আপডেট :

        বৈরি আবহাওয়ায় বাতিল হচ্ছে ফ্লাইট

        সরকারি অর্থে ঋষি সুনাকের বাগানের জন্য কেনা ভাস্কর্য নিয়ে বিতর্ক

        জরুরি অবস্থা ঘোষণা ইতালিতে

        ‘কৃত্রিম সূর্য’ তৈরিতে বড় অগ্রগতি

        এবার এসএসসিতে গড় পাসের হার ৮৭.৪৪%

        দুপুর ১টায় প্রধানমন্ত্রীর কাছে এসএসসি ও সমমানের ফল হস্তান্তর

        ডেঙ্গুতে আক্রান্ত রোগীর ৬০ শতাংশই ঢাকায়

        ফিজিওথেরাপিতে নাসার প্রযুক্তি ব্যবহার নেইমারকে সারিয়ে তুলতে

        রোনালদোদের আজ উরুগুয়ে পরীক্ষা

        মরক্কোর কাছে হারের পর দাঙ্গা বেধেঁছে বেলজিয়ামে

        টানটান উত্তেজনার মধ্য দিয়ে স্পেন-জার্মানির ম্যাচে সমতা

        ক্যালিফোর্নিয়ার সময় অনুযায়ী ম্যাচ সিডিউল: ২৮ নভেম্বর

        এসএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ কাল

        সান বার্নার্ডিনোয় সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত ২, আহত ১

        বিদ্যুৎবিহীন পরিস্থিতিতে জেলেনস্কির সমালোচনার শিকার কিয়েভের মেয়র

        অর্থনৈতিক সংকটের কারণে এ বছর হচ্ছে না পদ্মা ও মেঘনা বিভাগ

        জাতীয় গ্রিডে যুক্ত হলো ৪০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ

        গুগলে সবচেয়ে বেশি খোঁজা হয়েছে সাবেক এই তারকা দম্পতিকে

        তিনা-রিয়াজ আহমেদ দম্পতি পুত্র সন্তানের মা-বাবা হয়েছেন

        সড়ক দুর্ঘটনার কবলে জনপ্রিয় অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তী

এবারের মতো পার পেয়ে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

এবারের মতো পার পেয়ে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তাঁর বিরুদ্ধে উত্থাপিত অনাস্থা ভোটে জিতে গেছেন। ফলে প্রধানমন্ত্রী পদে থাকছেন তিনি। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

বরিস জনসন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন কি না, এ বিষয়ে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় গোপন ব্যালটে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এ ভোটে বরিসের পক্ষে ২১১ ভোট পড়েছে এবং বিপক্ষে পড়েছে ১৪৮ ভোট। ভোট গণনা শেষে রাতে কনজারভেটিভ পার্টির ১৯২২ কমিটির সভাপতি স্যার গ্রাহাম ব্রেডি এই ভোটের ফলাফল ঘোষণা করেন।

গত বছর করোনা মহামারির সময় লন্ডনে যখন কঠোর বিধিনিষেধ চলছিল তখন ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে মদের পার্টির আয়োজন করে তীব্র সমালোচনার জন্ম দিয়েছিলেন বরিস জনসন। তখন তাঁর পদত্যাগ দাবি করেন অনেকে। এমনকি তাঁর নিজ দলের সংসদ সদস্যরাও ক্ষুব্ধ হন।

এ ছাড়া গত বছর সারা দেশে যখন প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুতে জাতীয় শোক চলছিল, তখন ডাউনিং স্ট্রিটে তিনি পার্টির আয়োজন করেছিলেন। জমকালো ওই পার্টির আয়োজন করা হয়েছিল বরিসের যোগাযোগবিষয়ক পরিচালক জেমস স্ল্যাকের বিদায় উপলক্ষে। পরে অবশ্য এ ঘটনার জন্য ব্রিটিশ রানির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন বরিস জনসন। তাঁকে মোটা অঙ্কের জরিমানাও দিতে হয়েছে তাঁকে।

এ সব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার দলীয় পার্লামেন্ট সদস্যদের অনাস্থা ভোটের মুখে পড়েন বরিস জনসন।

কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্ব নির্বাচনের কাজ করে থাকে দলটির ‘১৯২২ কমিটি’। এই কমিটির কাছে দলের ১৫ শতাংশ সংসদ সদস্য যদি চিঠি দিয়ে দলের নেতা ও প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন, তাহলে তা অনাস্থা ভোটে গড়ায়। এর আগে নিজ দল কনজারভেটিভ পার্টির ৫৪ আইনপ্রণেতা বরিসের বিদায় চেয়ে চিঠি দিয়েছিলেন।

 

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এল

[এলএ বাংলাটাইমসের সব নিউজ আরও সহজভাবে পেতে ‘প্লে-স্টোর’ অথবা ‘আই স্টোর’ থেকে ডাউনলোড করুন আমাদের মোবাইল এপ।]

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত