আপডেট :

        অবসরে রোমান সানা

        বিদায় নিচ্ছেন ইলিয়াস কাঞ্চন

        বিমান থেকে গাজায় মানবিক সহায়তা যুক্তরাষ্ট্রের

        বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস

        আবদুল কাদের জিলানী (র:) এর মাজার জিয়ারতের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ

        মিসরে পৌঁছেছে হামাস

        কারাগারে ওসমানীর সাদেক

        দ্রুত বিচার আইন স্থায়ী করতে সংসদে বিল পাস

        বিজেপির প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ

        শাবি প্রেসক্লাবের নবগঠিত কমিটির অভিষেক

        অনির্বাচিত কেউ সংসদে আসতে পারে না: সংসদ স্পিকার

        পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ

        সময়ের আলোর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

        এবারের নির্বাচন সবচেয়ে অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

        এই বাংলাদেশির জন্য ২০ হাজার ডলার পুরস্কার ঘোষণা মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার

        কৃষি বার্ষিক গবেষণা পর্যালোচনা কর্মশালা

        বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ও আহতদের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমবেদনা

        মন্ত্রীর সংবর্ধনায় দু’পক্ষের উত্তেজনা, চেয়ার ভাঙচুর

        যুক্তরাজ্যে গেলেন রাষ্ট্রপতি

        বাসচাপায় পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

ছাত্রলীগ কর্মী আরিফ হত্যা মামলার প্রধান আসামি কারাগারে

ছাত্রলীগ কর্মী আরিফ হত্যা মামলার প্রধান আসামি কারাগারে

সিলেটে ছাত্রলীগ কর্মী আরিফ হত্যা মামলার প্রধান আসামি সিলেট সিটি করপোরেশনের ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর হিরণ মাহমুদ নিপুকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সকাল পৌনে ১১টার দিকে সিলেট মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন নিপুর পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ।

গত ২০ নভেম্বর রাত ১২টার দিকে নগরের বালুচর টিবিগেট এলাকায় আরিফকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায় কয়েকজন যুবক। পরে তাঁকে উদ্ধার করে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে রাত ১টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। আরিফ ছাত্রলীগের রাজনীতিতে সম্পৃক্ত ছিলেন।

নগরের বালুচর টিভিগেট এলাকা দিয়ে যাওয়ার পথে কয়েক যুবক আরিফকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১টার দিকে তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতা হিরন মাহমুদ নিপুকে প্রধান আসামি করে মামলা দায়ের করেন নিহত আরিফের মা আঁখি বেগম। মামলায় ১০ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ০৫ জনকে অজ্ঞাত রেখে ১৫ জনকে আসামি করা হয়।

স্বজনদের অভিযোগ, ঘটনার পর থেকে আসামি নিপু এলাকায় প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়ালেও তাকে পলাতক দেখিয়ে আসছিল পুলিশ।

 এলএবাংলাটাইমস/আইটিএলএস

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত