যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 07:27pm

|   লন্ডন - 01:27pm

|   নিউইয়র্ক - 08:27am

  সর্বশেষ :

  ট্রাম্পকে শান্তিতে নোবেলের জন্য অনুরোধ করেছিল যুক্তরাষ্ট্র   ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাককে ফরীদ উদ্দীন মাসঊদের অভিনন্দন!   অনুমোদন পেল আরও তিন ব্যাংক   সড়কে শৃঙ্খলা ফেরাতে শাজাহান খানের নেতৃত্বে কমিটি   ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের কমিটি গঠিত   পাকিস্তান সীমান্তে ১৪০ যুদ্ধবিমান নিয়ে ভারতের মহড়া   কাশ্মীরে বোমা বিস্ফোরণে ভারতীয় মেজর নিহত   পুলওয়ামা হামলার পর ভারতজুড়ে আতঙ্কে কাশ্মীরিরা   মা-বাবার পাশে শায়িত হলেন আল মাহমুদ   শিক্ষিত হয়েও অনেকে স্বেচ্ছায় বেকার : পরিকল্পনামন্ত্রী   মিউনিখে প্রধানমন্ত্রীকে নাগরিক সংবর্ধনা   আল মাহমুদের জানাজা সম্পন্ন, কাল নিজ গ্রামে দাফন   জামায়াত থেকে শিবিরের সাবেক সভাপতি মঞ্জু বহিষ্কার   বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি হলেন ৪৯ নারী   জামায়াত বিলুপ্তির প্রস্তাব, যা বললেন ওবায়দুল কাদের

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

বাংলাদেশের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে জাতিসঙ্ঘের উদ্বেগ

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-১০-০৯ ১২:৩৩:৪০

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশে সদ্য পাস হওয়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে গুরুতরভাবে বাধাগ্রস্থ করবে বলে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে জাতিসঙ্ঘ। বিশ্ব সংস্থাটির মতে, এ আইন ব্যক্তি স্বাধীনতা ও আইনের যথাযথ প্রক্রিয়াকে ব্যাহত করবে। এটি সাংবাদিক, ব্লগার ও ইতিহাসবিদদের কাজের ওপর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে। এ ছাড়া ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যক্তিগত মত প্রকাশের যৌক্তিক চর্চাকে শাস্তির আওতায় আনবে।

মঙ্গলবার জেনেভা থেকে মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসঙ্ঘ হাইকমিশনারের মুখপাত্র রাভিনা শামদাাসানি এক বিবৃতিতে এ অভিমত ব্যক্ত করেন। তিনি বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে এমন বায়বীয় বিধান রয়েছে যার আওতায় অনলাইনে মত প্রকাশের কারণে আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতির বিঘ্ন ঘটলে, ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত লাগলে বা সম্প্রদায়িক সম্প্রীতি নষ্ঠ হলে কোনো ব্যক্তির সাত বছর কারাদন্ড বা জরিমানা হতে পারে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, জাতীয় সঙ্গিত বা জাতীয় পতাকার প্রতি অবমাননাকর কোনো প্রপাগান্ডা বা প্রচারনা চালালে ১০ বছরের কারাদন্ড বা এক কোটি টাকা জরিমানা হতে পারে। ঔপনিবেশিক আমলের অফিসিয়াল সিক্রেসি অ্যাক্টকে এই আইনে সন্নিবিশিত করা হয়েছে, যার আওতায় প্রথমবার অপরাধ করলে ১৪ বছরের কারাদন্ড ও পুনরাবৃত্তি ঘটলে যাবৎজীবন কারাদন্ডের বিধান রয়েছে।

মুখপাত্র বলেন, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পুলিশকে ওয়ারেন্ট ছাড়াই তল্লাশি ও গ্রেফতারের ব্যাপকভিত্তিক ক্ষমতা দিয়েছে। এই আইনের অধীনে অনেক অপরাধই অজামিনযোগ্য। এটি আইনের যথাযথ প্রয়োগের ব্যাপারে বাংলাদেশে উৎকন্ঠার সৃষ্টি করেছে। এই আইন সরকারকে ডিজিটাল তথ্যের ওপর অবারিত ক্ষমতা দিয়েছে।

বিবৃতিতে বলা হয়, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার বিষয়ক আন্তর্জাতিক সনদের আওতায় বাংলাদেশের বাধ্যবাধকতার সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ নয়। গত ২০ সেপ্টেম্বর জাতিসঙ্ঘ মানবাধিকার পরিষদে ইউনিভার্সাল পিরিয়ডিক রিভিউতে বাংলাদেশ মত প্রকাশের স্বাধীনতা সংক্রান্ত সুপারিশগুলোর সাথে একমত পোষণ করে আন্তর্জাতিক বাধ্যবাধকতার সাথে জাতীয় আইনে সামঞ্জস্য রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। কিন্তু ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সমস্যাযুক্ত বিধানগুলো পর্যালোচনার প্রতিশ্রুতি থেকে সরকার সরে এসেছে।

বিবৃতিতে আন্তর্জাতিক মানবাধিকার আইনের সাথে সামঞ্জস্য রেখে জরুরিভিত্তিতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন পর্যালোচনার জন্য বাংলাদেশের প্রতি আহ্বান জানানো হয়। যথেচ্ছ গ্রেফতার, আটক ও মত প্রকাশের স্বাধীনতার প্রতি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টিকারী বিধানগুলোতে ভারসাম্য আনার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানানো হয়। এ জন্য মানবাধিকার বিষয়ক জাতিসঙ্ঘ হাইকমিশনার কার্যালয় বাংলাদেশকে সব ধরনের সহায়তা দিতে প্রস্তুত।

এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৬০৮ বার

আপনার মন্তব্য