যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ০৩ Jul, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 08:45am

|   লন্ডন - 03:45am

|   নিউইয়র্ক - 10:45pm

  সর্বশেষ :

  করোনা উপসর্গ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এম এ হকের মৃত্যু   সিলেটের গোইয়ানঘাট সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে আরেক বাংলাদেশি নিহত   এমপির মেয়ে তাই ১০ বছর বিদেশে থেকেও চাকরিতে বহাল   দেশে একদিনে ৪২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩১১৪   ভ্যাকসিন আবিস্কারে কান্না ছুঁয়ে গেছে দেশবাসীকে; কে এই আসিফ মাহমুদ   ‘পিক-আপ’ সেবা চালু করলো লস এঞ্জেলেস পাবলিক লাইব্রেরি   ১১.১ শতাংশ কর্মহীন হওয়ায় নতুন আরও ৪.৮ মিলিয়ন চাকুরির সুযোগ সৃষ্টি   করোনায় মৃত্যু প্রকাশিত সংখ্যার চেয়ে ২৮ শতাংশ বেশি   সান্তা মোনিকায় মাস্ক না পড়লে সর্বোচ্চ ১০০০ ডলার জরিমানা   লস এঞ্জেলেসে জিমনিশিয়ামেও পড়তে হবে মাস্ক ও গ্লাভস   করোনায় একদিনে গেল আরও ৫৫ প্রাণ, আক্রান্ত ১ লাখ ৭ হাজার ৬৬৭   মিয়ানমারে খনিতে ধস, নিহত ১১৩   লস এঞ্জেলেস পুলিশের বাজেট হ্রাস পেলো ১৫০ মিলিয়ন ডলার   দেশে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়াল, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৮   বন্ধ হয়ে গেল রাষ্ট্রায়ত্ত সব পাটকল

মূল পাতা   >>   নিউইয়র্ক

নিউইয়র্কে পাঁচটি সড়কের নাম হচ্ছে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-২০ ০৯:৫৫:৪৩

 আপডেট: ২০২০-০৬-২০ ০৯:৫৭:৩৭

এলএ বাংলা টাইমস

নিজস্ব প্রতিবেদক:
নিউইয়র্ক নগরীতে পাঁচটি পৃথক স্থানে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’–এর ভাস্কর্য স্থাপন করা হচ্ছে। এতে নগরীর পাঁচটি সড়কপথে শোভা পাবে সাম্প্রতিক নাগরিক আন্দোলনের সাফল্যের প্রতিকৃতি। মেয়র বিল ডি ব্লাজিও সংবাদ সম্মেলনে নিউইয়র্কের নাগরিকদের সাম্প্রতিক আন্দোলনের শক্তিকে চিহ্নিত করার আহ্বান জানান। তিনি বলেন, নিউইয়র্ক নগরী জোরের সঙ্গে নিয়মিত বলছে 'ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার'। আমরা একের পর এক এমন কাজ দিয়ে নগরীর স্পন্দন ফিরিয়ে আনব।


জানা যায়, নগরীর পাঁচটি সড়কপথের মধ্যে ম্যানহাটনের ওয়ার্থ স্ট্রিট এবং রিড স্ট্রিটের মধ্যবর্তী অংশ, স্ট্যাটেন আইল্যান্ডের হ্যামিল্টন অ্যাভিনিউ ও টার্মিনাল ভিয়াডাক এলাকা, ব্রুকলিনের অ্যাডাম স্ট্রিট এবং কোর্ট স্ট্রিটের মধ্যবর্তী জোরেলমোন স্ট্রিট এলাকা, কুইন্সের জ্যামাইকা ও আর্চার অ্যাভিউনিউর মধ্যবর্তী ১৫৩ স্ট্রিট এবং ব্রঙ্কসের ১৬১ ও ১৬২ স্ট্রিটের মধ্যবর্তী মরিস অ্যাভিনিউ এখন থেকে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ সড়ক হিসেবে পরিচিত হবে। এসব এলাকায় একটি করে আবক্ষ মূর্তি স্থাপন করা হবে। সড়কপথে হলুদ রং দিয়ে লেখা থাকবে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’। করোনায় নাকাল হওয়া নগরীতে সাম্প্রতিক নাগরিক আন্দোলন অনেক কিছুই পাল্টে দিচ্ছে। ২৫ মে মিনিয়াপোলিসে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েড পুলিশের হাতে নিহত হওয়ার পর আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে। আন্দোলন-বিক্ষোভে নিউইয়র্কও উত্তাল হয়ে ওঠে। এ আন্দোলন শুধু কৃষ্ণাঙ্গদের আন্দোলন থাকেনি, উদারনৈতিক নাগরিক আন্দোলনে রূপ নেওয়া বিক্ষোভ এখনো চলছে। ১৯ জুনও নিউইয়র্কে বড় বিক্ষোভ সমাবেশ হয়েছে। প্রতিবাদে, স্লোগানে বিক্ষোভকারীদের উচ্চারণ ছিল সব বৈষম্যের বিরুদ্ধে, পুলিশের সহিংসতার বিরুদ্ধে।

করোনায় বিপর্যস্ত নিউইয়র্কের রাজ্য গভর্নর অ্যান্ড্রু কুমো ১৯ জন করোনাভাইরাস পরিস্থিতি নিয়ে তাঁর প্রতিদিনের প্রেস ব্রিফিংয়ের সমাপ্তি টেনেছেন। ভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে টানা ১১১ দিনের প্রতিদিনই গভর্নর কুমো উপস্থিত ছিলেন নাগরিকদের সামনে। কঠিন সময় পেরিয়ে আসার কথা উল্লেখ করে গভর্নর কুমো বলেন, আমরা এক অসম্ভবকে সম্ভব করেছি। দ্বিতীয় ও তৃতীয় ধাপে নিউইয়র্ক খুলছে। গভর্নর তাঁর শেষ সংবাদ সম্মেলনেও বলেন, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এখনো হচ্ছে। পরিস্থিতির ওপর নজর রাখা হচ্ছে। 

এলএ বাংলা টাইমস/এম/বিএইচ

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৮৭ বার

আপনার মন্তব্য