যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 01:28am

|   লন্ডন - 07:28pm

|   নিউইয়র্ক - 02:28pm

  সর্বশেষ :

  বেশি পেঁয়াজ খায় সিলেট অঞ্চলে, কম বরিশালে   ইউরোপের প্রথম পরিবেশ বান্ধব মসজিদ উদ্বোধন করলেন এরদোগান   স্টামফোর্ড ইউনিভার্সিটি ছাত্রী রুম্পার মৃত্যুর রহস্য উদ্ঘাটন হয়নি ৪৫ ঘণ্টায়ও   বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হলেন সৃজিত-মিথিলা   বন্ধুপ্রতীম ভারত বাংলাদেশের জন্য আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি করবে না: পররাষ্ট্রমন্ত্রীর   ভারত থেকে বাংলাদেশে অবৈধ অনুপ্রবেশ ঠেকাতে সীমান্তে কড়াকড়ি   ভারতে ধর্ষণের পর হত্যা, চার ধর্ষকই পুলিশের গুলিতে নিহত   কাশ্মীরে বন্ধ হচ্ছে হোয়াটসঅ্যাপ   টাঙ্গাইলে সড়ক দুর্ঘটনায় একই পরিবারের ৩ জন নিহত   বরের মুখ দেখেই বিয়ে ভেঙে দিল কনে   আজ যা ঘটেছে সব দায় অ্যাটর্নি জেনারেলের : খন্দকার মাহবুব   ৬২৯ পাকিস্তানী তরুণীকে কনে হিসেবে চীনে বিক্রি   আদালতে জঙ্গির মাথায় আইএসের টুপি: দুই সংস্থা বলছে দুরকম!   বুয়েটে আরও ৮ শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার   গিনেজ ওয়ার্ল্ড রেকর্ডসে বাংলাদেশের শাহ্‌ সিমেন্ট

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

মা-মেয়ের একসঙ্গে এইচএসসি পাস

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১৭ ১২:০৯:০৫

নিউজ ডেস্ক: নাটোরের বাগাতিপাড়ায় মা-মেয়ে একসঙ্গে এইচএসসি পাস করেছে। মা ১৯৯৭ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিলেন। কিন্তু পরীক্ষার আগেই পরিবার থেকে তার বিয়ে দিয়ে দেন। এরপর আর পরীক্ষা দিতে পারেননি। কিন্তু বুকের ভেতরের সেই ইচ্ছে পূরণে অবশেষে তিনি নতুন করে শুরু করেন লেখাপড়া।

চলতি বছর নিজের মেয়ের সাথে একসঙ্গে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হয়েছেন নাটোরের বাগাতিপাড়ার মাসুমা খাতুন। তিনি এ বছর কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীনে পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পেয়েছেন জিপিএ ৪ দশমিক ১৩। আর মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌস রাজশাহী সরকারী মহিলা কলেজ থেকে বিজ্ঞান বিভাগে জিপিএ ৫ পেয়েছেন।

মাসুমা খাতুন বাগাতিপাড়া পৌর মহিলা বিএম কলেজের সেক্রেটারিয়েল সায়েন্স ট্রেডের ছাত্রী ছিলেন। এর আগে তিনি নিজের মেয়ের সাথে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হন। ২০১৭ সালে মেয়ের সাথে এসএসসি পাশ করেন। এবার সেই মেয়ের সাথে একসঙ্গে এইচএসসি পরীক্ষা দিয়ে উত্তীর্ণ হলেন।

মাসুমা খাতুনের বাবার বাড়ি বাগাতিপাড়া উপজেলার বারইপাড়া গ্রামে। বিয়ে হয় বাগাতিপাড়া উপজেলা সদরে। স্বামী আব্দুল মজিদ আনসার ব্যাটালিয়নে সিপাহি (প্রশিক্ষক) পদে চাকরি করেন। মাসুমা খাতুনের দুই সন্তানের বড় ছেলে বনি আমিন বাগাতিপাড়া সরকারি ডিগ্রী কলেজের স্নাতক শ্রেণীর ছাত্র।

মাসুমা খাতুন বলেন, ‘বিয়ের ১৮ বছর পেরিয়ে গেছে। পিঠাপিঠি দুই ছেলেমেয়েকে মানুষ করতে গিয়ে নিজের পড়ার কথা ভাবারই সময় পাইনি। অবশেষে ছোট মেয়ে জান্নাতুল ফেরদৌসের সঙ্গে নবম শ্রেণীতে ভর্তি হয়ে নতুন করে পড়ালেখা শুরু করেছি। সমাজে আর দশটা মানুষের মতো নিজেকেও একজন শিক্ষিত মানুষ হিসেবে যাতে পরিচয় দিতে পারি, সে কারণেই এই বয়সে কষ্ট করে লেখাপড়া করছি’।

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১৫২ বার

আপনার মন্তব্য

সাম্প্রতিক খবর