যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 03:05pm

|   লন্ডন - 09:05am

|   নিউইয়র্ক - 04:05am

  সর্বশেষ :

  হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের নতুন নেতৃত্বকে বিশ্বজিৎ দে বাবলুর অভিনন্দন   ফ্লোরিডায় পিঠা মেলা অনুষ্ঠিত   ‘সেক্সিয়েস্ট এশিয়ান ওম্যান’ আলিয়া ভাট   ইতালীতে মহিলা সংস্থার বিজয় ফুল উৎসব   সেনাদের বিচারে মিয়ানমারের আশ্বাসে আস্থা নেই: গাম্বিয়া   বালিশকাণ্ড: মাসুদুলসহ ১৩ প্রকৌশলী গ্রেপ্তার   বেগম খালেদা জিয়ার জামিন হয়নি   গাজীপুরে ডায়রিয়ার প্রকোপ, পাঁচজনের মৃত্যু   যুক্তরাজ্যে আজ ভোট   নাইজারে সেনা ঘাঁটিতে ভয়াবহ হামলা, নিহত ৭১   নাগরিকত্ব বিলের প্রতিবাদে আসামে কারফিউ ভেঙে রাস্তায় জনতা, গুলিতে নিহত ৩   বাংলাদেশে সংখ্যালঘু নির্যাতনের দৃষ্টান্ত নেই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   সেনাপ্রধানসহ মিয়ানমারের ৪ কর্মকর্তার ওপর ফের মার্কিন নিষেধাজ্ঞা   দিল্লির দূষণ নিয়ে মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামির অবাক করা বক্তব্য   নাগরিকত্ব বিলের প্রতিবাদে উত্তাল ত্রিপুরা, মোবাইল-ইন্টারনেট সেবা বন্ধ

>>  খেলাধুলা এর সকল সংবাদ

বাংলাদেশ সচিবালয়ের আশপাশে হর্ন বাজালেই এক মাসের জেল

বাংলাদেশ সচিবালয়ের আশেপাশে ঘোষিত ‘নীরব এলাকা’য় হর্ন বাজালেই জেল-জরিমানা করা হবে। সচিবালয়ের চারপাশের এলাকাকে ১৭ ডিসেম্বর থেকে ‘নো হর্ন জোন’ বা ‘নীরব জোন’ ঘোষণা করেছে সরকার। এরপর থেকে বাংলাদেশ সচিবালয়ের চারপাশের এলাকায় হর্ন বাজালে এক মাসের কারাদণ্ড বা পাঁচ হাজার টাকা জরিমানা বা উভয় দণ্ড হতে পারে।

‘নীরব জোন’ কার্যকর করতে রোববার সচিবালয়ে পরিবেশ মন্ত্রণালয়ে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে এক আন্তঃমন্ত্রণালয় সভা অনুষ্ঠিত হয়।

আন্তঃমন্ত্রণালয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ‘নীরব জোন’ জিরো পয়েন্ট, পল্টন মোড়, সচিবালয় লিংক রোড হয়ে জিরো পয়েন্ট এলাকায় হর্ন বাজানো যাবে

বিস্তারিত খবর

বিপিএল উদ্বোধন: ঢাকা মাতিয়েছেন সালমান-ক্যাটরিনা

 প্রকাশিত: ২০১৯-১২-০৮ ১৩:৪৯:২৭


বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মূল আকর্ষণেই ছিলেন বলিউডের সুপারস্টার সালমান খান ও ক্যাটরিনা কাইফ। রোববার সকালে ঢাকায় আসেন দুজন। অপেক্ষা ছিলো কখন মঞ্চে উঠবেন দুই বলিউড তারকা। অবশেষে দেখা মিলল ক্যারিনা কাইফ ও সালমান খানের। সময় অনুয়ায়ি রাত সাড়ে ১০টার দিকে মঞ্চে উঠেন ক্যাটরিনা। গানের ছন্দে দারুণ নৃত্তে মঞ্চ মাতিয়েছেন ক্যাটরিনা আর তার পরেই মঞ্চে উঠেন সালমান। এককভাবে মঞ্চ মাতানো গানে পারফর্ম করে দুজন উপস্থিত দর্শকদের সাথে কিছু কথা বলেন।

তারপর দুজনের যুগল নৃত্যে রাত ১০টা ৫০ মিনিটে শেষ হয় বঙ্গবন্ধু বিপিএলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান।

এর আগে জমকালো আয়োজনের মধ্যে দিয়ে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট টুর্নামেন্টের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার সন্ধ্যা আনুমানিক ৬টা ৫০ মিনিটে মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এক জমজমাট অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এই উদ্বোধন ঘোষণা করেন শেখ হাসিনা।

এটাই ছিল বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে সরকার গৃহীত বিভিন্ন কর্মসুচির প্রথম সূচি।

৪০ দিনব্যাপী এ টুর্নামেন্টের উদ্বোধন অনুষ্ঠারন মঞ্চ মাতাতে ঢাকায় পা রাখেন জনপ্রিয় বলিউড তারকা সালমান খান, ক্যাটরিনা কাইফ, সনু নিগাম ও কৈলাশ খেরেরা। এছাড়া দেশি তারকাদের মধ্যে আছেন মমতাজ, জেমসসহ আরও অনেকে। পাঁচ ঘন্টা দীর্ঘ এই অনুষ্ঠানে পারফর্ম করবেন তারা।

প্রধানমন্ত্রীর আগমনের আগেই কনসার্ট দিয়ে শুরু হয় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। বিসিবি’র তত্ত্বাবধানে এবার বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক পরিবেশনা রাখা হয়েছে। পুরো স্টেডিয়ামকে সাজানো হয়েছে বর্ণিলভাবে। সব মিলিয়ে জমকালো আয়োজনের মধ্য দিয়ে বিশেষ এই বিপিএল উদ্বোধন হয়।

সাতটি দলের অংশগ্রহণে যথাযথভাবে আগামী ১১ ডিসেম্বর থেকে শুরু হবে এবারের ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’। দলগুলো হচ্ছে- ঢাকা প্লাটুন, চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স, খুলনা টাইগার্স, সিলেট থান্ডার, রংপুর রেঞ্জার্স, রাজশাহী রয়্যালস ও কুমিল্লা ওয়ারিয়র্স। বিসিবি নিজের তত্ত্বাবধানে এবারের আসরের দলগুলো পরিচালনা করছে।

বিস্তারিত খবর

রেকর্ড ষষ্ঠ ব্যালন ডি’অর জিতলেন মেসি

 প্রকাশিত: ২০১৯-১২-০৩ ১১:২৭:০৯

রেকর্ড ষষ্ঠবার ব্যালন ডি’অর জিতলেন লিওনেল মেসি। বর্ষসেরা ফুটবলের মর্যাদাকর এই পুরস্কারে বার্সেলোনা ও আর্জেন্টাইন তারকা হারান ভার্জিল ফন ডাইক ও ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোকে। ফ্রান্সের রাজধানী প্যারিসে ২ ডিসেম্বর স্থানীয় সময় সন্ধ্যায় এক জমকালো অনুষ্ঠানে মেসির হাতে পুরস্কারটি তুলে দেন গতবারের বিজয়ী লুকা মদ্রিচ।

এর আগে মেসি ও রোনালদো সমান পাঁচটি করে ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন। মেসি ২০০৯, ১০, ১১, ১২ ও সর্বশেষ ২০১৫ সালে ট্রফিটি হাতে তোলেন। আর চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী রোনালদো ২০০৮, ১৩, ১৪, ১৬ ও ২০১৭ সালে ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন।

ফ্রান্স ফুটবল সাময়িকী ব্যালন ডি’অরের জন্য এর আগে ৩০জনের তালিকা তৈরি করেছিল। সেখান থেকে চূড়ান্ত তালিকায় জায়গা পান মেসি, ফন ডাইক ও রোনালদো। বিশ্বের ১৮০জন ফুটবল সংবাদকর্মী বর্ষসেরা খেলোয়াড় বেছে নিতে ভোট দেন। এছাড়াও ভোট দেন অধিনায়ক ও কোচেরা।

৩২ বছর বয়সী মেসি গত মৌসুমে লা লিগায় ৩৬ গোল করে শিরোপা জিতিয়েছেন বার্সাকে। সেইসঙ্গে ব্যক্তিগত পুরস্কার ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু জেতেন। যদিও জাতীয় দলের হয়ে কোপা আমেরিকায় তার দল আর্জেন্টিনাকে তৃতীয় করতে পেরেছিলেন তিনি।

মেসি ছাড়া সেরা হওয়ার দৌড়ে লিভারপুলের ডাচ ডিফেন্ডার ভার্জিল ফন ডাইক তার ক্লাবের হয়ে গতবার চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতেন। এছাড়া তার জাতীয় দল নেদারল্যান্ডসের হয়ে উয়েফা ন্যাশন্স লিগের ফাইনালে খেলে রানারআপ হন। এর আগে ফিফার বর্ষসেরা দ্য বেস্ট হওয়ার লড়াইও তার সঙ্গে বার্সা অধিনায়কও ছিলেন। তবে সেখানে শেষ হাসি হাসেন মেসি। কিন্তু ইউরোপের বর্ষসেরায় আবার মেসিকে হটিয়ে পুরস্কার জিতেছিলেন ফন ডাইক।

এদিকে রিয়াল ছেড়ে ইতালিতে পাড়ি দেওয়া রোনালদো প্রথম মৌসুমেই জুভেন্টাসের হয়ে সিরিআ ও সুপারকোপ ইতালিয়ানা জেতেন। এছাড়া উয়েফা ন্যাশন্স লিগে নেদারল্যান্ডসকে হারিয়ে শিরোপা উঁচিয়ে ধরেন। 

২০১৮ মৌসুমে ব্যালন ডি’অর জিতেছিলেন রিয়াল মাদ্রিদের ক্রোয়েশিয়ান তারকা লুকা মদ্রিচ। রিয়ালকে চ্যাম্পিয়নস লিগ জেতাতে তার বড় ভূমিকা ছিল। অসাধারণ খেলেছিলেন রাশিয়া বিশ্বকাপেও। তার দেশকে ফাইনালে নিয়ে গিয়ে রানারআপ হয়েছিলেন।

বিস্তারিত খবর

শূন্য রানে ৬ উইকেট নিয়ে অঞ্জলির বিশ্বরেকর্ড

 প্রকাশিত: ২০১৯-১২-০২ ১০:২৬:০০


কোনো রান খরচ না করেই ৬ উইকেট শিকার করে বিশ্বরেকর্ড গড়লেন নেপালের নারী ক্রিকেটার অঞ্জলি চাঁদ। নেপালের হয়ে অভিষেক ম্যাচ খেলতে নেমেই ইতিহাস গড়লেন অঞ্জলি।

২.১ ওভার বল করে কোনো রান খরচ না করেই মালদ্বীপের ৬ উইকেট শিকার করেন অঞ্জলি। তার বোলিং তোপের মুখে পড়ে মাত্র ১৬ রানে অলআউট মালদ্বীপ।

এর আগে চলতি বছরের জানুয়ারিতে চীনের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি ম্যাচে মালয়েশিয়ান নারী ক্রিকেটার মাস এলিসা ৪ ওভারে ৩ রানে ৬ উইকেট শিকার করেন।

তবে ছেলেদের ক্রিকেটে টি-টোয়েন্টিতে মাত্র ৭ রানে ৬ উইকেট শিকারের ইতিহাস গড়েন ভারতীয় ক্রিকেটার দীপক চাহার। তিনি গত মাসে বাংলাদেশের বিপক্ষে ভারতের নাগপুরে এই নজির স্থাপন করেন।

সোমবার নেপালের পোখারা রাঙ্গসালা স্টেডিয়ামে চলমান সাউথ এশিয়ান গেমসের উদ্বোধনী ম্যাচে স্বাগতিক নেপালের বিপক্ষে চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে ১০.১ ওভরে ১৬ রানে অলআউট মালদ্বীপ। দলের ৯ জন ব্যাটসম্যান রানের খাত খুলার সুযোগ পাননি। ওপেনার হামজা নিওয়াজ করেন সর্বোচ্চ ৯ রান। এছাড়া উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান হাফসা আব্দুল্লাহ করেন ৪ রান।

নেপালের হয়ে অভিষেক ম্যাচ খেলতে নেমে ইতিহাস গড়েন অঞ্জলি চাঁদ। তিনি ২.১ ওভারে কোনো রান খরচ না করেই ৬ উইকেট শিকার করেন।

টার্গেট তাড়া করতে নেমে মাত্র ৫ বল খেলেই ১০ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জয় লাভ করে নেপাল। দলের জয়ে ৫ বলে তিনটি চারের সাহায্যে ১৩ রান করেন কাজল শ্রেষ্ঠা।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে মাত্র ১৬ রানেই অলআউট মালদ্বীপ নারী ক্রিকেট দল। নারী ক্রিকেটে এর আগে দক্ষিণ আফ্রিকার দেশ রোয়ান্ডার বিপক্ষে চলতি বছরের জুনে ৯ ওভারে মাত্র ৬ রানে অলআউট হয়েছিল পশ্চিম আফ্রিকার দেশ মালি। জবাবে ৪ বল খেলে জয় নিশ্চিত করে রোয়ান্ডা।

তবে ছেলেদের ক্রিকেটে টি-টোয়েন্টিতে দলীয় সর্বনিম্ন রানের বাজে রেকর্ড গড়েছে তুর্কি। তারা চেক প্রজাতন্ত্রের বিপক্ষে চলতি বছরের আগস্টে ২১ রানে অলআউট হয়েছিল।

বিস্তারিত খবর

ট্রিপল সেঞ্চুরিতে ইতিহাস গড়লেন ওয়ার্নার

 প্রকাশিত: ২০১৯-১১-৩০ ০৬:৫০:৩৫


মোহাম্মদ আব্বাসের শর্ট বল পুল করলেন। মিড অন দিয়ে বল চলে গেল বাউন্ডারিতে। ততক্ষণে শুরু হয়ে গেছে তার সেই ট্রেডমার্ক উদযাপন। সেটি এবার একটু বেশিই লম্বা হলো। দৌড়ে গিয়ে প্রথমে চিরচেনা সেই লাফ। এক হাতে ব্যাট, আরেক হাতে হেলমেট নিয়ে দুহাত উঁচিয়ে অভিনন্দনের জবাব, সঙ্গে গর্জন। এরপর হেলমেটে চুমু। আরও একবার লাফ। 

ডেভিড ওয়ার্নারের উদযাপন তো একটু বেশি হওয়ারই কথা! ওই চারেই যে টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম ট্রিপল সেঞ্চুরি পেয়ে গেছেন অস্ট্রেলিয়ান ওপেনার।

অ্যাডিলেডে পাকিস্তানের বিপক্ষে দিবারাত্রির টেস্টের দ্বিতীয় দিন শনিবার প্রথমে আগের দিনের সেঞ্চুরিকে তিনি রূপ দেন ডাবলে। এরপর সেটিকে রূপান্তর করেন ট্রিপলে।

দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে গোলাপি বলের টেস্টে ট্রিপল সেঞ্চুরি করলেন ওয়ার্নার। এই টেস্টেই খেলা পাকিস্তান অধিনায়ক আজহার আলী এর আগে করেছিলেন অপরাজিত ৩০২, ২০১৬ সালে দুবাইয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে।

লাল কিংবা গোলাপি বলের টেস্ট; প্রায় তিন বছর পর কোনো ব্যাটসম্যান ট্রিপল সেঞ্চুরি করলেন। সবশেষ ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে চেন্নাইয়ে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের করুন নায়ার করেছিলেন অপরাজিত ৩০৩।

এছাড়া অ্যাডিলেড ওভালে এই প্রথম কোনো ব্যাটসম্যান ট্রিপল সেঞ্চুরি করলেন। ওয়ার্নার ছাড়িয়ে গেছেন এই মাঠে ৮৮ বছর আগে স্যার ডন ব্র্যাডম্যানের করা অপরাজিত ২৯৯ রানকে।

ওয়ার্নারের ইনিংসটা থেমে যেতে পারত অবশ্য ২২৬ রানেই। মোহাম্মদ মুসার অফ স্টাম্পের বাইরের বল ড্রাইভ করে ক্যাচ দিয়েছিলেন গালিতে। কিন্তু মুসা ওভারস্টেপিং করেছিলেন। নো বলের কল্যাণে বেঁচে যান ওয়ার্নার।

১৬৬ রান নিয়ে দিন শুরু করা ওয়ার্নার প্রথম পৌনে এক ঘণ্টার মধ্যেই পৌঁছে গিয়েছিলেন ডাবলে। এরপর ছুটেছেন ট্রিপলের দিকে। ২৮৯ থেকে ইফতিখার আহমেদকে চার মেরে পৌঁছে যান ২৯৩-এ। ডাবল ও সিঙ্গেল নিয়ে ২৯৬ রানে। এরপর আব্বাসকে চার হাঁকিয়ে তিনশ স্পর্শ করেন ৩৮৯ বলে।

অস্ট্রেলিয়া ইনিংস (৫৮৯/৩) ঘোষণা করার সময় ওয়ার্নার অপরাজিত ছিলেন ৩৩৫ রানে। ৪১৮ বলে ৩৯ চার ও একটি ছক্কায় ইনিংসটি সাজান ৩৩ বছর বয়সি বাঁহাতি ব্যাটসম্যান।

বিস্তারিত খবর

ভারতের বিপক্ষে বাংলাদেশের ঐতিহাসিক জয়

 প্রকাশিত: ২০১৯-১১-০৩ ১৪:৪৬:১৯

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে ভারতের বিপক্ষে প্রথম জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। দিল্লির অরুন জেটলি স্টেডিয়ামে মুশফিকুর রহীমের ব্যাটে ভর করে স্বাগতিক ভারতকে ৭ উইকেটে হারিয়েছে টাইগাররা। ৪৩ বলে ৫০ রানে অপরাজিত থাকেন মুশফিক।

শফিউল ইসলামের করা ইনিংসের প্রথম ওভারেই ফিরলেন রোহিত শর্মা। সপ্তম ওভারে নিজের প্রথম ওভার করতে এসে উইকেট পেলেন লেগি আমিনুল ইসলাম বিপ্লব। ফেরালেন লোকেশ রাহুলকে। তাতে ৩৬ রানে ২ উইকেট হারাল ভারত। এরপর অবশ্য শিখর ধাওয়ানকে নিয়ে শুরুর ধাক্কা সামাল দিচ্ছিলেন শ্রেয়াস আয়ার। বিপ্লবকে দুটি ছক্কাও হাঁকালেন আয়ার।
শেষ পর্যন্ত অবশ্য এই ডানহাতিকে নিজের দ্বিতীয় শিকার বানালেন বিপ্লব। এরপর শেখর ধাওয়ানকে রান আউট করলে ৯৫ রানে চার উইকেট হারায় ভারত। এরপর অভিষিক্ত শিভাব দেবুতে কট এন্ড বোল্ড করে আফিফ হোসেন দ্রুব। ১০২ রানেই পাঁচ উইকেট হারায় ভারত। তবে শেষ দিকে কুনা পান্ডে ও ওয়াশিংটন সুন্দরের ব্যাটে চড়ে ১৪৮ রানে লড়াকু পুজি পায় ভারত।
বাংলাদেশের আমিনুল ইসলাম বিল্পব ও শফিউল ইসলাম দুটি করে উইকেট লাভ করেন।
রবিবার দিল্লির অরুণ জেটলি স্টেডিয়ামে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে মুখোমুখি হয়েছে বাংলাদেশ ও ভারত। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় শুরু হয়েছে ম্যাচটি। নিষেধাজ্ঞার কারণে সাকিব আল হাসান নেই। পারিবারিক কারণে তামিম ইকবালও খেলছেন না এই সিরিজে। সব মিলে এই সিরিজ কঠিন চ্যালেঞ্জ টাইগারদের জন্য।
ভারতেরও অবশ্য নিয়মিত অধিনায়ক বিরাট কোহলি, পেসার জাসপ্রিত বুমরাহ, অলরাউন্ডার হার্দিক পান্ডিয়া নেই। বাংলাদেশ কি পারবে সেই সুযোগটা নিতে?
বাংলাদেশ একাদশ: লিটন দাস, সৌম্য সরকার, মোহাম্মদ নাঈম শেখ, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, আফিফ হোসেন, মোসাদ্দেক হোসেন, আমিনুল ইসলাম বিপ্লব, শফিউল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান ও আল-আমিন হোসেন।
ভারত একাদশ: রোহিত শর্মা, শিখর ধাওয়ান, লোকেশ রাহুল, শ্রেয়াস আয়ার, রিশভ পন্ত, ক্রুনাল পান্ডিয়া, শিবাম দুবে, ওয়াশিংটন সুন্দর, দীপক চাহার, যুজবেন্দ্র চাহাল, খলিল আহমেদ।

বিস্তারিত খবর

পাপনের জুয়া খেলা নিয়ে যা বললেন ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী

 প্রকাশিত: ২০১৯-১১-০১ ১৪:২৭:২৩

সাকিব ইস্যু ও ক্যাসিনো অভিযান ইস্যুতে যখন ক্রিকেট ও রাজনীতির মাঠ গরম, তখনই সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হলো বিসিবি সভাপতির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের একটি ভিডিও।

ভিডিওতে দেখা গেছে, জাঁকজমকপূর্ণ সিঙ্গাপুরের একটি একটি ক্যাসিনোতে বসে জুয়া খেলছেন বিসিবি সভাপতি।

কয়েক সেকেন্ডের এই ভিডিও নিয়ে গতকাল থেকে তোলপাড় শুরু হয় সোশ্যাল সাইটে। এই ভিডিও সরকারেরও দৃষ্টি এড়ায়নি। খোদ ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল এ ঘটনায় বিব্রত।

তবে সরাসরি কোনো মন্তব্য না করলেও পাপনের জুয়া খেলার বিষয়টিকে ‘নৈতিকতার অবক্ষয়’ হিসেবে দেখছেন তিনি।

গণমাধ্যমকে রাসেল বলেছেন, ‘বাংলাদেশে ক্যাসিনি একটি অপরাধ। সেহেতু যারা এ অপরাধ করছে তাদের আমরা শাস্তি দিচ্ছি। এমন অনেকের কথাই শুনেছি যে, বাইরে এসব করত। তবে আমি এখনও (ভিডিও) দেখিনি, শুনেছি। তাই এসব নিয়ে কিছু বলতে পারছি না। তবে সবাইকেই শাস্তি পাওয়া উচিত।’

এছাড়া সাকিব আল হাসানের শাস্তি কমানোর জন্য বিসিবির সঙ্গে একযোগে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী।

জুয়াড়ির প্রস্তাব ফিরিয়ে দিলেও আইসিসিকে না জানানোয় শাস্তি ভোগ করতে হবে অন্তত একবছর। শাস্তির বিরুদ্ধে তার আপিলের কোনো সুযোগ নেই। তারপরেও বিসিবি তাদের আইনজীবী প্যানেলকে সবকিছু পর্যালোচনার নির্দেশ দিয়েছে।

জাহিদ আহসান রাসেল বলেছেন, সাকিবকে দ্রুত মাঠে ফেরাতে সব ধরনের উদ্যোগ নিতে বিসিবিকে নির্দেশনা দিয়েছে যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়। সাকিবকে দ্রুত মাঠে দেখার আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

বিস্তারিত খবর

ভারতের পত্রিকায় সাকিবের সমালোচনা

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-৩০ ১১:৫৫:২১


দুর্দান্ত পারফরমার বললেও বোধহয় কম বলা হয়। ভারতের অনেকেই বলে থাকেন, বাংলাদেশের হয়ে না খেলে সাকিব যদি ভারতের হয়ে খেলতেন, তা হলে তার আরও সুখ্যাতি হতো। তার পারফরম্যান্স আরও নজরে পড়ত। ক্রিকেটার সাকিবের আড়ালে রয়েছে অন্য এক স্বত্তা। তিনি বিতর্কিত। একাধিক বার বিতর্কে জড়িয়েছেন তিনি। আইসিসি-র বিচারে সম্প্রতি ২ বছরের জন্য নিষিদ্ধ বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারের সেই সব বিতর্কিত মুহূর্ত আরও একবার দেখে নেয়া যাক।

২০১৯ বিশ্বকাপের আগে দলের ফোটোসেশনে ছিলেন না সাকিব। বিশ্বকাপের স্কোয়াডে থাকা ক্রিকেটারদের নিয়ে জার্সি উন্মোচনে উপস্থিত ছিলেন না সাকিব। দলের আনুষ্ঠানিক ফটোশুটেও তিনি গরহাজির ছিলেন। সাকিবের অনুপস্থিতি নিয়ে দেশে ঝড় বয়ে যায়।

সেই সময়ে বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার যে দেশের বাইরে ছিলেন এমনও নয়। বাংলাদেশেই ছিলেন বাঁ হাতি অলরাউন্ডার। তবুও তিনি দলের ফোটোসেশনে উপস্থিত থাকেননি।

ফোটোসেশন যে দিন হয়েছিল, তার আগের দিন আইপিএল খেলে দেশে ফিরেছিলেন সাকিব। সকালে মাঠেও এসেছিলেন। কিন্তু, ফোটোসেশনের ঘণ্টা খানেক আগে মিরপুর ছেড়ে চলে যান তিনি। বাংলাদেশের নতুন জার্সিতে কেন যে তিনি ফোটো তোলেননি তা থেকে যায় অজানাই। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট নাজমুল হাসান পাপন বিষয়টাকে ভাল ভাবে নেননি।

নিধাহাস ট্রফিতে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচে সতীর্থদের মাঠ ছেড়ে চলে আসতে বলে নতুন এক বিতর্কের জন্ম দিয়েছিলেন সাকিব। তখন তিনি ছিলেন দেশের অধিনায়ক। দ্বীপরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে ম্যাচ শেষের দিকে দারুণ উত্তেজক হয়ে ওঠে। শেষ ওভারে বাংলাদেশের জেতার জন্য দরকার ছিল ১২ রান। শেষমেশ বাংলাদেশ ম্যাচটা জিতলেও মেজাজ হারান সাকিব। মাঠ ছেড়ে চলে আসতে বলেছিলেন ব্যাটসম্যানদের।

শ্রীলঙ্কার ১৫৯ রান তাড়া করতে নামে বাংলাদেশ। জেতার জন্য শেষ ওভারে দরকার ছিল ১২ রান। শেষ ওভারের প্রথম বলটি ছিল বাউন্সার। পরের বলটিও বাউন্সার। দ্বিতীয় বলে মুস্তাফিজ রান আউট হলেও দ্বিতীয় বাউন্সারের জন্য লেগ আম্পায়ার নো বল ডাকেন। কিন্তু, শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটাররা আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানান। তাদের সম্মিলিত প্রতিবাদের মুখে আম্পায়ার নো-বলের সিদ্ধান্ত বদলে ফেলেন।

আম্পায়ারের এ হেন সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা প্রতিবাদ জানান। মাঠের বাইরে চতুর্থ আম্পায়ারের সঙ্গে তর্কাতর্কি বাধে সাকিবের। ব্যাটসম্যানদের মাঠ ছেড়ে চলে আসতে বলেন তিনি। ম্যানেজার খালেদ মাহমুদ থামান ব্যাটসম্যানদের। জেতার জন্য ৪ বলে তখন দরকার ১২ রান। মাহমুদুল্লাহ ছক্কা হাঁকিয়ে বাংলাদেশকে ফাইনালে তোলেন। টানটান উত্তেজনায় বাংলাদেশ ম্যাচ জিতলেও জরিমানা হয়েছিল সাকিবের।

প্রথম বার সাকিবকে নিষিদ্ধ করা হয়েছিল ২০১৪ সালে। কুৎসিত অঙ্গভঙ্গি করায় জরিমানা হয়েছিল সাকিবের।

সে বার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচ চলাকালীন টেলিভিশন ক্যামেরার দিকে তাকিয়ে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করেছিলেন সাকিব। সেই ঘটনায় নিন্দার ঝড় উঠেছিল। বোর্ড প্রথম বার সাকিবকে ৩ ম্যাচ নিষিদ্ধ করে। বোর্ডের শৃঙ্খলারক্ষা কমিটি সাকিবকে বাংলাদেশি মুদ্রায় ৩ লক্ষ টাকা জরিমানা করেছিল বোর্ডের ডিসিপ্লিনারি কমিটি।

সেই বছরই ফের শাস্তির মুখে পড়েছিলেন তিনি। বোর্ডের শৃঙ্খলাভঙ্গ ও আচরণগত সমস্যার অভিযোগে ২০১৪ সালের ৭ জুলাই ঘরোয়া এবং আন্তর্জাতিক সব ধরনের ক্রিকেট থেকে ৬ মাসের জন্য নিষিদ্ধ করা হয়েছিল সাকিবকে। পরবর্তী দেড় বছর দেশের বাইরে কোনো টুর্নামেন্টে খেলার জন্য সাকিবকে নো অবজেকশন সার্টিফিকেট দেবে না বলে জানিয়েছিল বিসিবি। পরে অবশ্য তার আবেদনের প্রেক্ষিতে বোর্ড শাস্তি কমায়।

সম্প্রতি বোর্ডের বিরুদ্ধে বিদ্রোহে নেমেছিলেন ক্রিকেটাররা। তার নেতৃত্বে ছিলেন সাকিব। ১১ দফা দাবি পেশ করেছিলেন ক্রিকেটাররা। তারা সাফ জানিয়ে দিয়েছিলেন, দাবি না মানা পর্যন্ত তারা খেলবেন না। বাংলাদেশের ক্রিকেটে এই ধরনের বিদ্রোহের ঘটনা ছিল নজিরবিহীন। পরে অবশ্য বোর্ড ক্রিকেটারদের সঙ্গে কথা বলে বরফ গলায়।

বিস্তারিত খবর

দুই বছর নিষিদ্ধ সাকিব

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৯ ১১:১০:৫২

বাংলাদেশ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে সব ধরনের ক্রিকেট থেকে দুই বছরের জন্য নিষিদ্ধ করেছে ক্রিকেটের সর্বোচ্চ সংস্থা আইসিসি। মঙ্গলবার আইসিসির নিজস্ব সাইটে নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি নিশ্চিত করে তারা। তবে শর্ত যোগে তার এক বছরের সাজা স্থগিত করা হয়েছে। আইসিসির কোড অব কনডাক্টের তিনটি ধারা ভাঙায় তাকে এই শাস্তি দেওয়া হয়েছে।

তবে তার বিরুদ্ধে আনা তিনটি অভিযোগ মেনে নিয়েছেন সাকিব। ভুল স্বীকার করায় সাজার মেয়াদ দুই বছর থেকে কমিয়ে এক বছর করা হয়েছে। ২০২০ সালের ২৯ অক্টোবর থেকে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলতে পারবেন তিনি। তবে এই এক বছর আইসিসির নজরে থাকবেন তিনি। ভবিষ্যতে একই ভুল করলে স্থগিত থাকা ওই সাজাও ভোগ করতে হবে তাকে।

আইসিসির নিষেধাজ্ঞা নিয়ে সাকিব বলেন, ক্রিকেটকে আমি ভালোবাসি। এই খেলা থেকে নিষিদ্ধ হওয়ায় আমি সত্যিই খুব হতাশ। জুয়াড়ির প্রস্তাবের ব্যাপারে আইসিসিকে না জানানোর ভুল আমি স্বীকার করেছি। খেলার মাঠে দুর্নীতির বিরুদ্ধে লড়াই করার ক্ষেত্রে আইসিসির অ্যান্ডিকরাপশন ইউনিটের হয়ে ক্রিকেটাররাই প্রধান ভূমিকা পালন করেন। সেই হিসেবে আমি আমার কাজ ঠিকঠাক করিনি।'

সাকিব জানান, ক্রিকেটকে তিনি দুর্নীতি মুক্ত রাখতে চান। অন্যান্য ক্রিকেটার এবং ভক্তদের মতো ক্রিকেটকে দুর্নীতি মুক্ত রাখতে তিনি আইসিসির সঙ্গে কাজ করে যাবেন। তরুণ ক্রিকেটাররা যাতে ভুল না করে সেজন্য দুর্নীতি নিয়ে আকসুর শিক্ষা কার্যক্রমের সঙ্গে কাজ করতে চান বলেও জানান তিনি।

আইসিসির ব্যবস্থাপনা পরিচালক অ্যালেক্স মার্শাল বলেন, 'সাকিব আল হাসান খুবই অভিজ্ঞ একজন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার। আইসিসির দুর্নীতি বিরোধী অনেক শিক্ষা কার্যক্রমে তিনি অংশগ্রহণ করেছেন। তিনি নিয়ম-নীতি সম্পর্কে খুবই ভালো জানেন। তার অবশ্যই জুয়াড়ির প্রস্তাবের ব্যাপারে আইসিসিকে জানানো উচিত ছিল।' তবে সাকিব অনুসন্ধানের ক্ষেত্রে আকসুকে সহায়তা করেছেন বলেও উল্লেখ করেন অ্যালেক্স মার্শাল।

বিস্তারিত খবর

শাস্তি কমানোর আবেদন করবেন সাকিব

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৯ ০২:২৯:৪১

এক বছর ধরেই ব্যাপারটি নিজের মধ্যে রেখে যন্ত্রণা ভোগ করছিলেন তিনি। কাছের কাউকেও ঘুণাক্ষরে টের পেতে দেননি যে তার বিরুদ্ধে কী মারাত্মক অভিযোগ এনেছে আইসিসি। ভেবেছিলেন, হয়তো সবকিছু ঠিক হয়ে যাবে। কেননা, মাঝের প্রায় অনেকটা সময় এ ব্যাপারে আইসিসি আর কোনো যোগাযোগ করেনি তার সঙ্গে। কিন্তু সে সময় যে আইসিসি অভিযুক্ত ওই জুয়াড়ির ব্যাপারে খোঁজখবর নিচ্ছিল, সেটাও টের পাননি। সেই জুয়াড়ির খোঁজ নিতে গিয়েই আকসু দেখতে পায়, ঢাকা লিগের একসময়কার দাপুটে ক্রীড়া সংগঠকের সঙ্গে সাকিব এবং ওই জুয়াড়ির ভালো সম্পর্ক ছিল। তার পর থেকেই এ তদন্ত আরও গভীরে যায়। সাকিব নিশ্চিত হয়ে যান, সাজা তাকে পেতেই হচ্ছে। জাতীয় দলের এক সিনিয়র ক্রিকেটারের কাছে প্রথম এ ব্যাপারটি জানান তিনি। এ ছাড়া ক্রিকেটাঙ্গনে খুব ঘনিষ্ঠ একজনকে ব্যাপারটি খুলে বলেন।

না জেনে ভুলটি করে বসেছেন- আকসুর মুখোমুখি হয়ে নিঃশর্তভাবে  এমন স্বীকারোক্তি দিয়েছেন তিনি। আশা করছেন, সাজার মেয়াদ হয়তো খুব বেশি দিন হবে না। আইসিসির ধারা ২.২.৪ থেকে ২.২.৬- এ অংশে অভিযুক্ত হয়েছেন সাকিব। যার শাস্তি সর্বনিম্ন ছয় মাস থেকে সর্বোচ্চ পাঁচ বছর নিষিদ্ধ হওয়া। তবে যেহেতু আকসুর সঙ্গে তিনি সহায়তা করেছেন এবং অতীতে তার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগের রেকর্ড নেই, তাই আবেদন করলে সেটি কমে ছয় মাস করতে পারে আইসিসি। তবে এ জন্য বিসিবি নয়, সাকিবকেই শাস্তি কমানোর আবেদন করতে হবে। সাকিব আল হাসানের ঘনিষ্ঠ এক সূত্রের দাবি, সাকিব এই আবেদন করার জন্য মানসিক এবং আইনি প্রস্তুতিও নিয়ে রেখেছেন।

এমনিতে গত তিন দিন ধরেই চেনা-অচেনা কারোরই ফোন সেভাবে ধরছেন না সাকিব। হোয়াটসঅ্যাপের টেক্সটগুলো 'সিন' করেও উত্তর দিচ্ছেন না। বিসিবি থেকেই বলে দেওয়া হয়েছে, ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত কোনো ধরনের মিডিয়ার মুখোমুখি না হতে। সাকিবের এই ব্যাপারটি গোপন রাখা হয়েছে কোচিং স্টাফদের কাছেও। মিরপুরে গত দুটি অনুশীলন ম্যাচ খেলেননি তিনি। কোচকে ফোন করে শুধু জানিয়েছেন, 'শরীর খারাপ লাগছে।' কোচ রাসেল ডমিঙ্গো ব্যাপারটি স্বাভাবিকভাবেই নিয়েছেন। বিসিবির পক্ষ থেকেও কোচকে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে, সাকিবের পরিবর্তে নতুন কোনো ক্রিকেটারকে দিয়ে ম্যাচ খেলাতে। সাকিবের ভারত সফর অনিশ্চিত হয়ে যাওয়ার ব্যাপারটি নাকি কোচিং স্টাফদেরও কেউ বুঝতে পারেননি। তবে গতকাল মিরপুরে কোচিং স্টাফদের সঙ্গে বসে নাজমুল হাসান পাপন তাদের ইঙ্গিত দিয়েছেন, সাকিবকে ছাড়াই হয়তো যেতে হবে ভারত সফরে। সাকিবকে ছাড়া তাই নতুন করে টিম প্ল্যান তৈরি করতে হচ্ছে রাসেল ডমিঙ্গোকে।

বিস্তারিত খবর

জুয়াড়িদের প্রস্তাব গোপন: ১৮ মাস নিষিদ্ধ হচ্ছেন সাকিব

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৯ ০২:০৯:০৬


বাংলাদেশের ক্রিকেটকে বড় একটা দুঃসংবাদ দিতে যাচ্ছে বিশ্ব ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ন্ত্রক সংস্থা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। দেশের সবচেয়ে বড় তারকা সাকিব আল হাসান আইসিসির ১৮ মাসের নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়তে যাচ্ছেন। দুই বছর আগে একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচের আগে এক ক্রিকেট জুয়াড়ির (বুকি) কাছ থেকে অনৈতিক প্রস্তাব পেয়েছিলেন সাকিব। সেটি তৎক্ষণাৎ প্রত্যাখ্যান করলেও আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগকে না জানিয়ে গোপন করেন তিনি। বিষয়টি পরে আইসিসি জানতে পারে। আন্তর্জাতিক জুয়াড়িদের কল রেকর্ড ট্র্যাকিং করে এ ব্যাপারে তারা তথ্য উদ্ধার করে। ওই জুয়াড়ি আইসিসির কালো তালিকায় থাকাদের একজন। বিষয়টি পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়ার পর সম্প্রতি সাকিবের সঙ্গেও কথা বলেন আইসিসির অ্যান্টিকরাপশন অ্যান্ড সিকিউরিটি ইউনিট (আকসু) প্রতিনিধি। বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, সাকিবও নিজের ভুল স্বীকার করেছেন আকসু তদন্ত কর্মকর্তাদের কাছে। আত্মপক্ষ সমর্থন করে বলেছেন, জুয়াড়ির প্রস্তাবকে গুরুত্ব দেননি বলেই জানাননি। বিষয়টি হালকাভাবে নেওয়াটাই তার জন্য  কাল হয়েছে। সব ধরনের ক্রিকেটে নিষিদ্ধ হতে যাচ্ছেন তিনি। বিসিবির একাধিক সূত্র জানিয়েছে, আজ অথবা আগামীকাল সংবাদ বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সাকিবের নিষেধাজ্ঞার বিষয়টি জানাবে আইসিসি। বিসিবি এরই মধ্যে এ বিষয়ে অবগত হয়েছে।

বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন ইতোমধ্যে একাধিক ব্রিফিং ও সাক্ষাৎকারে ৩০ অক্টোবর আইসিসির একটি রিপোর্ট পাওয়ার কথা বলেছেন। গত ২২ অক্টোবর মঙ্গলবার মিরপুর শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সংবাদ সম্মেলনে ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বিষয়েও ইঙ্গিত দেন তিনি। সাকিব যে ৩০ অক্টোবর দলের সঙ্গে ভারত যেতে পারছেন না, সেটিও এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন বিসিবি সভাপতি। ভারত সফরে নতুন অধিনায়ক পাওয়া নিয়ে দুশ্চিন্তার কথাও উল্লেখ করেছেন পাপন। সংশ্নিষ্টরা জানিয়েছেন, এত কিছুই ঘটেছে সাকিবের সম্ভাব্য নিষেধাজ্ঞাকে সামনে রেখে।

আইসিসি ইতোমধ্যে সাকিবের ব্যাপারে বিসিবিকে বিস্তারিত জানিয়েছে। তাকে জাতীয় দলের সঙ্গে অনুশীলন না করার নির্দেশনাও দিয়েছে আইসিসি। এ কারণে অসুস্থ বলে জাতীয় দলের অনুশীলনে যোগ দিচ্ছেন না সাকিব। গতকাল সোমবার বিসিবির একাধিক পরিচালকের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, সাকিব পরবর্তী সময়ে আকসুকে সহায়তা করায় একটু নমনীয় তারা। শাস্তি ১৮ মাস নির্ধারণ করা হলেও সাকিব আপিল করলে সেটা কমিয়ে দেওয়ার প্রতিশ্রুতি পাওয়া গেছে। বিসিবির সহযোগিতা চাওয়ার পাশাপাশি সাকিব আইসিসির কাছেও ক্ষমা চেয়ে শাস্তি মওকুফের আবদেন করবেন। আইসিসি দুর্নীতি দমন বিভাগের নিয়ম ও শৃঙ্খলা মেনে চললে এই শাস্তি ছয় মাসে নেমে আসতে পারে। এটাই এক্ষেত্রে সর্বনিম্ন শাস্তি।

আইসিসির দুর্নীতি দমন নীতিমালায় আছে, কোনো ক্রিকেটার, কোচিং স্টাফ, আম্পায়ার, স্কোরার, গ্রাউন্ডসের সদস্য, জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সংশ্নিষ্ট যে কেউ জুয়াড়ির কাছ থেকে যে কোনো ধরনের প্রস্তাব পেলে তাৎক্ষণিকভাবে তা আইসিসি বা সংশ্নিষ্ট দেশের ক্রিকেট বোর্ডের দুর্নীতি দমন কর্মকর্তাদের জানাতে হবে। যতটা দ্রুত সম্ভব সেটা করার নির্দেশনা আছে। এজন্য প্রতিটি সিরিজ বা টুর্নামেন্ট শুরুর আগে আইসিসি থেকে ক্রিকেটার এবং অফিসিয়ালদের সচেতন করতে জুয়াড়িদের সম্পর্কে অবগত করা হয়। আইসিসির তালিকাভুক্ত জুয়াড়িদের ছবি ও ফোন নম্বর টানিয়ে দেওয়া হয় ড্রেসিংরুমের পাশে। প্রতিটি আন্তর্জাতিক সিরিজে আকসুর সদস্য উপস্থিত থাকেন। বাংলাদেশে ঘরোয়া ক্রিকেট মৌসুম শুরুর আগেও আইসিসির দুর্নীতি দমন বিভাগের নির্দেশনা মেনে খেলোয়াড়, টিম অফিসিয়াল, ম্যাচ অফিসিয়াল এবং গ্রাউন্ডস কর্মীদের সচেতন করা হয়। এ কাজটি করেন বিসিবির দুর্নীতি দমন কর্মকর্তা মেজর (অব.) মোর্শেদুল ইসলাম। ক্রিকেটারদের নিরাপত্তা এবং জুয়াড়িদের ছায়া থেকে দূরে রাখতে আইসিসি ওয়ানডে বিশ্বকাপেও বাংলাদেশ দলের সঙ্গে রাখা হয়েছিল তাকে।

ফিক্সিং প্রতিরোধে আইসিসির সচেতনতামূলক কার্যক্রমগুলোতে সাকিব বরাবরই উপস্থিত ছিলেন। ২০০০ সাল থেকে চালু হওয়া 'আইসিসি অ্যান্টিকরাপশন রুলস অ্যান্ড রেগুলেশনস' ভালোই জানা বাংলাদেশ অধিনায়কের। এই নিয়ম অনুসরণ করে আগে একবার জুয়াড়ির ফোন পাওয়ার বিষয়ে আকসু ও বিসিবিকে জানিয়েছিলেন তিনি। অথচ সেই সাকিবই কি-না দুই বছর আগে এত বড় একটা ভুল করে ফেলেছেন। বিসিবির একটি সূত্র জানিয়েছে, সাকিবকে শাস্তির ব্যাপারে জানিয়েছে আকসু। এ ব্যাপারে বিসিবিও আইসিসির ই-মেইল পেয়েছে বলে জানান ওই কর্মকর্তা। এক্ষেত্রে সাকিবের পাশেই থাকবে বিসিবি। এ ব্যাপারে জানতে চেয়ে বিসিবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নিজামউদ্দিন চৌধুরীর ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি অবশ্য আইসিসি থেকে এ-সংক্রান্ত কোনো ই-মেইল প্রাপ্তির কথা নিশ্চিত করেননি। বোর্ড সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনকে একাধিকবার ফোন করে পাওয়া যায়নি। তিনি ফোন ধরেননি। এসএমএস করলেও কোনো উত্তর আসেনি। পরিচালক ইসমাইল হায়দার মল্লিকের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, 'আইসিসি থেকে একটা কিছু আসবে শুনেছি। তারা কী পাঠাবে, জানি না।'

একইভাবে দু'দিন ধরে পর্যায়ক্রমে সাকিব আল হাসানের মোবাইলে ফোন করেও পাওয়া যায়নি। এসএমএস ছাড়াও হোয়াটসঅ্যাপে বার্তা দিলেও নীরব থেকেছেন সাকিব। তবে তার একান্ত ঘনিষ্ঠ চারজনের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে। নাম গোপন রাখার শর্তে তাদের সবাই জানিয়েছেন, যেভাবেই হোক আকসুকে রিপোর্ট করতে ভুলে গিয়েছিলেন সাকিব। পরে আকসু থেকে বিষয়টি ধরা পড়ে। সাকিব নিজের ভুল স্বীকার করেছেন। শাস্তি ঘোষণার পর তিনি আকসুর কাছে আবেদন করলে বিবেচনা করা হবে বলেও প্রতিশ্রুতি পেয়েছেন।

আকসুর নিয়মে আছে, কোনো ক্রিকেটার, ম্যাচ অফিসিয়াল, টিম অফিসিয়ালসহ সরাসরি ক্রিকেটে সম্পৃক্ত কোনো ব্যক্তি জুয়াড়িদের কাছ থেকে প্রাপ্ত অনৈতিক প্রস্তাব না জানিয়ে চেপে গেলে, লুকানোর চেষ্টা করলে বা আকসুর জিজ্ঞাসাবাদেও অস্বীকার করলে তার বিরুদ্ধে 'আইসিসি অ্যান্টিকরাপশন' ধারা ২.৪.২, ২.৪.৩, ২.৪.৪, ২.৪.৫ ও ২.৪.৬ কার্যকর হবে। এক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ছয় মাস আর সর্বোচ্চ পাঁচ বছরের নিষেধাজ্ঞা দিতে পারবে আইসিসি। সাকিব আকসুর জিজ্ঞাসাবাদে সহযোগিতা করায় ১৮ মাস শাস্তি দেওয়ার ব্যাপারে আপাতত সিদ্ধান্ত নিতে যাচ্ছে আইসিসি।

বিসিবির এক কর্মকর্তা বলেন, স্পট ফিক্সিং বা ম্যাচ ফিক্সিংয়ের মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি বা অভিযোগও তোলা হয়নি। আইসিসি পরিস্কার জানিয়েছে, সাকিব জুয়াড়ির কাছ থেকে প্রস্তাব পাওয়ার বিষয়টি জানাননি। এতেই আইন ভাঙা হয়েছে। তবে সাকিব কোনো ধরনের দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। আকসু ভালো করেই জানে, সাকিব ক্রিকেটে যে কোনো অনৈতিক বিষয়কে ঘৃণা করেন। তিনি এও বলেন, 'সাকিবের কেসটা মোহাম্মদ আশরাফুলের মতো নয়। তবে এটা অবশ্যই এ দেশের ক্রিকেটের জন্য বড় দুঃসংবাদ।'

সংশ্নিষ্ট সূত্র জানায়, আকসুর তদন্ত এবং শাস্তির ইস্যুতে সাকিব আল হাসান গত দু'দিন বৈঠক করেছেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের সঙ্গে। গত বৃহস্পতিবার আর রোববার পাপনের ধানমন্ডির কার্যালয়ে রুদ্ধদ্বার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে সাকিব নিজের ভুল স্বীকার করে বিসিবির সহযোগিতা চেয়েছেন বলেও জানান এক কর্মকর্তা। সাকিবের কাছ থেকে ঘটনা জানার পর পাপনও হতবাক। সাকিবের মতো একজন বিশ্বসেরা ক্রিকেটার এমন ভুল করতে পারেন, ভাবতেও পারছেন না তিনি।

একাধিক সূত্র জানিয়েছে, দেশের ভেতরের গোয়েন্দা সংস্থাগুলোও ক্রিকেটারদের কল রেকর্ড থেকে তথ্য সংগ্রহ করছে। ভারত সফর বানচালের যে ইস্যু সামনে এসেছে, সেটি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ক্রিকেটারদের ধর্মঘট ও আন্দোলনের পেছনে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের মালিক লুৎফর রহমান বাদলের ইন্ধন ও সম্পৃক্ততার কথা শোনা যাচ্ছে। দুর্নীতির অভিযোগ মাথায় নিয়ে বাদল ইংল্যান্ডে আছেন। সন্দেহজনক সবকিছুই খতিয়ে দেখা হচ্ছে বলে জানান বিসিবির এক প্রভাবশালী পরিচালক। তবে পরিস্থিতি যা-ই হোক, সাকিব ছাড়াই আপাতত ভারত সফরে যেতে হবে বাংলাদেশ দলকে।

বিস্তারিত খবর

সাকিবের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে বিসিবি

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৬ ০৭:০০:৪৭


বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, নিয়ম লঙ্ঘনের অভিযোগে টেস্ট ও টি-টোয়েন্টি দলের অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে বিসিবি।

বিশ্ব সেরা অলরাউন্ডার সাকিব সম্প্রতি গ্রামীণফোনের নতুন ব্র্যান্ড অ্যাম্বাসেডর নিযুক্ত হন। তবে জাতীয় দলের চুক্তি অনুযায়ী, খেলোয়াড়রা বোর্ডের পূর্ব অনুমোদন ছাড়া কোনো টেলিকম কোম্পানির সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে পারবেন না।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে পাপন বলেন, ‘চুক্তিপত্রে স্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে যে, কোনো খেলোয়াড় টেলিকম কোম্পানির সাথে চুক্তিবদ্ধ হতে পারবেন না। আমরা সাকিবের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছি। তাকে নিয়ম লঙ্ঘনের একটা ব্যাখ্যা দিতে হবে। আমরা এ বিষয়ে কাউকে ছাড় দিতে পারি না।’

তিনি আরো বলেন, গত ২৩ অক্টোবরের নতুন চুক্তি সম্পর্কে তিনি জানতে পেরেছেন। এ বিষয়ে গ্রামীণফোন এবং সাকিবের কাছ থেকে ক্ষতিপূরণ চাইবে বোর্ড।

উল্লেখ্য, সম্প্রতি ১৩ দফা দাবি আদায়ে দেশের শীর্ষ ক্রিকেটারদের ধর্মঘটে বাংলাদেশের ক্রিকেটে অচলাবস্থা সৃষ্টি হয়েছিল। তিন দিন পর বিসিবি জানায়, তারা বেশিরভাগ দাবি পূরণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিচ্ছে। বিসিবি অধিকাংশ দাবি মেনে নেয়ার আশ্বাস দেয়ায় ধর্মঘট স্থগিত করেন ক্রিকেটাররা। সেই ধর্মঘটে সর্বাগ্রে ছিলেন সাকিব।

ক্রিকেটারদের ধর্মঘটের সময় গ্রামীণফোন সাকিব আল হাসানকে তাদের নতুন ব্রান্ড অ্যাম্বাসেডর হিসেবে ঘোষণা করেন।

বিস্তারিত খবর

খেলওয়াড়রা পান ৫০ ডলার, পরিচালকরা ৫০০!

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৪ ০৩:৫২:১৯


বিভিন্ন বৈষম্য দূর করা ও ন্যায্য পারিশ্রমিক পাওয়ার দাবিতে ধর্মঘট শুরু করেছিলেন ক্রিকেটাররা। সোমবার ধর্মঘটের ঘোষণা দেয়ার পর মঙ্গলবার বাদ দিয়ে বুধবার আবারো সংবাদ সম্মেলন করেন তারা। তবে এবার ক্রিকেটারদের হয়ে কথা বলেছেন তাদের আইনজীবী সুপ্রিম কোর্টের ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান।

ক্রিকেটারদের বিভিন্ন দাবি দাওয়া নিয়ে কথা বলেন ব্যরিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। এসময় কথা বলার এক পর্যায়ে তিনি জানান যে, জাতীয় দল বিদেশ সফরে থাকলে ক্রিকেটারদের প্রতিদিন ভাতা হিসেবে ৫০ ডলার (প্রায় ৫ হাজার টাকা) করে দেয়া হয়। অথচ বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালকরা বিদেশ সফরে থাকলে তাদের দেয়া হয় ৫০০ ডলার (প্রায় ৪৫ হাজার টাকা) করে।

তখনই প্রকাশ হয় যে, সাকিব-তামিমদের চেয়ে কয়েকগুন বেশি টাকা পান ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালকরা। আর এসব অসঙ্গতি নিয়ে ভেতরে ভেতরে অনেক আগ থেকেই ক্ষোভ ছিল। হয়ত সেই ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ হলো এখন।

ক্রিকেটারদের আইনজীবী বলেন, বাংলাদেশ দল যখন বিদেশ সফরে যায়, তখন জাতীয় দলের ক্রিকেটাররা প্রতিদিন পায় ৫০ ডলার। আর বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালকরা যখন বিদেশে যান, ওনারা ৫০০ ডলার করে পান।

তিনি আরও বলেন, প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে যেসব খেলোয়াড় অংশ নেয় তাদের দিনে মাত্র ১৫০০ টাকা দেয়া হয়। এটা তো ন্যায্য হল না। আমরা চাই দুই পক্ষেই ন্যায্য ভাতা। তাছাড়া ঘরোয়া লিগে যাতায়াত ভাড়া হিসেবে ক্রিকেটারদের দেয়া হয় ২৫০০ টাকা। এই সামান্য টাকা দিয়ে ঢাকা থেকে কক্সবাজার বা রাজশাহী যেতে হলে গাড়ি ছাড়া অন্য কোনো পন্থা নেই।

বিস্তারিত খবর

সব দাবি মেনে নিল বিসিবি, মাঠে ফিরছেন খেলওয়াড়রা

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৪ ০৩:৫০:১২


ক্রিকেটের সংকট আপাতত কেটে গেছে। বুধবার রাতে আলোচনার পর ক্রিকেটারদের ১১টি দাবি মেনে নেয়ার কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। রাজস্বের ভাগ ও নারী ক্রিকেটারদের সমমর্যাদা নিয়ে ক্রিকেটারদের নতুন দুটি দাবি পরবর্তী সময় আলোচনার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি।

মিরপুরে বিসিবি কার্যালয়ে আলোচনার পর গত সোমবার ডাকা ধর্মঘট প্রত্যাহার করে নিয়েছেন ক্রিকেটাররা। ফলে আগামী শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) থেকে ভারত সফরের অনুশীলন ক্যাম্পে যোগ দিচ্ছেন তারা। জাতীয় ক্রিকেট লিগের তৃতীয় রাউন্ডের খেলা শুরু হবে শনিবার থেকে।

দিনভর নানা নাটকীয়তার পর আলোচনার মাধ্যমে ক্রিকেটার ও বিসিবির এমন সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর খবর দেন নাজমুল হাসান পাপন। বিসিবি প্রধান বলেন, ‘আমরা আগের দিনই বলেছিলাম সব দাবিই মেনে নেবো। আজও (বুধবার) আলোচনা হয়েছে। আমরা তাদের ৯টি দাবি মেনে নিয়েছি।’

ক্রিকেটাররা আগের ১১ দাবির সঙ্গে আরও দুটি যোগ করে ১৩ দফা দাবি পেশ করেছিলেন গুলশানের সংবাদ সম্মেলনে। যদিও নাজমুল নতুন দুটি নিয়ে পরে আলোচনার কথা শুনিয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘নতুন দাবি নিয়ে আমরা আলোচনা করিনি। এগুলো আইনগত ভাবে দেখা হবে। এক নম্বর দাবিতে আমাদের কিছু করার নেই।’

শুক্রবার ভারত সফরের ক্যাম্প শুরু হচ্ছে। এই ক্যাম্প দিয়েই মাঠে ফিরছেন ক্রিকেটাররা। আর শনিবার থেকে শুরু হবে জাতীয় ক্রিকেট লিগের তৃতীয় রাউন্ড। আন্দোলন স্থগিত করায় প্রথম শ্রেণির এই ক্রিকেটও মাঠে গড়াচ্ছে সূচি অনুযায়ী।

বুধবার বিসিবি কার্যালয়ে রাত সাড়ে ৯টার পর শুরু হয় এই বৈঠক। গুলশান থেকে মিরপুরে অবস্থিত বিসিবি কার্যালয়ে বোর্ডের সঙ্গে এই আলোচনায় যোগ দিয়েছিলেন সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, ইমরুল কায়েসদের মতো সিনিয়র ক্রিকেটাররা।

এর আগে বুধবার সন্ধ্যায় গুলশানে সংবাদ সম্মেলন করেন ক্রিকেটাররা। সেখানে তাদের মুখপাত্র হিসেবে কথা বলেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার মোস্তাফিজুর রহমান। ১৩ দফা দাবি পেশের পাশাপাশি তিনি জানিয়েছিলেন, বোর্ডের সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি ক্রিকেটাররা। আজই (বুধবার) বোর্ডে যাবেন তারা।

সংবাদ সম্মেলন শেষে নিজেদের মধ্যে আলোচনার পর বিসিবিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন আন্দোলনে নামা ক্রিকেটাররা। রাত ৯টার দিকে গুলশান থেকে মিরপুরে অবস্থিত বিসিবি কার্যালয়ে পৌঁছান তামিম। এরপর একে একে ভেতরে গেছেন সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ, ইমরুল কায়েসরা।

বিস্তারিত খবর

বিসিবিকে দেওয়া চিঠিতে যেসব দাবি জানালেন ক্রিকেটাররা

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২৩ ১২:০৯:১৫


বিসিবিকে দেওয়া চিঠিতে ক্রিকেটাররা ১৩ দফা দাবি জানিয়েছেন। আগের ১১ দফায় কিছুটা পরিবর্তন এনে আরও দুটি দাবি যোগ করেছেন তারা। দাবিগুলো হলো- 

১. কোয়াবের কোনও কার্যক্রম না থাকায় বর্তমান কমিটিকে অবিলম্বে বিলুপ্ত করতে হবে। একইসঙ্গে কমিটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদককে পদত্যাগ করতে হবে।

২. ঢাকা প্রিমিয়ার লিগ আগের মতো আয়োজন করতে হবে। নিজেদের মতো করে আয়োজন করতে হবে।

৩. এ বছর না হলেও পরের বছর থেকে আগের মতো বিপিএল আয়োজন করতে হবে। স্থানীয় ক্রিকেটারদের ভিত্তিমূল্য বাড়াতে হবে।

৪. প্রথম শ্রেণির ম্যাচ ফি ১ লাখ করতে হবে। গোটা বছর কোচ-ফিজিও দিতে হবে। জাতীয় ক্রিকেট লিগে প্রতি বিভাগে অনুশীলনের ব্যবস্থা করতে হবে।

৫. ঘরোয়া ক্রিকেটে ভালো মানের বল দিতে হবে। ডিএ ১৫০০ টাকায় কিছু হয় না; তাই বাড়াতে হবে। ট্রাভেলে বিমানের ব্যবস্থা করতে হবে এবং ভালো মানের হোটেল হতে হবে।

৬. চুক্তিভুক্ত ক্রিকেটারের সংখ্যা ও বেতন বাড়াতে হবে।

৭. দেশি সব স্টাফের বেতন বাড়াতে হবে। কোচ থেকে গ্রাউন্ডস ও আম্পায়ার, সবার বেতন বাড়াতে হবে।

৮. ঘরোয়া ওয়ানডে বাড়াতে হবে। বিপিএলের আগে আরেকটি টি-টোয়েন্টির টুর্নামেন্টের আয়োজন করতে হবে।

৯. ঘরোয়া ক্যালেন্ডার নির্দিষ্ট করতে হবে।

১০. বিপিএলের পাওনা টাকা সময়ের মধ্যে দিতে হবে।

১১. ফ্র্যাঞ্চাইজি লিগ দুটোর বেশি খেলা যাবে না, এই নিয়ম তুলে দিতে হবে। সুযোগ থাকলে সবাই খেলবে।

১২. ক্রিকেটের ব্যবস্থাপনায় আমরা স্বচ্ছতা চাই। লভ্যাংশের একটা ভাগ চাই।

১৩. বাংলাদেশের নারী ক্রিকেট দল ভালো করছে। নারীদের ক্ষেত্রেও তাদের ন্যায্য হিসাব দিতে হবে।

বিস্তারিত খবর

ক্রিকেটাররা ক্যাম্পে যোগ না দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে : পাপনের হুশিয়ারি

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-২২ ১০:১৭:২২


বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) সামনে ১১ দফা দাবি বেঁধে দিয়ে ধর্মঘটে যাওয়া ক্রিকেটারদের উদ্দেশ করে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান মঙ্গলবার বলেছেন যে ম্যাচ না খেললে এবং ক্যাম্পে যোগ না দিলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, ‘আমরা ম্যাচ আয়োজন এবং জাতীয় দলের অনুশীলন ক্যাম্প আয়োজন অব্যাহত রাখবো। দেখা যাক কে যোগ দেয় আর কে না দেয়। যদি তারা ম্যাচ না খেলে এবং ক্যাম্পে যোগ না দেয় তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাংলাদেশের ক্রিকেটকে কারা ধ্বংস করতে চায় সেটা আমাদের খুঁজে বের করা প্রয়োজন। আমরা ক্রিকেটারদের খেলতে বলবো। যদি তারা খেলতে অস্বীকৃতি জানায় সেটা তাদের ব্যাপার।’

১১ দফা দাবিতে ক্রিকেটারদের ধর্মঘট ডাকার পরেরদিন বোর্ডের পরিচালকদের সাথে জরুরি বৈঠকে বসেন বিসিবি প্রধান।

বৈঠক শেষে মিরপুর শের-ই-বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলন কক্ষে নাজমুল হাসান বলেন, ‘যে দাবিগুলো চাইলেই পাবে সেগুলো আমাদের না বলে সরাসরি ধর্মঘটে যাওয়া পূর্বপরিকল্পিত একটা ব্যাপার। যে জিনিসগুলো ওরা চাইলেই পাবে সেগুলো আমাদের কাছে চাচ্ছে না কেন?’

সাকিব আল হাসান, তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদসহ দেশের শীর্ষ ক্রিকেটাররা সোমবার ঘোষণা দিয়েছেন যে বেতন-ভাতা বৃদ্ধিসহ তাদের ১১ দফা দাবি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) পূরণ না করা পর্যন্ত তারা ক্রিকেট সংক্রান্ত সব ধরনের কার্যক্রম থেকে বিরত থাকবেন।

রাজধানীর মিরপুরে জাতীয় ক্রিকেট একাডেমি মাঠে এক সংবাদ সম্মেলনে ক্রিকেটাররা এ ঘোষণা দেন।

আগামী মাসে টি২০ ও টেস্ট সিরিজ খেলতে ভারত সফরে যাওয়ার ক্থা বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের। তবে এই সফরের আগে ক্রিকেটাররা ধর্মঘটের ডাক দেয়ায় টাইগারদের ভারত সফর নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

ক্রিকেটারদের দাবির বিষয়ে নাজমুল বলেন, ‘তাদের (ক্রিকেটার) দাবিগুলো আমরা দেখেছি। আমি শকড, কারণ তারা এই দাবিগুলো নিয়ে আগে আমাদের কাছে আসেনি। তারা আমাদের কাছে আসতে পারতো, আমরা তাদের সব দাবি মেনে নিতাম।’

কিছু মানুষ বিশ্বে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ভাবমূর্তি নষ্টের ষড়যন্ত্র করছে এবং তারা শীর্ষ ক্রিকেটারদের বোর্ডের বিপক্ষে যেতে উসকানি দিচ্ছে, বলেন বিসিবি সভাপতি।

‘আমাদের ধারণা ক্রিকেটারদের এই পদক্ষেপটি কেবলমাত্র বাংলাদেশের ক্রিকেটের ভবিষ্যত নষ্ট করার জন্য।
আমরা জানি যে এই কর্মকাণ্ডগুলোতে কারা যুক্ত। আপনারা শিগগিরই তা জানতে পারবেন। আমরা কেবল ক্রিকেট খেলা বন্ধ করার পেছনে কোনো কারণ খুঁজে পাচ্ছি না,’ বলেন নাজমুল।

‘তাদের (ক্রিকেটার) সাথে আমার ব্যক্তিগত যোগাযোগ আছে। তারা সবসময় বিভিন্ন বিষয়ে সহযোগিতার জন্য আমাকে বলে। কিন্তু এ বিষয়ে (দাবি) তারা কেন আমার কাছে এলো না তা জানি না। শীর্ষ ১৫ ক্রিকেটারকে আমরা ২৪ কোটি টাকা বোনাস দিয়েছি। সুতরাং তাদের পদক্ষেপে আমি বিস্মিত,’ আরও বলেন তিনি।

নাজমুল বলেন, ‘সমস্যাগুলো আমাদের না জানিয়ে তারা মিডিয়াকে বলেছে। ফলে সমস্ত বিশ্ব ভাবছে যে বাংলাদেশ ক্রিকেট মারাত্মক সমস্যায় রয়েছে। তারা ধর্মঘট ডাকার পর থেকেই এসিসি (এশিয়ান ক্রিকেট কাউন্সিল), আইসিসি (আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল) এবং বোর্ডের অন্যান্য সদস্যরা আমাকে ফোন করে যাচ্ছে। এটা বিশ্বব্যাপী আমাদের ভাবমূর্তি নষ্ট করছে। তারা শুধুমাত্র এই বার্তা বিশ্বকে জানাতে চেয়েছিল এবং আমি তাদের প্রশংসা করছি যে তারা তাদের উদ্দেশ্য সফল করেছে।’

‘আমি মনে করি অধিকাংশ ক্রিকেটারই জানে না যে তারা কেন ধর্মঘট ডেকেছে। আসন্ন ভারত সফরকে ধ্বংস করতেই এই প্রচেষ্টা বলে আমি মনে করি। শুধুমাত্র বেতন বাড়ানোর জন্যই তারা ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে বলে আমি বিশ্বাস করি না। আমরা তাদের বেতন (কেন্দ্রীয় চুক্তির শীর্ষ গ্রেডের ক্রিকেটার) এক লাখ টাকা থেকে বাড়িয়ে চার লাখ করেছি। প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে বেতন বাড়ানোর প্রয়োজন হলে আমরা এ বিষয়ে আলোচনা করবো,’ সাংবাদিকদের বলেন নাজমুল।

বিসিবি সভাপতি জানান, সমস্যা সমাধানে বোর্ড ক্রিকেটারদের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছে কিন্তু ক্রিকেটাররা সাড়া দিচ্ছে না।

বিস্তারিত খবর

মেসির হাতে ষষ্ঠ গোল্ডেন শু

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-১৬ ১২:৪০:২৭


পুরস্কার জয় নিশ্চিত হয়েছিল আগেই। এবার ইউরোপিয়ান গোল্ডেন শু পুরস্কারটা বুঝে নিলেন লিওনেল মেসি।

বুধবার বার্সেলোনার অ্যান্টিগা ফ্যাব্রিকা এস্ত্রেলা ডেমে জমকালো এক অনুষ্ঠানে বার্সেলোনা তারকার হাতে এই পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

এ সময় মেসির সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী আন্তোনেল্লা রোকুজ্জো, দুই ছেলে থিয়াগো এবং মাতেও।

২০১৮-১৯ মৌসুমে লা লিগায় ৩৪ ম্যাচে ৩৬ গোল করার জন্য ইউরোপের শীর্ষ পাঁচ লিগে সর্বোচ্চ গোলের পুরস্কার গোল্ডেন শু জেতেন মেসি।

প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে টানা তিনবার এই পুরস্কার জিতলেন তিনি। সব মিলিয়ে এটি তার ষষ্ঠ গোল্ডেন শু। সম্মানজনক এই পুরস্কার এত বেশিবার আর কেউ জিততে পারেনি। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ চারবার জিতেছেন ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো।

এক নজরে মেসির গোল্ডেন শু পুরস্কার

২০০৯-১০: ৩৪ গোল

২০১১-১২: ৫০ গোল

২০১২-১৩: ৪৬ গোল

২০১৬-১৭: ৩৭ গোল

২০১৭-১৮: ৩৪ গোল

২০১৮-১৯: ৩৬ গোল

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্কে বিয়ানীবাজার এডুকেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের ক্রিকেট টুনার্মেন্ট সম্পন্ন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-১৮ ০৮:৫৩:২৪

নিউইয়র্কে বসবাসরত বিয়ানীবাজার উপজেলার কিছু সংখ্যক উদ্যমী শিক্ষিত তরুণ সমাজের উদ্যোগে গঠিত "বিয়ানীবাজার এডুকেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্ট ইউএসএ।যা সমাজের হত দরিদ্র ও এতিম শিক্ষার্থীদের জন্য বিশেষ ভাবে কাজ করে যাচ্ছে ।এবার নিউইয়র্কে তারা আয়োজন করে স্থানীয় ভাবে একটি টুনার্মেন্টের।এতে ১২টি দল খেলায় অংশ নেয়।ফাইনাল খেলায় ৬৭রানে চ্যাম্পিয়ন হন সিলেট সিক্সার্স। এ কেএ নাইট্রিডার্স হন রানার্সআপ।ম্যান অব দ্য টুনার্মেন্ট হন ইমরান টিপু।এছাড়াও টুনামেন্টে সর্বাধিক উইকেট কেড়ে নেন তিনি।

বিপুল উৎসাহ-উদ্দীপনায় শুরু হওয়া এই টুর্নামেন্ট প্রথমবারের মতো আনুষ্ঠানিক ভাবে গত ১৬ সেপ্টেম্বর সোমবার  বিকেল পাঁচটায় স্থানীয় ইন্ডিয়ান পার্কের মাঠে ফাইনাল খেলা শুরু হয়। ওজনপার্কে স্থানীয় প্লেয়ারের সাথে লোকাল ১২টি টীম খেলায় অংশ নেয়। খেলোয়াররা স্বতঃস্ফূর্ত ভাবে খেলেন।পাশাপাশি আগত অতিথিরাও তাদের সুন্দর খেলা উপভোগ করেন।

ফাইনাল খেলা শেষে শুরু হয় অতিথিদের বক্তব্য ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান।সংগঠনের সভাপতি সুমন আহমদের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি ফাহিম সাকিল অপুর সাবলীল উপস্থাপনায় প্রধান অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শামসুল আবেদীন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিশিষ্ট সংগঠক আনোয়ার হোসাইন, বিয়ানীবাজার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সমিতির সভাপতি মোস্তফা কামাল, ডিস্ট্রিক্ট ৩৭ এসেম্বেলীওম্যান প্রার্থী মেরি জোবাইদা, কাউন্সিলম্যান প্রার্থী  ফখরুল ইসলাম দেলোয়ার, কাউন্সিলম্যান প্রার্থী মিসবা আবেদীন,ইয়র্ক বাংলা সম্পাদক মাওলানা রশীদ আহমদ, ক্রীড়াবিদ মোস্তফিজুর রহমান বিনু, সামাজ সংগঠক  সরওয়ার হোসেন ও  হুসেন আহমেদ।

এছাড়াও আরো উপস্থিত ছিলেন টাইম টিভির সিইও এবং বাংলা পত্রিকার সম্পাদক আবু তাহের,টাইম টিভির সৈয়দ ইলিয়াস খসরু,কমিউনিটি এক্টিভিটস খায়রুল ইসলাম খোকন, জুনেদ আহমেদ, রিজওয়ান রিমন, ফয়সাল আলম, মাহমুদুল হাসান, শরীফ আহমদ, কামরুল ইসলাম ও আল মামুন শাওন প্রমুখ।

প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, খেলাধুলা স্বাস্থ্যকে যেমন ভাল রাখে তেমনি ভাবে পরিশীলিত করে মন মানসিকতাকে।পাশাপাশি সুস্থ ও সুন্দর কমিউনিটি বিনির্মাণে সহায়ক ভূমিকা পালন করে।তিনি সংগঠনের কর্তৃপক্ষের ভূয়সী প্রশংসা করে বলেন,আগামী দিনে যে কোন কর্মসূচিতে আমার সহযোগিতা ও দোয়া অব্যাহত থাকবে। 

আয়োজক সংগঠন যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে বিয়ানীবাজার এডুকেশন অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্ট ইউএসএ আয়োজিত অনুষ্ঠানে আগত অতিথিদের ধন্যবাদ জানান।পাশাপাশি একটি সফল ইভেন্ট করতে পারায় সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং আগামীতে তাদের অন্যান্য কর্মসূচিতে অংশ গ্রহণেরও আহ্বান জানান।

উল্লেখ্য, সংগঠনটি মূলত দেশে অসহায় শিক্ষার্থীদের শিক্ষার  খরচ বহন আর অভাবী-অসহায় মানুষের কল্যাণে সাহায্য করতে  তহবিল সংগ্রহের জন্য এই ক্রিকেট টুর্নামেন্টর আয়োজন করে।


বিস্তারিত খবর

এশিয়া কাপ আর্চারিতে বাংলাদেশি রোমান সানার স্বর্ণ জয়

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-১৩ ১৪:০০:০৫

এশিয়া কাপ-ওয়ার্ল্ড র‍্যাঙ্কিং টুর্নামেন্টের (স্টেজ-৩) পুরুষ এককে স্বর্ণ জিতেছেন বাংলাদেশের আর্চার রোমান সানা।

শুক্রবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ফিলিপাইনের ক্লার্ক সিটিতে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতাটির ফাইনালে চীনের শি ঝেনকিকে হারিয়ে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জন করেন রোমান।

প্রথম সেটে ২৮-২৮ ড্র করা রোমান দ্বিতীয় সেটে ২৯-২৬ ব্যবধানে হেরে পিছিয়ে পড়েন। তবে আত্মিবশ্বাস হারাননি। তৃতীয় সেটে ২৭-২৫ ব্যবধানে জিতে দারুণভাবে ঘুরে দাঁড়ান। চতুর্থ সেটে ২৮-২৫ ব্যবধানে জিতে এগিয়ে শেষ সেটে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর ২৮-২৭ পয়েন্টে জিতে স্বর্ণ নিশ্চিত করেন রোমান।

চলতি বছর জুনে নেদারল্যান্ডসে হুন্দাই বিশ্ব আর্চারি চ্যাম্পিয়নশিপে ছেলেদের ব্যক্তিগত রিকার্ভে ব্রোঞ্জ জয় করে হইচই ফেলে দিয়েছিলেন রোমান। একই সঙ্গে ২০২০ অলিম্পিকে সরাসরি খেলার যোগ্যতা অর্জন করেন। তিন মাস পেরোতেই আর্চারিতে দেশকে আরও একটি সাফল্য এনে দিলেন তারকা এই তিরন্দাজ।

বিস্তারিত খবর

এবারের বিপিএল হবে বঙ্গবন্ধুর নামে, থাকবে না ফ্রাঞ্চাইজি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-১১ ১৪:৩৫:৪২

২০১৮ সালের বিপিএল বিভিন্ন কারণে আয়োজন করতে হয়েছে চলতি বছরের শুরুতে। আবার এ বছরই আরেকটা বিপিএল আয়োজন নিয়ে কয়েকটা ফ্রাঞ্চাইজি আপত্তি তুলেছিল। একই সঙ্গে বিসিবিও জানিয়েছে, পুরনো চুক্তি শেষ। নতুন করে মালিকানা চুক্তি করতে হবে ফ্রাঞ্চাইজিগুলোকে।

এসব নিয়েই তৈরি হয়েছে নানা জটিলতা। শেষ পর্যন্ত আজ বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন জানিয়েছেন, নির্ধারিত সময়েই বিপিএল আয়োজন করা হবে। কিন্তু আগের ছয় আসরের মতো ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক নয়, এবারের বিপিএল পরিচালনা করবে বিসিবিই। সেই সঙ্গে এবারের বিপিএল আয়োজন করা হবে বঙ্গবন্ধুর নামে।

‘একই বছর দুটি বিপিএল’- এ নিয়ে নানা গুঞ্জন আর প্রশ্ন উঠেছিল। কয়েক দিন ধরেই গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে, এ বছর বিপিএল অনুষ্ঠিত হবে কি না। কিন্তু বিসিবি সভাপতি আজ দুপুরে মিডিয়ার সামনে উপস্থিত হয়ে জানিয়েছেন, এ বছর বিপিএল নির্ধারিত সময়েই হবে। তবে টুর্নামেন্টটি ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক হচ্ছে না। টুর্নামেন্টের নাম হবে, ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’।

বিসিবির ঘোষণা অনুযায়ী মালিকানা সম্পর্কিত বিষয় নিয়ে ফ্রাঞ্চাইজিদের সঙ্গে ধাপে ধাপে বৈঠক করেছিল বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। সেখানে ফ্রাঞ্চাইজিগুলো বিপিএল নিয়ে নিজেদের মতামত জানিয়েছে বিসিবিকে। সেই মতামত জানার পরই বিসিবি মনে করছে, অন্তত এ বছর বিপিএল ফ্রাঞ্চাইজিভিত্তিক আয়োজন করা সম্ভব হবে না।

এ কারণেই মিডিয়ার সামনে উপস্থিত হয়ে বিসিবি সভাপতি আজ দুপুরে বলেন, ‘বিপিএলের প্রথম পর্ব শেষ। নতুন চুক্তি করতে ফ্র্যাঞ্চাইজিদের সঙ্গে বসেছিলাম। কয়েকটা ফ্র্যাঞ্চাইজির বেশকিছু দাবি-দাওয়া আছে। ওই দাবিগুলো আমাদের মূল কাঠামোর সঙ্গে সাংঘর্ষিক। কিছু ফ্র্যাঞ্চাইজি দাবি করছে, এক বছরে দুটি বিপিএল তারা চায় না। খেলবে না সেটি অবশ্য বলেনি। ওদের ওপর চাপ বেশি পড়ে যাবে । সবকিছু চিন্তা করে ঠিক করেছি এবারের বিপিএল আমরাই (বিসিবি) চালাব। টুর্নামেন্টটা আমরা ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক করছি না।’

পুরো টুর্নামেন্ট এবং ফ্রাঞ্চাইজির মালিক যদি বিসিবিই হয়, তাহলে দল এবং টুর্নামেন্ট ব্যবস্থাপনা কীভাবে হবে? সে ব্যাপারগুলোও খোলাসা করে দিয়েছেন বিসিবি সভাপতি। তিনি বলেন, ‘এবারের বিপিএলটা আমরা বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করব। টুর্নামেন্ট তার নামেই হবে। সব দলই ঠিক থাকবে, শুধু ম্যানেজমেন্টের অংশ বিসিবি দেখবে। খেলোয়াড়দের পারিশ্রমিক, থাকা-খাওয়া, যাতায়াত সবই বিসিবি তত্ত্বাবধান করবে। এতে আশা করি সবাই খুশি হবে। অনেকটা বিগ ব্যাশের মতো।’

বোঝা গেলো, পুরনো নামগুলোই থাকছে এবারের বিপিএলে। শুধু পেছনের মালিকানায় কোনো পক্ষ থাকবে না। একপক্ষ তথা বিসিবিই হবে সব দলের মালিক। তবে কেউ যদি কোনো দলকে স্পন্সর করতে চায়, সে সুযোগ থাকবে। আগের মতোই খেলোয়াড় নিলাম হবে। টুর্নামেন্ট শুরু হবে নির্ধারিত সময়ে। কোচিং স্টাফসহ সব কর্মকর্তা নিয়োগ দেবে বিসিবি। যদি কোনো দলকে কেউ স্পন্সর করে এবং তারা নিজেদের পছন্দমতো বিদেশি খেলোয়াড় আনতে চায়, তাতে বাধা থাকবে না।

বিসিবি সভাপতির সাফ কথা, বিপিএল ফ্রাঞ্চাইজিগুলো যে শর্ত দিয়েছে, তাতে খুব অল্প সময়ের মধ্যে সেগুলো পূরণ করা সম্ভব নয়। যে কারণে কারো সঙ্গেই বিসিবি চুক্তি করবে না এবং ঝুঁকি সত্ত্বেও নিজেদের টাকা খরচ করেই এবার বিপিএল আয়োজন করতে চায় তারা। নিজেদের আয়োজন এবং মালিকানায় অনুষ্ঠিতব্য টুর্নামেন্টটির নামকরণ করা হচ্ছে, ‘বঙ্গবন্ধু বিপিএল’।

বিস্তারিত খবর

লস এঞ্জেলেসে শেখ কামাল ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ৩য় আসর সমাপ্ত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-০৫ ১৭:১৯:১৯

ক্রিকেটকে বলা হয় ভদ্রলোকের খেলা। ইউরোপে জন্ম হলেও পাশ্চাত্যে এর চর্চা খুব একটা ছিল না। সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রসহ পাশ্চাত্যের বিভিন্ন দেশে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ক্রিকেট। এর ঢেউ লেগেছে প্রবাসীদের মধ্যেও। এরই ধারাবাহিকতায় সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ পুত্র ও বাংলাদেশের আধুনিক ক্রীড়াঙ্গনের স্বপ্নদ্রষ্টা, তরুণ মেধাবী ক্রীড়া সংগঠক শহীদ শেখ কামাল স্মরণে লস এঞ্জেলেসে শুরু হয়েছে ক্রিকেট টুর্নামেন্ট। ৩ বছর ধরে টুর্নামেন্টটি আয়োজন করছে সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশন। এতে পৃষ্ঠপোষকতা করছেন ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ড. রবি আলম।

‘শেখ কামাল ইউএসএ ওয়েস্ট রিজিনাল টি-টুয়েন্টি ক্রিকেট  টুর্নামেন্ট’ নামে তৃতীয়বারের মতো টুর্নামেন্টটি সমাপ্ত হলো। ক্যালিফোর্নিয়ার ভেন নাইস সিটির উডলি পার্কের  ক্রিকেট গাউন্ডে  লেবার ডে উেইক এনডে ৩ ‍দিনব্যাপী এই টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন এই টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণ করে যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন স্টেটের আটটি দল। বাছাইকৃত এই আট দলে ছিলেন আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের খেলওয়াড়রাও।


তিনদিন ব্যাপী জমকালো এই আসরের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয় সোমবার। এতে নর্দার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশনকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয় সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশন।

ফাইনাল ম্যাচ পরিচালনা করেন আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন বাংলাদেশী আম্পায়ার নাদের শাহ।

পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন টুর্নামেন্টের পৃষ্ঠপোষক ও  ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ড. রবি আলম। তিনি অনুষ্ঠানের সকল অতিথি, প্রবাসী দর্শক, অংশগ্রহণকারী দলসমূহ, সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশন,স্বেচ্ছাসেবকবৃন্দ এবং টুর্নামেন্টের সাথে সম্পৃক্ত সবাইকে ধন্যবাদ জানান।

তিনি বলেন, সকলের সহযোগিতায় আজ এই বিশাল আয়োজন সমাপ্ত করা সম্ভব হয়েছে। তাছাড়া অতিথিবৃন্দ অনেক দূর থেকে এখানে এসে আমাদের সময় দিয়েছেন, এজন্য আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে জাতিসংঘে আমাদের রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, অন্যান্য অতিথিবৃন্দ এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। আমি আবারও সবাই আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।


টুর্নামেন্ট আয়োজনের পটভূমি তুলে ধরে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনে ক্রিকেট আমাদের একটি বিশেষ পরিচিতি এনে দিয়েছে । আমরা ক্রিকেট প্রিয় জাতি ! জাতিরজনক বঙ্গবন্ধুর পুত্র শেখ কামাল ছিলেন একজন সুদক্ষ ক্রীড়া সংগঠক । বাংলাদেশের ফুটবল ক্রিকেট সহ ক্রীড়াজগতের সার্বিক উন্নয়নে শেখ কামালের বিশেষ অবদান রয়েছে। তাই আমেরিকায় ক্রিকেটকে জনপ্রিয় ও শেখ কামালের ক্রীড়া সংগঠনিক অবদানের প্রতি সম্মান জানিয়ে আমাদের এই আয়োজন। সুস্থ বিনোদন ও ক্রীড়া চর্চাকে উৎসাহিত করাই এর মূল লক্ষ্য।

টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী অন্যান্য দলগুলো হলো, এরিজোনা ক্রিকেট এসোসিয়েশন, বে এরিয়া ক্রিকেট এ্যালাইয়েনস, কলোরাডো ক্রিকেট লীগ, নেভাদা প্রিমিয়ার ক্রিকেট লীগ, নর্থ ওয়েস্ট ক্রিকেট লীগ, ইউটাহ ক্রিকেট এসোসিয়েশন।

গত শনিবার সকালে টুর্নামেন্টের উদ্বোধন করেন ওয়াশিংটনে নিযুক্ত যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়া উদ্দিন ।

লিগ পদ্ধতিতে অংশগ্রহণকারী ৮ দল পরস্পরে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে সোমবার অনুষ্ঠিত হয় ফাইনাল ম্যাচ।

ফাইনালে সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশন প্রথমে ব্যাট করে ৮ উইকেটে ১৩০ করে। ১৩১ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে ১৯ অভার ১ বলে ১২৬ রান করে অলআউট হয়ে যায় নর্দার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশন। চ্যাম্পিয়ন হয় সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া।

প্রতিদ্বন্দীতাপূর্ণ ফাইনাল ম্যাচটি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে উপভোগ করেন প্রচুর সংখ্যক প্রবাসীসহ ভিনদেশী দর্শক। লেবার ডে ছুটি থাকায় প্রবাসীরা তাদের পরিবার পরিজন নিয়ে মাঠে আসেন খেলা দেখতে। আয়োজকদের পক্ষ থেকে আয়োজন করা হয়েছিলো পিকনিকের। মাঠে বসে খেলা দেখা সেই সাথে দেশীয় খাবারের বিশাল সমারোহ দর্শকদের মাঝে অতিমাত্রায় উৎসাহ উদ্দীপনার যোগান দেয়।

খেলা শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন, লস এঞ্জেলেসে নিযুক্ত বাংলাদেশী কনসাল জেনারেল প্রিয়তোষ সাহা, বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও আইসিসির ডেভলাপমেন্ট ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম বুলবুল, বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক সাজ্জাদুল আলম ববি, যুক্তরাষ্ট্র ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি ড. অতুল রায় ও সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ক্রিকেট এসোসিয়েশনের সভাপতি মেহের গান্ধী।

অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মুস্তাইন দারা বিল্লাহ, ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামী লীগ সভাপতি শফিকুর রহমান, শেখ কামালের বন্ধু মুক্তিযোদ্ধা সাইদুর রহমান পাটেল, সাবেক ক্রিকেটার নাজিম সিরাজী, আওয়ামী লীগ নেতা টি জাহান কাজল, আলী আহমেদ ফারিস, শামীম হোসেন ,দিদার আহমেদ, ফিরোজ আলম, কাজল হোসাইন, ফরহাদ হোসেন, কামরুল হাসান, আজিজ মোহম্মদ হাই, সোহেল ইসলাম, সারোয়ার হোসেন, নাহিদ হাসান রুবেল, আফরোজ আলম জয়, ওস্তাদ কাজী হাসিব, হেলাল উদ্দীন,মাহাতাব উদ্দিন টীপু এবং কনসুলেট অফিসের কর্মকর্তা, সাংবাদিকবৃন্দ ও স্থানীয়  রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক এবং ক্রীড়া সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।


বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু একটি সমৃদ্ধ সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন। আজ তার স্বপ্ন বাস্ততার পথে। অর্থনীতি, খেলাধুলা সবদিকে দেশ আজ ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করেছে। তৃতীয় বিশ্বের একটি দেশ হয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল এখন বিশ্বের একটি সেরা দলে পরিণত হয়েছে। তারা বিশ্বব্যাপী দেশের প্রতিনিধিত্ব করছে।

মাসুদ বিন মোমেন আরও বলেন, আজ আমি এখানে এসে অত্যন্ত আনন্দিত এজন্য যে, প্রবাসে থেকেও আপনারা যেভাবে ক্রীড়া ও সংস্কৃতি চর্চা করছেন তা দেখে আমার মনটা ভরে গেছে। বিশেষ করে শেখ কামালের মতো একজন নিবেদিতপ্রাণ ক্রীড়া সংগঠককে স্মরণ করে আপনারা  এই আয়োজন করছেন, এটি আমাদের জন্য অনেক বড় পাওয়া। এর মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের বাচ্চারাও ক্রীড়া-সংস্কৃতি চর্চায় মনযোগী হবে এবং শেখ কামালের মতো একজন তরুণ রাজনীতিবীদ ও ক্রীড়াবিদকে জানতে পারবে।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের সাবেক অধিনায়ক ও আইসিসির ডেভলাপমেন্ট ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম বুলবুল  তার বক্তব্যে বলেন, এখানে এসে আমি আবেগাল্পুত। প্রবাসে থেকেও আপনারা যে দেশকে স্মরণ করে এমন সুন্দর সুন্দর আয়োজন করছেন তা দেখে আমাদের মুগ্ধ হওয়া ছাড়া উপায় নেই। আমি আশা করি, এর মাধ্যমে নতুন প্রজন্মের আমেরিকানরা ক্রিকেট চর্চায় অনেক উৎসাহিত হবে।


শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ড. রবি আলমের সহধর্মিনী মাহমুদ আলম। তিনি উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানান এবং এই টুর্নামেন্ট আয়োজনের সাথে সম্পৃক্ত সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। আগামীতে এই টুর্নামেন্ট আরও সুন্দর করে আয়োজন করতে  সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

টুর্নামেন্টে সহযোগিতা করে ক্যালিফোর্ণিয়া ষ্টেট আওয়ামী লীগ, ক্যালিফোর্ণিয়া ষ্টেট যুবলীগ, ক্যালিফোর্ণিয়া ষ্টেট মহিলা লীগ ও লস এঞ্জেলেস সিটি আওয়ামী লীগ।

বিস্তারিত খবর

তৃতীয় বাংলাদেশী হিসেবে তাইজুলের সেঞ্চুরি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-০৫ ০৩:২৭:১৩

আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নেমেছে বাংলাদেশ। টসে জিতে ব্যাটিংয়ের নামার পর আফগানিস্তানের বিপক্ষে এদিন বাংলাদেশের হয়ে ওপেনিং বোলিং করেন তাইজুল ইসলাম। বাম-হাতি এই স্পিনার ম্যাচের ১৩তম ও নিজের ৭ম ওভারেই প্রথম উইকেটটি তুলে নেন। ওভারের দ্বিতীয় বলে ওপেনার ইহসানউল্লাহ জানাতকে বোল্ড করে প্যাভিলিয়নে ফেরান তিনি। ৩৬ বলে ৯ রান করে মাঠ ছাড়েন জানাত।

এই উইকেটটি শিকার করে টেস্টে বাংলাদেশের হয়ে তৃতীয় বোলার হিসেবে ১০০ উইকেটের মাইলফলক স্পর্শ করেছেন তাইজুল। এর আগে টাইগারদের হয়ে মোহাম্মদ রফিক ও সাকিব আল হাসান ১০০ উইকেট সংগ্রহ করতে সক্ষম হয়েছেন। রফিকের ক্যারিয়ারের মোট উইকেট সংখ্যা ১০০টি। অন্যদিকে এই পর্যন্ত ৫৬ ম্যাচে ২০৫টি উইকেট শিকার করেছেন সাকিব।

বৃহস্পতিবার প্রথম ও নিজের ক্যারিয়ারের ১০০তম উইকেট শিকার করে তাইজুল ইসলাম দুই হাত ওপরে তুলে সৃষ্টিকর্তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। শুধুমাত্র এই উইকেটের জন্য যেন বাড়তি উন্মাদনা বাঁহাতি স্পিনারের। কেন-ই বা হবে না। বাংলাদেশি ক্রিকেটার হিসেবে দ্রুততম একশ উইকেট নেয়ার কীর্তিও গড়েছেন তাইজুল। নিজের ২৫তম টেস্টে তাইজুল পেলেন একশ উইকেট। আগের রেকর্ডধারী সাকিব আল হাসান উইকেটের তিন অঙ্ক ছুঁয়েছিলেন ২৮ তম টেস্টে।

ঘরোয়া ক্রিকেটে দারুণ পারফরম্যান্সের সুবাদে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ২০১৪ সালে টেস্ট অভিষেক হয় বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের। সেসময় প্রথম ইনিংসেই পেয়েছিলেন ৫ উইকেট। পারফরম্যান্সের সেই ধারাবাহিকতা এখনো চলছে। দেশের মাটিতে সাদা পোশাকে ধারাবাহিক সাফল্য পাচ্ছেন। ঘরের মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ৮ উইকেট, পাকিস্তানের বিপক্ষে ৬ উইকেট তার সেরা পারফরম্যান্স। ঢাকায় ইংল্যান্ড এবং অস্ট্রেলিয়াকে হারাতে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন এই স্পিনার।

৩০.৭৯ গড়ে, ৩.১৮ ইকোনমি রেটে ২৫ টেস্টে তাইজুলের শিকার ১০০ উইকেট। মোহাম্মদ রফিক ও সাকিব আল হাসানের পর বাংলাদেশের তৃতীয় বোলার হিসেবে তাইজুল পেলেন একশ উইকেটের স্বাদ। মোহাম্মদ রফিকের ক্যারিয়ার থেমে গিয়েছিল একশ উইকেটের ল্যান্ডমার্কে। সাকিবের টেস্ট উইকেট ২০৫টি। যেন বাঁহাতি স্পিনারদের দাপট চলছে বাংলাদেশ ক্রিকেটে।

বিস্তারিত খবর

রোমে বাংলাদেশ জাতীয় ক্রীড়া সংস্থার পরিচিতি সভা অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-০৩ ০২:৩৪:০৩

নব গঠিত বাংলাদেশ জাতীয় ক্রীড়া সংস্থা ইতালি একটি বর্ণাঢ্য  পরিচিতি সভার আয়োজন করে রাজধানী রোমের একটি রেস্টুরেন্টের হল রুমে।         

আয়োজনের প্রধান অতিথি ছিলেন ইতালীস্থ  দূতাবাসের রাষ্ট্রদূত আব্দুস সোবহান সিকদার। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের পরিচালক শফিউল আলম চৌধুরী নাদেল। সংগঠনের সভাপতি হাজী মোঃ জসিমউদ্দিনের সভাপতিত্বে সভাটি পরিচালনা করেন যৌথ ভাবে সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রশিদ ও পরিচালক সাজ্জাদুল কবির।

বিশেষ অতিথি এই প্রবাসের যুব সমাজের মেধাকে খেলাঘুলাতে কাজে লাগিয়ে সামাজিক উন্নয়নের পাশাপাশি দেশের নাম বহিঃবিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষে  দল মত নির্বিশেষে সকল প্রবাসী সংগঠনকে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান।

উপস্থিত অতিথিবৃন্দরা এই ক্রীড়া সংস্থার কাজ কে আরো সামনে এগিয়ে নেয়া এবং অনুশীলনের জন্য একটি খেলার মাঠ দাবী করেন। পাশাপাশি দূতাবাস কে সহযোগিতা করার জন্যে ও অনুরোধ জানালে রাষ্ট্রদূত তাতে সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন।

এই সময় আরো উপস্থিত ছিলেন কে এম লোকমান হোসেন, নুরে আলম সিদ্দিকী, হাসান ইকবাল, আমিনুর রহমান সালাম, মোঃ জহিরুল আলম, লায়লা শাহ  সহ অনেকে।

শেষে বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষে থেকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্ক ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল ১ সেপ্টেম্বর

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৮-২৮ ০৯:৫০:৪৪

বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা আয়োজিত চলতি বছরের নিউইয়র্ক ফুটবল টুর্নামেন্টেযুব সংঘ (বি) আর সোনার বাংলা ফাইনালে উঠেছে। আগামী ১ সেপ্টেম্বর দল দু’টি ফাইনালে একে অপরের মুখোমুখী হবে। এদিকে নিউইয়র্কে ফুটবল লীগের খেলায় পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে থেকে যুব সংঘ (বি) অপরাজিত লীগ চ্যাম্পিয়ন এবং ব্রঙ্কস ইউনাইটেড লীগে রানার্স আপ হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে। লীগে যুব সংঘ (বি) ২১ আর ব্রঙ্কস ইউনাইটেড ১৫ পয়েন্ট অর্জন করে। টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা শেষে লীগ ও টুর্নামেন্টের পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠিত হবে। সিটির এলমহার্স্টের নিউটাউন অ্যাথলেটিক মাঠে ১ আগষ্ট রোববার বিকেল সাড়ে ৩টায় টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলার অয়োজন করা হয়েছে। খবর ইউএনএ’র।
এদিকে গত ২৫ আগষ্ট রোববার একই মাঠে অনুষ্ঠিত টুর্নামেন্টের সেমিফাইনাল দু’টি অনুষ্ঠিত হয়। এতে সোনার বাংলা ২-১ গোলে ব্রঙ্কস ইউনাইটেড-কে হারিয়ে ফাইনালে উঠে। অপরদিকে যুব সংঘ (বি) ২-০ গোলে ব্রাদার্স অ্যালায়েন্স-কে পরাজিত করে ফাইনালে উঠে।
দিনের প্রথম সেমিফাইনালে সোনার বাংলা ও ব্রঙ্কস ইউনাইটেড অংশ নেয়। আকর্ষণীয় ও প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ এই খেলার প্রথমার্ধ গোল শূন্য ড্র ছিলো (০-০)। খেলার দ্বিতীয়ার্ধের ৪১ মিনিটের সময় সোনার বাংলার অনিক প্রথম গোল করে দলকে এগিয়ে নিয়ে যায়। এরপর ব্রাদার্স অ্যালায়েন্সের রাজু খেলার ৪৫ মিনিটের সময় গোল করে খেলায় সমতা ফিরিয়ে আনেন (১-১)। শেষ পর্যন্ত খেলার নির্ধারিত সময়ে আর কোন গোল হয়নি। পরবর্তীতে খেলার অতিরিক্ত সময়ে সোনার বাংলা’র অনিক গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন।
দিনের দ্বিতীয় সেমি ফাইনালে যুব সংঘ (বি) ও ব্রাদার্স অ্যায়েন্সের মধ্যকার খেলায় যুব সংঘ সহজেই ২-০ গোলে জয়লাভ করে। খেলায় উভয় দল একাধিক গোলের সুযোগ নষ্ট করে। এই সেমি ফাইনালের খেলাটিও ছিলো উপভোগ্য। খেলার প্রথমার্ধে যুব সংঘের পক্ষে বাবলু ৩৩ মিনিটের সময় প্রথম গোল করে দলকে এগিয়ে নিয়ে যান (১-০)। এই  অর্ধে আর গোল গোল হয়নি। খেলার দ্বিতীয়ার্ধে অর্থাৎ ৬১ মিনিটের সময় বাবলু আরো একটি গোল করে দলের জয় নিশ্চিত করেন (২-০)।   
স্পোর্টস কাউন্সিলে সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক রশিদ রানার নেতৃত্বে সংগঠনের কর্মকর্তাদের মধ্যে উপদেষ্টা মনজুর আহেমেদ চৌধৃুরী, সহ সভাপতি ওয়াহিদ কাজী এলিন ও সাধারণ সম্পাদক জুয়েল আহমদ সহ অন্যান্যের মধ্যে আব্দুল কাদির লিপু, আব্দুল বাসিত খান বুলবুল, সৈয়দ এনায়েত আলী, তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, আবু তাহের আসাদ, ইয়াকুত রহমান প্রমুখ মাঠে উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে চলতি বছরের নিউইয়র্ক ফুটবল লীগ ও টুর্নামেন্ট-এর ফাইনাল খেলা সহ অন্যান্য বিষয়ে স্পোর্টস কাউন্সিলের কার্যকরী পরিষদ গত ২৬ আগষ্ট সোমবার রাতে জ্যাকসন হাইটসে এক সভায় মিলিত হয়। সভাপতি মহিউদ্দিন দেওয়ান সভায় সভাপতিত্ব করেন। সভায় সুষ্ঠু ও সুন্দরভাবে টুর্নামেন্টের ফাইনাল খেলা ও পুরষ্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সম্পন্নে বিস্তারিত আলোচনা ও সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে সংশ্লিস্টরা ইউএনএ প্রতিনিধিকে জানান।

বিস্তারিত খবর

৭০০০ উইকেট নিয়ে ৮৫ বছর বয়সে অবসর ঘোষণা!

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৮-২৭ ১২:১৬:১২

সেসিল রাইট। বয়স ৮৫ বছর। তার নাম হয়তো ওয়েস্ট ইন্ডিজের কিংবদন্তি স্যার ভিভিয়ান রিচার্ডস কিংবা গ্যারি সোবার্সের নামের পাশে লেখা থাকবে না। কিন্তু ক্যারিয়ারের স্থায়ীত্বের দিক দিয়ে তিনি তাদের মতো কিংবদন্তিদেরও পেছনে ফেলেছেন।

৮৫ বছর বয়স পর্যন্ত ক্রিকেট খেলে এবার তিনি অবসর নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যেই এই পেস বোলার অবসরে যাবেন। তার ৬০ বছরের ক্যারিয়ারে তিনি ৭০০০ উইকেট নিয়েছেন। দাবি করা হচ্ছে এই লম্বা সময়ে তিনি ২০ লাখের উপরে ম্যাচ খেলেছেন!

একটা সময় পাঁচ মৌসুমে তিনি ৫৩৮ উইকেট নিয়েছিলেন। গড়ে প্রতি ২৭ বলে ১টি করে উইকেট!

তার স্ট্যামিনার প্রশংসা করে ক্রিকেট বাইবেল উইজডেন লিখেছিল, ‘প্রিটি গুড গোয়িং।’ তবে অবশেষে তিনি থামার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, ‘আমি আসলে আমার ক্যারিয়ারের স্থায়ীত্বের রহস্য জানি। তবে আমি সেটা আপনাদের বলতে যাচ্ছি না।’

তার খাদ্যাভাষ নিয়ে একবার তিনি বলেছিলেন, ‘সত্যি বলতে কী আমি যা পাই তাই খাই। তবে আমি বেশি পান করি না। কেবল উদ্ভট বিয়ার পান করি। আমি নিজেকে ফিট রাখি। যদিও সাম্প্রতিক সময়ে বয়সটাকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করে অনুশীলন মিস করি। আসলে সক্রিয় থাকলে দীর্ঘস্থায়ী ও স্বল্পস্থায়ী ব্যাথা দূরিভূত হয়ে যায়। আমি স্থির হয়ে বসে টিভি দেখা পছন্দ করি না। তার চেয়ে বরং আমি হাঁটি অথবা গ্যারেজে ছোট-খাটো কাজ করি।’

রাইট জ্যামাইকার হয়ে বার্বাডোজের বিপক্ষে খেলেছিলেন। সেই সময়ে বার্বাডোজের হয়ে খেলেছিলেন সোবার্স-ওয়েস্ট হলরা। ১৯৫৯ সালে তিনি ইংল্যান্ডে পাড়ি জমান। সেখানে সেন্ট্রাল ল্যাঙ্কাশায়ার লিগে ক্রম্পটনের হয়ে তার পেশাদার ক্যারিয়ার শুরু করেন।

এর তিন বছর পর তিনি ইংল্যান্ডে স্থায়ীভাবে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন। এক সময় গাটছড়া বাঁধেন স্ত্রী এনিডের সঙ্গে। এই দম্পত্তির একটি পুত্র সন্তানও রয়েছে। ১৯৭০ সালের শেষ দিকে ও ১৯৮০ সালের শুরুর দিকে তিনি রিচার্ডস ও জোয়েল গার্নারদের সঙ্গে খেলেছিলেন।

আগামী ৭ সেপ্টেম্বর তিনি তার ৬০ বছরের লম্বা ক্যারিয়ারের ইতি টানবেন। সেদিন ওল্ডহ্যামে পেনিনি লিগের দল স্প্রিংহেডের বিপক্ষে খেলবেন।

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত