যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ১১ অগাস্ট, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 01:07pm

|   লন্ডন - 08:07am

|   নিউইয়র্ক - 03:07am

  সর্বশেষ :

  হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলি, ব্রিফিংয়ের মাঝপথে সরে গেলেন ট্রাম্প   সিনহা হত্যা: প্রদীপে চাপা পড়ছে লিয়াকতের অপকর্ম   দ্বিতীয় ধাপের প্রণোদনা পেতে পারেন যেসব মার্কিনিরা?   দ্বিতীয় অর্থ সহায়তা কবে পাচ্ছেন মার্কিনিরা?   আমেরিকার সবচেয়ে বড় ডিপার্টমেন্ট স্টোর কিনতে চায় অ্যামাজন   পদত্যাগ করেছেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী   করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অভিনেতা আন্তোনিও বান্দেরাস   ট্যাক্স ও রাজনীতির দুশ্চিন্তায় নাগরিকত্ব ছাড়ছেন মার্কিনিরা   বাল্টিমোরে ভয়াবহ গ্যাস বিস্ফোরণ, একজনের মৃত্যু   ক্যালিফোর্নিয়ার পাবলিক হেলথ ডিরেক্টরের পদত্যাগ   জামিন পেলেন সিফাত   ‘স্যার, রিমান্ডটা কনসিডার করা যায় না’   ওসি প্রদীপের করা সব হত্যাকাণ্ডের বিচার চান অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তারা   ওয়াশিংটনে গোলাগুলি: নিহত ১,আহত ২০   করোনামুক্ত ১০০ দিন পার করলো নিউজিল্যান্ড

মূল পাতা   >>   লস এঞ্জেলেস

ফাহিম হত্যায় হ্যাসপিলের শাস্তি কম হতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-২৭ ০৯:২৩:৫৫

এলএ বাংলা টাইমস

নিজস্ব প্রতিবেদক:
বাংলাদেশের রাইড শেয়ারিং প্ল্যাটফর্ম পাঠাওয়ের সহপ্রতিষ্ঠাতা ফাহিম সালেহ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় গ্রেপ্তার হওয়া সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী টাইরেস ডেঁভো হ্যাসপিলের বিচারে শাস্তি কমে যেতে পারে। যাবজ্জীবন কারাদণ্ড থেকে পার পেয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে তাঁর। সম্প্রতি নিউইয়র্ক ডেইলি নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হ্যাসপিলকে শৈশব ও কৈশোরে আত্মীয়দের বাড়ি এবং আশ্রয়কেন্দ্রের মধ্যেই ঘোরাঘুরি করে কাটাতে হয়েছে। নানা সমস্যা ও সংকট কাটাতে হয়েছে তাঁকে। হ্যাসপিল ছোট থাকার সময়ই মানসিক সমস্যার কারণে তাঁর মাকে পাগলা গারদে থাকতে হয়েছে। নিজেকে হ্যাসপিলের আন্টি পরিচয় দেওয়া মারজোরি সাইন নামের এক নারী সাক্ষাৎকারে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

মারজোরি সাইন জানিয়েছেন, হ্যাসপিল যখন ছোট, তখন মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যার কারণে তাঁর মাকে পাগলা গারদে যেতে হয়েছে। তখন ভ্যালি স্ট্রিম এলাকায় হ্যাসপিল তাঁর নানির আশ্রয়ে ছিলেন। তাঁর ১২ বছর বয়সে নানিও মারা যান। এরপরই মারজোরি সাইনের কাছে হ্যাসপিলের আশ্রয় হয়। কিন্তু দিনে দিনে অবাধ্য হয়ে ওঠেন হ্যাসপিল। এ কারণে ১৭ বছর বয়সে মারজোরি তাঁকে একটি ফোস্টার (পালিত) কেয়ার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করে দেন। এ নিয়ে মারজোরি আদালতেও গিয়েছিলেন। আদালতকে তিনি জানিয়েছিলেন, তিনি আর হ্যাসপিলকে লালনপালন করতে পারছেন না। তখনই হ্যাসপিলের সঙ্গে আদালতে তাঁর শেষ দেখা হয়। এর পরের বছর হ্যাসপিলের বাবাও মারা যান। সর্বশেষ হ্যাসপিল ব্রুকলিনের প্রস্পেক্ট পার্ক এলাকায় বসবাস করতেন।

২১ বছর বয়সী হ্যাসপিলকে দ্বিতীয় ডিগ্রি হত্যা মামলায় নেওয়া হয়েছে। তদন্তে যদি প্রমাণিত হয় যে জেনেটিক্যালি মায়ের মতো যদি হ্যাসপিলও মানসিক কোনো সমস্যায় বিপর্যস্ত, সে ক্ষেত্রে ‘ডিফেন্সেস টু সেকেন্ড ডিগ্রি মার্ডার চার্জ’ আইন অনুযায়ী ‘মেন্টাল ডিজিজ অর ডিফেক্ট’ ফেলোনিতে হ্যাসপিলের সর্বোচ্চ ১৫ থেকে ২৫ বছরের শাস্তি হতে পারে। এতে তিনি হয়তো আজীবন কারাবাসের শাস্তি থেকে মুক্তি পাবেন।

১৩ জুলাই বেলা ১টা ৪০ মিনিটে ফাহিম যখন লিফটে ওঠেন, তখন এক ব্যক্তিও তাঁর পিছু নিয়ে দ্রুত লিফটের ভেতর ঢুকে পড়েন। তদন্তকারীরা বলছেন, ওই ব্যক্তিই টাইরেস ডেঁভো হ্যাসপিল। তাঁর সঙ্গে থাকা ব্যাগে ইলেকট্রিক করাত ছিল বলে তাঁদের ধারণা। লিফটের ভেতরের সিসিটিভি ক্যামেরা ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, ফাহিম ওই ব্যক্তিকে কিছু জিজ্ঞেস করছেন। এরপর কিছু কথা বিনিময় হতে দেখা গেছে দুজনের মধ্যে। পর মুহূর্তে ফাহিমকে কিংকর্তব্যবিমূঢ় দেখাচ্ছিল।

ফাহিম লিফট থেকে ঘরের ভেতরে পা রাখতেই মাস্ক পরিহিত ওই ব্যক্তি ফাহিমকে আক্রমণ করেন। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা যাচ্ছে, টেজার দিয়ে পেছন থেকে আঘাতের পর ফাহিম লিফট থেকে বের হতেই সামনের দিকে পড়ে যান। এরপর লিফটের দরজা বন্ধ হয়ে যাওয়ায় সিসিটিভির ফুটেজ আর রেকর্ড হয়নি। তদন্তকারীরা মনে করেন, এরপরই হ্যাসপিল ছুরিকাঘাত করে ফাহিমকে হত্যা করেন। পরে হ্যাসপিল কার সার্ভিস ডেকে হোম ডিপোয় চলে যান। কার সার্ভিসের সেই পেমেন্ট তিনি পরিশোধ করেছেন ফাহিমের ক্রেডিট কার্ড ব্যবহার করে। হোম ডিপো থেকে কিছু ক্লিনিং আইটেমও কেনেন হ্যাসপিল।

ফাহিমের অ্যাপার্টমেন্ট ভবনের লিফটের সিসিটিভি ক্যামেরায় দেখা যায়, পরদিন ১৪ জুলাই দুপুরে আবার ফিরে আসেন হ্যাসপিল। সঙ্গে ছিল রিচার্জেবল ভ্যাকুম। পুলিশের মতে, ভ্যাকুমটি হত্যার পর লক্ষণ মুছে ফেলার চেষ্টায় ব্যবহার করা হয়েছিল। পুলিশের ধারণা, ১৪ জুলাই দুপুরে ইলেকট্রিক করাত ব্যবহার করে ফাহিমের দেহ খণ্ড খণ্ড করেন হ্যাসপিল। এ সময় ফাহিমের বোন অ্যাপার্টমেন্টের দরজা নক করেন। তিনি পুলিশকে ‘ওয়েলফেয়ার চেকের’ (নিকটাত্মীয় বা প্রতিবেশীর অপমৃত্যু হয়েছে এ রকম আশঙ্কায় পুলিশের সহায়তা চাওয়া) অনুরোধ জানান। তবে পুলিশ আসার আগেই ভবনের পেছনের সিঁড়ি দিয়ে হ্যাসপিল পালিয়ে যান। এরপরে পুলিশ আসে।

এখন পর্যন্ত ঘটনার বিবরণে এমন তথ্যই জানা গেছে পুলিশের পক্ষ থেকে। ক্রেডিট কার্ডের লেনদেনের সূত্র ধরেই ১৭ জুলাই প্রায় এক মাইল দূরের একটি অ্যাপার্টমেন্ট থেকে টাইরেস ডেঁভো হ্যাসপিলকে গ্রেপ্তার করা হয়। জামিন না দিয়ে তাঁকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হ্যাসপিল এখনো কোনো তথ্য দেননি। তবে তিনি নিজেকে নিরপরাধ বলে দাবি করছেন।

এলএ বাংলা টাইমস/এম/বিএইচ

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৬৭৩ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত

সাম্প্রতিক খবর