Updates :

        আলাস্কায় ভয়াবহ ভূমিধস: নিখোঁজ ছয়

        একদিনে সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড যুক্তরাষ্ট্রে

        ক্যালিফোর্নিয়ায় বইছে গরম হাওয়া, বিচ্ছিন্ন হবে বিদ্যুৎ

        টিকা বিতরণে প্রস্তুত যুক্তরাষ্ট্র

        চীনা পণ্যের শুল্ক সহসা বাতিল হবে না: বাইডেন

        ইরানে যুক্তরাষ্ট্র হামলা চালালে আমিরাত আক্রমণের হুমকি তেহরানের

        করোনার ভুয়া টিকা নিয়ে ইন্টারপোলে সতর্কতা জারি

        অনুমতি ছাড়া ঢাকায় কোন মিছিল-সমাবেশ করা যাবে না

        ইরানের বিজ্ঞানী হত্যাকাণ্ডে দায়ী ইসরায়েল: মার্কিন কর্মকর্তা

        এপ্রিলের পর আবারো সর্বোচ্চ মৃত্যু যুক্তরাষ্ট্রে

        যুক্তরাষ্ট্রে অবৈধ অভিবাসী গ্রেপ্তার হলে ১০ দিনের মধ্যে আদালতে তোলার নির্দেশ

        চাঁদে চীনের মহাকাশযানের সফল অবতরণ

        শুধু বিএনপি নয়, গোটা দেশই ভয়াবহ দুঃসময় পার করছে: ফখরুল

        ক্যালিফোর্নিয়ায় কর শিথিল, প্রণোদনা ৫০০ মিলিয়ন

        লস এঞ্জেলেসে চলছে 'সংকটপূর্ণ' সময়

        করোনাযোদ্ধাদের জন্য স্টারবাকসের ফ্রি কফি!

        পরিবেশ সংরক্ষণে নজর দিচ্ছেন বাইডেন

        ওমানে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে দুই ভাইসহ তিন বাংলাদেশির মৃত্যু

        ম্যারাডোনার সমাধিতে চুরি: প্রহরায় সশস্ত্র পুলিশ

        নিরীহ আফগান নাগরিকদের হত্যার বিচার চাইল চীন

আইনের বাতিঘর ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই

আইনের বাতিঘর ব্যারিস্টার রফিক-উল হক আর নেই

চলে গেলেন লাইফ সাপোর্টে থাকা আইনের বাতিঘর সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। আজ শনিবার সকাল ৮ টা ৩০ মিনিটে রাজধানীর আদ-দ্বীন হাসপাতালে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্নালিল্লাহি...রাজিউন)। তার বয়স হয়েছিলো ৮৬ বছর।

দেশের বিশিষ্ট আইনজ্ঞ ও সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার রফিক-উল হক গত ১৫ অক্টোবর থেকে বার্ধক্যজনিত নানা জটিলতা নিয়ে রাজধানীর আদ্-দ্বীন হাসপাতালে ভর্তি হন। প্রথম দিকে তাকে কেবিনে রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অবস্থা কিছুটা জটিল হওয়ায় তাকে হাই ডিপেনডেন্সি কেয়ার ইউনিটে (এইচডিইউ) ভর্তি করা হয়।

গত ২০ অক্টোবর তার শারীরিক অবস্থার আরো অবনতি হলে তাকে দ্রুত লাইফ সাপোর্টে নেওয়া হয়। ঐ সময় তার ব্লাড প্রেশার ও অক্সিজেন স্যাচুরেশন কমে যায়। এতে তিনি শকে চলে যান।

এরপর আদ্-দ্বীন হাসপাতালের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. নাহিদ ইয়াসমিন শুক্রবার জানিয়েছিলেন, স্যারের রক্তের পরীক্ষানিরীক্ষাগুলো করা হয়েছে। কিন্তু তাতে খুব একটা উন্নতি দেখা যাচ্ছে না। মেডিক্যাল বোর্ডের চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছি। উনারা সবাই স্যারকে দেখেছেন। তারাও বলেছেন, স্যারের অবস্থা সংকটাপন্ন। আমাদের আল্লাহ তায়ালার কাছে দোয়া করা ছাড়া আর কিছু করার নেই। আমরা চেষ্টা করে যাচ্ছি।

ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের জন্ম ১৯৩৫ সালের ২রা নভেম্বর কলকাতার সুবর্ণপুর গ্রামে। ১৯৫৫ সালে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক, ১৯৫৭ সালে দর্শন বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন তিনি। ১৯৫৮ সালে এলএলবি পাস করেন। ১৯৬২ সালে যুক্তরাজ্য থেকে বার এট ল সম্পন্ন করেন। ১৯৬৫ সালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী হিসেবে এবং ১৯৭৩ সালে আপিল বিভাগে আইনজীবী হিসেবে আইন পেশা শুরু করেন। বর্ণাঢ্য জীবনে আইন পেশায় দীর্ঘ প্রায় ৬০ বছর পার করেছেন।

বিগত সেনাসমর্থিত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগার থেকে মুক্ত করতে

অকুতোভয় আইনি লড়াই করেন তিনি। দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও বিচার বিভাগের স্বাধীনতা ও ভাবমূর্তি রক্ষায় বরাবরই সোচ্চার রফিক-উল হক। দেশের অনেক গুরুত্বপূর্ণ সাংবিধানিক ও আইনি বিষয় নিয়ে সরকারকে সহযোগিতা করেছেন বর্ষীয়ান এই আইনজীবী।

১৯৯০ সালের ৭ই এপ্রিল থেকে ১৭ই ডিসেম্বর পর্যন্ত রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন রফিক-উল হক। কিন্তু কোনো সম্মানী নেননি। পেশাগত জীবনে তিনি কখনো কোনো রাজনৈতিক দল করেননি। তবে, নানা সময়ে রাজনীতিবিদরা সবসময় তাঁকে পাশে পেয়েছেন। রাজনীতিবিদদের সম্মান সবসময়ই অর্জন করেছেন তিনি।

ব্যারিস্টার রফিক-উল হক তাঁর জীবনের উপার্জিত অর্থের প্রায় সবই ব্যয় করেছেন মানুষের কল্যাণ ও সমাজসেবায়। আর তার এই উদ্যোগকে বিরল বলে আখ্যায়িত করেছেন আইন অঙ্গনে তার সমসাময়িকরা।

ব্যারিস্টার রফিক-উল হকের মৃত্যুতে আইন অঙ্গনে নেমে এসেছে শোকের ছায়া। তার মৃততে গভীর শোক প্রকাশ করেছে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতি। এছাড়া সিনিয়র আইনজীবীরাও গভীর শোক প্রকাশ করে শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান। তারা বলেন, আইন ও বিচারাঙ্গনে তার শূণ্যতা পূরণ হবার নয়।

শেয়ার করুন