জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়ার অভিষেক অনুষ্ঠানে সিলেটিদের মিলনমেলা

জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়ার অভিষেক অনুষ্ঠানে সিলেটিদের মিলনমেলা

জালালাবাদ এসোসিয়েশন অব ক্যালিফোর্নিয়ার ২০২১-২৩ সেশনের নবনির্বাচিত কমিটির অভিষেক অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়েছে। গত রবিবার লস এঞ্জেলেসের একটি হল রুমে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে মিলনমেলা বসে স্থানীয় প্রবাসী সিলেটিদের। দীর্ঘদিন পর কমিউনিটিতে এমন আড়ম্পরপূর্ণ অনুষ্ঠানের কারণে সবার মধ্যেই ছিল ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশের পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান এমপি, বিশেষ অতিথি ছিলেন সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী। তারা ভার্চুয়াল মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন লস এঞ্জেলেসে বাংলাদেশের কন্সাল জেনারেল তারেক মোহাম্মদ, কেপিসি গ্রুপের চেয়ারম্যান ড. কালিপ্রদীপ চৌধুরী, এলএইচসিএম ফাউন্ডেশনের প্রেসিডেন্ট মোয়াজ্জেম হোসেন চৌধুরী ও কমার্শিয়াল কন্সাল এস এম খুরশিদ-উল-আলম।

পবিত্র কোরআন তেলাওয়াতের মাধ্যমে সূচিত অনুষ্ঠানের শুরুতে যুক্তরাষ্ট্র ও বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়।


সংগঠনের বিদায়ী কমিটির সভাপতি আসাদুজ্জামান বাচ্চুর সভাপতিত্বে ২ পর্বে অনুষ্ঠিত অনুষ্ঠানের প্রথম পর্ব পরিচালনা করেন বিদায়ী সেক্রেটারি বদরুল আলম মাসুদ। তিনি বিগত সেশনের রিপোর্ট পেশ করেন। রিপোর্টে তিনি গত সেশনের যাবতীয় কার্যক্রম তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বিদায়ী কমিটির মাধ্যমে আমরা সংগঠনের ঐতিহ্যের আলোকে সব কার্যক্রম পরিচালনা করতে চেষ্টা করেছি। তিনি উল্লেখ করেন, করোনা মহামারির কারণে আমাদের অনেক কর্মসূচি বাস্তবায়ন সম্ভব হয়নি। তবে মহামারির এই সময়ে আমরা দেশে বিভিন্ন এলাকায় অসহায় কর্মহীন মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ, পবিত্র রমজান মাসে দরিদ্রদের মাধ্যমে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ এবং বিভিন্ন সহযোগিতা কার্যক্রম পরিচালনা করেছি। আমাদের এসব কার্যক্রম বাস্তবায়নে সহযোগিতা করেছেন সংগঠনে সদস্য এবং শুভাকাঙ্ক্ষীরা। আমরা সবার প্রতি কৃতজ্ঞ। সংগঠনের ফান্ডের ব্যাপারে তিনি উল্লেখ করেন, আমাদের দায়িত্ব নেওয়ার সময় সংগঠনের ফান্ড ছিল ৩০০০ ডলার, বর্তমান ফান্ডে আছে ২৩০০০ ডলার।

এরপর বক্তব্য রাখেন বিদায়ী প্রেসিডেন্ট আসাদুজ্জামান বাচ্চু। তিনি বলেন, সংগঠনের উপদেষ্টা, সদস্যবৃন্দ ও শুভাকাঙ্ক্ষী সবার সহযোগিতায় আমরা বিগত সেশনে সংগঠন পরিচালনা করেছি। এজন্য আমি ব্যক্তিগতভাবে সবার নিকট কৃতজ্ঞ। বিশেষ ধন্যবাদ জানাচ্ছি আমার ক্যাবিনেটের সকল সদস্যকে আমাকে সমর্থন দেওয়ার জন্য। তিনি আরও বলেন, জালালাবাদ আমার প্রাণের সংগঠন। দায়িত্বে না থাকলেও জালালাবাদ অন্তরে থাকবে আজীবন। আমি সবসময় সব কাজে সহযোগিতা করে যাব ইনশাআল্লাহ।