Updates :

        লস এঞ্জেলেসের 'অভিবাসীপূর্ণ' এলাকায় সংক্রমণ বেশি

        ফেসবুকের বিকল্প হয়ে উঠছে 'মিউই'

        লস এঞ্জেলেস কাউন্টিতে ছোট ব্যবসায়ীরা পাচ্ছেন ক্ষুদ্র ঋণ

        ক্যালিফোর্নিয়ায় আগামী বছর উচ্ছেদ মামলা হতে পারে দ্বিগুণ

        স্কুল ক্যাম্পাস চালুর দরখাস্ত নাকচ ক্যালিফোর্নিয়া সুপ্রিম কোর্টের

        বাইডেন প্রেসিডেন্ট হওয়ায় মার্কিনিদের পকেটে কেমন প্রভাব পড়বে

        অরেঞ্জ কাউন্টিতে চালু দ্বিতীয় টিকাদান কেন্দ্র

        ২০০ পর্বে পা দিলো ‘রান্নাবান্না’

        লস এঞ্জেলেস কাউন্টি হাসপাতালে বাড়ছে মৃতের সংখ্যা

        নিউ ইয়র্কে হেলিকপ্টার বিধ্বস্ত, ৩ সেনার মৃত্যু

        লস এঞ্জেলেস কাউন্টিতে টিকা সংকট চরমে

        ‘চমকের গান, ভাষা, সুর আমাকে মুগ্ধ করে’

        সিনেমায় হালকা ধাঁচের মিষ্টি গান থাকবে: চমক

        করোনা টিকা নিতে কমিউনিটির বয়স্কদের প্রতি আহ্বান

        ৬০ দেশে শনাক্ত নতুন ধরনের করোনা

        ট্রাম্পের বিদায়ে স্বস্তির নিঃশ্বাস ফেলছে ইরান

        দেশে পৌঁছালো ২০ লাখ ডোজ করোনা টিকা

        ইতিহাসের সর্বোচ্চ গোলদাতা এখন রোনাল্ডো

        বয়স্কদের টিকাদান শুরু করেছে সান বার্নার্ডিনো

        ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টির দেখা মিলতে পারে সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার কিছু অংশে

যুক্তরাজ্যে ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের তালিকায় শীর্ষ দশে বাংলাদেশিরা

যুক্তরাজ্যে ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের তালিকায় শীর্ষ দশে বাংলাদেশিরা

যুক্তরাজ্যে ইউরোপীয় ইউনিয়ন (ইইউ) বহির্ভূত অভিবাসীদের সর্বোচ্চ সংখ্যার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অষ্টম স্থানে অবস্থান করছে। ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ২০১৭ সালের জুন পর্যন্ত হিসেবে তালিকায় বাংলাদেশের এই অবস্থান। এ সময়ে বাংলাদেশ থেকে ৬৯ হাজার মানুষ যুক্তরাজ্যে পাড়ি জমিয়েছেন। বৃহস্পতিবার যুক্তরাজ্যের জাতীয় পরিসংখ্যান কার্যালয় (ওএনএস) এই তথ্য জানিয়েছে।

ওএনএস-এর তথ্য অনুসারে, ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের তালিকায় শীর্ষ দশ দেশের মধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকা (৭৫ হাজার) সপ্তম ও অস্ট্রেলিয়া (৭১ হাজার) ষষ্ঠ স্থানে রয়েছে। এই সময়ে যুক্তরাজ্যে সর্বোচ্চ অভিবাসী আসা পাঁচটি দেশের মধ্যে রয়েছে ভারত (৩ লাখ ৫ হাজার), পাকিস্তান (১ লাখ ৭১ হাজার), চীন (১ লাখ ৯ হাজার), নাইজেরিয়া (৯০ হাজার) ও যুক্তরাষ্ট্র (৮৪ হাজার)।

সামগ্রিকভাবে ২০১৬ সালের জুনে ব্রেক্সিটের পক্ষে গণভোটের এই প্রথম অভিবাসীদের সংখ্যা কমেছে। এর আগের বছরের তুলনায় এই সময়ে অভিবাসীর সংখ্যা কমেছে ১ লাখ ৬ হাজার।

ওএনএস-এর অভিবাসন পরিসংখ্যানের প্রধান নিকোলা হোয়াইট জানান, সংখ্যা কমে এসেছে কারণ এর আগের বছর সর্বোচ্চ সংখ্যক অভিবাসী এসেছিল। এখনই বলা যাচ্ছে না বিষয়টি দীর্ঘ মেয়াদি প্রবণতা হবে। এই পরিবর্তনের ফলে মনে হচ্ছে মানুষের স্থানান্তরিত হওয়ার ক্ষেত্রে ব্রেক্সিটের প্রভাব থাকতে পারে। তবে অভিবাসন অনেক জটিল ও অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় থাকে।

গত বছরে ইইউ বহির্ভূত অভিবাসীদের যুক্তরাজ্য ছেড়ে চলে যাওয়ার সংখ্যা স্থিতিশীল রয়েছে। তবে ইইউ নাগরিকদের দেশটি ছেড়ে যাওয়া উল্লেখযোগ্য হারে বেড়েছে। যুক্তরাজ্যের সংবাদমাধ্যমের একাংশ এই প্রবণতাকে ‘ব্রেক্সোডাস’ হিসেবে আখ্যায়িত করছে।

পরিসংখ্যান অনুসারে, ইইউ নাগরিকদের যুক্তরাজ্য থেকে চলে যাওয়ার পরিমাণ ২৯ শতাংশ (১ লাখ ২৩ হাজার)। ৪৩ জানিয়েছেন তারা নিজ দেশে ফিরে যাবেন। ২০০৮ সালের অর্থনৈতিক মন্দার পর যুক্তরাজ্য ছেড়ে চলে যাওয়ার এটিই সর্বোচ্চ সংখ্যা।

গত ১২ মাসে যুক্তরাজ্যে এসেছেন ৫ লাখ ৭২ হাজার মানুষ। আর অভিবাসিত হয়েছেন ৩ লাখ ৪২ হাজার। এই সময়ে অভিবাসীর সংখ্যা কমেছে ৮০ হাজার।

যুক্তরাজ্যের কনজারভেটিভ পার্টির সরকার বার্ষিক অভিবাসীদের সংখ্যা কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। সর্বশেষ এই পরিসংখ্যানকে স্বাগত জানিয়েছেন মন্ত্রীরা। বিরোধী দল লেবার পার্টি জানিয়েছে, সরকারের অভিবাসীদের সংখ্যা ১ লাখের নিচে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা অর্থহীন।

এলএবাংলাটাইমস/এ/এলআরটি

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত