যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 02:16am

|   লন্ডন - 08:16pm

|   নিউইয়র্ক - 03:16pm

  সর্বশেষ :

  কুষ্টিয়া জেলা সমিতি ইউএসএ ইনকের শীত বস্ত্র বিতরণ   ইতালীতে দু’টি শহীদ মিনারেরই বেহাল অবস্থা   ফিল্মফেয়ারে সেরা অভিনেত্রী জয়া আহসান   স্কুলে বন্ধুক হামলার ঘটনায় এফবিআইয়ের কড়া সমালোচনা ট্রাম্পের   ডিসেম্বর নয়, আজকেই অবসরে যান : মুহিতকে বাবলু   নো-ম্যান্স ল্যান্ডে রোহিঙ্গাদের গণহত্যার প্রস্তুতি মিয়ানমারের!   বাংলাদেশ থেকে কার্গো পরিবহনে বাধা তুলে নিল যুক্তরাজ্য   নিজের নম্বর গোপন রেখে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট   ইরানে অভ্যন্তরীণ উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত, ৬৬ যাত্রীর সবাই নিহত   মেক্সিকোতে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত হয়ে নিহত ১৪   ভক্তদের ভালবাসা জানালেন শাহানা কাজী   বাংলাদেশ ক্লাবের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে মাল্টা যাচ্ছে ইতালির রত্না-অর্পিতা   মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত হতে পারেন সু চি   শরীরের ভেতরের যেসব অঙ্গ ছাড়াও আপনি বাঁচতে পারবেন   দেশে ফিরেছেন প্রধানমন্ত্রী

মূল পাতা   >>   লস এঞ্জেলেস

San Fernando Valley তে ভয়াবহ দাবানল, উদ্বাস্তু ১ লক্ষের বেশি বাসিন্দা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৭-১২-০৭ ১৪:০৭:৪৬

নিউজ ডেস্ক: গত মঙ্গলবার রাত ৪ টার দিকে Sylmar’এর পাদদেশ থেকে এক প্রলয়ঙ্করী দাবানল শুরু হয়। দমকা বাতাসে প্রচণ্ড গতিতে পুরো এলাকায় ছড়িয়ে এই অপ্রতিরোধ্য দাবানল। বাতাসের গতি বেশি থাকায় অগ্নিনির্বাপক কর্মীরাও আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে খুব একটা সুবিধা করে উঠতে পারে নি। গত দুই দিনের আগ্রাসী এই দাবানলে San Fernando Valley’ র ১ লক্ষেরও বেশি বাসিন্দা উদ্বাস্তু হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।    

প্রলয়ঙ্করী এই দাবানলে ১২ হাজার ৬০৫ একর এলাকা আগুনে পুড়ে ছাই হয়ে যায়, সেইসাথে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় কমপক্ষে ৩০ টি বাড়ি। অগ্নিনির্বাপক কর্মীরা প্রবল বাতাসের কারণে বাঁধার সম্মুখীন হয়। কিছু কিছু এলাকায় ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ৮০ কিলোমিটারের বেশি গতিতে বাতাস প্রবাহিত হয়েছে বলে জানান, আবহাওয়া অফিস।

বেঁচে থাকতে wildland এলাকার বাসিন্দাদের গতকাল একচোখ খোলা রেখে ঘুমানোর নির্দেশ দিয়েছিলেন, লস এঞ্জেলেস কাউন্টির অগ্নিনির্বাপক প্রধান Darly Osby. সেইসাথে গতকাল রাতে বাতাসের গতিবেগ বাড়বে বলেও আশংকা প্রকাশ করেছিলেন লস এঞ্জেলেস ফায়ার বিভাগের ঊর্ধ্বতন এই কর্মকর্তা।

ফায়ার ব্রিগেডের পাইলটরা হেলিকপ্টারের সাহায্যে অনবরত অগ্নিনির্বাপণ করার চেষ্টা করেন। বাসিন্দারা তাদের ক্ষয়ক্ষতি পরিমাপ করার চেষ্টা করছেন বলে জানান গণমাধ্যমগুলো। তবে এখনো অব্দি প্রকৃত ক্ষয়ক্ষতির হিসাব পাওয়া যায় নি। গত দুইদিন ভয়াবহ দাবানলে পাহাড়ের পাদদেশের বাসিন্দাদের চোখে ঘুম ছিল না। আগ্রাসী এই তাণ্ডবে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।


এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৫৬৩ বার

আপনার মন্তব্য