যুক্তরাষ্ট্রে আজ বুধবার, ২৩ মে, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 10:36pm

|   লন্ডন - 05:36pm

|   নিউইয়র্ক - 12:36pm

  সর্বশেষ :

  পুলিৎজারজয়ী ঔপন্যাসিক ফিলিপ রোথ আর নেই   যুক্তরাষ্ট্রের এক শীর্ষ কূটনীতিককে বহিষ্কার করল ভেনেজুয়েলা   মাদকবিরোধী অভিযানের নামে ক্রসফায়ার নিয়ে বিএনপির গভীর সংশয়   অস্ত্রসহ সুন্দরবনের ৫৭ বনদস্যুর আত্মসমর্পণ   মন্ত্রীদের বেতন কমাচ্ছে মালয়েশিয়া   তামিলনাড়ুতে দূষণ বিরুধী বিক্ষোভে গুলি, নিহত ৯   কথিত বন্দুকযুদ্ধ অব্যাহত, এবার নিহত ৭   চলে গেল মুক্তামনি   দ্বিতীয় বিয়ে বাধ্যতামূলক যেখানে   চীনে মসজিদে মসজিদে জাতীয় পতাকা ওড়ানোর নির্দেশ   করাচিতে দাবদাহে হিট-স্ট্রোকে ৬৫ জনের মৃত্যু   যুদ্ধক্ষেত্রে সর্বাধুনিক এফ-৩৫ উড়িয়েছে ইসরায়েল   মিলানে ছাত্রলীগের আলোচনা সভা ও ইফতার মাহফিল   নিউজার্সিতে কুলাউড়া এসোসিয়েশনের ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত   তথাকথিত ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এবার ৯ জেলায় নিহত ১২

মূল পাতা   >>   লাইফ স্টাইল

শ্যাম্পু নিয়ে যত ভুল ধারণা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৪-১৫ ১২:০৩:৩২

নিউজ ডেস্ক: আমাদের মাঝে শ্যাম্পু এবং এর ব্যবহার নিয়ে নানা ধরনের মতবাদ ও ভুল ধারণা শোনা যায়। সোশ্যাল মিডিয়াতে নানা ধরনের ভিডিও প্রকাশ করে বলা হয়, কোনটা ঠিক আর কোনটা ভুল?

আমরাও প্রতিনিয়ত দেখতে দেখতে এক সময় ওই কথাগুলোকে বিশ্বাস করতে শুরু করি। তবে যে যাই বলুক আপনি আপনার চুলের ভালোর জন্য সেটাই করবেন যেটা আপনার উপযোগী। আর এটা জানার জন্য আপনাকে একজনের কথা বিশ্বাস না করে সবার কথা যাচাই করে তারপর যেটা ভালো ও সঠিক মনে হবে, সেটাই করুন। তাই আজ আপনি শ্যাম্পু সম্পর্কে আমাদের কাছ থেকেও কিছু জেনে নিন।

বলা হয়ে থাকে, ড্রাই বা শুষ্ক শ্যাম্পু চুলের গ্রন্থিকোষ উঠিয়ে ফেলে। ফলে চুল পড়ে যায়। ক্যালিফোর্নিয়ার ভ্যালাজোর কাইসার পারমানেনটির ডারমাটোলোজিস্ট পারাদি মিরমিরানি বলেন, ড্রাই শ্যাম্পুতে তেল শুষে নেওয়ার জন্য পাউডার, স্ট্রাস এবং ট্যাল্ক ব্যবহার করা হয় এবং এর মধ্যে কোনো উপাদান সরাসরি চুলের গ্রন্থিকোষে প্রভাব ফেলে না।

কসমেটিক কেমিস্ট জোসেফ বলেন, ড্রাই শ্যাম্পু চুলের গোড়ায় ব্যবহার না করে বরং চুলের আগায় ব্যবহার করা ভালো। তাই শ্যাম্পুতে ‘পিএইচ-ভারসাম্যপূর্ণ’ রয়েছে কিনা তা দেখে কিনতে হবে।

শ্যাম্পুতে পিএইচ’র সুষম উপাদান থাকাটা খুবই দরকার। তবে প্রতি ৭ জনের মধ্যে ৫ জনের কাছে তা ক্ষতিকর বলে মনে হয়নি।

কসমেটিক কেমিস্ট র‌্যান্ডি বলেন, চুলে পিএইচ ১০ মাত্রার থেকে বেশি হয়ে গেলে তখন চুলের ফাইবার ভাঙতে শুরু করে এবং চুলের অস্বাভাবিক ক্ষতি হয়। চুলের কালারিং এবং পারমিং পদ্ধতিতে উচ্চ মাত্রা পিএইচ ব্যবহার করা হয়। কিন্তু, শ্যাম্পুতে ৪০ দশকের পর থেকে আর ব্যবহার করা হয় না।

‘ভিটামিন, হাইলুরোনিক অ্যাসিড চামড়ার যত্নে ব্যবহার করা হয়। এগুলো শ্যাম্পুতে আছে এটা শুনতে বেশ ভালো লাগে। কিন্তু, এর কোনো প্রমাণ নেই যে, এগুলো চুলের জন্য ভালো’, যোগ করেন র‌্যান্ডি।

জোসেফ বলেন, সর্বোপরি আপনি আলতোভাবে আপনার চুল ধুয়ে ফেলেন শ্যাম্পু করার পর এবং তারপর আর কোনো সক্রিয় উপাদান আপনার চুলে অবশিষ্ট থাকে না। চুলের যত্ন নেওয়ার জন্য বরং সব উপাদান ধুয়ে ড্রেনে চলে যায়।

শ্যাম্পু চুল থেকে বের হওয়া স্বাভাবিক তেলকে ধুয়ে দেয়। এই তেলগুলো চুলে ময়েশ্চারাইজার জোগায় এবং চুল স্মুথ করে তোলে। তাই বলে এই তেলগুলো দিনের বেলা থাকা ঠিক না। তা না হলে এতে বাইরের ধুলাবালি জমতে থাকে এবং এই ধুলাবালি মাথায় নিয়ে যদি আপনি বেশ কিছুদিন থাকেন তাহলে নানা ধরনের রোগ দেখা দিতে পারে, বলেন জোসেফ।

তাই প্রতিদিন চুল ধুয়ে ফেলা ভালো আর শ্যাম্পু সপ্তাহে একবারই যথেষ্ট। আপনি যদি আপনার চুলে রঙ করান তাহলে বলা হয়ে থাকে, আপনাকে সালফেটবিহীন শ্যাম্পু ব্যবহার করতে বলা হবে। কিন্তু, সালফেট দিয়ে অনেক চুলের রঙ পরীক্ষা করে দেখা গেছে চুলের ক্ষতি করার মতো কিছু নেই।

চুল থেকে রঙ ফেইড হয়ে যাওয়ার মূল কারণ চুল ভেজানো। শ্যাম্পুতে সালফেট না থাকলেও আপনি যখনি চুল ভেজান সঙ্গে সঙ্গে আপনার চুল থেকে বেশ কিছু রঙ ফেইড হয়ে যেতে থাকে। এজন্য সালফেট দায়ী নয়।

এলএবাংলাটাইমস/এলএস/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৫৯৪ বার

আপনার মন্তব্য