যুক্তরাষ্ট্রে আজ বুধবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 05:03pm

|   লন্ডন - 11:03am

|   নিউইয়র্ক - 06:03am

  সর্বশেষ :

  শ্রীদেবীর মৃত্যু নিয়ে নতুন বিতর্ক উস্কে দিলেন প্রিয়া!   বেতন দেয়ার রেকর্ড গড়েছে বার্সেলোনা   ত্যাগীরা মনোনয়নে অগ্রাধিকার পাবেন: কাদের   ব্রেক্সিটনিয়ে ভোটাভুটিতে বিশাল ব্যবধানে হেরেছেন থেরেসা মে   সাংবাদিক আমানুল্লাহ কবীর আর নেই   শাহনাজের বাইক উদ্ধার, আসামি আটক   হিউসটন প্রবাসী মঈন চোধুরীর ইন্তেকাল   মাওলানা আব্দুল মতীন ফাউন্ডেশন, সিলেট এর কার্যকরী কমিটি গঠন সম্পন্ন   এই প্রথম যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সিনেটর   বিশ্বব্যাংকের সম্ভাব্য প্রেসিডেন্টের তালিকায় ইভাঙ্কা-হ্যালি   রাজধানীতে অভিনব কায়দায় নারী বাইক রাইডারের স্কুটি ছিনতাই   মিয়ানমার রাষ্ট্রদূতকে তলব   আবারও ক্রিকেট মাঠে মৃত্যু, শোকস্তব্ধ সতীর্থরা   টিআইবির প্রতিবেদন মনগড়া : ইসি   রাতেই ব্যালটে সিল ৬৬% আসনে, জাল ভোট পড়েছে ৮২ শতাংশ: টিআইবি

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

অ্যান্ড্রয়েড ফোন কিনতে মন্ত্রী-সচিবরা পাচ্ছেন ৭৫ হাজার টাকা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৫-২১ ১২:১৫:০৬

নিউজ ডেস্ক: সরকারের মন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী, উপমন্ত্রী, সচিব ও ভারপ্রাপ্ত সচিবেরা এখন থেকে মোবাইল ফোন কেনার জন্য ৭৫ হাজার টাকা করে পাবেন। এত দিন মোবাইল ফোন কেনার জন্য রাষ্ট্রীয় কোষাগার থেকে তাঁরা ১৫ হাজার টাকা পেতেন। এ ছাড়া তাঁদের ফোন ব্যবহারের কোনো নির্ধারিত সীমা রাখা হচ্ছে না। যত খরচ হবে, তত টাকা সরকার থেকে দেওয়া হবে। এই সুবিধা রেখে সরকারি টেলিফোন, সেলুলার, সেট ও ইন্টারনেট নীতিমালা-২০১৮-এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।

আজ সোমবার তেজগাঁওয়ে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

পরে সচিবালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে সভার সিদ্ধান্ত জানান মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, যুগ্ম সচিব, অতিরিক্ত সচিবসহ যেসব সরকারি উর্ধ্বতন কর্মকর্তা সার্বক্ষণিকভাবে মোবাইলের সুবিধা পান না, তাঁরা মোবাইল ফোন ব্যবহার ভাতা হিসেবে মাসে ১ হাজার ৫০০ টাকা করে পাবেন। এত দিন তাঁরা ৬০০ টাকা করে পেতেন।

মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, ২০০৪ সাল থেকেই এই নীতিমালাটা কার্যকর ছিল। এখন নীতিমালাটাকে যুগোপযোগী করা হলো। তবে মন্ত্রিসভায় কয়েকটি অনুশাসন দিয়েছে। এর মধ্যে উচ্চ আদালতের বিচারপতিদের বিষয়টিও নীতিমালায় অন্তর্ভুক্ত করার কথা বলা হয়েছে। এ ছাড়া পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের রাষ্ট্রাচার-প্রধানকে রোমিং সুবিধাসহ এখানে অন্তর্ভুক্ত করার অনুশাসন দিয়েছে।

মন্ত্রি পরিষদ সভায় হাউজিং অ্যান্ড বিল্ডিং রিসার্চ ইনস্টিটিউট আইনের খসড়াও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এই আইনটি ১৯৭৭ সালে অধ্যাদেশ আকারে করা হয়েছিল। মূলত ১৯৭৭ সালের অধ্যাদেশকে আইন আকারে করা হচ্ছে।

এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৭৩০ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত