যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ২৩ অক্টোবর, ২০১৮ ইং

|   ঢাকা - 09:39am

|   লন্ডন - 04:39am

|   নিউইয়র্ক - 11:39pm

  সর্বশেষ :

  অথৈ জলরাশির বুকে মনকাড়া মনপুরা দ্বীপ   শেখ রেহানার সাথে ইতালী মহিলা আ.লীগ নেত্রীর সৌজন্য সাক্ষাত   বিচারপতি জয়নুল আবেদীনের তথ্য চেয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চিঠি   সরকারের সাম্প্রতিক পদক্ষেপে আমরা উদ্বিগ্ন : ড. কামাল   মিয়ানমারের পাঁচ সেনা কর্মকর্তার ওপর অস্ট্রেলিয়ার কঠোর নিষেধাজ্ঞা   খাসোগির মৃতদেহ কোথায়, জানতে চান এরদোয়ান   জামায়াতে ইসলামীকে নির্বাচন থেকে দূরে রাখার আইন নেই : ইসি সচিব   কারাগারের সাধারণ ওয়ার্ডে ব্যারিস্টার মইনুল   বলিউডের ছবিতে বাংলাদেশি সিয়াম-পূজা   বিশ্বের সবচেয়ে দামি গাড়ি   বিশ্বের সবচেয়ে প্রভাবশালী মুসলিম এরদোগান   ইয়াবা-হেরোইন কেনাবেচায় সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড   খাসোগি হত্যাকাণ্ড : মঙ্গলবার সব সত্য প্রকাশ করবেন এরদোগানে   খাশোগি হত্যা : কিলিং মিশনে অংশ নেওয়া সৌদি ‘টাইগার স্কোয়াড’র অজানা কথা   ২৬ অক্টোবর শুরু হচ্ছে কানেক্ট বাংলাদেশ’র রোম সম্মেলন

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

ভোলায় ৫ হাজার মানুষের জন্য ২টি টিউবওয়েল

ভোলা প্রতিনিধি, নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৮-০৮-১০ ১৪:৫৯:০৫

ভোলা প্রতিনিধি: ভোলার লালমোহন উপজেলার তেতুলিয়া নদীর র্তীরে চর উমেদ ইউনিয়নের চর কচুয়াখালীর অবস্থান। শত বছর আগে জেগে উঠে চরটিতে প্রায় ৩৬ বছর আগে ১৯৮০ সালে দিকে জনবসতি শুরু হলেও ১৯৯০ সালের দিকে এ চরে ঘন জনবসতি ও মানুষের সমাগমে মুখরিত হয়। ৫ টি আবাসন, ৮টি গুচ্ছ গ্রাম এবং দুই শতাধিকের ও বেশি কাচা ও পাকা ঘরবাড়িতে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মানুষের বসবাস।
এখানকার মানুষের আয়ের উৎস্য মৎস্য শিকার ও কৃষি কাজ। আর কয়েকটা চরের চেয়ে ভিন্ন এ চরের মানুষের জীবন যাএা। এ চরে জনবসতি বসবাস শুরু হলে তখন তারা খাল ও নদীর পানি ফুটিয়ে পান করতো। আর তখন আসুক-বিসুক লেগেই থাকতো।
প্রায় ১০ বছর আগে এ চরে মানুষের বিশুদ্ধ পানির জন্য সরকারিভাবে ১০ টিউবওয়েল স্থাপন করা হয়। প্রায় ৫ বছর আগে ১০টির মধ্যে ৭ টি টিউবওয়েল বিভিন্ন সমোস্যায় সম্পূর্ণ বিকল ও ১টি আরসিনিক উঠার কারনে বন্ধ হয়ে যায়।

তার পর থেকে প্রায় সাড়ে ৫ হাজার মানুষের ব্যবহার করার জন্য অবশিষ্ট থাকে দুইটি টিউবওয়েল। যার কারণে এক কলসি টিউবওয়েলের বিশুদ্ধ খাবার পানির জন্য গৃহবধূদের প্রায় প্রতিনিই ১ থেকে দুই কিলোমিটার পথ হাটতে হয়।

আবার বর্ষা মৌসুমে কাদা মাটির মধ্যে হেটে যেতে হয়। তখন তাদের দু:খের শেষ নেই। তার পর আবার পানির জন্য পড়ে র্দীঘ লাইন। আবার কখরো ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে থাকতে হয় এক কলসি পানির জন্য। বিশুদ্ধ পানি আনার জন্য চরের নারী-পুরুরষর এ যেন এক চড়ম দুর্ভোগ। কিন্তু তারপরেও তাদের কোন উপায় নেই।

জীবন রক্ষার্থে এ চরের দুইটি টিউবওয়ের পানিই তাদের একমাএ ভরসা। আধুনিক যুগে বাস করেও তাদের দিন কাটাতে হচ্ছে মান্দাতার আমলের মতই। এ অবস্থায় চর কচুয়াখালীর বাসির অভিযোগ, এ সংকট র্দীঘ ৫ বছর ধড়ে চলে আসলেও জন প্রতিনিধি কিংবা সরকারের দপ্তরের কোন কর্মকর্তারা তাদের খোজ খবর নেয়নি বলে অভিযোগ করেন তারা।
স্থানীয় গৃহবধূ রহিমা, শেফালী, শেফা, শিরিন, হেপি, নাছিমাসহ একাধিক গৃহবধূরা জানান, প্রতিদিন এই বর্ষার মধ্যে কাদা ও পানির মধ্যে এক কলসি পানির লাইগা ১ থেইকা ২ মাইল পথ হাডন লাগে আমাগো। আইজ পর্যন্ত কোন চেয়ারম্যান, কিবা সরকার আমাগো খোজ নেয় নাই।

স্থানীয় রফিজল, নিরব, কামাল, রহিম, মোজাফরসহ কয়েকজন জানান, ইউসুফ মিয়া চেয়ারম্যান হওয়ার পর গত ১০ বছরে এই এলাকায় মাএ দুইবার আইছেন। এর পর আর তিনি আমাগো কোন খোজ খবর নেননাই। তার কাছে গেলে আমাগো লগে তিনি দেহাও করেননা।

এলাকাবাসী অভিযোগ করেন, চেয়ারম্যান মো: আবু ইউসুফ লালমোহন উপজেলার তেতুলিয়া নদীর র্তীরে চর উমেদ ইউনিয়নের চর কচুয়াখালীর থেকে নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর থেকে ওই ইউপি চেয়ারম্যান কখনো তাদের খোজ-খবর নেয়নি বলে জানান স্থানীয়রা।

এব্যাপারে চর উমেদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো: আবু ইউসুফের সাথে টিউবওয়েলর বিষয় কথা বলতে চাননি। পরে তিনি জানান, চরের অনেক টিউবওয়েল নষ্ট হয়ে আছে। যদি চর কচুয়াখালীতে টিউবওয়েলর বেশি প্রয়োজন হয় তবে দেখবো দেওয়া যায় কিনা।

এব্যাপারে  অচিরেই চর কচুয়াখালী সাধারণ মানুষের টিউবওয়েলের সমোস্য দুর করার আশ্বাস দিলেন লালমোহন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো: শামছুল আরিফ।


এলএবাংলাটাইমস/এন/এলআরটি

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৫৬৩ বার

আপনার মন্তব্য