যুক্তরাষ্ট্রে আজ শনিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 04:40pm

|   লন্ডন - 10:40am

|   নিউইয়র্ক - 05:40am

  সর্বশেষ :

  দিল্লির নালা-নর্দমা থেকে বের হচ্ছে একের পর এক লাশ   ৫৯ দেশে করোনাভাইরাস, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ‘সর্বোচ্চ সতর্কতা’   র‌্যাবের গুলিতে পা হারানো সেই লিমন এখন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক   করোনাভাইরাস : ইরানে নিহত ২১০   নিউইয়র্ক পুলিশের লেফটেন্যান্ট হলেন বাংলাদেশি সুমন   ভারত ছাড়ার নোটিশ: বাংলাদেশি শিক্ষার্থীকে আইনি সহায়তার ঘোষণা   থমথমে দিল্লী, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৪২   ১০ হাজার বাংলাদেশির ওমরাহ অনিশ্চিত, ক্ষতি ৫০ কোটি টাকা   মোদিবিরোধী বিক্ষোভে উত্তাল ঢাকা   বিদ্যুতের বর্ধিত মূল্য প্রত্যাহার না করলে জনগণ রাজপথে নামবে: ফখরুল   যুদ্ধাপরাধী-সন্ত্রাসীদের সিটিজেনশিপ কেড়ে নিতে যুক্তরাষ্ট্রে নয়া অফিস   দক্ষিণ কোরিয়ায় একদিনে ৫৭১ জন করোনায় আক্রান্ত   পাপিয়ার সহযোগীদেরও ধরা হবে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী   নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদ, গ্রেপ্তারের মুখে ভারতীয় নায়িকা   চোখে অশ্রু নিয়ে দিল্লি ছাড়ছে আতঙ্কিত মুসলিমরা

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

ভাষা নিয়ে স্পেনে দ্বন্দ্ব

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০২০-০১-১৯ ১২:৫৭:১০

নিউজ ডেস্ক:
ভাষা নিয়ে প্রকাশ্যে সরকারের সঙ্গে দ্বন্দ্বে নেমেছে দ্য রয়েল স্প্যানিশ অ্যাকাডেমি। দেশটির সংবিধানে লিঙ্গনিরপেক্ষ শব্দ ব্যবহারের প্রস্তাব নিয়ে মূলত এই দ্বন্দ্ব।

প্রায় এক বছর আগে উপ-প্রধানমন্ত্রী কারমেন কালভোর অনুমোদিত দ্য রয়েল স্প্যানিশ অ্যাকাডেমির একটি কমিশন ১৯৭৮ সালের সংবিধানে স্প্যানিশ শব্দ সংশোধনের জন্য প্রতিবেদন দেয়। সংবিধানের পুরুষ লিঙ্গভিত্তিক বিশেষ্যকে সর্বব্যাপী শব্দে রূপান্তরের পরামর্শ দেওয়া হয় এতে। তবে ১২ মাস ধরে রাজনৈতিক অস্থিরতার জের ধরে পরপর দুবার জাতীয় নির্বাচনের কারণে বিষয়টি চাপা পড়ে যায়।

গত সপ্তাহে শপথ নেওয়া বামপন্থী পেদ্রো সানচেজের সরকার বিষয়টি আবার সামনে নিয়ে এসেছে।

সরকারের সঙ্গে অ্যাকাডেমির বাদানুবাদের বিষয় হচ্ছে, মন্ত্রিপরিষদ শব্দটি নিয়ে। সরকারের দুই মন্ত্রী ইয়োলান্দা দিয়াজ ও আইরিন মনতিরো মন্ত্রিপরিষদকে নারীবাচক হিসেবে ‘কনসিজো ডি মিনিস্টারস’ ব্যবহার করছেন। তারা পুরুষবাচক ‘কনসিজো ডি মিনিস্টরস’ শব্দটি ব্যবহার করতে চান না। অথচ ব্যাকরণগতভাবে এটি ভুল। কারণ ‘কনসিজো ডি মিনিস্টারস’ তখনই ব্যবহার করা যাবে যখন মন্ত্রিপরিষদের সব সদস্য নারী হবেন, যা এখনো পর্যন্ত হয়নি।

অ্যাকাডেমির সঙ্গে এ ব্যাপারে দ্বিমত পোষণ করেছেন কারমেন কালভো।

তিনি বলেছেন, ‘সময় এসেছে সংবিধানে এমন ভাষা ব্যবহারের যা উভয় লিঙ্গের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপক। এতে কেবল পুরুষভিত্তিক শব্দ রয়েছে যা আধুনিক গণতন্ত্রের জন্য যথাযথ নয়’।

উপ-প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করে অ্যাকাডেমি বলেছে, ‘এটা কৃত্তিমতা এবং ভাষাগত দিক থেকে সম্পূর্ণ অপ্রয়োজনীয়’।

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ২৭০ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত