যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ০৭ Jun, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 11:04am

|   লন্ডন - 06:04am

|   নিউইয়র্ক - 01:04am

  সর্বশেষ :

  ঢাকায় করোনা আক্রান্ত সাড়ে ৭ লাখের বেশি: ইকোনমিস্ট   নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন, ৫ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন   সিলেট সিটির সাবেক মেয়র কামরান করোনায় আক্রান্ত   দেশে প্রতি পাঁচজনের নমুনা পরীক্ষায় একজনের করোনা   ত্বক ফর্সা ক্রিমের বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি বর্ণবাদ বিরোধী পোস্ট, সমালোচনায় প্রিয়াঙ্কা   চট্টগ্রামে বিএসআরএম কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ১, দগ্ধ ৪   বাংলাদেশের করোনা শনাক্ত নিয়ে সন্দেহ বিশেষজ্ঞদের   তাহলে কি ট্রাম্পকে ডুবাচ্ছে করোনা আর বর্ণবাদ   বিক্ষোভের মুখেই জার্মানি থেকে সেনা প্রত্যাহার করল ট্রাম্প   এবার বন্ধ হল পুলিশের হাঁটু দিয়ে গলা চেপে ধরা   ট্রাম্পের পেশীশক্তির জবাব দিলেন ওয়াশিংটন মেয়র   লস এঞ্জেলেস পুলিশ প্রধান মাইকেল মুরের পদত্যাগ দাবি   অনলাইন ক্লাশ করতে পারেন যেভাবে   যুক্তরাষ্ট্রে ১৫৪টিসহ মোট ২৬৯টি দোকান বন্ধ করবে ওয়ালমার্ট   করোনায় একদিনে গেল আরও ৩৬ প্রাণ, আক্রান্ত ৬১ হাজার ৪৫

মূল পাতা   >>   লস এঞ্জেলেস

অরেঞ্জ কাউন্টিতে কেন করোনা সংক্রমণ বাড়ছে?

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৫-১৫ ১৪:০৬:১১

 আপডেট: ২০২০-০৫-১৫ ১৪:০৬:৫১

সংগৃহীত ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:

সাম্প্রতিক সময়ে অরেঞ্জ কাউন্টিতে  করোনায় পজিটিভের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। বৃহস্পতিবার করোনায় আক্রান্ত ২২৯ জনকে শনাক্ত করা হয়। মহামারি শুরুর পর এটাই একদিনে সর্বোচ্চ আক্রান্তের হিসেব। এর একদিন আগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছিলেন ১৫৬ জন। 

বৃহস্পতিবার পর্যন্ত অরেঞ্জ কাউন্টিতে করোনায় প্রায় ৪ হাজার জন আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গিয়েছেন ৮০ জন। যদিও অন্য কিছু কাউন্টিতে এ সংখ্যা আরও বেশি। লস এঞ্জেলেস কাউন্টিতে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩৫ হাজার ও মৃত ১৭০০। রিভারসাইড কাউন্টিতে ৫ হাজার ৪ শ জন আক্রান্ত হয়েছেন, মারা গেছেন ২৩৫ জন।

অধিক ভাইরাস আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হওয়ার  প্রথম কারণ হচ্ছে পর্যাপ্ত পরীক্ষা। ক্যালিফোর্নিয়ার অন্যান্য কাউন্টির মতো অরেঞ্জ কাউন্টিতেও যত বেশি সম্ভব করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে। কাউন্টি স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডক্টর নিকোলে কুইক বলেন, আমরা বেশি বেশি পরীক্ষা করছি বলেই করোনা শনাক্ত বেশি হচ্ছে। যারা পজিটিভ হচ্ছেন তাদের বেশিরভাগেরই শারীরিক অবস্থা ভালো বলে জানান ডক্টর নিকোলে।

হেলথ কেয়ার এজেন্সি ডিরেক্টর  ক্লেটন চেও জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত ২২৭ জন হাসপাতালে ভর্তি আছেন।  ৭৯ জন আছেন নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে। গত দুই সপ্তাহে অরেঞ্জ কাউন্টিতে আক্রান্তের বেশিরভাগই নার্সিং হোম ও জেলে থাকা বাসিন্দা।  

৩.১ মিলিয়ন মানুষের বাস অরেঞ্জ কাউন্টিতে। এরমধ্যে করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন প্রায় ৪ হাজার জন। যাদের মধ্যে ৪০৭ জন নার্সিং হোম ও ৩৩১ জন কারাবন্দি। কাউন্টি সিইও ফ্র্যাঙ্ক কিম জানান, ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে করোনা পরীক্ষা বাড়ানো হয়েছে। 

সমুদ্র সৈকত বা বিচগুলো খুলে দেওয়াতে হঠাৎ করে করোনা শনাক্ত বেড়েছে বলে এখনই বিশ্বাস করছেন না কাউন্টি কর্মকর্তারা। গভর্নর গেভিন নিউসামের নির্দেশনায় বিচগুলো বন্ধের পর গত সপ্তাহে সেসব আবার খুলে দেওয়া হয়। তবে বাসিন্দাদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে হবে। বিচ খুলে দেওয়ার সাথে করোনা সংক্রমণের  সম্পর্ক রয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখতে পরামর্শ দিয়েছেন ইউসি সান ফ্রান্সিসকোর মহামারি ও ছোঁয়াচে রোগ বিশেষজ্ঞ ডক্টর জর্জ রাদারফোর্ড।



/এলএ বাংলা টাইমস/এন/এইচ



এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৫৩৮ বার

আপনার মন্তব্য