যুক্তরাষ্ট্রে আজ বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 08:31pm

|   লন্ডন - 03:31pm

|   নিউইয়র্ক - 10:31am

  সর্বশেষ :

  মিয়ানমার কারও কথা শোনে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   পরীক্ষা ছাড়া ভর্তিকে কেন্দ্র করে ঢাবিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের হাতাহাতি   ১৮টি অমুসলিম উপাসনালয়ের অনুমোদন দিচ্ছে আরব আমিরাত   দেশে দুর্নীতি মহামারী আকার ধারণ করেছে : মওদুদ   লাইবেরিয়ায় ধর্মীয় স্কুলে আগুন, নিহত ৩০   ১৮ দিনেও খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ পাননি স্বজনরা, উদ্বেগ   নিউইয়র্কে ইন্টারন্যাশনাল সীরাত কনভেনশন শনিবার   নিউইয়র্কে বিয়ানীবাজার এডুকেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের ক্রিকেট টুনার্মেন্ট সম্পন্ন   ওয়াশিংটন ডিসিতে শুদ্ধ উচ্চারণ ও আবৃত্তি সংগঠন ‘সমস্বর’-এর আত্মপ্রকাশ   বাফলা চ্যারিটির ফান্ড রাইজিং ডিনার রবিবার   দক্ষিণ কোরিয়ার রাজনীতিবিদরা মাথা ন্যাড়া করছেন   বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আরো ভাগাভাগি হচ্ছে, গণমাধ্যমে আসছে না: আরেফিন সিদ্দিক   ‘জাবির অর্থ কেলেঙ্কারি ফাঁসকারী ছাত্রলীগ নেতারা হুমকির সম্মুখীন’   খালেদা কিছুই দেননি, হাসিনা আমাদের সম্মানিত করেছেন: আল্লামা শফী   রাখাইনে আরও ৬ লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার চরম ঝুঁকিতে : জাতিসংঘ

>>  লস এঞ্জেলেস এর সকল সংবাদ

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও যথাযোগ্য মর্যাদায় লস এন্জেলেসে ঈদ উল আজহা পালিত

ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্য ও যথাযোগ্য মর্যাদায় যুক্তরাষ্ট্রের লস এন্জেলেসে  পালিত হলো ঈদ উল আজহা।
গতকাল রোববার  যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য প্রদেশের ন্যায় লস এন্জেলেসের ধর্মপ্রান মুসলমানেরা ত্যাগের মহিমায় সমুজ্জ্বল হয়ে আল্লাহর সন্তুষ্টির আশায় পশু কোরবানী করে পালন করেছেন ঈদ-উল আযহা।  যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর লস এন্জেলেসের প্রবাসি বাংলাদেশী অধ্যুষিত এলাকা লিটল বাংলাদেশের স্থানিয় মসজিদ  আল-ফালাহ

বিস্তারিত খবর

বাফলার জেনারেল এসেম্বলি মিটিং সম্পন্ন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-২৫ ১৩:৪৯:৩৯

লস এঞ্জেলেসের সকল প্রবাসী সংগঠনের ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম ‘বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা)’-এর জেনারেল এসেম্বলি মিটিং সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে। গত রবিবার ( ২১ জুলাই) সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত বাফলার নিজস্ব কার্যালয়ে এই মিটিং অনুষ্ঠিত হয়।

বাফলার প্রথা অনুযায়ী প্রতিটি নতুন ক্যাবিনেট দায়িত্ব গ্রহণের পর সকল সদস্য এবং কমিউনিটি নেতৃবৃন্দকে নিয়ে এই জেনারেল এসেম্বলি মিটিং আয়োজন করা হয়। এতে বাফলার এক্সিকিউটিভ সদস্য, এসোসিয়েট সদস্য, বোর্ড অব ট্রাস্টি, এডভাইজরি বোর্ড, চ্যারিটি কমিটিসহ সবগুলো স্ট্যান্ডিং কমিটির সদস্য, মিডিয়া সদস্য, প্রাক্তন কেবিনেট সদস্য-সহ কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ এবং বাফলা সংগীতের মাধ্যমে সূচিত অনুষ্ঠানে 'স্টেট অফ দ্য ফেডারেশন বক্তৃতা' প্রদান করেন বাফলার নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট শিপার চৌধুরী। তিনি তার বক্তব্যে আগামী দুই বছরের জন্য বাফলার বিভিন্ন কার্যক্রম ও নতুন কেবিনেটের কার্যপ্রণালী, কর্মসূচি এবং পরিকল্পনা উপস্থাপন করেন।

মিটিংয়ে উপস্থিতির জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বাফলাকে ভালোবেসে এবং কমিউনিটিতে দেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করতে যারা আমাদের বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছেন- আমরা সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। অনেকে নানা ব্যস্ততার মধ্যেও আজকের মিটিংয়ে উপস্থিত হয়েছেন এজন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

কমিউনিটির ঐক্য ও সম্প্রীতির কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমাদের একতার একটা প্রেরণা হচ্ছে বাংলাদেশ। আমাদের বেঁচে থাকার অবলম্বন হচ্ছে বাংলাদেশ। আমরা যদি দেশকে মন থেকে ভালোবাসতে পারি, দেশের মানুষকে ভালোবাসতে পারি, দেশের কল্যাণ চিন্তা করতে পারি তাহলে আমাদের মধ্যে আর কোনো বিভেদ থাকবে না। তাই আসুন আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে দেশের জন্য কাজ করি।

মহান মুক্তিযুদ্ধের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, আমাদের ইতিহাসের একটি রক্তাক্ত অধ্যায় হচ্ছে মহান মুক্তিযুদ্ধ। এক সাগর রক্তের বিনিময়ে আমরা স্বাধীনতা অর্জন করেছি।  যাদের ত্যাগের বিনিময়ে আমরা স্বাধীন মাতৃভূমি পেয়েছি, সেইসব বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আমাদের গভীর শ্রদ্ধা। আপনারা জানেন, বাফলা ইতোমধ্যে যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের পুনর্বাসনে একটি প্রজেক্ট হাতে নিয়েছে। ইতোমধ্যে দেশে আমরা দুজন মুক্তিযোদ্ধাকে পুনর্বাসন করেছি। আপনারা জানেন, আমরা এখানে অস্বচ্ছল প্রবাসীদের জন্য  আপনাদের সহযোগিতা থাকলে আমরা ভবিষ্যতে আরও এরকম প্রজেক্ট হাতে নেব। সরকারের পাশাপাশি দেশের মানুষের জন্য নিজেদের উপার্জিত অর্থ থেকে দেশে সমাজ উন্নয়নে কাজে লাগাতে পারলে আমাদের শ্রম সার্থক হবে।

শিপার চৌধুরী আরও বলেন, আমরা নতুন ক্যাবিনেট দায়িত্ব নেওয়ার পর বাফলার কার্যক্রমগুলোকে আরও সুন্দরভাবে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছি। বিশেষ করে আগামী ২০২১ সালে আমাদের প্রিয় জন্মভূমি বাংলাদেশ মহান স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন করতে যাচ্ছে। আমরা এই মাহেন্দ্রক্ষণটাকে এখানেও অত্যন্ত আড়ম্বরপূর্ণভাবে উদযাপন করতে চাই। এজন্য আপনাদের একান্ত সহযোগিতা প্রয়োজন।


এসময় প্রেসিডেন্ট শিপার চৌধুরী বাফলা চ্যারিটির নতুন কমিটির নাম ঘোষণা করেন। জসীম আশরাফিকে কো-অর্ডিনেটর এবং মেজর (অব.) এনামুল হামিদ ও নজরুল আলমকে সদস্য করে বাফলা চ্যারিটি কমিটি পুনর্গঠন করা হয়।

প্রেসিডেন্টের বক্তব্যের উপর আলোচনা ও পরামর্শমূলক বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

বাফলার প্রতিষ্ঠাতা ড. মাহবুব খান তাঁর বক্তব্যে বলেন, বাফলাকে আমরা সবসময় দল-মতের উর্ধ্বে রাখতে চাই। এখানে বসার পর কে আওয়ামীলীগ, কে বিএনপি, কে মুনা- তা ভাবি না। বরং আমরা সবাই বাংলাদেশি। এটিই আমাদের প্রধান পরিচয়। এভাবে ভাবতে পারলে আমরা কিছু করতে পারব।
 
ড. মাহবুব খান এসময় বাফলার তহবিলে ৫ হাজার ডলার ক্যাশ প্রদান করেন।

সাবেক প্রেসিডেন্ট ডা. আবুল হাসেম বাফলার নতুন ক্যাবিনেটসহ সবাইকে ধন্যবাদ ও স্বাগত জানান। তিনি বাফলার অগ্রযাত্রায় সবধরণের সহযোগিতার আশ্বাস দেন এবং বিভিন্ন পরামর্শ দেন।


বাংলাদেশ  আওয়ামীলীগ ক্যালিফোর্নিয়া শাখার সভাপতি তৌফিক সেলায়ামান খান তুহিন বলেন, আমি দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে বাফলাকে পর্যবেক্ষণ করেছি। কমিউনিটির বিভিন্ন মানুষকে একটা ডিউটির মধ্যে ফেলে কিভাবে সম্পৃক্ত করা যায়, এক্ষেত্রে বাফলা ব্যাপক সফলতা লাভ করেছে। আমাদের দেখা সময়গুলোতে অনেক দূরে এগিয়ে  গেছে বাফলা। আমরা বাফলার মাধ্যমে দেশের জন্য কিছু করতে পারলে গর্ববোধ করব। এটি আমাদের জন্য বিশাল সুযোগ। আমরা সবসময় বাফলার সাথে আছি।

আ.লীগ নেতা জামাল হোসেন বলেন, আজ আমি এখানে প্রথম এসেছি। এখানে এসে একটা জিনিস বিশেষভাবে লক্ষ্য করলাম, ধর্ম বর্ণ দল-মত নির্বিশেষে একটি ঐক্যবদ্ধ প্লাটফর্ম দেখে আমি অভিভূত। এখানে সবারই একটি পরিচয়- তার নাম বাংলাদেশ তথা বাফলা।.

এছাড়াও কমিনিউটির সামাজিক, রাজনৈতিক ও বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন অফ ক্যালিফোর্নিয়ার সাবেক সভাপতি আনোয়ার হোসেন রানা, বর্তমান সভাপতি আসাদুজ্জামান বাচ্চু, বর্তমান সেক্রেটারি বদরুল আলম মাসুদ, তরুণ নেতা সৈয়দ নাসির উদ্দিন জেবুল, বিশিষ্ট সাংবাদিক মাশহুরুল হুদা, নজরুল আলম, মোহাম্মদ আলী, সাইদুল হক সেন্টুস, ক্যালিফোর্নিয়া আ.লীগের প্রতিষ্ঠাতা টিয়া হাবিব, বদরুল আলম চৌধুরী শিপলু প্রমুখ।

বাফলার জেনারেল সেক্রেটারি আঞ্জুমান আরা শিউলির পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মিটিংয়ে নবনির্বাচিত ক্যাবিনেটের সদ্যরাও বক্তব্য রাখেন।

বিস্তারিত খবর

২৭ ও ২৮ জুলাই লস এঞ্জেলেসে বর্ণাঢ্য আনন্দমেলা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-২০ ১১:২৭:৫১

আগামী ২৭ ও ২৮ জুলাই লস এঞ্জেলেসে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বর্ণাঢ্য এক আয়োজন। কমিউনিটির সুপরিচিত ভার্জিল মিডল স্কুলে (152 N Vermont Ave, Los Angeles, CA 90004) বসছে আনন্দ মেলা। এই আয়োজনে যোগ দিতে বাংলাদেশ থেকে আসছেন বেশ ক’জন তারকা শিল্পী ও অভিনেতা-অভিনেত্রী। ইতোমধ্যে অনেকেই এসে পৌঁছে গেছেন লস এঞ্জেলেসে। জমজমাট এই আয়োজনের জন্য সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিচ্ছেন আয়োজকরা। 
প্রতিদিন বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত হবে মেলাটি। বাংলাদেশি আমেরিকান এসোসিয়েশন অব লস এঞ্জেলেসে আয়োজিত মেলাটিতে কোনো প্রবেশ মূল্য নেই। মেলায় থাকবে খাওয়া-দাওয়াসহ আনন্দবিনোদনের নানা আয়োজন। 
মেলা উপভোগ করার জন্য বাংলাদেশি কমিউনিটিকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আয়োজকরা।

বিস্তারিত খবর

বর্ণাঢ্য আয়োজনে লস এঞ্জেলেসে বৈশাখীমেলা অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১৩ ০৩:৪৩:১২

যুক্তরাষ্ট্রের লস এঞ্জেলেসে বর্ণাঢ্য আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয়েছে আবহমান বাংলার ঐতিহ্যবাহী বৈশাখীমেলা। গত শনি ও রবিবার স্থানীয় ভারজিল মিডিল স্কুলে মেলাটি আয়োজন করে ‘বাংলাদেশ আমেরিকান সোসাইটি’। বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে  গত ১৯ বছর ধরে প্রতিবছর লস এঞ্জেলেসে এই মেলা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন পণ্য দ্রব্য ও খাবারের স্টল, আবহমান বাংলার বিভিন্ন জিনিসের প্রদর্শনী এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এক বর্ণিল মিলনমেলা বসে প্রবাসীদের।


প্রথম দিন সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশ থেকে আগত লালন সম্রাজ্ঞী ফরিদা পারভিন। তার সাথে বাঁশি বাজান বাংলাদেশের খ্যাতিমান বংশীবাদক গাজী আবদুল হাকিম। লালন সম্রাজ্ঞী ফরিদা পারভীনের গানের আকুল করা টান মোহময় করে দর্শক-শ্রোতাদের।  

মেলার দ্বিতীয় দিন গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় রক স্টার ব্যান্ডদল মাইলস। মাইলস তাদের ৪০ তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করে এই অনুষ্ঠানে। দুইদিনব্যাপী এই আয়োজনের প্রধান আকর্ষণই ছিল বাংলাদেশের তরুণের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয় এই ব্যান্ডদল। দ্বিতীয়দিন তাদের পরিবেশনায় ভরে যায় লস এঞ্জেলেসের আকাশ বাতাস। নেচে ওঠে দর্শকের হৃদয়। দূর-দূরান্ত থেকে অনেকে আসেন মাইলসের গান শুনার জন্য। কানায় কানায় পূর্ণ ছিল মেলা প্রাঙ্গন।



ফিরিয়ে দাও আমারই প্রেম... ধিকি ধিকি আগুন জ্বলে... নীলা তুমি কি জানো না.... এমন শ্রোতাপ্রিয় গানগুলো গেয়ে উপস্থিত দর্শকদের পাগল করে তুলে মাইলসের শিল্পীরা। অনেকেই গানের সাথে নাচতে দেখা যায়।

এছাড়াও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন স্থানীয় শিল্পীরা। নৃত্য পরিবেশন করে আমেরিকান নতুন প্রজন্মের শিশুরা।

স্থানীয়দের মধ্যে গান পরিবেশন করেন সাদিয়া রহমান, সাইফ কুতবী, সাজিয়া হক মিমি, সুখেন্দ্র পাল, আশরাফ, রেহানা মল্লিক, মন পবন, সোনিয়া খুকু, মিতালী কাজল, লুনা রহমান, সাথী বড়ুয়া, তাবাসসুম আলম, আদনান খান ও শিমুল খান। নৃত্য পরিবেশন করেন শ্রীজা, প্রভা, জাইরা, উমাইজা, আনিয়া, ওয়াহিদ ওনি, আনুশী আলম, সান্তিবা রিমি ও তানিশা আলী।


প্রবাসে বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য তুলে ধরে রাখতে প্রতিবার এই বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়। এবারের মেলাটিও জমেছিল নান্দনিকতায়। বৈশাখের রঙ্নি সাজে মেলায় উপস্থিত হন বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষ, শিশু-কিশোররা।

বৈশাখ এপ্রিল মাসে হয়ে থাকলেও যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলগুলোতে তখন পুরো একাডেমিক সেশন থাকে। আর জুলাইতে সামার ভ্যাকেশন থাকায় ছুটির দিনে বাচ্চাদের পড়ালেখার চাপও থাকে কম তাই এই সময়ে মেলাটি আয়োজন করা হয়। এতে মেলার উপস্থিতিও হয় ব্যাপক।

এবার বৈশাখীমেলার অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আমেরিকান সোসাইটির সদ্য গঠিত কমিটির শপথ হয়। শপথ পাঠ করান বিশিষ্ট ফার্মাসিস্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী।

শপথ পাঠ করানোর পর সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন ফার্মাসিস্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী। তিনি বলেন, আবহমান বাংলার ঐতিহ্যবাহী এই মেলা আয়োজনের জন্য কর্তৃপক্ষকে অসংখ্য ধন্যবাদ। এর মাধ্যমে প্রবাসী এবং আমাদের নতুন প্রজন্ম বাংলাদেশ ও বাংলাদেশি সংস্কৃতির সাথে পরিচিত হচ্ছে। আমি এর সার্বিক সাফল্য কামনা করি। বৈশাখীমেলার জন্য সবসময় আমার সব ধরণের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে।


শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আমেরিকান সোসাইটির নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট সাইদুল হক সেন্টু ও জেনারেল সেক্রেটারি হুমায়ুন কবির। অনুষ্ঠান উপস্থানা করেন সৃজনশীল ও সেলিব্রেটি উপস্থাপিকা সাজিয়া হক মিমি এবং আশরাফ মিলন।

প্রেসিডেন্ট সাইদুল হক সেন্টু তার বক্তব্যে উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। বাংলাদেশের ঐতিহ্যগুলো বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দিতে আমাদের এই আয়োজন। এই আয়োজনে যারা বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন। এবং আজকে যারা স্বত:স্ফুর্তভাবে উপস্থিত হয়ে আমাদেরকে অনুপ্রাণিত করেছেন আপনাদের সবাইকেও অশেষ ধন্যবাদ। বাংলাদেশ আমেরিকান সোসাইটির আগমী দিনের সকল কার্যক্রমে আপনাদের সহযোগিতা কামনা করি।


উল্লেখ্য, যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্য তথা লস এঞ্জেলেস সিটিতে বাস করছেন প্রায় ৬০ হাজার বাংলাদেশি। যা যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশি অভিবাসীদের দিক দিয়ে ২য় সর্বোচ্চ সংখ্যা। এ অবস্থায় প্রবাসী কমিউনিটির সেবায় কাজ করতে কয়েকজন বিশিষ্ট ও বয়োজৈষ্ট নেতৃবৃন্দ  ‘বাংলাদেশ আমেরিকান সোসাইটি (BAS-বাস)’ নামে নতুন একটি সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেছেন। এর মাধ্যমে চ্যারিটি ও সমাজসেবামূলক কাজ এবং প্রবাসে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ড পরিচালিত হবে। বৈশাখীমেলা এরই একটি অংশ। এখন থেকে প্রতি বছর বৈশাখীমেলা আয়োজন করবে ‘বাস’।

এছাড়া বাসের বর্তমান সর্ববৃহৎ প্রজেক্ট হচ্ছে, লস এঞ্জেলেসে একটি কমিউনিটি সেন্টার প্রতিষ্ঠা। যাতে প্রবাসীরা যেকোনো প্রগ্রাম এই সেন্টারে আয়োজন করতে পারেন।

বিস্তারিত খবর

লস এঞ্জেলেস কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তি আশরাফ মিলনের মৃত্যু, শোকে স্তব্ধ প্রবাসীরা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১১ ০৫:০৯:৪০

লস এঞ্জেলেস কমিউনিটির জনপ্রিয় মুখ, বিশিষ্ট উপস্থাপক ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, ইতালী সম্মেলন পূর্ব কানেক্ট বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক আশরাফ আহমেদ মিলন আর নেই।  ৯ জুলাই মঙ্গলবার বিকেল চারটায় ৫৪ বছর বয়সে তিনি থাউজ্যান্ড ওক্'স-এর এক হাসপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন!

জনপ্রিয় এই ব্যক্তির মৃত্যুতে লস এঞ্জেলেস প্রবাসী কমিউনিটিতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে। তার মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে কমিউনিটির অসংখ্য লোক হাসপাতালে ছুটে যান। অনেককে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমসহ বিভিন্ন মাধ্যমে শোক প্রকাশ করতে দেখা যায়।

আশরাফ মিলন একজন সফল রিয়েলটর ব্যাবসায়ী এবং জনপ্রিয় উপস্থাপক ছিলেন। কমিউনিটির গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানগুলো উপস্থানা করতেন সবসময়।  তিনি কমিউনিটির বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়,  আশরাফ মিলন দীর্ঘদিন থেকে কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। মঙ্গলবার স্বাভাবিক নিয়মে স্থানীয় কিডনি ডায়ালাইসি ক্লিনিকে গেলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের সাথে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে পড়েন। তখন তাকে থাউজ্যান্ড ওক্'স-এর লস রোব্লস হস্পিটালে নেয়া হয়। সেখানেই কর্তব্যরত চিকিৎসকগণ তাকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।

উল্লেখ্য,  আশরাফ মিলন  ১৯৭১ পূর্ব মহিলা জয়বাংলা বাহিনীর প্রধান মরহুমা মমতাজ বেগমের ছোট ভাই ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মুজিব বাহিনীর কমান্ডার ও ভিক্টোরিয়া কলেজের সাবেক ভিপি মরহুম হাবিবউল্লাহ চৌধূরীর শ্যালক। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রীসহ এক ছেলে ও এক মেয়ে এবং অসংখ্য আত্মীয় স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গিয়েছেন।

আশরাফ আহমেদ মিলনের স্থায়ী নিবাস ঢাকার খিলগাঁও। তিনি খিলগাঁও গভর্নমেন্ট স্কুল থেকে ১৯৮২ সালে এসএসসি, নটরডেম কলেজ থেকে এইসএসসি ও অত:পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একাউন্টিং-এ অনার্স ও মাস্টার্স করেন। গত দেড়যুগ থেকে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ায় বসবাস করছেন।

তিনি একজন সফল রিয়েলটর ব্যাবসায়ী এবং বাংলা/ইংরেজি উভয় মাধ্যমে একজন জনপ্রিয় উপস্থাপক হিসেবে কমিউনিটিতে ব্যাপক পরিচিত ছিলেন।


শুক্রবার জানাযা, সোমবার দাফন:

আশরাফ মিলনের প্রথম জানাযার নামাজ আগামী শুক্রবার বাদ জুমা সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়া ইসলামিক সেন্টারে অনুষ্ঠিত হবে। অত:পর আগামী সোমবার ওয়েস্ট লেক ভিলেইজে দ্বিতীয় জানাযা শেষে ওয়েস্ট লেক সেমিট্রিতে তাকে দাফন করা হবে।

এদিকে, আশরাফ মিলনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগ- ক্যালিফোর্নিয়া শাখা, জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়া, মুসলিম উম্মাহ অব নর্থ আমেরিকা- ওয়েস্ট জোন, ক্যালিফোর্নিয়া বিএনপি, লিটল বাংলাদেশ প্রেসক্লাব, আনন্দ মেলা লস এঞ্জেলেস, বৈশাখী মেলা, কানেক্ট বাংলাদেশ, বিক্রমপুর এসোসিয়েশন-সহ কমিউনিটির অসংখ্য সংগঠন এবং এলএ বাংলাটাইমসের সিইও আব্দুস সামাদসহ গণ্যমান্য নেতৃবৃন্দ। শোকবার্তায় নেতৃবৃন্দ মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

বিস্তারিত খবর

একদিনের ব্যবধানে ক্যালিফোর্নিয়ায় ফের ভূমিকম্প, আতঙ্কে লস এঞ্জেলেসবাসী

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৬ ০১:৩৬:১৮

৪৮ ঘন্টার মধ্যে দ্বিতীয়বার ভূমিকম্পে কেঁপে উঠলো দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া। স্থানীয় সময় শুক্রবার এই  ভূকম্পনের মাত্রা ছিলো রিখটার স্কেলে ৭ দশমিক ১। গত ২০ বছরের মধ্যে ক্যালিফোর্নিয়ায় এটি সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প ছিল বলে স্থানীয় সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএস জানিয়েছে, স্থানীয় সময় রাত ৮টার দিকে ভূকম্পন অনুভূত হয়। এর কেন্দ্রস্থল ছিল ক্যালিফোর্নিয়ার রিডজিগ্রেস্ট থেকে ১১ মাইল দূরে।

দ্য সান বারনাদিনো কাউন্টির অগ্নিনির্বাপন বিভাগ জানিয়েছে, ভূমিকম্পে বেশ কিছু ভবনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

টুইটবার্তায় অগ্নিনির্বাপন বিভাগ বলেছে, ‘বাড়িঘর নড়ে উঠেছে, ভিত্তিমূলে ফাঁটল দেখা গেছে, দেয়াল ধসেছে’।

কের্ন কাউন্টির মুখপাত্র মেগান পার্সন জানিয়েছেন, একাধিক অগ্নিসংযোগ ও হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। উদ্ধার তৎপরতার জন্য জরুরি সেবা কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

এর আগে বৃহস্পতিবার ক্যালিফোর্নিয়ার রিডজিগ্রেস্টে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছিল। রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৪। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি।
এদিকে পরপর দুদিন ভূমিকম্পের কারণে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে লস এঞ্জেলেসবাসীর মধ্যে। ভূমিকম্পে লস এঞ্জেলেসে কোনো ক্ষতি না হলেও বাংলাদেশী প্রবাসীরা আতঙ্কে রয়েছেন।

দ্রষ্টব্য, ভূমিকম্পের কোনো ক্ষয়-ক্ষতির খবর পেলে বা কোথাও কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে ‘এলএ বাংলাটাইমসকে’ জানানোর জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন পোর্টালের সিইও আব্দুস সামাদ।

বিস্তারিত খবর

অনন্য আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শপথ নিলো বাফলা’র নতুন ক্যাবিনেট

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৫ ১৬:২৪:১০

অনন্য আড়ম্বরপূর্ণ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে শপথ নিলেন ক্যালিফোর্নিয়া প্রবাসী বাংলাদেশিদের সর্ববৃহৎ প্লাটফর্ম ‘বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা)’র নতুন ক্যাবিনেট। গত ৩ জুলাই বুধবার নর্থ হলিউডের অত্যাধুনিক কনভেনশন হল ‘চার্চ অব সাইন্টোলজি ভ্যালি’তে আনন্দঘন আয়োজনে অভিষেক হলো ২০১৯-২১ সেশনের নবনির্বাচিত এই কমিটির। এর মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নিলেন নতুন নেতৃত্ব।

প্রবাসী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ, বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনধি, নির্বাচন কমিশন এবং বাফলার উপদেষ্ঠা পরিষদসহ ৫ শতাধিক প্রবাসীর অংশগ্রহণে উৎসবে রূপ নেয় বাফলার অভিষেক অনুষ্ঠান।


বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীত ও বাফলার দলীয় সঙ্গীত দিয়ে শুরু হয় আনুষ্ঠানিকতা। এরপর বিদায়ী প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম বিদায়ী কমিটিকে সাথে নিয়ে বক্তব্য রাখেন। বিদায়ী বক্তব্যে তিনি নতুন ক্যাবেনেটকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, নেতৃত্বের বদলে সংগঠনে গতিশীলতা আসে। আমি মনে করি, এই নেতৃত্ব বাফলার কার্যক্রমকে আরও গতিশীল করবে। আমি নবনির্বাচিত ক্যাবিনেটের সকল সদস্যকে প্রাণঢালা শুভেচ্ছা ও স্বাগত জানাই।

নিজের দায়িত্বপালনকালীন সময়ের বিভিন্ন কার্যক্রম তুলে ধরে তিনি বলেন, গত ২ বছর আমাদের উপর দায়িত্ব ছিল বাফলার সকল কাজের। আমরা নিজেদের সাধ্যমতো চেষ্টা করেছি সংগঠনের কর্মপদ্ধতির আলোকে সব কাজ সম্পন্ন করতে। বিগত ২ বছর আমরা বাংলাদেশ ডে প্যারেডসহ চ্যারিটির বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করেছি। এতে আমাদেরকে যারা বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করেছেন, আমি সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। বিশেষ করে আমাদের অনুষ্ঠানসমূহের স্পন্সর এবং ফান্ডরাইজিংয়ে প্রবাসীরা যদি মুক্তহস্থে দান না করতেন তাহলে এসব কর্মসূচি বাস্তবায়ন সম্ভব হতো না। তাই সবাইকে আমাদের আন্তরিক ধন্যবাদ। নবনির্বচিত এই কমিটিও আশা করি এসকল কার্যক্রম আরও সমৃদ্ধির সাথে বাস্তবায়ন করবেন।

নবনির্বাচিত সদস্যদেরকে শপথ পাঠ করান বাফলার প্রধান নির্বাচন কমিশনার মোর্শেদ হায়দার । তাকে সহযোগিতা করেন বোর্ড অব ট্রাস্টির (বিওটি) চেয়ারম্যান হাবীব আহমেদ টিয়া ।


শপথ গ্রহণের পর বিদায়ী কমিটির সদস্যবৃন্দ নবনির্বাচিত কমিটির সদস্যদের ফুলের তোড়া দিয়া স্বাগত জানান।

এরপর বক্তব্য রাখেন নবনির্বাচিত কমিটির প্রেসিডেন্ট শিপার চৌধুরী। তিনি বলেন, আমি বিগত সময়ে বাফলার প্রেসিডেন্টের দায়িত্ব পালন করেছি। আবার আমাকে আপানারা গুরুত্বপূর্ণ  এই দায়িত্বটি দিয়েছেন, এজন্য বাফলার সকল স্তরের নেতৃবৃন্দকে ধন্যবাদ। আমি চেষ্টা করব, বাফলার কার্যক্রমকে আরও গতিশীল এবং কার্যকরী করে তুলার। এজন্য আপনাদের সর্বাত্মক সহযোগিতা প্রয়োজন। নতুন ক্যাবিনেট নিয়ে তিনি বলেন, নবনির্বাচিত এই কমিটি একটি শক্তিশালী ও মেধাবী কমিটি। আমি আশাবাদী, আমরা সবাই মিলে ভালো কিছু করতে পারব।

আড়ম্বরপূর্ণ এই অনুষ্ঠানে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক পরিবেশনা এবং রাতের খাবারের আয়োজন করে বাফলা কর্তৃপক্ষ।


নবনির্বাচিত কালচারাল সেক্রেটারির উপস্থাপনায় সাংস্কৃতিক  মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক  অনুষ্ঠানে নৃত্য পরিবেশন করে শিশু শিল্পী তানিশা ও আনিশা আলম। সঙ্গীত পরিবেশন করে আবির, রেহানা মল্লিক, জামান, এপোলো, শহীদ আলম, আদনান খান, উর্মি আতাহার ও উপমা সাহা মজুমদার।

নবনির্বাচিত কমিটিতে প্রেসিডেন্ট পদে শিপার চৌধুরী, ভাইস প্রেসিডেন্ট পদে মাহবুবুর রহমান, জেনারেল সেক্রেটারি পদে আঞ্জুমান আরা শিউলি, ফাইনেন্স সে্ক্রেটারি পদে স্বপন বাহার, অর্গানাইজিং সেক্রেটারি পদে ফারুক হাওলাদার, পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি আব্দুস সামাদ এবং কালচারাল সেক্রেটারি পদে রোশনি আলম শপথ গ্রহণ করেন। এই কমিটি আগামী দুই বছরের জন্য বাফলার সামগ্রিক কার্যক্রম পরিচালনা করবে।

বিস্তারিত খবর

লস এঞ্জেলেসে জালালাবাদ এসোসিয়েশনের গ্রাজ্যুয়েট সংবর্ধনা ও ফ্যামিলি নাইট অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৩ ০৩:২৮:৪৮

লস এঞ্জেলেসে বসবাসরত বৃহত্তর সিলেট প্রবাসীদের সংগঠন ‘জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়া’র উদ্যোগে সদ্য গ্রাজ্যুয়েট ছাত্র-ছাত্রীদের সংবর্ধনা ও ফ্যামিলি নাইট অনুষ্ঠিত হয়েছে। ৩০ জুন রবিবার রাতে ‘ইন্সপিরেশন ২০১৯’ শিরোনামে শেরমানওক্স-এর অভিজাত অলিম্পিয়া বাঙ্কুয়েট হলে অত্যন্ত জাঁকজমকপূর্ণভাবে এই অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জর্জিয়ার স্টেট সিনেটর শেখ রাহমান। অতিথি বক্তা ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার সালিমা রাহমান ও ডাক্তার তাহিরা ফেরদৌস।

বিপুল সংখ্যক প্রবাসীদের উপস্থিতে এসময় ৪৭ জন ছাত্র ছাত্রীকে এপ্রিসিয়েশন এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন জালালাবাদ এস্যোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়ার সভাপতি আসাদুজ্জামান বাচ্চু ও সাধারণ সম্পাদক বদরুল আলম। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত এবং বাংলাদেশ ও আমেরিকার জাতীয় সঙ্গীতের মধ্য দিয়ে সূচিত অনুষ্ঠানের বিভিন্ন পর্বে তরুণ প্রজন্মকে উদ্দীপ্ত করার জন্য তরুণ ছাত্র ছাত্রীদেরকেই বক্তব্য প্রদানের সুযোগ দেওয়া হয়।



অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন সদ্য স্নাতকোত্তর রাফী আকসাদ, মারিয়া জামান এবং আনিকা খান। বিভিন্ন পর্যায়  থেকে প্রতিনিধিত্বমূলক বক্তব্য প্রদান করে যথাক্রমে এলিমেন্টারি থেকে আহনাফ আবীর মাহির, মিডল স্কুল থেকে মাঈশা তাসনিম, হাই স্কুল থেকে আলভী আহমেদ ও তাহনিমা হুসাইন, কলেজ পর্যায় থেকে আনিকা খান ও ইউনিভার্সিটি পর্যায় থেকে নিশাত হামীদ।

অনুষ্ঠানের এক পর্যায় শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন লস এঞ্জেলেসের বিশিষ্ট সমাজসেবক ও ফার্মাসিস্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী।

প্রধান অতিথি জর্জিয়া স্টেট সিনেটর শেখ রাহমান তাঁর বক্তব্যে বলেন, বড় স্বপ্ন দেখ, স্বপ্ন বাসবায়নে কাজ করে যাও কখনো হতাশ হইয়ো না। তোমাদের মধ্য থেকেই কেউ একদিন আমেরিকার প্রেসিডেন্টও হতে পার।

অনুষ্ঠানে জালাবাদ এস্যোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নীয়ার আজীবন সদস্যদেরকেও বিশেষ ক্রেস্ট প্রদানের  মধ্য দিয়ে সম্মাননা প্রদান করা হয়। উল্লেখ্য, আজীবন সদস্যরা হলেন, মোহাম্মদ আব্দুল হাই, শিপার চৌধুরী, মাহতাব আহমেদ, আসাদুজ্জামান বাচ্চু, মোহাম্মাদ আব্দুল বাসিত, বদরুল আলম চৌধুরী, মোহাম্মাদ নজরুল আলম, গোলাম রব্বানী চৌধুরী, মোহাম্মদ লুতফর রহমান, লিপন চৌধুরী রিপন, ইয়াসিন খালেদ রুমেল, মোহাম্মদ আব্দুল হাকিম, মোহাম্মদ আব্দুল মুনিম, জহির উদ্দিন, মোহাম্মাদ মুরাদ আহমেদ, মোহাম্মাদ আব্দুল হাসিব, সিদ্দিকুর রহমান ও লুৎফা বেগম।



এবছর সংবর্ধনাপ্রাপ্ত ছাত্রছাত্রীরা হলেন, এলিমেন্টারি পর্যায় থেকে, আলী আসকারি, তুহিনুর রাহমান হাসিব, শাবাব আর জিয়া, লাবীবা সুবহান, তাসফিয়া নবী, ফারাবী আহমেদ, নিবিড় সুবহান, নাফিসা হাকিম, সুহা চৌধুরী, মাহির আলম, আহনাফ আবিদ মাহির, রাইসা ইসলাম, জাহারা হক ও মাহযাবিন সাব। মিডল স্কুল পর্যায় থেকে, আহমেদ মুহতাদি, ফেরদৌস জামান, শাহরিয়ার সাইদ রহমান, নাজিফা আক্তার তন্বী, সাফাত কে জিয়া, তাস্নিমা ইয়াসমিন সালাম, রামিশা সুবহান, আদ্যান জামান, মাঈশা তাসনিম, তানাজ জামান, সামিরা চৌধুরী, জাহের ইসলাম, মোহাম্মাদ মাহিন উদ্দিন, তাহসিন জামান ও এনান রাফাত রায়হান। হাইস্কুল পর্যায় থেকে, আলভী আহমেদ, আকীফ খালেদ, সাইয়েদা সুসানা রহমান, আহমেদ ইরতিজা, আসিফ হুসাইন, তাসমিহা আলম, তাহমিনা হোসাইন, নাহিদ হুসাইন নাঈম, মেহনাজ বেগম রেখা ও শাহান ধিরানিয়ান। কলেজ পর্যায় থেকে, সাঞ্জিদা আহমেদ, মোহাম্মেদ নাসির, আনিকা তাহসান খান, আবিদ সাইদ, প্রিন্স চৌধুরী, তামারা রহমান, ওবায়েদ মিয়া রিজোয়ান চৌধুরী ও সালমান সুবহান। বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায় থেকে, নিশাত এ হামিদ ও মারিয়া জামান।

অনুষ্ঠানের শেষে খাওয়া-দাওয়ার পাশাপাশি সংগীত ও নৃত্যের মাধ্যমে অতিথিদের বিনোদিত করা হয়।

বিস্তারিত খবর

ক্যালিফোর্নিয়া বিএনপির পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-২৫ ১২:৪৮:১৮

বদরুল আলম চৌধুরী শিপলু'কে সভাপতি, এম ওয়াহিদ রহমান'কে সাধারন সম্পাদক & মারুফ খান' ও লোকমান হোসাইন'কে সাংগঠনিক সম্পাদক করে ১০১ সদস্য বিশিষ্ট ক্যালিফোর্নিয়া বিএনপির নতুন কমিটি ঘোষিত হয়েছে। দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশক্রমে ইতিমধ্যেই মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষরে নবগঠিত পুর্ণাঙ্গ কমিটি কেন্দ্রের অনুমোদন লাভ করেছে।

২৩ জুন রবিবার সন্ধ্যায় লস এঞ্জেলেসের এক রেস্টুরেন্টে সংবাদ সম্মেলন করে নবনির্বাচিত সভাপতি নতুন কমিটির পূর্ণাঙ্গ তালিকা জনসম্মুখে প্রকাশ করেন। এসময় নতুন সভাপতি বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জনাব তারেক রহমান ও দলের মহাসচিব জনাব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর প্রতি বিশেষ কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

উল্লেখ্য, গত ২৪'শে জানুয়ারী বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আব্দুস সালাম লস এঞ্জেলেস সফরে এলে দ্বিধাবিভক্ত বিএনপির উভয় পক্ষের নেতৃবৃন্দেদের নিয়ে বসে একটি ঐক্যবদ্ধ কমিটি গঠনের লক্ষে চার সদস্যের একটি টিম গঠন করে দেন। অত:পর কয়েক দফা বৈঠকের মাধ্যমে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতৃবৃন্দ গত ২৮শে মার্চ বদরুল আলম চৌধুরীকে সভাপতি & এম ওয়াহিদ রহমান'কে সাধারণ সম্পাদক করে একটি আংশিক কমিটি গঠন করেন। এর মাঝে গত রমজানের ইফতার মাহফিলকে কেন্দ্র করে লন্ডন থেকে কেন্দ্রীয় বিএনপির সহ আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক  আনোয়ার হোসেন খোকন লস এঞ্জেলেস সফরে আসেন। গত মে মাসে জনাব খোকনের উক্ত সফরের প্রাক্কালে ক্যালিফোর্নিয়া বিএনপির ১০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটি পূর্ণতা পায়, যাহা ইতিমধ্যে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের স্বাক্ষরে কেন্দ্রের অনুমোদন লাভ করে।

নবগঠিত কমিটির কর্মসূচীর বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সভাপতি বদরুল চৌধুরী বলেন, এই মুহুর্তে দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার মুক্তি, দেশনায়ক তারেক রহমানের স্বদেশ প্রত্যাবর্তন ও জনগণের ভোটে নির্বাচিত সরকার দাবীই আমাদের প্রধান লক্ষ। এই লক্ষ  বাস্তবায়নের জন্য অচিরেই আমরা শক্তিশালী ও গঠনমূলক কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে।

অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীদের উপস্থিতিতে নতুন কমিটি ঘোষণার সময় আরো উপস্থিত ছিলেন সাবেক ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট বিএনপি প্রেসিডেন্ট নজরুল ইসলাম চৌধুরী কাঞ্চন, সদ্য বিদায়ী সভাপতি আব্দুল বাসিত, কমিউনিটি ব্যাক্তিত্ব আবুল ইব্রাহীম, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মাহাবুবুর রহমান শাহীন, ভাইস প্রেসিডেন্ট মুর্শেদুল ইসলাম, সাইফুল আনসারী চপল, নিয়াজ মুহাইমেন, ফারুক হাওলাদার, অধ্যাপক শাহাদাত হোসাইন শাহীন, মারুফ খান, লোকমান হোসাইন, এলেন ইলিয়াস খান, মিকায়েল খান রাসেল, সৈয়দ নাসির উদ্দীন জেবুল, বদরুল আলম মাসুদ, আহমেদুর রহমান প্রমুখ।
উল্লেখ্য, গত রমজানে বিএনপিতে জয়েন করেন কমিউনিটির জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব, বৈশাখী মেলার অন্যতম উদ্যোক্তা শাহেদ খান ডুলী। নবগঠিত কমিটিতে শাহেদ খান ডুলীকে ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসাবে রাখা হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

লস এঞ্জেলেসে জালালাবাদের ইফতার মাহফিল রবিবার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৭ ১৫:৫৬:১১

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে লস এঞ্জেলেসে ইফতার মাহফিল আয়োজন করেছে জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়া।

আগামী রবিবার (১৯ মে) ইসলামিক সেন্টার অব নর্থরিজে (Islamic Center of Northridge, Granada Hills, 11439 Encino Ave, Granada Hills, CA 91344) আয়োজিত উক্ত মাহফিলে সকল প্রবাসী বাংলাদেশিদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন জালালাবাদ কর্তৃপক্ষ।

বিস্তারিত খবর

মুসলিম হওয়ায় অতিরিক্ত ভাড়া দাবি: ক্ষতিপূরণ দিচ্ছেন মার্কিন নাগরিক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৩ ১৬:৫৬:৩৪

লস এঞ্জেলেসে ক্যাপিটাল হিলের একটি ভবন মালিক মুসলমান হওয়ার কারণে ভাড়াটিয়ার কাছে অতিরিক্ত বাড়ি ভাড়া দাবি করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি আদালতে তোলার পর পৌনে সাত লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ী রাশাদ খান।

জানা যায়, ক্যাপিটাল হিলের ডেভভারের একজন বাড়িওয়ালার কাছ থেকে ক্রেগ ক্যালডওয়েল নামে এক ব্যক্তি ২০১৬ সালে ভবনটির একটি কর্নার ভাড়া নেন। সেখানে তিনি  ফ্রাইড চিকেন নামে একটি রেস্টুরেন্ট খোলেন। ২০১৭ সালের শেষদিকে তিনি রেস্টুরেন্টটি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন। এদিকে বাড়িওয়ালার সাথে চুক্তির শর্ত অনুযায়ী ক্যালডওয়েরকে পাঁচ বছরের জন্য ভাড়া পরিশোধ করতে হয়েছিল যতক্ষণ না তিনি এটি অন্য কাউকে সাবলিজে দিতে পারেন। তাই ভাড়াটিয়া ক্রেগ ক্যালডওয়েল একজন মুসলমান  রাশেদ খান ও তার বাবাকে এটি সাবলিজ দেওয়ার জন্য গত এপ্রিল মাসে চুক্তি সম্পন্ন করেন। তারা সেখানে তাদের রেস্টুরেন্টের ২য় শাখা খোলার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু এখানেই বাঁধ সাধেন বাড়ির মালিক। তিনি মুসলিম পিতা ও পুত্রের কাছে তাদের দ্বিতীয় রেস্তোরাঁটি খুলতে তাদের অবশ্যই সাবলীজ হিসেবে অতিরিক্ত ৬৭৫,০০০ ডলার দিতে হবে বলে জানান।

এব্যাপারে রাশেদ খান বলেন, আমি একজন মুসলিম হওয়ায় ধর্মীয় বিশ্বাস এবং জাতিগত কারণে আমি এবং আমার পিতার সাথে এমন আচরণ করছেন বাড়ির মালিক। তিনি বলেন, আমার বাবা এবং আমি শুধু জানতে চাই, এটি কেমন বিচার? এটা তো রীতিমতো অন্যায় করা হচ্ছে আমাদের সাথে।

বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা হলে বাড়ির মালিক বর্ণবাদী আচরণ করায় জুনেদ রাশেদ খান ও তার বাবার সঙ্গে আপস নিষ্পত্তি করতে বাধ্য হন। ৬ লাখ ৭৫ হাজার ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা) দিয়ে রাজি হন বাড়ির মালিক। 

উল্লেখ্য, সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার দাড়িপাতন গ্রামের জুনেদ আহমেদ খাঁন প্রায় ৩৫ বছর আগে আমেরিকায় যান। অ্যাভিয়েশনে স্নাতক করার পর কলোরাডোতে আমেরিকান এয়ারফোর্স ডিভিশনের অধীনে চাকরি শুরু করেন। কয়েক বছর চাকরির পর স্বাধীনচেতা জুনেদ খাঁন কলোরাডোতে রেস্তোরাঁ ব্যবসা শুরু করেন। অল্পদিনের মধ্যেই তার ব্যবসায় সাফল্য আসতে থাকে। নিজের পারদর্শিতায় একে একে ১৭টি ‘কারি অ্যান্ড কাবাব রেস্টুরেন্ট’–এর শাখা বিস্তৃত করতে সক্ষম হন। ১৭টি রেস্তোরাঁ পরিচালনায় এক সময় হাঁপিয়ে ওঠেন তিনি। কারিগর বা কর্মী সমস্যার ভোগান্তিতে হিমশিম খেতে হচ্ছিল তাকে। একপর্যায়ে রেস্তোরাঁ বিক্রি করে দেন। কয়েক বছর ধরে ছেলে রাশেদ খাঁনকে দিয়ে আবার রেস্তোরাঁ ব্যবসা শুরু করেন। অ্যারিজোনা কলোরাডোতে ‘কারি অ্যান্ড কাবাব’ বিখ্যাত ইন্ডিয়ান রেস্তোরাঁ হিসেবে খ্যাতি পায়।

এদিকে, ১১ বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রে যান তার ছেলে রাশাদ খাঁন। বাবার সঙ্গে ব্যবসায় নামার আগে কলোরাডো বোল্ডার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তথ্য প্রযুক্তিতে ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি।

বিস্তারিত খবর

বারাক ওবামার নামে লস এঞ্জেলেসে সড়ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৩ ১৬:৪৭:৫৯

লস এঞ্জেলেসের একটি পুরাতন সড়কের নামকরণ করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের ৪৪তম প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার নামে। ওবামার সম্মানে সিটি কর্তৃপক্ষ শহরের অন্যতম প্রধান এই সড়কের নামকরণ করে। গত শনিবার বিকেল ৫টায় বর্ণাঢ্য কনসার্টের মাধ্যমে এই সড়কের নামকরণ উদ্বোধন উদযাপন করা হয়। প্রায় ১৫ হাজার দর্শক এই অনুষ্ঠান উপভোগ করে। এতে আমেরিকার মূল ধারার বিভিন্ন ডিজে ও শিল্পীরা গান পরিবেশন করে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন এলএ সিটি কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট, মেয়র, কংগ্যাসম্যান ও কংগ্র্যাস ওমেনসহ ডেমোক্র্যাট পার্টির বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

জানা যায়, ১৩৪ ফ্রীওয়ের একটি সড়ক সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক এইচ ওবামা হাইওয়ে নামে নামকরণ করা হয়েছে। ঐতিহাসিক এই সড়কটি হচ্ছে বুলেভার্ড মিড সিটি এবং কালভার সিটির মধ্যবর্তী সড়ক।


বারাক ওবামার নামে নামকরণের জন্য গত আগস্টে লস এঞ্জেলেস সিটি কাউন্সিল কর্তৃপক্ষ এই সিদ্ধান্ত নেয়। সিটি কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট হারব ওয়েসন এক বিবৃতিতে বলেন, “এই পরিবর্তনের মাধ্যমে আমরা আমাদের শহর এবং সাউথ লস এঞ্জেলেস কমিউনিটির জন্য দেশের প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ রাষ্ট্রপতি হিসাবে ওবামার স্মৃতিকে প্রকাশ্যে প্রকাশ করছি। এই রাস্তায় গাড়ি চালানো প্রতিটি মানুষের জন্য যারা রাষ্ট্রপতির নামটি দেখতে পাবে এটি তাদের নিকট একটি শারীরিক অনুস্মারক হিসাবে কাজ করবে।”

ওয়েসন আরও বলেন, এই সড়কের পাশের ক্রীড়া কমপ্লেক্সের নাম বারাক ও মিশেল ওবামা পার্ক নামে নামকরণের জন্য আমাদের পরিকল্পনা রয়েছে। এটিও সামনে হয়ত বাস্তাবায়িত হবে।

বিস্তারিত খবর

মুনার ইফতার মাহফিল শনিবার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১০ ০৪:২৩:১৯

লস এঞ্জেলেসে মুসিলম উম্মাহ অব নর্থ আমেরিকা (মুনা)-এর বার্ষিক ইফতার মাহফিল শনিবার (১১ মে) অনুষ্ঠিত হবে। স্থানীয় শ্যাটো রিক্রিয়েশন সেন্টারে এই আয়োজন করেছে মুনা’র লস এঞ্জেলেস হলিউড চ্যাপ্টার।

ইফতার মাহফিল উপলক্ষে একটি কোরআন তেলাওয়াত ও কুইজ প্রতিযোগিতাও অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিযোগিতা শুরু হবে বিকেলে ৪টায়। প্রতিযোগিতার জন্য নাম রেজিস্ট্রেশন চলছে।


প্রতিযোগিতার সময়: বিকেলে ৪টা থেকে ৬টা
ইফতার মাহফিলের কার্যক্রম শুরু: বিকেল ৫টা
স্থান: শ্যাটো রিক্রিয়েশন সেন্টার, 3191 W 4th Street, Los Angeles, CA 90020

উক্ত আয়োজনে সকল প্রবাসী বাংলাদেশিদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।

বিস্তারিত খবর

পরিকল্পনামন্ত্রীকে নিয়ে বাফলার ১৩তম প্যারেড ও ফ্যাস্টিভ্যাল অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৪-০৫ ১৬:৪৬:৩০

লস এঞ্জেলেস প্রবাসী বাংলাদেশী বিভিন্ন সংগঠনের সর্ববৃহৎ  ফেডারেশন ‘বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা)’-এর উদ্যোগে বাংলাদেশের ৪৯তম মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল ১৩তম বাংলাদেশ ডে প্যারেড এন্ড ফ্যাস্টিভ্যাল। গত ৩০-৩১ মার্চ লস এঞ্জেলেসে অনুষ্ঠিত এই আয়োজন উপলক্ষে এই দুইদিন যেন লস এঞ্জেলেস ছিল বাংলাদেশ আর বাংলাদেশীদের মিলনমেলা। দেশী-বিদেশী অতিথি আর প্রবাসীদের অংশগ্রহণে লিটল বাংলাদেশ যেন হয়ে উঠেছিল সত্যিকারের এক খণ্ড বাংলাদেশ। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও প্রবাসীদের উৎসাহ-উদ্দীপনা ছিলো সপ্তাহখানেক আগ থেকে। কমিউনিটিতে ছিল সাজসাজ রব।

৩০ মার্চ বিকেলে ভার্জিল মিডিল স্কুল প্রঙ্গণে উদ্বোধন হয় ফ্যাস্টিভ্যালের। এবারের প্যারেডের বিশেষ আকর্ষণ ছিলো প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সরকারের প্রতিনিধি হিসেবে পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানের আগমন।

প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি।

৩০ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় যথারীতি উদ্বোধন হয় ফ্যাস্টিভ্যালের। যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের পর পরিবেশিত হয় বাফলার থিম সং। এরপর যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ এবং বাফলার পতাকা উড়িয়ে আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেন অতিথিরা। যুক্তরাষ্ট্রের পতাকা উত্তোলন করেন লস এঞ্জেলেস সিটি কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট হার্ব জে উইসন, বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পরিকল্পনামন্ত্রী এবং অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি এমএ মান্নান এমপি এবং বাফলা ক্যাবিনেটকে সাথে নিয়ে বাফলার পতাকা উত্তোলন করেন প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম। এরপর পবিত্র কোরআন, বাইবেল ও ত্রিপিটক থেকে পাঠ করা হয়।

উদ্বোধনের পর বক্তব্য রাখেন লস এঞ্জেলেস সিটি কাউন্সিল প্রেসিডেন্ট হার্ব জে উইসন। তিনি তার বক্তব্যে বলেন, বাংলাদেশী কমিউনিটির এমন আয়োজন আমাদের জন্য অত্যন্ত আনন্দের। এমন উৎসব আমাদের জন্য গর্ব বয়ে আনে। আমি এখানে আসতে পেরে অত্যন্ত আনন্দিত। তাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশী কমিউনিটি অত্যন্ত সুশৃঙ্খলভাবে প্রতিবছর এই আয়োজনটি করে থাকে। আমরা আমাদের সর্বোচ্চ চেষ্টা দিয়ে এতে সমর্থন ও সহযোগিতা অব্যাহত রাখব। এসময় তিনি বাংলাদেশের স্বাধীতা দিবসের শুভেচ্ছা জানান সবাইকে।

বক্তব্যের পর বাংলাদেশের পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নানকে স্বাগত জানিয়ে তাকে এলএ সিটির পক্ষ থেকে উপহার ও সার্টিফিকেট তুলে দেন হার্ব জে উইসন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পক্ষ থেকে বাফলাকে শুভেচ্ছা স্মারক প্রদান করছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান।

এরপর বক্তব্য রাখেন অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাংলাদেশের পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি। তিনি এই আয়োজনে তাকে আমন্ত্রণ জানানোর জন্য প্রবাসীদের ধন্যবাদ জানান। তিনি বাংলাদেশে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের পটভূমি তুলে ধরে বলেন, আমাদের দেশটা অত্যন্ত ত্যাগ ও সংগ্রামের বিনিময়ে স্বাধীন হয়েছে। আজ আমরা স্বাধীন জাতি হিসেবে দেশে-বিদেশে গর্ব করতে পারছি। তাই যাদের ত্যাগে এই স্বাধীনতা পেলাম সেই সব বীর মুক্তিযুদ্ধাদের প্রতি আমর সবসময় সম্মান প্রদর্শন করব এবং দেশকে এগিয়ে নিতে কাজ করব। এসময় তিনি প্যারেড আয়োজনের জন্য বাফলা কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বিদেশের মাটিতে এরকম একটি আয়োজন দেখে আমি অভিভূত। দেশের প্রতি আপনাদের এই ভালোবাসা দেশকে আরও অনেকদূর এগিয়ে নিয়ে যাবে।
 
মন্ত্রী প্রবাসীদের কাছে বাংলাদেশের চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরে তিনি বলেন, আপনারা অনেকেই হয়ত সবসময় বাংলাদেশে যান না বা সময়-সুযোগ পান না। ‌ তাদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন সেই বাংলাদেশ আর নাই।‌ পরিবর্তন হয়ে গেছে। বাংলাদেশের পরিবর্তনের হাওয়া সুনামি বয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের ৯৫% মানুষের মাথার উপর বিদ্যুৎ আছে। এ বছরের মধ্যে পুরো দেশ শতভাগ বিদ্যুতায়িত হবে। এছাড়া পদ্মা সেতু, কর্ণফুলীর নিচে টার্নেল নির্মাণ, তৃতীয় সমুদ্র বন্দর তৈরী ইত্যাদি সম্পর্কে আপনারা অবশ্য অগত আছেন। দেশের মানুষের মাথাপিছু আয় বাড়ছে। সম্প্রতি স্বল্প আয়ের দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে বাংলাদেশ। এভাবে দুর্বার গতিতে এগিয়ে যাচ্ছে বাংলাদেশ। যা সম্ভব হচ্ছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার দুরদর্শী নেতৃত্বের কারণে।

প্রধান অতিথিকে সাথে নিয়ে অপরাজেয় এর মোড়ক উম্মোচন করছেন বাফলা নেতৃবৃন্দ।


বিশেষ অতিথির বক্তব্যে লস এঞ্জেলেসে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল প্রিয়তোষ সাহা বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে বাঙালি জাতি যেভাবে একাত্তর সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল ঠিক তেমনি আজও দেশে বিদেশে বাংলাদেশীরা দেশকে এগিয়ে নিতে সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। বিশেষ করে রেমিট্যান্স পাঠিয়ে অর্থনৈতিক উন্নয়নে প্রবাসীরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন। এজন্য আপনাদের প্রতি আমাদের বিনম্র শ্রদ্ধা সবসময়। এভাবে সবার সম্মিলিত প্রচেষ্টার জাতির জনকের স্বপ্ন এবং তার সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আরও অনেক দূর এগিয়ে যাবে।

এসময় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন কানাডা আওয়মী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও দৈনিক শুভ প্রতিদিনের সম্পাদক সারওয়ার হোসেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হাসিব মামুন প্রমুখ।

উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পুরস্কারপ্রাপ্ত কবি ডঃ মাহবুব খান, আওয়ামী লীগের বন ও পরিবেশ উপকমিটির সদস্য ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন ও লস অ্যাঞ্জেলেস সিটি মেয়রের একজন প্রতিনিধি। এছাড়া এবারের প্যারেডে প্রথমবারের মতো ফোবানার একটি প্রতিনিধিদল অংশ নেয়।  

প্রথমবারের মতো মন্ত্রীকে পেয়ে অনেককেই মন্ত্রীর সাথে ছবি উঠাতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন।

উদ্বোধনের পর অতিথিরা মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন করেন।

এরপর শুরু হয় সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশ থেকে আগত বিশিষ্ট কণ্ঠশিল্পী রিজিয়া পারভীন। এছাড়া কোরাস কণ্ঠে পরিবেশিত হয় বিভিন্ন দেশাত্মবোধক গান।

অনুষ্ঠানের সময় ভার্জিল মিডিল স্কুলের মাঠ কানায় কানায় ভরপুর ছিলো।

ব্যতিক্রমী সাংস্কৃতিক পরিবেশনা উপস্থাপন করে বাংলাদেশী আমেরিকান নতুন প্রজন্ম। তারা মনোমুগ্ধকর গান ও নৃত্য পরিবেশন করে। স্থানীয় শিল্পীদের মধ্যে গান পরিবেশন করেন রেহানা মল্লিক, শিল্পী রহমান, আদনান খানসহ আরও অনেকে।

সভপতির বক্তব্যে বাফলা প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহামানসহ সকল মুক্তিযুদ্ধাদের স্মরণ করেন। এছাড়া অনুষ্ঠনে অংশগ্রহণ করার জন্য সকল অতিথি ও প্রবাসীদের ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। ২ দিনের সকল আয়োজন সফল করতে তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

৩১ মার্চ রবিবার দ্বিতীয় দিন শুরু হয় আয়োজনের মূল আকর্ষণ প্যারেডের মাধ্যমে।  দুপুর থেকে থার্ড  এন্ড নরমেন্ডিতে জড়ো হতে থাকেন নারী-পুরুষ, শিশু-বৃদ্ধ, তরুণ-তরুণী, মুক্তিযোদ্ধারাসহ সব বয়সের মানুষেরা। সবার হাতে বাংলাদেশ এবং আমেরিকার জাতীয় পতাকা, নানা ধরণের প্ল্যাকার্ড, রঙ-বেরঙের ফেস্টুন, ব্যানার বা বেলুন, গায়ে পতাকার রং লাল-সবুজের পোষাক।  নিজস্ব গাড়ির পাশাপাশি অনেকে নিয়ে আসেন এক্সক্লুসিভ কিছু গাড়ি। কেউ কেউ গাড়িতে বাজান দেশাত্মবোধক বিভিন্ন গান ও বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ।

প্যারেডে অংশগ্রহণকারী মার্কিন মেরিন ফোর্সের সদস্যরা ও বাফলা স্কাউট দল (ডানে)।


সিটি কর্তৃপক্ষের অনুমতি সাপেক্ষে দুপুর ১টা থেকে লস এঞ্জেলেসের প্রধান প্রধান সড়কগুলো বন্ধ করতে থাকে পুলিশ ডিপার্টমেন্ট। এরপরই শুরু হয় প্যারেডের আনুষ্ঠানিকতা। এবার প্যারেড মার্শাল ছিলেন জর্জিয়া স্টেট সিনেটর শেখ রহমান।

এবারের প্যারেডে নতুন আকর্ষণ ছিলো বাফলার স্কাউট দল। বাংলাদেশী আমেরিকান ৪০ জন শিশু-কিশোর নিয়ে গঠিত স্কাউট দলটি বিশেষ ধরণের ইউনিফর্ম পরে প্যারেড মার্শালের অনুমতি নিয়ে প্যারেড শুরু করে।

প্যারেডের শুরুতে ছিল যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ ও বাফলার পতাকা নিয়ে ৩টি গোড়া। এরপর শিল্পীদের বহনকারী গোড়ার গাড়ি। গাড়িতে ছিলেন বাংলাদেশ থেকে আগত প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী এসআই টুটুল ও মেহের আফরোজ শাওন। এরপর ছিল এক্সক্লুসিভ মোটরসাইকেল নিয়ে একদল তরুণ। তারপর মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল, আমেরিকান একদল তরুণ সাইক্লিস্ট। এরপর ছিলো অতিথিদের জন্য বরাদ্দ ফ্লট। এরপর ছিল বাফলার বিভিন্ন সদস্য সংগঠন।

প্যারেডে উপস্থিত ছিলেন পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান, মন্ত্রীর সহধর্মীনি জুলেখা মান্নান, বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা ও সাবেক মন্ত্রী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, কন্সাল জেনারেল প্রিয়তোষ সাহা, মন্ত্রীর একান্ত সচিব এনামুল হক, কানাডা আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও দৈনিক শুভ প্রতিদিনের সম্পাদক সারওয়ার হোসেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল হাসিব মামুন, প্যারেড ফ্যাস্টিভালের গ্র্যান্ড স্পন্সর বিশিষ্ট ফার্মাসিস্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী, এসেম্বলি ওমেন ক্রিস্টি স্মিথ, ফোবানা ২০১৯ এর কনভেনার নার্গিস আক্তার এবং এলএ পিডির উর্ধ্বতম কর্মকর্তাসহ বাফলার নেতৃবৃন্দ।

এবার প্রথমবারের মতো প্যারেডে অংশ নেয় মার্কিন মেরিন ফোর্সের ৪ সদস্য।

প্যারেডের সময় একটি প্রাইভেট বিমান ভাড়া করে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বিশাল প্রতিকৃতি ও ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু লও সালাম’ লেখা একটি ব্যানার আধা ঘণ্টা ধরে আকাশে ওড়ানো হয়। যা দেখে অত্যন্ত উচ্ছ্বাসিত ছিলেন উপস্থিত দর্শক ও অতিথিরা।

এছাড়া প্যারেডে ছিল একটি বাংলাদেশী বাউল দল ও স্প্যানিশ একটি কিশোর দল। যারা নানা ধরনের বিনোদনমূলক পরিবেশনা পরিবেশন করে।

প্যারেড চলাকালীন বিপুল সংখ্যক বিদেশী রাস্তার দুপাশে দাঁড়িয়ে হাত নেড়ে প্যারেডকে স্বাগত জানান।

এবারের প্যারেডে প্রথমাবারের মতো অংশ নেয় বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ক্যালিফোর্নিয়া শাখা। যার নেতৃত্ব দেন তৌফিক সোলায়মান খান (তুহিন)। আওয়ামী লীগের আরেকটি গ্রুপ ‘ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামী লীগ’ প্যারেডে অংশগ্রহণ করেনি। তবে তাদের স্ত্রী-সন্তানরা ‘বঙ্গবন্ধু শিশু-কিশোর মেলা’র ব্যানারে প্যারেডে অংশ নিতে দেখা যায়। এছাড়া বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা, সাবেক মন্ত্রী আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিএনপির ২ গ্রুপ এক হয়ে বিশাল শোডাউন করে প্যারেডে অংশ নেয়।

প্যারেডটি লস এঞ্জেলেসের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ভার্জিল মিডিল স্কুল প্লে গ্রাউন্ডে গিয়ে শেষ হয়।

লাঞ্চের পর শুরু হয় দ্বিতীয় দিনের অনুষ্ঠান। পতাকা উত্তোলনের পর বাংলাদেশের কিংবদন্তী কথা সাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদকে বাফলা পদক প্রদান করা হয়। পদক গ্রহণ করেন তাঁর স্ত্রী মেহের আফরোজ শাওন। এটি বাফলার ৩য় পদক। পদক গ্রহণের পর শুভেচ্ছা বক্তব্যে মেহের আফরোজ বলেন, এই পুরস্কারটি পেয়ে আমি আবেগাপ্লুত হয়ে গেছি। আমি ভাবতেও পারছি না, আপনারা প্রবাসে থেকে এবং এতদিন পরও হুমায়ূন আহমেদকে মনে রেখেছেন। আপনাদের এই ভলোবাসায় আমি ঋণী হয়ে থাকব। আমি বিশ্বাস করি, এভাবেই হুমায়ূন আহমেদ  বাংলা ভাষা-শিল্প এবং সাহিত্যে যুগ যুগ ধরে বেঁচে থাকবেন। তিনি আরও বলেন, আমি আসার আগে বুঝতে পারিনি এত মানুষ এখানে উপস্থিত হবে। কিন্তু এসে দেখছি এতো যেন বিদেশ নয় পুরো এক বাংলাদেশ। বিশেষ করে আমাদের মন্ত্রী মহোদয়, অন্যান্য অতিথিবৃন্দ এবং প্রবাসীদের দেখ মনে হচ্ছে দেশের কোনো প্রান্তে এই অনুষ্ঠান হচ্ছে। সফল এই আয়োজনের জন্য সবাইকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

এসময় কমিউনিটি ও বাফলার বিভিন্ন কার্যক্রমে উল্লেখযোগ্য অবদানের জন্য ৪ জনকে বাফলা এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

এবার প্রথম পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি হিসেবে বাফলা ওয়ার্ড লাভ করেন তরুণ কমিউনিটি এক্টিভিস্ট আব্দুস সামাদ। তিনি পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারির দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি দুই বছর ধরে সফলভাবে অত্যন্ত আকর্ষণীয় করে বাফলার বার্ষিক ম্যাগাজিন ‘অপরাজেয়’ প্রকাশ, বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীসহ আমেরিকার গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের বাণী আনা, এবার প্রধান অতিথি হিসেবে পরিকল্পনামন্ত্রীকে নিয়ে আসা, আমেরিকার মূল ধারার সাথে বাফলার সংযোগ তৈরী প্রভৃতি কাজ অত্যন্ত সফলভাবে সম্পন্ন করায় তাকে এই এওয়ার্ড প্রদান করা হয়।

গান পরিবেশন করছেন বাংলাদেশ থেকে আগত অতিথি শিল্পীরা।

এওয়ার্ড প্রদানের পর প্যারেড উপলক্ষে প্রকাশতি বাফলার বার্ষিক ম্যাগাজিন ‘অপরাজেয়’-এর মোড়ক উন্মোচন করা হয়। বাফলার পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি ও ম্যাগাজিন কমিটির কো-অর্ডিনেটর আব্দুস সামাদ ম্যাগাজিন কমিটি এবং প্রধান অতিথিকে সাথে নিয়ে ম্যগাজিনের মোড়ক উন্মোচন করেন। অতিথিবৃন্দ এবং প্রাবাসীরা এবারের ম্যাগাজিনের ভূয়সী প্রসংশা করেন। সবাই ম্যাগাজিন দেখে অত্যন্ত সন্তুষ্টি প্রকাশ করতে দেখা যায়।
 
এরপরই শুরু হয় মনোজ্ঞ সাংস্কৃতি অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করেন বাংলাদেশ থেকে আগত প্রখ্যাত কণ্ঠশিল্পী এসআই টুটুল ও মেহের আফরোজ শাওন এবং স্থানীয় শিল্পীরা।

উল্লেখ্য, প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে সামাজিক ও চ্যারিটির কাজ করে দেশে-বিদেশে ব্যাপক পরিচিতি ও সুনাম অর্জন করেছে। দিনদিন সংগঠনের পরিধি আরও বিস্তৃত হচ্ছে। একটি প্রবাসী সংগঠন হিসেবে বাংলাদেশ সরকারের সাথে যেমন সম্পর্ক ও যোগাযোগ রয়েছে তেমনি যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারার সাথেও মিলেমিশে কাজ করছে বাফলা। তাই প্রতিবছর বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রীসভার সদস্য, গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিরা এবং যুক্তরাষ্ট্রের সরকার-প্রশাসন এবং মূলধারার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ বাফলার ম্যাগাজিনে বাণী প্রদান এবং প্যারেডে উপস্থিত হচ্ছেন। এর মাধ্যমে বিশ্বব্যাপী উচ্চকিত হচ্ছে লাল-সবুজের পতাকা ও বাংলাদেশের নাম। গত ১৩ বছর ধরে বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে এই প্যারেড-ফ্যাস্টিভ্যাল আয়োজন করে আসছে বাফলা।


এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

হলিউডে যুবলীগের উদ্যোগে জাতির পিতার জন্মদিন পালন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-২২ ১৬:১৫:৩৩

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৯৯ তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামী যুবলীগ এর উদ্দ্যোগে আওয়ামী পরিবারের সবাইকে নিয়ে বাংলাদেশ একাডেমীতে আয়োজিত আলোচনা সভায় শ্রদ্ধাঞ্জলি জানাতে সমবেত হয়েছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, ক্যালিফোর্নিয়া শাখা, ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামী লীগ, ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট আওয়ামী যুবলীগ, ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ, ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট মহিলা লীগ ও লস এন্জেলেস সিটি আওয়ামী যুবলীগের নেত্রীবৃন্দসহ সর্বস্তরের জনগণ।

প্রথমেই ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামীলীগের সহ সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মিয়া আব্দুর রব বঙ্গবন্ধুর ৯৯ জন্মদিনে তার পরিবারসহ সকলের জন্য দোয়া প্রার্থনা করেন।

ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট যুবলীগের সভাপতি সূবর্ণ নন্দী তাপসের সভাপতিত্বে ও ভাঃ সাধারণ সম্পাদক শ্যামল মজুমদারের পরিচালনায় এবং লস এন্জেলেস সিটি যুবলীগের সভাপতি আলমগীর হোসেন ও সাধারন সম্পাদক হাবিবুর রহমান ইমরান এর সার্বিক তত্তাবধানে যুবলীগ পরিবারের সকলে মিলে জন্মদিনের অনুষ্ঠানটি সফল করেন।
অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ক্যালিফোর্নিয়া শাখার সভাপতি তৌফিক ছোলেমান খান তুহিন, ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট আওয়ামীলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জাকির খান, ক্যালিফোর্নিয়া স্টেট স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি শাহ আলম খান চৌধুরীসহ সকল সংগঠনের নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগণ উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও সন্মানিত মুক্তিযোদ্ধাসহ স্থানীয় প্রবাসী বাংলাদেশীদের অনেকেই অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হয়ে ইতিহাসের মহানায়ক বঙ্গবন্ধুর জন্মদিন পালন করেন।
সবশেষে উপস্থিত সকলে মিলে কেক কাটার মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সমাপ্তি করেন।

এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নিউজিল্যান্ডে হামলার ঘটনায় বাফলার নিন্দা ও শোক, প্রবাসীদের সতর্ক থাকার অনুরোধ

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-১৫ ০৮:০৪:৪৬

নিউজিল্যান্ডে দুটি মসজিদে হামলার ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা) নেতৃবৃন্দ।

বাফলার পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি আব্দুস সামাদের পাঠানো এক শোক বার্তায় প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম ও সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার শহিদ আলম মসজিদে গুলিবর্ষণে অনেক লোকের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

সেই সাথে আজ শুক্রবার লস এঞ্জেলেসের সকল প্রবাসীদের সতর্কতার সাথে মসজিদে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

শুক্রবার জুমার নামাজের সময় একাধিক হামলায় এই প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা অর্ডেন এই ঘটনাকে ‘নিউজিল্যান্ডের অন্ধকারতম দিন’ হিসেবে বর্ণনা করেছেন।

হামলার সময় সেন্ট্রাল ক্রাইস্টচার্চের মসজিদ আল-নূরে মুসল্লিদের ভিড় ছিল। ক্রাইস্টচার্চের উপ-শহর লিনউডে দ্বিতীয় আরেকটি মসজিদেও হামলা চালানো হয়েছে।

এখন পর্যন্ত এই হামলায় ৪৯ জনের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে দেশটির কর্তৃপক্ষ।


এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

লস এঞ্জেলেসে এলএ বেঙ্গল ক্রিকেট ক্লাবের ফান্ডরাইজিং ডিনার অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-১৩ ১৫:০৯:৫৯

এল এ বেঙ্গলস ক্রিকেট ক্লাবের দশ বৎসর পুর্তি উপলক্ষে ফান্ড রাইজিং ডিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

গত ৯ই মার্চ, শনিবার সন্ধায় লস এন্জেলেসের স্থানিয় বলিউড ইন্ডিয়ান রেস্টুরেন্টের ব্যাংকুয়েটে এ ফান্ড রাইজিং ডিনার অনুষ্ঠিত হয়। লস এন্জেলেসে প্রতিষ্ঠিত একমাত্র বাংলাদেশি  প্রফেশনাল ক্রিকেট খেলুড়ে টিম এল এ বেঙ্গলস এবার দশ বৎসরে পদার্পন করেছে। প্রবাসি বাংলাদেশী বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃত্বস্থানীয় পর্যায় থেকে শুরু করে অনেক সাধারন ক্রিকেট প্রেমিদের অংশগ্রহনে পুর্ন হয় যায় অনুষ্ঠানস্থল। টিভি অভিনেত্রী সাজিয়া হক মিমির উপস্থাপনায় দুটি পর্বে সাজানো অনুষ্ঠানের প্রথম পর্বে, এল এ বেঙ্গলস ক্রিকেট ক্লাবের প্রেসিডেন্ট নাদিম আহমেদ তার সূচনা বক্তব্যে  টিমের প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত যারা অক্লান্ত পরিশ্রম করে টিমটিক্ এ এগিয়ে নিচ্ছে তাদের নাম উল্যেক্ষ করে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠানটিতে কম্যুনিটির সকল স্তরের সংগঠন ও সংগঠকদের উপস্থিতি ও তাদের সমর্থনই প্রমান করে যে এল এ বেঙ্গল একটি সর্বজন সমাদ্রিত ক্রিকেট টিম। । উপস্থিত সংগঠন গুলোর মধ্যে বাফলা, বৈশাখী মেলা ও আনন্দ মেলা একটি বড় অংকের আর্থিক সহযোগীতা প্রদানের ঘোষনা দেন। এছাড়াও স্থানিয় সংবাদ সংস্থা বাংলাদেশী আমেরিকান প্রেসক্লাব অব ক্যালিফোর্নিয়া, একুশ নিউজ মিডিয়া, এল এ বাংলা টাইমস, বাংলাদেশ প্রতিদিন আর্থিক সহযোগিতার পাশাপাশি নিয়মিত সংবাদ প্রচারের মাধ্যমে এল এ বেঙ্গলসকে সার্বিক ভাবে সহযোগিতার আশ্বাস দেন।
দল মতের উর্ধে উঠে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ক্যালিফোর্নিয়া শাখা, বাংলাদেশ জাতিয়তাবাদী দল ক্যালিফোর্নিয়া শাখা, ক্যালিফোর্নিয়া ষ্টেট যুবলীগ, লস এন্জেলেস সিটি যুবলীগ ও আরো বেশ কিছু সংগঠনের উর্ধতন নেতৃবৃন্দ সংক্ষিপ্ত বক্তব্য প্রদানের মাধ্যমে খেলা ধুলা সকল কিছুর উর্দ্ধে বলে উল্যেক্ষ করেন। এল বেঙ্গলস ক্রিকেট টিমের সামনের দিকে এগিয়ে নিতে সার্বিক ভাবে সহযোগিতার জন্য একমত পোষন করে উপস্থিত সন্মানিত ব্যাক্তিবর্গরা। ক্রিকেট সংস্থা SCCA এর সাবেক প্রেসিডন্ট এ বর্তমান গ্রাউন্ড চিফ কামাল আজিজ তার মুল্যবান বক্তব্যে এল এ বেঙ্গলসের সফলতা সাক্ষ প্রমান করেন।

পবিত্র কোরান থেকে তেলাওয়াত ও দুদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের মাধ্যমে সন্ধা ৮:৩০ মিনিটে শুরু হওয়া অনুষ্ঠানের নৈশভোজে ছিল দেশিও সুস্বাদু খাবার।
অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সঙ্গিত পরিবেশন করে আগত অতিথিদের মনোরঞ্জন করেন স্থানিয় নামি ব্যান্ড দল ফ্রিডম এজ।
উল্যেখ্য, আগামী ১৪ই এপ্রিল, রবিবার এলএ বেঙ্গলস তাদের এবারের আসরের প্রথম খেলায় অংশগ্রহন করবে। সকলকে খেলা দেখতে যাওয়ার আমন্ত্রন জানান টিম ডিরেক্টর শওকত হোসেন আনজিন। সকলের সহযোগিতায় এল এ এ বেঙ্গলস ক্রিকেট ক্লাব এগিয়ে যেতে চায় দুর্বার গতিতে।

এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

স্বজনহীন মৃত ব্যক্তির পাশে অভিভাবকের ভূমিকায় বাফলা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-২৮ ১৫:১৯:৩০

গত ২০ ফেব্রুয়ারি (বুধবার) ওরেঞ্জ কান্ট্রিতে একজন প্রবাসী বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। আমেরিকায় উনার কোনো আত্মীয়-স্বজন নেই। শুধুমাত্র একজন মেয়ে উনার সাথে থাকেন। তিনিও সিঙ্গেল মাদার।  তিনি শুধু তার মা-বাবাকে নিয়ে থাকতেন। এমতাবস্থায় বাবার মৃত্যুর পর মারাত্মক অসহায় হয়ে পড়েন ঐ বোন। আপনারা জানেন, এখানে দাফন-কাফনে বিপুল পরিমাণ অর্থ খরচ হয়।

প্রথমে ঐ এলাকার মসজিদে খবর দিলে তারা ১৮০০ ডলার সংগ্রহ করে কিন্তু এই অর্থ দিয়ে তো দাফন-কাফন সব করা সম্ভব নয়। তাই কোনো মাধ্যমে খবর পেয়ে তিনি সহযোগিতার জন্য বাফলার পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি আব্দুস সামাদের মাধ্যমে বাফলা চ্যারিটির কো-অর্ডিনেটর শিপার চৌধুরীর সাথে যোগাযোগ করেন। শিপার চৌধুরী কর্মব্যস্ততার মধ্যেও তাৎক্ষণিক নেতৃবৃন্দের সাথে জরুরি টেলিকনফারেন্স আয়োজন করেন। কনফারেন্সে সবাই ঐ বোনের সহযোগিতায় ঐক্যমত হয়ে একটি প্রতিনিধি দল প্রেরণের সিদ্ধান্ত নেন। প্রতিনিধি দলে ছিলেন বাফলার সাবেক প্রেসিডেন্ট জসিম আশরাফী এবং খন্দকার আলম, বর্তমান প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম ও পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি ও কমিউনিটি এক্টিভিস্ট আব্দুস সামাদ।

সিদ্ধান্তের আলোকে এই প্রতিনিধিদল লস এঞ্জেলেস থেকে ১২০ মাইল দূরে ভিক্টর বিল এলাকায় গিয়ে উপস্থিত হন।

উনার দাফন সম্পন্ন করতে সর্বমোট খরচ হয় ৫২০০ ডলার। মসজিদের ১৮০০ ডলারের সাথে বাফলার পক্ষ থেকে আরও ৩৪০০ ডলার যোগ করে লাশ দাফন করা হয়। বাফলা নেতৃবৃ্ন্দ উপস্থিত থেকে যাবতীয় কাজ কাজ সম্পন্ন করেন। শনিবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) তাকে সমাহিত করা হয়।

জানাযা ও দাফনের সময় দেখা যায়, বাফলার ৪ জনসহ আরও একজন মাত্র বাংলাদেশি উপস্থিত ছিলেন। আর কোনো বাংলাদেশিকে সেখানে পাওয়া যায়নি। এতে বুঝা যায়, এই ফ্যামেলির অন্য কারও সাথে তেমন যোগাযোগ ছিল না। কতটা অসহায় ছিলেন তারা।

মরহুমের মাগফেরাতের জন্য বাফলার পক্ষ থেকে উনার বাসায় একটি দোয়া মাহফিলও আয়োজন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাফলা নেতৃবৃন্দ।

বাফলার এমন সহযোগিতায় ঐ বোন এবং তার মা অত্যন্ত খুশি হন। আসার সময় তারা বলেন, বাফলার প্রতি আমরা আজীবন ঋণি হয়ে থাকব। আপনারা আমাদের অভিভাবকের ভূমিকা পালন করলেন। আল্লাহ আপনাদের মঙ্গল করুন।


এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

পলাশকে নিয়ে যা বললেন সিমলা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-২৫ ১৩:০৫:৩১

বাংলাদেশ বিমানের একটি উড়োজাহাজ ছিনতাইচেষ্টার পর কমান্ডো অভিযানে নিহত মো. পলাশ আহমেদ ওরফে মাহাদী ও চিত্রনায়িকা সিমলাকে নিয়ে যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে এর জন্য এক ভিডিও বার্তা দিয়েছেন সিমলা।

রোববার বিমান ছিনতাইচেষ্টার ঘটনায় যুগান্তরসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে পলাশ ও সিমলার বিয়ের বিষয়টি সামনে আসে। এর ব্যাখা দিতেই ভিডিও বার্তা দেন নায়িকা সিমলা।

ভিডিও বার্তায় সিমলা বলেন, ২০১৭ সালের ১২ সেপ্টেম্বর তার সঙ্গে পরিচয় পলাশের। আমি পরিচালক রশিদ পলাশের 'নাইওর' ছবি করেছিলাম। সেদিন (১২ তারিখ) পরিচালক রশিদ পলাশের জন্মদিন ছিল। আমাকে সেখানে ইনভাইট করেছিলেন তিনি। আমি সেখানে গিয়েছিলাম। সেখান থেকেই পলাশের (বিমান ছিনতাইচেষ্টাকারী) সঙ্গে আমার পরিচয় হয়।

সিমলা বলেন, এরপর ২০১৮ সালের ৩ মার্চ আমরা বিয়ে করি। ওই বছরেরই নভেম্বরে আমাদের ডিভোর্স হয়েছে।

পলাশকে ডিভোর্স দেয়ার তথ্য জানিয়ে নায়িকা সিমলা আরও বলেন, ডিভোর্স দেয়ার কারণ ছিল। মূল কারণ হচ্ছে- মানসিক সমস্যা।

তিনি বলেন, পেশা হিসেবে আমি যেটা জানতাম-জানি সেটা হলো পরিচালক রশিদের 'কবর' ছবিতে প্রযোজক হিসেবে ছিলেন পলাশ (বিমান ছিনতাইচেষ্টাকারী)। আমি তাকে (পলাশ) একজন প্রযোজক হিসেবেই চিনি।

সিমলা বলেন, আমি ঘটনার (বিমান ছিনতাইচেষ্টা) সবই শুনেছি। আমার এখন কী করা উচিত। যেহেতু উনাকে (পলাশ) আমি ডিভোর্স দিয়ে ফেলেছি। আমাদের ডিভোর্স হয়েছে চার মাস চলছে। গতবছরের নভেম্বর মাসের ৬ তারিখে ডিভোর্স হয় আমাদের। এখন আমার কী করণীয় আছে।

তিনি বলেন, তবুও একটা কথা থাকে এখানে। যেহেতু এত বড় একটা ঘটনা ঘটেছে। করেছে দুঃসাহসিক একটা ঘটনা উনি (পলাশ) এবনরমালেই করেছেন। যেটাই করেন না কেন এটা তো শুভনীয় নয়। এটা তো দেশের জন্য শুভনীয় নয়। এটা আমার দেশের জন্য অত্যন্ত দুঃখজনক এবং লজ্জাজনক। সেখানে যদি আমার দেশের স্বার্থের জন্য কোথাও ফেইস হতে হয়, কোনো প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হয়, নো প্রোবলেম। আমি রেডি, নো প্রোবলেম।

এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি 

বিস্তারিত খবর

লস এঞ্জেলেসে বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে অমর একুশে উদযাপন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-২৫ ১২:৫৭:৩৭

বিনম্র শ্রদ্ধা আর যথাযোগ্য মর্যাদায় বাংলাদেশের মতোই  লসএঞ্জেলেসের বাংলাদেশী কমিউনিটি অমর শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করেছেন। শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে লিটল বাংলাদেশ কমিউনিটি মুক্তি চত্বরে অস্থায়ী শহীদ বেদিতে পুষ্প অর্পণের আয়োজন করে। সবাই মিনারে ফুল দিয়ে ভাষা শহীদদের স্মরণ করে।

একুশের প্রথম প্রহরে লস এঞ্জেলেস্থ বাংলাদেশ কন্সুলেটে স্থাপিত অস্থায়ী শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলি প্রদান করে।


বার বাঙ্কে একটি পারকিং লোটে একুশের প্রথম প্রহরে লস এন্জেলেসে ভাষা শহীদদের স্মরণে সর্বদলীয় শ্রদ্ধান্জলী জানিয়েছে। এদিকে গ্রেটার লস এঞ্জেলেসবাসীর সম্মিলিত উদ্যোগে নর্থ হলিউডের স্পাইসি প্লাস রেস্টুরেন্টে অমর একুশে উদযাপিত হয়। এসময় ভাষা শহীদদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে পুষ্পাঞ্জলী প্রদান করেন প্রবাসীরা। এছাড়া ডা: রুবি তার বাসায় ২১শে ফেব্রুয়ারি উদযাপন অনুষ্টানের আয়োজন করেন।

বাংলাদেশী আমেরিকান প্রেসক্লাব অব ক্যালিফোর্নিয়া  লস এঞ্জেলেস এবার একটু ভিন্ন ধরনের শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন করে । তারা  ভাষা শহীদদের স্মরণে শ্রদ্ধান্জলী জানিয়েছে। সঙ্গে  সম্প্রতি  মৃত্যু বরনকারী বীর মুক্তিযোদ্ধা গীতিকার ও সুরকার আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল, সাংবাদিক  আমানুল্লাহ কবির এবং  বাংলা সাহিত্যের অন্যতম প্রধান কবি আল মাহমুদকে নিয়ে স্মরণ সভা করে  চার্চ অফ সাইনটোলজির অডিটোরিয়েম হলিউডে ।


এ সভায়  বাংলাদেশী আমেরিকান প্রেসক্লাব অব ক্যালিফোর্নিয়ার সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এবং বাংলাদেশী কমিউনিটির গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন। আলোচকদের মধ্যে ছিলেন মিঃ শামসুল ইসলাম, সাঈদ আবেদ নিপু, খাই রুযযামান মামুন, তাপশ নন্দি, হাসিনা বানু, তাওফিক খান, জাহাঙ্গির বিশ্বাস,জাকির খান, জাহির আহমেদ,সিদ্দদিক রাহমান, শ্যামল মজুমদার, শাহ  আলম  প্রমুখ।


সভায় কয়েক দিন সম্প্রতি ঢাকার চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে নিহতদের স্মরণে বিশেষ দোয়া এবং নিহতদের  আত্মার মাগফিরাত এবং পরকালের শুক শান্তি কামনা করেন । অনুষ্ঠান উপস্থাপনা করেন আশরাফ আহমেদ মিলন। অনুষ্ঠান শেষে সকলের জন্য মিষ্টি সহ দুপুরের খাবেরের আয়োজন করে বাংলাদেশী আমেরিকান প্রেসক্লাব অব ক্যালিফোর্নিয়া ।


এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি 

বিস্তারিত খবর

অমর একুশে গ্রন্থমেলায় চার লস এঞ্জেলেস প্রবাসীর বই

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-০৬ ১৪:১১:৫২

প্রতি বছর এর মত এ বছরও শুরু হয়ে গেল বাংলা ভাষার মাস। বাঙালি জাতি তথা বাংলা ভাষা ভাষীর জন্য এ এক অনন্য শিহরনের মাস। বাংলাদেশসহ বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা প্রতিটি বাঙালির বাংলা ভাষার  জন্য অমর একুশ এক অবিনাশী চেতনা। এই চেতনাকে মনের ভিতর লালন করেই ঢাকার বাংলা একাডেমিতে চলছে অমর একুশে গ্রন্থমেলা ২০১৯।  অমর একুশে গ্রন্থমেলায় হাজার হাজার নতুন বই বের হবে।এই মেলায় নবীন প্রবীণ লেখকদের বই বের হবে সেক্ষেত্রে প্রবাসী লেখকরাও পিছিয়ে নেই। পিছিয়ে নেই লস এঞ্জেলেসের চার লেখক ।

তপন দেবনাথ -  লস এঞ্জেলেস প্রবাসী লেখক ও সাংবাদিক এর দুইটি বই প্রকাশিত হয়েছে। বই দুইটির নাম হচ্ছে-  “আমেরিকা সংলাপ” এবং “যে সবে বঙ্গেত জন্মি” (গল্প গ্রন্থ)।প্রকাশ করেছে শুদ্ধ প্রকাশ।আর বই দুইটির প্রচ্ছদ করেছেন চারু পিন্টু। পাওয়া যাবে একুশের বই মেলায় শুদ্ধ প্রকাশ এর স্টলে । তপন দেবনাথের এ যাবত  বই প্রকাশিত হয়েছে ২৫ টি ।

শাহানা পারভীন - লস এঞ্জেলেস প্রবাসী কবি লেখক উপস্থাপিকা ও অভিনেত্রী তার এবারের  ২১শের বই মেলায় ২০১৯ আরেকটি  কবিতার বই বের হলো । বইটির নাম “মানবতা আমাদের  ঠিকানা “ শাহানা পারভীন  গত বেশ  কিছু দিন যাবত ঢাকাতে অবস্তান করছেন ।বইটি দু’জন প্রিয় মানুষকে (তার মা জননী আরেক জন শাশুড়ি মা) উৎসর্গ করেছেন । দু’জনই হারিয়ে গেছে না ফেরার দেশে।

জিয়াউদ্দিন আহমেদ - একজন লস এঞ্জেলেস প্রবাসী নুতন লেখক তার প্রথম বই   আসন্ন বইমেলায়  বইটি পাওয়া যাবে - বইটির নাম ' দাঁড়াও পথিকবর। ' দি রয়েল পাবলিশার্স বইটি প্রকাশ করেছে। লেখক নিজেই বইমেলায় উপস্থিত থাকবেন বলে ইতি মধ্যেয়ই ঢাকাই  গিয়েছেন ।

এম ইসলাম মাসুদ
- এরিজোনাতেই বসবাস করেন, মাঝে মধ্যে লস এঞ্জেলেস বিভিন্ন অনুষ্ঠান দেখা যায় ।এবারের বই মেলায় লেখা “গুম “ উপন্যাসটির প্রথম খন্ড  ২০১৯  একুশের বই মেলায় পাওয়া যাবে, স্টল নং ৫২৮-৫২৯, মুক্তচিন্তা প্রকাশনালয়ে। সংগ্রহ করে পড়ার অনুরোধ লেখকের। বাংলাদেশের একটি পরিবারের একজন উপার্জনক্ষম সদস্য যদি গুম খুন বা নিঁখোজ হয়, তাহলে পরিবারটি কিভাবে ধ্বংশ হয়ে যেতে পারে তারই একটি চিত্র তুলে ধরার চেষ্টা করেছেন এই উপন্যাসে। ২০১৪ সাল থেকে এম ইসলাম মাসুদ নিয়মিত লিখেই চলেইছেন ।

মিডিয়ার খবরে জানা যায় যে ২০১৮ এর বই মেলাতে ৪৫০০ নতুন বই বের হয়েছিল এবং প্রায় ৭০ কোটী টাকার বাণিজ্য হয়েছিল ।

এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মনসুরের ছোট ভাই লস এঞ্জেলেস প্রবাসী স্বপনের ইন্তেকাল

 প্রকাশিত: ২০১৯-০২-০৪ ১১:৩৭:৪৫

ডাকসুর সাবেক ভিপি ও আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক, জাতীয় সংসদ সদস্য ও জাতীয় নেতা সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদের ছোট ভাই লস এঞ্জেলেস প্রবাসী  সুলতান মোহাম্মদ মখছুদ আহমদ স্বপন আর নেই।  ৩ ফেব্রুয়ারী স্থানীয় নিউপোর্ট বীচ কেয়ার সেন্টারে তিনি ইন্তেকাল করেন। ইন্না লিল্লাহি...রাজিউন। মৃত্যূকালে তার বয়স হয়েছিলো ৫৮ বছর।

মরহুম স্বপন বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস বাফলার সাবেক সভাপতি ও বিশিষ্ট  কমিউনিটি সংগঠক জসীম আহমেদ আশরফীর চাচাত ভাই। তিনি সিলেট গর্ভমেন্ট স্কুল  থেকে এস.এস.সি, সিলেট এম.সি কলেজ থেকে এইচ.এস.সি এবং লস এঞ্জেলস ইউনিভার্সিটি থেকে ইঞ্জিনিয়ারিং সম্পন্ন করেন।

৪ ভাই ও ১বোনের মধ্যে তিনি ৩য়। তিনি দীর্ঘদিন থেকে স্বপরিবারে যুক্তরাষ্ট্রে স্থায়ীভাবে বসবাস করছিলেন।

জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়া'র শোক:
লস এঞ্জেলেস প্রবাসী বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব জসীম আহমেদ আশরাফীর চাচাত ভাই এবং সাবেক ডাকসু ভিপি সুলতান মুহাম্মদ মনসুরের ছোট ভাই সুলতান মুহাম্মদ স্বপনের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছেন জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়া'র নেতৃবৃন্দ।  এসোসিয়েশনের  প্রেসিডেন্ট আসাদুজ্জামান বাচ্চু ও সেক্রেটারি বদরুল আলম মাসুদ এক শোক বার্তায় মরহুমের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন।

বাফলার শোক:
বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস বাফলার সাবেক সভাপতি ও বিশিষ্ট  কমিউনিটি সংগঠক জসীম আহমেদ আশরফীর চাচাত ভাই সুলতান মুহাম্মদ স্বপনের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছেন বাফলা নেতৃবৃন্দ। তারা মরহুমের রূহের মাগফেরাত ও শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।
বাংলাদেশি আমেরিকান এসোসিয়েশন অব লস এঞ্জেলেস ও আনন্দমেলার শোক:
সুলতান মুহাম্মাদ স্বপনের মৃত্যুতে বাংলাদেশি আমেরিকান এসোসিয়েশন অব লস এঞ্জেলেস ও  আনন্দমেলার পক্ষ থেকে গভীর শোক প্রকাশ করা হয়েছে ও মরহুমের পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানানো হয়েছে। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডেন্ট মোহম্মদ আলী খান ও সাধারণ সম্পাদক শাহেদ খান ঢুলি মরহুমের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন। 

এলএ বাংলা টাইমসের শোক:
লস এঞ্জেলেস প্রবাসী  সুলতান মোহাম্মদ মখছুদ আহমদ স্বপনের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছে এলএ বাংলা টাইমস পরিবার। এক শোক বার্তায় এলএ বাংলা টাইমসের সিইও আব্দুস সামাদ বলেন, একজন সজ্জন ব্যক্তি ছিলেন সুলতান স্বপন। তার মৃত্যুতে কমিউনিটি একজন ভালো মানুষকে হারালো। আমরা তাঁর বিদেহী আত্মার মাগফেরা কামনা করছি। সেই সাথে শোকাহত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানাচ্ছি।

এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মৃত্যুতে বাফলার শোক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০১-২৬ ০৩:১৩:৫২

বাংলাদেশের প্রখ্যাত সংগীত পরিচালক, গীতিকার, সুরকার ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা)। 
বাফলার পাবলিক রিলেশন সেক্রেটারি আব্দুস সামাদের পাঠানো এক শোক বার্তায় প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম ও সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার শহিদ আলম গুণী এই শিল্পীর মৃত্যুতে শোক ও তাঁর পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। 
শোক বার্তায় তারা বলেন, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের মৃত্যুতে বাংলাদেশের সংগীতাঙ্গণ এক মহান প্রতিভাবান শিল্পীকে হারাল। যার শুণ্যতা পূরণ হবার নয়। তার অসামান্য সৃষ্টিকর্মের জন্য চিরদিন মানুষ তাকে স্মরণ করবে। আমরা তাঁর রুহের মাগফেরাত কামনা করছি।
উল্লেখ্য, আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল গত ২২ জানুয়ারি, মঙ্গলবার ভোরে ঢাকার আফতাব নগরে নিজ বাসায় হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। গত প্রায় এক বছর ধরে নানা অসুস্থতায় ভোগা এই সুরকারের বয়স হয়েছিল ৬৩ বছর। দীর্ঘদিন ধরে তিনি হৃদযন্ত্রের জটিলতায় ভুগছিলেন।
২০১৮ সালের মাঝামাঝি বুলবুলের হার্টে আটটি ব্লক ধরা পড়ে। তার শারীরিক অবস্থার কথা জানতে পেরে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নেওয়ার পর বুলবুলকে ভর্তি করা হয় জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে। সেখানে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে চিকিৎসকরা বুলবুলের বাইপাস সার্জারি না করে শরীরে রিং পরানোর সিদ্ধান্ত নেন। এরপর চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে বাসায় ফিরেন তিনি।
তখন রাজধানীর জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটের পরিচালক ডা. অধ্যাপক আফজালুর রহমানের অধীনেই বুলবুলের শরীরে দুটি স্টেন্ট (রিং) স্থাপন করা হয়।
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুল তিন শতাধিক চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করেছেন। চলচ্চিত্রের সংগীত পরিচালনা করে দুবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন।
আহমেদ ইমতিয়াজ বুলবুলের জন্ম ১৯৫৭ সালের ১ জানুয়ারি ঢাকায়। ১৯৭১ সালে মাত্র ১৫ বছর বয়সে বুলবুল কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে রাইফেল হাতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন রণাঙ্গনে। মুক্তিযুদ্ধের প্রত্যক্ষ স্মৃতি বিস্মৃতি নিয়ে বহু জনপ্রিয় গান লিখেছেন এবং সুর করেছেন।
‘এই দেশ আমার সুন্দরী রাজকন্যা’, ‘উত্তর দক্ষিণ পূর্ব পশ্চিম’, ‘সব কটা জানালা খুলে দাও না’, ‘মাঝি নাও ছাইড়া দে’, ‘ও মাঝি পাল উড়াইয়া দে’, ‘সেই রেল লাইনের ধারে’, ‘মাগো আর তোমাকে ঘুম পাড়ানি মাসি হতে দেবনা’- এমন বহু কালজয়ী গানের স্রষ্টা এই শিল্পী।

এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

প্যারেডের থ্রিডি প্রদর্শনীর মাধ্যমে বাফলার ফান্ডরাইজিং অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০১-২৩ ১৪:১০:১১

বাংলাদেশ ইউনিটি ফেডারেশন অব লস এঞ্জেলেস (বাফলা)-এর উদ্যোগে অনুষ্ঠিতব্য ১৩তম বাংলাদেশ ডে প্যারেড এন্ড ফেস্টিভাল উপলক্ষে বার্ষিক ফান্ডরাইজিং ডিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত রবিবার (২০ জানুয়ারি) স্থানীয় গার্ডেন সুইট রিসোর্ট হোটেলের বল রুমে আকর্ষণীয় আয়োজনে এই অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। 
সন্ধ্যা ৬টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এই প্রোগ্রামে প্রতিবারের মতো এবারও বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি, কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ, বাফলার অন্তর্ভূক্ত সংগঠন ও নেতৃবৃন্দ সপরিবারে অংশ নেন।  অনুষ্ঠানে প্যারেড ও ফেস্টিভলের জন্য প্রবাসীদের কাছ থেকে ৩৪ হাজার মার্কিন ডলার সংগৃহিত হয়।
ক্যাবিনেট সদস্যদের সাথে নিয়ে বক্তব্য রাখছেন বাফলা প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম।


পূর্বনির্ধারিত সময় অনুযায়ী সন্ধ্যা ৬টা থেকে একে একে প্রবাসী ও অতিথিরা অনুষ্ঠানস্থলে আসতে শুরু করেন। ৬টা থেকে ৭টা পর্যন্ত চলে শুভেচ্ছা ও পারস্পরিক কুশল বিনিময়। 
৭টা থেকে বাফলার সেক্রেটারি জেনারেল ইঞ্জিনিয়ার শহিদ আলম সবাইকে স্বাগত জানিয়ে অনুষ্ঠান শুরু করেন। এসময় তিনি বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। সমবেত সবাই শহিদদের স্মরণে ১ মিনিট দাঁড়িয়ে নিরবতা পালন করেন। 
এরপর বাফলার রীতি অনুযায়ী প্রথমে আমেরিকার জাতীয় সংগীত, পরে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত এবং সর্বশেষ বাফলার থিম সং দিয়ে আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। এরপর এবার ব্যতিক্রমী উদ্যোগে সন্ধ্যা ৭.১৫ টা থেকে ৮.৩০ টা পর্যন্ত পরিবেশ করা হয় ডিনার। 
মঞ্চে বাফলার ইসি মেম্বার জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়ার নেতৃবৃন্দ।

ডিনারের সময় বাফলার সাংস্কৃতিক সম্পাদক আঞ্জুমান আরা শিউলি ও রোশনি আলমের পরিচালনায় চলে সাংস্কৃতিক পরিবেশনা। এতে পারফরমেন্স করে আবির, অমিতসেহ দাস, রেহানা মল্লিক, অমর ফারুক, রুমি ফারুক ও জনপ্রিয় নৃত্যশিল্পী অনি। এছাড়া এই পর্বের  মনোমুগ্ধকর একটি পরিবেশনা উপস্থাপন করে ‘বেলেট ব্রাবো’ নামে স্প্যানিশ ১১ কিশোরীর একটি টিম।
ডিনারের পর বাফলা সেক্রেটারি ইঞ্জিনিয়ার শহিদ আলমের পরিচালনায় বক্তব্য দেন ভাইস প্রেসিডেন্ট ও ফান্ডরাইজিং ডিনারের কো অর্ডিনেটর মুর্শেদ ইসলাম। তিনি সবাইকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আপনার প্রতিবছর যেভাবে বাফলার এই আয়োজনের জন্য সহযোগিতা করেন। আশা করি, এবারও সবাই এমন সহযোগিতা করবেন তাহলে আমরা একটি কালারফুল প্যারেড উপহার দিতে পারব। 
মঞ্চে বাফলার ইসি মেম্বার ক্যালিফোর্নিয়া বিএনপির নেতৃবৃন্দ।

এরপর মূল পর্ব পরিচালনার জন্য মঞ্চে আসেন বাফলার প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম। ‍তিনি ক্যাবিনেটের সকল সদস্যদের মঞ্চে ডেকে নিয়ে বক্তব্য শুরু করেন। বক্তব্যের শুরুতে তিনি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জাতীয় চার নেতাসহ দেশের সকল বীর পুরুষদের স্মরণ করেন। 
তিনি বলেন, প্রবাসী ভাইবোনদের সহযোগিতায় ১২ বছর ধরে ঐতিহ্যবাহী এই প্যারেড ও ফেস্টিভাল আয়োজন করে আসছে বাফলা। এবার অনুষ্ঠিত হবে ১৩তম প্যারেড। বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে লস এঞ্জেলেসের মতো একটি শহরের রাজপথে লাল-সবুজের পতাকা উড়িয়ে এমন প্যারেড সত্যিই আমাদের জন্য অনেক গর্বের। প্রতিবছরের ন্যায় এবারও এই আয়োজনে সবার সহযোগিতা চাই।
এবারের ফান্ডরাইজিং ডিনারের আরেকটি আকর্ষণীয় বিষয় ছিলো  3D  ভিডিও উপস্থাপন। যার মাধ্যমে ২০১৭ সালের বাংলাদেশ ডে প্যারেড প্রদর্শন করা হয়। প্রবীণ মিডিয়া ব্যাক্তিত্ব, সাইফুর রহমান ওসমানী জিতুর প্রযোজনায় ও দেশের স্বনামধন্য সঙ্গীত শিল্পী কুমার বিশ্বজিতের গান দিয়ে প্রস্তুতকৃত  3D ভিডিওটি  উপস্থিত দর্শকরা খুবই উপভোগ করেন। মিলনায়তন পরিপূর্ণ  সকল দর্শক 3D চশমা চোখে দিয়ে ব্যাপক আগ্রহ ও উৎসাহ নিয়ে ভিডিওটি উপভোগ করেন এবং আগত দর্শকরা একটি ভিন্নধর্মী বিনোদন উপহার দেয়ার জন্য বাফলা কতৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। 
জাতীয় সংগীতের প্রতি দাঁড়িয়ে সবার শ্রদ্ধা নিবেদন

বাফলার প্রেসিডন্ট জনার নজরুল আলম মূল সমন্বয়কারী হিসাবে ‘বাফলা প্যারেডের 3D ভিডিও’ প্রদর্শনের উদ্যোগ নেন। বাফলার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ডা. আবুল হাসেম ও বর্তমান প্রেসিডন্ট নজরুল আলম এ প্রথমবারের মত নির্মিত বাফলার 3D ভিডিও প্রদর্শনের সহায়তা করার জন্য কন্ঠশিল্পী কুমার বিশ্বজিত ও সাইফুর রহমান ওসমানী জিতুকে বিশেষ ধন্যবাদ জানান।
এ  3D ভিডিওটি ক্যামেরায় চিত্রগ্রহণ ও সম্পাদনায় ছিলেন ডিজনী ফিল্ম স্টুডিওর একজন 3D বিশেষজ্ঞ মিস্টার জন হেনড্রল। এই প্রথম আমেরিকায় বাংলাদেশী কোন প্যারেডের 3D ভিডিও নির্মাণ করা হয়।

3D  প্রদর্শনের পর নতুন প্রজন্মের শিশু-কিশোরদের নিয়ে গঠিত ‘বাফলা ইয়থ’ এর ৩ সদস্য বক্তব্য রাখে। এরা হচ্ছে, নর্থ হলিউড হাইস্কুলের ১০ গ্রেডের ছাত্রী দক্ষ বিতার্কিক লরীন নুসরাত আলম, ভ্যাননেস হাইস্কুলের ১২ গ্রেডের ছাত্র আলভী আহমেদ ও ইউসি এলের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী তামীন আহমেদ। 
বক্তব্য রাখছে ‘বাফলা ইয়থ’ এর ৩ সদস্য।

এই ৩ কিশোর-কিশোরী বাফলা সম্পর্কে তাদের ভালো লাগা এবং নিজস্ব চিন্তা উপস্থাপন করে। তারা বলে, প্রতিবছর আমরা আমাদের মাতৃভূমির পতাকা হাতে নিয়ে লস এঞ্জেলেসের রাজপথে রঙিন পোষাক পরে হাঁটতে আমাদের অত্যন্ত ভালো লাগে। আমরা আমাদের দেশকে ভালোবাসি আর দেশের ইতিহাস-ঐতিহ্য এবং চ্যারিটি নিয়ে কাজ করে বলে বাফলাকেও আমরা পছন্দ করি। আমরা সকল শিশু-কিশোরদের বাফলার আগামী প্যারেডের অংশ নেওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। কমিউনিটির সকল আঙ্কেল-আন্টিকে আমাদের সকল ভাই-বোনদের নিয়ে  এরকম উৎসবে অংশ নিতে অনুরোধ জানাচ্ছি।
ইয়থদের বক্তব্যের এই পর্ব তত্বাবধান করেন বাফলার সাবেক ২বারের প্রেসিডেন্ট, বিশিষ্ট ডেন্টিস্ট ডা. আবুল হাসেম। 
এরপর একে একে বাফলার সকল ইসি মেম্বার, কমিউনিটি নেতৃবৃন্দ ও উপস্থিত প্রবাসীরা প্যারেডের ফান্ডে নিজেদের অনুদান প্রদান করেন। অনুদানের প্রদানের সময় সংগৃহিত অর্থের পরিমাণ সরাসরি ব্যারোমিটারের মাধ্যমে স্ক্রিনে প্রদর্শন করা হয়। সর্বমোট ফান্ড সংগ্রহ হয় ৩৪ হাজার মার্কিন ডলার।
এবার সর্বোচ্চ অনুদান প্রদান করে বিশিষ্ট ফার্মাসিস্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী ও শিপার চৌধুরী নেতৃত্বাধীন তরঙ্গ অব ক্যালিফোর্নিয়া। তাদের অনুদানের পরিমাণ ৭৫০০ মার্কিন ডলার। মোয়াজ্জেম চৌধুরী অনিবার্য কারণ বশত: উপস্থিত থাকতে পারেননি তাই দুঃখ প্রকাশ করেছেন বলে জানিয়েছেন বাফলা প্রেসিডেন্ট। 
মঞ্চে পারফর্ম করছে স্প্যানিশ ১১ কিশোরীদের টিম ‘বেলেট ব্রাবো’।

ফান্ডরাইজিংয়ের পর শুরু হয় সাংস্কৃতিক পরিবেশনার দ্বিতীয় পর্ব। এতে বিভিন্ন শিল্পীরা নৃত্য ও গান পরিবেশন করেন। 
সৈয়দ শামসুল হকের কবিতা আবৃত্তি করেন রোশনি আলম। 
অনুষ্ঠানে সাউন্ড মেইনটেন্সেসের দায়িত্ব পালন করেন প্রখ্যাত সাউন্ড ইঞ্জিনিয়ার আদনান খান। 
উল্লেখ্য, বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে প্রতিবছর অনুষ্ঠিত এই প্যারেড এখানকার প্রবাসীদের একটি ঐতিহ্য হিসেবে সর্বত্র পরিচিতি পেয়েছে। এবং দেশের বাইরে এটিই সবচেয়ে বড়ো বাজেটের প্যারেড হিসেবে স্বীকৃত। এবারের প্যারেড অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩০ ও ৩১ মার্চ। ২ দিনব্যাপী এই আয়োজনে সবাইকে সপরিবারে প্যারেড ও সকল অনুষ্ঠান উপভোগ করতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বাফলার প্রেসিডেন্ট নজরুল আলম।

এলএবাংলাটাইমস/এলএ/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বিভিন্ন দাবীতে লস এঞ্জেলেসে শিক্ষকদের ধর্মঘট অব্যাহত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০১-১৭ ১৩:০৫:৪৩

শিক্ষক ইউনিয়নের আহবানে বিভিন্ন দাবীতে গত সোমবার থেকে লস এঞ্জেলেসে স্কুল ধর্মঘট চলছে। শিক্ষকদের বেতন বৃদ্ধসহ বিভিন্ন দাবীতে আহুত এই ধর্মঘট চলবে দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত।

লস এঞ্জেলেস ইউনিফাইড স্কুল ডিস্ট্রিক্টের আন্ডারে এক হাজার ১২টি স্কুলের ৩৩ হাজার শিক্ষকদের ইউনিয়ন এই ধর্মঘটের আহবান জানায়। শিক্ষকদের এই ইউনিয়নে সরকারপন্থী কিম্বা বিরোধীপন্থী বলে কোনো গ্রুপ নেই। তাদের দাবীদাওয়ার মাঝে শুধু শিক্ষকদের সুযোগসুবিধাই নয়, শ্রেনীকক্ষ সম্প্রসারণ, স্টুডেন্টদের পর্যাপ্ত এডুকেশন ফ্যসিলিটির জন্য শিক্ষক বৃদ্ধি, স্কুল বাজেট বৃদ্ধিসহ আরো অনেক দাবীদাওয়া আছে।
লস এঞ্জেলেস স্কুল ডিস্ট্রিক্টের আন্ডারে ৬ লক্ষাধিক স্টুডেন্ট রয়েছে। এই ৬ লক্ষ স্টুডেটের প্রতিটা গার্ডিয়ানই শিক্ষকদের চলমান এই আন্দোলন যৌক্তিক বলে মনে করেন। ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকের অনেকের'ই এই আন্দোলনের সাথে সম্প্রিক্ততা আছে। এখানে রাস্তাঘাট আটকিয়ে, গাড়িঘোড়া ভাঙ্গচুর করে কিম্বা জনজীবন অতিষ্ঠ করে আন্দোলন হয় না।

শিক্ষকগণ স্কুল চলাকালীন সময়ে ক্লাস বর্জন করে স্ব স্ব স্কুলের সামনে দাঁড়িয়ে হাতে ফ্লায়ার ও প্লাকার্ড নিয়ে শ্লোগান দিতে থাকেন। আর শিক্ষক ইউনিয়ন নেতাদের নেতৃত্বে বিশাল একটি দল ডাউন টাউনে সিটিহলের সামনে বিক্ষোভ করেন, যেখানে প্রতিটা স্কুল থেকে দুই/একজন করে অংশগ্রহণ করে। দাবী আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই ধর্মঘট চলবে।

যুক্তরাষ্ট্রে শিক্ষকতা পেশা প্রথম শ্রেনীর পেশা হিসাবে গন্য হয়। শিক্ষকতার জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা ন্যুনতম চার বছরের ব্যাচেলর্স ডিগ্রী ও সিনিয়রিটির জন্য মাস্টার্স ডিগ্রীর প্রয়োজন হয়। কিন্তু একই শিক্ষকতা যোগ্যতার অন্যান্য অনেক প্রথম শ্রেনীর চাকুরেদের চেয়ে তাহারা কম সুযোগসুবিধা পেয়ে থাকেন। অথচ শিক্ষকদের স্কুল সময়ের বাহিরেও প্রচুর হোমওয়ার্ক ও সময় ব্যয় করতে হয়।

এল.এ.ইউ.এস.ডি'র বোর্ড অফ ডিরেক্টর মেম্বার মনিকা গার্সিয়া আশা করেন, সিটি কতৃপক্ষ অচিরেই এই সমস্যার সমাধান করবেন।

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত