যুক্তরাষ্ট্রে আজ বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং

|   ঢাকা - 08:36pm

|   লন্ডন - 03:36pm

|   নিউইয়র্ক - 10:36am

  সর্বশেষ :

  মিয়ানমার কারও কথা শোনে না : পররাষ্ট্রমন্ত্রী   পরীক্ষা ছাড়া ভর্তিকে কেন্দ্র করে ঢাবিতে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে ছাত্রলীগের হাতাহাতি   ১৮টি অমুসলিম উপাসনালয়ের অনুমোদন দিচ্ছে আরব আমিরাত   দেশে দুর্নীতি মহামারী আকার ধারণ করেছে : মওদুদ   লাইবেরিয়ায় ধর্মীয় স্কুলে আগুন, নিহত ৩০   ১৮ দিনেও খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ পাননি স্বজনরা, উদ্বেগ   নিউইয়র্কে ইন্টারন্যাশনাল সীরাত কনভেনশন শনিবার   নিউইয়র্কে বিয়ানীবাজার এডুকেশন এন্ড ডেভেলপমেন্ট ট্রাস্টের ক্রিকেট টুনার্মেন্ট সম্পন্ন   ওয়াশিংটন ডিসিতে শুদ্ধ উচ্চারণ ও আবৃত্তি সংগঠন ‘সমস্বর’-এর আত্মপ্রকাশ   বাফলা চ্যারিটির ফান্ড রাইজিং ডিনার রবিবার   দক্ষিণ কোরিয়ার রাজনীতিবিদরা মাথা ন্যাড়া করছেন   বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে আরো ভাগাভাগি হচ্ছে, গণমাধ্যমে আসছে না: আরেফিন সিদ্দিক   ‘জাবির অর্থ কেলেঙ্কারি ফাঁসকারী ছাত্রলীগ নেতারা হুমকির সম্মুখীন’   খালেদা কিছুই দেননি, হাসিনা আমাদের সম্মানিত করেছেন: আল্লামা শফী   রাখাইনে আরও ৬ লাখ রোহিঙ্গা গণহত্যার চরম ঝুঁকিতে : জাতিসংঘ

মূল পাতা   >>   বহিঃ বিশ্ব

পাপুয়া নিউ গিনিতে উপজাতি সংঘাতে নিহত ২৪

নিউজ ডেস্ক

 প্রকাশিত: ২০১৯-০৭-১০ ১৪:১২:৫২

 আপডেট: ২০১৯-০৭-১০ ১৪:১৮:৫৮

নিউজ ডেস্ক: পাপুয়া নিউ গিনিতে উপজাতিদের সংঘাতে অন্তত ২৪ জন নিহত হয়েছে। এদের  মধ্যে অধিকাংশই নারী ও শিশু। গত রোব ও সোমবার দেশটির হেলা প্রদেশের তারি-পোরি জেলায় এ ঘটনা ঘটেছে।

গত কয়েক বছরের মধ্যে এটিকে পাপুয়া নিউ গিনির সবচেয়ে ভয়াবহ উপজাতিগত সহিংসতা বলা হচ্চে। প্রধানমন্ত্রী জেমস মারাপে হামলাকারীদের গ্রেপ্তারের আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, ‘এটা আমার জীবনের সবচেয়ে দুঃখের দিনগুলোর একটি।’

কী কারণে এই হামলা চালানো হয়েছে তা এখনো জানা যায় নি। তবে গত ২০ বছরেরও বেশি সময় ধরে পাপুয়া নিউ গিনিতে গোষ্ঠীগত কারণে উপজাতিদের মধ্যে সংঘাত চলে আসছে।

স্থানীয় বার্তা সংস্থা ইএমটিভি জানিয়েছে, রোববার মুনিমা গ্রামের চার পুরুষ ও তিন নারীকে হত্যা করা হয়। সোমবার কারিদা গ্রামের ১৬ নারী ও শিশুকে হত্যা করা হয়। এদের মধ্যে দুজন সন্তানসম্ভবা ছিলেন।

কারিদা উপ-স্বাস্থ্যকেন্দ্রের ফিলিপ পিমুয়া হামলার সময় ওই গ্রামে ছিলেন।

তিনি বলেন, ‘আমি সকালে ঘুম থেকে উঠে রান্নাঘরে চুলা জ্বালাতে গিয়েছিলাম। ওই সময় আমি গুলির শব্দ শুনতে পাই এবং দেখতে পাই কয়েকটি বাড়ি আগুনে জ্বলছে। আমি বুঝতে পারলাম,শত্রুরা ইতোমধ্যে গ্রামে প্রবেশ করেছে।  আমি দ্রুত দৌঁড়ে একটি ঝোপের ভেতরে লুকিয়ে পড়ি। সকাল ৯টা-১০টার দিকে সেখান থেকে ফিরে আসি এবং খন্ডবিখন্ড মৃতদেহ ও পুড়ে যাওয়া বাড়িঘর দেখতে পাই।’


এই খবরটি মোট পড়া হয়েছে ১১৬ বার

আপনার মন্তব্য

সাম্প্রতিক খবর