যুক্তরাষ্ট্রে আজ রবিবার, ৩১ মে, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 07:46pm

|   লন্ডন - 02:46pm

|   নিউইয়র্ক - 09:46am

  সর্বশেষ :

  কৃষ্ণাঙ্গ হত্যায় আন্দোলন: মেলরোজ ও ফেরারফ্যাক্স স্ট্রিটে সবচেয়ে বেশি লুন্ঠন   করোনায় একদিনে গেল আরও ৪৮ প্রাণ, আক্রান্ত ৫৩ হাজার ৬৫১   নিরাপত্তার জন্য লস এঞ্জেলেসে মোতায়েন ন্যাশনাল গার্ড সেনা   লস এঞ্জেলেসে ব্যাপক সংঘর্ষ-অগ্নিসংযোগ, কারফিউ‌ জারি   লস এঞ্জেলেসে বিক্ষোভ, ভাঙচুর, লুণ্ঠনের ঘটনায় গ্রেফতার ৫ শ   অকল্যান্ডে বন্দুক হামলায় ফেডারেল সিকিউরিটি অফিসার নিহত   লস এঞ্জেলেসের রেস্টুরেন্টগুলোতে বড় পরিসরে ব্যবসার অনুমতি   দেশে করোনায় মৃত্যু ৬০০ ছাড়াল, নতুন শনাক্ত ১৭৬৪   করোনা মোকাবেলায় বাংলাদেশকে ৬২২২ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে আইএমএফ   কৃষ্ণাঙ্গ হত্যা: বিক্ষোভে উত্তাল লস এঞ্জেলেস, হয়েছে ভাঙচুর, ২ পুলিশ আহত   পদ্মা সেতুর সাড়ে ৪ কিলোমিটার দৃশ্যমান   প্রথমবারের মতো একই মাসে চন্দ্র ও সূর্যগ্রহণ   জিয়াউর রহমানের ৩৯তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ   প্লাজমা থেরাপি ও রেমডেসিভির ব্যবহারে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নিষেধাজ্ঞা   বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করলো যুক্তরাষ্ট্র

মূল পাতা   >>   প্রবাসী কমিউনিটি

করোনায় মৃত্যু: ব্রিটিশ মন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে বললেন বাংলাদেশি ছেলে

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৪-২৮ ১১:০৮:২০

নিউজ ডেস্ক: করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ব্রিটেনে বাংলাদেশি এক চিকিৎসকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনার জন্য ভুল স্বীকার করে ব্রিটিশ স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে ক্ষমা চাইতে বললেন ঐ চিকিৎসকের ছেলে।

আব্দুল মাবুদ চৌধুরী ব্রিটেনের জাতীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থা (এনএইচসের) একজন চিকিৎসক ছিলেন। এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে পূর্ব লন্ডনের একটি হাসপাতালে মারা যান তিনি।

এতে ব্রিটেনের স্বাস্থ্যমন্ত্রী ম্যাট হ্যানকককে ক্ষমা চাইতে বলেন ১৮ বছর বয়সী ছেলে ইনতিসার চৌধুরী।

তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘ভাইরাসটি মোকাবেলা করতে গিয়ে যেসব ভুল হয়েছে তা স্বীকার করুন। এতে আপনি আরও বেশি মানবিক হয়ে উঠবেন।’

ঐ চিকিৎসকের ছেলে আরও বলেন, ‘আজকের সংবাদ সম্মেলনের সময় আপনি কি দয়া করে আমাদের জন্য জনগণের কাছে এই ক্ষমাটুকু চাইতে পারবেন?’

সরকারি হিসেবে ব্রিটেনে অন্তত ৮২ জন এনএইচএস কর্মী এবং ১৬ জন কেয়ার কর্মী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন।

এদের মধ্যে একজন হলেন বাংলাদেশি চিকিৎসক আবদুল মাবুদ চৌধুরী। তিনি মৃত্যুর আগে স্বাস্থ্য কর্মীদের ব্যক্তিগত নিরাপত্তা সামগ্রী বা পিপিইর বিষয়ে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীকে সতর্ক করে ছিলেন।

তিনি এক খোলা চিঠিতে লিখেন, ‘প্রিয় প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন, দয়া করে ব্রিটেনে এনএইচএসের সমস্ত স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য ব্যক্তিগত সুরক্ষার জিনিসপত্র নিশ্চিত করুন। আমাদেরও অধিকার আছে এই পৃথিবীতে সন্তান এবং পরিবার নিয়ে বেঁচে থাকার।’


এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এএল

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৩১৮ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত

সাম্প্রতিক খবর