Updates :

        সৌদি যুবরাজের বিশেষ বাহিনী বিলুপ্ত করতে সৌদিকে চাপ যুক্তরাষ্ট্রের

        বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন দিবস আজ

        সৌদি যুবরাজের শাস্তি চাইলেন খাশোগির বাগদত্তা চেঙ্গিস

        ক্যালিফোর্নিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত ২, আহত আরো ২ ডেপুটি

        মঙ্গলবার থেকে শুরু হচ্ছে জে এন্ড জে'র টিকা প্রয়োগ

        তৃতীয় নাগরিক প্রণোদনা প্যাকেজে কী থাকছে? জেনে নিন!

        এবার সিডিসির অনুমোদন পেলো জনসন এন্ড জনসনের টিকা

        লিভার সুস্থ রাখবেন যেভাবে

        উদ্বোধনের আগেই ধসে পড়ল সেতু

        আল-আকসা মসজিদ নিয়ে ভিডিও গেম বানাল ফিলিস্তিন

        গোল্ডেন গ্লোবসে ইতিহাস গড়লেন এশিয়ার নারী নির্মাতা ক্লোয়ি জাও

        ভারতও বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করবে: হাইকমিশনার

        ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ঘেরাও কর্মসূচিতে পুলিশের বাধা

        ইসরাইলি জাহাজে ইরানের হামলা!

        হাজী সেলিমের ছেলেকে মাদক মামলা থেকেও অব্যাহতি

        যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশী মালিকানাধীন প্রথম ইউনিভার্সিটির উদ্বোধন

        শিক্ষা ও শিশু স্বাস্থ্যসেবী, খাদ্য ও কৃষিক্ষেত্র এবং আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের টিকার এপয়েনমেন্ট উন্মুক্ত হলো

        ২০২৪ সালের নির্বাচনে লড়বেন ট্রাম্প

        পঞ্চম ধাপের পৌরসভা নির্বাচনে বিজয়ী সব মেয়র আ.লীগের, বিএনপি ও বিদ্রোহী মিলে ২

        ২৬ মাস ধরে তৃতীয় বর্ষে, পরীক্ষার দাবিতে অনশনে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ২ শিক্ষার্থী

আনুশকাহ দিহানের বাবা মায়েরও বিচার হউক

আনুশকাহ দিহানের বাবা মায়েরও বিচার হউক

কোন অপরাধকেই ছোট করে দেখার সুযোগ নেই। আলোচনা সমালোচনা যাই হউক রাজধানীর কলাবাগানে ঘটে যাওয়া ঘটনার মুল হোতা দিহানের বিচার দ্রুত বিচার আইনে হওয়াই দরকার। আইনের সঠিক প্রয়োগে হত্যা ধর্ষণেরমত এমনসব অপরাধ কমে আসবে।তবে এটাও সত্য জিহান এবং আনুশকাহর অভিভাবকদের দ্বায়ও কি আমরা এড়াতে পারি? কোন ভাবেই দ্বায় এড়ানো যাবে না। ঘটনার পর থেকে আমরা যারা জেনে নাজেনে সমালোচনা করছেন তারাও কম অপরাধী নই। দ্বায় সমালেঅচকদেরর অনেক। এ জন্য দিহান আনুশকাহর অভিভাবকদের সাথে সমালোচকদেরও বিচার হওয়া দরকার।
কি অপরাধ এই দুই পরিবারের? গ্রুপষ্টাডির জন্য অভিভাবকদের জ্ঞাতার্থেই আনুশকাহ জিদানদের বাসায় গিয়েছিলো। উঠে আসছে তাদের মধ্যকার সম্পর্কের কথা। অবাধ মেলামেশার সুযেগে জিদানের বাসায় আনুশকাহ গিয়েছে। আর এই সুযোগ পুরটাই গ্রহন করেছে পশুকামি বর্বর জিদান। দু’জনের বয়সই খুব কম। দুই পরিবারেরই তাদের প্রশ্রয় কিংবা দায়িত্ব অবহেলা ছিলো কিনা সেটাও প্রশ্ন থেকে যায়। যেহেতুক ধর্ষনের পর খুনের অভিযোগ উঠছে তাতে প্রেমভালোবাসার কথা বলে জিদানের কিছুটা পক্ষ নেওয়ার কেনই সুযোগ নেই। তার প্রচলিত আইনে সাজা হউক এটা সবারই কাম্য হওয়া উচিৎ।
এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আমরা কিছু অনাকাঙ্খীত কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য দেখছি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যা দেখে ব্যথিতই হতে হয় আমাদের। আনুশকাহর ধর্ষণ ও মৃত্যুর খবরের নিচে অসংখ্য মানুষের নোংরা, অসভ্য, কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করেছেন যা কিনা আরেক ধরনের অপরাধ।  ধর্ষণ কিংবা হত্যার সমর্থন করার অপরাধ এটা। কোন হত্যাকান্ডকেই প্রশ্রয় দেবার সুযোগ নেই; ধর্ষণের ধটনায়তো নয়ই। জিদান আনুশকাহর মধ্যে সম্পর্ক থাকতেই পারে সেটা ভিন্ন কথা। জোড়পূর্বক পশুবৃত্তি অপরাধ। তাদের (সমালোচকদের) জানা থাকতা দরকার স্ত্রীর সাথে জোড়পূর্বক যৌনতাও ধর্ষণের অপরাধ। ক’দিন ধরে সামাজিক যোগাযোগ এমন সব পড়ে কেবলই মনে হয়েছে ওরাও পশু; ওরা আরেক ধরনের ধর্ষক। এরা মানুষ নায়, মানুষরূপী পশু। হত্যার প্রশ্রয়দাতা হিসাবে ওদেরও বিচার হওয়া উচিৎ। এমন একটা একটা ভয়াবহ ঘটনা যা কিনা সারা দেশের মানুষের হৃদয়ে দাগ কেঁটেছেএমন প্রসঙ্গে অযৌক্তিক ও অশ্লীল মন্তব্য ওরা করে কীভাবে? এসব মন্তব্যগুলো প্রকাশ করতেও আমার ঘৃণা হচ্ছে। এমন পশুক শ্রেণীর মানুষ লিখেছে- ইংরেজি মাধ্যমে পড়া ছেলেমেয়েরা নাকি এমনই হয়। আনুশকাহর চরিত্র কেমন ছিলো সেটা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন অনেকে। তার পোশাক কেমন ছিল?মেয়েটি একাএকা বন্ধুর বাড়িতে গেল কেন? তাহলে তো এরকমই হবে। নানা সমালোচনায় যেখানে আমি নিজে অস্থির সেখানে আনুশকাহর পিতামাতা স্বজনদের অবস্থা কেমন হতে পারে তা সহযেই অনুমান করা যায়।
চিকিৎসক মৃত মেয়েটিকে হাসপাতালের মর্গে যেমন কাঁটাছেড়া করেছেন, কথিত ধর্ষক জিদান বিকৃত যৌনাচার চালিয়েতো মেরেই ফেলেছে আনুশকাকে আর আলোচকরাও তাকেসমালোচনার কাঁটাছেড়া করতে এতটুকু দ্বিধা করেনি। এমনকি মেয়েটা যে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে মারা গিয়েছে, এ নিয়েও উল্লাস বাক্য প্রকাশ করেছে কেউ কেউ।কলাবাগানের ঘটনা কি আদৌ ধর্ষণ তা খতিয়ে দেখতে একশ্রেণির সমালোচকতো এরইমধ্যে মাঠে নেমে পড়েছে। এটা ধর্ষণ নাকি সম্মতিক্রমে করা যৌনতা, এটা দুর্ঘটনা নাকি পরিকল্পিত গণধর্ষণ কতশত প্রশ্ন এসব সমালোচকদের মনে।
এ প্রসঙ্গে একটু আলেঅচনা হওয়া দরকার। পরকীয়া, ব্যভিচার, ধর্ষণ, পতিতাবৃত্তি, সমকামিতা এর সবই যৌনতা। কোনটা সেচ্ছায়; আবার কোনটা জোড়পূর্বক।আইনে শাস্তির ভিন্নতাও আছে। ধর্ষণ আর অবৈবাহিক আপোষের যৌনাচার ব্যভিচারের বিচার এক নয়। ধর্ষণ বলে সব যৌনতাকে চালিয়ে দেয়া যাবে না। যেটা আমাদের দেশে হচ্ছে। চুন থেকে পান খসলেই ফাঁসিয়ে দিতে আপোষের যৌনাচারকে ধর্ষন বলে অভিযোগ তোলা হয়। তা মোটেও সমচিন নয়। কোনটাই সমর্থন যোগ্য অপরাধ নয়। শাস্তি যোগ্য সবটাই। তবে সাজার প্রকার প্রকারভেদ আছে। আইনে পরকীয়া, ব্যভিচার, পতিতাগামীতার বিচার অবশ্যই হতে হবে। যেন ধর্ষণের অপরাধে ফেলে সেসব বিচার না হয় সে বিষয়ে প্রশাসন খেয়াল রাখকে হবে।এসব অবৈধ পন্থায় যৌন সম্ভোগ এদেশে শাস্তিযোগ্য অপরাধ। ইসলামী শরীয়াতে সম্পূর্ণ হারাম। রাষ্ট্রিয় বিধান মতে একেকটার একেক ধরনের সাজা রয়েছে। দেশে যেহেতুক ধর্ষণের সর্ব্বোচ্চা সাজা বলবৎ সেজন্য সব অপরাধকেই ধর্ষণের আওতায় এনে অনেকেই আজকাল বাড়তি সুবিধা পেতে আদালতে যান। তখন আপোষে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হওয়া ব্যক্তিটিই সর্ব্বোচ্চ সাজার আওতায় আসেন। তবে পাঠক মনে রাখতে হবে আনুশকাহর ঘটনাটা কিন্তু হত্যান্ড। সেটা কিভাবে ঘটেছে তা আইন আদালকই বের কওে অপরাধীর সাজার ব্যবস্থা করবে।
একটু জেনে নেয়া যাক ধর্ষণ এবং অবৈবাহিক আপোষের যৌনাচার কি? এক নয়। সব যৌনতাকে কোন মতেই ধর্ষণ বলা যাবে না, ধর্ষণ বলে চালিয়ে দেওয়াও ঠিকনা। চুক্তিতে না মিললে পতিতা, কথায় না মিললে াাপোষে যৌন সম্পর্কে লিপ্ত হওয়া নারী সহজেই তা ধর্ষণ বলে চালিয়ে দিচ্ছে। প্রমানও মিলছে ধর্ষণের, সাজাও হচ্ছে ধর্ষণের।এদেশে তা হচ্ছে হরহামেশাই। ধর্ষণের সাজা ইসলামীক এবং রাষ্ট্রিয় সাজা এক ধরনের আবার বিবাহোত্তর যৌনতা এবং বিবাহপূর্ব যৌনতার সাজা আরেক ধরনের। আমাদের দেশে যৌনতা যেভাবেই হউক না কেন সবটাই ধর্ষণের কাতারে ফেলা হয়। গোটা বিষয়টা ধর্ষণ নয়।
জানতে হবে ধর্ষণ কি? জোরপূর্বক অবৈবাহিক যৌনসঙ্গম হলো ধর্ষণ।পারস্পারিক সম্মতিতে বিবাহিতের অবৈবাহিক যৌন সম্পক হলো পরকীয়া। বিবাহোত্তর যৌনতা এবং বিবাহপূর্ব যৌনতা। দুজন অবিবাহিতের পারস্পারিক সম্মতিতে যৌনসঙ্গম হলো ব্যভিচার। অর্থের বিনিময়ে যৌনসঙ্গম হলো পতিতাবৃত্তি। সমলিঙ্গীয় ব্যক্তিদ্বয়ের পারস্পারিক সম্মতিতে যৌন সম্পর্ক হলো সমকামিতা। ধর্মীয় দৃষ্টিতে পরিবারের সদস্য বা অবিবাহযোগ্য রক্তসম্পর্কের ব্যক্তির সঙ্গে যৌনসঙ্গম হলো অজাচার। অমানব পশুর সঙ্গে যৌনসঙ্গমকে পশুকামিতা বলে। আমাদেও দেশে এজাতীয় যৌনতায় লিপ্ত অনেক নারী পুরুষ। এ থেকে পরিত্রানের উপায় কি?
প্রশ্ন হলো, দেশে এত ধর্ষণ, যৌনাচার হচ্ছে কেন? তা রোধের উপায় কি? ধর্ষণ, যৌন নির্যাতন এবং আপোষ যৌনতা বন্ধে আগে আমাদের মানসিকতা বদলাতে হবে। এসব াপরাধ কমাতে হলে মানুষের মধ্যে মানবিক গুণাবলী জাগ্রত করতে হবে। ধর্ষণ, ব্যভিচার রোধে সচেতন হতে হবে। অবাধ মেলামেশার সুযোগ, লোভ-লালসা-নেশা, উচ্চাভিলাষ, পর্ণো-সংস্কৃতির নামে অশ্লীল নাচ-গান, যৌন উত্তেজক বই-ম্যাগাজিন, অশ্লীল নাটক-সিনেমা ইত্যাদি থেকে সরে আসতে হবে। এগুলো বর্জন করতে হবে। পর্ণোসাইটগুলো বন্ধ করতে হবে যেন মোবাইল কিংবা কম্পিউটারে তা দেখা না যায়। ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। বাজে সঙ্গ ও নেশা বর্জন করতে হবে। পাশাপাশি নারীকেও শালিন হতে হবে। যৌন উত্তেজক পোষাক বর্জন করতে হবে। বলা বাহুল্য, প্রবল কামোত্তেজনা মানুষকে পশুতুল্য করে তুলে। এর অন্যতম কারণ কামোত্তেজনা সৃষ্টিকারী উপকরণ। ফলে এগুলো থেকে নিজেকে বাঁচিয়ে রাখতে হবে।
ধর্ষণ, পরকীয়া, ব্যভিচার, পতিতাবৃত্তি, সমকামিতার ভয়াবহতা থেকে বাঁচতে হলে কেবল আইনের কঠোর প্রয়োগে খুব বেশি কাজ হবে না। এর জন্য প্রয়োজন জাতি-ধর্ম নির্বিশেষে যার যার পারিবারিক বলয়ে ধর্মানুশীলনে একনিষ্ঠতা, পোশাকের শালীনতা, অশ্লীল সংস্কৃতিচর্চার পরিবর্তে শিক্ষণীয় বিনোদনমূলক ও শালীন সংস্কৃতি চর্চার প্রচলন নিশ্চিতকরণ। এটা করতে হলে কেবল রাজনৈতিক বক্তৃতা, আইনের শাসন প্রয়োগের কথা বললেই হবে না, সমাজের সর্বস্তরের মানুষ যার যার অবস্থানে থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, ধর্মীয় উপসনালয়ের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তি ও সমাজের বুদ্ধিজীবী ও পেশাজীবীদের সমন্বয়ে উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।
অপসংস্কৃতি আর ভিনদেশী সংস্কৃতির আগ্রাসন ধর্ষণ রোধের অন্তরায় মনে করা হয়। অপসংস্কৃতি আমাদের সমাজকে কতটা ক্ষতবিক্ষত করছে, তা হাল আমলের পরকীয় আর ধর্ষণের চিত্র দেখলেই আন্দাজ করা যায়। শুধু ধর্ষণ, পরকীয়া, ব্যভীচার নয়, ধর্ষণের পর নৃশংস হত্যার ঘটনা অহরহ ঘটছে। অপরাধীর সাজা না হলে এ জাতীয় অপরাধ বাড়তেই থাকবে। বিশ্বের যেসব দেশে এজাতীয় অপরাধ বাড়ছে তার অন্যতম কারণ সাজা না হওয়া। এশিয়ার মধ্যে ভারত ও বাংলাদেশে ধর্ষণের অপরাধ বেশি হয়ে থাকে। ধর্ষণের শিকার বেশিরভাগই নিন্ম ও মধ্যবিত্ত শ্রেণীর। যারা উচ্চবিত্ত, সমাজের ওপর তলার মানুষ, তারা শিকার হচ্ছে কম। যারা নি¤œবর্গের, তারা সম্ভবত এখনও ধর্ষণকে স্বাভাবিকভাবে নেয়। ভয়ে চুপ থাকে। তাদের ধারণা, আইন আদালত করলে তাদের ভাগ্যে উল্টো বিপত্তি ঘটবে। এ মানসিকতা এবং অন্যায় করে অপরাধির পার পেয়ে যাওয়ার কারণেই দেশে ধর্ষন বেড়ে গেছে। দেশপ্রেম, সততা, নৈতিক মূল্যবোধ ইত্যাদির নেতিবাচক মানসিকতার বিস্তৃতি ঘটছে। সমাজ থেকে মূল্যবোধ ও নীতি-নৈতিকতা হারিয়ে যাচ্ছে। নিঃশর্ত ভালবাসা বা ভক্তি কমে যাওয়ার কারণে আমাদের গঠনমূলক মনোভাব বা সৃষ্টিশীলতা নষ্ট হচ্ছে। এ কারণে বিপরীত লিঙ্গের প্রতি শ্রদ্ধার পরিবর্তে আমাদের ভোগের মনোভাব সৃষ্টি হচ্ছে।
বাংলাদেশে অবৈধ যৌনাচার দিনদিন বাড়ছে। এসব অপরাধ বৃদ্ধির জন্য সরকার ও তার প্রশাসনের ব্যর্থতাই দায়ী বেশি। কারণ, অন্যায়কারী জঘণ্য অন্যায় করার পরও আইনের যথাযথ প্রয়োগ হয় না। এজন্য অবশ্য রাজনৈতিক চাপও দায়ী। অনেক ক্ষেত্রে আইন সমানভাবে কার্যকর হয় না। উচ্চ শ্রেণীর নারীরা নিরাপত্তার ঘেরাটোপে বাস করেন বলে তারা এর শিকার কম হয়। আসল সমস্যাটা হলো একশ্রেণীর কুরুচিপূর্ণ পুরুষের দৃষ্টিভঙ্গি। এমনকি শিক্ষাগত যোগ্যতাও তাদের এই মানসিকতা বদলাতে পারে না। তা নাহলে বিশ্ববিদ্যালয়ের মত স্থানে শিক্ষকের হাতে ছাত্রী, ডাক্তারের হাতে রোগী ধর্ষণের শিকার হয় কি করে? এমন সুশিক্ষিত মানুষ পরকীয়াও জড়াচ্ছে এমন খবর াামরা পত্রিকায় দেখতে পাই।
এযাবৎ কতগুলো পরকীয়া, ব্যাভিচার আর ধর্ষণ ও ধর্ষণজনিত হত্যাকান্ডেরযথাযথ বিচার সম্পন্ন হওয়েছে। গত দশ বছওে কটা। খুব কম। এর কারণ, সামাজি ও রাজনৈতিক চাপ, চুড়ান্ত রিপোর্টে ঘাপলা নয়তো স্বাক্ষ্যপ্রমাণ প্রভাবিত করে অপরাধী পার পেয়ে গেছে। উপরন্তু এর বিচার চাইতে গিয়ে বিচারপ্রার্থীরা পাল্টা হুমকির সম্মুখীন হয়েছে। এ অবস্থা থেকে আমাদের অবশ্যই বেরিয়ে আসতে হবে।
উপরোক্ত বিষয়টি ধর্ষকদের পক্ষে ভেবে পাঠক ভুল করবেন না প্লিজ। ধর্ষণ যেমন অপরাধ আবার অন্য অপরাধে ধর্ষণের দ্বায়ে ফাঁসিয়ে দেওয়াও অপরাধ। ধর্ষন করে কোন ধর্ষক যেন পার না পায় সেটা নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। এদেশে ধর্ষণ বে[েড়ছে এটা বলতেই হবে। এটাও স্পষ্ট যে ধর্ষকদেও প্রায় ক্ষেত্রেই বিচার হচ্ছে না। ১৯৯৫ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ বিশেষ বিধান আইন করা হয়। পর্যায়ক্রমে ২০০০ সালে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন করা হয়। ২০০৩, ২০১৯ সালে এ আইন আবার সংশোধন করা হয়। ধর্ষণের শাস্তি কত ভয়ানক, তা অনেকেই জানেন না। নারী ও শিশু নির্যাতন আইনের ৯ ধারায় ধর্ষণের বিচার হয়। এ আইনে ধর্ষণের সর্বনি¤œ শাস্তি পাঁচ বছরের কারাদন্ড এবং সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড করা হয়েছে। আইনের ৯(১) ধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো পুরুষ কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে, তাহলে সে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডনীয় হবে। এ ছাড়া অর্থদন্ডও দিতে হবে। ৯(২) উপধারায় বলা হয়েছে, যদি কোনো ব্যক্তি কর্তৃক ধর্ষণ বা ওই ধর্ষণ-পরবর্তী তার অন্যবিধ কার্যকলাপের ফলে ধর্ষিত নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে, তাহলে ওই ব্যক্তির মৃত্যুদন্ড বা যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ড দন্ডনীয় হবে। অতিরিক্ত এক লাখ টাকা অর্থদন্ডে দন্ডিত হবে। উপধারা ৯(৩)-এ বলা হয়েছে, যদি একাধিক ব্যক্তি দলবদ্ধভাবে কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে এবং ধর্ষণের ফলে ওই নারী বা শিশুর মৃত্যু ঘটে বা তিনি আহত হন, তাহলে ওই দলের প্রত্যেক ব্যক্তি মৃত্যুর জন্য দায়ী। যদি কোনো ব্যক্তি কোনো নারী বা শিশুকে ধর্ষণ করে মৃত্যু ঘটানোর বা আহত করার চেষ্টা করে, তাহলে ওই ব্যক্তি যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত হবে ও এর অতিরিক্ত অর্থদন্ডেও দন্ডিত হবে। বলা বাহুল্য, ধর্ষণের আইন আছে ঠিকই তবে তার যথাযথ প্রয়োগ নেই বললেই চলে। আইন যারা প্রয়োগ করবেন তারা ঐ আইনের পথে হাঁটে না। কখনো অর্থের লোভ কখনোবা হুমকি ধমকিতে শুরুতেই গলদ দেখা দেয়। মামলার চার্জসিট গঠনের সময় ফাঁক ফোকর থেকে যায়। তাই আদালতের রায়ে ধর্ষিত কিংবা নির্যাতনের শিকার সঠিক বিচার থেকে বঞ্চিত হয়। এসব মামলার ক্ষেত্রে চার্জসিট গঠনের সময় কোন ম্যাজিস্ট্রেট অথবা পুলিশের কোন পদস্থ কর্মকর্তার নজরদারি করা যেতে পারে। এ ক্ষেত্রে চূড়ান্ত রিপোর্টের সময় ভিক্টিমের স্বাক্ষাৎকার গ্রহণ করা যেতে পারে। এতে চার্জসিট দাখিলের ক্ষেত্রে যে জটিলতা তৈরি হয় তা কমে আসবে।
নারীদের জন্য ঘরের বাইরে নিরাপদ পরিবেশ নিশ্চিত করতে হবে। এটা স্পষ্ট যে বিচারহীনতার সংস্কৃতিই অপরাধীকে প্রশ্রয় দিচ্ছে। এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলা জরুরী। এজন্য সততা, আন্তরিকতা ও বিচক্ষণতার সঙ্গে কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা উচিৎ। সেসঙ্গে এক ধরনের অপরাধের জন্য অপরাধীকে অন্য ধরনের অপরাধে সাজা যেন ভোগ না করতে হয় তা সরকার সংশ্লিষ্টদেও সজাগ থেকে দায়িত্বশীল ভুমিকা পালন করতে হবে। পরকীয়া, ব্যভিচার, ধর্ষণ, পতিতাবৃত্তি, সমকামিতা এসব যৌনতা বন্ধে এবং নারী নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য যা যা করা দরকার প্রশাসন তা সুনিশ্চিত করবে- এটাই সকলের প্রত্যাশা।

 

লেখক : সাংবাদিক, কলামিষ্ট।

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত