যুক্তরাষ্ট্রে আজ শুক্রবার, ০৩ Jul, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 07:21am

|   লন্ডন - 02:21am

|   নিউইয়র্ক - 09:21pm

  সর্বশেষ :

  করোনা উপসর্গ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এম এ হকের মৃত্যু   সিলেটের গোইয়ানঘাট সীমান্তে ভারতীয় খাসিয়ার গুলিতে আরেক বাংলাদেশি নিহত   এমপির মেয়ে তাই ১০ বছর বিদেশে থেকেও চাকরিতে বহাল   দেশে একদিনে ৪২ জনের মৃত্যু, শনাক্ত ৩১১৪   ভ্যাকসিন আবিস্কারে কান্না ছুঁয়ে গেছে দেশবাসীকে; কে এই আসিফ মাহমুদ   ‘পিক-আপ’ সেবা চালু করলো লস এঞ্জেলেস পাবলিক লাইব্রেরি   ১১.১ শতাংশ কর্মহীন হওয়ায় নতুন আরও ৪.৮ মিলিয়ন চাকুরির সুযোগ সৃষ্টি   করোনায় মৃত্যু প্রকাশিত সংখ্যার চেয়ে ২৮ শতাংশ বেশি   সান্তা মোনিকায় মাস্ক না পড়লে সর্বোচ্চ ১০০০ ডলার জরিমানা   লস এঞ্জেলেসে জিমনিশিয়ামেও পড়তে হবে মাস্ক ও গ্লাভস   করোনায় একদিনে গেল আরও ৫৫ প্রাণ, আক্রান্ত ১ লাখ ৭ হাজার ৬৬৭   মিয়ানমারে খনিতে ধস, নিহত ১১৩   লস এঞ্জেলেস পুলিশের বাজেট হ্রাস পেলো ১৫০ মিলিয়ন ডলার   দেশে আক্রান্তের সংখ্যা দেড় লাখ ছাড়াল, ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু ৩৮   বন্ধ হয়ে গেল রাষ্ট্রায়ত্ত সব পাটকল

মূল পাতা   >>   নিউইয়র্ক

নিউ ইয়র্কে নির্বাচনী লড়াইয়ে এক ঝাঁক বাংলাদেশি

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০২০-০৬-১২ ১১:২৪:৪২

নিউজ ডেস্ক: ১১ই সেপ্টেম্বরের হামলার মাত্র কয়েক সপ্তাহ পরেই ২০০১ সালে ১৬ নভেম্বর মেরি জোবাইদা বাংলাদেশের একটি গ্রাম থেকে কুইন্সে চলে আসনে। সেই সময় তিনি বোরকা পড়তেন, তবে তখন তার কৃষ্ণাঙ্গ ও লাতিনো প্রতিবেশীদের জন্য সামান্য ইসলামফোবিয়ার অভিজ্ঞতা হয়েছে।

জোবায়দা বলেছেন, এখানকার সম্প্রদায়গুলো আমার সঙ্গে যে আচরণ করেছিল এবং আমাকে যেভাবে গ্রহণ করেছিল, ৯/১১-এর পরে তারা আমাকে মুসলিম হিসেবে অপমান করেনি। তারা আমার প্রতি খুব প্রতিরক্ষামূলক ছিল।

এ মাসে ২৩ জুন গণতান্ত্রিক প্রাথমিকের সংসদ সদস্য ক্যাথি নোলানের বিপক্ষে মুখোমুখি হচ্ছেন তিনি। অনুপস্থিত ভোটদান ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে; প্রথম ভোটগ্রহণ শনিবার শুরু হবে।

জোবায়দা বলেছেন, আমেরিকায় এসে তার প্রথম প্রথম যে অভিজ্ঞতা হয়েছে তাই মূলত দেশটিতে তার রাজনীতিকে গড়ে দিয়েছে। তাকে বিরোধিতা করার জন্য প্ররোচিত করেছে। সেই সঙ্গে কৃষ্ণাঙ্গ মৃত্যুর প্রতিবাদে একজন সোচ্চার সমর্থক হতে প্ররোচিত করেছে। শুধু জোবায়দা একা নন, তার মতো নিউ ইয়র্কে অবস্থানরত কমপক্ষে আটজন বাংলাদেশী বর্তমানে স্থানীয়, রাজ্য এবং কংগ্রেশনাল প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার জন্য প্রার্থী হয়েছেন। এর মধ্যে এমন অনেক মহিলা আছেন যারা নারীবাদী এবং মুসলমান হিসাবে চিহ্নিত।

শিয়ান আমেরিকান ফেডারেশনের আদমশুমারি বিশেষজ্ঞ হাওয়ার্ড শিহের মতে, ২০১৮ সাল পর্যন্ত নিউ ইয়র্কে ৮৪ হাজার ২৪৮ জন বাংলাদেশি রয়েছেন। ন্যাশনাল এশিয়ান আমেরিকান সমীক্ষা বলছে, জাতীয়ভাবে ৯০ শতাংশ আমেরিকান বাংলাদেশি হিলারি ক্লিনটনের পক্ষে ভোট দিয়েছে যা যে কোনও এশীয় উপগোষ্ঠীর চেয়ে বেশি। এই মানুষদের মধ্যে ট্রাম্পের প্রতি তেমন সমর্থন ছিলনা বললেও চলে।

সদ্য গঠিত তৃণমূল দল বাংলাদেশী আমেরিকান ফর পলিটিকাল প্রগ্রেস (বিএপিপি) এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা থাহিতুন মরিয়াম বলেছেন, অনেক তরুণ বাংলাদেশী আমেরিকান রেপ আলেকজান্ডারিয়া ওকাসিও-কর্টেজ এবং টিফনি ক্যাবনকে সমর্থন করেছিল এবং এটি তাকে কুইন্স জেলার অ্যাটর্নি বানাতে ভূমিকা রেখেছিল। কিন্তু বর্তমানে তারই একজন প্রাথমিক প্রতিপক্ষ হলেন নিউ ইয়র্কবাসী বাংলাদেশি বদরুন খান। সংগঠন এবং প্রার্থীদের মতে, এখানে বাংলাদেশি সম্প্রদায়ের রাজনৈতিক উত্থানের জন্য দুইটি ঐতিহাসিক মঞ্চ তৈরি হয়েছে। প্রথমটি হল, ১৯৭১ সালে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ, যা এটা ব্যাখ্যা দেয় যে কোন সংকল্পিত জাতির কাছে অতীতের অতীত বিমূর্ততা নয়।

মেরিয়াম বলেছিলেন, আমাদের ভবিষ্যৎ কেমন হবে তা আমাদের বেঁছে নিতে হবে।প্রবীণ অভিবাসীদেরা এটির অর্থ হিসেবে একটি মুক্ত বাংলাদেশ ছিল। কিন্তু আমাদের জন্য, এর অর্থ সাদা আধিপত্যের মধ্যে জড়িত সিস্টেমগুলি থেকে দূরে সরে যাওয়া।

বাংলাদেশের স্বাধীনতার এক দশক পরে জন্মগ্রহণ করেছিলেন জোবাইদা। তিনি বলেছেন, আমাদের সময়ে অশান্তি হয়েছে। কারণ তখন একটি সরকার পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে পাঠ্যপুস্তকও পরিবর্তন হয়। তখন আমাদের মনে প্রশ্ন আসে, ইতিহাস আসলে কোনটা?

১১ সেপ্টেম্বরের হামলা নিউ ইয়র্কের বাংলাদেশী বাসিন্দাদের উপর আরও সাম্প্রতিক ও তাৎক্ষণিক প্রভাব ফেলেছিল। কয়েক হাজার মুসলমান ফেডারেল এনএসইইআরএস রেজিস্ট্রিতে প্রবেশ করেছিল, যার ফলে হাজার হাজার নির্বাসন এবং গভীর ক্ষয়ক্ষতির বোধ হয়েছে।

তবে মরিয়ম বলেছেন, বাংলাদেশের সাধরণ ‘চাচা’ সম্পর্কের প্রবীণ পুরুষ সদস্যরা, স্বাধীনতার পক্ষে আক্রমণাত্মকভাবে লড়াই করেননি। এবং তারা ‘উগ্রবাদী’ লেবেলযুক্ত হওয়ার ভয়ে রাজনৈতিক প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে অগ্রসর হননি।

মরিয়ম বলেছিলেন, আমরা মুসলিম ক্ষমাবিদ হয়ে উঠলাম। আমরা সেই মুসলমান নই যে, মুসলিম সম্প্রদায়গুলিকে আমাদের রক্ষা করতে হয়েছিল।

সাম্প্রতিক সময়ে অনেক তরুণ প্রজন্মের নেতাকর্মীরা জেগে উঠেছেন এবং যাদের মধ্যে অনেকেই সাম্প্রদায়িক চাচাদের প্রশ্ন করেছেন। বর্ণবাদিদের দলে যেতে খুব কম ঝুঁকেছেন।

জোবায়দা বলেছেন, প্রথম লড়াইটি ছিল চাচাদের বিরুদ্ধে। আর ট্রাম্পের যুগের লড়াইয়ে অনেক প্রবীণরা দেখছেন যে রাজনীতিবিদরা তাদের বিশ্বাসের মর্জাদা রাখেনি। যা একটি নতুন নেতৃত্ব তৈরির পথ প্রশস্ত করেছে।

তবে নতুন তরঙ্গের সর্বাধিক আলোচিত সদস্য হলেন শাহানা হানিফ, একজন ব্রুকলিনাইট কাউন্সিলম্যান ব্র্যাড ল্যান্ডারের উত্তরসূরি হতে চলেছেন তিনি।

তিনি বলেন, আমি ১৭ বছর বয়সে লুপাসে আক্রান্ত হয়েছি। এবং তাত্ক্ষণিকভাবে আমার যত্ন এবং নিজের অনুভূতির জন্য আমার সম্প্রদায়ের দিকে চেয়ে থাকতে হয়েছিল।

হানিফ স্বাস্থ্যসেবার বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে বাংলাদেশি মহিলাদের সাথে যোগাযোগ করছেন। তিনি বলেছেন, আমি শ্রমজীবীদের​সংহতি গড়ে তোলার লক্ষ্যে এবং বর্ণবাদী সম্প্রদায়ের মধ্যে জোটবদ্ধতা গড়ে তোলার এবং স্বাধীনতার লড়াইয়ে যোগ দেওয়ার লড়াইয়ে এগিয়ে যেতে দেখিনি।

এছাড়াও অন্যান্য বাংলাদেশি প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন একজন উবার চালক ও শ্রম সংগঠক জয় চৌধুরী, যিনি সংসদ সদস্য মাইকেল ডেনডেকারকে অপ্রত্যাশিতভাবে হারানোর প্রত্যাশী; মাহফুজুল ইসলাম, যিনি সংসদ সদস্য ডেভিড ওয়েপ্রিনকে চ্যালেঞ্জ দিচ্ছেন; শনিয়ত চৌধুরী, কংগ্রেস সদস্য গ্রেগরি মিকসের বিরুদ্ধে লড়ছেন।


এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এনওয়াই

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ২৪৮ বার

আপনার মন্তব্য