল্যা, রিয়েলটর উৎপল সাহা, রিয়েলটর দিলাল আহমেদ, কমনওয়েলথ মর্টগেজ, দেশী বাজার, কাবাব কিং, হোম টাউন প্রপার্টিজ লিমিটেড, অলষ্টেট মোহাম্মদ আলী, ফেয়ারওয়ে মর্টগেজ, জিআই রাসেল, প্যানএম কর্পোরেশন, এসসিফিন, আরটিএস ট্যাক্স, খামারবাড়ী নিউইয়র্ক। অনুষ্ঠানের টেলিভিশন মিডিয়া পার্টনার হিসাবে আছে এনটিভি, অনলাইন মিডিয়া পার্টনার ওয়াশিংটন বাংলা ডট কম, ডিজিটাল পার্টনার আনন্দী ফটোগ্রাফী, সোস্যাল মিডিয়া পার্টনার কিরনটিভি, বিডিঅন ইত্যাদি।

বিস্তারিত খবর

৫০ মিলিয়নে রিয়ালে ব্রাজিলের মিলিতো

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-১৪ ১৪:১১:১৬

রিয়াল মাদ্রিদ আজ জানিয়েছে যে তারা ৫০ মিলিয়ন ইউরোতে পর্তুগালের ক্লাব পোর্তোর সেন্টার ব্যাক এদার মিলিতোকে চুক্তিবদ্ধ করেছে। চুক্তি অনুযায়ী ২০২৫ সালের জুন পর্যন্ত তিনি রিয়ালে থাকবেন।

এ বিষয়ে রিয়াল এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘রিয়াল মাদ্রিদ ও পোর্ত এদার মিলিতো এর ব্যাপারে একটি চুক্তিতে পৌঁছেছে। চুক্তি অনুযায়ী মিলিতো পরবর্তী ছয় মৌসুম (২০২৫ সালের জুন) রিয়ালে থাকবেন।’

অবশ্য মিলিতোকে দলে ভেড়াতে রিয়াল মাদ্রিদ বেশ তোড়জোড় করেছে। সে কারণে দ্রুতই চুক্তিটি হয়েছে। দলে ভেড়ানোর পর মিলিতোর বাইআউট ক্লজ ২৫ শতাংশ বেড়ে হবে ৭৫ মিলিয়ন ইউরো।

২১ বছর বয়সী এই তারকা পর্তুগালের ক্লাব পোর্তোর হয়ে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় পারফরম্যান্স করে নজর কেড়েছেন। ২০১৮ সালে তাকে সাও পাওলো থেকে দলে ভিড়িয়েছে পোর্তো। পেপের পাশাপাশি ইতিমধ্যে পোর্তোর হয়ে ৩৪ ম্যাচ খেলেছেন মিলিতো। পর্তুগালে এক মৌসুম কাটাতে না কাটাতেই তাকে দলে টেনে নিল রিয়াল।

রক্ষণভাগের এই খেলোয়াড়ের ফুটবল নৈপূণ্য ও ব্যক্তিত্ব তাকে রিয়ালের মতো ক্লাবে নিয়ে এসেছে। তার আগমণে অবশ্য কপাল পুড়তে যাচ্ছে জেসাস ভালেজোর। হয়তো লোনে তাকে কোথাও পাঠাবে রিয়াল। আবার রেখেও দিতে পারে।

এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ভারতকে আইসিসির হুঁশিয়ারি, পাল্টা হুংকার ভারতের

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-০৫ ০৮:৪৫:৪০

ভারতের সঙ্গে আইসিসির সম্পর্ক বোঝা বড় দায়।পাকিস্তানের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সিরিজ না খেললেও আইসিসির দরবারে বিচার অনুষ্ঠানে ভারতই জিতেছে। অবস্থাদৃষ্টে মনে হতে পারে, এ আর নতুন কি! আইসিসি আর বিসিসিআই তো ‘মাসতুতো ভাই’। কিন্তু, কিছুদিন আগে কাশ্মীরে সন্ত্রাসী হামলার জন্য পাকিস্তানকে বিশ্বকাপ থেকে নিষিদ্ধের দাবি জানিয়েছিল ভারত। আইসিসি তাঁদের দাবি কানে তোলেনি। সাফ বলে দিয়েছে, বিশ্বকাপে কোনো সদস্য দেশকে খেলতে না দেওয়ার এখতিয়ার নেই আইসিসির। এবার কর নিয়ে ভারত-আইসিসি সম্পর্ক আরেকটু নাজুক হওয়ার মুখে। ভারত সরকার করছাড় না দিলে আইসিসির দুটি প্রতিযোগিতা আয়োজনে করের বোঝা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডকেই (বিসিসিআই) টানতে হবে বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা।
২০২১ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং ২০২৩ ওয়ানডে বিশ্বকাপ অনুষ্ঠিত হবে ভারতে। দুবাইয়ে আইসিসির ত্রৈমাসিক বৈঠকে এ দুটি বৈশ্বিক টুর্নামেন্ট আয়োজনে সরকারের কাছ থেকে করছাড়ে অনুমোদন নিতে বিসিসিআইকে বলেছে আইসিসি। ভারত সরকার করছাড় না দিলে দুটি বিশ্বকাপ আয়োজনের করের বোঝা বিসিসিআইকেই বহন করতে হবে। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, দেশের মাটিতে এ দুটি বিশ্বকাপ আয়োজনের কর প্রায় দেড় শ কোটি রুপি।২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ভারতে হয়েছিল। এই টুর্নামেন্টে ভারত সরকার কোনো করছাড় দেয়নি। আইসিসির ভারতীয় চেয়ারম্যান শশাঙ্ক মনোহর তাই এবার বিসিসিআইকে সাফ বলে দিয়েছেন, সরকার এবারও করছাড় না দিলে সেই করের বোঝা ক্রিকেট বোর্ডকেই বহন করতে হবে। তবে আইসিসির এমন কথা বিসিসিআইয়ের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা ভালো চোখে দেখছেন না। বোর্ডের এক জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, সরকার করছাড় না দিলে আইসিসি চাইলে দুটি বিশ্বকাপই ভারতের বাইরে আয়োজন করতে পারে। কিন্তু এভাবে চাপ দিয়ে কোনো লাভ হবে না।সেই কর্মকর্তা উল্টো আইসিসিকেই হুমকি দিয়ে বলেছেন, ‘কর বিভাগ ও মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে যে সিদ্ধান্ত নেবে আমরা তা মেনে চলব। আমরা নিজেদের মাটিতে বিশ্বকাপ আয়োজন করতে চাই। তবে আইসিসি যদি কঠিন হতে চায় তাহলে তাঁদের সবকিছুর জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে। তারা চাইলে টুর্নামেন্ট ভারতের বাইরে নিতে পারে। তাহলে বিসিসিআই-ও আইসিসির কাছ থেকে লভ্যাংশ বুঝে নেবে; তখন দেখা যাবে কার লোকসান বেশি হয়।’বিসিসিআইয়ের আরেক অফিশিয়াল সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, ‘আমরা আগেও দেখেছি, ভিন্ন ভিন্ন বোর্ড সদস্যদের সঙ্গে ভিন্ন আচরণ করে আইসিসি। উদাহরণ হিসেবে বলা যেতে পারে, ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার (সিএ) জন্য শুধু করছাড়ের চেষ্টাই যথেষ্ট। কিন্তু বিসিসিআইকে করছাড় নিশ্চিত করতে হবে। এর সঙ্গে কোনোভাবেই একমত হওয়ার পথ নেই বিসিসিআইয়ের। আইসিসি কোনোভাবেই ভারতের স্বার্থকে আঘাত করতে পারে না।’

বিস্তারিত খবর

বিশ্বকাপ ক্রিকেটের ১০০ দিনের ক্ষণগণনা শুরু

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-১৯ ১১:৩৪:২৯

৩০ মে পর্দা উঠবে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপের। মাসের হিসেবে আর কয়েকটি মাস বাকি। তবে দিনের হিসেবে বাকি মাত্র ১০০ দিন। ওয়ানডে বিশ্বকাপের এই ১০০ দিনের ক্ষণগণনা আজ মঙ্গলবার থেকে লন্ডনের ট্রাফালগার স্কয়ারে নেলসন কলামে আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। সেখানে একটি বিশাল আকৃতির স্ট্যাম্প বানানো হয়েছে। যার মিডেল স্ট্যাম্প বানানো হয়েছে ট্রাফালগার স্কয়ারের মনুমেন্টটিকে। সামনে রাখা হয়েছে বিশ্বকাপের ট্রফিটি। এখান থেকেই শুরু হয়েছে বিশ্বকাপের কাউন্টডাউন ও শেষ ১০০ দিনের সফর।

ক্ষণগণনার উদ্বোধন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ব ক্রিকেট, বিশ্ব ক্রীড়া, মিডিয়া ও বিনোদনের আলোচিত ও খ্যাতিমান ব্যক্তিবর্গ। সেই তালিকায় আছেন ইংল্যান্ডের ক্রীড়া মন্ত্রী মিমস ডাভিস, স্যার অ্যালিস্টার কুক, জেমস অ্যান্ডারসন, দুইবারের বিশ্বকাপ জয়ী ক্লাইভ লয়োড, বিশ্বকাপ টুর্নামেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্টিভ এলওর্থি, আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন, সেলিব্রেটি হ্যারি জুড ও ক্রিস হিউজেস।

এ বিষয়ে বিশ্বকাপ টুর্নামেন্টের ব্যবস্থাপনা পরিচালক স্টিভ এলওর্থি বলেছেন, ‘বিশ্বকাপ এখন ছোঁয়া দূরত্বে। ট্রাফালগার স্কয়ারে টুর্নামেন্টের ১০০ দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে যে আয়োজন সেটা দেখে দারুণ লাগছে। এসব আয়োজন আসলে টুর্নামেন্টটিকে স্থানীয় এবং বিশ্বব্যাপী ক্রিকেট ভক্ত-সমর্থকদের চোখের সামনে নিয়ে আসে।এটা আসলে টুর্নামেন্টকে স্মরণীয় করে রাখতে আমাদের যে প্রচেষ্টা সেটার অংশ। আশা করছি ১০০ দিনে ট্রফিটি খেলোয়াড়, ক্রিকেট ভক্ত, দর্শকদের মধ্যে অনুপ্রেরণা ও উৎসাহ উদ্দীপনা ছড়াবে। এই ১০০ দিনে ট্রফির সঙ্গে আমরাও দারুণ দারুণ জায়গায় যেতে পারব। স্মরণীয় ও আকর্ষণীয় নানা স্থান দেখব। ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের মিলিয়ন মিলিয়ন মানুষকে বিশ্বকাপের উৎসবে সামিল করতে পারব।’

বিশ্ব ক্রিকেটের নিয়ন্ত্রক সংস্থা আইসিসির প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন বলেছেন, ‘বিশ্বকাপ মাঠে গড়ানোর মধ্য দিয়ে আমাদের বছরের পর বছর ধরে করা পরিকল্পনাগুলোর বাস্তবায়ন হয়। তবে মূল উত্তেজনাটা ছড়ায় বিশ্বকাপ শুরু হওয়ার আগের ১০০ দিনে। আশা করছি আগামী ১০০ দিনে ক্রিকেট বিশ্বের কোটি কোটি সমর্থকদের উৎসবে সামিল করবে এই ক্ষণগণনা ও ট্রফির সফর। যেটা ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের বিভিন্ন ঐতিহাসিক ও আকর্ষণীয় স্থান ঘুরে বেড়াবে।’

আবারো ইংল্যান্ড ও ওয়েলসের ক্রিকেটপ্রেমী, নতুন প্রজন্ম বিশ্বের তারকা ক্রিকেটারদের খেলা দেখতে পারবে ঘরের মাঠে। তারকা ক্রিকেটারদের পদচারণায় মুখরিত হবে নানান ভেন্যু ও স্থান। ১৪ জুলাই বিজয়ী দলের অধিনায়ক উঁচিয়ে ধরবেন বিশ্বকাপের ট্রফি।তার আগে ১০০ দিনের ক্ষণগণার সময়ে ট্রফিটি ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসের ১১৫টি লোকেশন ঘুরবে। যেখানে ক্রিকেট ভক্তরা সুযোগ পাবে ট্রফিটিকে কাছ থেকে দেখার। ট্রফির সঙ্গে ছবি তোলার। ১০০ দিনের সফর শেষে ট্রফিটি ফিরে আসবে লন্ডনে। যেখানে ৩০ মে পর্দা উঠবে বিশ্বকাপের।

ইংল্যান্ডের সাবেক স্পিনার গ্রায়েম সোয়ানকে ১০০ দিনের ট্রফি ট্যুরের অ্যাম্বাসেডর করা হয়েছে। তিনি বলেছেন, ‘ট্রফি ট্যুরের অংশ হতে পেরে আমি গর্বিত। এই সফরের মাধ্যমে দেশের আনাচে-কানাচের ক্রিকেট ভক্ত ও সমর্থকদের মধ্যে বিশ্বকাপের যে আমেজ সেটা ছড়িয়ে দিব। টুর্নামেন্টকে ঘিরে তাদের যে উৎসাহ-উদ্দীপনা সেটা আরো বাড়িয়ে দিব। এই গ্রীষ্মের সময়টি ইংল্যান্ড-ওয়েলস এবং বিশ্বব্যাপী খুবই উত্তেজনাকর হবে। আর সেটা শুরু হল বিশ্বকাপের ১০০ দিনের ক্ষণগণার মধ্য দিয়ে।’

এর আগে বিশ্ব ভ্রমণের অংশ হিসেবে ট্রফিটি ওমান, যুক্তরাষ্ট্র, জ্যামাইকা, বার্বাডোজ, শ্রীলঙ্কা, পাকিস্তান, বাংলাদেশ, নেপাল, ভারত, আফগানিস্তান, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকা, রুয়ান্ডা, নাইজেরিয়া, বেলজিয়াম, নেদারল্যান্ডস ও জার্মানি ঘুরে এসেছে।

এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সদস্য হলেন মাশরাফি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-১০ ১৪:৪১:৫৮

একাদশ জাতীয় সংসদে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য হলেন বাংলাদেশ ওয়ানডে ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা। এই কমিটির সভাপতি করা হয়েছে প্রাক্তন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন প্রতিমন্ত্রী আব্দুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকবকে।

কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন- যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, প্রাক্তন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী ড. বীরেন শিকদার, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন, মাহবুব আরা গিনি, প্রাক্তন ফুটবলার ও সংসদ সদস্য আব্দুস সালাম মুর্শেদী, জুয়েল আরেং, প্রাক্তন ক্রিকেটার ও সংসদ সদস্য এ এন এম নাইমুর রহমান দুর্জয়।

রোববার সন্ধ্যায় ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশেন চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী কমিটির সদস্যদের নাম প্রস্তাব করেন।


এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশের ৩ ভেন্যুতে হবে আইপিএল!

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-০৬ ১৩:১২:৫৮

বাংলাদেশে হতে যাচ্ছে আইপিএল ম্যাচ! ২০১৯ মৌসুমের ১৪টি ম্যাচ হবে এখানে! বিপিএলের ৩ ভেন্যুতে ম্যাচগুলো অনুষ্ঠিত হবে!
এপ্রিল-মে মাসে অনুষ্ঠিত হবে ভারতের ১৭তম লোকসভা নির্বাচন। সম্ভাব্য সহিংসতা এড়াতে ক’দিন আগে আইপিএলের ১৪টি ম্যাচ বাংলাদেশে আয়োজনের প্রস্তাব দেয় ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড (সিসিসিআই)! তাতে তাৎক্ষণিক হ্যাঁ না বললেও অসম্মতি জানায়নি বিসিবি!
বিষয়টি নিয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা করতেই নাকি ৩ দিনের সফরে বাংলাদেশে এসেছেন বর্তমান আইসিসি চেয়ারম্যান এবং সাবেক বিসিসিআই সভাপতি শশাঙ্ক মনোহর। তবে চাউর হয়েছে, বিপিএল ফাইনাল দেখতে এসেছেন তিনি।
বুধবার ভারত থেকে বিশেষ বিমানে (চাটার্ড বিমান) ঢাকায় এসেছেন মনোহর। তার সফরসঙ্গী হিসেবে রয়েছেন বিসিসিআই’র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও বিশেষজ্ঞ কিউরেটররা। বিমানবন্দরে তাদের স্বাগত জানিয়েছে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)।
আসছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বিসিবির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বিশেষ বৈঠকে বসবেন মনোহর ও তার সহযোগিরা। ৮ ফেব্রুয়ারি মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়াম পরিদর্শন এবং বিপিএল ষষ্ঠ আসরের ফাইনাল ম্যাচ উপভোগ করবেন। পরে চট্টগ্রাম জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম ও সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়াম পরিদর্শনে যাবেন তারা।
গুঞ্জন, নেপথ্যে আইপিএল আয়োজন! বাংলাদেশের তিন ভেন্যুতে মাল্টি মিলিয়ন ডলারের টুর্নামেন্টটির কয়েকটি ম্যাচ অনুষ্ঠিত করা যায় কি না-খতিয়ে দেখবেন অতিথিরা। এছাড়া দ্বিপক্ষীয় ক্রিকেটীয় সম্পর্ক নিয়েও আলোচনা হবে।

এলএবাংলাটাইমস/এস/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত