যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ১৮ Jun, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 01:41pm

|   লন্ডন - 08:41am

|   নিউইয়র্ক - 03:41am

  সর্বশেষ :

  খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে সরকার সময়ক্ষেপন করছে : মির্জা ফখরুল   রেমিট্যান্সে ভ্যাট আরোপ হয়নি : এনবিআর   নিউজিল্যান্ডে সুন্দরী প্রতিযোগিতায় প্রথমবারের মতো হিজাবি তরুণী   নাম পরিবর্তন করল মেসিডোনিয়া   ২০২৬ বিশ্বকাপের আয়োজক যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো-কানাডা   ফ্লোরিডায় ৪ সন্তানকে হত্যার পর বাবার আত্মহত্যা   তিন সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে প্রজ্ঞাপন জারি   পাকিস্তানিদের গোলায় জম্মু ও কাশ্মীরে ৪ বিএসএফ নিহত   নাপলি আওয়ামীলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত   ইমরানের বিরুদ্ধে প্রতিদ্বন্দ্বিতায় শতবর্ষী নারী!   নিয়মিত রোজা রাখেন ১১৮ বছরের বৃদ্ধ   বাংলাদেশে পালিত হচ্ছে শবে কদর   জাতীয় পার্টি মহাজোটে নেই, আর কখনও মহাজোটে থাকবেও না : এরশাদ   কারাগারে জীর্ণশীর্ণ খালেদা জিয়া!   বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নয় ইউনাইটেডে চিকিৎসা নিতে চান খালেদা জিয়া

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

মিয়ানমারে ফেসবুক পশুতে পরিণত হয়েছে : জাতিসংঘের তদন্ত দল

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৩-১৪ ০১:০৫:৫৬

নিউজ ডেস্ক: রোহিঙ্গা নির্যাতনের ঘটনা তদন্তে গঠিত জাতিসংঘের তদন্ত দল অভিযোগ করেছে, মিয়ানমারে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক পশুতে পরিণত হয়েছে। রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে ঘৃণা ছড়াতে এটি নিরুপক ভূমিকা পালন করছে।

সোমবার তদন্ত দল তাদের অন্তর্বতী প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। এতেই এ কথা বলা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে তদন্ত কমিটির চেয়ারম্যান মারজুকি দারুসমান বলেছেন, ‘রোহিঙ্গা মুসলমানদের বিরুদ্ধে জনসাধারণের মধ্যে বিদ্বেষের মাত্রা বাড়াতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের স্বতন্ত্র ভূমিকা রয়েছে। বিদ্বেষপূর্ণ কথাবার্তা অবশ্যই তার অংশ। মিয়ানমারের পরিস্থিতিতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম হচ্ছে ফেসবুক এবং ফেসবুক হচ্ছে সামাজিক গণমাধ্যম।’

জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক বিশেষ দূত ইয়াংহি লি বলেছেন, ‘আমরা জানি উগ্র জাতিয়তাবাদী বৌদ্ধদের নিজস্ব ফেসবুক রয়েছে এবং তারা সত্যিকারার্থে ব্যাপক সহিংসতা উস্কে দিচ্ছে এবং রোহিঙ্গা ও অন্যান্য সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে ঘৃণা উস্কে দিচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘আমি ভীত যে, ফেসবুক এখন পশুতে পরিণত হয়েছে এবং এটি সত্যিকারার্থে যা হওয়ার কথা ছিল তা হয়নি।’

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ অবশ্য জানিয়েছে, সামাজিক এই যোগাযোগমাধ্যমে বিদ্বেষপূর্ণ বার্তা ছড়ানোর কোনো জায়গা নেই।

ফেসবুকের এক মুখপাত্র বিবিসিকে বলেছেন,‘আমরা এই বিষয়টি অতি গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছি এবং নিরাপত্তা উপকরণের উন্নয়ন ও পাল্টা বক্তব্য প্রচারের জন্য কয়েক বছর ধরে মিয়ানমারের বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে কাজ করেছি।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৮১১ বার

আপনার মন্তব্য