যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 10:20pm

|   লন্ডন - 05:20pm

|   নিউইয়র্ক - 12:20pm

  সর্বশেষ :

  যেভাবে সুরক্ষিত রাখবেন আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্ট   আর ডিজেলচালিত গাড়ি বানাবে না পোরশে   মালদ্বীপে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে বিরোধী প্রার্থী সোলিহর জয়লাভ   নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রীকে আ’লীগের সম্বর্ধনা : সরকার পতনে দুর্নীতিবাজরা ঐক্যবদ্ধ হয়েছে   মিয়ানমারের ওপর হস্তক্ষেপের অধিকার নেই জাতিসংঘের: সেনাপ্রধান   বাংলাদেশ সম্পর্কে অমিত শাহর বক্তব্যটি অবাঞ্ছিত : তথ্যমন্ত্রী   গিনেজ বুকের স্বীকৃতি পেল ‘স্বচ্ছ ঢাকা অভিযান’   কোটা সংস্কার আন্দোলনে প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি করায় চবি শিক্ষক কারাগারে   শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে টাইগারদের জয়   বাংলাদেশে প্রবেশের অপেক্ষায় আরও ৫ লাখ রোহিঙ্গা   ট্রাম প্রশাসনের নতুন প্রস্তাবনা, কঠিন হয়ে পড়তে পারে গ্রিন কার্ড   নাইজেরিয়ায় কলেরা মহামারি, ৯৭ জনের মৃত্যু   মংলা-বুড়িমারী বন্দরে বছরে অবৈধ লেনদেন হয় ৩১ কোটি টাকা   অস্কারে যাচ্ছে বাংলাদেশের ‘ডুব’   উন্নত বিশ্বে দ্রুত বাড়ছে বয়স্ক মানুষের সংখ্যা

মূল পাতা   >>   লাইফ স্টাইল

শ্যাম্পু নিয়ে যত ভুল ধারণা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৪-১৫ ১২:০৩:৩২

নিউজ ডেস্ক: আমাদের মাঝে শ্যাম্পু এবং এর ব্যবহার নিয়ে নানা ধরনের মতবাদ ও ভুল ধারণা শোনা যায়। সোশ্যাল মিডিয়াতে নানা ধরনের ভিডিও প্রকাশ করে বলা হয়, কোনটা ঠিক আর কোনটা ভুল?

আমরাও প্রতিনিয়ত দেখতে দেখতে এক সময় ওই কথাগুলোকে বিশ্বাস করতে শুরু করি। তবে যে যাই বলুক আপনি আপনার চুলের ভালোর জন্য সেটাই করবেন যেটা আপনার উপযোগী। আর এটা জানার জন্য আপনাকে একজনের কথা বিশ্বাস না করে সবার কথা যাচাই করে তারপর যেটা ভালো ও সঠিক মনে হবে, সেটাই করুন। তাই আজ আপনি শ্যাম্পু সম্পর্কে আমাদের কাছ থেকেও কিছু জেনে নিন।

বলা হয়ে থাকে, ড্রাই বা শুষ্ক শ্যাম্পু চুলের গ্রন্থিকোষ উঠিয়ে ফেলে। ফলে চুল পড়ে যায়। ক্যালিফোর্নিয়ার ভ্যালাজোর কাইসার পারমানেনটির ডারমাটোলোজিস্ট পারাদি মিরমিরানি বলেন, ড্রাই শ্যাম্পুতে তেল শুষে নেওয়ার জন্য পাউডার, স্ট্রাস এবং ট্যাল্ক ব্যবহার করা হয় এবং এর মধ্যে কোনো উপাদান সরাসরি চুলের গ্রন্থিকোষে প্রভাব ফেলে না।

কসমেটিক কেমিস্ট জোসেফ বলেন, ড্রাই শ্যাম্পু চুলের গোড়ায় ব্যবহার না করে বরং চুলের আগায় ব্যবহার করা ভালো। তাই শ্যাম্পুতে ‘পিএইচ-ভারসাম্যপূর্ণ’ রয়েছে কিনা তা দেখে কিনতে হবে।

শ্যাম্পুতে পিএইচ’র সুষম উপাদান থাকাটা খুবই দরকার। তবে প্রতি ৭ জনের মধ্যে ৫ জনের কাছে তা ক্ষতিকর বলে মনে হয়নি।

কসমেটিক কেমিস্ট র‌্যান্ডি বলেন, চুলে পিএইচ ১০ মাত্রার থেকে বেশি হয়ে গেলে তখন চুলের ফাইবার ভাঙতে শুরু করে এবং চুলের অস্বাভাবিক ক্ষতি হয়। চুলের কালারিং এবং পারমিং পদ্ধতিতে উচ্চ মাত্রা পিএইচ ব্যবহার করা হয়। কিন্তু, শ্যাম্পুতে ৪০ দশকের পর থেকে আর ব্যবহার করা হয় না।

‘ভিটামিন, হাইলুরোনিক অ্যাসিড চামড়ার যত্নে ব্যবহার করা হয়। এগুলো শ্যাম্পুতে আছে এটা শুনতে বেশ ভালো লাগে। কিন্তু, এর কোনো প্রমাণ নেই যে, এগুলো চুলের জন্য ভালো’, যোগ করেন র‌্যান্ডি।

জোসেফ বলেন, সর্বোপরি আপনি আলতোভাবে আপনার চুল ধুয়ে ফেলেন শ্যাম্পু করার পর এবং তারপর আর কোনো সক্রিয় উপাদান আপনার চুলে অবশিষ্ট থাকে না। চুলের যত্ন নেওয়ার জন্য বরং সব উপাদান ধুয়ে ড্রেনে চলে যায়।

শ্যাম্পু চুল থেকে বের হওয়া স্বাভাবিক তেলকে ধুয়ে দেয়। এই তেলগুলো চুলে ময়েশ্চারাইজার জোগায় এবং চুল স্মুথ করে তোলে। তাই বলে এই তেলগুলো দিনের বেলা থাকা ঠিক না। তা না হলে এতে বাইরের ধুলাবালি জমতে থাকে এবং এই ধুলাবালি মাথায় নিয়ে যদি আপনি বেশ কিছুদিন থাকেন তাহলে নানা ধরনের রোগ দেখা দিতে পারে, বলেন জোসেফ।

তাই প্রতিদিন চুল ধুয়ে ফেলা ভালো আর শ্যাম্পু সপ্তাহে একবারই যথেষ্ট। আপনি যদি আপনার চুলে রঙ করান তাহলে বলা হয়ে থাকে, আপনাকে সালফেটবিহীন শ্যাম্পু ব্যবহার করতে বলা হবে। কিন্তু, সালফেট দিয়ে অনেক চুলের রঙ পরীক্ষা করে দেখা গেছে চুলের ক্ষতি করার মতো কিছু নেই।

চুল থেকে রঙ ফেইড হয়ে যাওয়ার মূল কারণ চুল ভেজানো। শ্যাম্পুতে সালফেট না থাকলেও আপনি যখনি চুল ভেজান সঙ্গে সঙ্গে আপনার চুল থেকে বেশ কিছু রঙ ফেইড হয়ে যেতে থাকে। এজন্য সালফেট দায়ী নয়।

এলএবাংলাটাইমস/এলএস/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৮২৯ বার

আপনার মন্তব্য