আপডেট :

        অবসরে রোমান সানা

        বিদায় নিচ্ছেন ইলিয়াস কাঞ্চন

        বিমান থেকে গাজায় মানবিক সহায়তা যুক্তরাষ্ট্রের

        বিশ্ব বন্যপ্রাণী দিবস

        আবদুল কাদের জিলানী (র:) এর মাজার জিয়ারতের জন্য প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ

        মিসরে পৌঁছেছে হামাস

        কারাগারে ওসমানীর সাদেক

        দ্রুত বিচার আইন স্থায়ী করতে সংসদে বিল পাস

        বিজেপির প্রার্থীর তালিকা প্রকাশ

        শাবি প্রেসক্লাবের নবগঠিত কমিটির অভিষেক

        অনির্বাচিত কেউ সংসদে আসতে পারে না: সংসদ স্পিকার

        পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরিফ

        সময়ের আলোর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী

        এবারের নির্বাচন সবচেয়ে অবাধ ও সুষ্ঠু হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

        এই বাংলাদেশির জন্য ২০ হাজার ডলার পুরস্কার ঘোষণা মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার

        কৃষি বার্ষিক গবেষণা পর্যালোচনা কর্মশালা

        বেইলি রোডে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ও আহতদের প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের সমবেদনা

        মন্ত্রীর সংবর্ধনায় দু’পক্ষের উত্তেজনা, চেয়ার ভাঙচুর

        যুক্তরাজ্যে গেলেন রাষ্ট্রপতি

        বাসচাপায় পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

স্মার্টফোন নিরাপদ রাখুন!

স্মার্টফোন নিরাপদ রাখুন!

প্রযুক্তি কেমন দ্রুতগতিতে এগিয়ে চলেছে তা আমরা সহসাই বুঝতে পারি না। তবে আমাদের চোখের সামনেই সবচেয়ে বড় উদাহরণ রয়েছে। স্মার্টফোনের কথাই ভাবুন। প্রতিমাসে নতুন নতুন মডেল বাজারে আনছে বিভিন্ন কোম্পানি। নতুন নতুন ফিচারের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে নতুন নতুন নিরাপত্তাজনিত সমস্যা। সেটাও আমাদের অজানা নয়। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম এমনকি স্বয়ং গুগলও বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে প্রচুর অর্থ আয় করে। আপনার তথ্য আপনারই সম্মতি নিয়ে তারা ব্যবহার করছে।

 

আমাদের দেশে এখনও এ নিয়ে সচেতনতা তৈরি হয়নি। কিন্তু ডিজিটাল আইনের কড়াকড়ি থেকে কিছুটা হলেও ভয় আমাদের আছে। আপনি এখনও নিয়মিত অনলাইনে কেনাকাটার জন্য অ্যাপ ব্যবহার করে থাকেন। এসব অ্যাপও আপনার তথ্য চুরি করে। শুধু কি তথ্য? আপনার পেশা, আর্থিক ও সামাজিক জীবনও যে এরসঙ্গে জড়িয়ে। তাই স্মার্টফোনে তথ্যপাচার রোধে সচেতন হতে হবে। স্মার্টফোনের ক্ষেত্রে সচেতনতার চেয়ে আপনার ডিভাইসে কিছু পরিবর্তন জরুরি। সেগুলো একবার দেখে নিন।

নিয়মিত আপডেট করতে হবে
এখন সব ফোন কোম্পানিই তাদের সিস্টেম সফটওয়ার আপডেট সরবরাহ করে। তবে সব আপডেট যে ভালো তা কিন্তু নয়। বিভিন্ন ফোরামে এসব আপডেটের সম্পর্কে খবর পাবেন। সেই অনুযায়ী আপডেট দিলে ফোনের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে না। এমন হতে পারে এই আপডেট না দিলে আপনার ডিভাইস ও তথ্যের ক্ষতি হতে পার। কারণ নতুন আপডেটে অ্যান্ড্রয়েডের সিকিউরিটি প্যাচের আপডেট থাকে। আবার পুরোনো আপডেটে অ্যাপের কোডে ভুলত্রুটি থাকতে পারে যা আপনার নতুন আপডেট ঠিক করে দিবে। তাই খোঁজ নিয়ে নিয়মিত আপডেট করুন।

লক রাখতে হবে
নতুন ফোন বা পুরোনো ফোন, অনেকেই আলসেমি করে লক ব্যবহার করেন না। আবার অনেকে অ্যান্ড্রয়েডে মাই ডিভাইস সার্ভিস অন করেন না। বিপত্তি বাঁধে যখন ফোনটি চুরি হয়ে যায়। তখন আফসোস করা ছাড়া আর কিছু বাকি থাকে না। তখন চোর কোনো কষ্ট ছাড়াই আপনার সব ডাটা এক্সেস করতে পারে। শুধু তাই নয়, আপনার ফোন রিসেট দিয়ে আবার তারমতো করে ব্যবহারের সুযোগ পায়। তাই ফোন লক ছাড়া রাখা যাবে না। লক ব্যবহার যে খুব ক্ষতির তাও নয়। আজকাল ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর বা ফেস আনলক থাকায় দ্রুতই ফোন আনলক করা যায়।

অফিশিয়াল স্টোর থেকেই অ্যাপ নামাবেন
অ্যান্ড্রয়েডের জন্য অফিশিয়াল সোর্স 'গুগল প্লে স্টোর'। আইফোনে অবশ্য অ্যাপ স্টোর থেকেই অ্যাপ নামাতে হয়। কিন্তু অ্যান্ড্রয়েডে বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকেও বিভিন্ন অ্যাপ নামানো যায়। অনেকে কিছু অ্যাপের প্রিমিয়াম সার্ভিস পাওয়ার জন্য এমন ওয়েবসাইট থেকে অ্যাপ নামান। যেমন স্পটিফাই এর ক্র্যাক ভার্সন নামালে আপনি বিনামূল্যে এর প্রিমিয়াম সার্ভিস ব্যবহার করতে পারবেন। এই আশায় আরও অনেক অ্যাপ ব্যবহার করা যায়। এমনটা করবেন না। বরং অফিশিয়াল স্টোর থেকেই অ্যাপ নামানোর চেষ্টা করুন।

এনক্রিপশন এড়াবেন না
অ্যান্ড্রয়েড ফোনে স্টোরেজ, গ্যালারি, ডকুমেট ভল্ট, আর্থিক লেনদেন সম্পৃক্ত অ্যাপ পাসওয়ার্ড দিয়ে এনক্রিপ্ট করে রাখুন। এমন করলে এসব অ্যাপে কেউ গোপনে অ্যাক্সেস করতে পারবে না।

অ্যাপের পার্মিশন
আজকাল গুগলও মানুষকে নিরাপত্তা রক্ষার সামান্য সুযোগ দিচ্ছে। অ্যাপ ইনস্টল করার পর আপনার কাছে কিছু পার্মিশন চায়। সেটিংস এ গেলেই আপনি বুঝতে পারবেন কোনগুলো। যেসব পার্মিশন সবসময় ওই অ্যাপের প্রয়োজন নেই তা বন্ধ করে রাখুন। তাতে আপনার নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে কিছুটা।

পাসওয়ার্ড ম্যানেজার
ফোনে নোটস কিংবা ডকে ভুলেও পাসওয়ার্ড বা গুরুত্বপূর্ণ তথ্য রাখবেন না। এক্ষেত্রে পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহার করুন। এজন্য আপনাকে হয়তো কিছু টাকা খরচ করতে হতে পারে। কিন্তু পাসওয়ার্ড ম্যানেজার ব্যবহার করলে আপনার পাসওয়ার্ডও হারাবে না এবং যে কেউ চাইলেই এক্সেস পাবে না।

অপ্রয়োজনীয় অ্যাপ ছাটাই করুন
যেসব অ্যাপ প্রয়োজনই নেই, সেসব অ্যাপ দ্রুত বিদায় করুন। অপ্রয়োজনীয় অ্যাপও সার্বক্ষণিক তথ্য পাচার করতে পারে। আপনি এসব ব্যবহার না করলে তো ক্ষতি নেই। ওরা ওদের কাজ ঠিকই করতে পারে।

সারাক্ষণ ডেটা অন রাখবেন না
অনেকেই সারাক্ষণ ওয়াই-ফাই বা মোবাইল ডাটা চালু রাখেন। কোনো প্রয়োজন নেই। ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে অ্যাপও সক্রিয় হয়ে ওঠে। তখন তারা অনলাইনে তথ্য পাচার করতে পারে ব্যাকগ্রাউন্ডে। তাই এখনই সাবধান হয়ে উঠুন।

সবখানে মেইল সাবস্ক্রিপশন নয়
অনলাইনে অনেক সাইটের এক্সেস পেতে হলে ইমেইল আইডি লাগে। তবে চাইলেই ইমেইল অ্যাক্সেস দিয়ে দেবেন না। এমনটা করলে আখেরে আপনারই ক্ষতি হবে। আপনার মেইল আইডি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি যত্রতত্র অ্যাক্সেস দেওয়া ঠিক নয়।

এলএবাংলাটাইমস/আইটিএলএস

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত