যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ২৪ Jun, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 08:34pm

|   লন্ডন - 03:34pm

|   নিউইয়র্ক - 10:34am

  সর্বশেষ :

  নিউজার্সিরতে বাংলাদেশের নামে সড়ক উদ্বোধন   সড়কের পর সিলেটের সাথে সারাদেশের ট্রেন যোগাযোগও বন্ধ   কুলাউড়ায় ট্রেন খালে: ৪ জনের লাশ উদ্ধার, আহত আড়াই শতাধিক   ‘মুরসির রক্তের প্রতিটি ফোটা আমাদের নতুনভাবে উজ্জীবিত করবে’   সরকারি দলে থাকতে না পেরে সুলতান মনসুরের আফসোস   ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশ গড়ার অঙ্গীকার: দলের ৭০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে শেখ হাসিনা   মেনন গ্রুপ বঙ্গবন্ধুর বিরোধিতা করত: শেখ সেলিম   জুলাই থেকে ভারতে দেখা যাবে বিটিভি   ইথিওপিয়ার সেনাপ্রধান ও রাজ্যপ্রধানকে গুলি করে হত্যা   ওমরাহ ভিসা স্থগিত করেছে সৌদি আরব   যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষে গুপ্তচরবৃত্তির দায়ে সাবেক কর্মীর ফাঁসি কার্যকর করেছে ইরান   নাসায় ফ্যালকন-নাইন স্পেস শাটলের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছে বাংলাদেশ   দক্ষিণ ইংল্যান্ডে ঘণ্টায় এক হাজার বজ্রপাত!   সৌদি আরবের কাছে ট্রাম্পের অস্ত্র বিক্রি আটকে দিল মার্কিন সিনেট   ঢাকা-সিলেট সড়ক যোগাযোগ বন্ধ, বিকল্প সড়কে ভাঙন

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

অন্তর্জ্বালা থেকে মনগড়া ও ভুতুড়ে কথা বলেছেন সিনহা : কাদের

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৯-২০ ০৯:১২:৪০

নিউজ ডেস্ক: সাবেক হওয়ার অন্তর্জ্বালা থেকেই প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা মনগড়া বই লিখেছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহন মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানী বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের নেতাদের সঙ্গে বৈঠক পূর্ব সময়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বুধবার প্রকাশিত হয়েছে সাবেক এ প্রধান বিচারপতির বই ‘অ্যা ব্রোকেন ড্রিম: রুল অব ল, হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি।’

বইটি কাদের বলেন, ‘তিনি সাবেক হয়ে গেছেন। সাবেক হওয়ার অন্তর্জ্বালা আছে। কী পরিস্থিতিতে সাবেক হয়েছেন তা সবাই জানে। বই লিখে মনগড়া কথা বলবেন বিদেশে বসে, সেটা নিয়ে কথা বলার কোনো প্রয়োজন আছে? ক্ষমতা যখন থাকে না তখন অনেক অন্তর্জ্বালা গড়ে উঠে।’

তিনি বলেন, ‘প্রধান বিচারপতি থাকা অবস্থায় এখন বইতে যা লিখেছেন, তখন বলার সৎ সাহস একজন বিচারপতির কেন ছিলো না? এখন বিদায় নিয়ে কেন পুরানো কথা নতুন করে বলছেন, যা খুশি তাই বলছেন। এটা হয়, এটা হতেই পারে। এ নিয়ে আমরা কোনো মন্তব্য করতে চাই না। তিনি যদি সত্যই বলতেন, তাহলে যখন প্রধান বিচারপতি ছিলেন তখন বললেন না কেন? সত্য কথা দেশের জনগণের মাঝে এসে বললেন না কেন? এখন বিদেশে বসে আপন মনে ভুতুড়ে কথা চাপছেন। এটা আমাদের ও দেশের মানুষের বিশ্বাস করতে হবে? এর যৌক্তিকতা নাই।’

বইটির চুম্বক অংশ
৬১০ পৃষ্ঠার এই বইটি অ্যামাজনের কিন্ডেল সংস্করণে বিক্রি হচ্ছে। বইয়ের চুম্বক অংশ অ্যামাজনের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়েছে।

এতে এসকে সিনহা দাবি করেন, ‘২০১৭ সালে সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনীর রায়ের কারণে বর্তমান সরকার তাকে পদত্যাগে বাধ্য করেছে। ওই রায়ের মাধ্যমে তিনি বিচারপতিদের অভিশংসনের ক্ষমতা সংসদের হাতে যাওয়াকে অবৈধ ঘোষণা করেছিলেন।’

তিনি লিখেছেন, ‘বিচার বিভাগের স্বাধীনতা একটি উদার গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের জন্য পূর্বশর্ত। ১৯৭১ সালে স্বাধীনতা যুদ্ধের মাধ্যমে সৃষ্টি হওয়া বাংলাদেশ ১৯৭২ সালে দেশটির সংবিধানে গণতন্ত্রকে এর অন্যতম রাষ্ট্রীয় মূলনীতি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে। নির্বাহী বিভাগ থেকে বিচার বিভাগকে আলাদা করাও এ সংবিধান নিশ্চিয়তা বিধান করে।’

সাবেক এই প্রধান বিচারপতি অভিযোগ করে বলেন, ‘২০১৭ সালের বিচার বিভাগের স্বাধীনতা নিয়ে ঐতিহাসিক রায় দেয়ার পর বর্তমান সরকার কর্তৃক আমাকে পদত্যাগ করতে বাধ্য করা হয় এবং জোরপূর্বক দেশ থেকে বের করে দেয়া হয়।’

এসকে সিনহা আরো বলেন, ‘রাষ্ট্র পরিচালনায় সরকার ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের প্রবণতা নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সর্বসম্মত ওই রায় ও পর্যবেক্ষণ দেশের নাগরিক, সুশীল সমাজের কাছে ভালোভাবে গৃহীত হয় এবং স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমেও গুরুত্ব পায়।’

সাবেক এই বিচারপতি লেখেন, ‘কিন্তু এই রায় বিরুদ্ধে যাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী ও তার দলের অন্যান্য মন্ত্রীরা বিষোদগার করতে থাকেন। আইনমন্ত্রীসহ মন্ত্রিপরিষদ সদস্যরা ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির অভিযোগ এনে আমার সমালোচনা শুরু করেন’।

উল্লেখ্য, প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করা এস কে সিনহার অবসরে যাওয়ার কথা ছিল ২০১৮ সালের ৩১ জানুয়ারি। কিন্তু কার্যকাল শেষ হওয়ার ৮১ দিন আগেই তাকে পদত্যাগ করতে হয়।

এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৯৩৯ বার

আপনার মন্তব্য