যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 02:49pm

|   লন্ডন - 08:49am

|   নিউইয়র্ক - 03:49am

  সর্বশেষ :

  ক্যালিফোর্নিয়ায় নিজের স্কুলে কিশোরের গুলি, নিহত ১   পেঁয়াজের মূল্য নিয়ে উত্তাল সংসদ   সিরাজগঞ্জে ট্রেনের ইঞ্জিনসহ ৮ বগি লাইনচ্যুত, দুটিতে আগুন   ভূ-কৌশলগত বিরোধ নয় সুষ্ঠু প্রতিযোগিতা চায় বাংলাদেশ : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   আবার বিয়ে করলেন হুমায়ূন আহমেদের প্রথম স্ত্রী গুলতেকিন   দুপুরে আটকের পর রাতে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা যুবক নিহত   পিয়াজের কেজি ২০০ টাকা   ৫০ লাখ টাকার স্পিড বোট ১০ কোটি টাকা!   মুক্তিযুদ্ধে বিতর্কিতদের বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ না জানানোর নির্দেশনা   নেত্রকোণা জেলা সমিতি ইউএসএ ইনক্’-এর কমিটি গঠন   বুয়েটে আবরার হত্যা: ২৫ জনকে আসামি করে চার্জশিট   ভারতে পেঁয়াজের দাম ৮ টাকা, কৃষকের কান্নার ভিডিও ভাইরাল   গাজায় ইসরায়েলি হামলায় নিহত ৯   ইতালিতে মসজিদে হামলার পরিকল্পনাকারী আটক, বিপুল পরিমাণ অস্ত্র উদ্ধার   ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুর্ঘটনা: অটো ব্রেকে ট্রেন রেখে ঘুমাচ্ছিলেন চালকরা

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

ধর্ম বা বিশ্বাসের কারণে সহিংসতার শিকার ব্যক্তিদের স্মরণে আন্তর্জাতিক দিবসের বিবৃতি

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৮-২৩ ১৪:১৬:০৬

নিউজ ডেস্ক: বিশ্ব সম্প্রদায় গতকাল ধর্মীয় মত প্রকাশের কারণে নিপীড়নের শিকার ব্যক্তিদের আনুষ্ঠানিকভাবে স্বীকৃতি দিয়েছে। জাতিসংঘ এদিন ২২ শে আগস্ট তারিখটিকে ধর্ম বা বিশ্বাসের কারণে সহিংসতার শিকার হওয়া ব্যক্তিদের স্মরণ করার আন্তর্জাতিক দিবস হিসেবে পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে মিলে একে স্বাগত জানিয়েছে। আমাদের বিশ্বাস বিভিন্ন ধারণা নিয়ে উন্মুক্ত, গঠনমূলক এবং পরস্পরের প্রতি শ্রদ্ধাশীল বিতর্কের পাশাপাশি স্থানীয়, জাতীয়, আঞ্চলিক এবং আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আন্তঃধর্মীয়, আন্তঃবিশ্বাস ও আন্তঃসাংস্কৃতিক সংলাপ ধর্মীয় বিদ্বেষ, উস্কানি এবং সহিংসতা মোকাবেলায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্র সর্বত্র ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষা এবং তা এগিয়ে নেওয়ায় সংকল্পবদ্ধ। ধর্মীয় স্বাধীনতা এগিয়ে নেওয়া বিষয়ক দ্বিতীয় মন্ত্রি পর্যায়ের বৈঠকে অংশ নেওয়ার জন্য আমরা বাংলাদেশ সরকারকে ধন্যবাদ জানাই। আমরা এ ফোরামটিকে বিশ্বব্যাপী এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের সংলাপ আরও এগিয়ে নেওয়ার এক অনুঘটক হিসেবেই দেখি।

১৬-১৮ জুলাই ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত ওই মন্ত্রিপর্যায়ের বৈঠকে নাগরিক সমাজের এক হাজারের বেশি সদস্য এবং বিদেশি সরকার ও বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার ১০৫ জন প্রতিনিধি অংশ নেন। এটি যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের আয়োজিত এ যাবতকালের বৃহত্তম মানবাধিকার বিষয়ক সম্মেলন।

ধর্মীয় স্বাধীনতার প্রতি চ্যালেঞ্জগুলো নিয়ে আলোচনা এবং ধর্মীয় নিপীড়ন ও বৈষম্য মোকাবেলায় সুনির্দিষ্ট কর্মপন্থা ঠিক করা ছিল এর লক্ষ্য।

মন্ত্রিপর্যায়ের বৈঠকে যুক্তরাষ্ট্রের ভাইস প্রেসিডেন্ট মাইক পেন্স বলেন, ‘আমরা সবসময়ই আপনার বিবেকের নির্দেশ অনুসারে জীবনধারণ, কাজকর্ম ও উপাসনা করার স্বাধীনতার পক্ষে থাকব। আর ধর্মীয় স্বাধীনতা সর্বদাই হবে যুক্তরাষ্ট্রের চেতনার অন্যতম মূল সুর।’

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৯২ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত