যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৭ ইং

|   ঢাকা - 04:48am

|   লন্ডন - 10:48pm

|   নিউইয়র্ক - 05:48pm

  সর্বশেষ :

  ধর্ম অবমাননা নিয়ে রংপুরে সহিংসতা, আদালতে টিটু রায়ের স্বীকারোক্তি   টিকাতেই নিরাময় হবে ক্যান্সার   মিয়ানমারে রোহিঙ্গারা ‘জাতিগত বৈষম্যের’ শিকার : অ্যামনেস্টি   ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র জালিয়াতি, আটক ৮   নাইজেরিয়ায় মসজিদে বোমা বিস্ফোরণে নিহত ৫০   রোহিঙ্গাদের ফেরাতে চলতি সপ্তাহে সমঝোতার আশা সু চি’র   জানুয়ারি থেকে সব বাহিনীর মুক্তিযোদ্ধাদের বিশেষ ভাতা: প্রধানমন্ত্রী   আমেরিকান মিউজিক অ্যাওয়ার্ডসে সেরা হলেন যারা   পদত্যাগ নয়, জাতির উদ্দেশে ভাষণ দিলেন মুগাবে   কেন সৌদি আরব এমন করছে?   মরক্কোয় ত্রাণ নেওয়ার সময় পদদলিত হয়ে নিহত ১৫   ৭ মার্চকে ঐতিহাসিক দিবস ঘোষণা চেয়ে হাইকোর্টে রিট   শাহজালালের মাজারের কুপের পানিকে জমজমের পানি বলে প্রতারণা : তদন্তের নির্দেশ আদালতের   এলপিজি আমদানির জাহাজ কিনলো বেক্সিমকো পেট্রোলিয়াম   রোহঙ্গিা সঙ্কট নিরসনে চীনের ৩ ধাপের প্রস্তাব

>>  নিউইয়র্ক এর সকল সংবাদ

নিউ ইয়র্কে ট্রাক উঠিয়ে দিয়ে ৮ জনকে হত্যা

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের লোয়ার ম্যানহাটানে একটি সাইকেল চালানোর রাস্তায় পথচারী ও সাইকেল চালকদের ওপর ট্রাক উঠিয়ে দিয়ে আট জনকে হত্যা করেছে সন্দেহভাজন এক সন্ত্রাসী।

কর্তৃপক্ষ বলছে, এটি একটি সন্ত্রাসী হামলা। সাদা রঙের একটি পিক-আপ ট্রাক নিয়ে হাডসন নদীর পাশ দিয়ে সাইকেল চালানোর রাস্তায় হামলা চালায় ২৯ বছর বয়সি ওই সন্ত্রাসী। এ ঘটনায় আহত হয়েছে কমপক্ষে ১১ জন।

পুলিশ জানিয়েছে, মানুষের ওপর দিয়ে ট্রাক উঠিয়ে দেওয়ার পর সন্ত্রাসী ট্রাক-চালককে গুলি করেন পুলিশের একজন কর্মকর্তা। পরে আহত অবস্থায় তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গণমাধ্যমে তার নাম সাইফুলো সাইপোভ বলা হয়েছে।

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্কে ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলে বর্ণাঢ্য বই উৎসব

 প্রকাশিত: ২০১৭-১০-১০ ১৫:১৫:১১

বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মাধ্যমে নিউইয়র্কে ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলে বাংলা পাঠ্যপুস্তক উৎসব উদযাপিত হয়েছে। স্থানীয় সময় গত ৮ অক্টোবর রোববার অপরাহ্নে ম্যানহাটানের পিএস ১৭১ এ  আয়োজিত এ অনুষ্ঠানে বাংলা স্কুল শিক্ষার্থীদের মধ্যে বাংলাদেশের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বই বিনামূল্যে বিতরণ করা হয়। উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি-রাষ্ট্রদূত ও চট্রগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান ড. এ কে আবদুল মোমেন।
ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের সিইও ইকবাল আহমেদ মাহবুবের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান এবং বাংলাবাজার বিজনেস এসোসিয়েশন ও বাংলাবাজার জামে মসজিদের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি আলহাজ গিয়াস উদ্দিন।ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের সাংস্কৃতিক পরিচালক মনিকা রায় এবং পরিচালক প্রশাসক মো. তাজুল ইসলামের যৌথ সঞ্চালনায় এ অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন ইউএসএনিউজঅনলাইন.কম সম্পাদক ও টিভি উপস্থাপক সাখাওয়াত হোসেন সেলিম, ভয়েস অব আমেরিকার সাংবাদিক মো. শাহাদাত হোসাইন, আমেরিকান-বাংলাদেশী ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনক’র সাধারণ সম্পাদক জামাল হুসেন, এবিবিএ কর্মকর্তা বিলাল চৌধুরী, ছাতক সমিতির সভাপতি মো: আবদুল খালেক, বাংলা স্কুলের সিনিয়ার শিক্ষক কবি আশরাফ হাসান, সাবেক ভারপ্রাপ্ত প্রিন্সিপাল রুখসানা রাজ্জাক খান, শিক্ষিকা রুনা লায়লা, সানজিদা খানম, স্কুলের পরিচালক মানিক আহমেদ, মো.মনির উদ্দিন, আজমান আলী, দীন ইসলাম, আবদুর রহিম সেলিমা, মো. ইসমাইল, কাওসার ভূইয়া,  সুফিয়া আলী, শিল্পী, তৌহিদুর আহম্মদ, কমিউনিটি এক্টিভিস্ট ইফজাল চৌধুরী প্রমুখ। অনুষ্ঠানে স্কুলের শিক্ষার্থীরা অতিথিদের ফুল দিয়ে অভ্যর্থনা জানায়।
             
উৎসবমুখর পরিবেশে আমন্ত্রিত অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে প্রবাসী বাংলাদেশী শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বই তুলে দেন স্কুলের কর্মকর্তারা। আনন্দ-উচ্ছ্বাসে এসব বই গ্রহণ করে ছাত্রী-ছাত্রীরা। এসময় সৃষ্টি হয় ভিন্ন এক আমেজ। অনুষ্ঠানে ছাত্র-ছাত্রীদের অভিভাবকরা ছাড়াও বিপুল সংখ্যক প্রবাসীও উপস্থিত ছিলেন।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. এ কে আবদুল মোমেন বাংলাদেশের দ্রুত এগিয়ে যাওয়ার কথা উল্লেখ করে বলেন, এমন একদিন আসবে ছেলে-মেয়েরা আমেরিকায় পড়া-শুনা শেষ করে বাংলাদেশে গিয়ে কাজ করবে। তখন এ বাংলা শিক্ষাটা তাদের বড় কাজে আসবে। তিনি এসময় কমিউিিনটি ও দেশ সেবায় বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখতে বাংলাদেশীদের মূলধারার রাজনীতিতে সম্পৃক্ত হওয়ার আহ্বান জানান।
কনসাল জেনারেল শামীম আহসান ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের কার্যক্রমের প্রশংসা করে বলেন, এ প্রজন্মের সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উৎসাহ দেয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ডের বই বিনামূল্যে বিতরণের এ উদ্যোগ নেয়া হয়। বাংলাদেশী তরুণ প্রজন্মের চিন্তা চেতনায় বাংলা ভাষা সাহিত্য সাংস্কৃতিক বিকাশ সাধনে বাংলা স্কুল নতুন মাত্রা যোগ করেছে। এর মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের বাংলাভাষা ও সংস্কৃতি চর্চা সহজতর হবে।
আলহাজ গিয়াস উদ্দিন এ প্রজন্মের সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উৎসাহ দেয়ার জন্য এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগের প্রশংসা করে নিজ পরিবার থেকে সন্তানদের বাংলা শিক্ষায় উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান।
ম্যানহাটান বাংলা সাংস্কৃতিক স্কুলের সিইও ইকবাল আহমেদ মাহবুব প্রবাসী বাংলাদেশী এ প্রজন্মের শিক্ষার্থীদের মাঝে ফ্রি স্কুল বই বিতরণ করার জন্য কনসাল জেনারেল ও বাংলাদেশের জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানান। তিনি সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানিয়ে স্কুলের কার্যক্রম আরো এগিয়ে নিতে সকলের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি জানান, বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে বিগত ২ বছর যাবত বাঙালী ছাত্র-ছাত্রীদের মাঝে ফ্রি স্কুল বই বিতরণ করা হচ্ছে। এতে তার স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা দারুণভাবে উপকৃত হচ্ছে। উৎসবকে সাফল্যমন্ডিত করে তোলার জন্য সংগঠনের সকল সদস্য, শুভানুধ্যায়ী ও সহযোগীদের প্রতি গভীর কৃতজ্ঞতা ও আন্তরিক ধন্যবাদ জানিয়েছেন ইকবাল আহমেদ মাহবুব।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন বক্তা এ ধরনের উদ্যোগের প্রশংসা করে প্রবাসে জন্ম নেয়া ও বেড়ে ওঠা নতুন প্রজন্মের শিশু কিশোরদের জন্য এর প্রয়োজনীয়তার কথা তুলে ধরেন। ম্যানহাটানে বাংলা স্কুল প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে বাংলা ভাষা ও সাহিত্য সংস্কৃতিকে ছড়িয়ে দেওয়ার যে প্রয়াস নেয়া হয়েছে তা মাইল ফলক হয়ে থাকবে। তারা বলেন, প্রবাসে শিশুদের বাংলা শেখানোর কাজ অনেকের কাছে কঠিন মনে হলেও আসলে এটা মোটেও কঠিন নয়। এজন্য অভিভাবকদের উদ্যোগী হতে হবে। ঘরে ঘরে নিজ সন্তানদের সাথে সব সময় বাংলায় কথা বলার চর্চা রাখতে হবে। প্রবাসে নতুন প্রজন্মের কাছে বাংলাভাষা ও সংস্কৃতিকে তুলে ধরা সকল অভিভাবকেরই কর্তব্য বলে বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন।


এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বাংলাদেশ বৌদ্ধ বিহার অব নিউইয়র্কে কঠিন চীবর দানোৎসব অনুষ্ঠিত

 প্রকাশিত: ২০১৭-১০-১০ ১৫:০০:০৪

আমেরিকার বাংলাদেশ বৌদ্ধ বিহার অব নিউইয়র্কে ৮ অক্টোবর ২০১৭ ইং'রবিবারে উদ্‌যাপিত হয়েছে দানশ্রেঠ কঠিন চীবর দান। সারাদিন ব্যাপী পূণ্যানুষ্ঠানের প্রথম পর্বে বিহার অধ্যক্ষ ভদন্ত মুদিতারত্ন থের সঞ্চালনায় বিশ্ব সুখ-শান্তি কামনায় সমবেত সূত্রপাঠ, বুদ্ধ পূজা,বুদ্ধ মূর্তি উৎসর্গ,সদ্ধর্মদেশনা,অষ্টপরিস্কারসহ সংঘদান,ভিক্ষুসংঘকে পিন্ডদান ও নানাবিধ ধর্মীয় অনুষ্ঠান সম্পূর্ণ হয়।
দ্বিতীয় পর্বে উপস্থিত সবার মধ্যাহ্নভোজের পর উত্তম বড়ুয়ার সঞ্চালনায় মহান এই ধর্মানুষ্ঠানে মৈত্রী ভাবনা পাঠ করেন সপ্তবর্না বড়ুয়া ও সুদিপ্তা বড়ুয়া।উদ্ভোধনী ভাষন দেন বাংলাদেশ বৌদ্ধ বিহার অব নিউইয়র্কের সভাপতি বাবু নয়ন বড়ুয়া।স্বাগত ভাষণ প্রদান করেন উদযাপন পরিষদের আহ্বায়ক বাবু অমল বড়ুয়া।নিউইর্য়ক সাধনানন্দ আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ বিহারের অধ্যক্ষ ভদন্ত জ্ঞানরত্ন মহাথেরো'র সভাপতিত্বে শ্রীলংকান বৌদ্ধ বিহারের ভদন্ত কৌন্ডন্যয় মহাথেরো সদ্ধর্মদেশনা প্রদান করেন।এতে আরো সদ্ধর্মদেশনা করেন বুদ্ধিস্ট কাউন্সিল অব নিউইয়র্কে সভাপতি বৌদ্ধ ভিক্ষু ড.কেনজিৎসু নাকাগাকি,ভদন্ত নন্দা থেরো,বিহার অধ্যক্ষ ভদন্ত মুদিতারত্ন সহ পূজনীয় প্রাজ্ঞ ভিক্ষুসংঘ ।পঞ্চশীল প্রার্থনা করেন মিলন বড়ুয়া।

চীবর পরিক্রমা করে কঠিন চীবর উৎসর্গ শেষে বিহারের সাধারণ সম্পাদক রাখাল বড়ুয়া সবাইকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।সন্ধ্যায় ভক্তিমূলক সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান শেষে বিহারের অষ্টম বর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে কেক কেটে ফানুস উত্তোলন করা হয়।উক্ত পূণ্যানুষ্ঠানে ধর্মপিপাসু দুই শতাধিক উপাসক-উপাসিকা উপস্থিত ছিলেন।

এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্কে সাবেক রাষ্ট্রদূত ড. মোমেনকে সংবর্ধনা

 প্রকাশিত: ২০১৭-১০-০৮ ০০:৪৫:২৪

জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. একে আব্দুল মোমেনকে নিউইয়র্কে নাগরিক সংবর্ধনা দেয়া হয়েছে। গত বুধবার সন্ধ্যায় জ্যাকসন হাইটসের বেলিজিনো পার্টি হলে কমিউনিটির বিশিষ্ট ব্যক্তিদের উপস্থিতিতে উক্ত সংবর্ধনা দেয়া হয়। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সহসভাপতি সৈয়দ বশারত আলী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন সংবর্ধনা কমিটির সদস্য সচিব হুমায়ুন আহমেদ চৌধুরী ও যুগ্ম সদস্য সচিব ইফজাল আহমেদ চৌধুরী।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি ড. সিদ্দিকুর রহমান, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর আলেয়া সারোয়ার ডেইজী, বাংলাদেশ লীগ অব আমেরিকা’র সাবেক সভাপতি ও ড. মোমেনের বড় ভাই শেলী এ মুবদী, বাংলাদেশ সোসাইটির সভাপতি কামাল আহমেদ, জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকার ট্রাষ্ট্রি সদস্য জহিরুল ইসলাম, ফার্মাসিস্ট আব্দুল আওয়াল সিদ্দিকী, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ডা. মাসুদুল হাসান, সাংবাদিক হাকিকুল ইসলাম খোকন, এম এ জলিল ও তোফায়েল আহমেদ চৌধুরী, সহ সভাপতি আবুল কাশেম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক এম এ সালাম, ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক আবদুস সামাদ আজাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মহিউদ্দিন দেওয়ান, মানবাধিকার বিষয়ক সম্পাদক মিসবাহ আহমেদ, শিল্প ও বাণিজ্য বিষয়ক সম্পাদক ফরিদ আলম, বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা সংসদ যুক্তরাষ্ট্র কমান্ডের কমান্ডার ডা. এম এ বাতেন, মুক্তিযোদ্ধা সরাফ সরকার, দি অপটিমিস্ট-এর প্রধান সমন্বয়কারী রানা চৌধুরী, যুক্তরাষ্ট্র জাতীয় পার্টির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হাজী আব্দুর রহমান, যুক্তরাষ্ট্র জাসদ-এর (একাংশ) সভাপতি দেওয়ান শাহেদ চৌধুরী, নিউইয়র্ক ষ্টেট আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন আজমল, কানেকটিকাট আওয়ামী লীগের সভাপতি জুনেদ এ খান, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী ফকু চৌধুরী, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট ছদরুন নূর ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ নেতা খসরুজ্জামান খসরু।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত ও বিশেষ মুনাজাত পরিচালনা করেন ডাউন টাউন ম্যানহাটান মসজিদের খতিব মওলানা কারী মোহাম্মদ রহমত উল্লাহ। এরপর বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সঙ্গীত পরিবেশনের পর প্রজেক্টটরে ড. মোমেনকে নিয়ে বিভিন্ন মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের অংশ বিশেষ ও কর্মকান্ড তুলে ধরা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সোসাইটি ইনক’র সাবেক সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপিকা রানা ফেরদৌস চৌধুরী। শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন, সংবর্ধনা কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হাজী এনাম, যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের কৃষি বিষয়ক সম্পাদক আশরাফুজ্জামান, আওয়ামী লীগ নেতা আলহাজ কফিল আহমেদ, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা আহবায়ক রেজাউল করীম চৌধুরী, বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আহসান হাবিব, মূলধারার রাজনীতিক আব্দুস শহীদ, কমিউনিটি অ্যাক্টিভিস্ট শাহ মিজানুর রহমান, নাসির উদ্দিন, জাহাঙ্গীর কবীর, এএফ মিসবাহউজ্জামান, কবি সোনিয়া কাদের, বাংলাদেশ সোসাইটি নিউইয়র্ক’র সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক মনিকা রায়, ওসমানী স্মৃতি পরিষদের সভাপতি নজমুল ইসলাম চৌধুরী, নিউইয়র্ক ষ্টেট আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ এম এইচ মতিন, নিউজার্সী আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক টিপু সুলতান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগ নেতা এমাদ উদ্দিন, জাভেদ সিরাজ, যুক্তরাষ্ট্র যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক শেখ জামাল হোসেন, সেবুল মিয়া ও রহিমুজ্জামান সুমন, যুবলীগ নেতা শোয়েব আহমেদ, জর্জিয়া যুবলীগের সভাপতি নূরুল তালুকদার নাহিদ প্রমুখ।

সংবর্ধিত ড. একে আবদুল মোমেন বলেন, জাতিসংঘের স্থায়ী প্রতিনিধির হিসেবে ৬ বছর কাজ করার পর মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দেশে ফিরিয়ে নিয়ে গেছেন এবং কিছু দায়িত্ব দিয়েছেন। আমি সেই দায়িত্ব পালনের পাশাপাশি সরকারের অর্থমন্ত্রীর সহযোগিতায় সিলেটের উন্নয়নে কিছু কাজ করে চলেছি।

ড. মোমেন বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নের মহাসড়কে এগিয়ে চলেছে। এই বাংলাদেশকে আরো এগিয়ে নিতে হবে। তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে আমি জনপ্রতিনিধি নির্বাচিত হই বা না হই, সিলেটের জন্য কাজ করে যাবো। আমি সিলেটকে দৃষ্টি নন্দন সিলেট আর উন্নত বাংলাদেশ দেখতে চাই। এজন্য দেশে বিনিয়োগ বাড়াতে হবে, মানব সম্পদ কাজে লাগাতে হবে, সন্ত্রাসমুক্ত সমাজ গড়তে হবে, রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে হবে। তিনি বলেন, দীর্ঘ প্রবাস জীবন ছেড়ে দুই বছর ধরে আমি বাংলাদেশে বসবাস করছি। আমি ভালো আছি, শান্তিতে আছি, উই আর ভেরী হ্যাপি। আগামী দিনের পথ চলায় তিনি সকল প্রবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।

অনুষ্ঠানে বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশীসহ ড. মোমেনের বড় ভাই শেলী এ মুবদী, মেঝো ভাই এস এ মুইজ সুজন, ছোট ভাই এবিএম মুমিত ফুয়াদ ও কন্যাসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্য ও স্বজনরা উপস্থিত ছিলেন।


এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্কে হত্যার দায়ে বাংলাদেশি যুবকের ২৫ বছরের কারাদণ্ড

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৯-৩০ ১৮:০৩:৫৩

নিউইয়র্কে হত্যার দায়ে এক বাংলাদেশি যুবককে ২৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। হত্যা কাণ্ডের শিকার ঐ বাংলাদেশি ব্যবসায়ীর নাম মহিউদ্দিন মাহমুদ দুলালকে (৫৭)। তাকে গলা কেটে হত্যা করা হয়।   গত বৃহস্পতিবার ব্রুকলীন সুপ্রিম কোর্টে বিচারপতি নীল ফিরেটোগ এ রায় প্রদান করেন। এসময় আসামি মোহাম্মদ রাসেল সিদ্দিকীকে (৩০) আদালতে উপস্থিত ছিল।
রাসেল আদালতকে জানায়, গ্রেপ্তারের পর থেকে বিচারের শেষদিন পর্যন্ত রাসেল নিজের দোষ স্বীকার করে। এমন নৃশংসতায় দ্বিতীয় কোনো ব্যক্তি জড়িত ছিল না বলেও সে উল্লেখ করে।

রায়ের পর ব্রুকলীনের ডিস্ট্রিক্ট এটর্নী (ভারপ্রাপ্ত) এরিক গঞ্জালেজ গণমাধ্যমকে জানান, রাসেল কান্ডজ্ঞানহীন কাজ করেছে। কারাদণ্ডের মেয়াদ শেষে রাসেলকে আরো ৫ বছর কর্তৃপক্ষের কঠোর নজরদারিতে থাকতে হবে।

মামলার রায়ের সময় দুলালের শিশু সন্তানসহ দ্বিতীয় স্ত্রী আফরোজা বেগম কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। তিনি এ রায়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন।

রাসেল বরাবরই আদালতে একই কথা জানিয়েছিল, সময় মতো ভাড়া পরিশোধ করতে পারিনি বলে সব সময় দুলাল আমাকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করতেন। এটি সহ্য হয়নি। সেজন্যেই তাকে আমি হত্যা করেছি।

প্রসঙ্গত, ২০১৪ সালের ৬ জানুয়ারি সন্ধ্যায় বাংলাদেশি অধ্যুষিত ব্রুকলীনের চার্চ-ম্যাকডোনাল্ডে ধারালো তলোয়ার দিয়ে দুলালকে হত্যা করা হয়। সন্দ্বীপের সন্তান দুলালের ভাড়াটে ছিল রাসেল। রাসেলের বাড়ি নোয়াখালী। সে দুলালের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের বেসমেন্টে থাকত। সেখানেই দুলালকে হত্যা করে রাসেল বাংলাদেশে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। তবে ঘটনার দুইদিন পর নিউইয়র্ক পুলিশ তাকে জেএফকে এয়ারপোর্ট থেকে গ্রেপ্তার করে।

এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

বিশ্ব সিলেট সম্মেলন শুরু : নিউইয়র্কে সিলেটীদের মিলনমেলা

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৯-১৭ ০৯:২৮:৫২

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে দুই দিনব্যাপী ‘জালালাবাদ বিশ্ব সিলেট সম্মেলন’ শুরু হয়েছে গত শনিবার। দুই দিন ব্যাপী এই সম্মেলন শেষ হওয়ার কথা রবিবার।
স্থানীয় সময় গত শনিবার দুপুরে জ্যামাইকার ইয়র্ক কলেজ মাঠে সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রধান অতিথি ও ‘ব্র্যাক’-এর প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদ।
প্রধান অতিথি তার বক্তব্যে এ ধরনের সম্মেলনের গুরুত্বের কথা উপস্থাপন করে বলেন, “শেকড়ের সাথে সম্পর্ক জোরদারের পাশাপাশি প্রিয় মাতৃভূমির উন্নয়ন ও কল্যাণের পথকেও ত্বরান্বিত করার উৎসাহ জোগায়। শুধু তাই নয়, পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়নের ক্ষেত্রেও বিশেষ একটি ভূমিকা রাখে।”
এ সময় বিশেষ অতিথি হিসেবে মঞ্চে ছিলেন বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার, বীর উত্তম খেতাবপ্রাপ্ত জেনারেল সি. আর. দত্ত বীর উত্তম।
সম্মেলনে অতিথিদের মধ্যে আরও বক্তব্য দেন মার্কিন কংগ্রেসওম্যান গ্রেস মেং, সাবেক এমপি ও আমেরিকায় জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিষ্ঠাতা সেক্রেটারি এম এম শাহীন, বাংলাদেশ হাই কোর্ট ডিভিশনের বিচারপতি  মো. আবু তারিক, জাতিসংঘে বাংলাদেশের সাবেক স্থায়ী প্রতিনিধি ও রাষ্ট্রদূত ড. এ কে এ মোমেন ও সাবেক সচিব এনাম আহমেদ চৌধুরী।
এছাড়া আরও বক্তব্য দেন ঢাকায় জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি সি এম তোফায়েল সামী, অর্থনীতিবিদ কাজী খলিকুজ্জমান, ‘জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন’-এর সভাপতি বদরুল খান, সেক্রেটারি জুয়েল চৌধুরী ও সম্মেলনের আহ্বায়ক জিয়াউদ্দিন আহমেদ।
সম্মেলন উপলক্ষে বিভিন্ন পণ্যের স্টল দেওয়া হয়। সম্মেলনে নানা ইস্যুতে আলোচনার পাশাপাশি সিলেট অঞ্চলের শিল্পীরা সঙ্গীত পরিবেশন করেন।
কলকাতা, বাংলাদেশ, কানাডা, যুক্তরাজ্য, মধ্যপ্রাচ্য, অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে সিলেট অঞ্চলের প্রবাসীরা অংশ নেন এ সম্মেলনে।
আয়োজনে বিশেষ সহায়তা দেয় ঢাকায় জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন, যুক্তরাজ্য জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন, দক্ষিণ কলকাতা সিলেট অ্যাসোসিয়েশন, জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন অব টরন্টো ও জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়া ইনক।
গত শনিবার স্থানীয় সময় সকাল ১১টায় মার্কিন কংগ্রেসের সদস্য গ্রেস মেংসহ অন্যান্য অতিথি ও আয়োজকেরা বেলুন উড়িয়ে সিলেট বিশ্ব সম্মেলনের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ ও ভারতের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। সবার জন্য উন্মুক্ত সিলেট বিশ্ব সম্মেলনের আয়োজন এবং ব্যবস্থাপনায় রয়েছে নিউইয়র্কের জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশন।
জালালাবাদ সিলেট বিশ্ব সম্মেলনের আয়োজন নিয়ে সন্তুষ্টির কথা জানালেন সংগঠনের সভাপতি বদরুল হোসেন খান। তিনি বলেন, নানা সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও জালালাবাদ সিলেট বিশ্ব সম্মেলন নিয়ে প্রবাসীদের উৎসাহ আমাদের অনুপ্রাণিত করছে।
জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক জেড চৌধুরী জুয়েল বলেন, সব জায়গা থেকে ব্যাপক সহযোগিতা পাওয়া গেছে। এ বিশ্ব সম্মেলনের মাধ্যমে সিলেট অঞ্চলের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা নিয়ে সম্মিলিত আওয়াজ উঠবে বলে তিনি প্রত্যাশা করেন।


এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি



বিস্তারিত খবর

১৬-১৭ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কে ‘বিশ্ব সিলেট সম্মেলন’

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৯-০৬ ১৬:১০:৩১

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত সিলেটবাসীদের মধ্যে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্য বৃদ্ধির লক্ষ্যে  নিউ ইয়র্কে ‘বিশ্ব সিলেট সম্মেলন’ আয়োজন করেছে জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব আমেরিকা। আগামী ১৬ ও ১৭ সেপ্টেম্বর
জামাইকায় এই সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

আয়োজকরা জানিয়েছেন, প্রাচীনকাল থেকে সিলেটী মানুষের আতিথেয়তা, সহনশীলতা ও গ্রহণযোগ্যতার পাশাপাশি সমৃদ্ধ সাংস্কৃতিক পরিবেশে অনেক জ্ঞানী, গুণী, কবি, ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব গড়ে উঠেছেন। তদুপরি হজরত শাহজালাল (রা.) ইসলামিক সুফি আদর্শে ভালোবাসা ও সহনশীলতার অবকাঠামো  এবং সিলেটের সন্তান মহাপ্রভু শ্রীচৈতন্যের প্রভাবে হিন্দুদের মধ্যে বৈষ্ণব ধর্মের মানবিক গুণগুলো প্রসার লাভ করে। সে কারণে সিলেটের বিভিন্ন পল্লী কবির সুরে ও ছন্দে সব ধর্মের মানুষকে একই সুতায় গাঁথে। আজ সিলেট একটি শুধু মানচিত্র নয়, আজ সিলেটের বিশ্বায়ন হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্তে বসবাসরত সিলেটবাসীদের মধ্যে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্য বৃদ্ধির জন্য বিশ্ব সিলেট সম্মেলন আহ্বান জানাচ্ছে ।

ভারতের দক্ষিণ কলকাতা সিলেটি এসোসিয়েশন সিলেটি সম্মেলন শুরু করে অভূতপূর্ব এক সাড়া  জাগিয়েছেন। ঢাকা জালালাবাদ এসোসিয়েশন কতৃক এই  বছর বাংলাদেশের  ঢাকায় ও সিলেটে ও সুন্দর ভাবে তার পুনরাবৃত্তি ঘটেছে।  তাই আজ মনে হচ্ছে এই ধারাবাহিকতাকে সন্মান জানিয়ে সিলেট থেকে অনেক দূরে থেকেও বিশ্ষের বিভিন্ন্য দেশে যারা সিলেটি ঐতিয্য ও ভালোবাসাকে জাগিয়ে রেখেছেন তাদের জন্য সবচেয়ে প্রয়োজন একটা মিলন মেলার শুভ আয়োজন। 

সম্মেলনে আমেরিকার সকল অঙ্গরাজ্য সহ বাংলাদেশ, ভারত,কানাডা,যুক্তরাজ্য , জাপান , জার্মানী , মধপ্রাচ্য , মালয়েশিয়া ও অন্যান্য দেশ থেকে অনেকেই অংশ গ্রহণ করবেন. সম্মেলনে  সংগীত, নৃত্য , মিলন মেলা, আত্মকথা, পরিচিতি, শুভেচ্ছা বিনিময়, প্রজন্মের অনুভূতি, শিকড়ের সন্ধানে, সিলেটী খাবার ও অন্যান্য স্টল।  তদুপরি থাঁকবে প্রস্তাবিত বিভিন্ন বাস্তব প্রকল্প  যাতে সিলেট অঞ্চলের ইতিহাস, ঐতিহ্য, ভাষা, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক বিশেষত্বের সংরক্ষণ করা যায়।

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন বিশ্বের সর্ববৃহৎ বেসরকারি সাহায্য সংস্থার প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান স্যার ফজলে হাসান আবেদ। বিশেষ সম্মানিত অথিতি : বাংলাদেশ থেকে সুপ্রীম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এস.কে সিনহা ও আমেরিকা থেকে শিল্পপতি ও সমাজসেবী ডাঃ কালী প্রদীপ চৌধুরী। বিশিষ্ট অথিতিবৃন্দ :মুক্তিযুদ্ধের সেক্টর কমান্ডার মেজর জেনারেল (অব:) চিত্তরঞ্জন দত্ত বীর উত্তম, সিলেটের নারী শিক্ষার অগ্রিদূত অধ্যক্ষা (অব:) হোসনেআরা আহমেদ, বাংলাদেশের রেড ক্রিসেন্ট  চেয়ারম্যান জনাব হাফিজ আহমেদ মজুমদার,  ঢাকা জালালাবাদ সমিতির সভাপতি সি, এম. তোফায়েল সামি, মেজর জেনারেল( অব:) আজিজুর রহমান বীর উত্তম, জাতিসংঘের প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত ড: আব্দুল মোমেন,  গ্রীন ডেল্টা উপদেষ্টা   নাসির, এ  চৌধুরী,  প্রাক্তন উপদেষ্টা এনাম আহমেদ চৌধুরী, ,   ভারত থেকে দৈনিক "যুগশঙ্খ: পত্রিকার কর্ণধার ও সম্পাদক বিজয়কৃষ্ণ নাথ, গৌহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলার প্রধান ড: অমলেন্দু চক্রবর্তী ও অন্যান্য। 
যুক্তরাজ্য জালাবাদ এসোসিয়েশনের সভাপতি মুহাম্মদ মুহিবুর রহমান মুহিব , বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব পাশা খন্দকার, সাংবাদিক ও সমাজকর্মী নজরুল ইসলাম বাসন।  সেমিনারের বক্তা: আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অফ মাসাচুসেট ,ডার্টমাউথ এর ভাইস চ্যান্সেলর এবং প্রভোস্ট ড: মোহাম্মদ আতাউল করিম,
বাংলাদেশের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজির অধ্যাপক ড: সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, ভারতের গৌহাটি বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলার প্রধান ড: অমলেন্দু চক্রবর্তী, বাংলাদেশের অর্থিনীতিবিদ ড: মোহাম্মেদ খলিকুজ্জামান, যুক্তরাজ্যের নুতুন প্রজন্মের বক্তা সাবেরুল ইসলাম।
 
প্যানেল এর বক্তা : বাংলাদেশের জাতীয় অধ্যাপক ডাঃ শায়লা খাতুন, বাংলাদেশের প্রাক্তন উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, আমেরিকার ইউনিভার্সিটি অফ পেনসিলভানিয়ার অধ্যাপক বিশিষ্ট বিজ্ঞানী ড: হায়দার আলী , ভারতের দৈনিক "যুগশঙ্খ: পত্রিকার কর্ণধার ও সম্পাদক বিজয়কৃষ্ণ নাথ, বাংলাদেশের ব্র্যাক এর ভাইস চেয়ারম্যান ড: আহমেদ মুশতাকুর রাজা চৌধুরী, বেসরকারি সাহায্যসংস্থা সীমান্তিক  প্রধান  ড: আহমেদ আল কবীর , সাংবাদিক রক্তিম দাস, প্রকাশক এবং লেখক মোস্তফা সেলিম,
 
প্রজন্মদের প্যানেল বক্তা : বাংলাদেশের নতুন প্রজন্মের আন্তর্জাতিক নারী ব্যাক্তিত্ত ফারহানা চৌধুরী , নিউ ইয়র্ক রাজ্যের এসিস্টেন্ট এটর্নি জেনারেল ইমরান আহমেদ, নিউ ইয়র্ক থেকে বাংলাদেশে প্রযুক্তির প্রসারের  উদ্দ্যেক্তা  শাহেদ আহমেদ, নিউইয়র্কের বিশিষ্ট গ্যাস্ট্রোএন্টেরোলজিস্ট চিকিৎসক ডাঃ সৈয়দা তানজিয়া হুসেইন , ইউনিভার্সিটি অফ পেনসিলভানিয়ার পালমোনারি এবং ক্রিটিক্যাল কেয়ার এর চিকিৎসক ডাঃ নাহরীন আহমেদ।

গান পরিবেশনায় বাংলাদেশ থেকে: সুবীর নন্দী, শুভ্র দেব, জামালউদ্দিন হাসান বান্না , ডাঃ অরূপ রতন চৌধুরী , সেলিম চৌধুরী , সিলেটের নীলাঞ্জনা জুঁই এর নৃত্যদল "নৃত্য শৈলী", হিমাংশু বিশ্বাস। যুক্তরাজ্য  থেকে : হিমাংশু গোস্বামী, গৌরী চৌধুরী, শহীদ বাউল , আমেরিকা থেকে: দুলাল ভৌমিক, তাজুল ইমাম, কাবেরী দাশ, সালাহউদ্দিন আহমেদ , ফুয়াদ মুক্তাদির, ও অন্যান্য। কানাডা থেকে: সাবু শাহ। ভারত থেকে : প্রখ্যাত নৃত্য শিল্পী সোনালী আচার্জি (গিনিস ওয়ার্ল্ড বুক), কায়া  ব্যান্ড ও অন্যান্য।
আরো থাকছে আন্তর্জাতিক সাংস্কৃতিক ব্যাক্তিত্ত শাকুর মজিদ রচিত ও পরিচালিত পরিবেশনা "শত বছরের সিলেটের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য"।

সম্মেলনের সহযোগী হিসেবে রয়েছে ঢাকা জালালাবাদ এসোসিয়েশন। সহায়তায়: যুক্তরাজ্য জালালাবাদ এসোসিয়েশন, দক্ষিন কলকাতা সিলেট এসোসিয়েশন।  বিশ্ব সমন্বয়কারী : রাশেদা কে চৌধুরী ( বাংলাদেশ) , ডাঃ দীপ্তা দে (ভারত) , পাশা খন্দকার ( যুক্তরাজ্য ), ইত্রাদ জুবেরী সেলিম ( কানাডা) , সাকি চৌধুরী ( জার্মানী )।  পৃষ্ঠপোষক : ডাঃ কালী প্রদীপ চৌধুরী,  তহুর চৌধুরী।


এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্ক পুলিশের বাংলাদেশি কর্মকর্তার আত্মহত্যা

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৮-১৪ ১৫:১২:৩৬

নিজের পিস্তলের গুলিতে নিউইয়র্ক পুলিশের এক বাংলাদেশি কর্মকর্তা আত্মহত্যা করেছেন। স্থানীয় সময় রবিবার বিকেলে কুইনসের সেন্ট আলবেন্স এলাকার বাড়িতে তিনি আত্মহত্যা করেন বলে নিউইয়র্ক পুলিশ জানিয়েছে।

ওই পুলিশ কর্মকর্তার নাম হেমায়েত উদ্দিন সরকার (৩৭)। তিনি পরিবার নিয়ে ওই বাড়িতে থাকতেন।

ময়নাতদন্তের জন্য হেমায়েতের লাশ সিটি মেডিকেল এক্সামিনারের অফিসে নেওয়া হয়েছে। তবে তার আত্মহত্যার কারণ সম্পর্কে জানা যায়নি।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, হেমায়েত যখন বেইজমেন্টে ওই ঘটনা ঘটান, সে সময় তার স্ত্রী-সন্তান, বাবা ও পরিবারের অন্য সদস্যরা বাসাতেই ছিলেন।

স্থানীয় বাংলাদেশিরা জানান, হেমায়েত উদ্দিন সরকারের বাড়ি সিরাজগঞ্জে। ২০০০ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে এসেছিলেন। ২০০৫ সালে তিনি নিউইয়র্ক পুলিশে যোগ দেন।

এলএবাংলাটাইমস/ওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

মস্কোয় মার্কিন কূটনীতিবিদদের সংখ্যা কমানোর নির্দেশ

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৮ ১০:২৭:০৪

মস্কোয় নিযুক্ত মার্কিন কূটনীতিবিদদের সংখ্যা কমানো ও সেখানকার মার্কিন দূতাবাসের গুদাম ব্যবহার না করার নির্দেশ দিয়েছে রাশিয়া।

রাশিয়ার বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপের বিল মার্কিন কংগ্রেস অনুমোদন করার পরিপ্রেক্ষিতে পাল্টা এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে মস্কো।

শুক্রবার এক বিবৃতিতে সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখে মধ্যে রাশিয়ার মার্কিন কূটনীতিবিদের সংখ্যা কমিয়ে ৪৫৫ জনে নামিয়ে আনতে হবে বলে রুশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়ে দিয়েছে। আমেরিকায় একই সংখ্যক রুশ কূটনীতিবিদ কর্মরত রয়েছেন।

এছাড়া মস্কোর মার্কিন দূতাবাসের গুদাম আগামী মাসের ১ তারিখ থেকে আর ব্যবহার করা যাবে না বলেও জানানো হয়েছে।

ক্রেমলিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ বলেছেন, এ পদক্ষেপ অনুমোদন করেছেন প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। গুপ্তচরবৃত্তির কথিত অভিযোগে বিগত বছর নভেম্বর মাসে আমেরিকা থেকে রাশিয়ার ৩৫ কূটনীতিবিদকে বহিষ্কারের নির্দেশ দিয়েছিল সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার সরকার।

সূত্র : সিনহুয়া

বিস্তারিত খবর

‘আমি একাই ২ সহস্রাধিক ইরাকিকে হত্যা করেছি’

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৮ ১০:২৫:২২

ইরাকে মার্কিন সেনাদের পৈশাচিক গণহত্যা ও বর্বরতায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে অবসরপ্রাপ্ত এক মার্কিন সেনা বলেছে, সে একাই ৫ বছরে এই মুসলিম দেশের ২ হাজার ৭৪৬ নাগরিককে হত্যা করেছে এবং এইসব পাশবিক হত্যাযজ্ঞ চালিয়ে সে গর্ব অনুভব করে।

ডিলার্ড জনসন নামের ৪৮ বছর বয়স্ক এই মার্কিন সেনা ২০০৫ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত এইসব হত্যাকাণ্ড চালায় এবং এ জন্য সে কোনো অনুশোচনা না করে গর্ব অনুভব করার কথা জানিয়েছে।

মার্কিন ইতিহাসের ‘সবচেয়ে নির্দয় বা পাষাণ সেনা’ হিসেবে কুখ্যাত এই জল্লাদ ফক্স নিউজকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে পৈশাচিক উল্লাস প্রকাশ করে বলেছে, ১৩ বছর বয়সে হরিণ শিকার করে যে আনন্দ পেয়েছি এতো বিপুল সংখ্যক ইরাকিকে হত্যা করে তার চেয়েও বেশি আনন্দ উপভোগ করেছি!

ইরাকে তার প্রথম হত্যাকাণ্ডের স্মৃতিচারণ করে জনসন জানায়, দেশটির দক্ষিণাঞ্চলে আসসামাভে শহরের কাছে একটি যাত্রীবাহী বাসের ওপর সাঁজোয়া যান চাপিয়ে দিয়ে গণহত্যা শুরু করেছিল সে। ওই হত্যাযজ্ঞে নিহত হয়েছিল ১৩ জন নিরপরাধ বেসামরিক ইরাকি।

মার্কিন এই নরঘাতক গর্ব প্রকাশ করে আরো বলেছে, ইরাকে অবস্থানের সময় এমন কোনো দিন ছিল না যে কোনো একজন বা দু’জন ইরাকিকে হত্যা করিনি। অবসর গ্রহণের পর এই ঘাতক সেনাকে মার্কিন সশস্ত্র বাহিনীর পক্ষ থেকে ‘যুদ্ধের বীর’ বলে অভিহিত করে খেতাব ও ৩৭টি মেডেল দেয়া হয়।

জনসন নানা ধরনের মানসিক রোগে আক্রান্ত হয়েছে এবং তার স্ত্রীও তাকে তালাক দিয়েছে।

ইরাকে মার্কিন হামলা ও দখলদারিত্বের সময় প্রায় ১৫ লাখ ইরাকি দখলদার মার্কিন সেনাদের হাতে নিহত হয়েছে। এ ছাড়াও ২০০৩ সাল থেকে এ পর্যন্ত কয়েক লাখ ইরাকি আহত ও পঙ্গু হয়েছে মার্কিন সেনাদের হাতে। এ অঞ্চলে মার্কিন সেনাদের অপরাধযজ্ঞ সম্পর্কে বহু গণমাধ্যমে প্রায় প্রতিদিন নানা প্রামাণ্য প্রতিবেদন ফাঁস হওয়ার পরও মানবাধিকার সংস্থাগুলো কোনো কার্যকর প্রতিক্রিয়া দেখায়নি।

ইরাকে মার্কিন আগ্রাসনের জন্য মার্কিন নাগরিকদের ওপর চাপিয়ে দেয়া হয়েছিল ৬ ট্রিলিয়ন ডলারের বোঝা। বিচারের মুখোমুখি হওয়ার ভয়-ভীতি ছাড়াই ইরাকে মোতায়েন দখলদার মার্কিন সেনারা সব ধরনের নৃশংসতা ও পাশবিকতার আশ্রয় নিয়েছে। ইরাক ও আফগানিস্তানে নানা পাশবিক অপরাধে জড়িত অনেকে মার্কিন সেনাকে বীরত্বের পদকও দেয়া হয়েছে দেশটির সরকারের পক্ষ থেকে!

সূত্র : সিনহুয়া

বিস্তারিত খবর

ওবামা হেলথকেয়ার বাতিলের চেষ্টা ব্যর্থ

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৮ ১০:২১:৪৬

ওবামা হেলথকেয়ার বাতিলের সর্বশেষ চেষ্টাও মার্কিন সিনেটে নাটকীয়ভাবে ব্যর্থ হয়েছে। শুক্রবার এ খবর দিয়েছে ব্রিটিশ বার্তাসংস্থা বিবিসি।

নতুন বিলের বিপক্ষে কমপক্ষে তিনজন রিপাবলিকান ভোট দিয়েছেন। এরা হলেন, জন ম্যাককেইন, সুসান কলিনস এবং লিসা মুরকোসকি। সাধারণ সংখ্যাগরিষ্ঠতার ভিত্তিতেই এই বিল পাস হওয়ার কথা ছিল।

এই বিলের পক্ষে ভোট দিয়েছেন ৪৯ জন এবং বিপক্ষে ভোট দিয়েছে ৫১জন সিনেট সদস্য। বিপক্ষে সংখ্যাগরিষ্ঠতা বেশি হওয়ায় ওবামা কেয়ার বাতিলের দীর্ঘদিনের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হলো।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার নির্বাচনী প্রচারণায় এই বিল বাতিলের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। ক্ষমতা গ্রহণের পর থেকেই তিনি এই বিল বাতিল করতে চেয়েছেন।

সূত্র : বিবিসি

বিস্তারিত খবর

তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ সেনাবাহিনীতে সুযোগ পাবে না : ট্রাম্প

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৭ ০৮:২৩:০০

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেছেন, তার দেশের সেনাবাহিনীতে কোনো প্রেক্ষিতেই তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের সুযোগ দেয়া হবে না। টুইটারে দেয়া পোস্টে তিনি বলেন, সেনাবাহিনীতে তৃতীয় লিঙ্গর মানুষ থাকার ব্যাপক খরচ ও বিঘ্ন সৃষ্টির প্রেক্ষিতে সামরিক বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শের পরে তিনি এই সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন।

উল্লেখ্য, র‌্যান্ড কর্পোরেশনের ২০১৬ সালের হিসেব অনুযায়ী ১২ লাখ সেনাবাহিনী সদস্যর মধ্যে কমপক্ষে ২হাজার ৪শ৫০ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ রয়েছে। গত বছর ওবামা প্রশাসন সেনাবাহিনীতে প্রকাশ্যে তৃতীয় লিঙ্গর মানুষ নিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছিল। কিন্তু গত জুনে ট্রাম্প প্রশাসনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী জেমস ম্যাটিস সেই সিদ্ধান্তে ছয় মাস স্থগিত করেন।

টুইটারে দেয়া পোস্টে ট্রাম্প বলেন, ‘আমাদের সামরিক বাহিনীকে যুদ্ধ জয়ের চূড়ান্ত লক্ষ্যের দিকে দৃষ্টি রেখেই এগিয়ে যেতে হবে। তাদের ওপর বিপুল ডাক্তারি খরচের বোঝা চাপানো যায় না কিংবা কোনও বিঘ্নও ঘটতে দেওয়া যায় না।’ রিপাবলিকানরা তৃতীয় লিঙ্গের মানুষদের সেনাবাহিনীতে নিয়োগের বিরোধিতা করেছে। র‌্যান্ড কর্পোরেশনের ২০১৬ সালের হিসেব অনুযায়ী ১২ লাখ সেনাবাহিনী সদস্যর মধ্যে কমপক্ষে ২হাজার ৪শ৫০ জন তৃতীয় লিঙ্গের মানুষ রয়েছে।

সুত্রঃ বিবিসি।

বিস্তারিত খবর

'বাগদাদি হত্যায় যুক্তরাষ্ট্রের ব্যর্থতা'র প্রশ্নে দুই মার্কিন সংবাদমাধ্যমের দ্বন্দ্ব

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৫ ০৮:৪২:২৭

দ্বন্দ্বে জড়িয়েছে দুই মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজ আর নিউ ইয়র্ক টাইমস। বাগদাদিকে হত্যার উদ্দেশ্যে পরিচালিত মার্কিন বাহিনীর এক অভিযানের ব্যর্থতায় নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দায়ী করে খবর প্রকাশ করে ফক্স নিউজ। ওই প্রতিবেদনকে ‘বিদ্বেষমূলক ও অযথার্থ’ বলে উল্লেখ করে তা প্রত্যাহারের আহ্বান জানিয়েছে টাইমস কর্তৃপক্ষ। ফক্স নিউজকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে তারা। তবে ফক্স নিউজ কর্তৃপক্ষ ওই প্রতিবেদন নিয়ে টাইমস কর্তৃপক্ষের প্রতিবাদ প্রকাশ করলেও ক্ষমা চাওয়ার দাবির ব্যাপারে কোনও প্রতিক্রিয়া জানায়নি।


২০১৫ সালের মে মাসে সিরিয়ার পূর্বাঞ্চলে এক মার্কিন অভিযান থেকে প্রাণে বেঁচে যান আইএস নেতা আবু বকর আল বাগদাদি। এ ঘটনায় নিউ ইয়র্ক টাইমসকে দায়ী করে শনিবার (২২ জুলাই) ফক্স নিউজ চ্যানেলের ‘ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডস’ নামের সকালের অধিবেশেন ওই প্রতিবেদন প্রচারিত হয়। সেই প্রতিবেদনটিই প্রত্যাহার এবং এটি প্রচারের জন্য ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। উল্লেখ্য, ২০১৫ সালের ওই অভিযানে বাগদাদির ঘনিষ্ঠ সহযোগী আবু সায়াফ ওই অভিযানে নিহত হন। সায়াফের স্ত্রী উম্মে সায়াফকে আটক করা হয় এবং বেশ কিছু নথি ও ল্যাপটপ জব্দ করা হয়।

‘ফক্স এন্ড ফ্রেন্ডস’ শোটি মূলত টক শো ভিত্তিক। তবে অনুষ্ঠানের শেষে বিহাইন্ড সিন হিসেবে ফুটেজ ছাড়া অর্থাৎ ফক্স নিউজের ওয়েব থেকে কিছু সংবাদ ফক্স নিউজ.কম-নামে প্রচার করা হয়। শনিবার ফক্স নিউজে প্রচারিত এমন এক খবরে বলা হয়, ‘ওই সময়ে নিউ ইয়র্ক টাইমস এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদনের কারণে আল বাগদাদিকে হত্যা করতে ব্যর্থ হয় যুক্তরাষ্ট্র। ফক্স এন্ড ফ্রেন্ডস অনুষ্ঠানে মার্কিন বিশেষ অভিযান কমান্ডের প্রধান জেন টনি থমাসকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, ‘২০১‌৫ সালের অভিযানে টনির দল বাগদাদির কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিল। তবে ওই অভিযানের খবর একটি প্রভাবশালী জাতীয় দৈনিকে ফাঁস হয়ে যাওয়ায় বাগদাদি গা ঢাকা দেন’। ফক্স নিউজের দাবি, তাদের শনিবারের সকালের অধিবেশনে জেন টনি ২০১৫ সালের জুনে নিউ ইয়র্ক টাইমসে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনের ব্যাপারেই ইঙ্গিত করেছেন। কেননা, মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থাগুলো কিভাবে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য বের করে এনেছেন তার বিস্তারিত উল্লেখ করা হয়েছিল ওই প্রতিবেদনে।’

একইদিনে ওয়াশিংটন পোস্টে ট্রাম্প-ঘনিষ্ঠদের রুশ সংশ্লিষ্টতার প্রতিবেদনের বিষয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রসঙ্গ তোলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। একে তিনি ডাকেন ফেইলিং নিউ ইয়র্ক টাইমস নামে। শনিবারের টুইটে ট্রাম্প মন্তব্য করেন, ‘বিশ্বের সবচেয়ে বড় অপরাধী আল-বাগদাদিকে হত্যার পরিকল্পনা ভেস্তে গেছে ব্যর্থতায় নিমিজ্জত নিউ ইয়র্ক টাইমসের (ফেইলিং নিউ ইয়র্ক টাইমস) কারণে। জাতীয় নিরাপত্তা নিয়ে তাদের ক্ষতিকর এজেন্ডা।’

পরদিন রবিবার (২৪ জুলাই) নিউ ইয়র্ক টাইমস এর পক্ষ থেকে ফক্স এন্ড ফ্রেন্ডস অনুষ্ঠানে প্রচারিত ওই খবরকে বিদ্বেষমূলক ও ভুয়া বলে উল্লেখ করে চিঠি পাঠানো হয়। প্রতিবাদ জানিয়ে লেখা চিঠিতে সংবাদপত্রটির যোগাযোগ সংক্রান্ত ভাইস প্রেসিডেন্ট ডেনিয়েল রোয়াডেস হা লিখেছেন, “নিউ ইয়র্ক টাইমসের পক্ষ থেকে আমি ফক্স এন্ড ফ্রেন্ডস এর কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি তারা যেন ‘নিউ ইয়র্ক টাইমস লিক অ্যালাউড আইএস লিডার টু স্লিপ অ্যাওয়ে’ শিরোনামে লেখা ‘বিদ্বেষমূলক ও অযথার্থ’ প্রতিবেদনটির জন্য সরাসরি সম্প্রচারে ক্ষমা চায় এবং এ নিয়ে টুইট করে। রোয়াডেস-এর অভিযোগ, ফক্স নিউজের ওই প্রতিবেদনটিতে ঘটনাপ্রবাহের প্রাসঙ্গিকতা নিশ্চিত করার চেষ্টা করা হয়নি। এ ব্যাপারে নিউ ইয়র্ক টাইমসের কাছ থেকে মন্তব্যও জানতে চাওয়া হয়নি।
মার্কিন সংবাদমাধ্যম পলিটিকো জানিয়েছে, রবিবার সন্ধ্যায় নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবাদমূলক চিঠিটিকে মূল স্টোরির সঙ্গে সংযুক্ত করে দিয়েছে ফক্স কর্তৃপক্ষ। সঙ্গে জুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এক বিবৃতি। এতে বলা হয়: “ফক্স নিউজ.কম এর স্টোরিটি অনলাইনে আপডেট করা হয়েছে এবং পরদিন সকালে ফক্স এন্ড ফ্রেন্ডস এর ফক্স নিউজ.কম-এ আপডেট স্টোরি দেওয়া হবে।’ গতমাসে রুশ উপ-পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওলেগ সিলোমলোটভ বলেছিলেন, মে মাসের শেষদিকে সিরিয়ার রাকা শহরের কাছে রাশিয়ার বিমান হামলায় ‘খুব সম্ভবত’ বাগদাদি নিহত হয়েছেন। এছাড়া, লন্ডনভিত্তিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস সিরিয়ায় তাদের নির্ভরযোগ্য সূত্রের বরাত দিয়ে বাগদাদির মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছে। সংস্থাটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছিল, আইএস বাগদাদির মৃত্যুর খবর প্রচার করেছে। তবে মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছিলেন, বাগদাদি নিহত হওয়ার কোনও প্রমাণ তাদের কাছে নেই। যতদিন কোনও নিশ্চিত প্রমাণ পাওয়া যাবে না ততদিন বাগদাদিকে জীবিত হিসেবে বিবেচনা করা হবে।

বাগদাদির মাথার মূল্য ২৫০ লাখ মার্কিন ডলার ঘোষণা করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ২০১৩ সালে আল-কায়েদা থেকে বেরিয়ে গিয়ে তিনি আইএস প্রতিষ্ঠা করেন। সর্বশেষ ২০১৪ সালে মসুলে প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছিল তাকে।

বিস্তারিত খবর

আগামী সপ্তাহে ফের ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালাবে যুক্তরাষ্ট্র

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৫ ০৮:৩৯:০৪

যুক্তরাষ্ট্রের কোস্ট গার্ড আলাস্কা অঙ্গরাজ্যের কোডিয়াক দ্বীপে আবারও ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা চালানোর ঘোষণা দিয়েছে। প্যাসিফিক স্পেসপোর্ট কমপ্লেক্স থেকে ২৯ জুলাই স্থানীয় সন্ধ্যা ৭টা এবং ৩০ জুলাই রাত দেড়টায় এই মিসাইল পরীক্ষা চালানো হবে।

মার্কিন সংবাদমাধ্যম ভয়েস অব আমেরিকার খবরে বলা হয়েছে, যুক্তরাষ্ট্রের কোস্ট গার্ডের এক নোটিশে এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার কথা জানানো হয়েছে।
ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জন্য বিকল্প সময় সূচিও ঠিক করে রাখা হয়েছে। ৩০ জুলাই ৭টা এবং ৩১ জুলাই রাত দেড়টা এবং ৩১ জুলাই ৭টা এবং ১ আগস্ট রাত দেড়টায় ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার বিকল্প সময়সূচি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।
কোস্ট গার্ড এই সময়ে কোডিয়াক দ্বীপ ও হাওয়াই-এর মধ্যকার সাগরের জলসীমায় নাবিকদের উপস্থিত না থাকার জন্য আহ্বান জানিয়েছে।
এই ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার জন্য মার্কিন সেনারা যুক্তরাষ্ট্রের ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা এজেন্সির কমপ্লেক্সে অস্থায়ীভাবে অবস্থান করছেন। তারা থার্মাল হাই আলটিচুড অ্যারিয়া ডিফেন্স (ঠাড) ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করবেন।

বিস্তারিত খবর

মার্কিন গোয়েন্দা বিমানের গতিরোধ করলো চীনা যুদ্ধবিমান

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৪ ১১:০৫:৪৩

যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর দুটি গোয়েন্দা বিমানের গতিরোধ করেছে দুটি চীনা যুদ্ধবিমান। চলতি সপ্তাহের শেষ দিকে পূর্ব চীন সাগরে এ ঘটনা ঘটে বলে দুই মার্কিন কর্মকর্তা বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানিয়েছেন।

মার্কিন কর্মকর্তারা জানান, চীনা যুদ্ধবিমান দুটি মার্কিন গোয়েন্দা বিমানের ৩০০ ফুটের কাছাকাছি চলে আসে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই মার্কিন কর্মকর্তারা জানান, প্রাথমিক প্রতিবেদনে জানা গেছে চীনা যুদ্ধবিমান দুটি ছিল জে-১০ বিমান। রবিবার বিমান দুটি মার্কিন নৌবাহিনীর গোয়েন্দা বিমান ইউএস ইপি-৩ বিমানের কাছাকাছি চলে আসে। এতে মার্কিন গোয়েন্দা বিমান নিজের গতিপথ পরিবর্তন করতে বাধ্য হয়।
চীন সাগর নিয়ে ওয়াশিংটন ও বেইজিংয়ের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরেই উত্তেজনা বিরাজ করছে। দক্ষিণ চীন সাগরে বেইজিংয়ের কৃত্রিম দ্বীপে সামরিক স্থাপনার বিরোধিতা করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। চীন সাগরে আন্তর্জাতিক জলসীমায় মাঝে মধ্যেই মার্কিন নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজ চলাচল করে। চীন সাগরের আকাশেও মার্কিন গোয়েন্দা বিমানও চলাচল করে। চীন এসব ঘটনায় যুক্তরাষ্ট্রের নিন্দা জানিয়ে আসছে। সূত্র: রয়টার্স।

বিস্তারিত খবর

রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপে একমত মার্কিন কংগ্রেস

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-২৪ ১১:০৩:৩৬

মার্কিন কংগ্রেসে সরকার ও বিরোধীদল রাশিয়ার বিরুদ্ধে নতুন নিষেধাজ্ঞা আরোপে সম্মত হয়েছে। মার্কিন নির্বাচনে হস্তক্ষেপের অভিযোগে এই নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে একটি নতুন আইনও প্রস্তাব করেছে কংগ্রেস। রবিবার ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি এ খবর জানিয়েছে।

খবরে বলা হয়েছে, প্রস্তাবিত আইনটি পাস হলে রাশিয়ার বিরুদ্ধে আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ক্ষমতা খর্ব হবে।
বিবিসির হোয়াইট হাউস প্রতিনিধি জানান, সর্বদলীয় এই সম্মতি রাশিয়ার বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের কঠোর অবস্থানেরই প্রমাণ দেয়। এক্ষেত্রে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের দৃষ্টিভঙ্গি যাই হোক না কেন।
অবশ্য প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আইনটিতে ভেটো দিতে পারেন। কিন্তু এর ফলে রাশিয়ার সঙ্গে তার সংযোগের বিষয়টি আরও বেশি প্রকাশিত হয়ে পড়বে। আবার ট্রাম্প যদি বিলটিতে অনুমোদন দেন তাহলে তার প্রশাসনের সঙ্গে বিষয়টি সাংঘর্ষিক হতে পারে।
মার্কিন সিনেটের আন্তর্জাতিক সম্পর্ক কমিটির প্রবীণ ডেমোক্র্যাট সিনেটর বেন কার্ডিন বলেন, অনেক আলোচনার পর সবাই একমত হয়েছেন। তিনি দাবি করেন, ঐক্যবদ্ধ একটি কংগ্রেস পুতিনকে আমেরিকার জনগণ ও আমাদের মিত্রদের পক্ষ থেকে স্পষ্ট বার্তা দেবে। আমরা চাই প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প বার্তা বাহকের কাজটি যেন করেন।
জানুয়ারিতে প্রেসিডেন্ট হিসেবে ট্রাম্প দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই রাশিয়া সংযোগের বিতর্ক তার সঙ্গী হয়ে আছে। ট্রাম্প ও রাশিয়ার পক্ষ থেকে এ ধরনের সম্পর্কের কথা অস্বীকার করা হয়েছে। মার্কিন নির্বাচনের হস্তক্ষেপের বিষয়টিও অস্বীকার করে আসছে রাশিয়া।

বিস্তারিত খবর

হেলথকেয়ার বিলে ভোট পিছিয়ে দিলো মার্কিন সিনেট

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-১৭ ১০:৪২:৫২

প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রস্তাবিত হেলথকেয়ার বিলকে আইনে পরিণত করার ভোট আয়োজন পিছিয়ে দিয়েছে দেশটির সিনেট। শনিবার সিনেটে রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেল এই তথ্য জানিয়েছেন।
অ্যারিজোনার রিপাবলিকান সিনেটর জন ম্যাককেইন অসুস্থ হয়ে পড়ায় সিনেটে হেলথকেয়ার বিলটির পাস হওয়া নিয়ে সংশয় সৃষ্টি হয়। এই বিল অনুমোদনের মাধ্যমে সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার স্বাস্থ্যসেবা বিল ওবামাকেয়ার বাতিল হবে। হেলথকেয়ার বিলটি পাস হতে ন্যূনতম ৫০জন সিনেটের হ্যাঁ ভোট প্রয়োজন। সিনেটের খুব কম ব্যবধানে ৫২-৪৮ সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে রিপাবলিকানদের।
এক বিবৃতিতে ম্যাককনেল জানান, অস্ত্রোপচার শেষে সুস্থতার পথে রয়েছেন ম্যাককেইন। ফলে আমাদের আইনি কাজগুলো চলমান থাকবে এবং বেটার কেয়ার অ্যাক্টটি বিবেচনার জন্য সময় সীমা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে।
অসুস্থ হওয়ার আগে ম্যাককেইন বিলটি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। তবে তিনি পক্ষে না বিপক্ষে ভোট দেবেন তা জানানি। এর আগে দুই রিপাবলিকান সিনেটর বিলটির বিরোধিতা করবেন বলে জানিয়েছেন।

সূত্র: রয়টার্স।

বিস্তারিত খবর

ম্যাক্রোঁর স্ত্রীকে নিয়ে মন্তব্য, ‌আবারও বিতর্কিত ট্রাম্প

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৭-১৪ ১০:৫৮:২২

ফরাসি প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর স্ত্রী ব্রিজিট ম্যাক্রোঁর শারীরিক গঠনের প্রশংসা করে মন্তব্য করার পর তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম গার্ডিয়ান জানায়, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অনেকে ট্রাম্পের মন্তব্যকে ‘সেক্সিস্ট’ বলে আখ্যা দিচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার ফ্রান্স সফরে গিয়ে হোটেল দেজ আবিলেদে ম্যাক্রোঁ ও তার স্ত্রীর সঙ্গে মিলিত হন ট্রাম্প। সেসময় ট্রাম্পের স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পও উপস্থিত ছিলেন। চারজন একসঙ্গে গল্প করার এক পর্যায়ে হঠাৎ ফরাসি ফার্স্ট লেডিকে ট্রাম্প বলে ওঠেন, ‘আপনার শারীরিক গঠন সুন্দর’। কিছুক্ষণ পর ট্রাম্প আবারও ব্রিজিটের দিকে তাকিয়ে বলেন, ‘সুন্দর।’ তবে এতে ব্রিজিটের প্রতিক্রিয়া কী হয়েছে তা স্পষ্ট ছিল না বলে উল্লেখ করেছে গার্ডিয়ান।

পুরো দৃশ্যটির ধারণকৃত ভিডিও ফরাসি প্রেসিডেন্টের ফেসবুক পেজে পোস্ট করা হয়। ভিডিওটি ছড়িয়ে পড়ার পর সমালোচনার মুখে পড়েন ট্রাম্প। টুইটারে অ্যালেক্স বার্গ নামের এক নারীবাদবিষয়ক কর্মী লিখেছেন: “ফরাসি ফার্স্ট লেডিকে করা ট্রাম্পের মন্তব্যটি প্রশংসার ছদ্মবেশে যৌন নিপীড়ন।”

ডকুমেন্টারি নির্মাতা ও অভিনেত্রী জেন সিয়েবেল নিউসম টুইটারে লিখেছেন: “জনাব ট্রাম্প-নারীদের শরীর নিয়ে আপনি যেমন করে ভাবেন সেইসব অযাচিত কথা শুনতে তারা আগ্রহী নয়। এটি অরুচিকর এবং অনুচিত একটি কাজ।” গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, এ ব্যাপারে হোয়াইট হাউসের পক্ষ থেকে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানানো হয়েছে।

বিভিন্ন সময়ে নারীদের নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্য করার জন্য অভিযুক্ত হয়ে আসছেন ট্রাম্প। গত বছরের অক্টোবরে নির্বাচনি প্রচারণা চলার সময় ২০০৫ সালের একটি অডিও ফাঁস হয়। সেখানে নারী সম্পর্কিত বিতর্কিত মন্তব্য করতে দেখা গেছে তাকে। সেসময় অনেক নারী তার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগও তুলেছিলেন।

বিস্তারিত খবর

জাতিসংঘে কর্মরত আরেক বাংলাদেশির বিরুদ্ধে জালিয়াতির অভিযোগ

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-২০ ১৬:৪৮:৪৯

গৃহকর্মী নির্যাতনের অভিযোগে নিউইয়র্কে বাংলাদেশি কূটনীতিক শাহেদুল ইসলামকে গ্রেফতার ও জামিনের ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতেই দেশটিতে একই ধরনের অভিযোগে অভিযুক্ত হলেন জাতিসংঘের প্রকল্পে কর্মরত আরেক বাংলাদেশি।

অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম হামিদুর রশীদ। তিনি জাতিসংঘের উন্নয়ন সংস্থা ইউএনডিপির একটি প্রকল্পের পরিচালক। তার বিরুদ্ধে ভিসা জালিয়াতি, বিদেশি কর্মী নিয়োগ চুক্তিতে জালিয়াতি এবং পরিচয় জালিয়াতির অভিযোগ আনা হয়েছে। রয়টার্স

নিউইয়র্কের ম্যানহাটন ফেডারেল কোর্টে মঙ্গলবার তার বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ আনা হয়। ওই দিন বিকেলেই তার আদালতে হাজির হওয়ার কথা বলে যুক্তরাষ্ট্রের প্রসিকিউটরদের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন।

হামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, সপ্তাহে ৪২০ ডলার মজুরিতে নিয়োগের কথা বলে এক গৃহকর্মীকে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যান। ২০১২ সালের নভেম্বরে গৃহকর্মী যুক্তরাষ্ট্রে পৌঁছালে হামিদ নতুন একটি চুক্তিতে তার সই নেন, যেখানে সাপ্তাহিক মজুরি ২৯০ ডলার লেখা হয়।

এছাড়া ওই গৃহকর্মীর পাসপোর্ট কেড়ে নেন হামিদুর এবং অন্য কোথাও কাজ করলে তাকে প্রথমে কারাগারে ও পরে বাংলাদেশে ফেরত পাঠানো হবে বলে বিভিন্ন সময় হুমকি দেয়া হয় বলে অভিযোগ করা হয়েছে।

অভিযোগে বলা হয়েছে, হামিদুর রশীদ প্রথমে গৃহকর্মীকে কোনো টাকা দেননি। পরে বাংলাদেশে তার স্বামীকে মাসে ৬০০ ডলার করে পাঠান।

উল্লেখ্য, গৃহকর্মীকে নির্যাতনের অভিযোগে নিউইয়র্কে বাংলাদেশের ডেপুটি কনসাল জেনারেল শাহেদুল ইসলামকে গত ১২ জুন (সোমবার) গ্রেফতার করা হয়। পরে ৫০ হাজার ডলার বন্ডে জামিনে মুক্তি পান তিনি।


এলএবাংলাটাইমস/আই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

অবশেষে হোয়াইট হাউজে মেলানিয়া

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-১২ ০৮:৩০:০১

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হিসেবে স্বামী ডোনাল্ড ট্রাম্পের দায়িত্ব গ্রহণের প্রায় পাঁচ মাস পর হোয়াইট হাউজের বাসিন্দা হলেন মেলানিয়া ট্রাম্প। স্ত্রী মেলানিয়া ট্রাম্পকে সঙ্গী করে ডোনাল্ড ট্রাম্প হোয়াইট হাউসে ওঠার প্রত্যাশায় থাকলেও এতোদিন তা হয়ে ওঠেনি। বাধা ছিল ছেলের পড়াশোনা। 
ব্যারনের স্কুল পরিবর্তনের জটিলতার কথা চিন্তা করে মেলানিয়া তখন স্বামীর সঙ্গী হননি। মার্কিন সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, স্কুল পরিবর্তনজনিত সেই সমস্যার সমাধান হয়েছে। এ মাসেই হোয়াইট হাউসের স্থায়ী বাসিন্দা হতে যাচ্ছেন মেলানিয়া ট্রাম্প। ১২ তারিখকেই সেই দিন হিসেবে বেছে নিলেন মেলানিয়া। হোয়াইট হাউজে আসার প্রতিক্রিয়ায় টুইটারে ঘর থেকে তোলা হোয়াইট হাউজের বাগানের একটি ছবি পোস্ট করেছেন মেলানিয়া।

নিউ ইয়র্ক নাকি ওয়াশিংটন কিংবা হোয়াইট হাউস নাকি ট্রাম্প টাওয়ার? কোথায় থাকবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্ত্রী মেলানিয়া?  ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ার পর এই নিয়ে সরব ছিল মার্কিন মিডিয়া। মেলানিয়া আর ব্যারন কবে থেকে হোয়াইট হাউসের বাসিন্দা হবেন, এক পর্যায়ে সাংবাদিকদের এমন প্রশ্নের জবাবে ট্রাম্প সে সময় বলেছিলেন, ‘যতো দ্রুত সম্ভব। তার স্কুলের বছরটা শেষ হলেই’।  

আগামী ১৪ জুন ডোনাল্ড ট্রাম্পের ৭১তম জন্মদিন। মেলানিয়া হোয়াইট হাউসের স্থায়ী বাসিন্দা হওয়ার জন্য সেই দিনটি বেছে নিতে পারেন বলে গতকাল জানিয়েছিল সিএনএন। তবে ট্রাম্পের জন্মদিনের ২ দিন আগে তিনি হোয়াইট হাউসের বাসিন্দা হলেন।  

বিস্তারিত খবর

মার্কিন সেনাবাহিনীতেও বর্ণবাদ!

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৯ ০৪:১৯:৪৬

মার্কিন সেনাবাহিনীর কৃষ্ণাঙ্গ সেনারা তাদের শ্বেতাঙ্গ সতীর্থদের তুলনায় অধিকহারে কোর্ট মার্শালসহ অন্যান্য সামরিক বিচারের মুখে পড়েন। মার্কিন প্রতিরক্ষা বাহিনীর তথ্যের ভিত্তিতে প্রস্তুত প্রতিবেদনে এটি জানিয়েছে মানবাধিকার গোষ্ঠী প্রটেক্ট আওয়ার ডিফেন্ডার (পিওডি)।
পিওডি’র জানায়, মার্কিন সেনাবাহিনী, বিমান বাহিনী, নৌবাহিনী এবং মেরিনসহ প্রতিরক্ষা বাহিনীর সবখানেই কৃষ্ণাঙ্গ সেনাদের ক্ষেত্রে এমনটি ঘটে। ‘সামরিক বিচারের ক্ষেত্রে বর্ণবাদী বৈষম্য’ বা ‘রেসিয়াল ডিজপ্যারিটিস ইন মিলিটারি জাস্টিস’ নামের এ প্রতিবেদন তৈরি করতে ২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত এক দশকের তথ্যাবলী ব্যবহার করা হয়েছে। তথ্য জানার স্বাধীনতার আওতায় এ সংক্রান্ত উপাত্ত সংগ্রহ করা হয়।
প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিচারের ক্ষেত্রে বৈষম্যমূলক আচরণ থেকে প্রমাণিত হচ্ছে যে মার্কিন সেনাবাহিনীতে কৃষ্ণাঙ্গ সেনারা সবচেয়ে বেশি লাঞ্ছনার শিকার হন। এতে আরো বলা হয়েছে, সামরিক বিচারের ক্ষেত্রে কখনো কখনো শ্বেতাঙ্গ সেনাদের তুলনায় কৃষ্ণাঙ্গরা ১.২৯ গুণ থেকে ২.৬১ গুণ বেশি বৈষম্যের শিকার হয়ে থাকেন। সূত্র : ইনডিপেনডেন্ট

বিস্তারিত খবর

এফবিআই প্রধান হচ্ছেন ক্রিস্টোফার রে

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৭ ০৮:৪৪:৪০

আইনজীবী ক্রিস্টোফার রে-কে ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (এফবিআই) প্রধান হিসেবে মনোনীত করার পরিকল্পনা করছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। বুধবার এক টুইটবার্তায় একথা জানান তিনি। টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, ‘এফবিআই’র নতুন প্রধান হিসেবে আমি অনবদ্য যোগ্যতার অধিকারী ক্রিস্টোফার এ. রে-কে মনোনীত করব।’ এ ব্যাপারে পরে আরো জানানো হবে বলেও উল্লেখ করেন ট্রাম্প।
বর্তমানে ব্যক্তিগতপর্যায়ে অনুশীলনরত ক্রিস্টোফার জর্জ ডব্লিউ বুশ ক্ষমতায় থাকাকালে ২০০৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের অ্যাসিস্ট্যান্ট অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বিবিসির খবরে বলা হয়েছে, নিউ জার্সির গভর্নর এবং ট্রাম্পের সহযোগী ক্রিস ক্রিস্টির ‘ব্রিজগেট’ কেলেঙ্কারি মামলায় ক্রিস্টির আইনজীবী ছিলেন। সূত্র : রয়টার্স ও বিবিসি  

বিস্তারিত খবর

'নিপীড়ক ট্রাম্প’কে ভয় পান না গ্রিফিন!

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৪ ০৬:০২:৩১

টেলিভিশন স্টার ক্যাথি গ্রিফিন অভিযোগ করেছেন, প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কারণেই তাকে  চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছে সিএনএন। তার অভিযোগ, ট্রাম্প তাকে ধ্বংস করে দেওয়ার চেষ্টা করছেন। 'ধারাবাহিক হত্যার হুমকি' সত্ত্বেও অ্যামি অ্যাওয়ার্ড জয়ী এই শিল্পী বলেছেন, প্রেসিডেন্টকে একটুও ভয় পান না।  ট্রাম্পকে নিপীড়ক আখ্যা দিয়েছেন ওই কমেডিয়ান। অঙ্গীকার করেছেন, মত প্রকাশের স্বাধীনতায় সোচ্চার থাকবেন।
গত মঙ্গলবার টুইটারে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের কল্পিত কাটা মাথার এক ছবি  পোস্ট করেন গ্রিফিন। ওই পোস্টকে ঘিরে শুরু হয় তীব্র বিতর্ক আর সমালোচনা। নিজের ভুল স্বীকার করে এজন্য ক্ষমাও চান। তা সত্ত্বেও তিনি ট্রাম্পের রোষানল থেকে বের হতে পারছেন না বলে দাবি তার। আইনজীবী লিসা ব্লুমের মাধ্যমে গ্রিফিন  অভিযোগ করেন, সব ধরনের বিরুদ্ধ মত দমনের চেষ্টা করছেন ট্রাম্প। বলেন, ‘এবার্তাটি পরিষ্কার: প্রেসিডেন্টের সমালোচনা করলেই আপনি চাকরি হারাবেন।’ সংবাদ সম্মেলনে তিনি অভিযোগ করেছেন ‘প্রেসিডেন্ট তার পুরো পরিবারকে সঙ্গে নিয়ে আমাকে ধ্বংস করতে চাইছেন।’
পঞ্চাশোর্ধ ওই কমেডিয়ানের আইনজীবী জানিয়েছেন, ট্রাম্প এবং তার পরিবারের ভূমিকায় গ্রিফিনের মর্যাদা হানি হয়েছে। অব্যাহত হত্যার হুমকি, চাকরি থেকে ছাঁটাই আর বহু ইভেন্ট বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে ওই শিল্পীকে।আইনজীবী লিসা জানান, গ্রিফিনের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তিনি প্রতিনিয়ত হুমকি-সম্বলিত চিঠি পাচ্ছেন।  

বিস্তারিত খবর

মুসলিমদের প্রবেশ ঠেকাতে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হলো মার্কিন সরকার

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৪ ০৩:০৬:০৪

ক্ষমতায় আসার পর ৭টি সংখ্যাগরিষ্ঠ মুসলিম দেশের নাগরিকদের যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। কিন্তু প্রেসিডেন্টের এ আদেশকে ‘বৈষম্যমূলক’ উল্লেখ করে তা স্থগিত করে দেন যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি আদালত। এখন একই আদেশ পুনর্বহালের জন্য হোয়াইট হাউজ আমেরিকার সুপ্রিম কোর্টে নয় জন বিচারকের একটি বেঞ্চে তাদের আবেদন পেশ করেছে।প্রেসিডেন্টের আদেশ স্থগিতকারী ওই রায়ের বিরুদ্ধে আমেরিকার সরকার এখন জরুরি ভিত্তিতে দুটি আবেদন পেশ করেছে।
বিচার বিভাগের মুখপাত্র সারা ইসগার ফ্লোরেস নতুন এ আবেদনের বিষয়ে বলেন, ‘আমরা সুপ্রিম কোর্টকে এই গুরুত্বপূর্ণ মামলাটি শোনার আবেদন জানিয়েছি এবং সন্ত্রাসবাদের হুমকি থেকে দেশকে নিরাপদ রাখতে এবং জনগণকে সুরক্ষা দিতে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প যে তার আইনি অধিকারের মধ্যে থেকেই কাজ করছেন, সে ব্যাপারে আমাদের আস্থা আছে বলে মনে করছি।’মুখপাত্র বলেন, ‘যে সব দেশ সন্ত্রাসবাদ লালন করে বা সন্ত্রাসীদের আশ্রয় দেয়, সে সব দেশ থেকে প্রেসিডেন্ট কাউকে ঢুকতে দিতে বাধ্য নন, যতক্ষণ না সেই ব্যক্তির পরিচয় সম্পর্কে পুরোপুরি নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে এবং আমেরিকার নিরাপত্তার জন্য সে হুমকি নয়, সেটা নিশ্চিত হচ্ছে।’
ট্রাম্প প্রশাসন এই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা অবিলম্বে পুনর্বহাল করার জন্য আদালতকে জরুরি ভিত্তিতে অনুমতি দেওয়ার আবেদন জানিয়েছে। আদালত এখন সিদ্ধান্ত নেবে প্রশাসনের পূর্ণাঙ্গ আবেদন শুনবে কি না। তারা যদি শোনার সিদ্ধান্ত নেযন, তাহলে তা হবে অক্টোবরে।এদিকে, এই নিষেধাজ্ঞার বিরোধীরা তাদের লড়াই চালিয়ে যাওয়ার প্রতিজ্ঞা নিয়েছে। আমেরিকান সিভিল লির্বাটিস ইউনিয়ন টুইট করে জানিয়েছে, ‘আমরা একবার এই বিদ্বেষপূর্ণ নিষেধাজ্ঞা রদ করেছি, আবার তা করার জন্য আমরা প্রস্তুত।’
ন্যাশানাল ইমিগ্রেশন ল’ সেন্টারের আইন বিষয়ক পরিচালক ক্যারেন টামলিন বার্তা সংস্থা অ্যাসোসিয়েটেড প্রেসকে (এপি) বলেন, ‘বারবার আমাদের দেশের আদালতগুলো বলছে, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের মুসলিমদের ওপর এই নিষেধাজ্ঞা অসাংবিধানিক। কেন্দ্রীয় সরকারের এই বৈষম্যমূলক আচরণ থেকে ভয়মুক্ত স্বাধীন জীবনযাপনের অধিকারের জন্য আমরা আমাদের লড়াই অব্যাহত রাখব।’
উল্লেখ্য, ডোনাল্ড ট্রাম্প জানুয়ারি মাসে ক্ষমতা গ্রহণের কিছুদিনের মধ্যেই এই নির্বাহী আদেশে সই করেন। এই আদেশে বলা হয়, সোমালিয়া, ইরান, ইরাক, সিরিয়া, সুদান, লিবিয়া এবং ইয়েমেনের নাগরিকদের ৯০ দিনের জন্য আমেরিকায় ঢোকার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয় এবং সব রকম শরণার্থী কর্মসূচি ১২০ দিনের জন্য বন্ধ রাখা হয়।এই নিষেধাজ্ঞার বাস্তবায়ন করতে যেয়ে দেশটির বিমানবন্দরগুলোতে বিশৃঙ্খলতা সৃষ্টি হয় এবং বেশ কিছু শহরে প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়।
এরপর ওয়াশিংটন স্টেট এবং মিনেসোটা থেকে প্রাথমিকভাবে আনা আইনি চ্যালেঞ্জের পর এর বাস্তবায়ন বন্ধ করা হয়। ট্রাম্প এরপর মার্চ মাসে আইনি ইস্যুগুলো আমলে নিয়ে পরিবর্তিত আদেশে সই করেন এবং তাতে ইরাককে তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়। কিন্তু ১৬ মার্চ মেরিল্যান্ডের একটি স্থানীয় আদালত এ আদেশকে অসাংবিধানিক উল্লেখ করে রায় দেওয়ার পর তা আবারও স্থগিত হয়ে যায়। হাওয়াই এর আদালতও এটি বৈষম্যমূলক বলে রায় দেন এবং জাতীয় নিরাপত্তার যে যুক্তি সরকার দেখাচ্ছে সেটিকে ‘প্রশ্নসাপেক্ষ’ বলে মন্তব্য করেছেন। 
গত মাসে ভার্জিনিয়ার কেন্দ্রীয় আপিল আদালত ট্রাম্পের আদেশের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে সরকারের জাতীয় নিরাপত্তার স্বপক্ষে দেওয়া যুক্তিকে ‘পরোক্ষ যুক্তি’ এবং প্রাথমিকভাবে এটি দেশটিতে মুসলিমদের ঢোকা বন্ধ করার লক্ষ্যে এবং ধর্মীয় বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে বলে মন্তব্য করেন। এই নিষেধাজ্ঞা পুনর্বহাল করতে হলে সুপ্রিম কোর্টের এই নয় সদস্য বেঞ্চের অন্তত পাঁচ জন বিচারককে এটি সমর্থন করতে হবে।   

বিস্তারিত খবর

নিউইয়র্কে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশী চিকিৎসক নিহত : আহত ৩

 প্রকাশিত: ২০১৭-০৬-০৩ ১৬:১০:৫৩

নিউইয়র্কে এক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন বাংলাদেশী চিকিৎসক ডা.ওয়াজেদা বানু ওরফে রূপালী (৪৮)। এই দূর্ঘটনায় আরো তিনজন গুরুতর আহত হয়েছেন। গত ২৯ মে সোমবার সকালে দু’টি গাড়ীর সংঘর্ষে এই দুর্ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন নিহতের স্বামী ডা. খায়রুল আবেদীন (৫১) ও জনপ্রিয় সঙ্গীত শিল্পী রথীন্দ্রনাথ রায়ের স্ত্রী সন্ধ্যা রায় (৫৯)। তারা একই গাড়িতে করে তাদের কর্মস্থল ফ্লাশিং-এর একটি হাসপাতালে যাচ্ছিলেন। এই দূর্ঘটনায় অপর গাড়ীর চালক (৩৬) আহত হন। নিহত ডা. ওয়াজেদা বানুর দেশেরবাড়ী বগুড়া শহরের সূত্রাপুরে।

জানা গেছে, জ্যামাইকার একই এলাকার অধিবাসী ডা. ওয়াজেদা বানু ও সন্ধ্যা রায় ফ্লাশিং হাসপাতালে কাজ করতেন। ঘটনার দিন ভোর ৪টা ৪৮ মিনিটে কুইন্স হাসপালের কাছে ১৬৪ স্ট্রীট ধরে গ্রান্ড সেন্ট্রাল পার্কওয়ে ক্রসিং-এই মর্মান্তিক দূর্ঘটনা ঘটে। ডা. বানুর স্বামী ডা. খায়রুল আবেদীন স্ত্রী ও সন্ধ্যা রায়কে তার নিশান সেন্ট্রা গাড়িতে করে ফ্লাশিং-এ পৌঁছাতে যাচ্ছিলেন। ১৬৪ স্ট্রীট ধরে গ্র্যান্ড সেন্ট্রাল পার্কওয়ে ক্রসিং-এ আসতেই গ্র্যান্ড সেন্ট্রাল ধরে আসা অপর একটি টয়োটা নিশান এসইউভি প্রাইভেট কার তাদের গাড়িকে মুখোমুখি ধাক্কা দেয়। এতে তাদের গাড়িটির সামনের অংশ দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং গাড়িটি পাশের ফুটপাথের ওপর ছিটকে পড়ে। এতে উভয় গাড়ীর চারজন গুরুতর আহত হন।

দুর্ঘটনার সাথে সাথেই ডা. ওয়াজেদা বানুকে নিকটবর্তী কুইন্স হাপতালে নেয়া হলে ডাক্তাররা তাকে মৃত ঘোষণা করেন এবং তার স্বামী গাড়ির চালক ডা. খায়রুল ও পেছনের আসনে বসা সন্ধ্যা রায়কে গুরুতর আহত অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডা. খায়রুল বুকে প্রচন্ড ব্যাথা পান এবং সন্ধ্যা রায়ের পাঁজরের তিনটি হাড় ভেঙে গেছে। র্দর্ঘটনার পর ডা. খায়রুল আবেদীন তিন ঘন্টা সংজ্ঞাহীন ছিলেন।

সর্বশেষ খবরে জানা গেছে, আহত ডা. খায়রুল আবেদীন ও সন্ধ্যা রায়কে হাসপাতাল থেকে বাসায় পাঠিয়ে পূর্ণ বিশ্রাম সহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা নিতে বলা হয়েছে। দুর্ঘটনা কবলিত অপর গাড়িটিরও চালক ছিলেন একজন মহিলা। তার গাড়ীর সম্মুখভাগ দুমড়ে-মুচড়ে যায় এবং তিনিও গুরুতর আহত হন। তাকে নর্থ শোর ইউনিভার্সিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা যায়।
নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, দুই পুত্র সন্তানের জননী ডা.ওয়াজেদা বানু ২০০৯ সালের মাঝামাঝি ইমিগ্রান্ট হয়ে স্বামী ও দুই শিশু পুত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র আসেন। তারা উভয়ই রংপুর মেডিকেল কলেজে কর্মরত ছিলেন। নিউইয়র্কে আসার পর ডা. খায়রুল ডাক্তারি লাইসেন্স পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ডা. ওয়াজেদা বানু ফ্লাশিং হাসপাতালে মেডিকেল এ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে কর্মরত ছিলেন। তারা জ্যামাইকার ১৬৮ ষ্ট্রীট ও ৮৯ এভিনিউ এলাকায় বসবাস করতেন। মাত্র ১১ দিন আগে নিহত ডা. ওয়াজেদার পিতা ইন্তেকাল করেন। যুক্তরাষ্ট্রে অভিবাসী হওয়ার পর চিকিৎসক দম্পতি মাত্র একবার বাংলাদেশে বেড়াতে যান। দুর্ঘটনার ব্যাপারে পুলিশী তদন্ত চলছে।

এদিকে গত ৩১ মে বুধবার বাদ এশা জ্যামাইকা মুসলিম সেন্টারে ডা. ওয়াজেদার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত এবং পরদিন লং আইল্যান্ডস্থ ওয়াশিংটন মেমোরিয়াল কবরস্থানে তার মহরদেহ দাফন করা হয়। জানাজায় বিপুল সংখ্যক মুসল্লী অংশ নেন।


এলএবাংলাটাইমস/এনওয়াই/এলআরটি

বিস্তারিত খবর

সাম্প্রতিক খবর

সর্বাধিক পঠিত