যুক্তরাষ্ট্রে আজ বুধবার, ২২ নভেম্বর, ২০১৭ ইং

|   ঢাকা - 08:34pm

|   লন্ডন - 02:34pm

|   নিউইয়র্ক - 09:34am

  সর্বশেষ :

  ইতালিতে বাংলাদেশ সমাজ কল্যাণ সমিতির নির্বাচন সম্পন্ন   ধর্ম অবমাননা নিয়ে রংপুরে সহিংসতা, আদালতে টিটু রায়ের স্বীকারোক্তি   টিকাতেই নিরাময় হবে ক্যান্সার   মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা ‘জাতিগত বৈষম্যের’ শিকার : অ্যামনেস্টি   ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র জালিয়াতি, আটক ৮   নাইজেরিয়ায় মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৫০   রোহিঙ্গাদের ফেরাতে চলতি সপ্তাহে সমঝোতার আশা সু চি’র   জানুয়ারি থেকে সব বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিশেষ ভাতা: প্রধানমন্ত্রী   আমেরিকান মিউজিক অ্যাওয়ার্ডসে সেরা হলেন যারা   পদত্যাগ নয়, জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন মুগাবে   কেন সৌদি আরব এমন করছে?   মরক্কোয় ত্রাণ নেওয়ার সময় পদদলিত হয়ে নিহত ১৫   ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক দিবস ঘোষণা চেয়ে হাইকোর্টে রিট   শাহজালালের মাজারের কুপের পানিকে জমজমের পানি বলে প্রতারণা : তদন্তের নির্দেশ আদালতের   এলপিজি আমদানির জাহাজ কিনলো বেক্সিমকো পেট্রোলিয়াম

মূল পাতা   >>   লস এঞ্জেলেস

লস এঞ্জেলেসে বিএনপির উদ্যোগে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস পালিত

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৭-১১-০৮ ১২:৩১:২৭

নিউজ ডেস্ক: ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর 'জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস' উপলক্ষ্যে লস এঞ্জেলেসের প্রবাসী বাংলাদেশী অধ্যুষিত 'লিটিল বাংলাদেশে' ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি আয়োজিত এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত ৭ নভেম্বর মঙ্গলবার সন্ধ্যায় অনুষ্ঠিত এ আলোচনা সভায় প্রবাসী মুক্তিযোদ্ধা, বুদ্ধিজীবী, ছাত্র, ব্যবসায়ী, শিক্ষক, আইনজীবী, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ছাড়াও বিএনপি'র বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মীগণ ও সাধারণ প্রবাসীরা উপস্হিত ছিলেন। আলোচনা সভার সভাপতিত্ব করেন ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র সভাপতি জননেতা মো: আ: বাছিত এবং সঞ্চালনা করেছেন ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র সাধারণ সম্পাদক বদরুল আলম চৌধুরী শিপ্‌লু। এদিন বিএনপির সভায় সদ্য প্রয়াত সাবেক রাষ্ট্রপতি আবদুর রহমান বিশ্বাস ও সাবেক মন্ত্রী এমকে আনোয়ারের রূহের মাগফিরাত কামনায় বিশেষ দোয়া ও মুনাজাত করা হয়েছে।

আলোচনা পর্বে ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র সভাপতি মো: আ: বাছিত বলেন, ১৯৭৫ সালের এই দিনে আধিপত্যবাদী চক্রের সকল ষড়যন্ত্র রুখে দিয়ে আমাদের জাতীয় স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব ও গণতন্ত্র রার দৃঢ় প্রত্যয় বুকে নিয়ে সিপাহী-জনতা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রাজপথে নেমে এসেছিল। তাদের ঐক্যবদ্ধ বিপ্লবের মাধ্যমেই রক্ষা পায় সদ্য অর্জিত বাংলাদেশের স্বাধীনতা। কয়েকদিনের দুঃস্বপ্নের প্রহর শেষে সিপাহী-জনতা ক্যান্টনমেন্টের বন্দিদশা থেকে মহান স্বাধীনতার ঘোষক, বহুদলীয় গণতন্ত্র ও বাংলাদেশি জাতীয়তাবাদের  প্রবর্তক, স্বনির্ভর বাংলাদেশের স্বপদ্রষ্টা এবং বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সফল রাষ্ট্রনায়ক শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বীর উত্তমকে মুক্ত করে দেশ পরিচালনার গুরুদায়িত্ব অর্পণ করে। তাই ৭ নভেম্বর আমাদের জাতীয় জীবনের এক অনন্য ঐতিহাসিক তাৎপর্যমন্ডিত দিন।

ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র সাধারণ সম্পাদক বদরুল আলম চৌধুরী শিপ্‌লু বলেন, সিপাহী-জনতার বিপ্লবের মাধ্যমেই এ দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার হয়েছিল। চালু হয়েছে বহুদলীয় গণতন্ত্র। বন্ধ হয়েছে একদলীয় বাকশালী শাসনব্যবস্থা। এর সুফল এখন আওয়ামী লীগসহ সকল রাজনৈতিক দলগুলো পাচ্ছে। আজ ইনু সাহেবরা বড় বড় কথা বলেন, একদলীয় বাকশাল সরকার থাকলে তারাও এদেশে রাজনীতি করার সুযোগ পেতেন না। মন্ত্রী হতে পারতেন না। তিনি আরো বলেন, সরকার জানে এদেশের মানুষ তাদের ভোট দিবে না। তাই তারা ৫ জানুয়ারির মতো যেনতেন প্রহসনের ভোটারবিহীন নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতায় টিকে থাকতে চায়। কিন্তু তাদের এ উদ্দেশ্য সফল হবে না। এদেশের মানুষ আবার তাদের ভোটের অধিকার ফিরে পেতে বিএনপিকেই ভোট দিবে।

ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র যুগ্ম-সম্পাদক সৈয়দ নাসিরউদ্দিন জেবুল বলেন, এ সরকার পুলিশের ভয় দেখিয়ে ক্ষমতাকে দীর্ঘ করতে চায়। কিন্তু এদেশের মানুষ আওয়ামী লীগকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। পুলিশের উদ্দেশ্যেও আমরা বলতে চাই, দেশনেত্রীর গাড়িবহরে হামলা করল আওয়ামী লীগ আর আপনারা মামলা দিলেন বিএনপির নেতাকর্মীদের নামে। যারা এ ধরনের কাজ করছেন তাদেরও বিচার এদেশে একদিন হবেই। আর দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলতে চাই, আপনারা ঐক্যবদ্ধ হন, আগামী নির্বাচনে বিএনপি ক্ষমতায় আসবেই।

ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপি'র সাংগঠনিক সম্পাদক মারুফ খান বলেন, ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর সিপাহী-জনতার সম্মিমিলিত বিপ্লবে নস্যাৎ হয়ে গিয়েছিল স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বিরোধী ষড়যন্ত্র। আধিপত্যবাদ ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তির আগ্রাসন থেকে রা পায় বাংলাদেশ। এদিন সিপাহী-জনতা কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে ঢাকা সেনানিবাসের বন্দিদশা থেকে মুক্ত করে এনেছিল তৎকালীন সেনাপ্রধান ও স্বাধীনতার ঘোষক মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে। ৭ নভেম্বরের ঘটনা এক বিরল ও অনন্যসাধারণ ঘটনা। স্বাধীনতা আর সার্বভৌমত্ব রার শপথে দৃপ্ত কোটি মানুষের মিছিলের দিন ৭ নভেম্বর। ঐতিহাসিক বিপ্লব সফল না হলে জাতি হিসেবে আমরা আবার পরাধীন হয়ে থাকতাম।

ঐতিহাসিক ৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবসের আলোচনায় অংশ নিয়ে ক্যালিফোর্ণিয়া বিএনপির নেতৃবৃন্দরা বলেন, যতোদিন এই দেশ থাকবে ততোদিন মানুষের অন্তরে বেঁচে থাকবেন শহীদ জিয়াউর রহমান। এদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন শহীদ জিয়া। একনায়কতন্ত্রে বিশ্বাসীদের কাছে ও আধিপত্যবাদীদের কাছে এক আতংকের নাম দেশপ্রেমিক শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান। আর তাই শহীদ জিয়ার পরিবারের প্রতি বর্তমান অবৈধ আওয়ামী সরকারের এতো জুলুম ও নির্যাতন। তবে জাতীয়তাবাদী চেতনায় উদ্বুদ্ধ দেশপ্রেমিক মানুষ বিএনপির পতাকাতলে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ আছে। আগামী দিনে নিরপেক্ষ সহায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে দেশে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও সাধারণ মানুষের ভোটাধিকার নিশ্চিত করা হবে। একদলীয় বা একতরফা নির্বাচনে আর কোনভাবেই পার হতে দেওয়া হবে না বলে কঠোর হুশিয়ারী উচ্চারন করেন নেতৃবৃন্দ।

৭ নভেম্বর জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবসের আলোচনা সভায় উপস্হিত ছিলেনঃ মোঃ আঃ বাছিত, মোঃ হান্নান, সরোয়ার আহমদ, মানিক চৌধুরী, মুর্শেদুল ইসলাম, বদরুল আলম চৌধুরী শিপ্‌লু, আবু তাহের সাজু, ফারুক সরকার, এ আর মাহবুবুল হক, জহিরুল কবীর হেলাল, অপু সাজ্জাদ, মিশর নুন, মোয়াজ্জেম আহমেদ রাসেল, সৈয়দ নাসিরউদ্দিন জেবুল, লায়েক আহমেদ, বদরুল আলম মাসুদ, মারুফ খান, ইলিয়াস মিয়া, শাহতাব কবীর ভূইয়া শান্ত, শাহীন হক, হোসেন আহমেদ, মিয়াকেল খান রাসেল, মিজানুর রহমান, আমজাদ চৌধুরী দুলাল, রেজাউল হায়দার চৌধুরী, নাঈমুল ইসলাম চৌধুরী, মিল্টন খান, জাভেদ বখ্‌ত, খসরু রানা, ফয়সাল সিদ্দিক, খোরশেদ আলম রতন, রুহুল আমিন বাবু, জিল্লুর রহমান চৌধুরী, আবুল মোতালেব, সাজ্জাদ পারভেজ, হেলাল মজুমদার, ইসলাম উদ্দিন, জুনেল আহমদ, শাহেদ আহমদ, তানভীর আহমেদ, শাহানুর কবীর ভূইয়া, আবদুল হাকিম, কামরুল ইসলাম চৌধুরী, আবু তাহের সাজু, ফুয়াদ, নুর, মঈনুল আহমেদ, সামসুল ইসলাম, ফারুক সরকার, রেজাউল করিম জামিল, এহসান হক, ওমর ফারুক, কামাল হোসেন, আবদুল কাদির, নজরুল ইসলাম, ইহসান আহমেদ,হুমায়ূন কবীর, নাসের, রাশেদ, কবীর প্রমুখ।

এলএবাংলাটাইমস/এল/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৫৩৯ বার

আপনার মন্তব্য

সাম্প্রতিক খবর