যুক্তরাষ্ট্রে আজ শনিবার, ২০ জানুয়ারী, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 10:53am

|   লন্ডন - 04:53am

|   নিউইয়র্ক - 11:53pm

  সর্বশেষ :

  বাংলাদেশ স্পোর্টস কাউন্সিল অব আমেরিকা’র কমিটি ঘোষণা   রোহিঙ্গা সংকট দ্রুতগতিতে বাড়ছে, জরুরি সহায়তা প্রয়োজন : বিশ্বব্যাংক   ভেরিফিকেশনে গিয়ে ফুল-মিষ্টি দিয়ে পুলিশ সুপারের শুভেচ্ছা!   দেশের রেডিওতে শুদ্ধ বাংলা ব্যবহারের নির্দেশ   দ্বিতীয় মেয়াদেও প্রেসিডেন্ট পদে প্রার্থী হবেন সিসি   ভুয়া খবরের প্রচার ঠেকাতে ‘বিশ্বস্ত সংবাদমাধ্যম’র র‍্যাংকিং করবে ফেসবুক   কঙ্গোতে বিদ্রোহীদের হামলায় ২২ সেনা নিহত   যুক্তরাষ্ট্রে সরকার ব্যবস্থায় অচলাবস্থা, নেপথ্য কারণ   টাওয়ার হ্যামলেটসকে ‘ট্রাম্পমুক্ত এলাকা’ ঘোষণা : নেতৃত্বে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত কাউন্সিলর   সিলেটে অর্থমন্ত্রীর গাড়ির ধাক্কায় ১০ জন আহত   নাইজেরিয়ায় আত্মঘাতী বোমা হামলায় নিহত ১২   জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ   রাজশাহীতে প্রথম ফ্লাইওভার নির্মাণের সিদ্ধান্ত   তহবিল সংকটের কারণে ফের শাটডাউনের শঙ্কায় যুক্তরাষ্ট্র   ফিলিস্তিনকে সাড়ে ৪ কোটি ডলার খাদ্য সহায়তা দেবে না যুক্তরাষ্ট্র

>>  টুকিটাকি এর সকল সংবাদ

ক্যান্সার চিকিৎসা গবেষণায় যুগান্তকারী আবিষ্কার

শরীরে ছড়িয়ে পড়ার আগেই রক্তের একটি মাত্র পরীক্ষার মাধ্যমে দেহে আট ধরণের ক্যান্সারের প্রাথমিক অস্তিত্ব সনাক্ত করা সম্ভব। যুক্তরাষ্ট্রে পরিচালিত এই গবেষণাকে ক্যান্সার চিকিৎসায় রীতিমতো যুগান্তকারী বলে আখ্যা দিয়েছেন গবেষকরা।

চলতি সপ্তাহে জার্নাল সায়েন্স সাময়িকীতে এই গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষকরা জানিয়েছেন, ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে এই গবেষণা ফলাফল পট পরিবর্তনকারী। এর মাধ্যমে রোগের শুরুতেই চিকিৎসার মাধ্যম হাজারো মানুষের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে এটি সবার জন্য সহজলভ্য হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন

বিস্তারিত খবর

মঙ্গলগ্রহে বিপুল পরিমাণ পানির সন্ধান

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-১৪ ০০:২৯:০১

মঙ্গলে গ্রহে যাওয়া নিয়ে জোর প্রস্তুতি চলছে বটে গবেষকদের মাঝে। কিন্তু অনেকেই ভাবছেন, মঙ্গলে গেলে খাদ্য কী করে পাওয়া যাবে? শুকনো খাবার নেওয়া যাবে হয়ত, কিন্তু পানি ছাড়া বাঁচা যাবে কী করে? তাদের সেই চিন্তা বুঝি দূর হলো এবার। গবেষকেরা মঙ্গলের পৃষ্ঠের ঠিক নিচেই বিপুল পরিমাণ পানি খুঁজে পেয়েছেন, যা কিনা মঙ্গলে অভিযানে যাওয়া মহাকাশচারীদের দারুণ কাজে আসবে।

Science জার্নালে প্রকাশিত হওয়া এই গবেষণার নেতৃত্বে ছিলেন রিসার্চ জিওলজিস্ট কলিন ডানডাস। অ্যারিজোনার এই গবেষক দল মার্স রিকনেসাস অরবিটারে থাকা HiRISE(High Resolution Imaging Science Experiment) যন্ত্রটি ব্যবহার করে এই ফলাফল পান। তারা এমন আটটি স্থান খুঁজে পান যেখানে মাটি ক্ষয়ে গিয়ে বের হয়ে এসেছে প্রচুর পরিমাণ বরফ। কিছু কিছু জায়গায় মাটির মাত্র ১/২ মিটার নিচে এই বরফের স্তর ছিল ১০০ মিটার পুরু।

শুধু তাই নয়, পৃথিবীতে মাটি যেমন বিভিন্ন স্তরে স্তরে থাকে, তেমনই মঙ্গলের এই বরফের মাঝেও স্তর দেখা যায়। এর অর্থ হলো, মঙ্গলের আবহাওয়ার ইতিহাস খুঁজে বের করতেও কাজে আসতে পারে এই বরফ।

ডানডাস জানান, “কিছু কিছু জায়গায় এই বরফের ওপরে শুধুই ধুলো বা পাতলা মাটির স্তর রয়েছে। গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপার হলো, এই বরফ মাটির একদম নিচেই পাওয়া যাবে।“

গবেষকেরা আগেই ধারণা করেছিলেন যে মঙ্গলে বরফ আছে। কিন্তু এই গবেষণায় নিশ্চিত হওয়া গেল যে এই বরফ যথেষ্ট সহজলভ্য। ভবিষ্যতে মঙ্গলের জন্য পাঠানো অভিযান যেমন ২০২১ সালের ইউরোপিয়ান এক্সোমার্স রোভার মিশনে পৃষ্ঠের ২ মিটার নিচে পর্যন্ত ড্রিল করার যন্ত্র থাকবে, তখন এই বরফ নিয়ে গবেষণা করা যাবে সহজেই। 

ডানডাস এবং তার গবেষক দলের আবিষ্কৃত এই বরফের অবস্থান দেখে বোঝা যায় বেশ শক্তপোক্ত তা। এটাও বোঝা যায় যায় এক মিলিয়ন বছরের কম বয়স এই বরফের। বরফ থেকে কিছু পাথর খসে পড়েছে বলে দেখা যায়, ফলে ধরে নেওয়া যায় মাটি ও বরফ ক্ষয় হয়ে চলেছে। এছাড়া মঙ্গলের আবহাওয়ায় চাপ কম হওয়াতে বরফ থেকে সরাসরি বাষ্পে পরিণত হয় পানি। এ কারণেও বরফ ক্ষয় হয়ে চলেছে। 

ভবিষ্যতে মঙ্গলে মানুষ পাঠানো হলে তারাও এই পানি কাজে লাগাতে পারবেন। শুধু পান করার কাজে নয়, জ্বালানী হিসেবেও তা ব্যবহার করা যেতে পারে। HiRISE ব্যবহার করে মঙ্গল পৃষ্ঠের মাত্র ৩ শতাংশ পর্যবেক্ষণ করা গেছে, তাই ভবিষ্যতে আরো বেশী পরিমাণে বরফ পাওয়া যেতে পারে বলে আশাবাদী গবেষকেরা।

 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

মৃত ঘোষণার কয়েক ঘণ্টা পর মর্গে জেগে ওঠল মরদেহ!

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-০৯ ০১:২১:০৯

তিন চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করলেও হাসপাতাল মর্গে জেগে ওঠল মৃতদেহ। স্পেনের স্থানীয় সংবাদ মাধ্যম সূত্রে জানিয়েছে বিবিসি।

স্পেনের আস্তুরিয়াস অঞ্চলের এক কারাগারের বন্দি গঞ্জালো মন্তয়া জিমেনেজকে মৃত ঘোষণার পর হাসপাতালে মর্গে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কয়েক ঘণ্টা পর তিনি জেগে ওঠলে ঘটনাটি সাড়া পড়ে যায় তখন। তার পরিবার জানান, মৃত ঘোষণার পর সমাহিত করার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন তারা।

তারা জানান, তার ময়নাতদন্তের জন্য চিহ্নিত করে রাখা হয়েছিল। তার আগ মুহুর্তে গঞ্জালো জেগে ওঠেন। তাকে এখন হাসপাতালের নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। কেন এধরণের ঘটনা ঘটল তার কারণ জানা যায়নি এখনো। কারণ অনুসন্ধানের জন্য গঞ্জালোকে প্রাদেশিক রাজধানীর মেডিসিন ইন্সটিটিউটে নিয়ে যাওয়া হবে।

 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও প্রেমিকাকে বিয়ে, অতঃপর…

 প্রকাশিত: ২০১৮-০১-০৫ ১১:২৮:০৭

সাদা গাউন গায়ে জড়িয়ে অক্সিজেন মাস্ক লাগিয়ে হাসপাতালের বেডে শুয়েছিলেন ক্যানসার আক্রান্ত কনে। হাসপাতালেই উপস্থিত হন বর, দুই পরিবারের আত্মীয়স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবরা। কনের হাতে আংটি পরালেন বর। বরের দিকে গভীর দৃষ্টিতে তাকিয়ে বলেন, আই ডু।

বিয়ে সম্পন্ন হবার সঙ্গে সঙ্গে অক্সিজেন মাস্ক লাগানো অবস্থাতেই দুহাত তুলে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেন কনে। কিছুক্ষণ পরই কনের শরীর আরো খারাপ হতে শুরু করে। শেষমেশ বিয়ের ঠিক ১৮ ঘণ্টা পরেই মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েন নববধূ।

প্রেমিকা হিথার মোসহেরের নিশ্চিত মৃত্যু জেনেও হাসপাতালে বিয়ে করেন ডেভিড মোসহের। গত বছরের ২২ ডিসেম্বর ঘটে যাওয়া এই অভূতপূর্ব ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের কানেকটিকাটের হার্টফোর্ড শহরের ফ্যান্সি হাসপাতাল ও মেডিকেল সেন্টারের চিকিৎসক ও কর্মীরা। হিথার বেঁচে নেই কিন্তু তার বিয়ের ছবি ভাইরাল হয়ে ঘুরছে নেট দুনিয়ায়।

২০১৫ সালে হিথারের সঙ্গে প্রথম দেখা হয়েছিল ডেভিডের। প্রথম দর্শনেই প্রেম। দিনে দিনে প্রেমেরে সম্পর্ক আরো গভীর হয়। যেদিন হিথারকে বিয়ের প্রস্তাব দেয়ার পরিকল্পনা করেন ডেভিড, ঠিক সেদিনই জানা যায় হিথার স্তন ক্যানসারে আক্রান্ত। তবু বিয়ের প্রস্তাব দেন ডেভিড।

প্রেমিকার এই কঠিন অবস্থায় তার পাশে থাকতে চান ডেভিড। তার শেষ সময়টাকে আনন্দে ভরিয়ে দিতে চান তিনি। প্রথমে তারা ঠিক করেন ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ বিয়ে করবেন। কিন্তু হিথারের শারীরিক পরিস্থিতি দ্রুতই খারাপ হচ্ছিল। চিকিৎসকরা জানান, হিথারের হাতে খুব বেশি সময় নেই। তাই হাসপাতালেই ২২ ডিসেম্বর বিয়ের আয়োজন করা হয়।

ডেভিড বলেন, আমি তাকে তীব্র যন্ত্রণায় ছটফট করতে দেখেছি। কিন্তু বিয়ের পূর্ব মুহূর্ত পর্যন্ত বেঁচে থাকার আশা ছাড়েনি হিথার। তার মতো কেউ কখনো ভালবাসতে পারবে না আমায়। যেখানে বিয়ের শপথ নিয়ে একসঙ্গে থাকার কথা ছিল আমাদের, সেখানে আমি আমার স্ত্রীকে চিরদিনের বিদায় জানালাম।


 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

১ জানুয়ারি আফগানিস্তানে গণ-জন্মদিন!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-৩১ ১২:১৫:৩৯

জানুয়ারি মাসের প্রথম দিনটিতে সামাদ আলাবির জন্মদিন। এ দিন তার স্ত্রী, দুই ছেলে ও ৩২ জন বন্ধু এবং আরো কয়েক হাজার আফগানেরও জন্মদিন। প্রকৃত তারিখ জানা না থাকায় তারা পরবর্তী সময়ে জন্মদিন হিসেবে ১ জানুয়ারিকেই পছন্দ করেছে।

জন্ম সনদ অথবা অফিসিয়াল রেকর্ড না থাকায় বয়স নির্ণয়ের জন্য অনেক আফগান দীর্ঘদিন ধরে মৌসুমি বা ঐতিহাসিক দিনগুলোকে তাদের জন্মদিন বানিয়েছে।

কিন্তু ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোর ফলে এবং পাসপোর্ট ও ভিসার ক্রমবর্ধমান চাহিদার প্রেক্ষিতে আফগানদের জন্ম তারিখ লিখতে হয়। প্রকৃত জন্ম তারিখ জানা না থাকায় তারা নিজেদের পছন্দমত একটি দিন বেছে নেয়। ফেসবুকে অ্যাকাউন্ট খোলার জন্য জন্মদিনের প্রয়োজন হয়। তাই এখন ১ জানুয়ারি আফগানদের গণ জন্মদিনে পরিণত হয়েছে।

সামাদ আলাবি (৪৩) বলেন, ‘১ জানিয়ারি সকল আফগানবাসীর জন্মদিন বলে মনে হচ্ছে।’

তারা সোলার হিজরি থেকে কোন তারিখকে তাদের জন্মদিন বানাতে চায় না। ইসলামিক বর্ষটি শুধু ইরান ও আফগানিস্তানে ব্যবহৃত হয়। এ কারণেই তারা ১ জানুয়ারিকেই তাদের জন্মদিন হিসেবে পছন্দ করে।

আলাবি বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেছেন, ‘যখন ২০১৪ সালে আমি প্রথম ফেসবুক অ্যাকাউন্ট খুলি। তখন আমার জন্মদিন হিসেবে ড্রপ ডাউন লিস্ট থেকে ১ জানুয়ারি তারিখটি বাছাই করা খুবই সহজ ছিল।’

তিনি আরো বলেন, ‘ওই সময় ইন্টারনেটের গতিও খুব মন্থর ছিল। তাই অন্য কোন তারিখ খুঁজে বের করা কঠিন ছিল।’

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

কিম জং উনকে নকল করে ঘুরে বেড়ান তিনি

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-২৭ ১৩:১৭:২৪

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সাথে চেহারার মিল থাকায় তাকে নকল করে দেশে দেশে ঘুরে বেরান এমন একজন মানুষ আছেন যাকে সবাই ড্রাগন কিম নামে চেনেন।

কিম জং উনের মতোই গুরুগম্ভীর চেহারা করে হাঁটেন, রাজসিক ভঙ্গিতে মানুষকে দেখে হাত নাড়েন। রাস্তায় পথ চলতি মানুষেরা হঠাৎ থমকে দাড়িয়ে যান কেউ কেউ।

রাস্তায় লোকজন তাকে দেখে অবাক হয়, মজাও পায়। অনেকেই আবার স্মার্ট ফোন বের করে ছবি তোলেন কেউ ভিডিও করেন, কেউ আবার সেলফি তুলতে চান। ব্যপারটি ড্রাগন কিম রীতিমত উপভোগ করেন।


 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ট্রাম্পের সাথে ডিনার, খরচ মাথাপিছু ৭৫০ ডলার!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-২৩ ১০:০৮:৩১

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাথে বর্ষবরণের ডিনারের চাঁদা ধরা হয়েছে মাথাপিছু ৭৫০ ডলার । ৩১ ডিসেম্বর রাতে এ পার্টি হবে দক্ষিণ ফোরিডায় পামবিচে ট্রাম্পের মালিকানাধীন ‘মার-এ লগো’ ক্লাবে। তবে ক্লাবের সদস্যদের জন্য ফি ধার্য করা হয়েছে ৬০০ ডলার করে। ইতোমধ্যেই সব টিকিট বিক্রি হয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন এ পার্টির আয়োজকেরা।

উল্লেখ্য, ফার্স্টলেডি মেলানিয়াকে নিয়ে বড়দিনের উৎসবও এখানেই উদযাপন করবেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। সাথে থাকবে তাদের ১১ বছর বয়সী ছেলে ব্যারোন। গত বছরের ডিনার পার্টির টিকিটের মূল্য ছিল সদস্যদের জন্য ৫২৫ ডলার এবং অতিথির জন্য ৫৭৫ ডলার।


এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ভালোবাসা হাসপাতাল

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-২২ ১২:২০:৩৯

চীনের সাংহাইয়ে গড়ে তোলা হয়েছে ‘ভালোবাসার হাসপাতাল’ বা ‘লাভ হসপিটাল’। কর্তৃপক্ষের মতে, সম্পর্কের মাঝে মূল সমস্যাটিই হলো স্ত্রীর মতো আচরণ। স্ত্রীকে সরিয়ে দিয়ে প্রেমিকা হয়ে উঠতে পারলেই ভালোবাসার মানুষটিকে কাছে রাখা সম্ভব।

এই হাসপাতালে স্ত্রীদের তাঁদের ভালোবাসার প্রতিদ্বন্দ্বীদের কাছ থেকে ভালোবাসার মানুষটিকে ফিরিয়ে আনতে পরামর্শ দেওয়া হয়, যারা সম্পর্ক টিকিয়ে রাখতে চাইছেন। হাসপাতালটিতে বেশ কয়েক সপ্তাহ কাউন্সেলিংয়ের পর ওই নারী অনেক কিছু শিখেছেন বলে জানান। শিখেছেন কীভাবে আরো দায়িত্বশীল স্ত্রী হওয়া যায়, নিজেকে আরো ভালো করে তোলা যায়।

ভালোবাসা হাসপাতালের সহপ্রতিষ্ঠাতা শু-চীন বলেন, আমাদের কাছে ৩৩টি উপায় আছে একজন স্ত্রীকে দূর করে, প্রেমিকা করে তোলার। অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এটা হয়ে থাকে অন্য কোথাও সম্পর্ক থাকার জন্য। এটা খুবই ভয়ানক। এটা পরিবার ও সমাজের পথে বাধা। হাসপাতালটি প্রায় ১৭ বছর ধরে পরিচালনা করতেছি। এই সময়ে লক্ষাধিক গ্রাহককে সেবা দিয়েছি।


 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

১ লাখ ৪০ হাজার ইউরোয় গ্রাম বিক্রি

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-১৮ ০১:৩৭:৫৬

জার্মানির রাজধানী বার্লিন থেকে প্রায় ১২০ কিলোমিটার দূরে অবস্থিত ছোট্ট একটি গ্রাম অ্যালউইন। জীবিকার তাগিদে গ্রাম ছেড়ে অনত্র চলে গেছেন সিংহভাগ বাসিন্দা। অবশিষ্ট আছে হাতে গোনা ২০জন প্রবীণ। চরম দারিদ্র্যের মধ্যে দিন কাটে তাদের। রোজগার বলতে কিছুই নেই। খেয়ে না খেয়ে কোনোমতে বেঁচে আছে তারা। অনেকের আবার রোগে-শোকে যায়যায় অবস্থা। এমন অবহেলিত গ্রামটি এখন চলে গেছে অন্যের হাতে।

সম্প্রতি নিলামে তোলা হয় অ্যালউইন গ্রামটি। শুরুতে এর দাম উঠেছিল ১ লাখ ২৫ হাজার ইউরো। শেষমেশ ১ লাখ ৪০ হাজার ইউরো দিয়ে গ্রামটি কিনে নিয়েছেন অজ্ঞাত পরিচয়ের এক ব্যক্তি। বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ প্রায় ১ কোটি ৩৬ লাখ টাকা। ২০০০ সালেও এক দফা বিক্রি হয়েছিল ১৬ হাজার বর্গমিটার আয়তনের গ্রামটি। ইউরো চালু হওয়ার আগে জার্মানির মুদ্রা ছিল ডয়েসমার্ক। সে সময় নামমাত্র এক ডয়েসমার্ক দিয়ে এক ব্যক্তির কাছে গ্রামটি বিক্রি করে দেয়া হয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জার্মানির নেতা হিটলারের তরুণ সেনারা এই গ্রামে প্রশিক্ষণ নিত। এ ছাড়া যুদ্ধবন্দীদেরও সেখানেই রাখা হতো। বিশ্বযুদ্ধ শেষ হলে এই গ্রাম পূর্ব জার্মানির অংশ হয়।

নব্বইয়ের দশকের শেষ পর্যন্ত কমিউনিস্ট শাসিত সাবেক পূর্ব জার্মানির অন্তর্ভুক্ত ছিল অ্যালউইন। দিনভর কাজ করে পরিবার নিয়ে সুখে-শান্তিতে দিন কাটাত তখনকার গ্রামের বাসিন্দারা। গ্রামের পাশেই ছিল ইটভাটা। যেখানে বহুলোক কাজ করতো। প্রায় রাতেই বিভিন্ন বাড়ি থেকে ভেসে আসত গানের আওয়াজ।

১৯৯০ সালে দুই জার্মানি এক হয়ে যাওয়ার পর অ্যালউইন গ্রামের সুখের সংসারগুলোতে নেমে আসে ঘোরতর অন্ধকার। ধীরে ধীরে মানুষগুলোও চলে যেতে থাকে। হঠাৎ একদিন ইটভাটাও বন্ধ হয়ে যায়। মুহূর্তেই শত শত মানুষের কপালে হাত। কী আর করা! রুটি-রুজির জন্য প্রিয় জন্মস্থান ছেড়ে দূর-দুরান্তে পাড়ি জমাতে থাকে অসংখ্য মানুষ। এভাবে হইচই আর লোকে লোকারণ্য গ্রামটি একদিন হয়ে যায় নীরব-নিস্তব্ধ।

 এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সালমানের ফিটনেস রহস্য ফাঁস!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-০৬ ১৩:১৭:৩২

মেঘে মেঘে বেলা কম হয়নি। আসছে ২৭ ডিসেম্বর সালমান খানের বয়স হচ্ছে ৫২ বছর। অথচ সল্লু ভাইজানকে দেখে কে বলবে যে এতটা বয়স হয়েছে তার? এই বয়সেও যে দারুণ ফিটনেস ধরে রেখেছেন তিনি।

এই বয়সে সালমান খান এতটা ফিট কীভাবে? সালমানের ‘সুলতান’ আর ‘টাইগার জিন্দা হ্যাঁয়’ ছবির পরিচালক আলী আব্বাস জাফর সম্প্রতি এই নায়কের ফিটনেস রহস্য ফাঁস করেছেন। আলী আব্বাস বলেন, ‘সালমান নিজেকে ফিট রাখার জন্য অনেক ব্যায়াম করেন। এই ছবির শুটিং শুরুর আগের তিন মাস সালমান বলতে গেলে জিমে পুরো জীবন দিয়ে দিয়েছেন। ছবির শুটিং মরুভূমিতে হোক আর বরফঢাকা কোনো পাহাড়ে, সালমান এক দিনের জন্যও শরীরচর্চা বাদ দেননি। প্রতিদিন প্রায় ১০ কিলোমিটার পথ সাইকেল চালিয়ে সেটে আসতেন তিনি। এ রকম আবহাওয়ায় সাইকেল চালিয়ে এত দূর পাড়ি দেওয়া সহজ নয়।’

পরিচালক জানান, এ অভিনেতা নাকি খাবারও মেপে মেপে খান। ‘টাইগার জিন্দা হ্যাঁয়’ ছবির শুটিং হয়েছে আবুধাবি, অস্ট্রিয়া, গ্রিস আর মরক্কোতে। শুটিং সেটের অন্যরা যখন নানা দেশের মুখরোচক সব খাবারের স্বাদ নিচ্ছেন, সালমান তখন ‘কঠিন’ ডায়েটে। তবে সবশেষে গ্রিস অংশের শুটিংয়ের সময় নাকি নিজেকে কিছুটা ছাড় দেন সালমান। সবার সঙ্গে বসে তখন পেট পুরে খেয়েছেন।

সালমান খান ও ক্যাটরিনা কাইফ অভিনীত ‘টাইগার জিন্দা হ্যাঁয়’ মুক্তি পাবে ২২ ডিসেম্বর।


এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

যে রেস্টুরেন্টে বৈধভাবে মানুষের মাংস বিক্রি হয়!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-০১ ১৪:৫২:৩৩

এই আজব পৃথিবীতে কত যে অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটছে তার কোনো হদিস নেই। আবার মহাজাগতিক বিশ্বে সর্বশ্রেষ্ঠ জীবের পক্ষেই যে সর্ব নিকৃষ্ট জীব হওয়া সম্ভব, তার চাক্ষুস নিদর্শন হচ্ছে বিস্ময়কর এই মানবজাতি। সম্প্রতি জাপানের রাজধানী টোকিওতে একটি খাবার রেস্টুরেন্ট চালু করা হয়েছে। আর সেই রেস্টুরেন্টে প্রকাশ্যেই বিক্রি করা হচ্ছে মানুষের মাংস দিয়ে তৈরি করা নানা রকম খাবার। আপনি হয়তো ভাবছেন, এটা একটি কাল্পনিক কিংবা সম্পূর্ণ অবৈধ রেস্তোরাঁর কথা বলছি। কিন্তু না ব্যাপারটি আসলে তা নয়। জানা যায় ঐ রেস্টুরেন্টটির রয়েছে মানুষের মাংস বিক্রি করার বৈধতাও। টোকিওতে অবস্থিত ঐ রেস্টুরেন্টির নাম ‘The Resoto ototo no shoku ryohin’, নামটি জাপানি ভাষায় রাখা হয়েছে। এই নামের বাংলা অর্থ দাঁড়ায় ‘ খাবারের যোগ্য ভাই’। ইতোমধ্যে জাপানসহ আন্তর্জাতিক বেশ কিছু গণমাধ্যমে ঐ রেস্টুরেন্ট সম্পর্কে বেশ কয়েকটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। রেস্টুরেন্টটির প্রতিটি খাবার বেশ উচ্চ দামে বিক্রি করা হচ্ছে বলে জানা যায় মেক্সিকান সংবাদমাধ্যম মেলিনিও থেকে। ঐ রেস্তোরাঁর কর্তৃপক্ষয়ের দাবি এটি বিশ্বের প্রথম রেস্টুরেন্ট, যেখানে বৈধভাবে মানুষের মাংস বিক্রি হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায় ঐ রেস্টুরেন্টটি, মৃত মানুষের লাশ কিনে নেয়। এমনকি, জাপানের অনেক মানুষই আছে যারা মৃত্যুর পূর্বে তাদের সেই দেহ ঐ রেস্টুরেন্টটিতে বিক্রয়ের জন্য পরিবারকে জানিয়ে রাখে। রেস্টুরেন্ট কর্তৃপক্ষ প্রত্যেকটি লাশের জন্য ঐ মৃত ব্যক্তির পরিবারকে সর্বনিম্ন £২৭,000 পরিমাণ অর্থ প্রদান করে, যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় তিরিশ লক্ষ তিন হাজার টাকা।

সম্প্রতি আর্জেন্টিনায় বসবাসকারী এক জনৈক পর্যটক জাপানের ঐ মানুষের মাংস বিক্রি করা রেস্টুরেন্টটিতে খেতে গিয়ে তার অভিজ্ঞতার কথা জানায় একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমকে। তখন তিনি বলেন ‘রেস্টুরেন্টিতে বিক্রি করা মাংসের স্বাদ অনেকটা শূকরের মাংসের মতো, তবে সাধারণ মাংসের তুলনায় ঐ মাংস অনেকটাই শক্ত এবং টাইট।’

তবে মানুষের মাংস বিক্রি করা এই পৃথিবীতে মোটেও বিরল ঘটনা নয়। যুক্তরাজ্যের খ্যাতিমান সংবাদ মাধ্যম দ্য ইনডিপেন্ডেন্ট থেকে জানা যায়, ২০১৪ সালে রেস্টুরেন্টে মানুষের মাংস বিক্রি করার অপরাধে নাইজেরিয়ার আনাম্ব্রা প্রদেশের একটি রেস্তরাঁ থেকে দেশটির পুলিশ এগারো জনকে গ্রেফতার করেছে।

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

তাই বলে চোখে ট্যাটু!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-০১ ১৪:৩৪:২০

করণ কিং, দিল্লির ট্যাটু আর্টিস্ট। বয়স ২৮। ভারতীয় হিসেবে তিনিই প্রথম ট্যাটু আর্টিস্ট যিনি নিজের চোখের মণিতে রংয়ের রেখাচিত্র আঁকানোর সাহস দেখিয়েছেন, এমনই দাবি করণের। সম্প্রতি ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস-এ দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে করণ বলেছেন, ‘আমি জানি, আমার এই ইচ্ছের কথা জানার পর এবং অভীষ্টপূরণের পর অনেকেই আমাকে অপছন্দ করবেন। কিন্তু আমি এটা করিয়েছি, কারণ আমি মনে প্রাণে চেয়েছি চোখে ট্যাটু করাতে। আমার চোখ, আমার আনন্দ, আমার জীবন’।

চোখের মতো একটি সংবেদনশীল জায়গায় উল্কি করানোর পরিণতি ভয়ানক হতে পারে, এমনকী দৃষ্টি শক্তিও চলে যেতে পারে, এটা জেনেও চোখে ট্যাটু করানোর মতো একটা সিদ্ধান্ত করণ কিং নিয়েছেন।

‘আমি জানতাম, পান থেকে চুন খসলেই আমাকে হয়ত নিজের চোখ হারাতে হত। তবে আমি কায়মনোবাক্যে চেয়েছিলাম চোখে ট্যাটু করাতে। শেষ পর্যন্ত করতে পেরেছি’, চোখে ট্যাটু করানোর পর এই প্রতিক্রিয়াই দিয়েছেন করণ। তার সোশ্যাল মিডিয়ায়।

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

মাসিক আয় লাখ টাকা, তবুও ছাড়বেন না ভিক্ষাবৃত্তি!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১১-২৫ ১০:৩৮:১৭

ভারতে পেশাদার ভিক্ষাজীবী দেখতে পাওয়া যায়। তাদের উপার্জন কর্পোরেট সংস্থায় চাকুরেদের থেকে কোন অংশে কম নয়।

তাদের মধ্যে মুম্বাইয়ের বাসিন্দা ভরত অন্যতম। পঞ্চাশোর্ধ্ব ভরত রীতিমতো ফ্যামিলি ম্যান। তার কর্মক্ষেত্র মুম্বাইয়ের পারেল এলাকা। তিনি দু'টো ফ্ল্যাটের মালিক। সেই ফ্লাট দুইটির দাম অন্তত এক কোটি টাকা। ভিক্ষা করে প্রতি মাসে তার উপার্জন ৭৫ হাজার টাকা। এই ভিক্ষাবৃত্তীর জন্য তিনি সময় দিতে পারেন না পরিবারকে।

এছাড়াও ভরতের একটি দোকান রয়েছে। তবে সেটি তিনি ভাড়া দিয়েছেন।

ভাড়া বাবদ প্রতি মাসে পেয়ে থাকেন ১০ হাজার টাকার বেশি। পাশাপাশি তার পরিবারের অন্য সদস্যরা স্কুলের স্টেশনারি জিনিসের ব্যবসা চালান।

সব মিলিয়ে মাসে মাসে লক্ষাধিক টাকার উপার্জন হয়েই থাকে। পরিবারের তরফে বহুবার অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু ভরত ভিক্ষাবৃত্তি ছাড়বেন না। কারণ যে জীবিকা তাঁকে পায়ের নিচে জমি দিয়েছে সেটা নিয়ে তিনি বিন্দুমাত্র লজ্জিত নন।

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

গুগল ম্যাপে দেখা যাবে পৃথিবীর বাইরের ছবি

 প্রকাশিত: ২০১৭-১০-২৫ ১১:৪১:৩৮

এতদিন শুধু পৃথিবীর নানা জায়গা ও সেখানে পৌঁছনোর রাস্তা দেখিয়েই ক্ষান্ত হতো গুগল ম্যাপ অ্যাপ্লিকেশনটি। এবারে তার সঙ্গে যুক্ত হল আরো একটি ফিচার। গুগল ম্যাপে এবার থেকে দেখতে পাওয়া যাবে সৌর জগতের নানা গ্রহ, নক্ষত্র, চন্দ্র। অবাক হওয়ার মতোই ব্যাপার। শনি গ্রহের নিজস্ব চন্দ্র যেমন এনকেলেডাস, টাইটান ও মিমাসকেও দেখা যাবে বলে দাবি করেছেন গুগলের প্রডাক্ট ম্যানেজার, স্ট্যাফোর্ড মারকার্ড। একটি ব্লগপোস্টে তিনি লিখেছেন, নিজের ঘরে বসেই মানুষ দেখতে পাবেন এনকেলেডাসের বরফে ঢাকা উপত্যকা।

আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, কুড়ি বছর আগে কেপ ক্যানাভেরল থেকে ক্যালিনি নামে যে মহাকাশযান লঞ্চ করা হয়েছিল, তার মূল কাজ ছিল শনি গ্রহ সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা। তার চন্দ্রেরও। বৈজ্ঞানিকদের হাতে এসে পৌঁছয় প্রায় ৫ লাখ ছবি।

এই গ্রহগুলো ও তাদের চাঁদের খুব কাছাকাছি এবার নিয়ে যাবে গুগল।

নীচের লিঙ্কে ক্লিক করে, নিজের ঘরে বসেই ঘুরে আসুন সৌর জগৎ থেকে— https://www.google.com/maps/space/earth


এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

‘দাদিদের’ সুন্দরী প্রতিযোগিতা!

 প্রকাশিত: ২০১৭-১০-২৩ ১২:৩৪:৫২

সুন্দরী প্রতিযোগিতার কথা শুনলেই একদল সুন্দরী তরুণীর ছবিই মনের মধ্যে ভেসে ওঠে। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্রের আটলান্টিক সিটিতে গত বৃহস্পতিবার হয়ে গেল এক ভিন্নধর্মী সুন্দরী প্রতিযোগিতা। এ সুন্দরী প্রতিযোগিতাটি ছিল নানি-দাদিদের বয়সীদের নিয়ে। রীতিমতো জমকালো পোশাকে সুসজ্জিত হয়ে নানি-দাদিরা অংশ নেন মিস সিনিয়র আমেরিকা ২০১৭-তে।

যে বয়সটাকে প্রথাগতভাবে মনে হয় অসুখ-বিসুখে বিছানায় পড়ে থাকা কিংবা হুইল চেয়ারে চলাফেরার, সেই বয়সকে বুড়ো আঙুল দেখিয়ে তারা তাদের সৌন্দর্য ও ব্যক্তিত্বের ঝলক দেখালেন। এ খবর দিয়েছে এএফপি ।

এ বছরের মিস সিনিয়র আমেরিকার খেতাব জিতে নেন ৭৩ বছর বয়স্ক নিউ জার্সির ক্যারোলিন স্লেড হার্ডেন। উচ্ছ্বসিত হার্ডেন বলেন, এ বয়স হচ্ছে মার্জিত সৌন্দর্যের। এটি কেবল শুরু, শেষ না। দুই সন্তানের এ জননীর তিনজন পৌত্র ও একজন প্রপৌত্র রয়েছে। তিনি বলেন, সৌন্দর্য প্রদর্শনী বলতে লোকে মনে করে শারীরিক সৌন্দর্য। তবে এটি আসলে ‘ভেতর থেকে আসা সৌন্দর্য’।

প্রতিদিন সকালে নিয়ম করে শরীরচর্চা করেন। সৌন্দর্যের রহস্য সম্পর্কে হার্ডেন বলেন, ৭০ বছর বয়েসেও কি করে সুন্দর থাকা যায় এর কোনো জাদুকরি উত্তর নেই। তিনি বলেন, ‘খোদার কাছে প্রার্থনা করুন আর স্বাস্থ্যকর খাবার খান।’ তিনি বলেন, ‘লোকে বলে, আমি দেখতে সিনড্রেলার মতো। তবে কখনই মনে হয় না, আমি ততটা সুন্দর।’ মিস সিনিয়র আমেরিকা প্রতিযোগিতায় ৯০ ছাড়ানো কিছু নারীও অংশ নেন।

এ প্রতিযোগীদের অনেকেই ক্যান্সার, তালাক প্রাপ্ত ও বৈধব্যের মতো যন্ত্রণার মধ্য দিয়েও গেছেন। প্রতিযোগিতার দিন তারা নানা ধরনের নাচ-গান আর হাঁটাচলার প্রদর্শনী দেখিয়ে প্রমাণ করেন এগুলো করার জন্য বেশি বয়স কোনো ব্যাপার নয়।

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

৮৬ দিনেই কুরআনের হাফেজ শিশু ইয়াসিন

 প্রকাশিত: ২০১৭-১০-০৬ ১২:৫৪:২৮

ষষ্ঠ শ্রেণিতে নিয়মিত ক্লাস করেও মাত্র ৮৬ দিনে ৩০ পারা কুরআন হিফজ (মুখস্থ) করে দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করেছে ইয়াসিন আরাফাত খান। পাশাপাশি সাধারণ শিক্ষায়ও চমকপ্রদ ফলাফল করছে মাত্র সাড়ে ১১ বছর বয়সী এই মেধাবী মুখ। কক্সবাজার তানযীমুল উম্মাহ হিফজ মাদরাসা থেকে এবছর ইয়াসিন হেফজ করে।

যে বয়সে খেলাধুলা আর দুষ্টুমিতে ছেলেদের সময় কাটে, সে বয়সে মহান আল্লাহর ৩০ পারা কালাম নির্ভুলভাবে হিফজ করা সত্যিই আশ্চর্যের।

তার বাবা গোলাম আজম খান পেশায় সাংবাদিক। মা সালমা খাতুন একজন গৃহিণী। তার স্থায়ী নিবাস টেকনাফের হোয়াইক্যং ইউনিয়নের সাতঘরিয়াপাড়া এলাকায়।

তানযীমুল উম্মাহ হিফজ মাদরাসা কক্সবাজার শাখার মেধাবী ছাত্র ইয়াসিন আরাফাত খান ইতোপূর্বে ৫ম শ্রেণিতে বৃত্তি লাভ করে। বর্তমানে একই প্রতিষ্ঠানে ষষ্ঠ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত।

হাফেজ ইয়াসিন আরাফাতের শিক্ষক দেলোয়ার হোসেন বলেন, আমি অনেক ছাত্র পেয়েছি। ইয়াসিনের মতো পাইনি। তার মেধায় যাদুকরী  শক্তি আছে। পড়া দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে মুখস্থ করে ফেলে। শিক্ষক ডেকে হাজিরা দেয়। চমৎকার সুশৃঙ্খল, অমায়িক ও মার্জিত হওয়ায়  তার প্রতি সবার আকর্ষণ আলাদা।

তিনি বলেন, সব ছাত্ররা যখন গভীর রাতে ঘুমিয়ে থাকে ওই সময়েও পড়তে দেখেছি ইয়াসিন আরাফাতকে।

মাদরাসার অধ্যক্ষ হাফেজ রিয়াদ হায়দার বলেন, ক্লাসের হাজিরা খাতা অনুসারে মাত্র ২ মাস ২৬ দিনে (৮৬ দিন) ৩০ পারা পবিত্র কুরআন শরীফ খতম করেছে ইয়াসিন আরাফাত। এখন থেকে যুক্ত হলো ‘হাফেজ’ শব্দ। যে শব্দটি কেনা যায় না। চুরি করেও মেলে না ‘হাফেজ’সনদ। মেধা-সাধনা দিয়ে নিতে হয় এই সনদ।

তিনি বলেন, সাধারণ ক্লাসের পাশাপাশি এত দ্রুত সময়ের মধ্যে কুরআন হেফজ করার দৃষ্টান্ত এই অঞ্চলের জন্য নজিরবিহীন। পুরো দেশে হয়তো দু’য়েকটা থাকতে পারে।

ইয়াসিনের বাবা গোলাম আজম খান জানান,  তার বড় ছেলে আবদুল্লাহ আল সিফাত এ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অনার্স ভর্তি পরীক্ষায় ‘খ’ ইউনিটে উত্তীর্ণ হয়েছেন।

হাফেজ ইয়াসিন আরাফাতের দাদা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অবসর প্রাপ্ত শিক্ষক মরহুম ডাক্তার মোহাম্মদ ইছহাক খান টেকনাফের সুপরিচিত ব্যক্তি ছিলেন। নানা আলহাজ্ব ছালেহ আহমদ সৌদিআরবের একজন প্রসিদ্ধ ব্যবসায়ী।

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি   

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্কের নারীরা ইভানকার চেহারা পেতে মরিয়া

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৯-২০ ১২:২০:১৪

নিউইয়র্কের নারীরা সম্প্রতি দেখতে হুবহু মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে ইভানকার মতো হতে চাইছেন। নিজের চেহারা বদলে ইভানকার মুখ ও চেহারা বসিয়ে নিতে মরিয়া হয়ে প্লাস্টিক সার্জনের কাছে ছুটছেন তারা।

খবরে বলা হয়, গত এক সপ্তাহে অন্তত ৫০ জন নারী ইভানকার রূপ নিতে নিউইয়র্কের প্লাস্টিক সার্জন নরম্যান রোয়ির কাছে গেছেন। প্রায় ৫০ লাখ টাকা (৬০ হাজার ডলার) খরচ করেও তারা এই প্লাস্টিক সার্জারি করতে রাজি।

প্লাস্টিক সার্জন নরম্যান রোয়ি বলেন, ‘প্লাস্টিক সার্জারি করে ইভানকার রূপ নিতে এর আগে কাউকে আসতে দেখিনি। ইভানকা সুন্দরী, ক্ষমতাধর নারী ও প্রেসিডেন্ট পরিবারের সদস্য। এ কারণেই হয়তো এখন নারীরা তাঁর রূপ নিতে উৎসাহিত হচ্ছেন। তাঁরা দেখতে হুবহু ইভানকার মতো হতে চাইছেন।’

বিস্তারিত খবর

বিভিক্ত সিলেট এবং অবিভক্ত ভালোবাসা

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৯-১৩ ০২:১৫:২৮

তোমার দুঃখ তোমার থাকুক আমার দুঃখ আমার
মাঝখানে যে বরাক নদী বড় বেশী ফারাক।
 
তোমার মেঘে  বৃষ্টি হলে আমার নামে ঢল
উজান গাঙে আটকে থাকে মাঝির চোখের জল।
 
ওপারেতে কেমন আছো জানতে ইচ্ছা  করে
দুঃখের ভাগি হবার ভয়ে আশটি গুমরে মরে।
 
বাপদাদার স্মৃতি ঘেরা বুন্দাশীল গ্রাম
যাওয়া হয়নি কস্মিনকালে অপূর্ণ তাই প্রাণ।
 
ওই দেখা যায়  তোমার উঠান
সুবাস পাঠায় তোমার বাগান
কণ্ঠে শুনি  ভাটিয়ালি গান সদাই আসে ভেসে
তবুও আমরা ভিনদেশী আজ রাজার দন্ডাদেশে।
 
হোক বিভাজন মিলবো মোরা শুধুই ভালোবেসে
কালের সাক্ষী রেখে।

বিস্তারিত খবর

ক্যানসারের ওষুধ আবিষ্কার!

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৮-৩১ ০৪:১০:৩১

অবশেষে কি আবিষ্কার হয়ে গেল ক্যানসারের ওষুধ? এমনটাই দাবি করেছেন গ্লাসগো বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

ক্যানসার আক্রান্ত দেহকোষকে খতম করে ফেলার প্রযুক্তি এখন তাদের হাতের মুঠোয় বলেই জানিয়েছেন ওই গবেষকরা। বর্তমানে যে পদ্ধতিতে রোগীর দেহের ক্যানসার আক্রান্ত কোষকে মেরে ফেলা হয়, সেটা সবসময় কার্যকরী হয় না।

সিআইসিডি নামে এই নতুন পদ্ধতিতে একশো শতাংশ সাফল্য মিলবে মনে করছেন তাঁরা। তবে বিষয়টি নিয়ে আরও কিছু পরীক্ষা নিরীক্ষা করবেন তারা।

বর্তমানে ক্যানসারের সঙ্গে লড়াই করতে কেমোথেরাপি, রেডিয়েশন এবং ইমিউনোথেরাপি–র মতো পদ্ধতি অবলম্বন করেন চিকিৎসকরা। এতে অ্যাপোপটোসিস পদ্ধতিতে কোষের মধ্যে কৃত্রিম উপায়ে প্রোটিন তৈরি করে আক্রান্ত কোষ মেরে ফেলা হয়। তবে অনেক সময়েই ক্যানসার আক্রান্ত কোষ ভোল পাল্টে ফেলে প্রোটিনের আক্রমণের হাত থেকে রেহাই পেয়ে যায়। নতুন পদ্ধতিতে কোনও আক্রান্ত কোষই রেহাই পাবে না। শুধু তাই নয়, কোষের অবাঞ্ছিত বিষাক্ত পদার্থের হাত থেকেও রেহাই মিলবে।

গবেষকদলের প্রধান স্টিফেন টেট বলেছেন, ‘একশো শতাংশ সাফল্যের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি আমরা। আর কয়েকদিন এই গবেষণা চালাতে হবে। তারপরেই সাধারণ রোগীদের এই পদ্ধতিতে চিকিৎসা করা সম্ভব হবে।’

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

আজ পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ, দেখা যাবে যুক্তরাষ্ট্র-ব্রাজিলে

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৮-২১ ০৫:২১:৩৯

আজ সোমবার পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ। প্রায় এক শতাব্দী পর এই পূর্ণ বলয় গ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখা যাবে যুক্তরাষ্ট্রের কেনটাকি,মিডওয়ে হ্যাটল দ্বীপ, হাওয়াই দ্বীপপুঞ্জ ও ব্রাজিল থেকে। তবে বাংলাদেশ থেকে এ বিরল দৃশ্য দেখা যাবে না। কারণ বাংলাদেশে যখন রাত তখন এই সূর্যগ্রহণ হবে।
 
যুক্তরাষ্ট্রের হাওয়াইয়ে স্থানীয় সময় ভোর ৫টা ৩৪ মিনিটে গ্রহণ শুরু হবে (বাংলাদেশ সময় রাত ৯টা ৪৭ মিনিট)। বাংলাদেশে গ্রহণ শেষ হবে রাত ৩টা ৪ মিনিটে। 

এদিকে পূর্ণগ্রাস সূর্যগ্রহণ দেখতে অপেক্ষা করছেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কোটি কোটি মানুষ। কারণ ১৯১৮ সালের পর এই প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের পূর্ব উপকূল থেকে পশ্চিম উপকূল পর্যন্ত বিস্তৃত হবে পূর্ণ সূর্য গ্রহণ। এ কারণে যুক্তরাষ্ট্রের ১৪টি রাজ্যের অধিবাসীদের মধ্যে শুরু হয়েছে সাজ সাজ রব। শুরু হয়েছে “এক্লিপস পার্টি”-র প্রস্তুতিও। এ ছাড়াও পশ্চিম ইউরোপ, আফ্রিকার কয়েকটি এলাকা এবং এশিয়ার উত্তর-পূর্বাঞ্চল থেকেও আংশিক সূর্য গ্রহণের দেখা মিলবে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, ওই সময় অন্ধকার আকাশ পশু-পাখিদের বিভ্রান্ত করতে পারে। নিশাচর প্রাণীরা, বিশেষত পেঁচা দিনের বেলায়ই রাত ভেবে জেগে যেতে পারে, ভেড়ার পাল খুঁজতে পারে ঘুমানোর জন্য জায়গা। দিনের পাখিরা কলরব বন্ধ করে দিবে। পূর্ণগ্রাস সূর্য গ্রহণ রাতে চলা পতঙ্গ ও প্রজাপতিদের চলাফেরাতেও বিঘ্ন সৃষ্টি করতে পারে। পোষা বিড়াল ও কুকুরও বিরক্ত বোধ করতে পারে। 

জানা গেছে, আগ্রহীরা এ পূর্ণ সূর্য গ্রহণটি দেখতে পাবেন নাসা টেলিভিশন এবং নাসার ওয়েবসাইটে লাইভ ভিডিও স্ট্রিমের মাধ্যমে।

নাসার ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, ১১টি বিমান থেকে ধারণ করা হবে সূর্য গ্রহণের দৃশ্য। এ ছাড়াও, আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে থাকা নভোচারীরা পাঠাবেন গ্রহণকালে গ্রকৃতির রহস্যময় রূপের ছবি।


এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

আজ বাইশে শ্রাবণ, কবিগুরুর প্রয়াণ দিবস

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৮-০৬ ০২:০৩:০৭

বাইশে শ্রাবণ আজ। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৭৬তম প্রয়াণ দিবস। ৭৫ বছর আগে ইংরেজি ১৯৪১ সালের ৬ আগস্ট (বাংলা ১৩৪৮ সন) এই দিনে কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়ির শ্যামল প্রাঙ্গণে বাংলা সাহিত্য ও কাব্যগীতির শ্রেষ্ঠ রূপকার কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর পরলোকগমন করেছিলেন।

যদিও রবীন্দ্রনাথ জন্ম-মৃত্যুর মাঝে তফাত দেখেছেন খুব সামান্যই। সৃষ্টিই যে এই নশ্বর জীবনকে অবিনশ্বরতা দেয়, সে কথা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করতেন বলেই তিনি বলেছিলেন, ‘মৃত্যু দিয়ে যে প্রাণের মূল্য দিতে হয়/সে প্রাণ অমৃতলোকে/ মৃত্যুকে করে জয়।’

বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ যখন ইহধাম ত্যাগ করেন সেদিন শোকার্ত বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম শ্রদ্ধা নিবেদন করে লিখেছিলেন, ‘দুপুরের রবি পড়িয়াছে ঢলে অস্তপারে কোলে/ বাংলার কবি শ্যাম বাংলার হৃদয়ের ছবি তুমি চলে যাবে বলে/ শ্রাবণের মেঘ ছুটে এলো দলে দলে।’

বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অনেক কিছুরই প্রথম স্রষ্টা তিনি।

তার পরিণত হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পরিণত হয়েছে বাংলার শিল্প-সাহিত্য। তার হাত ধরেই বাংলা সাহিত্য লাভ করেছে নতুন রূপ। বাংলা গদ্যের আধুনিকায়নের পথিকৃৎ রবিঠাকুর ছোটগল্পেরও জনক। গল্পে, উপন্যাসে, কবিতায়, প্রবন্ধে, নতুন নতুন সুরে ও বিচিত্র গানের বাণীতে, অসাধারণ সব দার্শনিক চিন্তাসমৃদ্ধ প্রবন্ধে, সমাজ ও রাষ্ট্রনীতিসংলগ্ন গভীর জীবনবাদী চিন্তাজাগানিয়া নিবন্ধে, এমনকি চিত্রকলায়ও রবীন্দ্রনাথ চিরনবীন-চির অমর।

রবীন্দ্রনাথ একজন দার্শনিকও বটে। তার ধর্মীয় ও দার্শনিক চিন্তা-চেতনা শুধু নিজের শান্তি বা নিজের আত্মার মুক্তির জন্য ধর্ম নয়। মানুষের কল্যাণের জন্য যে সাধনা তাই ছিল তার ধর্ম। তার দর্শন ছিল মানুষের মুক্তির দর্শন। মানবতাবাদী এই কবি বিশ্বাস করতেন, বিশ্বমানবতায়।

জীবনের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত সেই দর্শন অন্বেষণ করেছেন। তার কবিতা, গান, সাহিত্যের অন্যান্য শাখার লেখনী মানুষকে আজও সেই অন্বেষণের পথে, উপলব্ধির পথে আকর্ষণ করে। রবীন্দ্রনাথ আজও আমাদের মনমানসিকতা গঠনের, চেতনার উন্মেষের প্রধান অবলম্বন। আমাদের জীবনের এমন কোনো বিষয় নেই, যেখানে আমরা রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে পাই না। তার রচনাবলী আমাদের প্রেরণার শিখা হয়ে পথ দেখায়। বাংলা সাহিত্যকে তিনি বিশ্বের দরবারে বিশেষ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেছেন।

‘গীতাঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থের মাধ্যমে তিনি প্রথম এশীয় হিসেবে ১৯১৩ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন। তিনিই একমাত্র কবি, যিনি তিনটি দেশের জাতীয় সঙ্গীতের রচয়িতা (বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলঙ্কা)।

জীবনের শেষ পর্যায়ে চিত্রকর হিসেবেও খ্যাতি অর্জন করেন তিনি। তিনি একাধারে কবি, নাট্যকার, কথাশিল্পী, চিত্রশিল্পী, গীতিকার, সুরকার, সঙ্গীত পরিচালক, ছোট গল্পকার ও ভাষাবিদ। বাংলা ভাষার সর্বশ্রেষ্ঠ সাহিত্যিক রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ৫২টি কাব্যগ্রন্থ, ৩৮টি নাটক, ১৩টি উপন্যাস ও ৩৬টি প্রবন্ধ ও অন্যান্য গদ্য সঙ্কলন প্রকাশিত হয়েছে। তার ১৯১৫টি গান অন্তর্ভুক্ত হয়েছে গীতবিতানে। রবীন্দ্রনাথের যাবতীয় প্রকাশিত ও গ্রন্থাকারে অপ্রকাশিত রচনা ৩২ খণ্ডে প্রকাশিত হয়েছে রবীন্দ্র রচনাবলী নামে। বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া এক বাণীতে বলেছেন, বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মৃত্যুবার্ষিকীতে আমি তার আত্মার প্রতি জানাই আন্তরিক শ্রদ্ধা। কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বাংলা সাহিত্যের অবিসংবাদিত প্রতিভা।

রবীন্দ্রনাথ বাংলা ভাষা ও সাহিত্যকে নিজ প্রতিভার আলোয় বিশ্বমানে উন্নীত করেছিলেন। তার সৃষ্টিকর্ম শুধুমাত্র বাংলা ভাষাভাষী অঞ্চলেই নয়, সারাবিশ্বে গভীর প্রভাব বিস্তার করেছে। তার সাহিত্যভুবনে দেশমাতৃকা ও মানুষের জীবনই প্রধান উপজীব্য। তার রচিত গান আমাদের জাতীয় সংগীতের মর্যাদা পাওয়ায় আমরা গর্বিত। জনসমাজে সংঘাত, হানাহানি, হিংসা-বিদ্বেষের কারণে যে গ্লানী ও তিক্ততা বিদ্যমান সেখান থেকে পরিত্রাণের জন্য তার অমূল্য সৃষ্টিকর্ম আজও নিঃসহায় মানুষকে এগিয়ে যেতে প্রেরণা জোগায়।

এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

হঠাৎ বিদেশে পাসপোর্ট হারালে যা করবেন

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৬ ১০:২০:৫৫

চাকরি, ব্যবসা, ভ্রমণ বা শিক্ষার্থী হিসেবে বিভিন্ন দেশে প্রতিনিয়তই আমাদের যেতে হয়। বিদেশে যাওয়ার পর আমার পরিচয় বহনের একমাত্র প্রমাণ হলো পাসপোর্ট। কিন্তু কোনো কারণে পাসপোর্ট যদি হারিয়ে যায় তাহলে বিদেশের মাটিতে নানা ঝামেলায় পড়তে হয়। অনেক সময় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে সঠিক প্রমাণাদির অভাবে কারাগারেও যেতে হতে পারে আপনাকে। তাই বিদেশের মাটিতে পাসপোর্ট হারালে কী করবেন? চলুন সে বিষয়ে জেনে নিই।

❏ চাকরির সময়: মধ্যপ্রাচ্যসহ বিভিন্ন দেশে যারা চাকরি নিয়ে যান তাঁদের অনেককে মালিকের কাছে পাসপোর্ট জমা দিতে হয়। মালিকপক্ষ থেকে তাদের সরকারি বিভিন্ন অনুমোদ করিয়ে দেয়া হয়। তবে নিজের প্রয়োজনে পাসপোর্টের ফটোকপি সঙ্গে রাখতে হবে। কিন্তু কেউ যদি ব্যবসা, ফ্রি ভিসায় চাকরি করতে যান তাঁদের উচিত পাসপোর্ট সব সময় সঙ্গে রাখা।তারপরও দুর্ঘটনাবশত পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে সে ক্ষেত্রে আপনাকে বাংলাদেশের দূতাবাসে যোগাযোগ করতে হবে। পাসপোর্টের ফটোকপি ও রোডপাস বা রাস্তায় চলাচলের প্রত্যয়নপত্র (যদি সঙ্গে থাকে) নিয়ে যোগাযোগ করলে দূতাবাসের পক্ষ থেকে আপনাকে নতুন পাসপোর্ট তৈরিতে সহায়তা করা হবে।

❏ ভ্রমণের সময় পাসপোর্ট খোয়ালে: আপনার বিদেশ ভ্রমণের পুরো আনন্দটাই মাটি হতে পারে যদি আপনি পাসপোর্ট হারিয়ে ফেলেন। কোনো কারণে যদি তা হারিয়েই ফেলেন তাহলে সবার আগে আপনাকে যোগাযোগ করতে হবে বাংলাদেশ হাই কমিশনে। কোনো ট্যুর অপারেটর বা ট্র্যাভেল এজেন্সি যদি আপনার ভ্রমণে সহায়তা করে থাকে তবে তারাই আপনাকে বাংলাদেশ হাই কমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করতে সহায়তা করবে। এর পর আপনাকে সহায়তা করবে বাংলাদেশ হাই কমিশন। বাংলাদেশের পাসপোর্ট অফিস ও ইমিগ্রেশন আপনার সব তথ্য পর্যবেক্ষণ করে বাংলাদেশ হাই কমিশনকে একটি পত্র বা দরখাস্ত পাঠাবে। এ পত্র বা দরখাস্তই আপনাকে সুন্দরভাবে দেশে ফিরে আসতে সহায়তা করবে।

❏ পাসপোর্ট নবায়ন: বিদেশে অবস্থান করার সময় নিজের পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়ে যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে দুশ্চিন্তার কিছু নেই। এ ব্যাপারে সহযোগিতা করবে সে দেশের বাংলাদেশ দূতাবাস। দূতাবাসের কনস্যুলার শাখা থেকে বাংলাদেশীরা তাদের পাসপোর্ট নবায়ন করতে পারবেন। তবে মেয়াদ শেষ হওয়ার ছয় মাসের আগেই নবায়ন করা ভালো।

❏ পাসপোর্ট নিয়ে জালিয়াতি: বিদেশে নিজের বৈধতার সনদ হচ্ছে পাসপোর্ট। এই পাসপোর্টের ভিত্তিতেই নির্ধারণ করা হবে আপনি বৈধ, না অবৈধ। তাই পাসপোর্ট যত্ন করে রেখে দেবেন। কোনোভাবেই হাতছাড়া করবেন না। বিদেশে বৈধ পাসপোর্ট অনেকে অবৈধভাবে বেচাকেনা করে। টাকার বিনিময়ে একজনের বৈধ পাসপোর্ট অবৈধ ব্যক্তির কাছে বিক্রি করে দেয়। তাই পাসপোর্ট হারিয়ে গেলে দ্রুত পদক্ষেপ নিন। অনেক ক্ষেত্রে নিয়োগদাতা প্রতিষ্ঠান কর্মীদের পাসপোর্ট রেখে এর বিনিময়ে একটি ‘পাস’ বা কার্ড দেয়। কর্মীরা যাতে পালিয়ে গিয়ে অন্য কোথাও কাজ করতে না পারে, তার জন্য এমনটি করা হয়। বাস্তবতা যাই হোক না কেন বিদেশে গেলে পাসপোর্টের প্রতি আপনাকে বাড়তি সতর্ক হতেই হবে।

বিস্তারিত খবর

বিশ্বের সব চেয়ে লম্বা পায়ের নারী

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-১৩ ১৪:৫১:২৬

বয়স এখনও ৩০ বছর হয়নি। কিন্তু এখনও যেন দৈর্ঘ্যে বেড়েই চলেছেন ইয়াকাতেরিনা লিসিনা!
 
ইয়াকাতেরিনা লিসিনা— ২০০৮ সালের বেজিং অলিম্পিক্সে, এই রুশ সুন্দরী সে দেশের মহিলা বাস্কেটবল টিমের হয়ে খেলে ব্রোঞ্জ জেতেন। ২০১৪ সালে খেলাধুলোর দুনিয়া থেকে সরে আসেন লিসিনা। বর্তমানে তিনি মডেলিং দুনিয়ায় বেশ পরিচিত নাম।
 
লিসিনার বৈশিষ্ট্য তার উচ্চতায়। লম্বায় তিনি ৬ ফুট ৯ ইঞ্চি। এক আন্তর্জাতিক সংবাদ মাধ্যমের খবর অনুযায়ী, বর্তমানে ইয়াকাতেরিনা লিসিনাই সম্ভবত বিশ্বের সব থেকে লম্বা মহিলা। যদিও এখনও তা নিশ্চিত করা হয়নি গিনেস বুক অফ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডের তরফ থেকে।
 
তবে, লিসিনার আশা, তার নাম রেকর্ড গড়ুক ‘লম্বা পা’য়ের জন্য। বর্তমানে সেই রেকর্ড রয়েছে অ্যামাজন ইভ-এর নামে। লম্বায় তিনি ৬ ফুট ৮ ইঞ্চি, এবং তাঁর পায়ের দৈর্ঘ্য ৫২ ইঞ্চি। অন্যদিকে, মডেল লিসিনার পায়ের দৈর্ঘ্য ৫২.৪ ইঞ্চি।
 
মহিলা হিসেবে, রাশিয়ার সব থেকে বড় মাপের পা হল ইয়াকাতেরিনা লিসিনার। তিনি ১৩ নম্বর জুতো ব্যবহার করেন।
 
প্রসঙ্গত, ইয়াকাতেরিনা লিসিনার মা-বাবা ও ভাই, তিন জনেরেই উচ্চতা প্রায় সাড়ে ছ’ফুট। সংবাদ মাধ্যমকে তার বাবা জানান, জন্মের পরে ছোট্ট লিসিনাকে প্রথমবার দেখার সময়ই তার মনে হয়েছিল যে মেয়ের পা দু’টি খুবই লম্বা।


এলএবাংলাটাইমস/টি/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

হিটলারের আঁকা ৫ ছবি নিলামে উঠছে

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-০২ ১১:৫৯:৩৩

শিগগিরই নিলামে উঠছে এডলফ হিটলারের আঁকা পাঁচটি ছবি।

কোটি মানুষ হত্যার জন্য ইতিহাসে যিনি দায়ী, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সেই খলনায়ক হিটলারও ছিলেন চিত্রকর! এক হাতে খুন, অন্যহাতে শিল্প! আশ্চর্য চরিত্র।

যুক্তরাজ্যের নিলামকারী প্রতিষ্ঠান ‘মুলকস’- এর দেওয়া তথ্যানুসারে, পাঁচটি ছবির মধ্যে চারটিতে হিটলারের স্বাক্ষর রয়েছে- ‘এ হিটলার’। এর মধ্যে দুটি ছবিতে ১৯০০ শতকের প্রথম দশকের তারিখ রয়েছে। আরেকটি ছবিতে তার স্বাক্ষর না থাকলেও ফ্রেম ও শিল্পমান থেকে ধরে নেওয়া হচ্ছে, সেটিও তার হাতের ছবি।

প্রতিটি ছবির দাম উঠতে পারে ৫ হাজার থেকে ৭ হাজার পাউন্ড। গ্রাম্য রাস্তার দৃশ্য, নিজ দেশ অস্ট্রিয়ার একটি শহরের প্রবেশপথের দৃশ্যসহ ফুল, ফল ও ঘড়ির ছবি এঁকেছেন হিটলার।

হিটলারের অস্বাক্ষরিত তৈলচিত্রে তার সৎভাইঝি গেলি রবেলের সমাধি আঁকা হয়েছে। বলা হয়ে থাকে, রবেলের সঙ্গে রোমান্টিক সম্পর্ক ছিল হিটলারের। ১৯৩১ সালে নিজ পিস্তলের গুলিতে আত্মহনন করেন রবেল।

নিলামকারী প্রতিষ্ঠান মুলকসের পরামর্শক বেন জোনস বলেছেন, ‘এর আগে আমরা হিটলারের আঁকা একেকটি ছবি ৫ হাজার থেকে ১২ হাজার পাউন্ডে বিক্রি করেছি।’

হিটলার ২ হাজার থেকে ৩ হাজার ছবি এঁকেছেন বলে জানা গেছে। অধিকাংশ চিত্রকর্ম তেলরং, জলরংয়ের।

বিস্তারিত খবর

আলিঙ্গনে সাড়া দিলেন না ইভাঙ্কা ট্রাম্প : আলোচনা-সমালোচনা

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-২২ ০২:০৪:০৩

এবার মার্কিন সিনেটরের আলিঙ্গনে সাড়া না দিয়ে আলোচনায় এসেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের মেয়ে ইভাঙ্কা ট্রাম্প। এর আগে ট্রাম্পের হাত ফিরিয়ে দিয়ে আলোচনায় এসেছিলেন মার্কিন ফার্স্ট লেডি মেলানিয়া ট্রাম্প। খোদ ট্রাম্পও আচরণ নিয়ে অতীতে বেশ কয়েকবার সমালোচনার মুখে পড়েছিলেন।

মঙ্গলবার রিপাবলিকান সিনেটর মার্কো রুবিও ব্যবসায়িক এক আলোচনায় ইভাঙ্কার সঙ্গে আলিঙ্গনের চেষ্টা করলে কোনো রকম প্রতিক্রিয়া দেখাননি ট্রাম্প কন্যা। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে আলোচনার ঝড় বইছে।

মার্কো অ্যান্টনি রুবিও মার্কিন রাজনীতিবিদ এবং অ্যাটর্নি জেনারেল। ফ্লোরিডা অঙ্গরাজ্য থেকে তিনি রিপাবলিকান সিনেটর নির্বাচিত হয়েছেন। এর আগে ফ্লোরিডার স্পিকার ছিলেন তিনি।

টুইটারে একজন লিখেছেন, কিছুই না; ইভাঙ্কা ট্রাম্পের শরীরের ভাষা রুবিওকে আলিঙ্গনের জন্য আকৃষ্ট করেছিল। আরেকজন বলেন, বিখ্যাতদের ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ ঘটে অালিঙ্গনের মধ্য দিয়ে। কিন্তু ইভাঙ্কা সেটা দেখালেন না।

এ ব্যাপারে মার্কো রুবিও বেশ কয়েকটি টুইট করে লজ্জা আড়ালের চেষ্টা করেন। সেখানে তিনি দাবি করেছেন, ইভাঙ্কা ট্রাম্প তাকে নিরাশ করেননি। এ ব্যাপারে কৌতুক করে তিনি লেখেন, ‘আলিঙ্গনে সাড়া না দেয়ার ব্যাপারে তদন্ত চলছে।’

তবে এক টুইটার ব্যবহারকারী আলিঙ্গনের ভিন্ন উপায় দেখিয়েছেন। তার পোস্ট করা ছবিতে একজনকে পেছন থেকে আলিঙ্গন করতে দেখা যাচ্ছে।

আরেকজন লেখেন, মেলানিয়া কাণ্ড, কভফেফে কিংবা আলিঙ্গনের বিষয় বাদ দিয়ে হেলথকেয়ার বিল সম্পর্কে বিস্তারিত কিছু জানাবেন কি? অভদ্রতার একটা সীমা আছে। বহুত হয়েছে। খারাপ কিছু এবং কৌতুক বন্ধ করার সময় হয়েছে বলে আরেকজন মন্তব্য করেছেন।

এতো আলোচনা সমালোচনার পর মুখ খোলেন ইভাঙ্কা। তিনি টুইট করেন, ‘বেনামি সূত্র বলছে, মার্কো রুবিও আলিঙ্গনে ব্যর্থ হয়েছেন। আমার কিছু বলার নেই (কিন্তু আমি তার সঙ্গে অন্যভাবে আলিঙ্গন করেছি!)।’

তিনি আরেক টুইট বার্তায় লেখেন, ‘পুরোটাই ভুয়া খবর। সেখানে তাদের দুজনের মধ্যে অালিঙ্গন হয়েছে। সেই আলিঙ্গন অনেক বেশি সন্তোষজনক ছিল। মার্কো দারুণভাবে আলিঙ্গন করতে পারেন বলেও মন্তব্য করেন তিনি।’


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত