যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ১১ অগাস্ট, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 01:12pm

|   লন্ডন - 08:12am

|   নিউইয়র্ক - 03:12am

  সর্বশেষ :

  হোয়াইট হাউসের বাইরে গুলি, ব্রিফিংয়ের মাঝপথে সরে গেলেন ট্রাম্প   সিনহা হত্যা: প্রদীপে চাপা পড়ছে লিয়াকতের অপকর্ম   দ্বিতীয় ধাপের প্রণোদনা পেতে পারেন যেসব মার্কিনিরা?   দ্বিতীয় অর্থ সহায়তা কবে পাচ্ছেন মার্কিনিরা?   আমেরিকার সবচেয়ে বড় ডিপার্টমেন্ট স্টোর কিনতে চায় অ্যামাজন   পদত্যাগ করেছেন লেবাননের প্রধানমন্ত্রী   করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অভিনেতা আন্তোনিও বান্দেরাস   ট্যাক্স ও রাজনীতির দুশ্চিন্তায় নাগরিকত্ব ছাড়ছেন মার্কিনিরা   বাল্টিমোরে ভয়াবহ গ্যাস বিস্ফোরণ, একজনের মৃত্যু   ক্যালিফোর্নিয়ার পাবলিক হেলথ ডিরেক্টরের পদত্যাগ   জামিন পেলেন সিফাত   ‘স্যার, রিমান্ডটা কনসিডার করা যায় না’   ওসি প্রদীপের করা সব হত্যাকাণ্ডের বিচার চান অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তারা   ওয়াশিংটনে গোলাগুলি: নিহত ১,আহত ২০   করোনামুক্ত ১০০ দিন পার করলো নিউজিল্যান্ড

মূল পাতা   >>   লস এঞ্জেলেস

লস এঞ্জেলেসে অনলাইনে বাড়ছে যৌন নির্যাতন

নিজস্ব প্রতিবেদক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৫-২১ ১৬:০০:৫৩

সংগৃহীত ছবি

নিজস্ব প্রতিবেদক:
করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে সবাইকে ঘরেই অবস্থান করতে হচ্ছে। শিশুরাও অনলাইনে সময় কাটাচ্ছে বেশি। লস এঞ্জেলেসের আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলো জানাচ্ছে, এ সময়টাতে বেড়েছে অনলাইনে যৌন নির্যাতন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও অন্যান্য অনলাইন প্লাটফর্মে যৌন হেনস্তার মতো কনটেন্ট বাড়ছে।

যৌন অপরাধেযুক্তরা মহামারির সুযোগ নিয়ে বিভিন্ন ছবি ও ভিডিও প্রকাশ করছে যা অনৈতিক ও ক্ষতিকর। দ্য ন্যাশনাল সেন্টার ফর মিসিং অ্যান্ড এক্সপ্লয়টেড চিলড্রেন এ সংক্রান্ত প্রায় ৪.১ মিলিয়ন  রিপোর্ট গ্রহণ করেছে শুধুমাত্র এপ্রিল মাসেই। মার্চ মাসে এ সংখ্যা ছিল ২ মিলিয়নের কিছু বেশি।

সংস্থাটির কর্মকর্তা শেহহান জানান, মহামারির এই সময়ে অনলাইনে যৌন অপরাধের মতো বিষয় সারাবিশ্বেই আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাগুলোর জন্য বাড়তি চাপ হয়ে দেখা দিয়েছে।

দ্য লস এঞ্জেলেস পুলিশ ডিপার্টমেন্ট এর ইন্টারনেট ক্রাইম এগিনিস্ট চিলড্রেন ইউনিট এ সংক্রান্ত অপরাধের প্রায় তিন হাজার সুপারিশ নিয়েছে, এপ্রিলে যা মার্চে ছিল মাত্র ১৩৫৫টি। ইউনিট কমান্ডার লেফটন্যান্ট অ্যান্থনি কাটো এ তথ্য জানিয়েছেন।

পুলিশের মুখপাত্র জস রুবেনস্টাইন বলেন, এই ইউনিটের অনেককে করোনা সংকটে অন্য দায়িত্ব দিতে হয়েছে। তবে শিশুদের অনলাইনে নির্যাতন করছে এমন যে কাউকে বিচারের আওতায় আনতে পুলিশ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

ইন্টারনেটর নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ অ্যালিসিয়া কোয়াকেউইচ বলেন, এমন একটা পরিস্থিতি তৈরি হবে তা অনুমানযোগ্য ছিল। আইসোলেশনের সময়টায় শিশুরা মানসিকভাবে বেশি অনিরাপদ থাকে। অপরাধীরা এই সুযোগটা নেয়।

ফেসবুক, ইনস্টাগ্রাম ও বিভিন্ন গেমিং প্ল্যাটফর্মে শিশুদের নানা প্ররোচনায় ফেলে অশালীন ছবি ও ভিডিও পাঠাতে এবং পরবর্তীতে তাদের সামাজিকভাবে হেয়, বিব্রত করতে চেষ্টা করে অপরাধীরা। এক্ষেত্রে পিতামাতার সচেতনতার কোনো বিকল্প নেই বলে মত বিশেষজ্ঞদের।

/এলএ বাংলা টাইমস/এন/এইচ


এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৬৪৪ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত

সাম্প্রতিক খবর