আপডেট :

        চার স্টেশন বন্ধ, দুই ভাগে চলছে ট্রেন

        বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) গেটে আগুন

        বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) গেটে আগুন

        ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশের ভেতরে থেকে পুলিশদের উদ্ধার করতে হেলিকপ্টার

        একটি মাত্র ভিসায় ৬টি দেশ ভ্রমণ করা যায়

        প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আইনমন্ত্রী সংবাদ মাধ্যমে আলোচনা করবেন আইনমন্ত্রী

        ‘কমপ্লিট শাটডাউন’ কর্মসূচি ঘিরে দেশের বিভিন্ন জায়গায় সড়কে যান চলাচল বন্ধ

        হামলার ঘটনাকে ‘নৃশংস’ উল্লেখ করে একের পর এক পদত্যাগ

        শুধু কোটা নয়, গোটা দেশ সংস্কার প্রয়োজন

        মোবাইল ইন্টারনেট সেবা বিঘ্ন হওয়ার তথ্য জানিয়েছেন ব্যবহারকারীরা

        ইউরো শেষে পদত্যাগ করলেন সাউথগেট

        ফ্লাইওভারে সং ঘ র্ষের ঘটনায় এক তরুণ নি হ ত

        রাহুল গান্ধী পরিপক্ব রাজনীতিবিদে পরিণত হয়েছেন মন্তব্য করলেন অমর্ত্য সেন

        ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু সাঈদের হত্যাকারীদের বিচারের দাবী

        ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আবু সাঈদের হত্যাকারীদের বিচারের দাবী

        সিদ্ধান্ত মোতাবেক হল ছেড়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ জানালো ঢাবি কর্তৃপক্ষ

        ট্রাম্পকে জয়ী করতে মাসে ৪৫ মিলিয়ন ডলার দেওয়ার প্রতিশ্রুতি ইলন মাস্কের

        ইতালিতে ‘দাসের জীবন’ থেকে মুক্তি পেলেন ৩৩ শ্রমিক

        ট্রাম্পকে ‘আমেরিকার হিটলার’ বলা জেডি ভ্যান্সই এখন তাঁর রানিং মেট

        শিয়া মসজিদে হামলার দায় স্বীকার করলো আইএস

জরুরি বিভাগে জায়গা নেই, সুরক্ষা উপকরণ সংকট

জরুরি বিভাগে জায়গা নেই, সুরক্ষা উপকরণ সংকট

ছবি: এলএবাংলাটাইমস

ক্যালিফোর্নিয়ার হাসপাতালগুলো করোনা রোগীতে প্রায় পূর্ণ হয়ে যাচ্ছে। বেশিরভাগ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আসন সংকট দেখা দিয়েছে। হাসপাতালের সক্ষমতা বাড়াতে প্রয়োজনীয় উপকরণের ঘাটতিও রয়েছে৷ এরই মধ্যে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আসন্ন সপ্তাহগুলোতে করোনার সংক্রমণ আরো বাড়বে৷

মহামারি শুরু পরে লস এঞ্জেলেসে বেশকিছু অস্থায়ী হাসপাতাল ও করোনা চিকিৎসাকেন্দ্র খুলেছিলো। এছাড়া স্যান পেড্রো হারবরে নেভি হাসপাতালও চালু করা হয়েছিলো। তবে পরবর্তীতে এসব হাসপাতালে প্রয়োজনীয় উপকরণ সংকট দেখা দেয়। এছাড়া এসব স্বাস্থ্যকেন্দ্রে অন্যান্য হাসপাতালগুলোর কতো চিকিৎসা সেবাও ছিলো না।

স্বাস্থ্য ব্যবস্থা এভাবে বিপর্যস্ত হওয়ায় কর্তৃপক্ষ শুধু খুব জরুরি রোগীদেরই আগে চিকিৎসা দেওয়ার কথা ভাবছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এভাবে চলতে থাকলে খুব শীঘ্রই জরুরি বিভাগ পূর্ণ হয়ে যাবে।

ইতোমধ্যে করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনতে বেশকিছু পদক্ষেপ নিয়েছে ক্যালিফোর্নিয়া কর্তৃপক্ষ। ক্যালিফোর্নিয়ার প্রায় ৮৫ শতাংশ বাসিন্দাকে স্টে হোমের আওতায় আনা হয়েছে।

যেসব অঞ্চলের হেলথ কমপ্লেক্স কিংবা হাসপাতালে ইনসেনটিভ কেয়ারের স্থান সংকুলান ১৫ শতাংশে কমে আসবে, সেসব অঞ্চলেই 'স্টে-এট-হোম' অর্ডার জারি করা হয়েছে।

সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার হাসপাতাগুলোতে ইনসেনটিভ কেয়ারের স্থান সংকুলান ব্যবস্থা নেমে এসেছে ১২ শতাংশে, আর স্যান জোয়াকুইন এ মাত্র ৮ শতাংশ আসন খালি রয়েছে।

এলএবাংলাটাইমস/ওএম

শেয়ার করুন

পাঠকের মতামত