যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 05:33am

|   লন্ডন - 12:33am

|   নিউইয়র্ক - 07:33pm

  সর্বশেষ :

  মিয়ানমার কারও কথা শোনে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   পরীক্ষা ছাড়া ভর্তিকে কেন্দ্র করে ঢাবিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের হাতাহাতি   ১৮টি অমুসলিম উপাসনালয়ের অনুমোদন দিচ্ছে আরব আমিরাত   দেশে দুর্নীতি মহামারী আকার ধারণ করেছে : মওদুদ   লাইবেরিয়ায় ধর্মীয় স্কুলে আগুন, নিহত ৩০   ১৮ দিনেও খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ পাননি স্বজনরা, উদ্বেগ   নিউইয়র্কে ইন্টারন্যাশনাল সীরাত কনভেনশন শনিবার   নিউইয়র্কে বিয়ানীবাজার এডুকেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের ক্রিকেট টুনার্মেন্ট সম্পন্ন   ওয়াশিংটন ডিসিতে শুদ্ধ উচ্চারণ ও আবৃত্তি সংগঠন ‘সমস্বর’-এর আত্মপ্রকাশ   বাফলা চ্যারিটির ফান্ড রাইজিং ডিনার রবিবার   দক্ষিণ কোরিয়ার রাজনীতিবিদরা মাথা ন্যাড়া করছেন   বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আরো ভাগাভাগি হচ্ছে, গণমাধ্যমে আসছে না: আরেফিন সিদ্দিক   ‘জাবির অর্থ কেলেঙ্কারি ফাঁসকারী ছাত্রলীগ নেতারা হুমকির সম্মুখীন’   খালেদা কিছুই দেননি, হাসিনা আমাদের সম্মানিত করেছেন: আল্লামা শফী   রাখাইনে আরও ৬ লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার চরম ঝুঁকিতে : জাতিসংঘ

মূল পাতা   >>   স্বদেশ

পর্দার কাছে হার মেনেছে বালিশকাণ্ড: মির্জা ফখরুল

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৯-০৬ ১৫:৩৪:৪১

নিউজ ডেস্ক:
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, 'আওয়ামী লীগ সরকার দেশের অর্থনীতি ফোকলা করে দিয়েছে। তারা চারদিকে সব লুট করছে। ফরিদপুরের হাসপাতালে একটি পর্দার দাম দেখানো হয়েছে ৩৭ লাখ টাকা। বালিশ কেলেঙ্কারিও তো পর্দার কাছে হেরে গেছে। এভাবে চতুর্দিকে শুধু লুটের ব্যবস্থা চালু করেছে সরকার।'

সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফুর রহমানের দশম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। 'সাইফুর রহমান স্মৃতি পরিষদ' এ সভার আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার সমর্থকরা এমনভাবে লুট করছে যে, দেশ ফোকলা হতে চলেছে। মেগা প্রজেক্টের নামে মেগা চুরি হচ্ছে। বাংলাদেশের অর্থনীতি নাকি আদর্শ অর্থনীতি। কিন্তু বিশ্বের কাছে এটা অতি দ্রুত প্রমাণিত হয়েছে যে, এটা ফাঁপা অর্থনীতিতে পরিণত হয়েছে।

সাইফুর রহমানের স্মৃতিচারণ করে তিনি বলেন, তিনি থাকলে রামপালে কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র তৈরি হতো না। ব্যাঙের ছাতার মতো পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র ও ব্যাংক গজিয়ে উঠত না। অর্থনীতি ধ্বংস করতে দিতেন না তিনি। সাইফুর রহমান দলের লোকদের লাভের জন্য দেশের স্বার্থকে জলাঞ্জলি দেননি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, হল-মার্ককে আবার ব্যবসার সুযোগ দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী। অর্থাৎ লুটেরা অর্থনীতিকে আবার লুটের মধ্যে নিয়ে আসা হবে।

তিনি বলেন, বিএনপির সময়ে ব্যাংকের অনুমতি দেওয়ার জন্য খুব চাপ ছিল। কিন্তু সাইফুর রহমান শেষ মুহূর্ত পর্যন্ত দেননি। এতে দলের লোকেরাও ক্ষুব্ধ হয়েছিলেন। অনেক ব্যবসায়ী ক্ষুব্ধ হয়েছেন। সাইফুর রহমান বলেছিলেন, তিনি এখানে লুটেরা অর্থনীতি প্রতিষ্ঠা করতে দেবেন না। আজ ব্যাঙের ছাতার মতো ব্যাংক দেওয়া হয়েছে, সেগুলো মুখ থুবড়ে পড়েছে।

সাবেক অর্থমন্ত্রী সাইফু রহমানের প্রশংসা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন প্রধান অতিথির বক্তব্যে বলেন, জাতীয় সম্পদ যাতে গুটিকয়েকের মধ্যে সীমাবদ্ধ না হয়, যাতে তা জনগণের কাছে পৌঁছায় অর্থাৎ সম্পদের সুষম বণ্টনের জন্য সাইফুর রহমান সবসময় সংগ্রাম করতেন।

বিএনপি নেতা কাইয়ুম চৌধুরী ও এজিএম শামসুল হকের পরিচালনায় আলোচনা সভায় বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস চেয়ারম্যান চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, শামসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী ও সাইফুর রহমানের ছেলে সাবেক সাংসদ এম নাসের রহমান বক্তব্য দেন।

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১৩৯ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত