যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 10:47am

|   লন্ডন - 05:47am

|   নিউইয়র্ক - 12:47am

  সর্বশেষ :

  পুড়ে যাওয়া বস্তি যেন দর্শনীয় স্থান!   ডেঙ্গু: চব্বিশ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১৭০৬   আসামের এনআরসি ও কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল: নেপথ্যে মোদির মুসলিমবিদ্বেষ   কাশ্মীর ইস্যুতে আরব দেশগুলোর নীরবতার নেপথ্য কারণ কী?   কাবুলে বিয়ের অনুষ্ঠানে হামলা, নিহত ৬৩   মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর সোহেল’র ইন্তেকাল   ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার এখন ফ্যাসিস্ট মোদির হাতে : ইমরান খানের হুঁশিয়ারি   রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের সাথে গুলি বিনিময়ে এক সেনাসদস্য নিহত   বঙ্গবন্ধু ছাড়া বাংলাদেশ কল্পনা করা যায় না: মুক্তিযোদ্বা ডা: সিরাজুল ইসলাম   ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২২৪   কাশ্মীরে বিধি-নিষেধ দ্রুত তুলে দেওয়ার আহ্বান ওআইসির   অরল্যানডোতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা   আ.ন.ম শফিকুল হকের মৃত্যুতে আনোয়ার শাহদাতের শোক   মনের সুখই আসল সুখ   পাইলট যেভাবে বিমানটিকে ভুট্টা ক্ষেতে নামালেন

মূল পাতা   >>   ইউরোপের খবর

আগের রঙে ফিরছে ব্রিটিশ পাসপোর্ট

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-২৩ ১১:০৯:৪৩

নিউজ ডেস্ক: ২০১৯ সালের ২৯ মার্চ রাত ১১টায় আনুষ্ঠানিকভাবে ইউরোপীয় ইউনিয়ন ত্যাগ করবে যুক্তরাজ্য। এরপর ধারাবাহিকভাবে নানা বিষয়ে ইউরোপের প্রভাব বলয় থেকে বেরিয়ে আসবে দেশটি। ফিরে আসবে আগের নীল ও সোনালী রঙয়ের মিশেলে ডিজাইন করা পাসপোর্টে। যুক্তরাজ্যের অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে স্কাই নিউজ।

ইউরোপীয় ইউনিয়নে যোগদানের পর যুক্তরাজ্য তার পাসপোর্ট পরিবর্তন করেছিল। কিন্তু এখন দেশটি আঞ্চলিক ওই সংস্থা থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পর তাদের পাসপোর্টে আর ইউরোপীয় স্ট্যান্ডার্ডের কার্যকারিতা থাকছে না। ফলে তখন নিজেদের মতো করে পাসপোর্টের রং বা ডিজাইন বাছাইয়ের ক্ষমতা থাকবে দেশটির। ফলে নতুন পাসপোর্টে প্রতীকীভাবে যুক্তরাজ্যের স্বাতন্ত্র্য বজায় রাখার দিকে নজর দেওয়া হবে।

যুক্তরাজ্যের প্রথম পাসপোর্টটি ছিল আকাশী রঙয়ের। ব্রেক্সিট কার্যকরের পর নতুন পাসপোর্টেও এর ছাপ থাকবে।

কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, নতুন ব্রিটিশ পাসপোর্টগুলো হবে খুবই উন্নত মানের। এতে জালিয়াতি এড়ানোর মতো ফিচার যুক্ত করা হবে।

যুক্তরাজ্যের অভিবাসন বিষয়ক মন্ত্রী ব্র্যান্ডন লুইস বলেছেন, আমাদের জাতীয় স্বাতন্ত্র্য তুলে ধরার জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে আসা একটি সুবর্ণ সুযোগ। এটি বিশ্বে আমাদের একটি নতুন পরিচিতি দেবে।

উল্লেখ্য, ২০১৬ সালের গণভোটে ২৮ জাতির ইউরোপীয় ইউনিয়ন ছাড়ার পক্ষে রায় দেন ব্রিটিশ নাগরিকরা। এক্ষেত্রে অভিবাসন ইস্যুকে প্রচারণার বড় হাতিয়ার করে ব্রেক্সিটপন্থীরা।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১১৪৭ বার

আপনার মন্তব্য