যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ১৪ অগাস্ট, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 11:03am

|   লন্ডন - 06:03am

|   নিউইয়র্ক - 01:03am

  সর্বশেষ :

  গ্রিন কার্ডের জন্য সম্পত্তি তলব করতে পারবে ট্রাম্প প্রশাসন   ক্যালিফোর্নিয়ায় বন্ধ হয়ে যেতে পারে উবার!   ক্যালিফোর্নিয়ার ১৪ বছরের কিশোরী নিখোঁজ   বাইডেন-হ্যারিসের একত্রে নির্বাচনী প্রচার অভিযান শুরু   ইসরাইল ও আরব আমিরাতের মধ্যে ঐতিহাসিক শান্তিচুক্তি   যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে কিশোরদের সংঘর্ষ, নিহত ৩   যুক্তরাষ্ট্রজুড়ে খুলে দেওয়া হচ্ছে 'এএমসি থিয়েটার'   বাড়ছে এঞ্জেলেস ন্যাশনাল ফরেস্টের দাবানল   যুক্তরাষ্ট্রে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ   নিউইয়র্ক বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত   মৃত্যুহার কম হওয়াতেই করোনা ব্রিফিং বন্ধ হয়েছে : স্বাস্থ্যমন্ত্রী   দেশে আজও করোনায় ৪৪ জনের মৃত্যু   ‘সরকারের পূর্ব প্রস্তুতি থাকায় দেশে করোনা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে’   ভার্জিনিয়ায় সামরিক হেলিকপ্টারে গুলি, আহত ১   ভ্যাকসিন আবিষ্কারে অগ্রগতির কথা জানালেন ট্রাম্প

>>  করোনা কর্ণার এর সকল সংবাদ

ভ্যাকসিন আবিষ্কারে অগ্রগতির কথা জানালেন ট্রাম্প

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিসের ১০ কোটি ডোজ তৈরির জন্য একটি আমেরিকান বায়োটেকনলজি কোম্পানির সঙ্গে ফেডারেল সরকারের  চুক্তির  কথা ঘোষণা করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। এ নিয়ে পরীক্ষা চালানো মডার্না  কোম্পানি এই ভ্যাকসিন তৈরি করবে।

মঙ্গলবার হোয়াইট হাউজে সংবাদ সম্মেলনে ট্রাম্প বলেন “এই ভ্যাকসিনের ডোজগুলোর মালিক হবে ফেডারেল সরকার, আমরা এগুলো কিনছি”। 

যুক্তরাষ্ট্রে সম্ভাব্য তিন রকমের ভ্যাকসিন এখন মানুষের উপর পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতির চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। 

স্বাস্থ্য ও মানব পরিচর্যা বিভাগের মন্ত্রী অ্যালেক্স আজার

বিস্তারিত খবর

করোনামুক্ত ১০০ দিন পার করলো নিউজিল্যান্ড

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০৯ ১৭:০৮:১৬

নিউজিল্যান্ডে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর সর্বশেষ আক্তান্ত ব্যক্তিকে শনাক্ত হয়েছিল গত ১ মে। রবিবার সর্বশেষ আক্রান্তের পর ১০০ দিন পূর্ণ হলো এবং কমিউনিটি পর্যায়ে দেশটিতে নতুন করে একজনও করোনা আক্রান্ত হয়নি। তবে বর্তমানে নিউজিল্যান্ডে ২৩ জন করোনায় আক্রান্ত রোগি রয়েছে। এরা সবাই বিভিন্ন দেশ থেকে নিউজিল্যান্ডে আগত। বিদেশফেরত এই সংক্রমিতদের সরকারি আইসোলেশন সেন্টারে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।


তবে করোনামুক্ত থাকলেও নিউজিল্যান্ডের স্বাস্থ্যবিষয়ক মহাপরিচালক অ্যাশলি ব্লুমফিল্ড বলেছেন, এ ব্যাপারে আত্মতুষ্টিতে ভোগা ঠিক হবে না।

তিনি বলেন, “আমরা বিভিন্ন দেশের ক্ষেত্রে দেখেছি, ভাইরাসটি নিয়ন্ত্রণে আসার পরও পুনরায় কীভাবে সেটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়তে পারে। ভবিষ্যতে এ ধরনের ঘটনা ঘটলে তা দ্রুত প্রতিরোধ করার জন্য আমাদের প্রস্তুত থাকা প্রয়োজন।”

ব্লুমফিল্ড আহ্বান জানান, যদি কারো করোনার উপসর্গ থাকে, তাহলে যেন তিনি স্বাস্থ্যসেবার নম্বরে ফোন দেন। এ ছাড়া অসুস্থ ব্যক্তিদের ঘরে থাকার জন্য অনুরোধ জানান তিনি।

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন বলেছেন, “করোনার গোষ্ঠি সংক্রমণ ছাড়া ১০০ দিন একটি মাইলফলক। কিন্তু বিশ্বে চলমান মহামারির মধ্যে কোনোভাবেই ঝুঁকি কমে যাচ্ছে না। আমাদের সজাগ থাকতে হবে।”

গত ২৮ ফেব্রুয়ারি নিউজিল্যান্ডে প্রথম করোনায় আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত করা হয়। মহামারি শুরুর পর নিউজিল্যান্ডে মোট এক হাজার ২১৯ জনের করোনা শনাক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২২ জনের। 






এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

রাশিয়ায় ১২ অগাস্ট করোনার প্রথম টিকার নিবন্ধন

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০৭ ১৫:৩৯:৫৫

রাশিয়ায় আগামী বুধবার (১২ অগাস) করোনাভাইরাসের একটি টিকা নিবন্ধিত হওয়ার কথা রয়েছে।


নিবন্ধিত হয়ে গেলে এটি বিশ্বে প্রথমবারের মতো করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে কোনো দেশের সরকারের অনুমোদন পাওয়া টিকা হতে যাচ্ছে।

রাশিয়ান ফেডারেশনের স্বাস্থ্য উপমন্ত্রী ওলেগ গ্রিডনেভ বলেন, চিকিৎসক ও বয়স্ক ব্যক্তিরা এ টিকা পাওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাবেন।

বিভাগের জ্যেষ্ঠ মন্ত্রী মিখাইল মুরাশকো গত সপ্তাহেই ঘোষণা দিয়েছিলেন যে অক্টোবর মাসে রাশিয়ায় দেশব্যাপী গণটিকা কর্মসূচি আয়োজনের পরিকল্পনা করা হয়েছে। এ কর্মসূচির সব ব্যয় সরকার বহন করেবে বলেও জানান তিনি।

শুক্রবার সকালে গ্রিডনেভ সাংবাদিকদের বলেন, গেমেলি সেন্টারে আবিষ্কার হওয়া টিকার নিবন্ধন প্রক্রিয়া ১২ আগস্ট সম্পন্ন করা হবে।

তিনি বলেন, “টিকাটি এখন শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এর তৃতীয় পর্যায়ে রয়েছে। পরীক্ষার এ পর্যায়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। আমাদের বুঝতে হবে যে টিকাটি নিরাপদ হতে হবে।”

এর ক্লিনিকাল ট্রায়াল ১৮ জুন মস্কোর সেকেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ে শুরু হয়েছিল। এতে অংশ নেয়া ৩৮ স্বেচ্ছাসেবীকে নিয়ে করা গবেষণাটি সুরক্ষা প্রোটোকল সফলভাবে পাস করেছে। এতে দেখা গেছে, যারা অংশ নিয়েছিলেন তাদের সবার মধ্যে সংক্রমণের প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হয়েছে।







এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

ভাইরাস তুলনামূলকভাবে কম ছড়িয়েছে: ট্রাম্প

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০৫ ১৭:৩৯:৪৪

করোনাভাইরাস নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করে বারবার আলোচনায় এসেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। আবারও তিনি এমন কিছু মন্তব্য করলেন। 


বুধবার ফক্স নিউজের ‘ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডস’ অনুষ্ঠানে সাক্ষাৎকারে ট্রাম্প বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে ভাইরাস তুলনামূলকভাবে কম ছড়িয়েছে। 

তিনি আরও বলেন, “এটা (ভাইরাস) চলে যাবে। সব কিছুর মতো এটাও বিদায় নেবে।”

বক্তব্যে যুক্তরাষ্ট্রের স্কুলগুলো খুলে দেওয়ার পক্ষে আবারও জোর দিয়ে তিনি বলেন, বাচ্চারা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাসম্পন্ন, তবে শিক্ষকদের কথা আলাদা। 

বয়স্ক শিক্ষকদের কর্মস্থলে না আসার পরামর্শ দেন তিনি।

চীনকে দোষারোপ করে প্রেসিডেন্ট বলেন, চীন আমাদেরকে যা পাঠিয়েছে তা ভয়াবহ।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাস সংক্রমণে বহুদিন ধরে বিশ্বে প্রথম অবস্থানে আছে যুক্তরাষ্ট্র। ওয়ার্ল্ডোমিটারের সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা ৪,৯৬২,৭৭৮ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১৬১,৪০২ জনের। 

ন্যাশনাল ইন্সটিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেক্টাস ডিজিজের প্রধান ডাক্তার আন্থনি ফাউচি বুধবার এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, সব দেশই মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে অন্য সবার চেয়ে বেশি। 







এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

করোনাভাইরাস: সংক্রমণের নতুন ধাপে প্রবেশ করতে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০৪ ১৬:৪৮:৫১

যুক্তরাষ্ট্রে করোনাভাইরাস সংক্রমণ নতুন ধাপে প্রবেশ করতে যাচ্ছে বলে সতর্ক করেছেন হোয়াইট হাউসের করোনাভাইরাস টাস্ক ফোর্সের অন্যতম সদস্য ডাক্তার ডেবোরাহ ব্রিক্স।


তিনি বলেন, সংক্রমণ যখন শুরু হয় তখনকার তুলনায় সারা দেশে এখন মহামারীর ছড়িয়েছে অস্বাভাবিকরকম বেশি মাত্রায়। 

তিনি আরও বলেন, বড় শহরের পাশাপাশি এখন গ্রামাঞ্চলেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে। গ্রামাঞ্চলের মানুষরা করোনার বিরুদ্ধে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এখনো গড়ে তুলতে পারেনি তাই মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা তাদের জন্য খুবই জরুরি। 

শহর থেকে গ্রামাঞ্চলেও ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় সংক্রমণ নতুন মাত্রা নিতে পারে বলে মনে করছেন ব্রিক্স।

হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, “আমি সারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে দেখছি পুরো আমেরিকা ভ্রমণ করছে। আপনি যখন কোথাও ভ্রমণে যাচ্ছেন আপনি ধরেই নিতে পারেন আপনিও আক্রান্ত হয়েছেন। 

উল্লেখ্য, বিশ্বে সবচেয়ে বেশি করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রে এবং মৃত্যুর সংখ্যাও এদেশে সবচেয়ে বেশি।

জন হপকিন্স ইউনিভার্সিটির তথ্যমতে, যুক্তরাষ্ট্রে ৪৬ লাখেরও বেশি মানুষ করোনা আক্রান্ত হয়েছেন এবং মারা গেছেন অন্তত ১,৫৪,৮৩৪ জন।   





এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

মহামারীর সময়ে যুক্তরাষ্ট্র জুড়ে সহিংসতা বেড়েছে

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০৩ ১৬:৪৭:৪০

করোনাভাইরাস মহামারীর সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে হত্যাকাণ্ড ও সহিংসতা গত বছরের তুলনায় বেশ বৃদ্ধি পেয়েছে। অর্থনৈতিক দূরবস্থা ও আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশি নির্যাতনও এই সহিংসতা বৃদ্ধিতে ভূমিকা রেখেছে।


নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রের অন্তত ৫০টি শহরে ৩,৬১২টি হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে যা গত বছরের তুলনায় ২৪ শতাংশ বেশি। 

এর সঙ্গে গোলাগুলির ঘটনাও বৃদ্ধি পেয়েছে। যদিও অন্যান্য অপরাধ যেমন- ডাকাতি কমেছে ১১ শতাংশ।

হত্যাকাণ্ডের ঘটনা সবচেয়ে বেড়েছে শিকাগোতে। শহরটিতে এ বছর এখন পর্যন্ত চারশ’রও বেশি হত্যাকাণ্ড ঘটেছে যা গত বছরের তুলনায় ৫০ শতাংশেরও বেশি। ফিলাডেলফিয়া ও নিউ ইয়র্কেও বেড়েছে সহিংসতা। এ বছর শহর দুটিতে দুইশ’রও বেশি হত্যাকাণ্ড ঘটেছে। 

সহিংসিতা সবচেয়ে বেড়েছে গত জুলাইতে। পুলিশি হেফাজতে জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যুর ঘটনার পর গত মাসে দেশ জুড়ে প্রতিবাদের যে ঝড় ওঠে তা এই সহিংসতায় ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করছেন গবেষকরা। এছাড়া জনগণের অর্থনৈতিক অবস্থা খারাপ হওয়াও অপরাধ বৃদ্ধিতে ভূমিকা রেখেছে। 

তবে সহিংসতা বাড়লেও ডাকাতি ও ধর্ষণের মতো অপরাধ কমেছে। গবেষকরা বলছেন, মানুষজন অধিকাংশ সময়ে ঘরে থাকার কারণেই এ ধরণের অপরাধ কমেছে। 






এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সরকারি নিষেধাজ্ঞা আবারও বাড়লো

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০৩ ১৫:৪১:৪৫

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে সরকারি বিধিনিষেধ ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মন্ত্রীপরিষদ বিভাগ।

সোমবার (৩ আগস্ট) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের উপসচিব মোহাম্মদ আব্দুল ওয়াদুদ চৌধুরী স্বাক্ষরিত এক স্মারকে এ সংক্রান্ত অফিস আদেশ জারি করা হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, বাড়ির বাইরে বের হলেই মাস্ক পরা ও পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখাসহ অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার স্পষ্ট নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। কেউ এই নিয়ম অমান্য করলে তার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়।


এছাড়া রাত ১০টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে বের হতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে।


প্রতিটি সরকারি/স্বায়ত্তশাসিত/বেসরকারি অফিস, আর্থিক প্রতিষ্ঠান, শিল্প কারখানা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখা গেলেও ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত সব স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।


ঝুঁকিপূর্ণ, অসুস্থ কর্মচারী ও গর্ভবতী নারীদের কর্মস্থলে উপস্থিত হওয়া থেকে বিরত থাকতে বলা হয়েছে।
হাটবাজার, দোকানপাট ও শপিং মলগুলোকে নির্দেশ দেয়া হয়েছে প্রবেশমুখে সবার তাপমাত্রা পরিমাপের পাশাপাশি হাত ধোয়া বা স্যানিটাইজ করার ব্যবস্থা রাখতে।

পারস্পরিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি শপিংমলে আসা যানবাহনগুলোকে জীবাণুমুক্ত করার ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতেও নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

গণপরিবহনগুলো ৩১শে আগস্ট পর্যন্ত পারস্পরিক দূরত্বসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলাচল করতে পারবে।এ সময়ের মধ্যে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলবে না। সভা-সমাবেশ, অনুষ্ঠান আয়োজন করা যাবে না।



এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

দেশে ঈদের ছুটিতে করোনা পরীক্ষা নিয়ে বিভ্রান্তি

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০২ ১৭:৫৪:৪৮

বাংলাদেশে গত তিন মাসের মধ্যে করোনাভাইরাসের সবচেয়ে কম নমুনা পরীক্ষা হয়েছে রবিবার (২ আগস্ট)।

রবিবার শনাক্তের হার এক হাজারের নিচে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। নতুন করে ৮৮৬ জনের দেহে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে, যা শনিবার ছিল ২,১৯৯ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা কম হলেও প্রকৃত পক্ষে ঈদের ছুটির এই সময়ে পরীক্ষার হার ব্যাপকভাবে কমে গেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মোটে সাড়ে তিন হাজারের মতো নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। যা আগের দিনও ছিল প্রায় ৯ হাজারের মতো।

এ প্রসঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক নাসিমা সুলতানা বলছেন, “অন্যতম একটা কারণ হলো ব্র্যাক আমাদের যে নমুনা সংগ্রহ করে দেয় তারা তিনদিন তাদের বুথগুলো বন্ধ রাখবে সেটা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে জানিয়েছিল। 

তিনি আরও বলেন, “'ঢাকাতেই তো আসলে সর্বাধিক কেস। ঢাকা বিভাগেও সবচেয়ে বেশি। যেহেতু ব্র্যাক ঢাকাতে নমুনা সংগ্রহ করে দেয়, তারা যেহেতু তাদের কার্যক্রম বন্ধ রেখেছে নমুনা কম সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে।”

নাসিমা সুলতানা আরও জানান, ঈদের সময় পরীক্ষা করাতে এমনিতেও মানুষজন কম এসেছেন।তিনি আরও বলছেন, বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে সরকার নির্ধারিত সাড়ে তিন হাজার টাকা ফি দিয়ে অনেকেই পরীক্ষা করাতে অনিচ্ছা প্রকাশ করছেন।

ঈদের আগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে জানানো হয়েছিল করোনাভাইরাস সংক্রান্ত সকল কার্যক্রম একইভাবে চালু থাকবে। কিন্তু বাস্তবে তা ঘটেনি।

এ প্রসঙ্গে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ডা. লেলিন চৌধুরী বলেন, ঈদের সময় বরং আরও বেশি নমুনা পরীক্ষা হওয়া উচিৎ।

তিনি বলেন, "যখন ঝুঁকিটা বেড়ে যায়, তখন আমাদের দায়িত্ব টেস্টের সংখ্যা বাড়িয়ে দেয়া। কয়েকদিন নমুনা পরীক্ষা কম হলে যারা আক্রান্ত হয়েছেন তারা রোগ ছড়াবে কারণ তারা স্বাভাবিক মেলামেশা বজায় রাখবে। একই সাথে কত লোকের মধ্যে রোগ ছড়াচ্ছে, কয়েকদিন পরে কত লোক সংক্রমিত হতে পারে তার বিজ্ঞানভিত্তিক ধারণাটা আমরা করতে পারবো না।"





এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

করোনাভাইরাস নিয়েই বাঁচতে শেখার আহ্বান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

 প্রকাশিত: ২০২০-০৮-০১ ১৬:২০:৪৯

করোনাভাইরাসের প্রভাব কয়েক দশক ধরে অনুভূত হবে বলে ভবিষ্যৎ বাণী করে এ ভাইরাস নিয়েই সবাইকে বাঁচতে শেখার আহ্বান জানিয়েছেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) প্রধান টেড্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস।

শুক্রবার তিনি বলেন, "বিশ্বের বেশির ভাগ মানুষ এ ভাইরাসের প্রতি সংবেদনশীল রয়েছেন, এমনকি যেসব অঞ্চলে এর প্রকোপ বেশি হয়েছে সেখানেও।"

"তবে অনেক তরুণ করোনাভাইরাসের ব্যাপারে অসতর্ক হয়ে পড়ছে। সম্প্রতি সংক্রমণে যে উর্ধ্বগতি দেখা যাচ্ছে তার জন্য এটা কিছুটা দায়ী", বলেন তিনি।

 ডব্লিউএইচও প্রধান আরও বলেন, "যদিও ভ্যাকসিন তৈরির কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চলছে, তারপরও আমাদের অবশ্যই এ ভাইরাস নিয়ে বাঁচতে শিখতে হবে এবং আমাদের যা আছে তা নিয়েই লড়াই করতে হবে"।

উল্লেখ্য, গত বছরের ডিসেম্বরে চীনে প্রথম শনাক্ত হওয়ার পর গত মার্চ মাসে করোনাভাইরাসকে মহামারি হিসাবে ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।




এলএ বাংলা টাইমস/এমকে

বিস্তারিত খবর

দেশে করোনায় ২৪ ঘণ্টায় আরো ৫০ মৃত্যু, শনাক্ত ২৯২৮

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-২০ ১১:৩২:০৯

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে আরও ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে দুই হাজার ৬৬৮ জনের। এছাড়া, একই সময়ে আরো ২,৯২৮ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২ লাখ ৭ হাজার ৪৫৩ জন।

মঙ্গলবার (২০ জুলাই) দুপুর আড়াইটায় করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা এ তথ্য জানান।

সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়। অনলাইনে বুলেটিন উপস্থাপন করেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

অনলাইন বুলেটিনে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় ১৩,৩৬২ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ নিয়ে দেশে মোট ১০,৪১,৬৬১টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

গতকাল রোববার পর্যন্ত করোনাভাইরাস শনাক্তে নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছিল ১০,৬২৫টি। এরমধ্যে নতুন শনাক্ত হয়েছিলেন ২,৭০৯ জন। মোট শনাক্ত হয়েছিলেন ২,০৪,৫২৫ জন। আর গতকাল আরো ৩৭ জন মারা যান। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছিল ২,৬১৮ জন। এছাড়া গতকাল সুস্থ হয়েছিলেন ১,৫৪৬ জন। এ নিয়ে মোট সুস্থ হয়েছেন ১,১১,৬৪২ জন।

আপনার সুস্থতা আপনার হাতে উল্লেখ করে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি যথাযথভাবে মেনে চলতে সকলের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

দেশে নভেল করোনাভাইরাসে (কভিড-১৯) সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। আর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

দেশে করোনায় একদিনে আরও ৩৭ জনের মৃত্যু

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-১৯ ০৪:৫৬:২৪

করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে দেশে মোট ২ হাজার ৬১৮ জন কোভিড রোগী মারা গেলেন।

এই সময়ে ২ হাজার ৪৫৯ জন শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত হলেন ২ লাখ ৪ হাজার ৫২৫ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৫৪৬ জন এবং মোট সুস্থ ১ লাখ ১১ হাজার ৬৪২ জন।

রোববার স্বাস্থ্য অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক নাসিমা সুলতানা নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান।

প্রসঙ্গত গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়। দেশে প্রথম কোভিড-১৯ রোগীশনাক্ত হন ৮ মার্চ এবং এ রোগে আক্রান্ত প্রথম রোগীর মৃত্যু হয় ১৮ মার্চ।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এন

বিস্তারিত খবর

যুক্তরাষ্ট্রে একদিনেই আক্রান্ত ৭৭ হাজারের বেশি

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-১৮ ১৪:২২:৫২

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস যুক্তরাষ্ট্রে ভয়াবহ বিপর্যয় তৈরি করেছে। সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে নতুন করে আরও ৭৭ হাজারের বেশি মানুষ প্রাণঘাতী এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে।

জন্স হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, একদিনেই নতুন করে আক্রান্তের সংখ্যা ৭৭ হাজার ৬৩৮। অপরদিকে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছে আরও ৯২৭ জন। ফলে দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ১ লাখ ৩৯ হাজার ১২৮ জন।

এদিকে, ওয়ার্ল্ডওমিটারের পরিসংখ্যান বলছে, যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩৭ লাখ ৭০ হাজার ১২। এর মধ্যে মারা গেছে ১ লাখ ৪২ হাজার ৬৪ জন। ইতোমধ্যেই করোনা থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছে ১৭ লাখ ৪১ হাজার ২৩৩ জন। দেশটিতে বর্তমানে করোনার অ্যাক্টিভ কেস ১৮ লাখ ৮৬ হাজার ৭১৫। অপরদিকে ১৬ হাজার ৬৬০ জনের অবস্থা এখনও আশঙ্কাজনক।

এখন পর্যন্ত বিশ্বের ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে। এর মধ্যে করোনায় সবচেয়ে বিপর্যস্ত যুক্তরাষ্ট্র। আক্রান্ত ও মৃত্যুতে যুক্তরাষ্ট্রের ধারে-কাছে নেই কোনো দেশ। যুক্তরাষ্ট্রের ৫০টি অঙ্গরাজ্যেই করোনার প্রকোপ ছড়িয়ে পড়েছে।

এদিকে, আমেরিকায় মাস্ক বাধ্যতামূলকের সিদ্ধান্তে নিজের অবস্থানের কথা স্পষ্ট করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তিনি জানিয়েছেন যে, দেশজুড়ে সবাইকে মাস্ক পরার নির্দেশ দেবেন না তিনি। করোনাভাইরাসের বিস্তাররোধে বিশেষজ্ঞরা বার বার মাস্ক ব্যবহারের প্রতি জোর দিলেও এ বিষয়টিকে পাত্তাই দিচ্ছেন না ট্রাম্প।

ফক্স নিউজের সঙ্গে আলাপকালে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বলেন, দেশজুড়ে মাস্ক ব্যবহার বাধ্যতামূলকের বিষয়ে একমত নন তিনি। তার মতে, এ বিষয়ে লোকজনের স্বাধীনতা থাকা প্রয়োজন।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

দেশে করোনা শনাক্তের সংখ্যা ২ লাখ ছাড়াল

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-১৮ ১৪:১৫:২৪


সংক্রামক করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৩৪ জন মারা গেছেন। এ নিয়ে মোট ২ হাজার ৫৮১ জন মারা গেলেন। এ সময়ের মধ্যে নতুন শনাক্ত হয়েছেন ২ হাজার ৭০৯ জন। এ নিয়ে মোট শনাক্ত ২ লাখ ২ হাজার ৬৬ জন। এছাড়া এ সময়ের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৩৭৩ জন।

শনিবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে যুক্ত হয়ে করোনাভাইরাসের সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরেন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

নাসিমা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ১০ হাজার ৬৩২টি। পরীক্ষা হয়েছে ১০ হাজার ৯২৩টি। এতে ২ হাজার ৭০৯ জন শনাক্ত হন। গত ২ জুন একদিনে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৯ জন শনাক্ত হওয়ার কথা জানানো হয়েছিল। গত ১ জুলাই একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ হাজার ৪২৬টি নমুনা পরীক্ষার কথা জানানো হয়েছিল। এতে ৩ হাজার ৬৮২ জন শনাক্ত হন। আর গত ১৭ জুন একদিনে সর্বোচ্চ ১৮ হাজার ৯২২জনের নমুনা সংগ্রহ করে ১৭ হাজার ৫২৭টির পরীক্ষায় ৪ হাজার ৪ জন শনাক্তের কথা জানানো হয়েছিল।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের দিক দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে ভারত ও পাকিস্তানের পরই এখন বাংলাদেশ। উৎসস্থল চীনকে ছাড়িয়েছে এ তিনটি দেশই। দেশে ১০ লাখ ১৭ হাজার ৬৭৪ জনের করোনা পরীক্ষা করে এ পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছেন ২ লাখ ২ হাজার ৬৬ জন। বর্তমানে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ফ্রান্স ও কানাডাকে পেছনে ফেলে ১৭তম। আর এশিয়ার ৪৯টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ। এর আগে রয়েছে ভারত, ইরান, তুরস্ক, পাকিস্তান ও সৌদি আরব।

নাসিমা আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে আরও ৩৪ জন মারা গেছেন। এর আগে ৩০ জুন একদিনে সর্বোচ্চ ৬৪ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছিল। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ২ হাজার ৫৮১ জনের। এ পর্যন্ত ২ হাজার ৪০ জন পুরুষ ও ৫৪১ জন নারী করোনায় মারা গেছেন।

এ পর্যন্ত ঢাকা বিভাগে ১২৪২ জন, চট্টগ্রাম ৬৩৯, খুলনা ১৪৪ জন, সিলেট ১১৩ জন, ময়মনসিং ৫৬ জন, রংপুর ৮৩ জন, রাজশাহী ১২৮ ও বরিশাল বিভাগে ৯১ জন মারা গেছেন।

দেশে করোনায় সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যাও বাড়ছে। প্রতিদিনই সুস্থ হয়ে উঠছেন বিপুল মানুষ।

নাসিমা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৩৭৩ জন। এ পর্যন্ত ১ লাখ ১০ হাজার ৯৮ জন মানুষ সুস্থ হলেন।

ব্রিফিংয়ের করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ দেন অধ্যাপক নাসিমা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, করোনা মোকাবিলায় তরল খাবার, কুসুম গরম পানি ও আদা চা পান করতে হবে। সম্ভব হলে মৌসুমী ফল খাওয়া ও ফুসফুসের ব্যায়াম করা। এ সময় ধূমপান ত্যাগ করতে হবে। কারণ, এটি ফুসফুসের কার্যকারিতা নষ্ট করে দেয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আরও জানিয়েছে, করোনাভাইরাসের করোনা আক্রান্ত মায়ের দুধপানে শিশুর করোনা আক্রান্ত হওয়ার কোনো তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পায়নি। অর্থাৎ, শিশুকে দুধপান করানো যাবে। তবে, এই সময়ে গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখার প্রতি বিশেষ আহ্বান জানানো হয়।

চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা বাংলাদেশে প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। সেদিন তিনজনের শরীরে করোনা শনাক্তের কথা জানিয়েছিল আইইডিসিআর। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার।

ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়ানো হয় সেই ছুটি। ৭ম দফায় বাড়ানো ছুটি চলে ৩০ মে পর্যন্ত। ৩১ মে থেকে সাধারণ ছুটি নেই। এখন বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ভিত্তিক লকডাউন চলছে। তাই অফিস আদালতে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় সরঞ্জামাদি রাখা ও সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এন

বিস্তারিত খবর

করোনায় আক্রান্ত ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-০৭ ১৩:৪১:৫৫

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জেয়ার বলসোনারো করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। মঙ্গলাবার তিনি নিজেই ব্রাজিলিয়ান টিভিকে এ কথা জানিয়েছেন।

সোমবার করেনা টেস্টের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সবাই জানত যে জনসংখ্যার একটি উল্লেখযোগ্য অংশে আগে বা পরে পৌঁছে (করোনা) যাবে। এটি আমার জন্য পজিটিভ ছিল।

এর আগে মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট বলসোনারো সিএনএন ব্রাজিল অফিসকে জানিয়েছেন, গত চার মাসে এটি তার চতুর্থ করোনা টেস্ট।

করোনায় ক্ষতিগ্রস্থ দেশগুলোর মধ্যে ব্রাজিল অন্যতম। বিশ্বে আক্রান্ত ও মৃত্যুর দিক দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পরে দেশটির অবস্থান। অর্থাৎ বিশ্ব তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে ব্রাজিল।

করোনার হিসাব রাখা আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্যানুযায়ী দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১৬ লাখ ২৮ হাজার ২৮৩ জন। আর এ পর্যন্ত মৃত্যুর সংখ্যা ৬৫ হাজার ৬৩১ জনে দাঁড়িয়েছে।


এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/ সিসি

বিস্তারিত খবর

দেশে একদিনে ৪২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩১১৪

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-০৩ ১২:১০:৪৬

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩২ জন পুরুষ ও ১০ জন মহিলা এবং ১৮ জন ঢাকা বিভাগের ও বাকিরা অন্যান্য বিভাগের। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট মৃত্যু হলো ১ হাজার ৯৬৮ জনের। একই সময়ে নতুন করে আরও ৩ হাজার ১১৪ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট করোনা শনাক্ত হলেন ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩৯১ জন।

শুক্রবার (৩ জুলাই) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস বিষয়ক নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান অধিদফতরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

বুলেটিনে জানানো হয়, দেশের মোট ৭১টি পরীক্ষাগারের মধ্যে ৬৩টি থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুসারে গত ২৪ ঘণ্টায় মোট ১৪ হাজার ৭৮১ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয় এবং ১৪ হাজার ৬৫০ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ নিয়ে মোট ৮ লাখ ১৭ হাজার ৩৪৭ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হলো। এ সময়ে করোনায় আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও ৩ হাজার ১১৪ জন। ফলে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১ লাখ ৫৬ হাজার ৩৯১ জন। সেই সঙ্গে আরও ৪২ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে ভাইরাসটিতে মোট মৃত্যু হলো ১ হাজার ৯৬৮ জনের।

এছাড়া ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ১ হাজার ৬০৬ জন।সব মিলিয়ে সুস্থ হয়েছেন ৬৮ হাজার ৪৮ জন।

বরাবরের মতো করোনাভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে সবাইকে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া, মুখে মাস্ক পরা এবং অন্যান্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান তিনি।


এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

দেশে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়াল, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৮

 প্রকাশিত: ২০২০-০৭-০২ ১১:৫৮:৪৯

করোনাভাইরাসে দেশে ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। এসময় রোগী শনাক্ত হয়েছে ৪০১৯ জন। বৃহস্পতিবার করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা

দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ এবং এতে মৃত্যু বাড়ছে উদ্বেগজনক হারে। গত ২৪ ঘণ্টায় আরও চার হাজার ১৯ জনের শরীরে ভাইরাসটির উপস্থিতি শনাক্ত হয়েছে। ফলে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ৫৩ হাজার ২৭৭ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন আরও ৩৮ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হলো এক হাজার ৯২৬ জনে।

বরাবরের মতোই বুলেটিনে করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।

দেশে করোনাভাইরাসে সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। তার ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

প্রসঙ্গত, চীনের উহান থেকে বিস্তার শুরু করে গত চার মাসে বিশ্বের ২১৫টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। চীনে করোনার প্রভাব কমলেও বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে মহামারি রূপ নিয়েছে।

করোনাভাইরাস মূলত শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়। এর লক্ষণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে, সঙ্গে থাকতে পারে সর্দি, শুকনো কাশি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা ও শরীর ব্যথা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে দেখা দিতে পারে শ্বাসকষ্ট। উপসর্গগুলো হয় অনেকটা নিউমোনিয়ার মত। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হলে এ রোগ কিছুদিন পর এমনিতেই সেরে যেতে পারে। তবে ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদযন্ত্র বা ফুসফুসের পুরোনো রোগীদের ক্ষেত্রে ডেকে আনতে পারে মৃত্যু।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এন

বিস্তারিত খবর

দেশে ২৪ ঘণ্টায় রেকর্ড ৪০১৪ জন শনাক্ত, মৃত্যু ৪৫

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-২৯ ১১:২৬:২১


প্রাণসংহারী করোনাভাইরাসে দেশে প্রতিদিনই বাড়ছে মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর মিছিলে যোগ দিয়েছেন আরও ৪৫ জন। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ১ হাজার ৭৮৩ জনের। আর সময়ের মধ্যে একদিনে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৪ জন শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে মোট শনাক্ত হলেন ১ লাখ ৪১ হাজার ৮০১ জন। আর নতুন ২ হাজার ৫৩ জনসহ মোট সুস্থ হয়েছেন ৫৭ হাজার ৭৮০ জন। ফলে সরকারি হিসেবে বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত আছেন ৮৪ হাজার ২১ জন।

সোমবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিয়মিত বুলেটিনে যুক্ত হয়ে করোনাভাইরাস সর্বশেষ পরিস্থিতি তুলে ধরেন অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক নাসিমা সুলতানা।

নাসিমা বলেন, ৬৮টি ল্যাবের মধ্যে ৬৫টি ল্যাবে গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ৪১৩টি নমুনা সংগ্রহ হয়েছে। আগের নমুনাসহ পরীক্ষা হয়েছে ১৭ হাজার ৮৩৭টি, যাতে একদিনে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ১৪ জন শনাক্ত হন। এর আগে গত ১৭ জুন একদিনে সর্বোচ্চ ৪ হাজার ৮ জন শনাক্তের কথা জানানো হয়েছিল। সেদিন ১৮ হাজার ৯২২জনের নমুনা সংগ্রহ করে একদিনে সর্বোচ্চ ১৭ হাজার ৫২৭টির পরীক্ষার কথা বলা হয়।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের দিক দিয়ে দক্ষিণ এশিয়ার সার্কভুক্ত দেশগুলোর মধ্যে ভারত ও পাকিস্তানের পরই এখন বাংলাদেশ। উৎসস্থল চীনকে ছাড়িয়েছে এ তিনটি দেশই। এ পর্যন্ত ৭ লাখ ৪৮ হাজার ৩৪জনের করোনা পরীক্ষা করে দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১ লাখ ৪১ হাজার ৮০১ জনে। বর্তমানে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান কানাডাকে পেছনে ফেলে ১৭তম। আর এশিয়ার ৪৯টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ষষ্ঠ। এর আগে রয়েছে ভারত, ইরান, তুরস্ক, পাকিস্তান ও সৌদি আরব।

নাসিমা আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪৫ জন। গত ১৬ জুন একদিনে সর্বোচ্চ ৫৩ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছিল। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ১ হাজার ৭৮৩ জনের। নতুন মৃতদের মধ্যে পুরুষ ৩৬ ও নারী ৯ জন।

দেশে করোনায় সংক্রমিত মানুষের সংখ্যা বাড়ার পাশাপাশি সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যাও বাড়ছে। প্রতিদিনই সুস্থ হয়ে উঠছেন বিপুল মানুষ।

নাসিমা বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় বাসা ও হাসপাতাল মিলিয়ে নতুন সুস্থ হয়েছেন ২ হাজার ৫৩ জন। এ নিয়ে মোট ৫৭ হাজার ৭৮০ জন সুস্থ হয়েছেন। ফলে বর্তমানে করোনায় আক্রান্ত আছেন ৮৪ হাজার ২১ জন।

আজ ব্রিফিংয়ের শুরুতে করোনাভাইরাসের এই সময়ে নাসিমা গর্ভবতী মায়ের স্বাস্থ্যের দিকে খেয়াল রাখার আহ্বান জানান। একই সঙ্গে তিনি জানান, করোনা আক্রান্ত মায়ের দুধপানে শিশুর করোনা আক্রান্ত হওয়ার কোনো তথ্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা পায়নি। অর্থাৎ, শিশুকে দুধপান করানো যাবে।

ব্রিফিংয়ের করোনা প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর পরামর্শ দেন অধ্যাপক নাসিমা।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, করোনা মোকাবিলায় তরল খাবার, কুসুম গরম পানি ও আদা চা পান করতে হবে। সম্ভব হলে মৌসুমী ফল খাওয়া ও ফুসফুসের ব্যায়াম করা। এ সময় ধূমপান ত্যাগ করতে হবে। কারণ, এটি ফুসফুসের কার্যকারিতা নষ্ট করে দেয়।

চীনের উহান থেকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী ভাইরাস করোনা বাংলাদেশে প্রথম শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। সেদিন তিনজনের শরীরে করোনা শনাক্তের কথা জানিয়েছিল আইইডিসিআর। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। দিন দিন করোনা রোগী শনাক্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়ায় নড়েচড়ে বসে সরকার।

ভাইরাসটি যেন ছড়িয়ে পড়তে না পারে সেজন্য ২৬ মার্চ থেকে বন্ধ ঘোষণা করা হয় সব সরকারি-বেসরকারি অফিস। কয়েক দফা বাড়ানো হয় সেই ছুটি। ৭ম দফায় বাড়ানো ছুটি চলে ৩০ মে পর্যন্ত। ৩১ মে থেকে সাধারণ ছুটি নেই। এখন বেশি ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ভিত্তিক লকডাউন চলছে। তাই অফিস আদালতে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষায় সরঞ্জামাদি রাখা ও সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ওপর গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

দেশে করোনায় আরও ৪৩ জনের মৃত্যু, আক্রান্ত ৩৪১২

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-২৩ ১৩:১৪:৪২

করোনায় দেশে নুতন করে আরও ৪৩ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মোট মৃত্যু হয়েছে এক হাজার ৫৪৫ জনের। নতুন করে শনাক্ত হয়েছেন তিন হাজার ৩৪১২ জন। সব মিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক লাখ ১৯ হাজার ১৯৮ জনে। ৬৫টি ল্যাবে এসব পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে তিনটি নতুন করে সংযোগ হয়েছে। এ সময়ে নমুনা সংগ্রহ করা হয় ১৬ হাজার ২৯২টি।

মঙ্গলবার করোনা সংক্রান্ত নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (মহাপরিচালকের দায়িত্বপ্রাপ্ত) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ব্রিফিংয়ে নতুন যুক্ত তিনটিসহ মোট ৬৫টি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষার তথ্য তুলে ধরে জানানো হয়, করোনাভাইরাস শনাক্তে গত ২৪ ঘণ্টায় আরো ১৭ হাজার ৫৬৩টি নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরীক্ষা করা হয় ১৬ হাজার ২৯২টি। এ নিয়ে দেশে মোট নমুনা পরীক্ষা করা হলো ছয় লাখ ৪৪ হাজার ১১টি। নতুন নমুনা পরীক্ষায় করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে আরও তিন হাজার ৪১২ জনের মধ্যে। ফলে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দাঁড়াল এক লাখ ১৯ হাজার ১৯৮ জনে। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন আরও ৪৩ জন। এ নিয়ে মোট মারা গেলেন এক হাজার ৫৪৫ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন আরও ৮৮০ জন। সব মিলিয়ে মোট সুস্থ রোগীর সংখ্যা এখন ৪৭ হাজার ৬৩৫ জন।

এ সময় বরাবরের মতোই বুলেটিনে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে সবাইকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পরামর্শ-নির্দেশনা মেনে চলার অনুরোধ জানানো হয়।

এর আগে সোমবারের (১ জুন) বুলেটিনে জানানো হয়, দেশে চব্বিশ ঘণ্টায় আরো তিন হাজার ৪৮০ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এক লাখ ১৫ হাজার ৭৮৬ জন। এ সময়ের মধ্যে মারা গেছেন আরো ৩৮ জন। সব মিলিয়ে মৃতের সংখ্যা এক হাজার ৫০২ জন।

সোমবারের ব্রিফিংয়ে আরো জানানো হয়, ঢাকা সিটিসহ দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ও বাড়িতে উপসর্গ বিহীন রোগীসহ গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন এক হাজার ৬৭৮ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ৪৬ হাজার ৭৫৫ জন। দেশে আরটি-পিসিআর ল্যাব আছে ৬৩টি। টেকনিক্যাল সমস্যার কারেণ একটি ল্যাবে নমুনা পরীক্ষা হয়নি। আজ ৬২ ল্যাবে নমুনা সংগ্রহ ও পরীক্ষা হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১৬ হাজার ২৮৭টি। মোট নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ১৫ হাজার ৫৫৫টি। এ পর্যন্ত নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ছয় লাখ ২৭ হাজার ৭১৯টি।

অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা সোমবার জানান, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩৮ জনের ৩৩ জন পুরুষ ও নারী পাঁচ জন। এদের মধ্যে ঢাকা বিভাগে রয়েছেন ১৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে ১২ জন, রাজশাহী বিভাগে দুই জন, খুলনা বিভাগে দুই জন, ময়মনসিংহ বিভাগে দুই জন সিলেট বিভাগে এক জন, বরিশাল বিভাগে চার জন। এদের মধ্যে হাসপাতালে মারা গেছেন ২৫ জন আর বাসায় মারা গেছেন ১২ জন এবং হাসপাতালে নেওয়ার পথে মারা গেছেন এক জন।

বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে এক জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৬ জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে তিন জন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে এক জন, ২১ থেকে ৩০ বছরের মধে তিন জন, ১১ থেকে ২০ বছরের মধ্যে রয়েছেন একজন।

প্রসঙ্গত, চীনের উহান থেকে বিস্তার শুরু করে গত চার মাসে বিশ্বের ২১৫টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে করোনাভাইরাস। চীনে করোনার প্রভাব কমলেও বিশ্বের অন্য কয়েকটি দেশে মহামারি রূপ নিয়েছে।

দেশে করোনায় সংক্রমিত প্রথম রোগী শনাক্ত হয় গত ৮ মার্চ। তার ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রথম একজনের মৃত্যু হয়।

করোনায় মূলত শ্বাসতন্ত্রে সংক্রমণ ঘটায়। এর লক্ষণ শুরু হয় জ্বর দিয়ে, সঙ্গে থাকতে পারে সর্দি, শুকনো কাশি, মাথাব্যথা, গলাব্যথা ও শরীর ব্যথা। সপ্তাহখানেকের মধ্যে দেখা দিতে পারে শ্বাসকষ্ট। উপসর্গগুলো হয় অনেকটা নিউমোনিয়ার মত। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভালো হলে এ রোগ কিছুদিন পর এমনিতেই সেরে যেতে পারে। তবে ডায়াবেটিস, কিডনি, হৃদযন্ত্র বা ফুসফুসের পুরোনো রোগীদের ক্ষেত্রে ডেকে আনতে পারে মৃত্যু।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

করোনাকে হেঁয়ালি করে ভুগছে ফ্লোরিডার তরুণরা

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-২৩ ০৪:১৯:১৯


যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন রাজ্যে করোনাভাইরাস সংক্রমণের হার বেড়েই চলছে। তরুণরা বিভিন্ন রাজ্যে করোনাকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছে না বলে অভিযোগ রয়েছে। ফ্লোরিডায় এমনটা বেশি ঘটছে। এছাড়া ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার আন্দোলনের ফলে দ্বিতীয় ধাপে করোনা সংক্রমণের আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। 


এ পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৩ লক্ষ ৮৮ হাজার ১৫৩ জন। আর মোট মৃতের সংখ্যা ১ লাখ ২২ হাজার ৬১০ জন ছাড়িয়েছে। তবে নতুন সংক্রমণ বেশি হচ্ছে দেশটির দক্ষিণ ও পশ্চিম অংশে। এসব আক্রান্তদের মধ্যে তরুণদের সংখ্যাই বেশি।

তরুণরা সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে চলা নীতি মেনে চলছে না বলে অভিযোগ করছেন সরকারি কর্মকর্তারা। তাদের কাছ থেকে বয়স্কদের মধ্যে ছড়াচ্ছে করোনাভাইরাস। বাড়ছে মৃত্যু। ড. টম ফ্রেইডেন বলেন, ফ্লোরিডায় ২০-৪০ বয়সের তরুণরা করোনায় আক্রান্ত হচ্ছেন। তরুণদের মাধ্যমে অন্যরাও  আক্রান্ত হচ্ছেন। টম ফ্রেইডেন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন ইনস্টিটিউটের সাবেক ডিরেক্টর হিসেবে কর্মরত ছিলেন।

সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ ড. অ্যান্থনি ফৌসি জানিয়েছেন, তিনি তরুণদের করোনা সংক্রমণের লম্বা লাইন দেখে বিস্মিত নন। সামনের দিনগুলো নিয়ে তিনি আরো বেশি চিন্তিত।

তিনি বলেন, তরুণরা বাসায় যাচ্ছেন। এরপর পরিবারের বয়স্করা সংক্রমিত হচ্ছেন এবং তারা জটিলতায় ভুগছেন। তাদের হাসপাতালে যেতে হচ্ছে।

ফ্লোরিডায় করোনা আক্রান্ত লাখ ছাড়িয়েছে বলে তথ্য প্রকাশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদফতর।


এলএ/বাংলা টাইমস/এন/এইচ




বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশে করোনায় বিএনপির ৫৬ নেতাকর্মীর মৃত্যু, আক্রান্ত ১২১ জন

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-১৩ ১২:২৯:৩৭

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এখন পর্যন্ত বিএনপির ৫৬ জন নেতাকর্মী মৃত্যুবরণ করেছেন বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি জানান, এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন দলের ১২১ জন নেতাকর্মী।

শনিবার (১৩ জুন) দুপুরে বিএনপির করোনা সেলের পক্ষ থেকে উত্তরার নিজ বাসা থেকে অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

দলের বিভিন্ন আঞ্চলিক বিভাগ অনুযায়ী নেতাকর্মীদের আক্রান্তের হিসাব তুলে ধরে মির্জা ফখরুল জানান, রাজশাহী বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৫ জন, চট্টগ্রাম বিভাগে আক্রান্ত ২৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১২ জনের, কুমিল্লা বিভাগে আক্রান্ত ১৯ জন এবং মৃত্যু ১৩, ঢাকা বিভাগে আক্রান্ত ৪১ জন এবং মৃত্যু ২৭, ময়মনসিংহ বিভাগে আক্রান্ত একজন এবং মৃত্যু এক, খুলনা বিভাগে আক্রান্ত সাত জন, সিলেট বিভাগে আক্রান্ত আট জন এবং মৃত্যু দুই, ফরিদপুর বিভাগে আক্রান্ত ১৪ জন এবং মৃত্যু এক। অর্থাৎ, মোট আক্রান্ত ১২১ জন আর মৃত্যু হয়েছে ৫৬ জনের।

এই সময় তিনি করোনাভাইরাসে মৃত্যু হওয়া চিকিৎসক, নার্স, স্বাস্থ্যকর্মী, সাংবাদিক, আইনশৃঙ্খলা রক্ষা বাহিনীর সদস্য, ব্যাংকার, শিক্ষক, পেশাজীবী, শ্রমজীবী এবং দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি গভীর শোক এবং পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

সরকারের ব্যর্থতায় দেশে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যুর মিছিল চলছে অভিযোগ করে তিনি বলেন, ‘সরকারের চরম অবহেলা ও দায়িত্বহীন আচরণে দেশে কোভিড-১৯ ভয়াবহভাবে ছড়িয়ে পড়েছে। সরকারি হিসাবে দেশে মৃত্যু হাজার ছাড়িয়েছে, আক্রান্ত প্রায় লাখের কাছে। বেসরকারি বা অন্যান্য সূত্রে আক্রান্ত ও মৃত্যর সংখ্যা কয়েকগুণ বেশি। শুরু থেকেই বিশেষজ্ঞদের মতামতকে উপেক্ষা করে লকডাউনের পরিবর্তে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে জনগণের সঙ্গে তামাশা করা হয়েছে। মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে সরকার।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে করোনা ওয়ার্ডে ২ মে থেকে এখন পর্যন্ত ৫৯৯ জন রোগী মারা গেছেন। এর মধ্যে করোনা পজিটিভ ছিল ১৩৯ জনের। বাকিদের করোনা পরীক্ষাই করা হয়নি। করোনা পরীক্ষার বাইরে উপসর্গে মৃত ও আক্রান্তদের পরিসংখ্যান সরকারি হিসাবে আসছে না। প্রধানমন্ত্রীর একজন ব্যক্তিগত চিকিৎসা উপদেষ্টা গণমাধ্যমে বলেছে করোনায় মৃত্যুর প্রকৃত সংখ্যা এবং উপসর্গে মৃত্যুর সংখ্যা ও কারণ প্রকাশ করা জরুরি।’

তিনি জানান, মানুষের আহাজারিতে বাংলাদেশের আকাশ ভারী হয়ে উঠছে। শুধু রাজধানী ঢাকাই নয়, দেশের অনেক জেলায় লাশ দাফন করার জায়গা খালি নেই। শুধু রাজধানীর কবরগুলোতে গত চার মাসে লাশ দাফন হয়েছে দুই-তৃতীয়াংশ বেশি। আর নারায়ণগঞ্জে এই সংখ্যা দ্বিগুণ।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, করোনা মোকাবিলায় সমন্বিত কোনও কাজ করেনি সরকার। বরং সরকারের মন্ত্রী ও নেতাদের দায়িত্বজ্ঞানহীন ও ঔদ্ধত্য কথাবার্তার মাধ্যমে তারা এই সংকটকে আড়াল করার চেষ্টা করছেন।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

রাতেই সম্পূর্ণ লকডাউন হচ্ছে রাজধানীর রাজারবাজার এলাকা, মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-০৯ ১৩:৩৬:৫৯

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে আজ রাতেই সম্পূর্ণ লকডাউন হচ্ছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) পূর্ব রাজাবাজার এলাকা। আজ রাত ১২টার পর থেকে পরীক্ষামূলকভাবে লকডাউন করা হবে এই এলাকাটি। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সংখ্যার ঘনত্ব বেশি হওয়ার কারণে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

লকডাউন এলাকায় বসবাসরতরা তাদের প্রয়োজনীয় নিত্যপণ্য ও চিকিৎসাসামগ্রী অনলাইনের মাধ্যমে ক্রয় করতে পারবেন। যা বাসায় পৌঁছে দেয়া হবে। এটুআই ও ইক্যাব যৌথভাবে এটি পরিচালনা করবে। হোম ডেলিভারির জন্য ইতোমধ্যে একদল প্রশিক্ষিত কর্মীবাহিনী তৈরি করা হয়েছে।

অন্যদিকে যাদের অনলাইন সুবিধা নেই, নগদ অর্থে খাদ্যসামগ্রী ক্রয় করতে চান তাদের জন্য দু-একটি শাক-সবজি, মাছ-মাংসের ভ্যান, ভ্যানচালক ও পণ্যসামগ্রী সম্পূর্ণ জীবাণুমুক্ত করে ভেতরে প্রবেশ করানো হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, রাত ১২টা থেকে পূর্ব রাজাবাজার এলাকা লকডাউন করা হচ্ছে। সোমবার ডিএনসিসির মেয়র মো. আতিকুল ইসলামের সভাপতিত্বে করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও মোকাবিলার লক্ষ্যে ডিএনসিসি এলাকার জন্য গঠিত কমিটির এক অনলাইন সভায় এ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

ডিএনসিসির ওয়ার্ড কাউন্সিলরের পক্ষ থেকে পূর্ব রাজাবাজার এলাকার কর্মহীন, অসহায় ও দুস্থ মানুষের একটি তালিকা প্রণয়ন করছেন। তালিকা অনুযায়ী তাদের ডিএনসিসি থেকে ত্রাণসামগ্রী সরবরাহ করা হবে। এছাড়া পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় অবস্থিত নাজনিন স্কুল অ্যান্ড কলেজে কোভিড-১৯ পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহের জন্য বুথ স্থাপন করা হবে। এটি সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। বুথটি পরিচালনার দায়িত্বে থাকবে স্বাস্থ্য অধিদফতর ও বেসরকারি সংস্থা ব্র্যাক।

মাঠে থাকবে সেনাবাহিনী:
রাত ১২টা থেকে পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় লকডাউন কার্যকর হবে। আর তা মানাতে মাঠে থাকবে সশস্ত্র বাহিনী।

রাতে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) পরিচালক লে. কর্নেল আবদুল্লাহ ইবনে জায়েদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

আইএসপিআর জানায়, পূর্ব রাজাবাজার এলাকায় রাত থেকে পরীক্ষামূলক লকডাউন শুরু হচ্ছে। সরকারের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এই লকডাউন নিশ্চিত করতে স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ সদস্যদের পাশাপাশি সেনা সদস্যরা মাঠে কাজ করবে। এজন্য সেনা টহল জোরদার করা হয়েছে। সেনা সদস্যরা স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশের সাথে প্রয়োজনীয় সমন্বয় করে লকডাউন নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশে জাতীয় সংসদের ৪৩ কর্মকর্তা করোনায় আক্রান্ত

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-০৮ ১২:৫৫:০৪

জাতীয় সংসদ সচিবালয়ে কর্মরত ৪৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। আসন্ন বাজেট অধিবেশন উপলক্ষে জাতীয় সংসদের কর্মরত কর্মকর্তাদের করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) পরীক্ষা করানো হয়। এতে ৪৩ জনের ফলাফল ‘পজিটিভ’ এসেছে। অথচ তাদের অধিকাংশের শরীরে তেমন কোনো উপসর্গ ছিল না। করোনা পজিটিভ হওয়া অনেকেই স্পিকারের দফতরে অবাধে যাতায়াত করতেন।

অধিবেশন চলাকালীন অনেকেরই সংসদ কক্ষে দায়িত্ব পালনের কথা ছিল। এর বাইরে জাতীয় সংসদে দায়িত্বরত ৮২ জন আনসার সদস্যও করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া সংসদে কর্মরত তিনজন পুলিশ সদস্যেরও করোনা পজিটিভ রেজাল্ট এসেছে।

সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমেদ খান বলেন, সংসদে আক্রান্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সবাইকে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার জাতীয় সংসদ ভবনের সংসদ ভবনে সংসদ কমিশনের ৩১তম সভা এবং পরে মন্ত্রিসভার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। ওই দুই বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা উপস্থিত ছিলেন। আগামী ১০ জুন থেকে শুরু হচ্ছে জাতীয় সংসদের বাজেট অধিবেশন। অধিবেশনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অংশ নেয়ার কথা রয়েছে। এ কারণে বর্তমানে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় অধিবেশন চলাকালীন নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিতের পাশাপাশি করোনাভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে নেয়া হয়েছে কঠোর ব্যবস্থা। এরই অংশ হিসেবে সংসদে দায়িত্বরত প্রায় ৩০০ কর্মকর্তা-কর্মচারীর করোনাভাইরাস পরীক্ষার নির্দেশ দেয়া হয়। গত ২ জুন থেকে এই পরীক্ষা শুরু হয়। সোমবার তাদের কোভিড-১৯ পরীক্ষা শেষ হয়।

সংসদ মেডিকেল সেন্টারের চিফ মেডিকেল অফিসার আরিফুল হক সোমবার জানান, সংসদের ৪৩ কর্মকর্তার শরীরে আমরা করোনা পজিভিট পেয়েছি। এর মধ্যে আজ সোমবার ১১ জনের শরীরে, গতকাল রোববার ১৬ জনের শরীরে এবং শনিবার চারজনের মধ্যে করোনা শনাক্ত হয়।

আনসার ও গ্রাম প্রতিরক্ষা বাহিনীর উপ-পরিচালক (যোগাযোগ) মেহেনাজ তাবাসসুম রেবিন জানান, আনসার বাহিনীর করোনা আক্রান্তদের মধ্যে ৮২ জন ব্যাটালিয়ন আনসার সংসদ সচিবালয়ে কর্মরত।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

হোমিও ওষুধে সুফল মিলছে করোনার চিকিৎসায়!

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-০২ ১৩:৫২:৫৩


বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসের স্বীকৃত কোনো ওষুধের সন্ধান এখনও মিলেনি। প্রাণঘাতী এই ভাইরাসটি থেকে রক্ষা পেতে টিকা ও কার্যকরী ওষুধ আবিষ্কারের চেষ্টা চলছে বিশ্বজুড়ে। এর মধ্যে প্রাচীন হোমিও পদ্ধতি করোনার চিকিৎসায় কার্যকরী ভূমিকা রাখছে বলে আলোচিত হচ্ছে।

করোনা পরিস্থিতিতে সম্মুখ সমরে থাকা পুলিশ বাহিনীর পাঁচ হাজারের বেশি সদস্য ইতিমধ্যে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মূল চিকিৎসা চলছে এলোপ্যাথিক পদ্ধতিতে। তবে এর বাইরে পুলিশের অনেক সদস্য আগ্রহী হয়ে উঠেছেন হোমিও চিকিৎসায়। ইতিমধ্যে একজন হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক অনানুষ্ঠানিকভাবে জড়িত হয়েছেন কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে। হাসপাতালের আউটডোরে তিনি একটি ডিসপেনসারিও দিয়েছেন। তার চিকিৎসায় করোনায় আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের অনেকেই সুফল পাচ্ছেন বলে জানা গেছে।

হোমিও চিকিৎসক রাশিদুল হক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমোদনে গত ১৬ মে থেকে পুলিশ হাসপাতালের সঙ্গে জড়িত হয়েছেন। তিনি বিবিসি বাংলাকে বলেছেন, তিনি করোনার কোনো চিকিৎসা করছেন না, তবে প্রতিরোধমূলক ওষুধ দিচ্ছেন যা কার্যকর হচ্ছে বলে দাবি করছেন তিনি।

রাশিদুল হক বলেন, ‘আমি এক হাজারের বেশি পুলিশ সদস্যকে প্রতিরোধমূলক ওষুধ দিয়েছি। তাদের কেউ এখনো করোনা পজিটিভ হননি। আর ৫০ জন কোভিড-১৯ রোগীকে ওষুধ দিয়েছি যা সেবন করে এসব রোগী তুলনামূলক দ্রুততম সময়ে সুস্থ হয়েছেন।’

রাশিদুল বলছেন, তিনি যে ওষুধ দিচ্ছেন তা প্রতিরোধমূলক এবং এটি নিয়ম মতো সেবন করলে দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা আরও সক্রিয় হয়ে উঠে এবং মানুষের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরি হয়।

ইতিমধ্যেই পুলিশ হাসপাতাল ছাড়াও স্বরাষ্ট্রসহ কয়েকটি মন্ত্রণালয়েও তিনি চাহিদা পেয়ে হোমিওপ্যাথিক ওষুধ সরবরাহের দাবি করেছেন। তিনি বলেন, করোনার কোনো নির্ধারিত চিকিৎসা নেই। তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রটোকল অনুযায়ী বাংলাদেশে এর চিকিৎসা হচ্ছে এবং অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠছেন।

রাশিদুল বলেন, ‘হোমিওপ্যাথিক ঔষধ রোগীরা প্রচলিত এলোপ্যাথিক চিকিৎসার পাশাপাশি নিতে পারছেন এবং এর কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। যারা আগ্রহী হন তাদেরকেই আমি ওষুধ দিচ্ছি এবং অনেকেই জানিয়েছেন তারা উপকার পেয়েছেন।’

হোমিও চিকিৎসক বলেন, ‘করোনার যেসব লক্ষণ অর্থাৎ জ্বর, গলা ব্যথা, শ্বাসকষ্ট, কাশি- এসবের চিকিৎসায় হোমিওপ্যাথি বাংলাদেশে অনেক আগে থেকেই বেশ জনপ্রিয়। এখন করোনায় আক্রান্তদের ক্ষেত্রেও এসব উপসর্গের যেটি বেশি সেটিকে ধরে আমরা ওষুধ দিচ্ছি। তাতে অনেকে উপকার পাচ্ছে। আর যারা আক্রান্ত হননি তাদের জন্য প্রতিরোধমূলক পথ্য দেয়া হচ্ছে।’ হোমিওপ্যাথি চিকিৎসায় খরচ খুবই কম হওয়ায় রোগীরা সহজেই তা নিতে পারছেন বলে জানান তিনি।

তবে কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িত অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম শান্ত বলছেন, পুলিশ হাসপাতালে কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার জন্য তারা বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও বাংলাদেশ সরকারের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রটোকল ও গাইডলাইন অনুসরণ করছেন।

তিনি বলেন, ‘হোমিওপ্যাথিক ডাক্তার সাহেব নন কোভিড জোনে বসছেন। কোভিড-১৯ রোগীদের কাছে তার যাওয়ার সুযোগ নেই। তাই করোনায় আক্রান্তরা তার ওষুধে কেউ সেরে উঠেছেন এটা বলা যাবে না। আর কেউ যদি নিজ উদ্যোগে তার ওষুধ নিয়েও থাকেন তাহলে তাতে তিনি কী ফল পেয়েছেন তাও আমরা জানি না।’

তবে আনুষ্ঠানিকভাবে কর্মকর্তাদের কাছ থেকে এমন বক্তব্য এলেও পুলিশ হাসপাতালেরই কয়েকজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন হোমিওপ্যাথিক ওষুধ বিভিন্নভাবে রোগীদের চাহিদা অনুযায়ী তাদের কাছে পাঠানো হচ্ছে।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশে ৪ কোটি তামাক ব্যবহারকারী করোনার ঝুঁকিতে

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-০২ ১৩:৪৩:৩৫

বাংলাদেশে প্রায় ৪ কোটি তামাক ব্যবহারকারী মারাত্মকভাবে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকিতে আছেন। আসন্ন বাজেটে তামাকপণ্যের দাম বাড়ানো হলে এর ব্যবহার কমবে এবং রাজস্ব আয় বাড়বে।

মঙ্গলবার (২ জুন) তামাকবিরোধী সংগঠন প্রজ্ঞা (প্রগতির জন্য জ্ঞান) এবং অ্যান্টি টোব্যাকো মিডিয়া এলায়েন্সের (আত্মা) যৌথ উদ্যোগে ‘কেমন তামাক কর চাই: বাজেট ২০২০-২১’ শীর্ষক ওয়েবিনারে উল্লিখিত কথাগুলো বলেন অর্থনীতিবিদরা।

অর্থনীতিবিদ এবং জাতীয় তামাকবিরোধী মঞ্চের আহ্বায়ক ড. কাজী খলীকুজ্জমান আহমদ বলেন, ‘করোনা আমাদের জন্য একটি সুযোগ তৈরি করেছে। আমরা এ সুযোগে কল্যাণের পথ বেছে নেব। এক্ষেত্রে আমাদের তামাক ব্যবহার বন্ধ করতে হবে এবং সার্বজনীন স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে গুরুত্ব দিতে হবে।’

সংসদ সদস্য সাবের হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘যদি এবারের বাজেটে তামাকপণ্যে করারোপের ক্ষেত্রে কোনো মৌলিক পরিবর্তন না আসে, এই বাড়তি ১১ হাজার কোটি টাকা রাজস্ব আয়ের সুযোগ আমরা হারাই, এত মৃত্যু, অসুস্থতা অব্যাহতই থেকে যায়, তাহলে আমি নৈতিকভাবে এই বাজেটকে সমর্থন করতে পারি না।’

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজের (বিআইডিএস) সিনিয়র রিসার্চ ফেলো অর্থনীতিবিদ ড. নাজনীন আহমেদ বলেন, ‘ধূমপান কমাতে সিগারেটের স্তর সংখ্যা কমানোর বিকল্প নেই। আসন্ন বাজেটে সিগারেটের বিদ্যমান চারটি মূল্যস্তর বিলুপ্ত করে দুটি নির্ধারণ করা দরকার। কারণ, একাধিক মূল্যস্তর এবং বিভিন্ন দামে সিগারেট ক্রয়ের সুযোগ থাকায় ভোক্তা স্তর পরিবর্তন করার সুযোগ পায়। ফলে তামাকের ব্যবহার হ্রাসে কর ও মূল্য পদক্ষেপ সঠিকভাবে কাজ করে না।’

বিড়ির ওপর কর না বাড়ানোর পক্ষে সংসদ সদস্যদের চিঠি দেওয়া দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেন অধ্যাপক ডা. হাবিবে মিল্লাত।

সভায় ২০২০-২১ অর্থবছরের জন্য তামাক কর বিষয়ে বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করা হয়। প্রস্তাবের মধ্যে রয়েছে-

সিগারেটের মূল্যস্তর সংখ্যা চারটি থেকে দুটিতে (নিম্ন এবং প্রিমিয়াম) নামিয়ে আনা, বিড়ির ফিল্টার ও নন-ফিল্টার মূল্য বিভাজন তুলে দেওয়া, ধোঁয়াবিহীন তামাকপণ্যের (জর্দা ও গুল) দাম বাড়ানো এবং সব তামাকপণ্যের খুচরা মূল্যের ওপর ৩ শতাংশ হারে সারচার্জ আরোপ করা।

আলোচকদের দাবি, তামাক-কর ও মূল্য বৃদ্ধির প্রস্তাব বাস্তবায়ন করা হলে সম্পূরক শুল্ক এবং ভ্যাট বাবদ প্রায় ১০ হাজার কোটি টাকা পর্যন্ত অতিরিক্ত রাজস্ব আয় হবে। এছাড়া, ৩ শতাংশ সারচার্জ থেকে প্রায় ১ হাজার কোটি টাকা বাড়তি রাজস্ব আয় সম্ভব হবে।

তামাকপণ‌্যের দাম বাড়ালে দীর্ঘমেয়াদে ৬ লাখ ধূমপায়ীর অকাল মৃত্যু রোধ করা সম্ভব হবে এবং প্রায় ২০ লাখ প্রাপ্তবয়স্ক ধূমপায়ী ধূমপান ছেড়ে দিতে উৎসাহিত হবে। একইসাথে করোনার মতো যেকোনো ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমবে।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

দেশে করোনায় মারা গেলেন আরও ৩৭ জন, নতুন আক্রান্ত ২৯১১

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-০২ ১৩:৩৬:৪৭

দেশে মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৩৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়ালো ৭০৯ জনে।

এ সময়ে নতুন করে আরও ২৯১১ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। এ নিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৫২ হাজার ৪৪৫ জনে।

মঙ্গলবার (২ জুন) মহাখালী থেকে নিয়মিত অনলাইন স্বাস্থ্য বুলেটিনে এ তথ্য জানিয়েছেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. নাসিমা সুলতানা।

ডা. নাসিমা সুলতানা বলেন, ‘গত ২৪ ঘণ্টায় ১৪ হাজার ৯৫০ জনের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ৫২টি ল‌্যাবে এ সময়ে ১২ হাজার ৭০৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত মোট পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ লাখ ৩৩ হাজার ৭৩ জনের। শনাক্তের হার ২২ দশমিক ৯১ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৫২৩ জন। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১১ হাজার ১২০ জন।’

তিনি জানান, নিহতদের মধ্যে ৩৩ জন পুরুষ, নারী ৪ জন। ১০ জন ঢাকা বিভাগের, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৫ জন, সিলেট বিভাগের চারজন, বরিশাল বিভাগের তিনজন, রাজশাহী ও রংপুর বিভাগে দুইজন করে এবং ময়মনসিংহ বিভাগের একজন গত ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন।

বয়সের তথ্য বিশ্লেষণ তুলে ধরে নাসিমা সুলতানা বলেন, ‘নিহতদের মধ‌্যে ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে চারজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে একজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১০ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে নয়জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ১০ জন এবং ৮১ থেকে ৯০ বছরের মধ্যে দুইজন রয়েছেন।  শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ২১ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৩৫ শতাংশ। হাসপাতালে মারা গেছেন ২৮ জন এবং বাসায় মারা গেছেন নয়জন।’

নাসিমা সুলতানা জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় আইসোলেশন নেওয়া হয়েছে ৩৮৮ জনকে। বর্তমানে আইসোলেশনে আছেন ৬ হাজার ২৪০ জন।

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/সিসি

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত