যুক্তরাষ্ট্রে আজ বৃহস্পতিবার, ১৮ Jul, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 08:27am

|   লন্ডন - 03:27am

|   নিউইয়র্ক - 10:27pm

  সর্বশেষ :

  তুরস্কে বাস খাদে পড়ে বাংলাদেশিসহ নিহত ১৭   তুরস্ক কেন আমেরিকার দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিচ্ছে   প্রসাদ খাইয়ে স্কুলে শিক্ষার্থীদের হরে কৃষ্ণ হরে রাম মন্ত্র পাঠ : যা বলল হাইকোর্ট   দেশে হত্যা-ধর্ষণের উৎসব চলছে : মির্জা ফখরুল   শুক্রবার লন্ডন যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী   মিন্নি আইনজীবী না পাওয়া নিয়ে শাহদীন মালিক যা বললেন   জি এম কাদের জাপার নতুন চেয়ারম্যান   ব্যাগে শিশুর কাটা মাথা নিয়ে পালানোর সময় ধরা, গণপিটুনিতে যুবক নিহত   রিফাত হত্যা: পাঁচ দিনের রিমান্ডে মিন্নি   এরশাদ শুধু ভাই ছিলেন না, আমার পিতা-শিক্ষকও ছিলেন : জিএম কাদের   ‘প্রেমের টানে’ লক্ষ্মীপুরে আমেরিকান নারী   মা-মেয়ের একসঙ্গে এইচএসসি পাস   ইরাকে বন্দুক হামলায় তুর্কি কূটনীতিক নিহত   সব অনুপ্রবেশকারীকে চিহ্নিত করে বিতাড়িত করা হবে : অমিত শাহ   মিন্নির পক্ষে কোনো আইনজীবী নেই!

>>  প্রবাসী কমিউনিটি এর সকল সংবাদ

সংক্ষিপ্ত সফরে লন্ডন ও ফান্সে সাংবাদিক জুয়েল সাদত

প্রবাসের নিউজের সম্পাদক ও বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের যুগ্ন বন ও পরিবেশ সম্পাদক এক সংক্ষিপ্ত সাংগঠনিক সফরে তিন সপ্তাহের জন্য লন্ডন ও ফান্স যাচেছন ।

জুয়েল সাদত লন্ডনে অবস্থান কালে আগামী ২২ জুলাই কানাইঘাট গাছবাড়ী ডেভলমেন্ট এসোসিয়েশন কতৃক সম্বর্ধনা সভায় উপস্থিত থাকবেন । ২৩ জুলাই প্রস্তাবিত বিশ্বনাথের ওয়ান পাউন্ড হসপিটালের ট্রাষ্টিদের বিশেষ সভায় যোগদান করবেন , ২৮ জুলাই লন্ডনে অনুষ্টিতত্ব গোলাপগঞ্জ উ্যসবে অথিতি হিসাবে উপস্থিত থাকবেন ।

তিনি জুলাইয়ের তৃতীয় সপ্তাহে লন্ডন বাংলা প্রেসক্লাব ও লন্ডনস্থ

বিস্তারিত খবর

সাংবাদিক গোলাম সাদত জুয়েল বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম বন ও পরিবেশ সম্পাদক মনোনীত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১৩ ১২:৩০:৩৭

প্রবাসের নি্উজের সম্পাদক সাংবাদিক কলামিষ্ট গোলাম সাদত জুয়েল কে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন বন ও পরিবেশ সম্পাদক হিসাবে মনোনিত করা হয়েছে । গত ৩০ জুন ২০১৯ কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক ড. জাফর ইকবাল, মোঃ সাইদুল আলম আকন প্রতিষ্টাতা ও সিনিয়র সহ সভাপতি ও ড. মোহাম্মদ ফারুক হোসেন সাংগঠনিক সম্পাদক কেন্দ্রীয় কমিটি এক স্বাক্ষরিত পত্রে তাকে কেন্দ্রীয় কমিটিতে অন্ত:ভুক্ত করে যুগ্ন বন ও পরিবেশ সম্পাদক হিসাবে দায়িত্ব প্রদান করেন ।

জুয়েল সাদত ছাত্র জীবন থেকেই ছাত্র রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন । ৯৩ সালে সাংবাদিকতা শুরুর সাথে সাথে তিনি জয়বাংলা সাংস্কৃতিক ঐক্যজোট ও বঙ্গবনন্ধু পরিষদের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন । ২০০৪ সাল থেকে সেন্ট্রাল ফ্লোরিডা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক  ও  ২০১৫ থেকে যুগ্ন সাধারন সম্পাদক হিসাবে যুক্ত আছেন । তিনি আওয়ামী লীগের সাইবার টিমের হয়ে কাজ করছেন দীর্ঘদিন থেকে । গত ৩০ ডিসেম্বর এর জাতীয় নির্বচনে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের প্রচার সেলের সাথে যুক্ত ছিলেন । তিনি প্রতি বছর শেখ হাসিনার জাতি সংঘের ভাষন দেবার জন্য যুক্তরাষ্ট্রে আগমন উপলক্ষে বিশেষ ক্রোড়পত্রের অন্যতম লেখক ।

বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সাম্প্রতিক কালে কিছু সামাজিক ও ধর্মিয় কাজে জড়িত, সেখানেও তিনি জড়িত । বর্তমানে হাজীদের মাঝে তথ্য সম্মৃদ্ব হজ্ব গাইড বিতরন চলছে। দেশের সেরা বুদ্ধিজীবিরা  বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন সংগঠনে সম্পৃক্ত। জুয়েল সাদতের প্রকাশিত গ্রন্থ ৬ টি । আগামী বই মেলা ২০২০ সালে তার আরও তিন টি বই প্রকাশের অপেক্ষায় । তিনি লন্ডন,কানাডা, দুবাই, সৌদিআরব, তাইওয়ান ভ্রমন করেছেন ।

বিস্তারিত খবর

ক্যালিফোর্নিয়ায় ঈদ পুনর্মিলনী মেলা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা রবিবার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১৩ ১২:১৮:০১

রবিবার (১৪ জুলাই) ক্যালিফোর্নিয়ায় এক ঈদ পুনর্মিলনী মেলা ও সাংস্কৃতিক সন্ধ্যা অনুষ্ঠিত হবে। Ehlers Event Center (8150 Knott Ave, Buena Park, CA)-এ আয়োজিত এই মেলায় থাকবে মুখরোচক খাবার, দেশি কাপড় ও পণ্যদ্রব্যের স্টল। এছাড়া থাকবে আকর্ষণীয় সাংস্কৃতিক পরিবেশনা।

বিকেল ৪টা থেকে রাত ১০ পর্যন্ত উক্ত অনুষ্ঠানে প্রবাসী বাংলাদেশীদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আয়োজক মোহাম্মদ রহমান (রিটন) ও সামিউর রহমান (হিরা)।

বিস্তারিত খবর

ফিলাডেলফিয়ায় তিন দিনব্যাপী মুনা কনভেনশন সম্পন্ন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১০ ১৪:২৪:০২

উৎসবমুখর পরিবেশে ‘ইসলাম দ্যা ব্যালেন্সড ওয়ে অব লাইফ’ শ্লোগান নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পেনসেলভেনিয়া অঙ্গরাজ্যের  কনভেনশন সেন্টারে অনুষ্ঠিত হলো মুনা’র তিনদিনব্যাপী কনভেনশন ২০১৯। এবারের মুসলিম উম্মাহ অফ নর্থ আমেরিকা (মুনার) ১১তম কনভেনশন ৫-৭ জুলাই যথাক্রমে শুক্র, শনি ও রোববার অনুষ্ঠিত হয়। এই মুনা কনভেনশন ঘিরে কনভেনশন সেন্টার মিনি বাংলাদেশে পরিণত হয়ছিল। কেননা, উত্তর আমেরিকার বিভিন্ন স্থান থেকে কনভেনশনে যোগদানকারী অধিকাংশরাই বাংলাদেশী অথবা বাংলাদেশী বংশদ্ভুত আমেরিকান।

"ইসলাম একটি ভারসাম্যপূর্ন জীবনব্যবস্থা" এ প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে নিয়ে আয়োজন করা হয়েছিল স্মরণকালের সর্ববৃহৎ এ কনভেনশন।

কনভেনশনে বক্তারা বলেন, শান্তিময় বিশ্ব প্রতিষ্ঠায় বিশ্ব মানবতার নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) সহ অন্যান্য নবীদের আদর্শ অনুস্মরণ করে আগে নিজেকে সত্যিকার মুসলমান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। নবী-রাসুলগণ তাঁদের আচার-আচরণ আর ব্যবহারের গুণেই ভিন্ন ধর্মীদের মন জয় করেছিলেন। তাঁদের সেই পথ অনুস্মরণ, অনুকরণ করেই বিশ্ববাসীর কাছে ইসলামকে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। বক্তারা বলেন, ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার মাঝে শান্তির ধর্ম ইসলামের দাওয়াত পৌছে দেয়াই মূলত: এই কনভেনশনের মূল লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য। তাই ইসলামের আদর্শ সবার কাছে পৌছে দেয়া আমাদের নৈতিক ও সামাজিক দায়িত্ব। বক্তরা বলেন, ইসলামকে মুসলমানদের মধ্যেই সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না। ইসলামের শান্তি বার্তা সবার মাঝে পৌঁছৈ দিতে হবে।

গত শুক্রবার (৫ জুলাই) দুপুরে জুম্মার নামাজ আদায়ের মধ্যদিয়ে মুনা কনভেনশন শুরু হয়। পেনসেলভেনিয়া কনভেনশন সেন্টারের মূল মঞ্চে বিকেলে আয়োজিত ব্যতিক্রমী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে শুরুতেই পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করেন ক্বারী মাওলানা জুনায়েদ,ক্বারী নজরুল ইসলাম ও  শেখ নাদি কিশক। এরপর স্বাগত বক্তব্য রাখেন কনভেনশন ২০১৯ কনভেনর আরমান চৌধুরী। এছাড়াও শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন আবু আহমদ নূরুজ্জামান, ওয়াহেদ হক, মোহাম্মদ আর করিম, আয়মান হামাস, ড. জাহিদ বুখারী, ডা. সায়িদ এম সায়েদ, নিহাদ আওয়াদ ও সিনেটর শেখ রহমান।
আসরের নামাজের পর বিষয় ভিক্তিক আলোচনায় অংশ নেন ডা. সায়িদ রহমান চৌধুরী, দুনিয়া সুয়েব, ইমাম সিরাজ ওয়াহাজ ও ওস্তাদ ওয়াহাজ তারিন। এদিকে বলরুমে অনুষ্ঠিত হয় ইয়্যুথ সেশন। এতে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন আকিব আজাদ, আবু সামিহা সিরাজুল ইসলাম, ইমাম হাসান আকবর ও ডা. ফারহান আজিজ।
মাগরিবের নামাজের পর মূল মঞ্চে ‘আল্লাহ আমার রব, এই রবই আমার সব’ শীর্ষক সেশনে বিষয় ভিত্তিক আলোচনায় অংশ ইমাম মাওলানা আব্দুর রহমান, মির্জা গালিব, আবুল বাশার ফয়জুল্লাহ, মাওলানা আবুল কালাম আজাদ বাশার ও ইমাম মাওলানা  আবু জাফর বেগ।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ থেকে আগত বিশিষ্ট ইসলামী সঙ্গীত শিল্পী সাইফুল্লাহ মানসুরের সঙ্গীত উপস্থিত দর্শক-শ্রোতাদের মুগ্ধ করে। প্রায় মধ্যরাত পর্যন্ত চলে প্রথম দিনের অনুষ্ঠান।
এদিকে মুনা কনভেনশন ঘিরে শুক্রবার সকাল থেকে দুপুরে নিউইয়র্ক ছাড়াও যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে হাজার হাজার মুসলিম নর-নারী সপরিবারে কনভেনশ সেন্টারে এসে মিলিত হন। এর আগে তার পূর্বে বুকিং করা হোটেলের কক্ষ কনফার্ম করেন। এরপর তারা কনভেনশনের রেজিষ্ট্রেশনও কনফার্ম করেন। অনেকে বিকেল ও সন্ধ্যায় এসে কনভেনশনে যোগ দেন। ফলে কনভেনশন সেন্টার ও আশপাশের এলাকা মিনি বাংলাদেশে পরিনত হয়।
নিউইয়র্কের জ্যামাইকা, জ্যাকসন হাইটস, ব্রুকলীন ডাউন টাউন, ওজনপার্ক, চার্চ মেকডানো,ব্রঙ্কস, ম্যানহাটন প্রভৃতি এলাকা থেকে একাধিক বাসযোগে হাজার হাজার বাংলাদেশী সপরিবারে এই কনভেনশনে যোগ দেন। আবার অনেকে ব্যক্তিগত গাড়ী যোগে ফিলাডেলফিয়া আগমন করেন। কনভেনশন আয়োজকদের ধারণা এবারের কনভেনশনে ১২ হাজারের মতো মুসলিম নর-নারীর সমাবেশ ঘটেছে।
অপরদিকে কনভেনশন সেন্টার ও এর আশপাশের এলাকা সরজমিনে ঘুরে দেখা গেছে এবারের কনভেনশনে নতুন প্রজন্মের বড় একটি অংশ নিচ্ছে। সামার ভ্যাকেশনের সুযোগে শিক্ষার্থীরা তাদের প্যারেন্টসদের সাথে এই কনভেনশনে অংশ নিয়েছেন। এছাড়াও কনভেনশনের আয়োজকদের প্রশংসা করেছেন অনেকেই। কনভেনশনের সবকিছুই টিপটম, পরিপাটি আর অর্গানাইজড দেখা যায়। লাইনে দাঁড়িয়ে রেজিষ্ট্রেশন করেছেন অংশগ্রহণকারীরা। তারপর যোগ দিয়েছেন মূল অনুষ্ঠানে। কনভেনশন সেন্টারে বিভিন্ন পণ্যের একাধিক স্টলও লক্ষ্য করা যায়।
তিন দিনের মুনা কনভেনশনের নানা কর্মকান্ডের মধ্যে ছিলো বিষয় ভিত্তিক আলোচনা, সেমিনার, ইয়্যুথ প্রোগ্রাম, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রভৃতি। রোববারও অনুরূপ কর্মসুচী রয়েছে। কনভেনশনে যুক্তরাষ্ট্র ছাড়াও বিদেশী ইসলামিক স্কলারগণ আলোচনায় অংশ নিয়েছেন।
দ্বিতীয় দিন: মুনা কনভেনশনে শুক্রবারের মতো শনিবারও (৬ জুলাই) নানা অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে দ্বিতীয় দিন অতিবাহিত হয়। এদিন ছিলো একাধিক বিষয় ভিত্তিক আলোচনা, শিশুদের বিশেষ আয়োজন, ইসলামিক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান প্রভৃতি।
শনিবার সকালে মূলমঞ্চে ‘ইসলাম : ফ্যামিলি ভ্যালুজ এন্ড রেসপন্সিবল প্যারেন্টিং’ শীর্ষক সেমিনারের মধ্য দিয়ে কনভেনশনের কর্মকান্ড শুরু হয়। এই পর্বে আলোচনায় অংশ নেন ইমাম আসিফ হিরানী, ডা. সুজি ইসমাইল ও ডা. ফারহান আজিজ।
একই সময়ে কনভেনশন সেন্টারের বলরুমে অনুষ্ঠিত হয় ইয়্যুথ সেশন। এই সেশনের আলোচনায় অংশ নেন মশিউর রহমান, হাফেজ জাকির আহমেদ, ওস্তাদ ওয়াহাজ তারিন ও ইমাম সিরাজ ওয়াহাজ। এছাড়াও অপর একটি কক্ষে ‘ভারসাম্যপূর্ণ মানবীয় জীবন : হাদিসের আলোকে’ শীর্ষক সেমিনারে অংশ নেন হাফেজ আব্দুল্লাহ আল আরিফ, প্রফেসর নজরুল ইসলাম, ড. রুহুল আমিন। শেষ ছিলো প্রশ্ন-উত্তর পর্ব।
এরপর মূল মঞ্চে ‘চিরদিন মোরা সব মানুষেরে আল্লাহর পথে ডাকবো’ প্রধান সেশনে আলোচনায় অংশ নেন মুনা নিউইয়র্ক জোন প্রেসিডেন্ট আহমদ আবু উবায়দা, ব্যারিষ্টার হামিদ হোসাইন আযাদ, আবুল কালাম অযাদ বাশার। এরপর অনুষ্ঠিত ‘মুসলিম উম্মাহ - এ জাস্টলি ব্যালেন্সড ন্যাশন’ শীর্ষক আলোচনায় অংশ নেন ইমাম হাসান আকবর, ইমাম জাহিদ শাকির, দুনিয়া শোয়েব ও ডা. আলতাফ হোসাইন। পরবর্তীতে অনুষ্ঠিত হয় প্যানেল ডিসকাশন। এই পর্বে অংশ নেন ওসামা জামাল, এটর্নী ষ্টেফেন দোয়ন্স, ডা. জাহিদ বুখারী ও এটর্নী ক্যাথি ম্যানলী।
পরবর্তীতে জোহরের নামাজের বিরতি আর মধ্যাহ্ন ভোজের বিরতির পর অপরাহ্ন আড়াইটার দিকে মূল মঞ্চে আয়োজিত মূল মঞ্চে প্রধান আলোচনায় অংশ নেন ইমাম আজাদ জামান, ইমাম আসিফ হাইরানী, সুলেইমান হানী ও জর্জিয়া ষ্টেট সিনেটর শেখ রহমান। একই সময়ে অপর একটি কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় ইয়্যুথ ব্রাদার্স সেশন। এতে আলোচনায় অংশ নেন তামজিদুল ইসলাম, মাজেদ মাহমুদ ও ইমাম শোয়েব ওয়েব। শেষে ছিলো প্রশ্ন-উত্তর। পাশাপাশি বলরুমে অনুষ্ঠিত হয় ইয়্যুথ সিস্টার্স সেশন। এতে আলোচনায় অংশ নেন রোকেয়া রহমান রিনা, সুজি ইসমাইল ও দুনিয়া শোয়েব। অপরদিকে আরেক কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় কোরআন কম্পিটিশন-২০১৯। 
শনিবার অপরাহ্নে মূল মঞ্চে আয়োজিত ‘হু ডু ইউ লাভ মোর?’ শীর্ষক মূল আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক ড. নকিবুর রহমান, মাজেদ মাহমুদ, সুলেইমান হানী এবং ওস্তাদ ওয়াহাজ তারিন।
বিকেলে বলরুমে অনুষ্ঠিত ‘ব্যালেন্সিং ফিজিক্যাল, মেন্টাল এন্ড স্পীরিচুয়াল হেলথ’ শীর্ষক ইয়্যুথ সেশনে আলোচনা অংশ নেন ড. ফারহান আজিজ, সুলেইমান হানী এবং ওস্তাদ ওয়াহাজ তারিন। একই সময়ে অপর একটি কক্ষে অনুষ্ঠিত হয় ‘ফ্যামিলি এন্ড মেন্টাল হেলথ’ শীর্ষক ওয়ার্কশপ। এতে আলোচনায় অংশ নেন মামুন আল আজিম ও দুনিয়া শোয়েব। শেষে ছিলো প্রশ্ন-উত্তর। 
পরবর্তীতে মূল মঞ্চে ‘প্রধান সেশন : পরকালীন সাফল্যের গুণাবলী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়। এই পর্বের শুরুতে ইসলামী সঙ্গীত পরিবেশন করেন আনিসুর রহমান। এরপর মূল আলোনায় অংশ নেন হাফেজ আব্দুল্লাহ আল আরিফ, ব্যারিস্টার হামিদ হোসাইন আযাদ এবং ড. মাওলানা আবুল কালাম আযাদ বাশার। আলোচনায় বক্তারা পবিত্র আল কোরআনের আলোকে জীবনকে পরিচালনার মাধ্যমে পরকালীন সাফল্য অর্জনের পথ প্রশস্ত করার উপর গুরুত্বারোপ করেন। এক্ষেত্রে নবী-রাসুল (সা.)-দের আদর্শ অনুস্মরণের  আহ্বান জানান।
একই সময়ে বলরুমে অনুষ্ঠিত হয় ইয়াং সেশন। এতে আলোচনায় অংশ নেন মাজেদ মাহমুদ, সুলেইমান হানি ও ইমাম ওমর সুলেইমান।
আসরের নামাজের পর মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় কী নোট সেশন। এই পর্বের আলোচনায় অংশ নেন ইমাম সুয়েব ওয়েব, ইমাম সিরাজ ওয়াহাজ, ইমাম দেলোয়ার হোসাইন, ইমাম জাইদ শাকির ও ইমাম ওমর সুলাইমান।
এছাড়াও শনিবারের অন্যান্য কর্মকান্ডের মধ্যে ছিলো প্যারালাল সেশন ফর মস্ক, প্যারালাল অ্যারাবিক সেশন, ইয়্যুথ ডিবেট কম্পিটেশন, শিশু-কিশোর-কিশোরীদের বিশেষ অনুষ্ঠান প্রভৃতি। এদিন মুনা’র ফান্ড রেইজ করা হয়।
মূল মঞ্চে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শনিবারের কর্মসূচী শেষ হয়।
সাংবাদিকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময়: এদিকে শনিবারের কর্মসূচী শেষে মুনা ও কনভেনশন কমিটির নেতৃবৃন্দ রাত ১১টার সাংবাদিকদের সাথে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন। এসময় কনভেনশন নিয়ে সংক্ষিপ্ত বক্তব্য রাখেন হাফেজ আব্দুল্লাহ আল আরিফ। এরপর মুনা’র ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট ইমাম দেলোয়ার হোসাইন ও কনভেনশনের কনভেনর আরমান চৌধুরী কনভেনশনে যোগদানকারী সাংবাদিকদের শুভেচ্ছা জানান। এসময় নিউইয়র্ক সহ বিভিন্ন অঙ্গরাজ্য থেকে আসা প্রায় কুড়ি সাংবাদিক সহ মুনা’র মিডিয়া বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। 
তৃতীয় ও শেষ দিন: মুনা কনভেনশন-এর তৃতীয় ও শেষ দিন রোববারের (৭ জুলাই) কর্মসূচীর মধ্যে ছিলো বিষয় ভিত্তিক আলোচনা, ইয়্যুথ সেশন আর সমাপনী অনুষ্ঠান। এদিন সকালে মূল মঞ্চে আয়োজিত সেমিনারে বক্তব্য রাখেন মির্জা গালিব, ইমাম হাসান আকবর, আবু এ নুরুজ্জামান ও ইমাম আসিফ হারিনী। একই সময়ে বলরুমে অনুষ্ঠিত ইয়্যুথ সেশনের আলোচনায় অংশ নেন ডা. আলতাফ হোসাইন, ইমাম সিরাজ ওয়াহাজ, ওস্তাদ ওয়াজ  ছিলো প্রশ্ন-উত্তর। এদিন মূল মঞ্চে মুনা’র ফান্ড রেইজ করা হয়। এতে বিপুল সাড়া পাওয়া যায়। 
সবশেষে ছিলো সমাপনী অনুষ্ঠান। বেলা সাড়ে ১১টা থেকে অপরাহ্ন একটা পর্যন্ত অনুষ্ঠিত এই পর্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ডা. ফারহান আজিজ, আবুল বাসার ফায়জুল্লাহ , ওস্তাদ ওয়াহাজ তারিন ও ওসামা জামাল। এই পর্বে ধন্যবাদ সূচক বক্তব্য রাখেন মুনা’র ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট ইমাম দেলোয়ার হোসাইন।
রোববার জোহরের নামাজের পর মুনা কনভেনশনে যোগদানকারীরা বাসা-বাড়ীর উদ্দেশ্যে ফিলাডেলফিয়া ত্যাগ করেন। যারা বাসে এসেছেন তারা বাসে আবার যারা নিজস্ব গাড়ীতে এসেছেন তারা গাড়ীতে ফিরাডেলফিয়া ত্যাগ করেন। এর আগে সংশ্লিষ্টরা হোটেল ত্যাগ করেন। ফলে মহুর্তেই রোববারের ফিলাডেলফিয়া ঐতিহাসিক পেনসেলভেনিয়া কনভেনশন সেন্টার নিরবতার চাদরে  আচ্ছন্ন হয়ে পড়ে।
সভাপতির বক্তব্যে মুনার ন্যাশনাল প্রেসিডেন্ট মাওলানা দেলোয়ার হোসাইন বলেন,
মুনা আমেরিকার একটি দাওয়াতি ও সামাজিক সংগঠন। মানুষের ব্যক্তিগত, নৈতিক ও সামাজিক মানোন্নয়নের জন্য সার্বিক প্রচেষ্টা চালানোর মাধ্যমে আল্লাহর সন্তুষ্টি তালাশের নিমিত্তে প্রতিষ্ঠিত হয় মুনা। এই সংগঠনটি ১৯৯০ সালে নিউইয়র্ক অঙ্গরাজ্যে কর্পোরেশন-ভুক্ত করা হয়। বর্তমানে মুনা আমেরিকার ৩০ এর অধিক রাজ্যে কর্মতৎপরতা পরিচালনা করছে। মুসলিমদেরকে প্রাত্যহিক, সামাজিক ও ধর্মীয় কর্মকান্ড এবং জাতীয় নাগরিক জীবনে ভূমিকা পালনের নিমিত্তে সংগঠিত করতে ঐকান্তিক প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, যাতে করে এই সমস্ত ব্যক্তিবর্গ আল্লাহ এবং তাঁর রাসুল হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর অনুসরণের মাধ্যমে ও মানবতার সেবা করে যেতে পারে সূচারুরূপে।
মুসলিম ভাইবোন এবং কমিউনিটির নেতৃবৃন্দের সার্বিক সহযোগিতায়, সর্বোপরি মহান আল্লাহর অশেষ রহমতে মুনা বাস্তবায়ন করতে সক্ষম হয়েছে মুনা কনভেনশন-২০১৯। ৩ দিন ব্যাপী ঐ কনভেনশন বাংলাদেশী কমিউনিটি সহ আমেরিকান ও আমেরিকান মুসলিম কমিউনিটির মাঝে ব্যক্তি ও সমাজ গঠনে প্রশংসনীয় উদ্যোগ হিসেবে বিবেচিত হবে বলে প্রত্যাশা করছি। আমরা মুনা ন্যাশনাল সংগঠনের পক্ষ থেকে গোটা বাংলাদেশী কমিউনিটিসহ সবাইকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করছি। জানাচ্ছি সবাইকে মোবারকবাদ, আন্তরিক ভালবাসা।

বিস্তারিত খবর

শনি ও রবিবার লস এঞ্জেলেসে ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৫ ১৫:৩৭:৪৫

আগামী শনি ও রবিবার (৬-৭ জুলাই) লস এঞ্জেলেসে অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঐতিহ্যবাহী বৈশাখী মেলা। বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে প্রতি বারের ন্যায় এবারও মেলাটি অনুষ্ঠিত স্থানীয় ভার্জিল মিডল স্কুলে। এবার মেলার আয়োজক হচ্ছে ‘বাংলাদেশী আমেরিকান সোসাইটি (BAS-বাস)'।

মেলায় থাকবে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী বিভিন্ন পণ্য দ্রব্য ও খাবারের স্টল, আবহমান বাংলার বিভিন্ন জিনিসের প্রদর্শনী, খেলাধুলা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গান পরিবেশন করবেন বাংলাদেশ থেকে আগত লাল সম্রাজ্ঞী খ্যাত ফরিদা পারভিন, জনপ্রিয় ব্যান্ড মাইলস্ এবং স্থানীয় শিল্পীরা।

ঐতিহ্যবাহী এই মেলায় সবাইকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন আয়োজকরা।

বিস্তারিত খবর

প্রবাসের নিউজ সম্পাদক জুয়েল সাদতের পাবলিক সার্ভিস কমিউনিটি এওয়ার্ড লাভ

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৩ ০৪:০৯:০০

সেন্ট্রাল ফ্লোরিডায় বসবাস রত প্রবাসীদের অন্যতম মুখপা্ত্র প্রবাসের নিউজের সম্পাদক ও প্রথম আলো উত্তর আমেরিকার বিশেষ প্রতিনিধি সাংবাদিক ও কমিউনিটি একটিভিষ্ট জুয়েল সাদত ২৯ জুন বাংলাদেশ সমিতি অব সেন্ট্রাল ফ্লোরিডা কতৃক পাবলিক সার্ভিস কমিউনিটি এওয়ার্ড লাভ করেছেন । দীর্ঘ ১৮ বছর থেকে নিরলস ভাবে কমিউনিটিতে বিশেষ সেবা প্রদান করায় বাংলাদেশ সমিতি তাকে মনোনিত করেন , তাকে  বিশেষ সম্মামনা  ক্রেষ্ট তুলে দেন স্থানীয় সেনফোড শহরের মেয়র জেফ ট্রিমপ্লেড ও বাংলাদেশ সমিতির নেতৃবৃন্দ । জুয়েল সাদত সাংবাদিকতায় জড়িত ২৫ বছর যাবত, তিনি কমিউনিটির সেবায় নিবেদিত প্রান । তিনি একজন কলামিস্ট ও্ কবি হিসাবে সুপরিচিত । তার প্রকাশিত গ্রন্থ ৬ টি ও একটি কবিতার সিডি  । প্রকাশের অপেক্ষায় রয়েছে তিনটি বই , যা ২০২০ বই মেলায় প্রকাশিত হবে । তিনি এ পর্যন্ত দেশে বিদেশের অস্ংখ্য সাময়িকীতে তার দুহাজারের ও বেশী লেখা ছাপা হয়েছে ।

তিনি দেশে বিদেশের অসংখ্য প্রতিষ্টানের সাথে জড়িত । তিনি বঙ্গবন্ধু গবেষনা সংসদের আন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক, তিনি প্রবাসীদের অন্যতম চ্যারিটি বাংলাদেশ গ্রীন ক্রিসিন্ট সোসাইটির গভর্নর, তিনি বৃটিশ চারিটি প্রতিষ্টান ওয়ান পাউন্ড হসপিটালের অন্যতম ট্রাষ্টি ও সাদত ফাউন্ডেশনের সিইও । তিনি জাতীয় দৈনিক রাজনীতির উপদেষ্টা সম্পাদক হিসাবে ও জড়িত । তিনি সাদত ফাউন্ডেশনের মাধ্যমে সিলেট , ব্রাম্মনবাড়িয়া , মানিকগঞ্জ ও নেত্রকোনায় বেশ কিছু প্রতিষ্টান তৈরী করেছেন । জুয়েল সাদতের জন্ম ২ রা নভেম্বর ১৯৭২ সালে সিলেট শহরের মালনীছড়া চা বাগানে পিতার কর্মস্থলে । জুয়েল সাদতের পিতা ছিলেন ট্রি প্লান্টার । তিনি ২০০১ সালে আমেরিকা আসার আগে বাংলাদেশ সরকারের আনসার ভিডিপির বিভাগীয় গন সংযোগ সহকারী কর্মকর্তা হিসাবে সরকারী চাকুরীতে জড়িত ছিলেন । তিনি ছিলেন আনসার ভিডিপির গনসংযোগ শাখার সিলেট বিভাগের দায়িত্বে । তিনি প্রথম আলো, ভোরের কাগজ, সাপ্তাহিক বিচিত্রা, ইউ এন বি তে ও জড়িত ছিলেন । তিনি আমেরিকার সবচেয়ে জনপ্রিয় সাপ্তাহিক পত্রিকা ঠিকানার  সাথে জড়িত অছেন প্রায়  ২৩ বছর । ব্যাক্তিগত জীবনে বিবাহিত জুয়েল সাদত স্ত্রী মাহফুজা সাদত, দু পুত্র ওয়াসী সাদত ,ওয়াফিক সাদত, দু মেয়ে ওয়াদিয়া সাদত ও আয়েশা সাদত কে নিয়ে সেন্ট্রাল ফ্লোরিডার কিসিমিতে বসবাস করেন । তিনি ২০১২, ২০১৭,২০১৮ ও ২০১৯ গত চার বছর থেকে উত্তর আমেরিকার সবচেয়ে প্রতিনিধিত্বশীল সংগঠন ফোবানার সাথে জড়িত । তিনি ২০১৯ সালের ফোবানার গুড ইউল ও প্রমোশন কমিটির দায়িত্ব পালন করছেন । তিনি ইতোমধ্যেই দেশ বিদেশের বিভিন্ন সংগঠন প্রদত্ত নানান সম্মানে স্বীকৃতিপ্রাপ্ত । তিনি দুবাই, সৌদিআরব, লন্ডন, কানাডা, ভারত, তাইওয়ান ভ্রমন করেছেন ।

বিস্তারিত খবর

দুবাইয়ে ভারতীয় কোম্পানিতে না খেয়ে মরছেন ১৬৮ বাংলাদেশি

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০১ ১০:৫৫:৪২

সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ের একটি কারখানায় কয়েক মাস ধরে বেতন না পেয়ে অর্থ ও খাদ্যাভাবে ভুগছেন ১৬৮ বাংলাদেশি শ্রমিক। ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ায় তাদের অনেকেই অবৈধ হয়ে পড়েছেন, যে কারণে অন্য কোনো কোম্পানিতে যোগদান বা দেশেও ফিরতে পারছেন না তারা। খবর খালিজ টাইমসের।

এসব বাংলাদেশি শ্রমিকের এমন করুণ অবস্থার কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ কনস্যুলেটের প্রথম সচিব (শ্রম) ফকির মুহাম্মদ মনোয়ার। তিনি এক গণমাধ্যমকে জানান, দুবাইয়ে একটি ‘ভারতীয় নির্মাণ কোম্পানিতে’ বিভিন্ন দেশের প্রায় ৩০০ শ্রমিক অর্থ ও খাদ্যহীন অবস্থায় আটকে রয়েছেন। তাদের মধ্যে ১৬৮ বাংলাদেশি।

ওই কোম্পানির পক্ষ থেকে তাদের ভিসা নবায়নের কোনো পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে না বলেও জানান তিনি। এমন পরিস্থিতিতে দূতাবাসের পক্ষ থেকে ভুক্তভোগী বাংলাদেশিদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা হচ্ছে বলে জানান ফকির মুহাম্মদ মনোয়ার।

ওই ভারতীয় কোম্পানির বিষয়ে মি. মনোয়ার তথ্য দেন, সম্প্রতি ভারতীয় নির্মাণ কোম্পানিটি’ দেউলিয়া হয়ে যায়। এ কারণে সে কোম্পানির শ্রমিকদের অনেকেই গত ছয় মাস বা আরও বেশি সময় ধরে বেতন পাচ্ছেন না।

এ বিষয়ে গত ২৮ জুন দেশটির জনপ্রিয় দৈনিক খালিজ টাইমসে প্রকাশিত সংবাদ থেকে জানা গেছে, ওই ভারতীয় কোম্পানিতে আটকেপড়া এসব শ্রমিকের বেশিরভাগের বেতন ৭০০ থেকে দেড় হাজার দিরহাম, যা বাংলাদেশি মুদ্রায় ১৬ থেকে সাড়ে ৩৪ হাজার টাকা, তা নিয়মিত পরিশোধ করতে পারছে না কোম্পানিটি।

প্রবাসে নিজেদের এমন কঠিনতর জীবনযাপন প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমটিতে এক শ্রমিক জানান, দেশে টাকা পাঠানো তো দূরের কথা, আমাদের কাছে কোনো দিরহাম নেই যে নিজেরা খাবার কিনে খাব। আমাদের ভিসার মেয়াদও শেষ এবং পাসপোর্টও নিয়োগকারীর কাছে। ফলে অন্য কোথাও কাজ করারও সুযোগ হারিয়েছি আমরা।’

অন্য আরেক শ্রমিক খালিজ টাইমসকে বলেন, খুবই কষ্টে আছি। পথচারী বা আশপাশের দোকান থেকে খাবার চেয়ে খাচ্ছি। বলতে পারেন প্রবাসে এসে ভিক্ষা করছি। আরেকজন বলেন, আমরা শক্ত-সমর্থ ও কর্মঠ হয়ে কেন ভিক্ষা করব। আমরা সম্মানের সঙ্গে আয় করতে চাই। নিজেদের এবং আমাদের পরিবারের আর্থিক নিশ্চয়তা দিতে এখানে এসেছিলাম। ভিক্ষা করতে বা অবৈধ অভিবাসী হতে নয়।

কোম্পানি তাদের ভিসা নবায়ন না করার কারণেই এমন পরিস্থিতিতে পড়েছেন বলে অভিযোগ করেন তিনি। এমন পরিস্থিতিতে একটি সমাধান চান ওই শ্রমিক। আর দ্রুত সমাধান না হলে বা বকেয়া পরিশোধ না করলে ওই কোম্পানিতে নিয়োগকারীর বিরুদ্ধে মামলা করার কথা শ্রমিকরা ভাবছেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ কনস্যুলেটের মি. মনোয়ার বলেন, আটকেপড়া ওসব শ্রমিককে আইনি সহায়তা ও খাদ্য দেয়া হচ্ছে। তবে এতে যে সমাধান মিলছে তা সাময়িক ও অপ্রতুল বলে জানান তিনি। তিনি বলেন, স্থানীয় আইনে এ সমস্যার সমাধান বেশ জটিল। যদি শ্রমিকরা দাবি ছেড়ে দেন, তা হলে জামানতের অর্থ নিয়ে ফিরে যেতে পারবেন।

তিনি যোগ করেন, পুরো প্রক্রিয়ায় প্রায় সাত মাস লাগতে পারে। তারপরও কেউ মামলা করতে আগ্রহী হলে আমরা সহযোগিতা করব। কেউ ফিরে যেতে চাইলেও তাদের জন্য সে সুযোগ রয়েছে।


বিস্তারিত খবর

ওয়াশিংটনে জ্ঞানবাহন শীর্ষক প্রশ্ন ও জিজ্ঞাসা বিষয়ক সভা অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-২৮ ১২:৫৪:২১

ওয়াশিংটন ডিসির ভার্জিনিয়ায় ‘জ্ঞানবাহন’ শীর্ষক প্রশ্ন ও জিজ্ঞাসা নামে মতবিনিময় এক সভা হয়েছে। গত ২৪ জুন রবিবার সন্ধায় জ্ঞানবাহন এর প্রতিষ্ঠাতা ড. বদরুল হুদা খান এর নিজ বাসভবন ভার্জিনিয়ায় খান বাগানে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশে সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদুত হ্যারী কে টমাস সহ কমিউনিটির গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

প্রশ্ন-জিজ্ঞাসা অনুষ্ঠানে ই-লার্নিং বিশেষজ্ঞ এবং শিক্ষাবিদ ডক্টর বদরুল হুদা খান ও জ্ঞানবাহন এর এডুকেশনাল কোওর্ডিনেটর আমেনা শাহিন উপস্থিত দর্শকদের বিভিন্ন প্রশ্নের উত্তর দেন। প্রশ্ন উত্তর শেষে সবাইকে রাতের খাবার পরিবেশন করানো হয়।
জ্ঞানবাহন হচ্ছে সাধারণ বহন মতোই, তবে এই বাহনে যাতায়াত করতে করতে শেখাও যায়। এসব গাড়িতে যুক্ত আছে আধুনিক শিক্ষা গ্রহণের প্রয়োজনীয় উপকরণ। রয়েছে কম্পিউটার, প্রজেক্টর, ওয়েবক্যাম, সাউন্ড সিস্টেম। বাহনটির ভেতরটাকে অনেকটি ঘরের কাঠামো দেওয়া হয়েছে। শেখানো হয় শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কৃষি, হাতের কাজ, সাধারণ আইনসহ জীবনঘনিষ্ঠ বিভিন্ন বিষয়। প্রত্যন্ত অঞ্চলের মানুষের কাছে ন্যূনতম শিক্ষা পৌঁছে দেওয়ার এই পদ্ধতি আবিষ্কার করেছেন ড. বদরুল হুদা খান।
লেখক এবং সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদুত হ্যারী কে টমাস।

জ্ঞানবাহন নিয়ে মানুষের প্রশ্নের কৌতুহল মেটাতে আয়োজিত সভায় প্রশ্নের জবাব দেন জ্ঞান বাহনের প্রতিষ্ঠাতা বদরুল হুদা। তিনি জ্ঞানবাহন সম্পর্কে বলেন, জ্ঞান বাহনের একজন ড্রাইভার থাকবে একজন শিক্ষিত ব্যক্তি। সে যেখানে যাবে মানুষের মাঝে জ্ঞান বিতরণ করবে।

তিনি বলেন, জ্ঞানবাহনের ড্রাইভারকে নানাধরণের ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা হবে। তাদেরকে আনলাইনের ভিত্তিক বিভিন্ন বিষয়ও শিক্ষা প্রদান করা হবে। তবে শিক্ষাই পাশাপাশি চা-আড্ডার ব্যবস্থাও থাকবে জ্ঞান বাহনে।
বিশিষ্ট এই শিক্ষাবিদ বলেন, জ্ঞানবাহনে গ্রামের মতো একটা পরিবেশ বিরাজ করবে। তবে তার ভিতরেই মানুষকে বিভিন্ন বিষয়ে শিক্ষা দেয়া হবে। জ্ঞান বাহরে সকল ধরণের তথ্য থাকবে, সেখান থেকে শিখতে পারবে মানুষ। 

এসময় তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, একটি টিভি চ্যানেলে সারা বিশ্বে প্রতিনিধি দেয়া সম্ভব না। কিন্তু আমি আশাবাদী এই ‘জ্ঞান বাহন’ সারাবিশ্বে প্রতিটি কোনায় কোনায় এর জ্ঞান বাহক পৌঁছে যাবে।
অনুষ্ঠানে অতিথির বক্তব্য বাংলাদেশে নিযুক্ত সাবেক মার্কিন রাষ্ট্রদুত হ্যারীকে টমাস বলেন, বাংলাদেশের মানুষ অনেক আন্তরিক ও হেল্পফুল। দেশটি আগের থেকে শিক্ষা-স্বাস্থ্যসহ সবক্ষেত্রে খুব দ্রুতই এগিয়ে যাচ্ছে। আমি বাংলাদেশকে কখনো ভুলতে পারবো না। এসময় তিনি ড. বদরুল হুদার জ্ঞান বাহনের উদ্যোগকে স্বাগত জানান।
জ্ঞান বাহনের প্রশংসা করে সৈয়দ মাহমুদুল হক বলেন, জ্ঞান বাহনটি হচ্ছে আমার কাছে মনে হয় সচেতনতার এক ম্যাসেজ। এটা সামাজিক আন্দোলনও বটে। তিনি এসময় পরামর্শ দিয়ে বলেন, যে সমস্ত গ্রামের জ্ঞান বাহন যাচ্ছে, সেখানে পুথিগত বিদ্যার বাহিরে মানুষকে শিখাতে হবে। সবমিলিয়ে জ্ঞান বাহন এগিয়ে যাক সেই প্রত্যাশাই রইলো।
অনুষ্ঠান সঞ্চলনায় ছিলেন, বাংলাদেশ বেতার, চট্টগ্রাম কেন্দ্রের প্রাক্তন প্রধান প্রযোজক এ.কে.ম আসাদুজ্জামান, এনটিভির সিনিয়র নিউজ প্রেজেন্টার মুমতাহিনা রিতু ও ভয়েস অফ আমেরিকায় কর্মরত সাবরিনা চৌধুরী ডোনা।
প্রশ্ন উত্তর পর্বে মাঝে মাঝে গান গেয়ে অনুষ্ঠানকে বিনোদনময় করে রাখেন বদরুল হুদার সহধর্মীনি ড. সিমাখান।

বিস্তারিত খবর

ড. প্রদীপ রঞ্জন ইউএস আওয়ামীলীগের সম্মেলন প্রস্তুতি পরিষদের আহবায়ক নির্বাচিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-২৮ ১২:৪৫:৫৯

আগামী সেপ্টেম্বরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর  জননেএী শেখ হাসিনা  জাতিসংঘের সাধারন অধিবেশনে যোগদানের উদ্দেশ্যে  নিউইয়ক এলে ইউএস আওয়ীলীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সেই সম্মেলনকে সার্বিক সফল করে তোলার উদেশ্যে  ২৬ জুন জ্যাকসন হাইটসে ইউএস আওয়ামীলীগ ও আওয়ামীলীগ পরিবারের এক যৌথ সাধারন সভায় সর্বসন্মতিক্রমে ড. প্রদীপ রঞ্জন করকে সম্মেলন প্রস্তুতি পরিষদের আহবায়ক নির্বাচন করা হয়েছে।
ড. প্রদীপ রঞ্জন কর আসন্ন ইউএস আওয়ামীলীগের সম্মেলন সফল করে তোলার জন্য সকল মহলের সহযোগিতা কামনা করেছেন।

বিস্তারিত খবর

টেক্সাসে মুসলিম নারীর উপর হামলার টুইট ভাইরাল

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-২০ ১৪:৫৯:৪৩

যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস শহরের স্টারবার্কস নামে একটি কফি শপে হিজাব পড়ে যাওয়ায় এক নারী হামলা করেছে বলে একটি টুইট করেছেন নুর আশোর নামে এক মুসলিম নারী।এমন টুইটের পর এটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়। এরপরই মুসলিম সমাজকর্মীরা ও বিভিন্ন ইসলামি সংগঠন এ নিয়ে তদন্ত করার দাবি জানিয়েছে।

নুর আশোর বলেন, ওই নারী অকথ্য এবং শারীরিকভাবে হামলা চালিয়েছে। এ সময় কেউ সাহায্যের জন্য এগিয়ে আসেনি।
এক টুইট বার্তায় তিনি বলেন, আজ আমি হিজাব পড়ায় টেক্সাসে নারীর দ্বারা নিগৃহীত হয়েছি। স্টারবাকর্সে এটি দুঃখজনক ঘটনা। একজন দোকানকর্মী বা ক্রেতা তার উদ্দেশে একটি শব্দও উচ্চারন করেনি। সে আমার মুখে কিছু ছুড়ে মারে এবং বলে ভয়ঙ্কর জিনিস। আমি নিশ্চিত করছি তার কর্মকাণ্ড ভিন্ন ছিল।

আশোয়ার বলেন, ধারাবাহিক টুইটে এটি ভাইরাল হয়েছে। এতে ২ লাখ লাইক ও ৬০ হাজার কমেন্ট পড়েছে।

আশোয়ার উল্লেখ করেন হামলার সময় তার সঙ্গে তিন বছরের শিশু ও ৮ মাসের একটি সন্তান ছিল। তিনি দৌঁড়ে নিরাপত্তাকর্মীর কাছে যান। কিন্তু আশোয়ার বিরুদ্ধে নিরাপত্তাকর্মীর কাছে হামলাকারী নারী আগেই বলেন, আমি জানি না তার সমস্যা কী? সে কিছু জিনিস আমার মুখে ছুঁড়ে মেরেছে।

আশোর অন্য একটি নারীকে ডেকে বললেন- সে একজন ‘মিথ্যাবাদী’ এবং তিনি ভয় পেয়ে কেঁদে ফেলেন।

এক বিবৃতিতে কাউন্সিল অব আমেরিকা ইসলামিক রিলেশনসের প্রধান একরাম হক বলেন, যুক্তরাষ্ট্রে ঘৃণিত অপরাধ (হেট ক্রাইম) বেড়ে চলছে।

এর আগে এ বছরের শুরুতে অন্য একজন নারী ডালাসে হামলার শিকার হয়েছেন। এর কারণ ছিল তিনি একজন মুসলিম।

বিস্তারিত খবর

যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের সবাইকে খুন করে ভারতীয় প্রবাসীর আত্মহত্যা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-২০ ১১:০৮:০০

যুক্তরাষ্ট্রে পরিবারের সবাইকে খুন করে আত্মহত্যা করেছেন ৪৪ বছর বয়সী এক ভারতীয় প্রবাসী। ওই ভারতীয় তথ্য-প্রযুক্তি কর্মী নিজের স্ত্রী ও দুই ছেলেকে খুন করে নিজে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন।

ওয়েস্ট দেস মইনসের পুলিশ বিভাগ জানিয়েছে, রোববার ময়না তদন্তের রিপোর্ট হাতে পাওয়ার পর এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, ভারতীয় ওই ব্যক্তি তার স্ত্রী ও দুই ছেলেকে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করেছেন।

শনিবার সকালে চন্দ্রশেখর সুনকারা, লাবণ্য সুনকারা, তাদের ১৫ ও ১০ বছর বয়সী দুই ছেলের গুলিবিদ্ধ মরদেহ পাওয়া গেছে। পুলিশ জানিয়েছে, ওই বাড়িতে তাদের আরও চারজন আত্মীয় ছিলেন। তাদের মধ্যে দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক এবং দু’জন শিশু।

চন্দ্রশেখর ও বাকিদের মরদেহ দেখার পর ওই আত্মীয়দের একজন ছুটে বাইরে বেরিয়ে যান। তিনি একজন পথচারীকে বিষয়টি সম্পর্কে জানান। ওই ব্যক্তি ৯১১ তে ফোন করেন।

পুলিশের এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, মৃতদেহ দেখেই বোঝা গেছে যে, লাবণ্য সুনকারা ও তার দুই ছেলেকে খুন করা হয়েছে। চন্দ্রশেখর সুনকারার মৃত্যুর ভঙ্গি থেকে পরিষ্কার যে, তিনি আত্মহত্যা করেছেন।

চিকিৎসকরা নিশ্চিত করেছেন যে, ওই পরিবারের চারজনেরই মৃত্যু হয়েছে গুলিবিদ্ধ হয়ে। ওয়েস্ট দেস মইনস পুলিশ বিভাগের কর্মকর্তারা শনিবার সকালে ৬৫ নম্বর স্ট্রিটের ৯০০ ব্লকে পৌঁছান। সেখান থেকেই ওই চারজনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ওই বিভাগের সার্জেন্ট ড্যান ওয়েড এক বিবৃতিতে বলেন, এই মর্মান্তিক ঘটনায় পরিবার, বন্ধু, সহকর্মী যারাই এই পরিবারকের জানতেন তাদের মধ্যে বেশ প্রভাব পড়বে।

বিস্তারিত খবর

ভার্জিনিয়ায় বাইটপোর বার্ষিক পিকনিক ও ফাদার’স ডে অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-১৯ ১৪:২৮:৫৫

গত ১৬ ই জুন রবিবার উডব্রীজ ভার্জিনিয়ার লিসিভানিয়া পার্কে বাংলাদেশি আমেরিকান ইনফরমেশন টেকনোলজি প্রফেশনালস্ অরগানাইজেশন (বাইটপো) র আয়োজনে ফাদারস্ ডে ও বার্ষিক পিকনিক-২০১৯ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সারাদিনব্যাপি সবুজ শ্যামল ঘেরা পার্ক প্রবাসী বাংলাদেশিদের পদচারনায় মুখরিত ছিল। সকালের নাস্তা থেকে শুরু করে, বারবিকিউ , ফলমুল, গরু ও খাশির মাংশ, চিংড়ী লাউ, সালাদ এমনকি পায়েশ রসমালাই আর পান সুপারি মিলিয়ে মুখরোচক খাবারে পরিপূর্ণ ছিল সারাদিন। বাচ্চাদের ও মহিলাদের খেলাধুলা , বাবা দিবসে বাবাদের সম্মাননা সহ গানে গানে মুখরিত ছিল অনুষ্ঠান প্রাঙ্গন । সকাল থেকেই শত শত প্রবাসী বাঙালীরা পিকনিক প্রাঙ্গনে আসতে থাকেন , এ যেন প্রবাসের মাটিতে এক টুকরো বাংলাদেশ ।

আনুষ্ঠানিকভাবে বাইটপোর এ পথচলা উদ্বোধন করেন ই লার্নিং বই লেখক ও নলেজ ক্যারিয়ার জ্ঞানবাহন প্রতিষ্ঠাতা পরিচালক ডক্টর বদরুল হুদা খান । এসময় বাংলাদেশ দুতাবাস প্রতিনিধি,  গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসির বিভিন্ন সংগঠনের প্রতিনিধি, সম্মানিত গুরুজন , লেখক কবি সাহিত্যিক, সম্পাদক, সাংবাদিক ও বিশিষ্ট কন্ঠশিল্পী ডক্টর সীমা খান উপস্থিত ছিলেন। এরপর বিভিন্ন খেলাধুলার পুরস্কার ও রাফেল ড্র পুরস্কার বিতরন করা হয়।

আনুষ্ঠানিকভাবে বাইটপোর অন্যতম সদস্য সামসুদ্দিন মাহমুদ,  বাইটপোর সদস্যদের সকলকে পরিচয় করিয়ে দেন।সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে বাইটপোর মিশন ও ভিশন আলোকপাত করা হয়।বাইটপোর সকল সদস্য নিজেদের পরিচয় দিয়ে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন । বক্তব্য রাখেন সামছুদ্দীন মাহমুদ, মোহাম্মেদ রশীদ, সাইফুল্লাহ খালেদ, তারিকুল ইসলাম অশ্রু, হাবিবুল্লাহ ভুঁইয়া কচি, মোঃ নিজামউদ্দিন, মোঃ মিজানুর রহমান, মোহাম্মদ হায়দার,  আবদুল মোমেন, আয়ান রশীদ, রফিকুল ইসলাম আকাশ, সুমন কর্মকার, তৈয়বুর হাসান, তানভীর হায়দার প্রমুখ।
 
অনুষ্ঠানের উদ্ভোধক ডঃ বদরুল খান তার বক্তব্যে বাংলাদেশী আইটি প্রফেশনালদের মার্কিন যুক্তরাষ্টের বিভিন্ন কর্পোরেট অফিস এবং ইউ এস গভর্নমেন্টের অফিসে কাজ করার প্রশংসা করে বলেন, গার্মেন্টস সেক্টরের পরে বাংলাদেশের আইটি সেক্টর সবচেয়ে সম্ভাবনাময় খাত হিসাবে আবির্ভুত হয়েছে। আইটি প্রফেশনালরা তাদের অভিজ্ঞতা দিয়ে কেবল কমিউনিটিতে নয় বাংলাদেশের আইটি খাতকেও বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করতে পারে। আগামী দিনে আরো  বাংলাদেশীদের একটি বিশাল অংশ এ সেক্টরে প্রবেশ করবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন। এই  প্রফেশনালরা দেশের রেমিটেন্সে বিশেষ অবদান রাখতে সক্ষম হবেন । সাথে সাথে বাংলাদেশের আইটি খাত উন্নয়নেও বিশেষ ভুমিকা রাখবে। এ বিষয়ে বাইটপো বাংলাদেশ সরকারের সাথে একটি সেতুবন্ধন হিসাবে কাজ করবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন। তিনি বাইটপোর সকল কাজে বিশেষ সহায়তা প্রদানের ও আশ্বাস দেন।
 
জনাব সামছুদ্দীন মাহমুদ তার বক্তব্যে, যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন আইটি প্রফেশনালদের একই প্লাটফর্মে নিয়ে এসে সংগঠনের কার্যক্রম, আদর্শ ও উদ্দেশ্যের বর্ণনা দিয়ে বলেন, আগামী দিনে সংগঠনের কার্যক্রম কেবল নিজেদের মধ্যেই নেটওয়ার্কিং বৃদ্ধি ও পারষ্পরিক সহায়তার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবেনা, কমিউনিটির বিভিন্ন কার্যক্রমে সহায়তা এবং সর্বোপরি আইটি সেক্টরে বাংলাদেশ সরকারকে বিভিন্ন কাজে সহায়তা প্রদানের ও আশ্বাস দেন।
এছাড়া আগামীতে বাইটপোর আরো তিনটি অনুষ্ঠানের ঘোষনা প্রদান করেন। অনুষ্ঠানগুলো হচ্ছে যথাক্রমে আগামী বছর ২১ জুন ২০২০ “বার্ষিক পিকনিক ও ফাদার’স ডে উদযাপন”, আগামী অক্টোবর ২০১৯ “বাইটপো সকার গোল্ডকাপ  টুর্ণামেন্ট” এবং জানুয়ারী ২০২০ “আইটি স্টার এওয়ার্ড” প্রদান । পরবর্তিতে এ বিষয়ে  আরো বিস্তারিত তথ্য উপস্থাপন করা হবে। 
 
অনুষ্ঠানে দ্বিতীয় পর্বে ছোট ছোট ছেলেমেয়েদের ও মহিলাদের খেলাধুলায় সহায়তা করেন আয়ান রশীদ ও নুর মোহাম্মদ, এর পর ফাদার’স ডের বিশেষ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন তারিকুল ইসলাম অশ্রু। তাকে সহায়তা করেন হাবিবুল্লাহ ভুইয়া ও নিজামউদ্দীন। বারবিকিউতে সহায়তা করেন সাইফুল্লাহ খালেদ, মোহাম্মদ হায়দার, আবদুল মোমেন, তৈয়বুর হাসান, মেজবানী ও অন্যান্য রান্নায় সহায়তা করেন মোহাম্মদ রশীদ, মিজানুর রহমান, সুমন কর্মকার, রেদওয়ান চৌধুরী বোরহান আহমেদ, সরফওয়াজ ও স্যাম রিয়া(মাহমুদ ভাবী)। ফটোগ্রাফী ও ভিডিওগ্রাফিতে সহায়তা করেন রফিকুল ইসলাম আকাশ ও দেওয়ান বিপ্লব। মিউজিক ও সাউন্ড সিস্টেমে সহায়তা করেন উজ্জল হোসেন ও তুশার রহমান। র‌্যাফেল ড্র তে সহায়তা করেন ফাইয়াজ মাহমুদ ও ফারিয়া খালেদ। র‌্যাফেল ড্রতে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার ছিল যথাক্রমে ২২ ক্যারেট স্বর্ণের চেইন, গেস হাতঘড়ি ও আন ক্লেইন হাতঘড়ি। পুরস্কারগুলি স্পন্সর করেন যথাক্রমে এজেএম হোসেন, কবির পাটোয়ারী, ও মাসুদ আহসান। ফাদার’স ডের কেক কাটেন সর্বজন শ্রদ্ধেয়, সংগঠনের  সদস্য মিজানুর রহমানের বাবা মোঃ সিরাজুল ইসলাম, সাইফুল্লাহ খালেদের বাবা রহমান বিশ্বাস ও তানভীর হায়দার এর বাবা আবুল ফজল। বাবা দিবসে সকল বাবাদের সন্মানে একটি বিশেষ বাইটপো লোগোযুক্ত কফিকাপ উপহার প্রদান করা হয়।

বিস্তারিত খবর

পিপল এন টেকের প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের পুনর্মিলণী

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-১৯ ১৪:২৩:৪২

১৫ জুন শনিবার জ্যাকসন হাইটসের বেলাজুনু পার্টি হল এ আয়োজিত হয়েছে পিপল এন টেক এর প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের পুর্নমিলনী অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানটির সার্বিক আয়োজনে ছিলেন প্রতিষ্ঠানটির প্রাক্তন ছাত্র মো: মোস্তাফিজুর রহমান (পারভেজ), মাসুদ আলম মিঠু ও দিলারা জেসমিন সুমি।
পিপল এন টেক এর কর্ণধার ইঞ্জিনিয়ার আবু হানিপ এর প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন এবং পিপল এন টেক থেকে কোর্স গ্রহণ করে বর্তমানে যারা আইটি জগতে আমেরিকার বিভিন্ন কোম্পনীতে নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন, তাদের মধ্যে একটি দৃঢ় নেটওয়ার্ক স্থাপন করাই ছিল এ আয়োজনের মুল উদ্দেশ্য।
অনুষ্ঠানের আয়োজকবৃন্দ তাদের পিপল এন টেক এর শিক্ষাকালীন বন্ধুত্বের স্মৃতি, নেটওয়ার্কিং এর সামাজিক সুবিধা ও চাকুরী জগতের সুবিধা সহ নানা সুবিধা নিয়ে তাদের নিজ নিজ মতামত প্রদান পূর্বক উপস্থিত অন্যানদের মতামত প্রদানের আহ্বান জানান। তারা আগামী দিনে কিভাবে নিজেদের সামনে এগিয়ে নিয়ে যাবার পাশাপাশি পরবর্তী প্রজন্মকেও সামনে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া যায় সে বিষয়ে আরো দৃঢ়ভাবে কাজ করার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।
মতামত প্রদান পর্ব শেষে প্রক্তান ছাত্র-ছাত্রীরা জনাব আবু হানিপকে তাদের কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।
জনাব আবু হানিপ তার বক্তবে সবাইকে ধন্যবাদ প্রদানের পাশাপাশি পিপল এন টেক সমাজকে কিভাবে সামনে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে তার কিছু বিবরণ তুলে ধরেন।
সবশেষে পিপল এন টেক এর প্রেসিডেন্ট ফারহানা হানিপ প্রাক্তন ছাত্র-ছাত্রীদের মধে গিফট প্রদান পূর্বক অনুষ্ঠান শেষ করেন।

বিস্তারিত খবর

প্রবাসী বাংলাদেশি হিসেবে আমিরাতের প্রথম গোল্ডেন ভিসা পেলেন সিলেটের মাহতাবুর

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-১৮ ১৫:০৩:২২

প্রথম প্রবাসী বাংলাদেশি হিসেবে সংযুক্ত আরব আমিরাতের স্থায়ী আবাসন 'গোল্ডেন ভিসা' পেলেন মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান। তিনি হারামাইন গ্রুপ অব কোম্পানির চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপণা পরিচালক, এনআরবি ব্যাংক লিমিটেডের চেয়ারম্যান এবং দুবাইয়ে বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট।

হারামাইন গ্রুপের পক্ষ থেকে এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। এ সুখবর এমন এক সময় এলো যখন আমিরাতে ৩৮ বছর উদযাপন করছে হারামাইন গ্রুপ।

বিশ্বব্যাপী ব্যবসা এবং বাণিজ্যের ব্যাপক প্রসারের সঙ্গে বহুদিন ধরেই সম্পৃক্ত মোহাম্মদ মাহতাবুর রহমান। সুগন্ধি, ব্যাংকিং, স্বাস্থ্যসেবা, শিক্ষা, চা এবং আতিথেয়তার মতো বিভিন্ন ধরনের ব্যবসা-বাণিজ্যে কাজ করছেন এই প্রবাসী বাংলাদেশি।

মধ্যপ্রাচ্যের বৃহত্তম সুগন্ধীর নির্মাতা প্রতিষ্ঠান তার আল হারামাইন পারফিউম গ্রুপ। এছাড়া আল হারামাইন টি কো. লি. এবং আল হারামাইন হসপিটাল প্রাইভেট লিমিটেডও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রেখেছে।

গোল্ডেন ভিসার মতো এই বিশেষ স্বীকৃতি পাওয়ায় আমিরাতের প্রেসিডেন্ট শেখ খলিফা বিন জায়েদ আল নাহিয়ান, ভাইস প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রী এবং দুবাইয়ের শাসক শেখ মোহাম্মদ বিন রাশিদ আল মাকতুম, আবুধাবির ক্রাউন প্রিন্স শেখ মোহাম্মদ বিন জায়েদ আল নাহিয়ানকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন মাহতাবুর রহমান।

তিনি বলেন, এই উল্লেখযোগ্য সম্মানিত ব্যক্তিদের নেতৃত্বে আরব আমিরাত শুধু আমিরাতের নাগরিকদের জন্যই নয় বরং দুইশর বেশি দেশের নাগরিকদের কাছে সৌভাগ্যের একটি দেশে পরিণত হয়েছে। এই দেশকে অনেক প্রবাসীই নিজেদের দেশ মনে করেন।

তিনি বলেন, এই গোল্ডেন ভিসা আমার এবং আমার দেশের জন্য একটি সম্মান। এটা আমাদের আমিরাতে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে আরও বেশি উৎসাহ দেবে এবং আমিরাতের অর্থনীতির বিস্তৃত হতে সহায়তা করবে। অর্থনৈতিক সুযোগ ও সম্মান প্রদানের জন্য আমরা আরব আমিরাতের নেতৃত্বের প্রতি কৃতজ্ঞ।

হারামাইন গ্রুপ জিসিসিভুক্ত দেশ, মালয়েশিয়া, যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র এবং অন্যান্য দেশে একশর বেশি শাখায় সরাসরি এক হাজারের বেশি পেশাদারি এবং কর্মচারী নিয়োগ করেছে।

বিস্তারিত খবর

আমেরিকা ও কানাডা সফরে এসেছেন ‘ইউকে বাংলা' সম্পাদক আরিফ রব্বানী

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-১১ ১৪:৪৩:১৮

লন্ডন থেকে বাংলা ভাষায় প্রকাশিত বহুল জনপ্রিয় অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘ইউকে বাংলা অনলাইন ডটকম’এর সম্পাদক,সাংবাদিক-কলামিস্ট আরিফ রব্বানী তিন সপ্তাহের এক সংক্ষিপ্ত সফরে গত ৭ই জুন শুক্রবার আমেরিকা এবং কানাডার উদ্দেশ্যে নিউজার্সীতে এসেছেন।

স্থানীয় সময় বিকেল ৭টায় ভার্জিন আটলান্টিক এর ফ্লাইটযোগে আমেরিকার নিউজার্সি অঙ্গরাজ্যের লিবার্টি ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্টে তিনি অবতরণ করেন।আমেরিকায় তাঁর  সংক্ষিপ্ত সফরের মধ্যে নিউইয়র্ক, নিউজার্সী,মিশিগান,ওয়াশিংটনসহ বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্য সফর করবেন এবং কানাডার নায়াাগ্রা ফলস,মন্টিল সহ বেশ কিছু  সিটিতে তাঁর ব্যক্তিগত সফর রয়েছে।আমেরিকা ও কানাডায় তাঁর এই সফরে বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিক-সাহিত্যিক এবং কমিউনিটি লিডারদের সাথে মতবিনিময়, আত্মীয় স্বজনদের সাথে দেখাশোনা  ও বন্ধু বান্ধবদের সাথে বিভিন্ন আয়োজনে ও আড্ডায় মিলিত হবেন।আগামী পহেলা জুলাই তিনি তাঁর কর্মস্থল লন্ডনে ফেরার কথা রয়েছে।

উল্লেখ্য যে,সাংবাদিক আরিফ রব্বানী দীর্ঘ দিন ধরে  ফ্যামিলি সহ লন্ডনে থাকেন।তিনি হলেন বাংলাদেশের বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ,বেফাক্বুল মাদারিসিল আরাবিয়্যাহ-বাংলাদেশ (ক্বওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড) এর সাবেক সহ সভাপতি,সিলেটের দারুস সালাম খাসদবীর মাদরাসার সাবেক মুহতামীম ও  শায়খুল হাদীস আল্লামা আব্দুল আজিজ দয়ামিরী রাহমাতুল্লাহি আলাইহি এর একমাত্র ছাহেবজাদা।

বিস্তারিত খবর

বাগডিসির ঈদ আড্ডা ও নতুন কমিটির অভিষেক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৬-১১ ১৪:৩৪:৪০

গত ৭ই জুন ২০১৯ শুক্রবার সন্ধ্যায় স্প্রীংফিল্ড ভার্জিনিয়ার হলিডে ইন এক্সপ্রেস হোটেল বলরুমে অনুষ্ঠিত হল বাংলাদেশ এসোসিয়েশন অব গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসির (বাগডিসি র) ঈদ আড্ডা ও নতুন কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান। ২০১৯-২০২০ সালের নতুন কমিটির প্যানেলে করিম সালাহউদ্দিন কে প্রেসিডেন্ট ও আবু বকর সরকারকে জেনারেল সেক্রেটারি নির্বাচিত করা হয়।
 বাগডিসির এক্স প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ আলমগীর, এক্স সেক্রেটারি এ্যন্থনি পিউস গমেস ও বাগডিসির ইলেকশন/সিলেকশন কমিটি প্রধান এটিএম আলম নতুন কমিটি পরিচয় করিয়ে দেন।

দুই বছর মেয়াদের এ কমিটির রোকসানা পারভীন, নুরুল আমিন নুরু, নাসের আহমেদ ও কচি খান কে ভাইস প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত করা হয়। এছাড়াও এসিসট্যান্ট জেনারেল সেক্রেটারি মোহাম্মদ রশিদ, ট্রেজারার নুসরাত জাহান, এসিসট্যান্ট ট্রেজারার তিলক কে কার, কালচারাল সেক্রেটারি হাসনাত সানি, এসিসট্যান্ট কালচারাল সেক্রেটারি শাহজালাল সুমন কে নির্বাচিত করা হয়। মিডিয়া, প্রেস ও পাবলিকেশন্স সেক্রেটারি হিসেবে দ্বিতীয় মেয়াদে রফিকুল ইসলাম আকাশ দায়িত্ব গ্রহণ করেন। আর সেই সাথে এটিএম আলম, আবু রুমি, পিংকি পাটোয়ারী, শারিকুল ইসলাম, প্রণব বড়ুয়া, জাহিদ হাসান স্বপন, গাজী শাহজাহান খোকন, মো: কাজল, মোহাম্মদ সেলিম কে এক্সিকিউটিভ মেম্বর হিসেবে নির্বাচিত করা হয়।

শতরুপা বড়ুয়া ও ফয়সাল কাদেরের প্রান্জল উপস্থাপনায় ঈদ আড্ডার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিপূর্ণতা পায়।উপস্থাপকগন, উপস্থাপনার পাশাপশি বাগডিসির বিগত দিনের কর্মকান্ডের উপর আলোকপাত করেন। নন প্রফিট অরগানাইজেশন হিসেবে বাগডিসি দীর্ঘদিন থেকেই সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কাজে প্রবাসী বাংলাদেশিদের সহযোগিতা করে আসছে। পাশাপশি বাংলাদেশে বন্যা দূর্গতদের ত্রান, রোহিঙ্গা সমস্যায় সহযোগিতা , বাংলাদেশের পঙ্গুদের সহযোগিতায় সিআরপি ফান্ড রেইজিং এ সহযোগিতা, প্রবাসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস উদযাপন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা উদযাপনে একুশে এলিয়েন্সকে সহযোগিতা, বাংলার কৃষ্টি ও সংস্কৃতি বিকাশে পানতা ইলিশ অনুষ্ঠানসহ বিভিন্ন কর্মকান্ডে   বাগডিসির ভূমিকা ছিল বেশ প্রশংসনীয় ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শুরুতেই গ্রেটার ওয়াশিংটন ডিসির বিশিষ্ট বংশীবাদক মোহাম্মদ মাজিদের বাঁশীর সুরে বাংলাদেশের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশিত হয়। তারপর যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত, রমজানের ঐ রোজা শেষে এলো খুঁশীর ঈদ, কোরাস সূর্য্যদয়ে তুমি-সূ্র্যাস্তে তুমি পরিবেশিত হয়। নৃত্য পরিবেশন করেন নাসরিনা আহমেদ মুনা, ছোট্টমনি মায়া, রুপন্তি, মাইশা, মেহেক, কাইনাত, নুসরাত, সিনথিয়া, শ্রুতি। এফেকশন হোম হেলথ কেয়ার এর এডমিনিস্ট্রেটর মোহসিনা রিমি খান নৃত্যশিল্পীদের পুরস্কৃত করেন। অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশন করেন মাহিন সুজন, সূপ্রভা বড়ূয়া পাপড়ী, শাহনাজ রহমান সুমি, তুষার রহমান, চ্যানেল আই সেরাকন্ঠ খ্যাত শিল্পী মিরা সিনহা, ডক্টর সীমা খান, মেট্রো ওয়াশিংটন ডিসির জনপ্রিয় ব্যান্ড চোরাবালি। ভয়েস অব আমেরিকার ফকির সেলিম ও সানজানা ফিরোজ ছড়া আবৃতি করে দর্শকদের মন জয় করেন।সাউন্ডসিস্টেমে ও গিটারে সহযোগিতা করেন রবিউল আলম শিশির এবং ফটোগ্রাফি ও ভিডিওগ্রাফিতে ছিলেন কচি খান, শামীম হায়দার ও বৈশাখী ডালাস খ্যাত রফিকুল ইসলাম।
উপস্থিত অতিথিদের আপ্যায়নে রাতের খাবার পরিবেশন করা হয়। গভীর রাত অবধি আগত দর্শক শ্রোতা অনুষ্ঠানে নেচে গেয়ে ঈদ আনন্দে মেতে ছিলেন।

বিস্তারিত খবর

চীন আওয়ামী লীগের ইফতার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-২৮ ১৫:১৩:৪৫

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষ্যে গত ২৬ মে রবিবার চীনের ঐতিহ্যবাহী হোয়াজং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের হোয়াহোং  ইন্টারন্যাশনাল স্টুডেন্টস এপার্টমেন্ট  সংলগ্ন একটি হলরুমে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, চীন শাখার  আহবায়ক কমিটির  উদ্যোগে একটি ইফতার এবং দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়।খবর বাপসনিঊজ ।বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বাংলাদেশ  কুয়েত মৈত্রী হলের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় কার্যকরী পরিষদের সহ-সম্পাদক,  বর্তমান বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের মহিলা বিষয়ক কেন্দ্রীয় উপ কমিটির  সদস্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্ট্রার  শারমিন জাহানের আয়োজনে ও সভাপতিত্বে  উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের চীন শাখার দক্ষ সংগঠক মোফাক্কারুল শামস।
উক্ত অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পিএইচডি গবেষক ও প্রাচ্যের অক্সফোর্ড ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস বিভাগের সহকারী অধ্যাপক নয়ন খায়ের।
বিশেষ অতিথি হিসেবে আরো উপস্থিত ছিলেন চীনের উহান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সিনিয়র লেকচারার, চীনে বাংলাদেশী কমিনিউটির জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব মোস্তাক আহমেদ গালিব,
জিয়াংসু প্রদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি মোহামেন  জামি, হুবেই প্রদেশ ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক দ্বীন মোহাম্মদ প্রিয়,গুয়াংডং প্রদেশের ছাত্রলীগ নেত্রী ইশরাত বারী তৃণা।
উক্ত অনুষ্ঠানে  চীনের বিভিন্ন প্রদেশের  ছাত্রলীগ এবং আওয়ামীলীগের প্রায় দেড় শতাধিক  নেতাকর্মী অংশগ্রহন করেন।
উক্ত মহতী অনুষ্ঠানের সভাপতি  শারমিন জাহান উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মানের লক্ষ্যে জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে  চায়না আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের প্রতিটি নেতা কর্মীকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহ্বান জানান এবং তিনি প্রিয় দেশ এবং দেশবাসীর শান্তি ও কল্যাণ কামনা করেন।
পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মধ্য দিয়ে উক্ত অনুষ্ঠান শুরু হয়।
অনুষ্ঠানে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের রুহের মাগফেরাত কামনা ও বঙ্গবন্ধু তনয়া মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য এবং দীর্ঘায়ু কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়। পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও মোনাজাত পরিচালনা করেন ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি এ্যান্ড সায়েন্সেস এর বিজনেস স্টাডিজ বিভাগের সিনিয়র লেকচারার ইয়াহিন হোসেন সাদী।সবশেষে ইফতার ও রাতের খাবার বিতরনের মধ্য দিয়ে উক্ত ইফতার ও দোয়া মাহফিল সমাপ্ত হয়।

বিস্তারিত খবর

আমেরিকায় দ.এশীয় অভিবাসীদের মধ্যে দারিদ্র্যে দ্বিতীয় বাংলাদেশিরা

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৭ ১৫:৪৯:০৮

যুক্তরাষ্ট্রে বসবাসকারী দক্ষিণ এশীয়দের মধ্যে বেশিরভাগের চেয়েই বেশি দরিদ্র বাংলাদেশিরা। অলাভজনক সংগঠন সাউথ এশিয়ান আমেরিকান লিডিং টুগেদারের এক প্রতিবেদনে উঠে এসেছে এই তথ্য।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০১০ সালের পর থেকে বাংলাদেশি অভিবাসীর সংখ্যা ২৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেলেও দারিদ্রতার দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন তারা।
বাংলাদেশ, ভুটান, ভারত, মালদ্বীপ, নেপাল, পাকিস্তান এবং শ্রীলঙ্কার প্রায় ৫০ লাখ অভিবাসীর বসবাস যুক্তরাষ্ট্রে।

২০১০ সালের আদমশুমারি  এবং ২০১৭ সালের আমেরিকান কমিউনিটি সার্ভের ওপর নির্ভর করে এই প্রতিবেদন তৈরি করেছে সংগঠনটি। প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০৬৫ সালের মধ্যে এশিয়ান আমেরিকানরাই হবে সর্ববৃহৎ অভিবাসী জনগোষ্ঠী। দেশটিতে বিগত বছরগুলোতে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে নেপালি অভিবাসী। তাদের বৃদ্ধির হার ২০৬ শতাংশ। আর ভারতীয়দের সংখ্যা বেড়েছে ৩৮ শতাংশ।

তবে সেখানে বসবাসরতদের মধ্যে আর্থিক বৈষম্য প্রকট। ৫০ লাখ দক্ষিণ এশীয়দের মধ্যে ১০ শতাংশই দারিদ্রতায় দিন কাটাচ্ছে। সবচেয়ে করুণ পরিস্থিতি বাংলাদেশি ও নেপালিদের। বাংলাদেশিদের আয় ৪৯ হাজার ৮০০ ডলার। আর নেপালিদের ৪৩ হাজার ৫০০ ডলার।

নাগরিকত্ব না পাওয়া বাংলাদেশিদের মধ্যে প্রায় ৬১ শতাংশই চারটি সরকারি সুবিধার মধ্যে অন্তত একটি পেয়ে থাকে। পাকিস্তানিদের ক্ষেত্রে এই হার ৪৮ শতাংশ আর ভারতের ক্ষেত্রে ১১ শতাংশ।  তবে অনথিভুক্ত ভারতীয়দের সংখ্যা ৬ লাখ ৩০ হাজার। ২০১০ সাল থেকে যা ৭২ শতাংশ বেশি।
প্রতিবেদনে বলা হয়, ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরও থাকছেন ভারতীয়রা। ২০১৬ সালে এই সংখ্যা ছিলো আড়াই লাখ। তাই তাদের অনথিভুক্ত বিবেচনা করা হচ্ছে।

সংস্থাটির অন্তর্বতীকালীন সহ-নির্বাহী পরিচালক লক্ষ্মী শ্রীদারন বলেন, ‘আমরা আমাদের কমিউনিটিকে বাড়তে দেখেছি। যেকোনও সময়ের চেয়ে এখনই তাদের প্রয়োজন বোঝা সবচেয়ে জরুরি। ২০২০ সালের আদমশুমারিতে আমাদের এই বিশাল জনগোষ্ঠীকে সরকারি সহায়তা নিশ্চিত প্রয়োজন।

আগামী আদম শুমারিতে নাগরিকত্ব প্রদান প্রক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ট্রাম্প প্রশাসন। অভিবাসন বিশেষজ্ঞরা মনে করেন, এই গণনা থেকে অনেকে বাদ পরবেন। বিশেষ করে ৬ লাখ দক্ষিণ এশীয় অভিবাসীকে গণনাই করা হয় না। বঞ্চিত হবেন আরও হাজার হাজার মানুষ। লক্ষ্মী বলেন, এতে করে যাদের সহায়তা বেশি প্রয়েৃাজন তারাই বাদ পড়ে যেতে পারেন।

বিস্তারিত খবর

সম্মিলিত ক্যালিফর্নিয়া আওয়ামী পরিবারের ইফতার শনিবার

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৬ ১৫:৪৬:০৩

পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে ইফতার ও দোয়া মাহফিল আয়োজন করেছে সম্মিলিত ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামী পরিবার। আগামী শনিবার (১৮ মে) নর্থ হলিউড রিক্রিয়েশন সেন্টারে (11340 W Chandler Blvd, North Hollywood, CA 91601 এই মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।

সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত এই আয়োজনে সকল প্রবাসী বাংলাদেশীদের আমন্ত্রণ জানিয়েছেন সম্মিলিত ক্যালিফোর্নিয়া আওয়ামী পরিবার।

বিস্তারিত খবর

দক্ষিণ আফ্রিকায় গুলিতে বাংলাদেশী যুবক খুন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১০ ১৫:৫১:১৫

দক্ষিণ আফ্রিকায় দুর্বৃত্তদের গুলিতে বাংলাদেশী এক যুবক নিহত হয়েছেন। নিহত যুবকের নাম জয়নাল আবেদীন (৩০)। তিনি টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার টেরকী গ্রামের রুস্তম আলীর ছেলে। দক্ষিণ আফ্রিকার নিউ ক্যাসেল শহরে স্থানীয় সময় বুধবার দিবাগত রাত ১টার দিকে দুর্বৃত্তরা তাকে গুলি করে হত্যা করে। শুক্রবার পরিবারের পক্ষ থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

নিহত জয়নাল আবেদীনের মামা দুদু মল্লিক জানান, এইচএসসি পাশ করে দশ বছর আগে জয়নাল আবেদীন দক্ষিণ আফ্রিকা যান। পরে দক্ষিণ আফ্রিকার নিউ ক্যাসেল শহরে নিজেই একটি মুদি দোকান দিয়ে ব্যবসা শুরু করেন তিনি। ব্যবসা করে তিনি বেশ লাভবান হন।

ব্যবসার পাশাপাশি তিনি দোকানের পাশেই একটি কন্টেইনারে থাকতেন। বুধবার রাতে কাজ সেরে প্রতিদিনের মত জয়নাল সেখানে ঘুমিয়ে পড়েন। স্থানীয় সময় রাত ১টার দিকে তাকে কেউ ডাকাডাকি করলে জয়নাল জানালা খুলে বাইরে উঁকি দেয়। সঙ্গে সঙ্গে দুর্বৃত্তরা তার কপালের বাম পাশে গুলি করে। গুলিটি মাথার পেছন দিয়ে বেরিয়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিনি।

সেখানকার প্রতিবেশী এক বাঙালী যুবক বৃহস্পতিবার সকালে জয়নাল আবেদীনের বাড়িতে তার মৃত্যুর সংবাদ দেন। মুহূর্তেই খবরটি ছড়িয়ে পড়লে পুরো এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

দুদু মল্লিক আরো জানান, প্রাথমিকভাবে মনে হচ্ছে, সেখানে জয়নালের পরিচিত লোকজনই টাকার লোভে এই হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে। কারণ বুধবার বিকেলে জয়নাল আবেদীন বাড়িতে ফোন করে জানায় যে, দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে সে কানাডায় চলে যাবে। এজন্য তিনি নগদ ২০ লাখ টাকা হাতে রেখে দিয়েছে। সেখানে জয়নাল একটি গাড়িও কিনেছিল। কানাডা যাওয়ার আগে তিনি দোকান ও গাড়ি বিক্রি করে সব টাকা বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়ার কথা বলেছিলেন। সবমিলিয়ে প্রায় ৭০ লাখ টাকা হবে। আগামী ঈদে বাড়িতেও আসার কথা জানিয়েছিল জয়নাল। কিন্তু ওইদিন রাতেই তাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হলো। চার ভাই ও এক বোনের মধ্যে নিহত জয়নাল আবেদীন ছিল দ্বিতীয়।

উল্লেখ্য, এর আগে ২০১৫ সালে একইভাবে খুন হন জয়নাল আবেদীনের ছোট ভাই আমিন (২৫)। ঢাকার কেরানীগঞ্জে থেকে তিনি ম্যান পাওয়ারের ব্যবসা করতেন। হঠাৎ একদিন তিনি নিখোঁজ হন। নিখোঁজ হওয়ার কয়েকদিন পর বুড়িগঙ্গা নদী থেকে আমীনের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। মর্মান্তিকভাবে দুটি ঘটনায় দুই ছেলেকে হারিয়ে তাদের পিতা-মাতা এখন পাগল প্রায়। এখন পরিবারের পক্ষ থেকে জয়নাল আবেদীনের লাশ দ্রুত দেশে ফিরিয়ে আনার দাবি জানানো হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

মালয়েশিয়ায় কন্টেইনার চাপায় ১০ বাংলাদেশি নিহত

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-০৭ ১৩:১০:০৪

মালয়েশিয়ার পেনাংয়ে কন্টেইনার চাপায় ১০ বাংলাদেশি নিহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। জানা গেছে, পুলাও পেনাংয়ের কুয়ালা জালান বারু এলাকায় ভবন নির্মাণ সাইটে কর্মরত ১০ বাংলাদেশি নিহত হয়েছেন।

মালয়েশিয়ার সিনার অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছে, সোমবার (৬ মে) স্থানীয় সময় সকাল ৯টা ৪৫ মিনিটে প্রচণ্ড বৃষ্টির সময় কনটেইনারের পাশে অবস্থান নেয়া বাংলাদেশিদের ওপর আঁছড়ে পড়ে একটি কন্টেইনার।

এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন ১০ জন। আহত হয়েছেন অনেকেই। নিহত বাংলাদেশিদের বয়স আনুমানিক ২৫ থেকে ৪৫ বছর। এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

পেনাং ফায়ার সার্ভিস বিভাগের প্রধান সাধন মোক্তার স্থানীয় গণমাধ্যমকে বলেন, সকাল ৯টা ৫০ মিনিটে আমরা ইমার্জেন্সি ফোন পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে হতাহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তৃপক্ষ তাদের মৃত ঘোষণা করেন।

ফায়ার সার্ভিস বিভাগ আরও জানায়, মুষলধারে বৃষ্টির সঙ্গে বাতাসের কারণে কন্টেইনারগুলো তাদের ওপর আঁছড়ে পড়ে। হতাহত বাংলাদেশিদের প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়েছে বলে জানান উদ্ধারকর্মীরা।

বিস্তারিত খবর

ইতালিতে ‘কানেক্ট বাংলাদেশ’-এর ৩য় বর্ষপূর্তি উদযাপন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-০৬ ১৬:০৯:১২

ইতালির রাজধানী রোমে স্হানীয় তাওপিনাতারস্হ রসই রেস্তোরাঁয়( ৪মে ২০১৯) শনিবার ব্যপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠিত হলো প্রবাসীদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট আন্তর্জাতিক সংগঠন  "কানেক্ট বাংলাদেশ " এর ৩য় বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান।

কানেক্ট বাংলাদেশ ইতালির সমন্বয়ক কমিটির সমন্বয়ক ডাঃসাইদুর রহমান লস্করের সভাপতিত্বে এবং কেন্দ্রীয় সমন্বয়ক কাজি জাকারিয়ার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রথমেই সকল সমন্বয়কদের পরিচয় করার মধ্যে দিয়ে  অনুষ্ঠানের সূচনা করেন।
কেন্দ্রীয় পরিকল্পনা পরিষদের সদস্যা ও কেন্দ্রীয় কমিটির সমন্বয়ক যথাক্রমে আখি সিমা কায়ছার ও মোঃ সামছুল হক পাখী কানেক্ট বাংলাদেশ সংগঠনের প্রতিষ্ঠার আদর্শ ও উদ্দেশ্য বিশদভাবে তুলে ধরেন।

সংগঠনটি বাংলাদেশের উন্নয়ন ও সারা বিশ্বে বসবাসরত সকল বাংলাদেশী প্রবাসীর ন্যায্য দাবীর প্রস্তাবনা উপস্থাপন ও বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাচ্ছে।সাথে সাথে সকল প্রবাসী বাংলাদেশীদের এই প্রবাসী সংগঠনে সংযুক্তির আহবান জানান।

কেন্দ্রীয় কমিটির সমন্বয়ক মাজিবর রহমান মহান মে দিবসে শ্রমিকের অধিকার আদায়ের লক্ষে সংগ্রামের   বিভিন্ন দিক ও বস্তুুনিষ্ঠ তথ্যবহুল ইতিহাস তুলে ধরেন।
উপস্থিত অতিথির বক্তব্যে রোমের  সামাজিক ও  সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অত্যান্ত সুপরিচিত নারী উদ্যেক্তা লায়লা শাহ,সাংবাদিক লুৎফুর রহমান কানেক্ট বাংলাদেশের উত্তরোত্তর সাফল্য কামনা ও শুভেচ্ছা জ্ঞাপন করেন।

অনুষ্ঠানের সভাপতি কানেক্ট বাংলাদেশ ইতালির সমন্বয়ক কমিটির সমন্বয়ক ডাঃসাইদুর রহমান লস্কর সকলের বক্তব্যের মূল বিষয় গুলো এবং কানেক্ট বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্য,উদ্দেশ্য, প্রয়োজনীয়তা এবং করণীয় সম্পর্কে সুন্দর ও সাবলীলভাবে উপস্হাপন করেন।অনুষ্ঠান শেষে কেক কাটা ও নৈশভোজোর মাধ্যমে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।

বিস্তারিত খবর

ফোবানা নেতৃবৃন্দের সাংগঠনিক সফর

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-০৫ ১৪:৫৫:০৭

ফোবানা কেন্দ্রীয় কমিটির সম্মানিত চেয়ারম্যান মীর চৌধুরী ও নির্বাহী সচিব জাকারিয়া চৌধুরীর সমন্বয়ে ফোবানার একটি প্রতিনিধি দল যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্ন অঙ্গরাজ্যে সাংগঠনিক সফরের অংশ হিসেবে ২৬ এপ্রিল  সর্বপ্রথম ফোবানার যুগ্ম নির্বাহী সচিব ডক্টর রফিক খানের বাসভবনে গিয়ে অসুস্থ ডক্টর রফিক খানকে সমবেদনা জানান এবং তার স্বাস্থ্যের খোঁজ খবর নেন। এরপর নেতৃবৃন্দ হিউস্টনের জাতীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে তাদের কর্মসূচির সূচনা করেন। পুস্পস্তবক অর্পনের পর নেতৃবন্দ হিউষ্টন বাংলাদেশ সেন্টার পরিদর্শন করেন। 

টেক্সাসের হিউস্টন শহরে বাংলাদেশ সেন্টারে বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ হিউস্টন কর্তৃক আয়োজিত টাউন হল মিটিং এ যোগদান করেন ।পরে মহারাজা রেস্টুরেন্টে বাংলাদেশ আমেরিকান সোসাইটি অফ  গ্রেটার হিউস্টন নামের আর একটি সংগঠনের উদ্যোগে দ্বিতীয় টাউন হল মিটিংয়ে অংশগ্রহণ করেন।পরদিন ২৭ এপ্রিল সন্ধ্যা সাতটায় বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ নর্থ টেক্সাস সংক্ষেপে বান্ট নামে পরিচিত সংগঠনের উদ্যোগে বৈশাখী উৎসবে বিশেষ অতিথি হিসাবে যোগদান করেন।পরদিন ২৮ এপ্রিল দুপুর ১২ টায় বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অফ নর্থ টেক্সাস সংক্ষেপে বান্ট নামে পরিচিত সংগঠনের উদ্যোগে এক বিশেষ টাউন হল মিটিংয়ে অংশগ্রহন করেন। ফোবানা

নেতৃবৃন্দ বাংলাদেশি আমেরিকান উইমেন অ্যাসোসিয়েশন অফ টেক্সাস পরিচালিত  ইন্টারন্যাশনাল বাংলা স্কুল পরিদর্শন করেন এবং ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে বাংলাদেশ থেকে নিয়ে আসা বাংলা বই বিতরণ করেন।একই দিন সন্ধ্যা সাতটায় ওকলাহোমা ইয়থ এসোসিয়েশন কর্তৃক আয়োজিত টাউন হল মিটিং এ অংশগ্রহন করেন।২৯ এপ্রিল সকাল থেকে বিকাল পর্যন্ত ফোবানা নেতৃবৃন্দ  ২০২০ সালের ডালাস ফোবানা সম্মেলনের সম্ভাব্য ভেন্যু হিসেবে তিনটি ভেন্যু পরিদর্শন করেন।প্রতিটি মিটিংয়ে ফোবানার চেয়ারম্যান মীর চৌধুরী ১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠিত  ফোবানার সংক্ষিপ্ত ইতিহাস তুলে ধরেন এবং সংশ্লিষ্ট সকলকে ফোবানার সাথে সম্পৃক্ত হওয়ার অনুরোধ জানান। ফোবানা নির্বাহী সচিব জাকারিয়া চৌধুরী তার বক্তব্যে যুব সমাজকে ফোবানার সাথে আরো বেশী সম্পৃক্ত হওয়ার অনুরোধ জানান। তিনি উত্তর আমেরিকার সকল প্রবাসী বাঙ্গালীদেরকে ফোবানার পতাকাতলে একতাবদ্ধ হয়ে বিশ্ববিখ্যাত কনভেনশন সেন্টার নাসাউ কলেসিয়ামে অনুষ্ঠিতব্য আসন্ন ফোবানা সম্মেলন কে সফল করার জন্য সকল প্রবাসী বাঙ্গালীদের প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান ।
সর্বমোট ৬ টি  মিটিংয়ে ফোবানা নেতৃবৃন্দের সাথে আরো উপস্থিত ছিলেন ফোবানা কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস  চেয়ারম্যান  শাহ হালিম ,ফোবানার সাবেক চেয়ারম্যান নুরুল আমিন চৌধুরী ,সাবেক চেয়ারম্যান বর্তমান নির্বাহী সদস্য  হাসমত মবিন, বর্তমান নির্বাহী সদস্য খালেদ জুলফিকার খান, বর্তমান নির্বাহী সদস্য নাহিদা আলী ডেইজী, সাবেক নির্বাহী সদস্য নাহিদা নাসের ইয়াসমিন, সাবেক নির্বাহী সদস্য মায়া নেহাল ,বর্তমান মিডিয়া এন্ড পাবলিক অ্যাওয়ারনেস কমিটির কো চেয়ারম্যান  রে নেহাল (রহিম) সহ  সকল হোষ্ট সংগঠনের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকসহ কার্যকরী পরিষদের আধিকাংশ সদস্য ও কমিউনিটির গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।প্রতিটি টাউন হল মিটিং এ উপস্থিত ব্যক্তিবর্গ আগামীতে ও ফোবানাতে আরো অধিক হারে সংগঠন রেজিস্ট্রি করে ফোবানাতে সম্পৃক্ত হওয়ার আশা পোষণ করেন এবং আসন্ন ২০১৯ সালের ফোবানা সম্মেলন সফল এবং সার্থক করবার জন্য তাদের যার যার অবস্থান থেকে ভূমিকা রাখবেন বলে প্রত্যয় ব্যক্ত করেন ।একই সাথে ২০২০ সালে অনুষ্ঠিতব্য ডালাস ফোবানা সম্মেলনেও তাদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করবেন বলে প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন।

বিস্তারিত খবর

ইংল্যান্ডে স্টেডিয়াম কিনলেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ী

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-০৫ ১৪:৪৯:৪৮

ইংল্যান্ডের বেডফোর্ড টাউন ফুটবল স্টেডিয়ামের মালিকানা বদল হয়েছে। আগামী পাঁচ বছরের জন্য এই স্টেডিয়াম কিনে নিয়েছেন ব্রিটিশ-বাংলাদেশী ব্যবসায়ী সিলেটের মোহাম্মদ কবির।

এপ্রিলের শেষ দিকে কবিরের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান ব্রাইট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির সাথে বেডফোর্ড টাউন এফসি’র আনুষ্ঠানিকভাবে চুক্তি সাক্ষরিত হয়।

আগামী সেপ্টেম্বর থেকে বেডফোর্ড ফুটবল স্টেডিয়ামের নাম হবে মোহাম্মদ কবিরের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান ‘ব্রাইট ম্যানেজমেনট ফুটবল স্টেডিয়াম’। এ স্টেডিয়ামে এক সাথে প্রায় পাঁচ হাজার দর্শক খেলা দেখতে পারবেন।

ব্যবসায়ী কবির জানিয়েছেন, ব্রিটিশ-বাংলাদেশী ও বাংলাদেশের প্রতিভাবান তরুণদের খেলাধুলার প্রতি আগ্রহী ও পেশাদার ফুটবলার তৈরী করার জন্য এ স্টেডিয়াম কিনেছেন।

এ প্রসেঙ্গ তিনি বলেন, ‘আগামীতে এখানে বাংলাদেশ ও ব্রিটেনের তরুণ খেলোয়াড়দের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।’

জানা গেছে, গেল কয়েক বছর ধরে ফুটবল নিয়ে কাজ করছেন মোহাম্মদ কবির। ব্রিটেনে ‘সকার লীগ’ নামে তাঁর একটি ফুটবল দলও আছে। এবার স্টেডিয়াম কিনে নিয়ে ফুটবলের সাথে তিনি আরো বেশি সম্পৃক্ত হলেন।

বিস্তারিত খবর

মিশিগানে জুয়েল সাদতের `অনুভবে আলি্ঙ্গন'-এর মোড়ক উন্মোচন

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-০১ ১৩:০৫:৫১

আমেরিকার ফ্লোরিডা প্রবাসী কবি সাংবাদিক উত্তর আমেরিকা প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি জুয়েল সাদতের কবিতার সিডি ”অনুভবে আলিঙ্গন”-এর মোড়ক  উন্মোচন অনুষ্টিত হয় গত ২৭ এপ্রিল শনিবার মিশিগানের হ্যামট্রামিকের রেশমি রেষ্টুরেন্টে বিকাল সাড়ে পাচটায় ।  মোড়ক উন্মোচন অনুষ্টানে উপস্থিত ছিলেন অন্যন্যদের মধ্যে   সিলেটের প্রবিন ছড়াকার এডভোকেট মুজিবুর রহমান শাহিন, সিলেটের রম্য লেখক হারান কান্তি সেন, সাবেক ব্যাংকার বর্তমানে মিশিগানের রিয়েলটর লেখক মাহমুদুর রহমান , নিউ ইয়র্কের বিশিষ্ট ব্যাবসায়ী মিজান খান, মিসেস ডলি প্রমুখ ।

কবি ও সাংবাদিক জুয়েল সাদত তার কবিতার সিডির  মোড়ক উন্মোচন অনুষ্টানে উল্লেখ করেন, অতিতে ৫ টি প্রকাশিত হলেও অনেক সময় নিয়ে কবিতার সিডি তার সাহিত্যর জগতে নুতন  মাত্রা যোগ করেছে  । বর্তমান বাংলাদেশের সম সাময়িক সামাজিক নানা টানা পোড়ন ও নানান জাগতিক বিষয় ফুটিয়ে তুলেছেন ।  ২২ টি ভিন্ন  মাত্রার কবিতা আমাদের প্রবাস ও দেশের চিত্র তুলার চেষ্টা করেছেন । বাংলাদেশের প্রথম সারিক ভয়েস আটিষ্ট সৈয়দ ইসমত তোহা বর্তমান সময়ের ঢাকার ইয়াং ভয়েস আইকন লুলুয়া ‍ ইসহাক মুন্নি যত্ন সহকারে সিডিতে কন্ঠ দিয়েছেন ।  ৪৮ বছর থেকে দেশের সেরা ভয়েস আটিস্ট ইসমাত তোহা বিনা পারিশ্রমিকে কাজ করে লেখক ও কবি জুয়েল সাদত কে সম্মানিত করেছেন । মোড়ক উন্মোচন অনুষ্টানে কবি জুয়েল সাদত উল্লেখ করেন সিডি বিক্রির সমুদয় অর্থ সাদত ফাউন্ডেশনে দান কৃত । তিনি উপস্থিত  সকলকে সাদত ফাউন্ডেশনের বিভিন্ন প্রজেক্ট ‍উপস্থাপন করেন ।

সিলেটের তিন জন জনপ্রিয় লেখক মুজিবুর রহমান শাহিন, হারান কান্তি সেন ও মাহমুদুর রহমান আমেরিকায় প্রবাসে থেকেও  শত ব্যস্ততার মাঝেও জুয়েল সাদত নিয়মিত বই প্রকাশ , সিডি প্রকাশের ভুয়সি প্রশংসা করেন। অনুষ্টানের শেষ পর্যায়ে হারান কান্তি সেন তার সদ্য প্রকাশিত “ নষ্টালজিক কলোনি লাইফ “ উপস্থিত সকলকে উপহার দেন ।

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত