যুক্তরাষ্ট্রে আজ শনিবার, ২৫ মে, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 02:03am

|   লন্ডন - 09:03pm

|   নিউইয়র্ক - 04:03pm

ব্রেকিং নিউজ >>   আমি ইফতারে যাব : মমতা

  সর্বশেষ :

  সংবিধান সমুন্নত রাখতে জনগণের ঐক্য প্রয়োজন: ড. কামাল   আমি ইফতারে যাব : মমতা   ইফতারে যোগ দিয়ে চমকে দিলেন নেদারল্যান্ডসের রাজা   শেখ হাসিনার নির্দেশ উপেক্ষা করে দলের বিরুদ্ধে শাজাহান খান   মোদির জয়ের পরই ভারতে নারীসহ ৩ মুসলিমকে নির্যাতন   ইরানকে ঠেকাতে সৌদিকে অস্ত্র দিচ্ছেন ট্রাম্প   প্রথম মুসলিম প্রধানমন্ত্রী পেতে পারে ব্রিটেন!   এবারের বাজেট ৫ লাখ কোটি টাকার ওপরে: প্রধানমন্ত্রী   শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহতদের স্মরণে সিডনিতে শোক   পদত্যাগ করছেন রাহুল গান্ধী   খালেদার মুক্তির সঙ্গে সংসদে যোগ দেয়ার সম্পর্ক নেই : ফখরুল   ভারতের নতুন সরকারের আমলে তিস্তা চুক্তি হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী   পশ্চিমবঙ্গে দফায় দফায় সংঘর্ষ, বিজেপি নেতা গুলিবিদ্ধ   পদত্যাগের ঘোষণা দিলেন থেরেসা মে   মোদির গুজরাটে ভয়াবহ আগুন, নিহত ১৮

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

রমজানে ভোটগ্রহণ : বিতর্কের মুখে ভারতের নির্বাচন

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৩-১২ ০২:১৩:৪৫

উত্তর প্রদেশে ভোট দিচ্ছেন মুসলিমরা - ফাইল ছবি

নিউজ ডেস্ক: ভারতের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হবে ১১ এপ্রিল। শেষ হবে ১৯ মে। মোট সাত দফায় ভোট গ্রহণ করা হবে। এর মধ্যে মে মাসের প্রথম সপ্তাহে শুরু হচ্ছে এ বছরের রমজান মাস। আর সে সময়েই অনুষ্ঠিত হবে শেষ তিন দফার ভোটগ্রহণ। বিষয়টি নিয়ে ভারতের প্রধান রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে চরম বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে।

রমজানের মাসে ভোটগ্রহণ নিয়ে রোববারই আপত্তি তুলেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের পাশাপাশি আম আদমি পার্টিও অভিযোগ করেছে, বিজেপি মুসলিমদের ভোট পাবে না জানে। তাই মুসলিমরা যাতে বেশি পরিমাণে ভোট দিতে না পারেন, তার জন্যই ইচ্ছাকৃতভাবে রমজানের মাসে তিন দফায় ভোটগ্রহণ ফেলা হয়েছে।

রমজানের মাসে লোকসভার ভোটগ্রহণ নিয়ে বিতর্কের মুখে নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দিল, পুরো মাস বাদ দিয়ে লোকসভার ভোট করা সম্ভব নয়।

চাঁদ দেখার ওপর ভিত্তি করে ৫ মে এ বছরের পবিত্র রমজানের মাস শুরু হওয়ার কথা, যা শেষ হবে ৪ জুন। তার মধ্যেই ৬ মে, ১২ মে ও ১৯ মে- তিন দফায় ভোটগ্রহণ হবে। কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম রোববার বলেছিলেন, পশ্চিমবঙ্গ, উত্তরপ্রদেশ ও বিহারে সংখ্যালঘু মানুষদের অসুবিধা হবে। এখন আপের বিধায়ক সঞ্জয় সিংহ অভিযোগ করেন, মে-জুন মাসের গরমের মধ্যে রোজা রেখে চলা মুসলিমরা কী ভাবে দীর্ঘক্ষণ লাইনে দাঁড়িয়ে ভোট দেবেন?

আপের আরেকজন বিধায়ক আমানতুল্লা খানের অভিযোগ, ১২ মে দিল্লিতে ভোট। ওই সময় রমজানের মধ্যে মুসলিমরা কম ভোট দিলে বিজেপিরই সুবিধা হবে। কংগ্রেস এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো অবস্থান না নিলেও, মহারাষ্ট্রের কংগ্রেসের রাজ্যসভা বিধায়ক হুসেল দালওয়াই কমিশনের সিদ্ধান্তের সমালোচনা করেছেন।

এদিকে বিজেপি নেতারা বিরোধীদের এসব যুক্তিকে পাত্তা দিতে চাইছেন না। তারা বলছেন, এত মরিয়া হবেন না। রমজানের সময় এর আগেও ভোট হয়েছে। বরং তারা পাল্টা যুক্তি দেন, মুসলিমরা বিজেপিকে ভোট দেন না, এই ধারণাটাই ভুল। দু’বছর আগে উত্তরপ্রদেশের বিধানসভা ভোটে মুসলিমরাও বিজেপিকে ভোট দিয়েছেন। দেওবন্দ, সাহারানপুর, মুজফ্ফরনগর, বিজনোর, বরেলির মতো মুসলিম অধ্যুষিত এলাকাতেও বিজেপি জিতে এসেছে।

এদিকে এমআইএম-এর সভাপতি আসাউদ্দিন ওয়েইসির বক্তব্য একটু অন্যরকম। তার যুক্তি, রমজানের সময় মুসলিমরা আরো বেশি হারে ভোট দেবেন এবং খারাপ শক্তিকে হারাবেন।

২০১১-র আদমশুমারি অনুসারে দেশের জনসংখ্যার ১৪.২ শতাংশ মুসলমান। কিন্তু লোকসভার ২১৮টি আসনে মুসলিম ভোটারদের নির্ণায়ক শক্তি হয়ে ওঠার ক্ষমতা রয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই মুসলিম ভোট লোকসভা ভোটের গুরুত্বপূর্ণ অংশ। ২০১৪-র লোকসভা ভোটে মাত্র ২২ জন মুসলিম প্রার্থী জিতে এসেছিলেন। তবে বিশ্লেষকদের যুক্তি, মুসলিমদের জিতে আসার সঙ্গে মুসলিম ভোটের হার মিলিয়ে ফেললে ভুল হবে। বরং তারা অন্যদের জয়-পরাজয়ের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৬৩০ বার

আপনার মন্তব্য