যুক্তরাষ্ট্রে আজ মঙ্গলবার, ০২ Jun, ২০২০ ইং

|   ঢাকা - 11:41pm

|   লন্ডন - 06:41pm

|   নিউইয়র্ক - 01:41pm

  সর্বশেষ :

  দেশে করোনায় মারা গেলেন আরও ৩৭ জন, নতুন আক্রান্ত ২৯১১   করোনায় একদিনে আক্রান্ত লাখেরও বেশি, মৃত ৩৫৪৬   শ্বাসরোধেই জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু: ময়নাতদন্ত   দেশে মোবাইল ফোনের কল রেট বাড়ছে   বিক্ষোভকারীদের দমনের নির্দেশ দিলেন ট্রাম্প   কারফিউ-আন্দোলন দুটোই চলছে ক্যালিফোর্নিয়ার বিভিন্ন শহরে   গঠনমূলক কিছু বলুন নয়তো মুখ বন্ধ রাখুন, ট্রাম্পকে পুলিশপ্রধান   করোনায় একদিনে গেল আরও ২২ প্রাণ, আক্রান্ত ৫৫ হাজার ৯৬৮   প্রতিবাদ, ভাঙচুর-লুণ্ঠন, লস এঞ্জেলেসে গ্রেফতার ২১০০   বিক্ষোভ মিছিলে নিউ ইয়র্কের মেয়রের মেয়ে   করোনার কারণে দেশে উপার্জন কমেছে ৭৪ শতাংশ পরিবারে: জরিপ   করোনা মোকাবেলায় দেশকে তিন ভাগে ভাগ করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী   লিবিয়ায় ২৬ বাংলাদেশি হত্যা: মানব পাচারকারী চক্রের হোতা ঢাকায় গ্রেফতার   করোনায় বিশ্বব্যাপী একদিনে মৃত ২৯৪০, আক্রান্তও লাখের বেশি   আ.লীগ নেতা নাসিম করোনায় আক্রান্ত

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

ইন্দোনেশিয়ায় শক্তিশালী ভূমিকম্প, সুনামি সতর্কতা

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-০৮ ০৩:০২:২৩

নিউজ ডেস্ক: ইন্দোনেশিয়ায় একটি শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাতের পর সুনামি সতর্কতা জারি করেছে সে দেশের কর্তৃপক্ষ।

স্থানীয় সময় রোববার রাত ১০টার দিকে উত্তর সুলাবেসি ও মালুকুর মাঝে মলাক্কা সাগরে এ ভূমিকম্প আঘাত হানে বলে জানিয়েছে ইউএসএটুডে ও স্ট্রেট টাইমস।

প্রাথমিকভাবে এতে বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতির খবর পাওয়া যায়নি।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল মানাদোর ১৮৫ কিলোমিটার (১১৫ মাইল) উত্তরপূর্বে ২৪ কিলোমিটার (১৫ মাইল) গভীরে।

ইন্দোনেশিয়ার জিওফিজিক্স সংস্থা টুইটারে একটি গ্রাফিক্স পোস্ট করে বলেছে, সুনামিতে উত্তর সুলাবেসি ও উত্তর মালুকুর বিভিন্ন অংশে অর্ধ মিটার (১.৬ ফুট) উঁচু ঢেউ সৃষ্টি হতে পারে।

সংবাদ সংস্থা এপি এক প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ভুমিকম্পে মালুকুর টার্নেট শহরে আতঙ্ক দেথা দেয়। লোকজন ভয়ে উঁচু স্থানের দিকে দৌঁড়াতে থাকে।

স্থানীয় বেতার কেন্দ্র রেডিও এল সিন্টা জানায়, উত্তর সুলাবেসির রাজধানী মানাদোর বাসিন্দারা ভয়ে তাদের ঘর-বাড়ি ছেড়ে বাইরে বেরিয়ে আসেন।

ইন্দোনেশিয়া  ২৬ কোটি মানুষের একটি বিশাল দ্বীপপুঞ্জ। দেশটি প্রশান্ত মহাসাগরীয় অববাহিকায় ‘ফায়ার অব রিং’ অঞ্চলে। আর এ অঞ্চলে প্রচুর আগ্নেয়গিরি এবং বিশাল চ্যুতি (শিলাস্তরের ফাটল) থাকার কারণে প্রায়ই সেখানকার দ্বীপগুলোতে ভূমিকম্প, আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত এবং সুনামি আঘাত হানে।

উল্লেখ্য, এর আগে ইন্দোনেশিয়ার ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি মানুষ প্রাণ হারায় ২০০৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর। ভারত মহাসাগরে ভূমিকম্পের ফলে সৃষ্ট সুনামিতে ১৪ দেশের ২ লাখ ২৬ হাজার মানুষ প্রাণ হারায়। শুধু ইন্দোনেশিয়াতেই নিহত হয় ১ লাখ ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ।

এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১৮২ বার

আপনার মন্তব্য

সর্বাধিক পঠিত