যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 08:05pm

|   লন্ডন - 02:05pm

|   নিউইয়র্ক - 09:05am

  সর্বশেষ :

  এলএ বাংলা টামইসের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের প্রতিবাদ   সিরিয়ায় রাশিয়ার বিমান হামলা, নিহত ৯   পেঁয়াজ নিয়ে কারসাজি, আড়াই হাজার ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা   ২ ঘন্টা লাইনে দাড়িয়ে এক কেজি পেঁয়াজ কিনলেন সিলেটের মেয়র   ক্যালিফোর্নিয়ায় ফুটবল খেলা দেখার সময় গুলি, নিহত ৪   কাশ্মীরে বিস্ফোরণ, ভারতীয় সেনা নিহত   কমতে শুরু করেছে পেঁয়াজের দাম   শেরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত   আসাম আমার, পশ্চিমবঙ্গ আমার, ত্রিপুরাও আমার   হংকংয়ে পুলিশকে তীর ছুঁড়ছে বিক্ষোভকারীরা   বায়ু দূষণে আবার শীর্ষে ঢাকা   বাবরী মসজিদ মামলার রায় পুনর্বিবেচনার আবেদন করবে মুসলিম পার্সোনাল ল’ বোর্ড   কিশোরীর সঙ্গে যৌনমিলনের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করলেন ব্রিটিশ প্রিন্স   দুবাই এয়ার শো’তে যোগ দিলেন প্রধানমন্ত্রী   হারাম উপার্জন সন্তানের ওপর প্রভাব ফেলে

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

আবরার হত্যা : অবশেষে গ্রেফতার ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-১০-১০ ০৭:৩৬:৪৮

নিহত বুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ ও হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত গ্রেফতারকৃত বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইনবিষয়ক সম্পাদক অমিত সাহা

নিউজ ডেস্ক: বাংলাদেশ প্রকেৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র আবরার ফাহাদ হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ও মামলার বহুল আলোচিত আসামি ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহাকে অবশেষে গ্রেফতার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় রাজধানীর সবুজবাগ এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করে গোয়েন্দা পুলিশ। গ্রেফতারকৃত অমিত সাহা বুয়েট ছাত্রলীগের উপ-আইনবিষয়ক সম্পাদক। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত আবরার হত্যার ঘটনায় ১৪ জনকে গ্রেফতার করলো পুলিশ।

এদিকে ছাত্রলীগ নেতা অমিত সাহাকে গ্রেফতারের কথা নিশ্চিত করেছে ডিএমপি’র গোয়েন্দা ও অপরাধতথ্য বিভাগ। গ্রেফতারকৃত অমিত বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ১৬তম ব্যাচের ছাত্র।

উল্লেখ্য, আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে নির্মমভাবে হত্যার পর আলোচনার শীর্ষে উঠে আসেন অভিযুক্ত অমিত সাহা। তিনি বুয়েট শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইনবিষয়ক সম্পাদক। আবরার হত্যাকারণ্ডর পর থেকেই পলাতক ছিলেন তিনি। ঘটনার দিন বুয়েটের শের-ই বাংলা হলে তার কক্ষেই ডেকে নিয়ে প্রথমে পেটানো হয় আবরার ফাহাদকে।

এদিকে আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডে অমিত সাহা প্রত্যক্ষভাবে জড়িত অভিযোগ করে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা জানান, আবরার ফাহাদ হলে আছেন কিনা সে বিষয়ে প্রথম খোঁজ নিয়েছিলেন শাখা ছাত্রলীগের উপ-আইনবিষয়ক সম্পাদক অমিত সাহা। ঘটনার দিন সন্ধ্যায় অমিত সাহা আবরারের এক বন্ধুকে ইংরেজি অক্ষরে ‘আবরার ফাহাদ হলে আছে কিনা তা জানতে চেয়ে মেসেজ দেন।

মেসেজের এক ঘণ্টার মধ্যেই শের-ই বাংলা হলের ছাত্রলীগ নেতারা আবরারকে ১০১১ নম্বর কক্ষ থেকে ডেকে নিয়ে ২০১১ নম্বর কক্ষে এনে লাঠি, চাপাতি ও স্ট্যাম্প দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করে।

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১৯৮ বার

আপনার মন্তব্য