যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 01:18pm

|   লন্ডন - 08:18am

|   নিউইয়র্ক - 03:18am

  সর্বশেষ :

  স্তন্যপান করিয়ে বিপন্ন শিশুকে বাঁচালেন আর্জেন্টিনার পুলিশ কর্মকর্তা   হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু   সরকার কোনো আন্দোলনকে দানা বেঁধে উঠতে দেবে না : এরশাদ   বিয়ের আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দিলেন প্রিয়াঙ্কা-নিক   ফিলিস্তিনিদের ঘরে ফেরার আন্দোলনে নিহত ১৬৬   প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন ইমরান খান   ফাইনালে পারল না বাংলাদেশি মেয়েরা   মুক্তিযোদ্ধা ছাড়া সব কোটা বাতিল হচ্ছে : নাসিম   জাতিসংঘের সাবেক মহাসচিব কফি আনান আর নেই   সবচেয়ে বেশি আয় স্কারলেট জোহানসনের   শিক্ষার্থীদের নিঃশর্ত মুক্তি দেয়ার দাবি ড. কামালের   ছাত্র আন্দোলনে ‘গুজব’ ছড়ানোর অভিযোগে কফিশপের মালিক ফারিয়া রিমান্ডে   এবার ট্রাম্পের পুত্রবধূর বিরুদ্ধে অভিযোগ   যুক্তরাষ্ট্রের বিরুদ্ধে হামলার প্রস্তুতি নিচ্ছে চীন!   হ্যান্ডশেক না করা সেই সুইডিশ তরুণী মামলায় জিতলেন

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

জি-৭ সম্মেলনে ট্রাম্পের নাটকীয়তা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৬-১০ ১৬:১৩:০৫

নিউজ ডেস্ক: কানাডায় অনুষ্ঠিত জি-৭ শীর্ষ সম্মেলনের যৌথ বিবৃতি অনুমোদনে নাটকীয়তার জন্ম দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প। শেষ মুহূর্তে তিনি ওই বিবৃতি অনুমোদন দেয়া থেকে বিরত রইলেন। পাশাপাশি তিনি কানাডার প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোকে একজন অসৎ মানুষ হিসেবে অভিযুক্ত করলেন। বাণিজ্য নিয়ে বিরোধের জের ধরে শনিবার এমন অবস্থানে চলে যান ট্রাম্প। এরপর তিনি সিঙ্গাপুরে অনুষ্ঠেয় উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে ঐতিহাসিক বৈঠকে যোগ দেয়ার জন্য এয়ারফোর্স ওয়ানে উঠে বসেন। তা যাত্রা শুরু করে সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে।
ওই বিমানের ভেতর থেকেই তিনি টুইট করেছেন। তাতে বলেছেন, সংবাদ সম্মেলনে জাস্টিন ট্রুডো মিথ্যা বিবৃতি দিয়েছেন। তিনি বলেছেন, যুক্তরাষ্ট্রের কৃষক, শ্রমিক ও কোম্পানির ওপর কানাডা উচ্চ হারে শুল্ক আরোপ করছে। এসব মিথ্যা বিবৃতির কারণে আমি আমার প্রতিনিধিদের ওই যৌথ বিবৃতি অনুমোদন না দিতে নির্দেশ দিয়েছি। ট্রাম্প আবারো হুঁশিয়ারি দেন। তিনি বলেন, তার প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে সয়লাব হয়ে যাওয়া অটোমোবাইলসের ওপর শুল্ক আরোপ করছে। এর উদ্দেশ্য হলো জি-৭ ভুক্তি আরেকটি সদস্য দেশ জার্মানি। এর পরেই তিনি ট্রুডো

সম্পর্কে ক্ষুব্ধ বাক্য ব্যবহার করেন। বলেন, কানাডিয়ার প্রধানমন্ত্রী এতটা নম্র ও ভদ্রতা প্রদর্শন করেছেন তাদের যৌথ আলোচনার সময় যে, তা তিনি অনুমোদন দিতে পারেন না। তিনি অত্যন্ত অসৎ ও দুর্বল। ট্রাম্প এখানেই ছেড়ে দেন নি ট্রুডোকে। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের ডেইরি পণ্যগুলোর ওপর শুল্ক আরোপ করেছে কানাডা। তারই জবাব দিতে একই রকম পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে কানাডার স্টিল ও অ্যালুমিনিয়ামের ওপর। এসব পণ্য যুক্তরাষ্ট্রে রপ্তানি করে কানাডা। কানাডার সঙ্গে বাণিজ্য ও নাফটা নিয়ে উত্তেজনার প্রেক্ষিতে ট্রাম্প আগেভাগেই শনিবার জি-৭ সম্মেলন ত্যাগ করেন। যাত্রা শুরু করেন সিঙ্গাপুরের উদ্দেশে। তার সঙ্গে রয়েছেন হোয়াইট হাউসের চিফ অব স্টাফ জন কেলি, ট্রাম্পের অর্থনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা জন বল্টন। তবে কানাডা ত্যাগের আগে ট্রাম্প সংবাদ সম্মেলন করেছেন। সেখানে তিনি উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উনের সঙ্গে মঙ্গলবারের বৈঠক নিয়ে কথা বলেছেন। বলেছেন, তিনি জানেন যুক্তরাষ্ট্রের সমঝোতা প্রক্রিয়ায় উত্তর কোরিয়ার নেতা কতটুকু গুরুত্ব দিয়ে নিচ্ছেন তা প্রথম এক মিনিটেই তিনি জেনে যাবেন। এ সময় সাংবাদিকরা তার কাছে জানতে চান- কীভাবে তিনি এত দ্রুততার সঙ্গে তা জানতে পারবেন? জবাবে তিনি বলেন, আমার স্পর্শ, আমার অনুভূতি দিয়ে আমি তা বুঝি। উত্তর কোরিয়ার নেতা আন্তরিক কিনা তা তিনি তাড়াতাড়িই বুঝে যাবেন।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৫৯৩ বার

আপনার মন্তব্য