Updates :

        নাইজেরিয়ায় সন্ত্রাসী হামলায় ৩০ সেনা নিহত

        পাগলা মসজিদের দানবাক্সে মিলল ৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা

        কেন্টাকিতে গুলিতে ৩ পুলিশ কর্মকর্তা নিহত

        নানাবিধ সংকটে সিলেট-সুনামগঞ্জের বন্যাদুর্গতরা

        চর দেখতে যুক্তরাষ্ট্র-অস্ট্রেলিয়া সফরে ২০ সরকারি কর্মকর্তা

        বুয়েটে চান্স পেয়ে আবরার ফাহাদের ছোট ভাইয়ের আবেগঘন স্ট্যাটাস

        বিএনপির ত্রাণ বিতরণ স্থলে আ’লীগের কর্মসূচি, ১৪৪ ধারা জারি

        নুপুর শর্মাকে জাতির কাছে ক্ষমা চাইতে বললেন ভারতের সুপ্রিম কোর্ট

        লিভারপুলে আরও ৩ বছর থাকছেন সালাহ

        নৌকায় করে মালয়েশিয়ায় প্রবেশের সময় ৩৭ বাংলাদেশি আটক

        মেরিল্যান্ডে সাধু আন্তনীর পর্ব উদযাপন

        ২৭ বছরের সম্পর্কের ইতি টানলেন মীর

        আফগান আলেমদের বৈঠকে তালেবানের শীর্ষ নেতা

        ‘বাংলাদেশ পুলিশ দেশের জনগণের প্রথম ভরসাস্থল হতে চায়’

        সুনামগঞ্জে বন্যায় ১৮০০ কোটি টাকার ক্ষতি

        ইয়েমেনে প্রায় দুই কোটি মানুষ ক্ষুধার্ত

        পদ্মা সেতুর নাট খোলার ভিডিও পোস্ট করায় আরেক যুবক গ্রেফতার

        পেনসিলভেনিয়ায় নাট্য সংগঠনের পুনর্গঠনের লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা

        গুগল সার্চে সবার আগে যারা

        ইউক্রেনকে আরো ১৩০ কোটি মার্কিন ডলার দিল যুক্তরাষ্ট্র

এবারের মতো পার পেয়ে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

এবারের মতো পার পেয়ে গেলেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তাঁর বিরুদ্ধে উত্থাপিত অনাস্থা ভোটে জিতে গেছেন। ফলে প্রধানমন্ত্রী পদে থাকছেন তিনি। ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসি এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

বরিস জনসন প্রধানমন্ত্রী থাকবেন কি না, এ বিষয়ে গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় গোপন ব্যালটে ভোট অনুষ্ঠিত হয়। এ ভোটে বরিসের পক্ষে ২১১ ভোট পড়েছে এবং বিপক্ষে পড়েছে ১৪৮ ভোট। ভোট গণনা শেষে রাতে কনজারভেটিভ পার্টির ১৯২২ কমিটির সভাপতি স্যার গ্রাহাম ব্রেডি এই ভোটের ফলাফল ঘোষণা করেন।

গত বছর করোনা মহামারির সময় লন্ডনে যখন কঠোর বিধিনিষেধ চলছিল তখন ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে মদের পার্টির আয়োজন করে তীব্র সমালোচনার জন্ম দিয়েছিলেন বরিস জনসন। তখন তাঁর পদত্যাগ দাবি করেন অনেকে। এমনকি তাঁর নিজ দলের সংসদ সদস্যরাও ক্ষুব্ধ হন।

এ ছাড়া গত বছর সারা দেশে যখন প্রিন্স ফিলিপের মৃত্যুতে জাতীয় শোক চলছিল, তখন ডাউনিং স্ট্রিটে তিনি পার্টির আয়োজন করেছিলেন। জমকালো ওই পার্টির আয়োজন করা হয়েছিল বরিসের যোগাযোগবিষয়ক পরিচালক জেমস স্ল্যাকের বিদায় উপলক্ষে। পরে অবশ্য এ ঘটনার জন্য ব্রিটিশ রানির কাছে ক্ষমা চেয়েছেন বরিস জনসন। তাঁকে মোটা অঙ্কের জরিমানাও দিতে হয়েছে তাঁকে।

এ সব ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার দলীয় পার্লামেন্ট সদস্যদের অনাস্থা ভোটের মুখে পড়েন বরিস জনসন।

কনজারভেটিভ পার্টির নেতৃত্ব নির্বাচনের কাজ করে থাকে দলটির ‘১৯২২ কমিটি’। এই কমিটির কাছে দলের ১৫ শতাংশ সংসদ সদস্য যদি চিঠি দিয়ে দলের নেতা ও প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগ দাবি করেন, তাহলে তা অনাস্থা ভোটে গড়ায়। এর আগে নিজ দল কনজারভেটিভ পার্টির ৫৪ আইনপ্রণেতা বরিসের বিদায় চেয়ে চিঠি দিয়েছিলেন।

 

এলএবাংলাটাইমস/এলআরটি/এল

[এলএ বাংলাটাইমসের সব নিউজ আরও সহজভাবে পেতে ‘প্লে-স্টোর’ অথবা ‘আই স্টোর’ থেকে ডাউনলোড করুন আমাদের মোবাইল এপ।]

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত