যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ০৭ Jun, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 01:09pm

|   লন্ডন - 08:09am

|   নিউইয়র্ক - 03:09am

  সর্বশেষ :

  ক্যালিফোর্নিয়া জুড়ে এখনো বিক্ষোভ অব্যাহত   করোনায় একদিনে গেল আরও ৫৬ প্রাণ, আক্রান্ত ৬২ হাজার ৩৩৮   ঢাকায় করোনা আক্রান্ত সাড়ে ৭ লাখের বেশি: ইকোনমিস্ট   নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন, ৫ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন   সিলেট সিটির সাবেক মেয়র কামরান করোনায় আক্রান্ত   দেশে প্রতি পাঁচজনের নমুনা পরীক্ষায় একজনের করোনা   ত্বক ফর্সা ক্রিমের বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি বর্ণবাদ বিরোধী পোস্ট, সমালোচনায় প্রিয়াঙ্কা   চট্টগ্রামে বিএসআরএম কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ১, দগ্ধ ৪   বাংলাদেশের করোনা শনাক্ত নিয়ে সন্দেহ বিশেষজ্ঞদের   তাহলে কি ট্রাম্পকে ডুবাচ্ছে করোনা আর বর্ণবাদ   বিক্ষোভের মুখেই জার্মানি থেকে সেনা প্রত্যাহার করল ট্রাম্প   এবার বন্ধ হল পুলিশের হাঁটু দিয়ে গলা চেপে ধরা   ট্রাম্পের পেশীশক্তির জবাব দিলেন ওয়াশিংটন মেয়র   লস এঞ্জেলেস পুলিশ প্রধান মাইকেল মুরের পদত্যাগ দাবি   অনলাইন ক্লাশ করতে পারেন যেভাবে

মূল পাতা   >>   লন্ডন

যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি বিপদে ভারতীয়রা!

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৩-৩১ ০৯:০৫:২৩

ছবি : সংগৃহীত

নিউজ ডেস্ক: আমেরিকায় কর্মরত ভারতীয়রা বিপদে। করোনা ভাইরাসের প্রকোপে শুধু প্রাণ নিয়ে নয়, চাকরি নিয়েও টানাটানি শুরু হয়েছে সেদেশে। চাকরি খোয়ালে এইচ–১ বি ভিসার অধিকারীদের সেদেশে থাকার অনুমতিও থাকবে না।

করোনাভাইরাস সংকটের কারণে আমেরিকাতে ব্যাপক ছাঁটাইয়ের আশঙ্কা। আমেরিকায় কর্মরত বিভিন্ন দেশের বাসিন্দারা হুমকির মুখে পড়েছেন। সবচেয়ে বিপদে পড়েছেন ভারতীয়রা। সবচেয়ে বেশি সংখ্যক এইচ–১ বি ভিসাধারকেরা ভারতের নাগরিক। ট্রাম্প প্রশাসনের কাছে তাদের আবেদন, চাকরি হারানোর পর আমেরিকায় বসবাস করার সময়সীমা বাড়িয়ে দেয়া হোক। ৬০ থেকে ১৮০ দিনের মধ্যে করা হোক।


কী এই এইচ–১ বি ভিসা?‌
তাত্ত্বিক বা প্রযুক্তিগত দক্ষতার প্রয়োজনে মার্কিন সংস্থাগুলোকে ভিনদেশি কর্মী নিয়োগ করার অনুমতি দেয় এই ভিসা। এছাড়া এই ভিসাধারক ভিনদেশিরা আমেরিকায় গিয়ে বসবাস করতে পারবেন। তবে কাজের জন্য। স্থায়ী বসবাসের জন্য নয়। কিন্তু সমস্যা হল, বর্তমান ফেডারাল বিধি অনুযায়ী, এই ভিসাধারক ব্যক্তির চাকরি চলে গেলে তাকে ৬০ দিনের মধ্যে সেদেশ ছেড়ে দিতে হবে। উপরন্তু তারা কোনো সামাজিক সুরক্ষার সুবিধাও পাবেন না। যদিও তাদের বেতন থেকে এতদিন ধরে সামাজিক সুরক্ষা বাবদ টাকা কাটা হয়েছে। সেই সময়সীমার মধ্যে যদি অন্য কোনো চাকরি পেয়ে যান, তাহলে আর কোনো অসুবিধা নেই। তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থাগুলো ভারত ও চীনের মতো দেশগুলো থেকে প্রতি বছর কয়েক হাজার কর্মচারী নিয়োগের জন্য এটির উপর নির্ভর করে। ইতিমধ্যেই অনেক কর্মীর কাছে চাকরি থেকে ছাঁটাই করার নোটিশ চলে গেছে। অনেককে আবার ছাড়িয়ে দেয়াও হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩.‌৩ মিলিয়ন আমেরিকানও আছেন।

আপাতত এই ভিসাধারকেরা হোয়াইট হাউজের ওয়েবসাইটে পিটিশন দিয়েছেন। যেখানে এখন পর্যন্ত ২০ হাজার সই সংগ্রহ করা হয়েছে। কিন্তু সইয়ের ন্যূনতম সীমা এক লাখ। তবেই উত্তর আসবে ওপার থেকে। তারা পিটিশনে লিখেছেন, তাদের যেন চাকরি থেকে ছাড়িয়ে দেয়ার পর ৬০ থেকে ১৮০ দিন পর্যন্ত থাকার অনুমতি দেয়া হয়। এতদিন পর্যন্ত তারা সেদেশের জন্য খেটেছেন এবং আয়করও জমা করেছেন। এই পরিস্থিতিতে ভারতের মতো অনেক দেশে ফিরে যাওয়ার অবস্থা নেই। সেসব দেশে লকডাউন চলছে।



এলএবাংলাটাইমস/এম/এইচ/টি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১২০ বার

আপনার মন্তব্য