যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ২১ এপ্রিল, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 11:07am

|   লন্ডন - 06:07am

|   নিউইয়র্ক - 01:07am

  সর্বশেষ :

  এবার ফেরদৌস সম্পর্কে কথা বললেন মোদি!   নুসরাত হত্যা: খাল থেকে বোরকা উদ্ধার   সাপের ভয়ে অফিসে যেতে পারছেন না লাইবেরিয়ার প্রেসিডেন্ট   খালেদা জিয়ার মুক্তির সাথে শপথের সম্পর্ক কী : আমীর খসরু   মোকাব্বিরকে শোকজ করলো গণফোরাম   বাংলাদেশিসহ ৫৯ জন অভিবাসী গ্রিসে আটক   ভারতের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ   আয়ারল্যান্ডে নারী সাংবাদিককে গুলি করে হত্যা   ফ্লোরিডায় আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ   জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে ঐতিহাসিক মুজিবনগর দিবস উদযাপন   আমেরিকারপ্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রাশিয়ার হস্তক্ষেপের প্রমাণ মিলেছে   খালেদা জিয়ার মুক্তি ছাড়া শপথ নেয়ার প্রশ্নই আসে না: মওদুদ   তারেক-জোবাইদার ব্রিটেনের ৩ ব্যাংক হিসাব জব্দের নির্দেশ দিল ঢাকার আদালত   ভারতের নির্বাচনে বাংলাদেশে যে প্রভাব পড়তে পারে   নুসরাত হত্যা : আ.লীগ নেতা রুহুল আমিন আটক

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

যৌন কেলেঙ্কারির দায়ে পদত্যাগ করলেন ভারতীয় মন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-১০-১৭ ১০:৫২:৫৮

নিউজ ডেস্ক: যৌন কেলেঙ্কারির অভিযোগ নিয়ে পদত্যাগ করেছেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবর। প্রবল চাপের মুখে থাকা সাবেক এই সাংবাদিক আদালতের কাছে ন্যায়বিচার কামনা করে বুধবার তার পদত্যাগপত্র দাখিল করেন। তিনি পাল্টা অভিযোগ করেন যে লোকসভা নির্বাচনের আগে ষড়যন্ত্র করে তাকে ফাঁসানো হচ্ছে।।

অন্তত ২০ নারী এম জে আকবরের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ এনেছিলেন। তারা অভিযোগ করেছিলেন, এম জে আকবর যখন সাংবাদিক ছিলেন, তখন তারা নিগৃহের শিকার হয়েছিলেন। যে নারী সাংবাদিক তার বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগ এনেছিলেন, তিনি তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা দায়ের করেছেন।

আকবরের পদত্যাগ দাবি করে প্রধানমন্ত্রী, রাষ্ট্রপতিকে চিঠি লিখলেন নারী সাংবাদিকেরা

এর আগে বুধবার এম জে আকবরের পদত্যাগ চেয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দকে চিঠি লিখেছে নারী সাংবাদিককের এক সংগঠন। ফাউন্ডেশন অফ মিডিয়া অ্যান্ড ব্রিহান মুম্বই ইউনিয়ন অফ জার্নালিস্ট নামে ওই সংগঠন প্রিয়া রামানির বিরুদ্ধে বিদেশ প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের দায়ের করা মানহানি মামলা প্রত্যাহারের দাবিও জানিয়েছে।

ওই চিঠিতে তারা লিখেছেন, ‘‘ ক্ষমতাশালীরা মানহানির মামলা করে কণ্ঠরোধের চেষ্টা করে থাকেন। এটা আসলে মহিলাদের চুপ করিয়ে দেয়ার প্রয়াস মাত্র।’’

এ দিন আরো ২০ জন নারী সাংবাদিককে পাশে পেয়েছেন প্রিয়া রামানি। তারা সকলেই প্রিয়া রামানির সহকর্মী ছিলেন। তারা সবাই ‘দ্য এশিয়ান এজ’-র কাজ করেছেন। এম জে আকবরের বিরুদ্ধে যৌথ বিবৃতি দিয়েছেন এই ২০ জন নারী সাংবাদিক। সেই যৌথ বিবৃতি শোনার জন্য বিচারককে অনুরোধ জানিয়েছেন তারা।

তারা জানান, শুধু প্রিয়া রামানিই নন, ওই সময় তাদের ২০ জনের মধ্যেও অনেকে এম জে আকবরের যৌন নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। আর অন্যেরা তার সাক্ষী।

যৌথ বিবৃতিতে তারা জানান, ‘‘এই যুদ্ধে রামানি একা নন। বিচারপতির কাছে আমাদের অনুরোধ আমাদের বক্তব্যও শুনুন। আমাদের অনেকেও যৌন হেনস্তার শিকার হয়েছি। আর অনেকে এর সাক্ষী।’’

এই ২০ জন নারীর প্রত্যেকেই এক সময়ে এশিয়ান এজে কাজ করেছেন। বর্তমানে তাদের কেউ মুম্বই মিরর, ডেকান ক্রনিক্যাল বা অন্য কোনো সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে যুক্ত।

#মিটু আন্দোলনে এম জে আকবরের বিরুদ্ধে মুখ খোলার পরই আকবর তা অস্বীকার করেন। গত সোমবার প্রিয়া রামানির বিরুদ্ধে মানহানির ফৌজদারি মামলা দায়ের করেছেন ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবর। দিল্লির পাতিয়ালা কোর্টে ভারতীয় দণ্ডবিধির ৪৯৯ (মানহানি) ধারা এবং ৫০০ (মানহানির শাস্তি) ধারায় এই মামলা করা হয়েছে। ৯৭ জন আইনজীবীর একটি দলকে মাঠে নামিয়েছেন আকবর। তার মধ্যে আবার ৩০ জন নারী। প্রিয়া রামানিও লড়াইয়ের জন্য প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন।

প্রিয়া রামানি থেকে শুরু করে এখন পর্যন্ত আকবরের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছেন ১২ জন নারী।

‘আমাকে ঘরে ডেকে জাপটে ধরে চুমু খান আকবর’, অভিযোগ আরো এক সাংবাদিকের

কাজের অছিলায় ঘরে ডেকে তাকে জাপটে ধরে চুমু খেয়েছিলেন এম জে আকবর। পর পর দু’দিন।

ভারতের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী এম জে আকবরের বিরুদ্ধে এ বার যৌন হেনস্থার এই অভিযোগ করলেন সাংবাদিক তুষিতা পটেল। প্রিয়া রামানি থেকে শুরু করে গত ১৫ দিনে এই নিয়ে আকবরের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ জানালেন ১২ জন মহিলা।

একটি খোলা চিঠিতে তুষিতা আকবরের যৌন হেনস্থার তিনটি ঘটনার উল্লেখ করেছেন। তুষিতা বেশ কিছু দিন আকবরের সঙ্গে কাজ করেছিলেন দৈনিক ‘ডেকান ক্রনিকল’-এ।

চিঠিতে তুষিতা জানিয়েছেন, সেটা ’৯২ সালের কথা। তখন তার বয়স ২২। আকবর তাকে কলকাতার একটি হোটেলে দেখা করতে বলেছিলেন। সেই ঘরে পৌঁছে দেখেন, একটি আন্ডারওয়্যার পরে বসে আছেন আকবর। এই দিন খুবই অপ্রস্তুত বোধ করেছিলেন তুষিতা। এক বছর পরে তুষিতা যোগ দেন ‘ডেকান ক্রনিকল’-এ। একবর সেখানকার এডিটর-ইন-চিফ ছিলেন। ওই সময় কাজের অছিলায় হোটেলের ঘরে ডেকে তাকে জাপটে ধরে চুমু খেয়েছিলেন আকবর। পরের দিন হোটেলের কনফারেন্স রুমে তুষিতাকে ডাকেন আকবর। তুষিতা এড়িয়ে যেতে চেয়েছিলেন। কিন্তু কাজের অছিলায় তাকে আবার ডাকেন আকবর। সেখানে তুষিতাকে একলা পেয়ে জাপটে ধরে আবার চুমু খান আকবর।

তুষিতা লিখেছেন, ‘‘সে দিন আমি ওই ঘটনার পর বাথরুমে গিয়ে চোখে-মুখে পানি দিয়েছিলাম। আর কেঁদেছিলাম।’’

তুষিতা বলেছেন, আকবর যদি এই অভিযোগের প্রেক্ষাপটে তার বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেন, তা হলে সেই মামলা তিনি লড়তে রাজি আছেন। তুষিতা এও জানিয়েছেন, শিগগিরই আরো অনেক নারী সাহসে ভর করে আকবরের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানাবেন।

এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৭২৭ বার

আপনার মন্তব্য