যুক্তরাষ্ট্রে আজ সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 06:44pm

|   লন্ডন - 12:44pm

|   নিউইয়র্ক - 07:44am

  সর্বশেষ :

  ‘সম্রাট-পাপিয়ারা চতুর্থ সারির নেতা, তা হলে প্রথম সারির নেতারা কী করছে ভাবুন’   করোনাভাইরাস আরো ভয়ংকর : ২৬১৯ জনের মৃত্যু   অবর্ণনীয় বর্বরতা: ফিলিস্তিনিকে হত্যার পর বুলডোজার দিয়ে পিষে দিল ইসরাইলি সেনারা   সালমান শাহ আত্মহত্যা করেছিলেন : পিবিআই   হিন্দিতে ট্রাম্পের টুইট   মাহাথির মোহাম্মদের পদত্যাগ   মাতৃভাষায় ভাব প্রকাশ আল্লাহর অন্যতম নেয়ামত   ঢাকায় আবারও ডেঙ্গুর আশংকা, ১১ এলাকা ঝুঁকিপূর্ণ   কাদের-ফখরুলের সেই আলোচিত ফোনালাপ ফাঁস   অ্যান্ড্রয়েড ১১ সংস্করণে ওয়ান-টাইম লোকেশন অ্যাকসেস   পুতিন, ম্যার্কেল ও ম্যাক্রোঁর সঙ্গে বসছেন এরদোয়ান   ‘বাহুবলি ২’ সিনেমায় ডোনাল্ড ট্রাম্প!   ওজন কমাতে স্বাস্থ্যকর বাঁধাকপির স্যুপ   বয়সে নয়, মানসিক চাপেও চুল পাকে   খালেদা জিয়ার পরবর্তী জামিন শুনানি বৃহস্পতিবার

মূল পাতা   >>   লস এঞ্জেলেস

মুসলিম হওয়ায় অতিরিক্ত ভাড়া দাবি: ক্ষতিপূরণ দিচ্ছেন মার্কিন নাগরিক

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৫-১৩ ১৬:৫৬:৩৪

নিউজ ডেস্ক: লস এঞ্জেলেসে ক্যাপিটাল হিলের একটি ভবন মালিক মুসলমান হওয়ার কারণে ভাড়াটিয়ার কাছে অতিরিক্ত বাড়ি ভাড়া দাবি করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। বিষয়টি আদালতে তোলার পর পৌনে সাত লাখ ডলার ক্ষতিপূরণ পাচ্ছেন বাংলাদেশি ব্যবসায়ী রাশাদ খান।

জানা যায়, ক্যাপিটাল হিলের ডেভভারের একজন বাড়িওয়ালার কাছ থেকে ক্রেগ ক্যালডওয়েল নামে এক ব্যক্তি ২০১৬ সালে ভবনটির একটি কর্নার ভাড়া নেন। সেখানে তিনি  ফ্রাইড চিকেন নামে একটি রেস্টুরেন্ট খোলেন। ২০১৭ সালের শেষদিকে তিনি রেস্টুরেন্টটি বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নেন। এদিকে বাড়িওয়ালার সাথে চুক্তির শর্ত অনুযায়ী ক্যালডওয়েরকে পাঁচ বছরের জন্য ভাড়া পরিশোধ করতে হয়েছিল যতক্ষণ না তিনি এটি অন্য কাউকে সাবলিজে দিতে পারেন। তাই ভাড়াটিয়া ক্রেগ ক্যালডওয়েল একজন মুসলমান  রাশেদ খান ও তার বাবাকে এটি সাবলিজ দেওয়ার জন্য গত এপ্রিল মাসে চুক্তি সম্পন্ন করেন। তারা সেখানে তাদের রেস্টুরেন্টের ২য় শাখা খোলার পরিকল্পনা করেছিলেন। কিন্তু এখানেই বাঁধ সাধেন বাড়ির মালিক। তিনি মুসলিম পিতা ও পুত্রের কাছে তাদের দ্বিতীয় রেস্তোরাঁটি খুলতে তাদের অবশ্যই সাবলীজ হিসেবে অতিরিক্ত ৬৭৫,০০০ ডলার দিতে হবে বলে জানান।

এব্যাপারে রাশেদ খান বলেন, আমি একজন মুসলিম হওয়ায় ধর্মীয় বিশ্বাস এবং জাতিগত কারণে আমি এবং আমার পিতার সাথে এমন আচরণ করছেন বাড়ির মালিক। তিনি বলেন, আমার বাবা এবং আমি শুধু জানতে চাই, এটি কেমন বিচার? এটা তো রীতিমতো অন্যায় করা হচ্ছে আমাদের সাথে।

বিষয়টি নিয়ে আদালতে মামলা হলে বাড়ির মালিক বর্ণবাদী আচরণ করায় জুনেদ রাশেদ খান ও তার বাবার সঙ্গে আপস নিষ্পত্তি করতে বাধ্য হন। ৬ লাখ ৭৫ হাজার ডলার (বাংলাদেশি টাকায় ৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা) দিয়ে রাজি হন বাড়ির মালিক। 

উল্লেখ্য, সিলেটের গোলাপগঞ্জ থানার দাড়িপাতন গ্রামের জুনেদ আহমেদ খাঁন প্রায় ৩৫ বছর আগে আমেরিকায় যান। অ্যাভিয়েশনে স্নাতক করার পর কলোরাডোতে আমেরিকান এয়ারফোর্স ডিভিশনের অধীনে চাকরি শুরু করেন। কয়েক বছর চাকরির পর স্বাধীনচেতা জুনেদ খাঁন কলোরাডোতে রেস্তোরাঁ ব্যবসা শুরু করেন। অল্পদিনের মধ্যেই তার ব্যবসায় সাফল্য আসতে থাকে। নিজের পারদর্শিতায় একে একে ১৭টি ‘কারি অ্যান্ড কাবাব রেস্টুরেন্ট’–এর শাখা বিস্তৃত করতে সক্ষম হন। ১৭টি রেস্তোরাঁ পরিচালনায় এক সময় হাঁপিয়ে ওঠেন তিনি। কারিগর বা কর্মী সমস্যার ভোগান্তিতে হিমশিম খেতে হচ্ছিল তাকে। একপর্যায়ে রেস্তোরাঁ বিক্রি করে দেন। কয়েক বছর ধরে ছেলে রাশেদ খাঁনকে দিয়ে আবার রেস্তোরাঁ ব্যবসা শুরু করেন। অ্যারিজোনা কলোরাডোতে ‘কারি অ্যান্ড কাবাব’ বিখ্যাত ইন্ডিয়ান রেস্তোরাঁ হিসেবে খ্যাতি পায়।

এদিকে, ১১ বছর বয়সে যুক্তরাষ্ট্রে যান তার ছেলে রাশাদ খাঁন। বাবার সঙ্গে ব্যবসায় নামার আগে কলোরাডো বোল্ডার বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তথ্য প্রযুক্তিতে ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি।

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ৬৫৮ বার

আপনার মন্তব্য

সাম্প্রতিক খবর