যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ১৯ অগাস্ট, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 10:43am

|   লন্ডন - 05:43am

|   নিউইয়র্ক - 12:43am

  সর্বশেষ :

  পুড়ে যাওয়া বস্তি যেন দর্শনীয় স্থান!   ডেঙ্গু: চব্বিশ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি ১৭০৬   আসামের এনআরসি ও কাশ্মিরের স্বায়ত্তশাসন বাতিল: নেপথ্যে মোদির মুসলিমবিদ্বেষ   কাশ্মীর ইস্যুতে আরব দেশগুলোর নীরবতার নেপথ্য কারণ কী?   কাবুলে বিয়ের অনুষ্ঠানে হামলা, নিহত ৬৩   মেট্রো ওয়াশিংটন আওয়ামী লীগ যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর সোহেল’র ইন্তেকাল   ভারতের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার এখন ফ্যাসিস্ট মোদির হাতে : ইমরান খানের হুঁশিয়ারি   রাঙ্গামাটিতে সন্ত্রাসীদের সাথে গুলি বিনিময়ে এক সেনাসদস্য নিহত   বঙ্গবন্ধু ছাড়া বাংলাদেশ কল্পনা করা যায় না: মুক্তিযোদ্বা ডা: সিরাজুল ইসলাম   ঈদযাত্রায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২২৪   কাশ্মীরে বিধি-নিষেধ দ্রুত তুলে দেওয়ার আহ্বান ওআইসির   অরল্যানডোতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা   আ.ন.ম শফিকুল হকের মৃত্যুতে আনোয়ার শাহদাতের শোক   মনের সুখই আসল সুখ   পাইলট যেভাবে বিমানটিকে ভুট্টা ক্ষেতে নামালেন

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

দুই নাতনিকে বুকে জড়িয়ে আদর করলেন খালেদা জিয়া

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৮-১২ ১২:১২:৫০

নিউজ ডেস্ক:
বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সাথে দেখা করেছেন তার পরিবারের কয়েকজন সদস্য। দুই নাতনিকে নিয়ে বাসার রান্না করা খাবার খেয়েছেন খালেদা জিয়া। দুই নাতনি জাহিয়া ও জাফিয়া হচ্ছেন তার ছোট ছেলে মরহুম আরাফাত রহমান কোকোর কন্যা। দু‘জনই তাদের মা শর্মিলা রহমান সিঁথির সাথে কারাবন্দী দাদী খালেদা জিয়াকে দেখতে এসেছিলো বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে। স্বজনদের নিকটজনের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, অসুস্থ বেগম খালেদা জিয়া দুই নাতনিকে দেখে খুশি হয়েছেন। দাদীকে পায়ে ধরে সালাম করার পর দুই নাতনিকে বুকে জড়িয়ে আদর করেন খালেদা জিয়া।

পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করে বলেন, বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থা ভালো নয়। তিনি কারো সাহায্য ছাড়া একা হাটতে পারেন না, হুইল চেয়ারে করে তাকে চলাচল করতে হয়। ডায়াবেটিক থাকায় প্রতিদিনই তাকে ইনস্যুলিন নিতে হবে। রয়েছে দাঁত ও চোখের সমস্যা। হাত-পায়ে আর্থারাইটিসের ব্যাথাও রয়েছে তার।
গত ১ এপ্রিল থেকে অসুস্থ বিএনপি চেয়ারপারসন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ৬২১ নম্বর কেবিন চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ঈদের দিন কারা কর্তৃপক্ষ সীমিত পরিসরে ৬ জন দেখার অনুমতি দেয়। কোকোর স্ত্রী ও দুই মেয়ে ছাড়া ছিলেন- খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার, স্ত্রী কানিজ ফাতেমা ও ছেলে অভিক এস্কান্দার।
বেলা দেড়টার দিকে খালেদা জিয়ার সাথে সাক্ষাত করতে হাসপাতালের কেবিন ব্লকে আসেন তারা। ছোট ছেলের বউ শ্বাশুড়ির (খালেদা জিয়া) জন্য বাসা থেকে খাবার রান্না করা নিয়ে আসেন।

প্রায় দুই ঘন্টা নাতনি, ছোট ছেলে বউসহ ছোট ভাইয়ের পরিবারের সাথে সময় সময় কাটিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন।

বেলা দেড়টায় খালেদা জিয়ার স্বজনদের বিএসএমএমইউর ছয়তলার কেবিনের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কারাগারের প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে তারা খালেদা জিয়ার কেবিন কক্ষে প্রবেশ করেন।
সেবা শুশ্রূষার জন্য গৃহকর্মী ফাতেমা বেগমও খালেদা জিয়ার সাথে বন্দি রয়েছেন। সেও স্বজনদের সাথে খাবার খেয়েছেন।
মহিলা দলের সুলতানা আহমেদ, সাবিনা ইয়াসমীনসহ ১৫/১৬ নেতা-কর্মীও কেবিন ব্লকের সামনে সারিবদ্ধভাবে দাঁড়িয়ে থেকে তাদের নেত্রীকে স্মরণ করে। ছাত্রদলের ৫/৬ জন নেতা-কর্মীকেও কেবিন ব্লকের কাছে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গেছে।

গত ১ এপ্রিল থেকে খালেদা জিয়া বিএসএমএমইউ হাসপাতালে ভর্তি হন। কারাগারে খালেদা জিয়া এ নিয়ে ঈদ করেছেন ৬ বার।

 

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ২১৫ বার

আপনার মন্তব্য