Updates :

        লস এঞ্জেলেসে আবারও বাড়ছে জ্বালানির মূল্য

        ১০৫ ফ্রিওয়েতে একাধিক গাড়ির সংঘর্ষে হাসপাতালে ৮

        দাহ্য পদার্থ ছড়িয়ে ২ দমকলকর্মীসহ অসুস্থ ৯

        অভিবাসীদের স্টেট আইডি সুবিধা সহজ করে আইন পাশ

        বাংলাদেশে মার্কিন বিনিয়োগের আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

        জাতিসংঘ অধিবেশনে ফিলিস্তিনিকে সমর্থন জানালেন বাইডেন

        পেনসিলভেনিয়ায় বাংলাদেশ প্যারেড ও মেলা অনুষ্ঠিত

        এমসি কলেজে গণধর্ষণ: দুই বছরে সাক্ষ্য গ্রহণই শুরু হয়নি

        অভিনয় পারি কি না, সেটা দেখুন

        শিক্ষা সফরে জাপান যাচ্ছেন ওয়াসার এমডি

        বিশ্ববাজারে জ্বালানি তেলের দাম ৮ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন

        মেসির জোড়া গোল, আর্জেন্টিনার বড় জয়

        মিয়ানমার যুদ্ধবিমান থেকে বাংলাদেশে গুলি, সীমান্তে আতঙ্ক

        বিশ্বে ক্ষুধায় প্রতি ৪ সেকেন্ডে মারা যাচ্ছে একজন

        রাশিয়ার কর্মকাণ্ডে নজর রাখতে বিশ্বনেতাদের প্রতি বাইডেনের আহ্বান

        লস এঞ্জেলেসে পুলিশের গুলিতে আহত ১

        আমেরিকায় ১৫ বছরে সর্বোচ্চ ব্যাংক সুদের হার

        রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আবারও হত্যাকাণ্ড

        জাতিসঙ্ঘে ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের প্রতি আবারো বাইডেনের সমর্থন

        কারাবন্দি স্বামী-স্ত্রীর সঙ্গে সময় কাটাতে ‘কেবিন’ সুবিধা, সময় ২ ঘণ্টা

৯ মাসে সরকারের ঋণ বেড়েছে ১ লাখ কোটি টাকার উপরে

৯ মাসে সরকারের ঋণ বেড়েছে ১ লাখ কোটি টাকার উপরে

বিদয়ী অর্থবছরের (২০২১-২০২২) প্রথম ৯ মাসে সরকারের পুঞ্জীভূত ঋণ বেড়েছে ১ লাখ ৬ হাজার ৩১৭ কোটি টাকা। বর্তমানে সরকারের ঋণের স্থিতি রয়েছে ১২ লাখ ৪৯ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। এই ঋণের মধ্যে অভ্যন্তরীণ ঋণের স্থিতি হচ্ছে ৭ লাখ ৭৭ হাজার ৩৬২ কোটি টাকা (এটি মোট পুঞ্জীভূত ঋণের ৬২%) এবং বৈদেশিক ঋণের স্থিতি হচ্ছে ৪ লাখ ৭১ হাজার ৯০৩ কোটি টাকা (এটি মোট পুঞ্জীভূত ঋণের ৩৮%)।

সরকারের অর্থ বিভাগের করা এক নিজস্ব বুলেটিনে উল্লেখ করা হয়েছে, সমাপ্ত অর্থবছরের(২০২১-২০২২) প্রথম ৯ মাসে (গত মার্চ) সরকারের মোট ঋণস্থিতি (অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক) দাঁড়িয়েছে ১২ লাখ ৪৯ হাজার ২৬৫ কোটি টাকা। এটি মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি)-এর ৩১ দশমিক ৪২ শতাংশ। এর আগে ২০২০-২১ অর্থবছর শেষে বা ২০২১ সালের জুন শেষে সরকারের পুঞ্জীভূত ঋণস্থিতি ছিল ১১ লাখ ৪২ হাজার ৯৪৮ কোটি টাকা। এটি ছিল জিডিপির ৩২ দশমিক ৩৮ শতাংশ। সে হিসাবে ৯ মাসের ব্যবধানে সরকারের ঋণস্থিতি বেড়েছে ১ লাখ ৬ হাজার ৩১৭ কোটি টাকা। তবে টাকার অঙ্কে ঋণস্থিতি বাড়লেও জিডিপির অনুপাতে ঋণস্থিতি কমেছে প্রায় ১ শতাংশ। কারণ এবার নতুন ভিত্তি বছর হিসেবে জিডিপির আকার অনেকখানি বেড়েছে বলে এ ঋণের স্থিতি কমে গেছে।

অর্থ বিভাগ সূত্রমতে, করোনাজনিত কারণে সরকারের ঋণ বেড়ে যাওয়ায় সার্বিক ঋণস্থিতি বেড়েছে। তবে এটি এখনো ঝুঁকিসীমার অনেক নিচে রয়েছে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)-এর ‘টেকসই ঋণ কাঠামো’ (ডেট সাসটেইনেবল ফ্রেমওয়ার্ক-ডিএসএফ)-এর মানদণ্ড অনুযায়ী, জিডিপির ৫৫ শতাংশ ঋণকে ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
অর্থ বিভাগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সরকারের মোট পুঞ্জীভূত ঋণের মধ্যে অভ্যন্তরীণ ঋণের স্থিতি হচ্ছে ৭ লাখ ৭৭ হাজার ৩৬২ কোটি টাকা (এটি মোট পুঞ্জীভূত ঋণের ৬২%) এবং বৈদেশিক ঋণের স্থিতি হচ্ছে ৪ লাখ ৭১ হাজার ৯০৩ কোটি টাকা (এটি মোট পুঞ্জীভূত ঋণের ৩৮%)।

গত ২০২০-২১ অর্থবছর শেষে অর্থাৎ ২০২১ সালের জুন শেষে সরকারের অভ্যন্তরীণ ও বৈদেশিক ঋণের পুঞ্জীভূত স্থিতি ছিল ৭ লাখ ২২ হাজার ৫৯১ কোটি টাকা এবং ৪ লাখ ২০ হাজার ৩৫৮ কোটি টাকা।

সরকারের অভ্যন্তরীণ ঋণস্থিতি পর্যালোচনায় দেখা যায়, ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে গৃহীত ঋণের তুলনায় ব্যাংক-বহির্ভূত খাত থেকে সরকার অধিক পরিমাণ ঋণ নিয়েছে। ব্যাংক ব্যবস্থা থেকে গৃহীত সরকারের পুঞ্জীভূত ঋণের পরিমাণ ৩ লাখ ৬৪ হাজার ৫১৯ কোটি টাকা এবং ব্যাংক-বহির্ভূত খাত থেকে গৃহীত ঋণের পরিমাণ ৪ লাখ ১২ হাজার ৮৪৩ কোটি টাকা। এর মধ্যে সঞ্চয়পত্র খাত থেকে গৃহীত পুঞ্জীভূত ঋণের পরিমাণ হচ্ছে ৩ লাখ ৬২ হাজার ১৬০ কোটি টাকা।

অর্থ বিভাগ বলছে, সঞ্চয়পত্র খাতে চলমান সংস্কার কার্যক্রম এ খাতে সরকারের ঋণ নির্ভরতা কমিয়ে আনবে। একইভাবে অভ্যন্তরীণ ফিন্যান্সিয়াল মাকের্টেরও সংস্কার প্রয়োজন।

অন্যদিকে বৈদেশিক ঋণস্থিতির মধ্যে পুঞ্জীভূত বহুপাক্ষিক ঋণের পরিমাণ ২ লাখ ৮৮ হাজার ৬৯৬ কোটি টাকা (৬১%) এবং দ্বিপাক্ষিক ঋণের পরিমাণ ১ লাখ ৮৩ হাজার ২০৭ কোটি টাকা (৩৯%)।

অর্থ বিভাগ থেকে বলা হয়েছে, সরকারের ঋণ ব্যবস্থাপনার মান উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট অংশীদারদের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে বিদ্যমান ‘মধ্য মেয়াদি ঋণ ব্যবস্থাপনা কৌশল’ আরো আধুনিকায়ন করা হবে এবং আঙ্কটাড-এর কারিগরি সহায়তায় অর্থ বিভাগে ‘ডেট ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল এনালাইসিস সিস্টেম’ নামে একটি কাস্টমাইজ ডাটাবেজ স্থাপন করা হবে। এছাড়া সরকারের বর্তমান ও ভবিষ্যৎ ঋণ পরিস্থিতি আলোচনা ও বিশ্লেষণ, ঋণ গ্রহণের চ্যালেঞ্জগুলো চিহ্নিত করা এবং এ সংশ্লিষ্ট বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ গ্রহণে আগামীতে একটি ‘ঋণ সম্মেলন’-এর আয়োজন করা হবে। এটি চলতি বছরের শেষ দিকে অনুষ্ঠিত হতে পারে।

 

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/বি

[এলএ বাংলাটাইমসের সব নিউজ আরও সহজভাবে পেতে ‘প্লে-স্টোর’ অথবা ‘আই স্টোর’ থেকে ডাউনলোড করুন আমাদের মোবাইল এপ।]

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত